আজঃ মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০21
শিরোনাম

মধ্যযুগীয় কায়দায় হাত-পা বেঁধে ব্যবসায়ীকে নির্যাতন (ভিডিও)

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ৩০ মার্চ ২০২১ | ১০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

মধ্যযুগীয় কায়দায় হাত-পা বেঁধে আল-আমীন (৩১) নামে এক কাঠ ব্যবায়ীকে পিটিয়ে গুরুতর জখম করেছে স্থানীয় বখাটেরা। ঘটনাটি ঘটেছে পিরোজপুর জেলার ইন্দুরকানী থানার পত্তাশী গ্রামে। নির্যাতনের পরও খ্যান্ত হননি তারা। এ ঘটনা জানজানি হলে উপয়ন্ত না দেখে, ঘটনা ভিন্ন দিকে প্রবাহিত করার জন্য ওই ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে একটা মামলা দায়ের করে।

অভিযোগ রয়েছে, স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদর চেয়ারম্যান এর সাথে পূর্ব শত্রুতা এবং চলমান ইউপি নির্বাচনে তার বিরোধীতা করায় পরিকল্পিত ভাবে ব্যবসায়ীকে নির্যাতন করা হয়। রবিবার রাতে এ বর্বরাচিত হামলার ঘটনায় ব্যবসায়ী মামলা করার কথা জানালে ইন্দুরকানী থানা পুলিশ তা আমলে নেয়নি।

বর্তমান পুলিশ প্রহরায় হ্যান্ডকাফ পরা অবস্থায় পিরাজপুর জেলা হাসপাতাল নির্যাতিত আল আমীনর চিকিৎসা চলছে। নির্যাতিত আল আমীন ওই গ্রামর মাঃ আলী আকবার এর ছেলে।

হাসপাতাল চিকিৎসাধীন আলী আমীন জানায়, রবিবার রাত স্থানীয় একটি মাদ্রাসায় মাহফিল শুনে স্থানীয় এক যুবকের সাথ বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় পত্তাশী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোয়াজ্জম হোসেন হাওলাদারর সমর্থিত ১০-১২ জন যুবক তার উপর অতর্কিত হামলা করে। এরপর তাদের সাথে আরও ১৫-২০ জন যোগ দেয় । এসময় সন্ত্রাসীরা তাক মাটিতে ফেলে হাত পা পিঠমোড়া দিয়ে বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করে। এ সময় ওই ইউনিয়ন পরিষদের স্থানীয় গ্রাম পুলিশ মাঃ রিয়াজ উপস্থিত থাকলেও, সবাই নিরব ভূমিকা পালন করে।

আল আমীনর অভিযাগ ইউপি চেয়ারম্যান মায়াজ্জম এর সমর্থক থাকলেও, বর্তমান তার সাথে দূরত্ব রয়েছে । এজন্যই তার উপর ক্ষিপ্ত এই ইউপি চেয়ারম্যান। তার নির্দেশে বর্বরাচিত নির্যাতন করা হয়। নির্যাতনর এক পর্যায় অজ্ঞান হয় পড়ে। খবর পেয়ে ইদুরকানী থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তাকে উদ্ধার করে থানায় নিয় যায়। এরপর সেখান থেকে তাকে পুলিশ প্রহরায় পিরাজপুর জলা হাসপাতাল ভর্তি করা হয়। আল-আমীন অভিযোগ করেন, মারধারর ঘটনা ধামাচাপা দেওয়া এবং তাকে ফাঁসানার জন্য এ মামলা দেয়া হয়।

