আজঃ বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১
শিরোনাম

লকডাউনে সঙ্গীর সাথে হয়ে উঠুন রোমান্টিক

প্রকাশিত:রবিবার ৩০ মে ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ৩০ মে ২০২১ | ২৫৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
সারাদিন একসঙ্গে থাকার পরও কি দু’জনের একান্তে সময় কাটানো হচ্ছে না। সর্বক্ষণ হয় তো যার যার মতো বাসা-বাড়ি বা অফিসের কাজ করছেন। অবসরে অনলাইনে ড্রামা-সিরিয়াল ইত্যাদি নিয়ে ব্যস্ত

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের জন্য ২০২০ সালের মার্চ থেকে অফিস-আদালতসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান বন্ধ। তবে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি জারি করে সীমিত আকারে কিছু কিছু অফিস-আদালতসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠান খোলা রাখা হয়েছে। চরম সত্য যে, করোনা সংক্রমণ আসার পর মানুষজন এখন আগের মতো বেশি সময় বাইরে থাকছে না। অধিকাংশ সময়ই বাসা-বাড়িতে সময় কাটান। আর এই দীর্ঘ সময় সঙ্গীর সঙ্গে থাকতে থাকতে বিরক্ত হওয়া স্বাভাবিক। অনেকের ক্ষেত্রে আবার তর্ক-বিতর্ক থেকে ছোট ছোট ঝগড়াও হচ্ছে।

কোনো সম্পর্কই সহজ নয়। একটি সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার জন্য দুজনকেই ত্যাগ স্বীকার করতে হয়। লকডাউনের এই সময় সম্পর্ক মজবুত করতে দুজনকেই বেশ কিছু উপায় অবলম্বন করতে হবে। এতে করে সম্পর্ক যেমন মধুর হবে তেমনই দুজনের মধ্যে বাড়বে প্রেম-ভালোবাসা।

একান্তে সময় কাটানো : সারাদিন একসঙ্গে থাকার পরও কি দুজনের একান্তে সময় কাটানো হচ্ছে না। সর্বক্ষণ হয় তো যার যার মতো বাসা-বাড়ি বা অফিসের কাজ করছেন। অবসরে অনলাইনে ড্রামা-সিরিয়াল ইত্যাদি নিয়ে ব্যস্ত। আবার টেবিলে বসে খাওয়ার সময় হাতে ফোন। এসব সময় থেকে কিছু সময় বের করে দুজন একসঙ্গে কিছুক্ষণ সময় কাটান। দুজন একসঙ্গে চা বা কফি খাওয়া, হাতে হাত রেখে হাঁটা কিংবা বাসা-বাড়ির বাইরে একটু ঘুরে আসা। এতে পরস্পর ভালোবাসা বাড়বে।

চমক দেয়া : যেকোনো কিছুর শুরুতে অনেক চমক থাকে। নতুন সম্পর্কের শুরুতে সঙ্গীকে চেনা-জানা এসবই নতুন অভিজ্ঞতা। আর এসবের প্রতি খুবই আগ্রহ থাকে তখন। তবে সম্পর্ক যখন গভীর হয় তখন এসব ধীরে ধীরে হারিয়ে যায়। আর ঘরবন্দি সময়ে তো এটা আরও বেশি অনুভব হয়। তাই মাঝে মধ্যেই ক্যান্ডেলনাইট ডিনার, আয়নার সামনে চিরকুটে প্রেমের বার্তাসহ অন্যান্য পছন্দের কাজ করে চমকে দিন সঙ্গীকে।

একসঙ্গে নতুন কিছু করা : অবসর সময়ে দুজন আলাদা আলাদা না থেকে একসঙ্গে কিছু করার পরিকল্পনা করুন। হতে পারে সঙ্গীকে রান্নায় সহযোগিতা করা, দুজনে গল্প করা, অনলাইনে কোনো কিছু শেখা, বাগানের যত্ন নেয়া ও বাসা-বাড়ির দেয়াল একসঙ্গে সাজিয়ে তোলা। দেখবেন দুজনের মধ্যেই স্বস্তির হাসি ফুট উঠবে।

ডেট করা : ডেট করা বলা মানে এই নয় বাসা-বাড়ির বাইরে যেতে হবে। বারান্দা বা ছাদও হয়ে উঠতে পারে এই রোমাঞ্চের জায়গা। মোমবাতির হালকা আলোয় একজন অপরজনকে ঝাপটে ধরুন। কপালে চুমু দিন। এসময় সঙ্গীর সঙ্গে ফ্লার্ট করা একদম বন্ধ করা যাবে না। এতে মনের সকল ক্ষোভ দূর হয়ে যাবে।


