আজঃ মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০21
শিরোনাম

মাস্ক না পরলে হতে পারে লাখ টাকা জরিমানাসহ ৬ মাস কারাদণ্ড

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৭ এপ্রিল ২০২১ | ১৫২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ায় সোমবার (৫ এপ্রিল) থেকে আগামী ১১ এপ্রিল পর্যন্ত সারাদেশে কঠোর বিধিনিষেধ ঘোষণা করেছে সরকার। এই বিধিনিষেধকালে বাড়ির বাইরে বের হলেই সবাইকে অবশ্যই মাস্ক পরতে হবে। একইসঙ্গে মেনে চলতে হবে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ১৮ দফা ও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের ১১ দফা নির্দেশনাসহ সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি।

কোনো ব্যক্তি এই সরকারি আইন অমান্য করলে তাকে ২০১৮ সালের সংক্রামক রোগ আইন ও ১৮৮০ সালের দণ্ডবিধি আইন-এর মুখোমুখি হতে হবে। সংক্রামক রোগ আইনে ছয় মাসের কারাদণ্ড বা এক লাখ টাকা জরিমানা অথবা উভয়দণ্ডের বিধান রয়েছে। আর ১৮৮০ সালের দণ্ডবিধি আইনে জেল ও জরিমানার বিধান রয়েছে।

এরইমধ্যে সারাদেশে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে সরকারি আদেশ অমান্যকারীদের শাস্তি দেয়া হচ্ছে। মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) রাজধানীর মতিঝিল শাপলা চত্ত্বরে অভিযান পরিচালনা করেন র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। এসময় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ১৮ দফা ও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের ১১ দফা নির্দেশনা এবং স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ২৫ জনকে ১২ হাজার ১০০ টাকা জরিমানা করা হয়।

এছাড়া বিনা কারণে রাস্তায় চলাফেরা করায় রাজধানী বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে আরও ২৫ জনকে প্রায় ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এছাড়া সারাদেশের বিভিন্ন জেলা-উপজেলায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে অনেককেই জরিমানা গুণতে হয়েছে।

২০১৮ সালে সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল) আইনের ২৪ ধারায় বলা হয়েছে-

২৪(১) : যদি কোনো ব্যক্তি সংক্রামক জীবাণুর বিস্তার ঘটান বা বিস্তার ঘটাতে সহায়তা করেন বা জ্ঞাত থাকা সত্ত্বেও অপর কোনো ব্যক্তি সংক্রমিত ব্যক্তি বা স্থাপনার সংস্পর্শে আসিবার সময় সংক্রমণের ঝুঁকির বিষয়টি তাহার নিকট গোপন করেন তাহা হইলে উক্ত ব্যক্তির অনুরূপ কার্য হইবে একটি অপরাধ।

(২) যদি কোনো ব্যক্তি উপধারা (১) এর অধীন কোনো অপরাধ সংঘটন করেন, তাহা হইলে তিনি অনূর্ধ্ব ৬ (ছয়) মাস কারাদণ্ডে বা অনূর্ধ্ব ১ (এক) লাখ টাকা অর্থদণ্ডে বা উভয়দণ্ডে দণ্ডিত হইবেন।

দায়িত্ব পালনে বাধা প্রদান ও নির্দেশ পালনে অসম্মতি জ্ঞাপনের অপরাধ ও দণ্ড

আইনের ২৫ ধারায় বলা হয়েছে

২৫(১) যদি কোনো ব্যক্তি

(ক) মহাপরিচালক, সিভিল সার্জন বা ক্ষমতাপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে তাহার ওপর অর্পিত কোনো দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে বাধা প্রদান বা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেন এবং

(খ) সংক্রামক রোগ প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূলের উদ্দেশ্যে মহাপরিচালক, সিভিল সার্জন বা ক্ষমতাপ্রাপ্ত কর্মকর্তার কোনো নির্দেশ পালনে অসম্মতি জ্ঞাপন করেন, তাহা হইলে উক্ত ব্যক্তির অনুরূপ কার্য হইবে একটি অপরাধ।

(২) যদি কোনো ব্যক্তি উপধারা (১) এর অধীন কোনো অপরাধ সংঘটন করেন, তাহা হইলে তিনি অনূর্ধ্ব ৩ (তিন) মাস কারাদণ্ডে বা অনূর্ধ্ব ৫০ (পঞ্চাশ) হাজার টাকা অর্থদণ্ডে বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হইবেন।

