আজঃ মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

মালয়েশিয়ায় ১১৮ বাংলাদেশি গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:শনিবার ২৭ মে ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ২৭ মে ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

মালয়েশিয়ার আইনপ্রয়োগকারী বিভিন্ন সংস্থা অভিযান চালিয়ে ১৬২ জন অভিবাসী নির্মাণ শ্রমিককে গ্রেপ্তার করেছে। তাদের মধ্যে বাংলাদেশি অভিবাসী শ্রমিক রয়েছেন অন্তত ১১৮ জন।

আরও পড়ুন: আমরা চাই ভিসানীতির আওতায় জ্বালাও-পোড়াও বন্ধ হোক: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

গ্রেপ্তার হওয়া অন্যদের মধ্যে মিয়ানমারের ২৩ জন, ইন্দোনেশিয়ার ১১ জন ও পাকিস্তানের ১০ জন শ্রমিক রয়েছেন। দেশটির রাজধানী কুয়ালালামপুরের জালান বুকিট কিয়ারা এলাকায় একটি নির্মাণাধীন ভবনে বৃহস্পতিবার অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

আরও পড়ুন: অসাংবিধানিক উপায়ে ক্ষমতায় যেতে চাওয়া রাষ্ট্রদ্রোহিতা: মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

বিবৃতিতে জানানো হয়, কোনো বৈধ কাগজপত্র না থাকায় তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। অবৈধ অভিবাসীদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলবে।

কুয়ালালামপুরের ফেডারেল টেরিটরি মন্ত্রণালয়ের নিয়ন্ত্রণাধীন সংস্থা দেওয়ান বান্দারায়া কুয়ালালামপুর (ডিবিকেএল) শুক্রবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে দেওয়া এক পোস্টে এই তথ্য জানিয়েছে।

আরও পড়ুন: পদ্মায় ধরা পড়ল সাড়ে ২৭ কেজির কাতল

এতে বলা হয়েছে, বৈধ নথিপত্র না থাকায় ১৬২ নির্মাণ শ্রমিককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে ১১৮ বাংলাদেশি, মিয়ানমারের ২৩, ইন্দোনেশিয়ার ১১ এবং পাকিস্তানের ১০ নাগরিক রয়েছেন।


আরও খবর



আজ থেকে নতুন সূচিতে চলছে মেট্রোরেল

প্রকাশিত:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

ঈদুল আজহার ছুটি শেষে আজ বুধবার থেকে আবার খুলছে দেশের সরকারি, আধা সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও আধা স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান। এদিন থেকে নতুন সময়সূচিতে অর্থাৎ ৮ ঘণ্টা অফিস করবেন সব প্রতিষ্ঠানের চাকরিজীবীরা। পরিবর্তিত সূচি অনুযায়ী, অফিসের সময় আবার সকাল নয়টা থেকে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত হবে। এর সঙ্গে মিল রেখে মেট্রেরেলের সূচিতেও আনা হয়েছে পরিবর্তন। পরিবর্তন হয়েছে মেট্রোরেলের পিক ও অফ পিক আওয়ারের সময়।

সম্প্রতি বিষয়টি নিশ্চিত করে ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক এমএএন ছিদ্দিক জানিয়েছেন, ৬ জুন সরকার থেকে অফিসের সময়সূচি সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত করা হয়েছে। এই সময়সূচি ঈদের পর ১৯ জুন থেকে কার্যকর হবে। সেজন্য মেট্রোরেলের পিক ও অফ পিক আওয়ারের সময়েও পরিবর্তন আনা হয়েছে।

নতুন সূচি অনুযায়ী, উত্তরা উত্তর থেকে মতিঝিল পর্যন্ত সকাল ৭টা ১০ মিনিট থেকে সকাল ৭টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত আগের মতো স্পেশাল অফ পিক থাকবে। এই সময় হেডওয়ে হবে ১০ মিনিট। আর সকাল ৭টা ৩১ মিনিট থেকে সকাল ১১টা ৩৬ মিনিট পর্যন্ত পিক আওয়ার। এই সময় হেডওয়ে হবে ৮ মিনিট।