আরও খবর
বাবার জন্য ভালোবাসা

রবিবার ২০ জুন ২০21




‘যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এসএসএফ প্রশিক্ষিত এবং দক্ষ হবে’

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৫ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৫ জুন ২০২১ | ১১৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

প্রতিনিয়ত প্রযুক্তির আধুনিকায়ন এবং অপরাধের ধরন পরিবর্তনের কথা তুলে ধরে তার সঙ্গে তাল মিলিয়ে স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্সের (এসএসএফ) দক্ষতা ও প্রশিক্ষণ বৃদ্ধির কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, আমাদের সব সময় চেষ্টা ছিল, আধুনিক জগতের সঙ্গে তালমিলিয়ে আমাদের এই বিশেষ বাহিনীও সেভাবে প্রশিক্ষিত হবে এবং তাদের দক্ষতাও সবসময় বৃদ্ধি পাবে।

আজ মঙ্গলবার (১৫ জুন) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত বিশেষ এই বাহিনীটির ৩৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে তিনি এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সংযুক্ত হন তিনি।

তিনি বলেন, একেক সময় একেক ধরনের সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের উৎপত্তি হয়। সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের ধরনটাও পাল্টায়। আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে আমরা যেমন আধুনিক জীবনমান উন্নত করতে পারি, তেমনি আবার অপরাধীরাও; যারা সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের সঙ্গে জড়িত, তারাও কিন্তু এই প্রযুক্তিই ব্যবহার করে নতুনভাবে অপরাধ করে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আধুনিক প্রযুক্তি আমরা ব্যবহার করছি। তাতে জীবন গতিশীল হচ্ছে, কর্মক্ষেত্র বিস্তৃত হচ্ছে। আমাদের সুযোগ দিচ্ছে। সেই সাথে সাথে অপরাধীরাও সুযোগ পাচ্ছে, জঙ্গিরাও সুযোগ পাচ্ছে।

বিশেষ এই বাহিনীর দক্ষতা বৃদ্ধিতে নিয়মিতই দেশে-বিদেশে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। ভবিষ্যতেও এ ধরনের সুযোগ থাকবে বলেও আশ্বাস দেন তিনি।

এসএসএফ-এর সদস্যদের দক্ষতার প্রশংসা করে শেখ হাসিনা বলেন, শুধু আমাদের দেশের রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রী নয়, বিদেশি অতিথিরা আসলেও তাদের নিরাপত্তা দেওয়া- এটা একটা কঠিন দায়িত্ব। তবে আমি ধন্যবাদ জানাই, অভিনন্দন জানাই, যখনই যিনি (অতিথি) এসেছেন আমাদের এসএসএফ সদস্যরা এতো চমৎকারভাবে তাদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেছেন তাদের (বিদেশি অতিথি) প্রত্যেকেই প্রশংসা করেছেন। সকলেই এসএসএফ সদস্যদের দক্ষতা এবং আন্তরিকতা দেখে মুগ্ধ হয়েছেন।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনে এসএসএফের ভুমিকার প্রশংসা করেন প্রধানমন্ত্রী। অনুষ্ঠানে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষ্যে স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্সের পক্ষ থেকে ১০০টি গৃহহীন পরিবারের জন্য দুই কোটি টাকার একটি ব্যাংক ড্রাফট প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট হস্তান্তর করেন বাহিনীর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. মজিবুর রহমান।

মুজিববর্ষে স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্সের ৩৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর স্মারক হিসেবে এসএসএফ-এর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. মজিবুর রহমান সম্পাদিত মুজিব-বাঙালি-বাংলাদেশ নামে একটি ই-বুক উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।

রাষ্ট্র ও সরকার প্রধান এবং সরকার ঘোষিত অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের নিরাপত্তার জন্য ১৯৮৬ সালে রাষ্ট্রপতি নিরাপত্তা বাহিনী গঠিত হয়। পরবর্তীকালে এই বাহিনীকে স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্স হিসেবে নতুন নামকরণ করা হয়। বাংলাদেশ সেনা, নৌ, বিমান, পুলিশ ও আনসার বাহিনী থেকে প্রেষণে নিযুক্ত কর্মকর্তাদের নিয়ে স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্স গঠিত।


আরও খবর



সাতক্ষীরায় দ্বিতীয় দফায় লকডাউন চলছে

প্রকাশিত:রবিবার ১৩ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৩ জুন ২০২১ | ৮২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সাতক্ষীরায় দ্বিতীয় দফায় লকডাউন চলছে। আজ রোববার সকাল থেকে ব্যারিকেড বসিয়ে জনসমাগম ও যানবাহন চলাচল নিয়ন্ত্রণ করছে পুলিশ। তবে লকডাউনে খানিকটা ঢিলেঢালাভাব দেখা গেছে। জরুরি সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান খোলা রয়েছে। এ ছাড়া খুলনা ও যশোর থেকে সাতক্ষীরায় প্রবেশের পথ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