মিথ্যা বা ভুল তথ্য প্রদানের অপরাধ ও দণ্ড

২৬ ধারায় বলা হয়েছে

২৬(১) যদি কোনো ব্যক্তি সংক্রামক রোগ সম্পর্কে সঠিক তথ্য জ্ঞাত থাকা সত্ত্বেও ইচ্ছাকৃতভাবে মিথ্যা বা ভুল তথ্য প্রদান করেন তাহা হইলে উক্ত ব্যক্তির অনুরূপ কার্য হইবে একটি অপরাধ।

(২) যদি কোনো ব্যক্তি উপ-ধারা (১) এর অধীন কোনো অপরাধ সংঘটন করেন, তাহা হইলে তিনি অনূর্ধ্ব ২ (দুই) মাস কারাদণ্ডে বা অনূর্ধ্ব ২৫ (পঁচিশ) হাজার টাকা অর্থদণ্ডে বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হইবেন।

১৮৬০ সালের দণ্ডবিধি আইনে শাস্তি

সরকারি কর্মচারী কর্তৃক আইনসঙ্গতভাবে জারিকৃত কোনো আদেশ অমান্য করার দণ্ড

১৮৮০ সালের দণ্ডবিধি আইনের ১৮৮ ধারায় বলা হয়েছে, কোনো ব্যক্তি যদি কোনো আদেশ জারি করতে বিধিসঙ্গতভাবে ক্ষমতাপ্রাপ্ত কোনো সরকারি কর্মচারী কর্তৃক জারিকৃত আদেশে তাকে কোনো বিশেষ কাজ হতে বিরত থাকার অথবা তার দখলাধীন বা পরিচালনাধীন কোনো সম্পত্তি সম্পর্কে কোনো বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে জানা সত্ত্বেও অনুরূপ নির্দেশ অমান্য করে, যদি অনুরূপ অবাধ্যতার ফলে আইনসম্মতভাবে নিযুক্ত কোনো ব্যক্তির বিঘ্ন হয়, বিরক্তি উৎপাদিত হয় বা ক্ষতি সাধিত হয় অথবা বিঘ্ন, বিরক্তি বা ক্ষতির অনুষ্ঠিত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দেয় তবে সেই ব্যক্তি এক মাস পর্যন্ত যেকোনো মেয়াদের বিনাশ্রম কারাদণ্ডে, অথবা দুইশত টাকা পর্যন্ত যেকোনো পরিমাণ অর্থদণ্ডে অথবা উভয়দণ্ডেই দণ্ডিত হবে।

যদি অনুরূপ অবাধ্যতার ফলে মানবদেহ, স্বাস্থ্য বা নিরাপত্তার প্রতি বিপদ অনুষ্ঠিত হয় কিংবা অনুরূপ বিপদ অনুষ্ঠিত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দেয় অথবা কোনো দাঙ্গা বা কলহ অনুষ্ঠিত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দেয়, তবে সে ব্যক্তি ছয় মাস পর্যন্ত যেকোনো মেয়াদের সশ্রম বা বিনাশ্রম কারাদণ্ডে, অথবা এক হাজার টাকা পর্যন্ত যেকোনো পরিমাণ অর্থ দণ্ডে অথবা উভয়বিধ দণ্ডেই দণ্ডিত হবে।

কোনো কার্য দ্বারা জীবনের পক্ষে বিপজ্জনক কোনো রোগের সংক্রমণ ছড়াইতে পারে জানিয়াও অবহেলাবশত উহা করে তার দণ্ড

১৮৮০ সালের দণ্ডবিধি আইনের ২৬৯ ধারায় বলা হয়েছে, কোনো ব্যক্তি যদি বেআইনিভাবে বা অবহেলামূলকভাবে এমন কোনো কার্য করে যা জীবন বিপন্নকারী মারাত্মক কোনো রোগের সংক্রমণ ছড়াতে পারে, তা জানা সত্ত্বেও বা বিশ্বাস করার কারণ থাকা সত্ত্বেও তা করে, তবে সেই ব্যক্তি ছয়মাস পর্যন্ত যেকোনো মেয়াদের সশ্রম বা বিনাশ্রম কারাদণ্ডে অথবা অর্থদণ্ডে, অথবা উভয়বিধ দণ্ডেই দণ্ডিত হবে।

নিউজ ট্যাগ: করোনা সংক্রমণ

আরও খবর



দুই অঞ্চলসহ ৬ বিভাগে কালবৈশাখীর আভাস

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৯ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৯ এপ্রিল ২০২১ | ১০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