সকাল ১১টা ৩৭ মিনিট থেকে দুপুর ২টা ২৪ মিনিট পর্যন্ত অফ পিক আওয়ার। এ সময় হেডওয়ে হবে ১২ মিনিট। আবার দুপুর ২টা ২৫ মিনিট থেকে রাত ৮টা ৩২ মিনিট পর্যন্ত পিক আওয়ার। এ সময় হেডওয়ে হবে ৮ মিনিট। রাত ৮টা ৩৩ মিনিট থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত স্পেশাল অফ পিক। এ সময় মেট্রোরেলের হেডওয়ে হবে ১০ মিনিট।

তিনি আরও জানান, মতিঝিল থেকে উত্তরা উত্তর পর্যন্ত সকাল ৭টা ৩০ মিনিট থেকে সকাল ৮টা পর্যন্ত স্পেশাল অফ পিক। এ সময় হেডওয়ে ১০ মিনিট। সকাল ৮ টা ১ মিনিট থেকে বেলা ১২টা ৮ পর্যন্ত পিক আওয়ার। এ সময় হেডওয়ে হবে ৮ মিনিট। বেলা ১২টা ৯ মিনিট থেকে বিকেল ৩টা ৪ মিনিট পর্যন্ত স্পেশাল অফ পিক। এ সময় হেডওয়ে হবে ১২ মিনিট।


আরও খবর



শ্রীলংকার লিগে শরিফুলদের বিপক্ষে তাসকিনদের জয়

প্রকাশিত:শনিবার ০৬ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ০৬ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

শ্রীলংকার ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ এলপিএলে এবার বাংলাদেশ থেকে খেলতে গেছেন তাওহিদ হৃদয়, মোস্তাফিজুর রহমান, শরিফুল ইসলাম ও তাসকিন আহমেদ। এর মধ্যে আজই লিগটিতে প্রথমবারের মতো খেলতে নেমেছেন তাসকিন। তবে হতাশ হতে হয়নি বাংলাদেশের এই পেসারকে। শরিফুল ইসলামের দল ক্যান্ডি ফ্যালকনসের বিপক্ষে রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে ২ রানের জয় পেয়েছে তাসকিনের কলম্বো স্ট্রাইকার্স।

ডাম্বুলায় প্রথমে ব্যাট করে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৯৯ রানের বিশাল সংগ্রহ গড়ে কলম্বো। দলটির হয়ে ৪৩ বলে সর্বোচ্চ ৭০ রান করেন কিউই তারকা গ্লেন ফিলিপস। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৮ রান আসে অ্যাঞ্জেলো পেরেরার ব্যাটে। কলম্বোর হয়ে এদিন ব্যাট করতে হয়েছে তাসকিনকেও। তবে মন্দ করেননি। ৩ বল মোকাবেলায় ১টি ছক্কা মেরে ৭ রান করে আউট হয়েছেন।

কলম্বোর প্রথম উইকেটটি শিকার করেছেন ক্যান্ডির বাংলাদেশি বোলার শরিফুল। রাহমানুল্লাহ গুরবাজকে কামিন্দু মেন্ডিসের হাতে ক্যাচ দিতে বাধ্য করেন এই পেসার। পরে কলম্বোর আটে নামা ব্যাটার চামিকা করুনারত্নেকেও ফেরান এই বাঁহাতি। ২ উইকেট নিলেও বল হাতে বেশ খরুচে ছিলেন শরিফুল। ৪ ওভারের কোটা পূর্ণ করে ৪৩ রান দেন তিনি।

বোলিংয়ে কলম্বোর হয়ে প্রথম উইকেট নেন তাসকিনও। দিনেশ চান্দিমালকে সরাসরি বোল্ড করেন এই ডানহাতি পেসার। প্রথমদিকে ২ ওভার করার পর তাসকিনকে দিয়ে শেষের দিকে ২ ওভার করান কলম্বোর অধিনায়ক থিসারা পেরেরা। নিজের করা শেষ ওভারে ১২ রান দিলেও সবমিলিয়ে বোলিং খারাপ করেননি তাসকিন। ৪ ওভারে মাত্র ৩০ রান দিয়ে ১ উইকেট নিয়েছেন।

