আজঃ মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

মিস ইউনিভার্সে প্রথম প্লাস সাইজ মডেল জেন দীপিকা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২১ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২১ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

মিস ইউনিভার্স কথাটা ভাবতে গেলেই আমাদের সামনে ভেসে ওঠে রোগা পাতলা অল্পবয়সী সুন্দরী কোনো মেয়ে। কিন্তু সেই ভাবনাকে এবার ভেঙে দিতে যাচ্ছেন মিস নেপাল জেন দীপিকা গ্যারেট। তিনি প্রথম প্লাস সাইজ মডেল যিনি মিস ইউনিভার্সের এবার প্রতিযোগিতায় অংশ নিলেন। গর্বের সঙ্গে বিউটি পেজেন্টে লেখালেন তার নামও।

মিস ইউনিভার্সের ইতিহাসে এই প্রথমবার কোনো প্লাস সাইজ মডেল অংশ নিলেন। সুইমস্যুট রাউন্ডে তিনি সবার নজর কেড়ে নেন। তার কনফিডেন্স, তার সৌন্দর্য সবার মন কেড়ে নেয়। মেটালিক গ্রিন সুইমস্যুট পরে তাকে আন্তর্জাতিক মঞ্চে হাঁটতে দেখা যায়। সঙ্গে পরেছিলেন স্ট্র্যাপ হিল এবং বড় কানের দুল। সাজ সম্পন্ন করতে খুলে রেখেছিলেন চুল।

সেরা ২০ প্রতিযোগীর মধ্যে অন্যতম হিসেবে তিনি নিজের জায়গা করে নিয়েছেন। এই সুখবর জানিয়ে তিনি সামাজিক মাধ্যমে লেখেন, আমি আমার ফ্যান এবং যারা আমায় সমর্থন করেছেন তাদের কাছে কৃতজ্ঞ। আমি আমার সেরাটা দিয়েছি, আর সেটাই দিন শেষে ম্যাটার করে। গোটা বিশ্বে ছড়িয়ে থাকা রিয়েল সাইজ বিউটির প্রতিনিধিত্ব করতে পেরে আমি গর্বিত। এই বিউটি পেজেন্টে দাঁড়িয়ে স্টিরিওটাইপ ভাবনা ভাঙতে পেরে গর্বিত।

প্রসঙ্গত, জেন দীপিকা গ্যারেট পেশায় একজন নার্স এবং ব্যবসায়ী। তিনি মানসিক স্বাস্থ্য এবং বডি পজিটিভিটি ছড়ানো নিয়েও কাজ করে থাকেন।


আরও খবর



জাবি বন্ধ ঘোষণা, বিকেলের মধ্যে হল ছাড়ার নির্দেশ

প্রকাশিত:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি

Image

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) সব ধরনের শিক্ষা কার্যক্রম অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। একই সঙ্গে বিকেল ৪টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের আবাসিক হল ছাড়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বুধবার (১৭ জুলাই) সকাল ১০টায় অনুষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেটের জরুরি সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। দুপুরে জাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. নূরুল আলম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

পরে উপাচার্য এ প্রতিবেদকের হোয়াটসঅ্যাপে জাবি সিন্ডিকেটের সিদ্ধান্তের একটি লিখিত অনুলিপির ছবিও পাঠিয়েছেন। তাতে দেখা যায়, ১৪, ১৫ ও ১৬ জুলাই কোটা আন্দোলনের কারণে সংঘটিত বিভিন্ন ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার বিষয়টি বিবেচনা করে জরুরি সিন্ডিকেট সভায় দুটি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

সেগুলো হলো-

১. পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এই বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা করা হলো। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের অফিসসমূহ যথারীতি খোলা থাকবে।

২. শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার বিষয় বিবেচনা করে ১৭ জুলাই তারিখ বিকেল ৪টার মধ্যে আবাসিক হল ত্যাগের নির্দেশ দেওয়া হলো।


আরও খবর
আরও ৩ দিনের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪




স্ত্রীসহ পুলিশের সাবেক কর্মকর্তা শামসুদ্দোহার বিরুদ্ধে দুদকের চার্জশিট

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০২ জুলাই 2০২4 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০২ জুলাই 2০২4 | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

ক্ষমতার অপব্যবহার করে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে পুলিশের সাবেক অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক (এডিশনাল আইজিপি) ড. শামসুদ্দোহা খন্দকার ও তার স্ত্রী ফেরদৌসী সুলতানার বিরুদ্ধে চার্জশিট দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

মঙ্গলবার (২ জুলাই) ঢাকা মহানগর বিশেষ জজ আদালতে মামলাটি তদন্ত করে দুদকের সহকারী পরিচালক খোরশেদ আলম আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন। বর্তমানে তারা দুজনেই জামিনে আছেন।