গ্রামপুলিশ রিয়াজ জানান, আল আমীনকে ব্যাপকভাবে মারধার করা হয় ।

এ বিষয় ইউপি চয়ারম্যান মোয়াজ্জেম জানান,আল আমীনক মারধারর খবর শুনে স্থানীয় চকিদার রিয়াজকে ঘটনাস্থেল পাঠিয়ে উদ্ধার করে। এরপর বিষয়টি তাৎক্ষণিকভাব ইদুরকানী থানায় জানানা হয়। তবে এ ঘটনায় নিজেকে জড়িত থাকার কথা অম্বীকার করে বলেন, যারা এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ ব্যাপার ইদুরকানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাঃ হুমায়ুন কবির জানান, একটি মেয়েকে শ্লীলতাহানির অভিযাগে আল আমীনক আটক করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে ইদুরকানী থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এরআগে তাকে মারধার করা হয়। এ ব্যাপারে তদন্ত চলছে। অপরাধিদের আইনের আওতায় আনা হবে।

উল্লখ্য, এর আগ গত বছরর ৪ নভম্বর একটি কর্মী সভায় ইউপি চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন হাওলাদার এর সমালাচনা করায় রঞ্জন কুমার মজুমদার নাম ওয়ার্ড আওয়ামী লীগর এক সাধারণ সম্পাদকক পিটিয় পা ভেংগে দেয় তার সমর্থকরা। আসন ইউপি নির্বাচনক কেদ্র করে প্রতিদ্বন্ধীদের দমনের জন্য বিভিন্ন ভাবে নির্যাতনের অভিযাগ রয়েছে এই ইউপি চেয়ারম্যান এর বিরুদ্ধে।


আরও খবর



২৪ ঘণ্টায় আরও ৬৯ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৩ এপ্রিল ২০২১ | ৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ৬৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। 

মঙ্গলবার (১১ এপ্রিল) বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এর আগে গত ১২ এপ্রিল দেশে একদিনে করোনায় সর্বোচ্চ ৮৩ জনের মৃত্যু হয়। যা দেশে একদিনে করোনায় মৃত্যু নতুন রেকর্ড। আর  গত ৭ এপ্রিল দেশে একদিনে করোনায় সাত হাজার ৬২৬ জন শনাক্ত হয়। যা দেশে করোনায় একদিনে শনাক্তে সর্বোচ্চ রেকর্ড। আর গত ৬ এপ্রিল একদিনে শনাক্ত হয়েছিল সাত হাজার ২১৩ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য মতে, ২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে করোনা ভাইরাসের প্রথম রোগী শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনায় আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। এরপর ধীরে ধীরে আক্রান্তের হার বাড়তে থাকে।


আরও খবর



রিসোর্ট কাণ্ড: মাওলানা ইকবালসহ গ্রেফতার ৪

প্রকাশিত:সোমবার ১২ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১২ এপ্রিল ২০২১ | ১১৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
সোনারগাঁওয়ের রয়েল রিসোর্টের এক রুমে হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হককে নারীসহ অবরুদ্ধ করে স্থানীয় লোকজন। পরে পুলিশ গিয়ে মামুনুলকে জিজ্ঞাসাবাদের সময় তার

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও রয়েল রিসোর্ট কাণ্ডে ভাঙচুর ও মহাসড়কে নাশকতা সৃষ্টি মামলার প্রধান আসামি মাওলানা ইকবালসহ চার হেফাজত নেতাকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। ঢাকার জুরাইন থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। সোমবার (১২ এপ্রিল) সকালে এই খবর নিশ্চিত করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

এর আগে ৩ এপ্রিল সোনারগাঁওয়ের রয়েল রিসোর্টের এক রুমে হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হককে নারীসহ অবরুদ্ধ করে স্থানীয় লোকজন। পরে পুলিশ গিয়ে মামুনুলকে জিজ্ঞাসাবাদের সময় তার অনুসারীরা ওই রিসোর্টে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে। একপর্যায়ে তারা মামুনুলকে পুলিশের কাছ থেকে ছিনিয়ে নেয়।

তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় হেফাজতের নেতাকর্মীরা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে টায়ার জ্বালিয়ে অগ্নিসংযোগ করে। ভাঙচুর করে শতাধিক যানবাহন। স্থানীয় আওয়ামী লীগ কার্যালয়ও ভাঙচুর করা হয়। পুলিশ তাদেরকে মহাসড়ক থেকে সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলে হেফাজতের নেতাকর্মীদের সঙ্গে সংঘর্ষ বাধে। পুলিশ ৪ শতাধিক শর্টগান ও টিয়ারশেল ছুড়ে তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