কলম্বোর জয়ের নায়ক মূলত মাথিশা পাথিরানা। ৪ ওভারে মাত্র ২৬ রান দিয়ে তুলে নিয়েছেন ৪ উইকেট। এর মধ্যে এক ওভারেই ৩ উইকেট নিয়ে খেলার মোড় ঘুরিয়ে দেন তিনি। শেষ বলে ৩ রান দরকার ছিল ক্যান্ডির। তবে পেরেরার ইয়র্কারে আর পেরে উঠেননি স্ট্রাইকে থাকা ম্যাথিউস। ২ ওভারে ১৮ রান দিয়ে ১ উইকেট নেন কলম্বোর অধিনায়ক। ক্যান্ডির হয়ে সর্বোচ্চ ৫৬ রান করেন দলটির পাকিস্তানি তারকা মোহাম্মদ হারিস।


আরও খবর



বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটে বার্ষিক গবেষণা অগ্রগতি ও পরিকল্পনা প্রণয়ন শীর্ষক কর্মশালা

প্রকাশিত:রবিবার ২৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৩ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ময়মনসিংহ প্রতিনিধি

Image

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের স্বাদুপানি কেন্দ্রের (ময়মনসিংহ) উদ্যোগে বার্ষিক গবেষণা অগ্রগতি (২০২৩-২৪) ও গবেষণা পরিকল্পনা (২০২৪-২৫) প্রণয়ন শীর্ষক আঞ্চলিক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শনিবার (২২ জুন) সকালে বিএফআরআই অডিটরিয়ামে আঞ্চলিক কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. মুহাম্মদ জুলফিকার আলীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর ড. মোঃ আব্দুল আউয়াল। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের মাৎস্যবিজ্ঞান অনুষদের ডীন (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর ড. মোঃ আলী রেজা ফারুক, মৎস্য অধিদপ্তর ময়মনসিংহ বিভাগের উপ-পরিচালক মোঃ নজরুল ইসলাম। এছাড়াও কর্মশালার শুরুতেই স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের পরিচালক (অর্থ ও প্রশাসন) ড. অনুরাধা ভদ্র।

কর্মশালায় বক্তারা বলেন, দেশের ক্রমবর্ধমান জনগোষ্ঠীর পুষ্টি চাহিদা পূরণ, কর্মসংস্থান, দারিদ্র্যমোচন ও রপ্তানি আয়ে মৎস্য খাতের অবদান আজ সর্বজনস্বীকৃত। নদীমাতৃক ছোট আমাদের এই দেশ মাছ উৎপাদনে চীনের মতো দেশকে পিছনে ফেলে সেকেন্ড পজিশনে চলে এসেছে। দেশের মৎস্য খাতে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে প্রায় এক কোটি ৯৫ লাখ মানুষ সম্পৃক্ত। মাছ উৎপাদন, আহরণ, বিপণন, প্রক্রিয়াজাতকরণ, রপ্তানিসহ মৎস্য খাতে এ মানুষরা কাজ করেন। এক সময় মাছ চাষে অনেকের অনাগ্রহ ছিল। এখন শিক্ষিত জনগোষ্ঠী মাছ চাষ, প্রক্রিয়াজাতকরণ ও রপ্তানিতে সম্পৃক্ত হয়েছে।

বক্তারা আরও বলেন, ২০৩০ সালে আমাদের মৎস্য উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ৬৫ লাখ মেট্রিক টন এবং ২০৪১ সালের স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে ৮৫ লাখ মেট্রিক টন নির্ধারণ করা হয়েছে। উল্লিখিত লক্ষ্যমাত্রা অর্জন ও টেকসই মৎস্য উৎপাদন নিশ্চিতকল্পে আমরা সবাই মিলে কাজ করছি।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, মৎস্যবিজ্ঞান অনুষদের শিক্ষকবৃন্দ, বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের অন্যান্য কর্মকর্তা এবং প্রিন্ট ও ইলেকট্রিক মিডয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।


আরও খবর



মাটির নিচে রাশিয়ার গোপন ঘাঁটি, আছে হেলিপ্যাড-রেলপথও

প্রকাশিত:রবিবার ৩০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ৩০ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