অভিযোগপত্র দেওয়ার বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন দুদকের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা আক্কাস আলী।

২০১৯ সালের ২১ জানুয়ারি শামসুদ্দোহা খন্দকারের বিরুদ্ধে ৮ কোটি ৪৪ লাখ ১০ হাজার টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে মামলা করে দুদক।

মামলার তদন্ত প্রতিবেদন সূত্রে জানা যায়, ক্ষমতার অপব্যবহার করে দুর্নীতির মাধ্যমে বিভিন্ন তফসিলি ব্যাংকের হিসাবে সন্দেহজনক উৎসের অসামঞ্জস্যপূর্ণ ও অস্বাভাবিক লেনদেনের মাধ্যমে ২১ কোটি ৫ লাখ ২৫ হাজার ১৮২৯ টাকা জমা করে পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় উত্তোলন করে তার অবস্থান প্রকৃতি, উৎস, অবস্থান, মালিকানা আড়াল করার চেষ্টা করেছেন।

দালিকৃত সম্পদ বিবরণীতে তিনি ৮ কোটি ৪৪ লাখ ১০ হাজার ২২১ টাকার সম্পদ অর্জনের তথ্য গোপনসহ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন তথ্য দিয়েছেন। এছাড়া দুদকের অনুসন্ধনে ২ কোটি ৮৭ লাখ ৩ হাজার ৭৮ টাকার অবৈধ সম্পদের তথ্য প্রমাণ পাওয়া গেছে। যে কারণে তার বিরুদ্ধে দুদক আইন ২০০৪ এর (২৬(২) ২৭(১) এবং ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি দমন প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় চার্জশিট দাখিল করা হয়েছে।

অন্যদিকে তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে ২৮ কোটি ৪৭ লাখ ৩ হাজার ৮৯১ টাকার সম্পদের তথ্য গোপন করা এবং ২৭ কোটি ৪৮ লাখ ৮২ হাজার ৪৯১ টাকার জ্ঞাতআয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ আনা হয়েছে দ্বিতীয় চার্জশিটে, যেখানে মো. শামছুদ্দোহা খন্দকারকে সহযোগী আসামি করে তার স্ত্রী ফেরদৌসী সুলতানাকে প্রথম আসামি করা হয়েছে। অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে, আসামি ফেরদৌসী সুলতানা গৃহিণী। তার আয়ের কোনো উৎস নেই।

শামসুদ্দোহা ২০১১ সালে প্রেষণে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) চেয়ারম্যান পদে বসেন। ২০১৯ সালে ২১ জানুয়ারি তার বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে মামলা করে দুদক। ওই মামলায় স্ত্রী ফেরদৌসী সুলতানাও আসামি। ২০২১-২২ সালের পরিষদে শামসুদ্দোহা ছিলেন ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটির চেয়ারম্যান। তার বিরুদ্ধে হাজার কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ ছিল।


আরও খবর
কে এই আবেদ আলী

সোমবার ০৮ জুলাই ২০২৪




রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে পাশে থাকবে চীন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৯ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে বাংলাদেশের পাশে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন চীনের চাইনিজ পিপল'স  পলিটিক্যাল কনসাল্টেটিভ কনফারেন্সের (সিপিপিসিসি) জাতীয় কমিটির চেয়ারম্যান ওয়াং হুনিং।

মঙ্গলবার বেইজিংয়ের গ্রেট হলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে বাংলাদেশকে সর্বোচ্চ সহযোগিতা দেওয়ার কথা উল্লেখ করেন তিনি।

পরে সন্ধ্যায় বেইজিংয়ের সেন্ট রেজিস হোটেলে প্রধানমন্ত্রীর চীন সফর নিয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে অংশ নেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সিপিপিসিসি'র জাতীয় কমিটির চেয়ারম্যানের অত্যন্ত আন্তরিক পরিবেশে বৈঠক হয়েছে। এতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এবং চীনের কম্যুনিস্ট পার্টির মধ্যে যোগাযোগ বৃদ্ধিতে গুরুত্বারোপ করেন তারা। দলীয় নেতৃবৃন্দের পারস্পরিক সফরের বিষয়েও ঐকমত্য হয়। ওয়াং হুনিং বলেন, চীনের কম্যুনিস্ট পার্টি এবং আওয়ামী লীগ উভয়েরই অভিন্ন লক্ষ্য জনগণের কল্যাণ।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী দুপুরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেইজিংয়ের সাংগ্রিলা সার্কেলে 'সামিট অন ট্রেড, বিজনেস এন্ড ইনভেস্টমেন্ট অপরচুনিটিজ বিটুইন বাংলাদেশ এন্ড চায়না' সম্মেলনে যোগদানের কথা তুলে ধরেন। তিনি জানান, বাংলাদেশের প্রায় ৯০ জন ব্যবসায়ী প্রতিনিধি ও চীনের শতাধিক ব্যবসায়ী এ সম্মেলনে যোগ দেন এবং দুই দেশের বেশ কয়েকটি কোম্পানির মধ্যে ১৬টি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) সই হয়।