৭ এপ্রিল বিকেলে নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ জায়েদুল আলম জানান, এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে তিনটি মামলা হয়। পুলিশ বাদী হয়ে দুটি মামলা করেছে। আর এক সাংবাদিক বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন। পরে ১০ এপ্রিল হেফাজত নেতাদের বিরুদ্ধে আরও তিনটি মামলা দায়ের করা হয়। ওই ঘটনায় সর্বমোট ছয়টি মামলা হয়েছে। এরমধ্যে দুটি মামলার প্রধান আসামি মামুনুল হক।


আরও খবর



লকডাউন : জরুরি পরিষেবার আওতায় যা যা রয়েছে

প্রকাশিত:সোমবার ১২ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১২ এপ্রিল ২০২১ | ১০৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কঠোর বিধিনিষেধসহ জারি করে সোমবার (১২ এপ্রিল) নতুন প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। এ অনুযায়ী আগামী ১৪ এপ্রিল থেকে সাত দিনের লকডাউন দেওয়া হয়েছে। এসময় জরুরি পরিষেবা চালু থাকবে।

প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী জরুরি পরিষেবার আওতায় রয়েছে, আইনশৃঙ্খলা এবং জরুরি পরিষেবা, যেমন-কৃষি উপকরণ (সার, বীজ, কীটনাশক, কৃষি যন্ত্রপাতি ইত্যাদি), খাদ্যশস্য ও খাদ্যদ্রব্য পরিবহন, ত্রাণ বিতরণ, স্বাস্থ্যসেবা, কোভিড-১৯ টিকা প্রদান, বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস্য জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, বন্দরসমূহের (স্থলবন্দর, নদীবন্দর ও সমুদ্রবন্দর) কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট (সরকারি-বেসরকারি), গণমাধ্যম (প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া), বেসরকারি নিরাপত্তা ব্যবস্থা, ডাক সেবাসহ অন্যান্য জরুরি ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ও সেবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অফিসসমূহ, তাদের কর্মচারী ও যানবাহন এ নিষেধাজ্ঞার আওতা বহির্ভূত থাকবে।

অতি জরুরি প্রয়োহন ছাড়া (ওষুধ ও নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি ক্রয়, চিকিৎসা সেবা, মৃতদেহ দাফন/সৎকার ইত্যাদি) কোনোভাবেই বাড়ির বাইরে বের হওয়া যাবে না। তবে টিকা কার্ড প্রদর্শন সাপেক্ষে টিকা গ্রহণের জন্য যাতায়াত করা যাবে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, করোনাভাইরাস পরিস্থিতি অবনতির কারণে ১৪ এপ্রিল ভোর ৬টা থেকে ২১ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত কঠোর বিধি-নিষেধ আরোপ করা হয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: লকডাউন

আরও খবর



পশ্চিমবঙ্গে পঞ্চম দফার ভোটগ্রহণ চলছে

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৭ এপ্রিল ২০২১ | ৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
ভারতের নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, পঞ্চম দফার ভোটগ্রহণ সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার জন্য মোট ১ হাজার ৭১ কোম্পানি আধা সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। এর মধ্যে ৮৫৩ কোম্পানি ভোটের দায়িত্বে নিয়োজিত থাকবেন

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচনের পঞ্চম দফার ভোটগ্রহণ চলছে। শনিবার (১৭ এপ্রিল) স্থানীয় সময় সকাল ৭টায় রাজ্যের মোট ৬ জেলার ৪৫ আসনে ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে। সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ চলবে।

পঞ্চম দফায় উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার ১৬ আসন, পূর্ব বর্ধমানের ৮ আসন, নদিয়ার ৮, জলপাইগুড়ির ৭, দার্জিলিংয়ের ৫ ও কালিম্পংয়ের ১ আসনে ভোট গ্রহণ চলছে। এর আগে চতুর্থ দফায় রাজ্যের ১৩৫টি আসনে ভোটগ্রহণ হয়েছে।