দশকের পর দশক পেরিয়ে গেছে কিন্তু রহস্যঘেরা এক পর্বতে গোপনে কী কার্যক্রম চালাচ্ছে রাশিয়া, তা আজও জানতে পারেনি যুক্তরাষ্ট্র। সেই ১৯৯৫ সালে স্যাটেলাইট ইমেজে উরাল পর্বতমালায় রাশিয়ার গোপন কার্যক্রম ধরা পড়ে। কিন্তু সেখানে আরও কয়েক দশক আগে থেকে কার্যক্রম চালিয়ে আসছে রাশিয়া। মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ রাশিয়ার রহস্যময় এই প্রজেক্ট নিয়ে প্রতিবেদন তৈরি করেছে। কিন্তু রাশিয়ার কথিত এরিয়া ৫১ আজও গোয়েন্দাদের কাছে রহস্যে ঘেরা।

রাশিয়ার বাশকোর্তোস্তান অঞ্চলের বেলোরেতস্কি জেলায় অবস্থিত রহস্যে মোড়া মাউন্ট ইয়ামান্তাউ। এটি দক্ষিণ উরাল বিভাগের সর্বোচ্চ পর্বত এবং দক্ষিণ উরাল নেচার রিজার্ভের মধ্যে অবস্থিত একটি পর্বত। পর্বতটির চারদিক ঘন জঙ্গলে মোড়া। কিন্তু কেন এই পর্বত ভয়ংকর এবং রহস্যে মোড়া? মনে করা হয়, ইয়ামান্তাউের নিচে পুরোদস্তুর একটি সামরিক ঘাঁটি তৈরি করে রেখেছে রাশিয়া। কারও কারও মতে এটি পৃথিবীর বৃহত্তম সামরিক বাঙ্কারও।

যদিও রাশিয়ার সরকার কখনও সেখানে সামরিক ঘাঁটি বা বাঙ্কারের অস্তিত্বের কথা স্বীকার করেনি। তবে ওই বাঙ্কারের অস্তিত্ব সংক্রান্ত বিভিন্ন প্রমাণ বিভিন্ন সময়ে প্রকাশ্যে এসেছে। ১৯৮০ সালের গোড়ার দিকে ইয়ামান্তাউ পর্বতের বাঙ্কার নিয়ে প্রথম জল্পনা-কল্পনা তৈরি হয়। স্যাটেলাইট ইমেজে দেখা যায়, ওই পর্বতের দক্ষিণ দিকে একটি বিস্তৃত বনাঞ্চল কেটে ফেলেছে রাশিয়া। তার পর থেকেই নাকি সেখানে লাগাতার কাজ চালিয়ে গেছে দেশটি। ধারণা করা হয়, আশির দশকের শেষের দিকে পর্বতের নিচে বাঙ্কার তৈরির কাজ সম্পূর্ণ করে ফেলেছিল রাশিয়া।

শোনা যায়, ইয়ামান্তাউ পর্বতের ভূগর্ভস্থ বাঙ্কার ১০০ কিলোমিটারের বেশি দীর্ঘ এবং ৬০০ মিটারেরও বেশি গভীর। ওই বাঙ্কারে নাকি বিভিন্ন ধরনের অত্যাধুনিক প্রযুক্তি এবং সুযোগ-সুবিধা রয়েছে।

বিভিন্ন প্রতিবেদন অনুযায়ী, রাশিয়ার ওই গোপন সামরিক ঘাঁটি পরমাণু হামলা রোধ করতেও সক্ষম। নিমেষে শত্রুপক্ষের বিমান ধ্বংস করতে পারে এমন ভূমি থেকে আকাশ ক্ষেপণাস্ত্র, ট্যাঙ্করোধী ক্ষেপণাস্ত্র, এমনকি যুদ্ধবিমানও নাকি মজুত রয়েছে বাঙ্কারটিতে।

রাশিয়া ওই বাঙ্কারের মধ্যে পারমাণবিক অস্ত্রও মজুত রেখেছে বলে শোনা যায়। রয়েছে গবেষণাগারও। সেখানে বিপজ্জনক সব সামরিক অস্ত্র নিয়ে পরীক্ষা চালানো হয়। রাশিয়ার গোপন ওই বাঙ্কারের কয়েক হাজার মানুষ একসঙ্গে থাকতে পারেন। থাকতে যাতে কোনও অসুবিধা না হয়, এ জন্য বাঙ্কারের মধ্যেই নাকি হাসপাতাল, খাবার উৎপাদনের ব্যবস্থা, জল পরিশোধন ব্যবস্থা, এমনকি বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রও রয়েছে। রয়েছে হেলিপ্যাড এবং রেলপথও।