এক প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, প্রধানমন্ত্রীর চীন সফরের সকল অনুষ্ঠান অপরিবর্তিত রয়েছে। শুধু ১১ তারিখ সকালের পরিবর্তে ১০ জুলাই রাতে বাংলাদেশ বিমানের একটি বিশেষ ফ্লাইটে তিনি ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হবেন।

চীনের প্রিমিয়ার অব দ্য স্টেট কাউন্সিল লি ছিয়াংয়ের আমন্ত্রণে সোমবার চার দিনের সফরে বেইজিং পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেখানে প্রধানমন্ত্রীকে গার্ড অব অনারসহ যথাযথ সম্মাননায় অভ্যর্থনা জানানো হয়।

আগামী ১০ জুলাই প্রধানমন্ত্রী গ্রেট হলে চীনের প্রিমিয়ার অব দ্য স্টেট কাউন্সিল লি শিয়াংয়ের সাথে সাক্ষাৎ করবেন। এরপর দেশটির সঙ্গে ২০ থেকে ২২টির মতো সমঝোতা স্মারক সই ও কয়েকটি প্রকল্প উদ্বোধনের ঘোষণার কথা রয়েছে।

পরে প্রধানমন্ত্রী তাঁর সম্মানে আয়োজিত মধ্যাহ্নভোজে যোগ দেবেন।

ওই দিন বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গ্রেট হল অব দ্য পিপল-এ চীনের রাষ্ট্রপতি শি জিনপিংয়ের সাথে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করবেন।


আরও খবর
মেট্রোরেল চলাচল পুরোপুরি বন্ধ

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪




বেনজীর ও তার পরিবারের সাড়ে ৪৩ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ পেয়েছে দুদক

প্রকাশিত:রবিবার ০৭ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ০৭ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক বেনজীর আহমেদ, তার স্ত্রী ও দুই মেয়ের ৪৩ কোটি ৫০ লাখ টাকার অবৈধ সম্পদের সন্ধান পেয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

দুদকের তদন্তকারীরা বলেছেন, তাদের প্রাথমিক তদন্তে এসব সম্পদের কোনো বৈধ উৎস পাওয়া যায়নি।

অবৈধ সম্পদের মধ্যে রয়েছে- ঢাকার বেশ কয়েকটি ফ্ল্যাট এবং বিভিন্ন ব্যাংকে জমা রাখা বিপুল অর্থ। বেনজীরের পরিবারের মালিকানাধীন এসব স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তির দালিলিক প্রমাণও পেয়েছে দুদক।

কিন্তু তদন্তের স্বার্থে এই মুহূর্তে বিস্তারিত কিছু প্রকাশ না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন।

তদন্ত দল প্রাথমিকভাবে বেনজীরের নামে প্রায় ৯ কোটি ২৬ লাখ টাকার সম্পদ শনাক্ত করেছে; তার স্ত্রী জিসান মির্জার নামে ২ কোটি ১৩ লাখ টাকা; তাদের বড় মেয়ে ফারহিন রিশতা বিনতে বেনজীরের নামে ৮ কোটি ১১ লাখ টাকা এবং ছোট মেয়ে তাহসিন রাইসা বিনতে বেনজীরের নামে প্রায় ৪ কোটি ৭৬ লাখ টাকা পাওয়া গেছে।

এসব তথ্যের ভিত্তিতে বেনজীর ও তার পরিবারের সদস্যদের সম্পদের বিবরণী চেয়ে ইতোমধ্যে আলাদা নোটিশ জারি করেছে দুদক।

গত ২ জুলাই দুর্নীতি দমন কমিশন আইন-২০০৪ এর ২৬(১) ধারা অনুযায়ী সম্পদ বিবরণীর নোটিশও দেওয়া হয়।

দুদকের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, আদালতের নির্দেশে বেনজীর আহমেদের স্থাবর-অস্থাবর প্রায় এক হাজার কোটি টাকার সম্পদ জব্দ বা ফ্রিজ করা হয়েছে। প্রাথমিক উদ্দেশ্য ছিল এই সম্পদগুলো যাতে আত্মসাৎ বা চোরাচালান না হয় তা নিশ্চিত করা।

বর্তমানে প্রতিটি সম্পদ পৃথকভাবে যাচাই করা হচ্ছে। অনেকগুলোই তার আয়কর নথিতে উল্লেখ করা হয়েছে। আপাতত এসব সম্পদ বিবেচনাধীন এবং দুদকের মামলায় দালিলিক প্রমাণ প্রয়োজন হওয়ায় অবৈধ সম্পদের হিসাব-নিকাশ চলছে।