ভারতের নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, পঞ্চম দফার ভোটগ্রহণ সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার জন্য মোট ১ হাজার ৭১ কোম্পানি আধা সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। এর মধ্যে ৮৫৩ কোম্পানি ভোটের দায়িত্বে নিয়োজিত থাকবেন।

এর আগে প্রথম তিন দফায় ভোটগ্রহণের সময় বিচ্ছিন্ন কয়েকটি ঘটনা ছাড়া শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হলেও চতুর্থ দফায় পাঁচজনের প্রাণহানি হয়েছে বলে সংবাদ প্রকাশ হয়। সেসময় জানানো হয় শীতলখুচিতে বুথের লাইনে দুর্বৃত্তের গুলিতে ১ জন এবং বাকি ৪ জন কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে প্রাণ হারিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, আগে গত ২৭ মার্চ প্রথম দফা, ১ এপ্রিল দ্বিতীয় দফা, ৬ এপ্রিল তৃতীয় দফা এবং ১০ এপ্রিল চতুর্থ দফার ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। এবার মোট আট দফায় রাজ্যটিতে নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

নিউজ ট্যাগ: ভারত

আরও খবর



ছয়জনের মৃত্যুদণ্ড, চারজনের যাবজ্জীবন, ৩৭ জন খালাস

প্রকাশিত:রবিবার ২১ মার্চ 20২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২১ মার্চ 20২১ | ১০২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

শরীয়তপুরে আওয়ামী লীগনেতা হাবীবুর রহমান ও তাঁর ভাই যুবলীগনেতা মনির হোসেনকে হত্যার দায়ে ছয়জনকে মৃত্যুদণ্ড ও চারজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। এ ছাড়া তিনজনকে দুই বছর করে কারাদণ্ড ও ৩৭ জনকে খালাস দেওয়া হয়েছে। অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. শফিক হোসাইন আজ রোববার এ রায় ঘোষণা করেন।

মৃত্যুদণ্ডাদেশ পাওয়া ছয় আসামি হলেন শহীদ কোতোয়াল, শহীদ তালুকদার, শাহীন কোতোয়াল, শফিক কোতেয়াল, মজিবুর রহমান ও সোলেমান সর্দার।

যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ পাওয়া আসামিরা হলেন বাবুল তালুকদার, ডাবলু তালুকদার, বাবুল খান ও টোকাই রশিদ। যাবজ্জীবন সাজার পাশাপাশি তাদের ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে, অনাদায়ে আরও ছয় মাস করে তাদের জেল খাটতে হবে।

আসামিদের মধ্যে দুই বছর করে কারাদণ্ড হয়েছে মণ্টু তালুকদার, আসলাম সর্দার ও জাকির হোসেন মঞ্জুর।

এ মামলার ৫৩ জন আসামির মধ্যে শরীয়তপুরের সাবেক সংসদ সদস্য বিএনপিনেতা কে এম হেমায়েত উল্লাহ আওরঙ্গসহ তিন আসামি বিচার চলাকালেই মারা যান। বাকি ৫০ আসামির মধ্যে ৩৭ জনকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, সংসদ নির্বাচনে উত্তেজনার মধ্যে ২০০১ সালের ৫ অক্টোবর শরীয়তপুরের জেলা জজ আদালতের সাবেক পিপি হাবীবুর রহমান ও তাঁর ভাই মনির হোসেনকে গুলি করে হত্যা করা হয়।

হাবীবুর রহমান ছিলেন জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। তাঁর ভাই মনির হোসেন ছিলেন পৌর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক।

ওই হত্যাকাণ্ডের পর হাবীবুর রহমানের স্ত্রী জিন্নাত রহমান বাদী হয়ে সাবেক সংসদ সদস্য আওরঙ্গসহ ৫৫ জনকে আসামি করে হত্যা মামলা করেন।


আরও খবর