এদিকে, সাতক্ষীরায় করোনা সংক্রমণের হার আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। আজ রোববার সকাল পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় সাতক্ষীরায় ৮১ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৫২ জনের করোনা পজিটিভ এসেছে। শনাক্তের হার ৬৪ দশমিক ২০ শতাংশ।

সাতক্ষীরায় পর্যাপ্ত চিকিৎসক ও শয্যা সংকটে করোনা রোগীদের চিকিৎসা দিতে হিমশিম খাচ্ছে স্বাস্থ্য বিভাগ। বর্তমানে জেলায় ৬৮৩ জন কোভিড রোগী রয়েছে। তাদের মধ্যে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১৫০ জন ও সদর হাসপাতালে ৩৫ জন চিকিৎসাধীন। অন্য রোগীরা প্রাতিষ্ঠানিক ও পারিবারিক কোয়ারেন্টিনে রয়েছে।

সাতক্ষীরার সিভিল সার্জন ডা. হুসাইন শাফায়েত জানান, মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কোভিড রোগীদের জন্য আটটি আইসোলেশন ও ১৩৫টি শয্যা ছাড়াও আট শয্যার নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র (আইসিইউ) রয়েছে। এ ছাড়া সদর হাসপাতালের করোনা ইউনিটে শয্যা রয়েছে মাত্র ৩৫টি। আরও শয্যা ও জনবল না থাকায় চিকিৎসা দিতে হিমশিম খাচ্ছেন চিকিৎসকেরা।


আরও খবর



সরকারবিরোধী বিক্ষোভে কলম্বিয়ায় নিহত ১০

প্রকাশিত:রবিবার ৩০ মে ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ৩০ মে ২০২১ | ৯৬জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দক্ষিণ আমেরিকার দেশ কলম্বিয়ায় প্রায় দুই মাস ধরে চলছে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ। দীর্ঘ সময় ধরে চলা এই বিক্ষোভ শুক্রবার (২৮ মে) সহিংসতায় রূপ নেয়। দেশটির ক্যালি শহরে বিক্ষোভ দমন করতে গুলি চালালে কমপক্ষে ১০ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

শনিবার (৩০ মে) বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে বলা হয়, বিক্ষোভ দমন করতে শুক্রবার ক্যালিতে সেনাবাহিনী নামান দেশটির প্রেসিডেন্ট ইভান ডিউক। এ সময় বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলি চালালে ১০ জন মারা যান। যাদের মধ্যে ৮ জনই গুলিবিদ্ধ হয়েছিলেন।

বার্তা সংস্থার ওই প্রতিবেদেনে বলা হয়, ছুটিতে থাকা একজন তদন্ত কর্মকর্তা মানুষের জমায়েতে গুলি করেন। এতে একজন বেসামরিক লোক নিহত হন। পরে বিক্ষোভকারীরা ওই কর্মকর্তাকেও পিটিয়ে হত্যা করেন।

২০১৯ সালে ক্ষমতায় আসেন ডিউক। পরের বছরেই বিনামূল্যে সরকারি শিক্ষা, উন্নত কর্মসংস্থান ও জনমুখী সরকারের দাবিতে শিক্ষার্থীরা রাস্তায় নেমে আসেন। তবে চলতি বছর এপ্রিলের শেষে প্রস্তাবিত কর বৃদ্ধির বিরুদ্ধে মধ্যবিত্ত মানুষ রাস্তায় নেমে আসেন।

 

নিউজ ট্যাগ: কলম্বিয়া

আরও খবর
করোনার ডেল্টা প্লাসে প্রথম মৃত্যু

বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১




স্বাস্থ্যখাত নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ এখন ফ্যাশন : জাহিদ মালেক

প্রকাশিত:শনিবার ১২ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১২ জুন ২০২১ | ৮২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

স্বাস্থ্যখাতের বড় কোনো দুর্নীতি হয়েছে এমন প্রমাণ এখন পর্যন্ত কেউ দেখাতে পারেনি বলে মন্তব্য করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। শনিবার (১২ জুন) দুপুরে রাজধানীর জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে এক অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি অংশ নিয়ে তিনি এ মন্তব্য করেন।

স্বাস্থ্যখাত নিয়ে টিআইবির প্রতিবেদনে ভুল তথ্য উপস্থাপন করা হয়েছে জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেছেন, স্বাস্থ্যখাতে দুর্নীতির অভিযোগ করাটা এখন অনেকেরই একটি ফ্যাশনে পরিণত হয়েছে।