চট্টগ্রামের রাঙ্গামাটি ও কুমিল্লা অঞ্চলসহ রাজশাহী, রংপুর, ঢাকা, ময়মনসিংহ, খুলনা ও সিলেট বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

শুক্রবার (৯ এপ্রিল) সকাল ৯টা পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসে এসব তথ্য জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।

পূর্বাভাসে আরও বলা হয়েছে, এছাড়া দেশের অন্য জায়গায় অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে।

সারাদেশের দিন ও রাতের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে।

এই ২৪ ঘণ্টা পরবর্তী ৩ দিনের আবহাওয়া প্রায় একই ধরনের থাকতে পারে বলেও জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

পশ্চিমা লঘুচাপের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে।

এদিকে, আজ সারাদেশের তাপমাত্রা স্বাভাবিক রয়েছে। বৃহস্পতিবার দেশের মধ্যে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে রাজশাহীতে ৩৪ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

নিউজ ট্যাগ: আবহাওয়া অধিদফতর

আরও খবর
সাত অঞ্চলে ঝড়ের আভাস

বৃহস্পতিবার ০৮ এপ্রিল ২০২১




চিকিৎসক-নার্সসহ স্বাস্থ্যকর্মীদের আইডি কার্ড ব্যবহারের নির্দেশ

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৯ এপ্রিল ২০২১ | ৬৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
বে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়, চিকিৎসকরা বিধি-নিষেধের বাইরে থাকবে। এর পরও অযথা হয়রানির শিকার হন চিকিৎসকরা। এনিয়ে সম্প্রতি একটি পোস্ট ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে চলমান লকডাউনের মধ্যে জরুরি স্বাস্থ্যসেবায় নিয়োজিত চিকিৎসক, নার্সসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীদের আবশ্যিকভাবে আইডি কার্ড ব্যবহারের নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

আজ সোমবার (১৯ এপ্রিল) সকালে এ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

গত বুধবার (১৪ এপ্রিল) থেকে লকডাউন কার্যকর করতে সরকারের নির্দেশনা বাস্তবায়নে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হয়। এ জন্য 'মুভমেন্ট পাস' ছাড়া কাউকে বাড়ির বাইরে আসতে দেওয়া হবে না বলে জানায় পুলিশ। তবে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়, চিকিৎসকরা বিধি-নিষেধের বাইরে থাকবে। এর পরও অযথা হয়রানির শিকার হন চিকিৎসকরা। এনিয়ে সম্প্রতি একটি পোস্ট ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

চিকিৎসক পরিচয় দেওয়ার পরও পুলিশের চেকপোস্টে হয়রানির শিকার কুয়েত বাংলাদেশ মৈত্রী সরকারি হাসপাতালের একজন চিকিৎসা কর্মকর্তা। নিজের 'বিব্রতকর' অভিজ্ঞতাটি ফেসবুকে শেয়ার করেন তিনি। একই অভিযোগ করেন আরেকজন চিকিৎসক। যিনি রাজধানীর পান্থপথের একটি হাসপাতালে মুন্সীগঞ্জ থেকে যাওয়ার পথে জরিমানার শিকার হন বলেও ফেসবুকে দেওয়া স্ট্যাটাসে উল্লেখ করেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে চিকিৎসক, নার্সসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীদের আইডি কার্ড ব্যবহারের নির্দেশনা এলো স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে।


আরও খবর



সব সবজির দাম ঊর্ধ্বমুখী

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৬ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৬ এপ্রিল ২০২১ | ৭৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নিত্যপণ্যের বাজারে দামের উত্তাপ এখনও থামেনি। লকডাউন ও রোজা শুরুর পর থেকে কাঁচাবাজারে নানা পণ্যের দাম বেড়ে চলছে। বেগুন, শসা, টমেটো ও লেবুর দাম দ্বিগুণ বেড়েছে। এর মধ্যে বেগুন ও শসার কেজি এবং লেবুর হালির দামে সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। কম দামি টমেটোর দামও হাফসেঞ্চুরি করেছে। ইফতারের উপকরণ হিসেবে এগুলোর কদর থাকায় ব্যবসায়ীরা দাম বাড়ানোর সুযোগ নিয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন ক্রেতারা।