তবে রাশিয়া পর্বতের নিচে ওই বাঙ্কার থাকার বিষয়টি বরাবর গুজব বলে উড়িয়ে দিয়েছে। তাই ইয়ামান্তাউ পর্বতকে ঘিরে তৈরি হওয়া রহস্যের কোনও সমাধান হয়নি। সত্যিই যদি ইয়ামান্তাউ পর্বতের নিচে কোনও বাঙ্কার থেকে থাকে, তাহলে সেটি কোন উদ্দেশ্যে তৈরি করা হয়েছে, তাও স্পষ্ট নয়। তবে অন্য কোনও দেশের সঙ্গে যুদ্ধ বাধলে রাশিয়ার হয়ে নেতৃত্ব দিতে পারে ভূগর্ভস্থ ওই বাঙ্কার। অনেকে এ-ও মনে করেন যে, যুদ্ধ পরিস্থিতি তৈরি হলে রাশিয়ার শীর্ষ নেতাদের সুরক্ষিত রাখতে ওই বাঙ্কার তৈরি করা হয়েছে।


আরও খবর



দুর্নীতি মামলায় ৭০ লক্ষ রুপি ফেরত দিতে চান ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত

প্রকাশিত:বুধবার ০৩ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৩ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

টালিউড অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত রেশন দুর্নীতি মামলায় জবাবদিহি করতে ইডি কার্যালয়ে হাজিরা দিয়ে ৭০ লক্ষ রুপি ফেরত দেয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন।

হিন্দুস্তান টাইমস বাংলার প্রতিবেদন অনুযায়ী, ইডিকে ৭০ লাখ রুপি ফেরত দিতে চান ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। ইডি সূত্রের প্রাথমিক খবর অনুযায়ী, ব্যাংকের লেনদেনের তথ্যর উপর ভর করেই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ঋতুপর্ণাকে তলব করেছিলেন এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টোরেটের কর্মকর্তারা। প্রথমবার যেতে পারেননি অভিনেত্রী।

সেসময় ইমেইলের মাধ্যমে জানিয়েছিলেন, বিদেশে থাকার কারণে তার পক্ষে দেখা করা সম্ভব হচ্ছে না। দেশে ফিরেই তিনি ইডি কর্তাদের সঙ্গে দেখা করবেন। সেই মতোই গত ১৯ জুন সিজিও কমপ্লেক্সে পৌঁছে যান ঋতুপর্ণা।

ঘণ্টার পর ঘণ্টা ইডি কর্মকর্তারাদের সঙ্গে ঋতুপর্ণার নানা বিষয়ে কথা হয়। এরপর এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ইডির তদন্তে সম্পূর্ণ সহযোগিতা করেছি। ওনারা কিছু নথি চেয়েছিলেন, তা জমা দিয়েছি। এই বিষয়ে এর থেকে বেশি কিছু বলতে পারব না।

জিজ্ঞাসাবাদের সময়ই এই টাকা রেশন বন্টন দুর্নীতির এক অভিযুক্তর মাধ্যমে অভিনেত্রীর অ্যাকাউন্টে এসেছিল এমনই ধারণা তাদের।

এর আগে ২০১৯ সালের জুলাইয়ে অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তকে রোজভ্যালিকাণ্ডে তদন্তকারী সংস্থা ইডি জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল। একসময় রোজভ্যালি বেশ কিছু বাংলা ছবি প্রযোজনা করেছিল।

যে ছবির কয়েকটি অভিনয়ও করেছিলেন ঋতুপর্ণা। সেই সূত্রেই ঋতুপর্ণার সঙ্গে সংস্থার কর্ণধার গৌতম কুণ্ডুর যোগাযোগ হয়েছিল বলে ইডির তরফে সে সময় জানানো হয়েছিল।


আরও খবর