জাহিদ মালেক বলেন, বেসরকারি হাসপাতালের টেস্টিং জালিয়াতি, একজন ড্রাইভার বা নিম্নপদস্থ কর্মচারীর দুর্নীতি বা বিচ্ছিন্ন কোনো কর্মকর্তার মাধ্যমে অস্বচ্ছতার খবর ছাড়া কেউ স্বাস্থ্যখাতের বড় কোনো দুর্নীতি দেখাতে পারেনি। এক্ষেত্রে যারাই স্বাস্থ্যখাতে অনিয়ম করেছে, তাদেরকেই আইনের আওতায় এনে বিচার করা হয়েছে বলেও তিনি জানান।

তিনি বলেন, টিআইবি বলেছে দেশে কোভিড টেস্টিং সুবিধা বাড়ানো হয়নি। অথচ দেশে এখন করোনার নমুনা পরীক্ষার জন্য একটি থেকে পরীক্ষাগার ৫১০টি করা হয়েছে।

টিআইবি বলেছে, হাসপাতালে বেড বাড়ানো হয়নি, অথচ এখন দেশে করোনা বেড সংখ্যা ১৫ হাজারেরও বেশি। কিছুদিন আগেও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন হাসপাতালে প্রায় এক হাজার বেড বাড়ানো হয়েছে, যেখানে প্রায় সবই সেন্ট্রাল অক্সিজেন সুবিধাপ্রাপ্ত এবং সেখানকার অর্ধেক সংখ্যকেই আইসিইউ সুবিধা রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, করোনার এই কঠিন পরিস্থিতির সময় টিআইবি মাঠে নেমে কোনো কাজ করেনি। মাঠে কাজ করেছে দেশের স্বাস্থ্যখাতের চিকিৎসক, নার্সসহ অন্যান্য ফ্রন্টলাইন যোদ্ধারা। শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত রুমে বসে তারা মুখস্থ বিদ্যার মতো ঢালাওভাবে স্বাস্থ্যখাতের সমালোচনা করেছে।


আরও খবর



টিকার নামে সবাই মুলা দেখিয়ে যাচ্ছে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২২ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২২ জুন ২০২১ | ৫২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বিভিন্ন দেশ বাংলাদেশকে করোনাভাইরাসের টিকা দেবে বললেও এখন তা আশ্বাসের পর্যায়েই রয়েছে। কেউই দিচ্ছে না। এজন্য এটাকে মুলা দেখানোর সঙ্গে তুলনা করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. আবদুল মোমেন। তিনি বলেছেন, টিকার জন্য আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা করছি। তবে টিকা নিয়ে সবাই মুলা দেখাচ্ছে। টিকা পেতে যুক্তরাষ্ট্রের সেক্রেটারি অব স্টেটকে চিঠি দিয়েছি। যুক্তরাষ্ট্র কোভ্যাক্সের আওতায় আমাদের টিকা দেবে। তবে কবে, কীভাবে দেবে সেটা এখনো জানা যায়নি।

মঙ্গলবার দুপুরে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

কবে নাগাদ টিকা পাওয়া যাবে এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, টিকা নিয়ে সুখবর পাবো, কিন্তু কবে পাবো সেটি এখন বলতে পারছি না। পৃথিবীর ধনী সাতটি দেশ অর্থাৎ জি-৭ ১০০ কোটি টিকা দেবে বলে আমাদের জানিয়েছে। খালি শুনছি দেবে কিন্তু দেয়ার কথা কেউ বলছে না, শুধু আশ্বাস দিচ্ছে।

মন্ত্রী বলেন, অনেকে বলে যে দেব, কিন্তু কেউ দেয় না। আবার দেয়ার সময় জিজ্ঞাসা করে যে, অমুক জিনিসে আমাকে সমর্থন দেবেন কি না। এখন দেখা যাচ্ছে এটিকে একটি অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে।

আবদুল মোমেন বলেন, একটা মজার কাহিনি বলি। আমেরিকার অনেক ব্যক্তিবিশেষ আমাদের জানিয়েছেন যে, অমুক লোক অনেক টিকা দিতে পারবেন। সবচেয়ে মজার বিষয় হচ্ছে, আমেরিকার লোক আমাদের জানিয়েছে, তারা রাশিয়ান টিকার ডিলারশিপ পেয়েছে, কিন্তু রাশিয়া সরকার আমাদের জানিয়েছে তাদের কোনো ডিলারই নেই।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ভ্যাকসিন একটা মজার জিনিস। এখন সাংবাদিক, সাহিত্যিক, গায়ক, ব্যবসায়ী সবাই এখন ভ্যাকসিন ব্যবসায়ী।


আরও খবর