বুধবার থেকে রোজা ও কঠোর লকডাউন শুরু হয়েছে। এই সুযোগে সবজির বাজারে দাম বাড়িয়েছেন ব্যবসায়ীরা। ক্রেতারা অভিযোগ করেন, গত সোমবার রাজধানীর বাজারে ক্রেতারা বেগুন ও শসা ৪০ থেকে ৫০ টাকায় কিনেছেন। এখন ৯০ থেকে ১০০ টাকা গুনতে হচ্ছে। বাজারে সবচেয়ে কম দামি সবজি টমেটোর কেজিও ৫০ টাকায় পৌঁছেছে।

রোজার প্রথম দিনেই অস্বাভাবিক দাম বেড়েছে এসব সবজির। গতকাল বৃহস্পতিবারও একই দাম ছিল। গত দু'দিনে দাম দ্বিগুণ হয়েছে। এখন শসার কেজি প্রায় ১০০ টাকা। এক সপ্তাহের ব্যবধানে চার গুণ দাম বেড়েছে লেবুর। গত বুধবার প্রতি হালি লেবু ২০ থেকে ২৫ টাকা ছিল। এখন তা ৮০ থেকে ১০০ টাকায় উঠেছে। রাজধানীর তালতলা বাজারে ১২০ টাকায়ও হালি বিক্রি হয়েছে। মঙ্গলবারও ৪০ টাকা হালি ছিল এই বাজারে। এখন পাকা টমেটো ৫০ টাকা ও বেগুনের দামও ৮০ থেকে ১০০ টাকা। গত সপ্তাহে পাকা টমেটো ১৫ থেকে ২০ টাকা কেজি বিক্রি হয়েছে। দু'সপ্তাহ আগে কৃষকরা টমেটো ফেলে দিয়েছেন। তখন ক্ষেতে দুই টাকায় কেজি বিক্রি করেছেন তারা। বাজারে এখন আলু ও পেঁপে ছাড়া বেশিরভাগ সবজি ৭০ থেকে ৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। যা আগের সপ্তাহে ৪০ থেকে ৫০ টাকা ছিল। আলুর দামও কেজিতে ৫ টাকা বেড়ে ২০ থেকে ২৫ টাকা এবং পেঁপে ৩৫-৪০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

খুচরা ব্যবসায়ীরা জানান, মাছ, মাংসসহ অন্যান্য নিত্যপণ্যের দাম বেশি থাকায় সবজির চাহিদা বেশি। এ কারণে এবার পাইকারি মোকামে সবজির দামও বেশি। তাছাড়া করোনা মহামারির কারণে লকডাউনে কড়াকড়ি আরোপ করায় বাজারে সবজির সরবরাহ কম। এতেও দাম বাড়ছে। বিশেষ করে করলার কেজি দ্বিগুণ বেড়ে ১০০ টাকা হয়েছে। অন্যান্য সবজির মধ্যে বরবটি, ঢেঁড়স ও পটোলের কেজি ৭০ থেকে ৮০ টাকা হয়েছে। কাঁচাবাজারে এসব পণ্যের নির্ধারিত দর না থাকায় তদারকিতে কোনো পদক্ষেপ নিতে পারছে না বাজার মনিটরিং টিম। তবে সরকার যেসব পণ্যের মূল্য নির্ধারণ করে দিয়েছে, সেসব পণ্যও অনেক বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে জরিমানা করা হলেও ব্যবসায়ীরা বাড়তি দাম নিচ্ছেন।

বাজারে শুধু গরুর মাংস বেঁধে দেওয়া দাম প্রতি কেজি ৬০০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে। নির্ধারিত দাম অনুয়ায়ী খুচরা বাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজ সর্বোচ্চ ৪০ টাকা, চিনি ৬৭ থেকে ৬৮ টাকা, ছোলা ৬৩ থেকে ৬৭ টাকা, মসুর ডাল উন্নতমানের হলে দাম হবে ৯৭ থেকে ১০৩ টাকা ও সাধারণ মোটা মসুর হলে ৬১ থেকে ৬৫ টাকা, খেজুর সাধারণ মানের ৮০ থেকে ১০০ টাকা এবং মধ্যম মানের ২০০ থেকে ২৫০ টাকা এবং সয়াবিন তেল লিটারে ১৩৯ টাকা। এসব পণ্যই নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশি দামে বাজারে বিক্রি হচ্ছে। কোথাও কোথাও পেঁয়াজ ও গরুর মাংস নির্ধারিত দামে পাওয়া যাচ্ছে। অন্য সব পণ্যে বেশি দাম গুনতে হচ্ছে।

রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, সোম ও মঙ্গলবারের তুলনায় গত দু'দিন বাজারে ক্রেতাদের ভিড় কিছুটা কম ছিল। কঠোর লকডাউনের মধ্যে বাজারে এলেও ক্রেতারা মানছেন না স্বাস্থ্যবিধি। অনেকের মুখে ছিল না মাস্ক। আবার কারও কারও কাছে মাস্ক থাকলেও তা থুতনিতে ছিল।


আরও খবর



করোনা: দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৯ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:শনিবার ২৭ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২৭ মার্চ ২০২১ | ৯৭জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
গত ২৪ ঘণ্টায় ২২৪টি ল্যাবে ২৪ হাজার ৬৬৪টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এ ছাড়া নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ২৪ হাজার ৭২৬টি। এ পর্যন্ত দেশে মোট ৪৫ লাখ ৬৬ হাজার ৬৯৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে

নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ৩৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে আট হাজার ৮৬৯ জনে দাঁড়িয়েছে। এ ছাড়া দেশে নতুন করে আরও তিন হাজার ৬৭৪ জন আক্রান্ত হয়েছে। দেশে মোট পাঁচ লাখ ৯১ হাজার ৮০৬ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছে এক হাজার ৯৭১ জন। এ নিয়ে দেশে মোট পাঁচ লাখ ৩৩ হাজার ৯২২ জন করোনা থেকে সুস্থ হলো।

আজ শনিবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় ২২৪টি ল্যাবে ২৪ হাজার ৬৬৪টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এ ছাড়া নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ২৪ হাজার ৭২৬টি। এ পর্যন্ত দেশে মোট ৪৫ লাখ ৬৬ হাজার ৬৯৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

২৪ ঘণ্টায় নতুন ৩৯ জন মৃত্যুবরণকারীর মধ্যে পুরুষ ২৪ জন ও নারী ১৫ জন। এ পর্যন্ত পুরুষ মৃত্যুবরণ করেছেন ছয় হাজার ৬৯৫ জন ও নারী দুই হাজার ১৭৪ জন। এ ছাড়া মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে তিনজন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে একজন ও ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ১০ জন ও  ষাটোর্ধ্ব ২৫ জন রয়েছেন। ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ২৮ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে পাঁচজন, রাজশাহী বিভাগে দুজন, খুলনা বিভাগে দুজন, সিলেট বিভাগে একজন ও রংপুর বিভাগে একজন। এ ছাড়া সবাই হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেছেন।

দেশে করোনাভাইরাসে প্রথম মৃত্যু ঘটে গত বছরের ১৮ মার্চ। এরপর গত বছরের ১৪ এপ্রিল ৩৮তম দিনে কোভিড-১৯ রোগীর সংখ্যা এক হাজারে দাঁড়ায়।


আরও খবর



শাল্লায় হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িতে হামলার মামলায় গ্রেপ্তার আরও ৩

প্রকাশিত:রবিবার ২১ মার্চ 20২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২১ মার্চ 20২১ | ৯২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
নোয়াগাঁওয়ে হামলার ঘটনায় ৩৩ জন গ্রেপ্তার হলেন। মামলার প্রধান আসামি শহীদুল ইসলাম স্বাধীন ওরফে স্বাধীন মেম্বারকে শুক্রবার রাতে মৌলভীবাজারের কুলাউড়া থেকে গ্রেপ্তার করা হয়

সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলার নোয়াগাঁও গ্রামে হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘরে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনায় করা মামলায় আরও তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। শনিবার রাতে তাদের গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানিয়েছেন শাল্লা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নাজমুল হক।

এ নিয়ে নোয়াগাঁওয়ে হামলার ঘটনায় ৩৩ জন গ্রেপ্তার হলেন। মামলার প্রধান আসামি শহীদুল ইসলাম স্বাধীন ওরফে স্বাধীন মেম্বারকে শুক্রবার রাতে মৌলভীবাজারের কুলাউড়া থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

নোয়াগাঁও গ্রামের ঝুমন দাস আপন নামের এক তরুণের ফেসবুক আইডি থেকে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মামনুল হককে নিয়ে স্ট্যাটাস দেওয়ার অভিযোগে গত বুধবার সকালে ওই গ্রামের হিন্দু সম্প্রদায়ের বাসিন্দাদের অন্তত ৮৮টি বাড়িতে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাট এবং গ্রামের পাঁচটি মন্দির ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে।


আরও খবর