প্রসঙ্গত, ২২ এপ্রিল বেনজির ও তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগের তদন্ত শুরু করে দুদক।

দুদক সদর দপ্তরের উপ-পরিচালক হাফিজুল ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের একটি দল তদন্ত করছে।


আরও খবর
কে এই আবেদ আলী

সোমবার ০৮ জুলাই ২০২৪




নিরাপদ খাদ্য বিষয়ক প্রশাসনিক ব্যবস্থা পর্যবেক্ষণে ইন্দোনেশিয়া সফর

প্রকাশিত:শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
প্রেস বিজ্ঞপ্তি

Image

মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোঃ মাহবুব হোসেন এর নেতৃত্বে বাংলাদেশের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের একটি প্রতিনিধি দল ইন্দোনেশিয়া সফর করেছেন। বাংলাদেশের নিরাপদ খাদ্য বিষয়ক প্রশাসনিক ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে JICA-STIRC প্রকল্প ইন্দোনেশিয়ায় এই সফরের আয়োজন করে। এই সফরে প্রতিনিধি দল ইন্দোনেশিয়ার কেন্দ্রীয় এবং স্থানীয় পর্যায়ে নিরাপদ খাদ্য বিষয়ক প্রশাসনিক ব্যবস্থা এবং খাদ্য ব্যবসা সংক্রান্ত একটি সুসংহত একক লাইসেন্সিং ব্যবস্থা পর্যবেক্ষণ করেন। প্রতিনিধি দল পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে  দেশীয় বাজারে কৃষি পণ্যের সম্প্রসারণ ও রপ্তানির জন্য প্রক্রিয়াাজাতকরণে সরকারের ভূমিকা, এবং বাংলাদেশের বর্তমান নিরাপদ খাদ্য খাদ্য বিষয়ক প্রশাসনিক ব্যবস্থার সীমাবদ্ধতা চিহ্নিত করেছেন।

প্রতিনিধি দল জাকার্তায় অবস্থিত খাদ্য ও ঔষধ কর্তৃপক্ষ, ইন্দোনেশিয়া (BPOM) এর প্রধান কার্যালয় পরিদর্শন করেন এবং খাদ্য ও ঔষধ কর্তৃপক্ষের (BPOM) এর শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাবৃন্দ প্রতিনিধি দলটিকে স্বাগত জানান। কর্তৃপক্ষের প্রধান কার্যালয়ে বোগোর কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (IPB)  অধ্যাপক ড. দেদি ফার্দিয়াজ নিরাপদ খাদ্য বিষয়ক একক লাইসেন্সিং ব্যবস্থার ইতিহাস এবং এ সংক্রান্ত আইন ও বিধিমালা সম্পর্কে ব্যাখ্যা দেন। প্রতিনিধি দলটি BPOM রেফারেন্স ল্যাবরেটরি পরিদর্শন করেন এবং সেখানে পরীক্ষাগার স্থাপন এবং পরীক্ষণ পদ্ধতি  নিয়ে দীর্ঘ আলোচনা হয়।

প্রতিনিধি দলটি ৯ই জুলাই, পূর্ব জাকার্তায় অবস্থিত খাদ্য ও ঔষধ কর্তৃপক্ষ, ইন্দোনেশিয়া (BPOM) এর প্রাদেশিক কার্যালয় এবং প্রাদেশিক ল্যাবরেটরি পরিদর্শন করেন। একই দিনে দলটি PT Indofood পরিদর্শন করেন, যা ইন্দোনেশিয়ার সবচেয়ে বড় খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ কোম্পানি  এবং ২০২৩ সালে যার বার্ষিক লেনদেনের পরিমাণ ৬৮.৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ১০ই জুলাই, প্রতিনিধি দল জাকার্তার ইন্দোনেশিয়া খাদ্য ব্যবসায়িদের সাথেও একটি বৈঠকে করেন। 

বাংলাদেশে অনেক মন্ত্রণালয় তাদের নিজস্ব আইন অনুযায়ী নিরাপদ খাদ্য বিষয়ক কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই একই কাজ ভিন্ন ভিন্ন মন্ত্রণালয় তাদের স্ব স্ব আইনে উল্লেখ থাকার কারনে বাস্তবায়ন করছে যা খাদ্য ব্যবসা পরিচালনাকে অনেক ক্ষেত্রে জটিল করেছে । ফলে জনসাধারণের জন্য নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করা সম্ভব হয়ে উঠেনি। বাংলাদেশ সরকারের এখন অধিক শক্তিশালী, সুবিন্যাস্ত ও সুগঠিত নিরাপদ খাদ্য বিষয়ক প্রশাসনিক ব্যবস্থা গড়ে তোলার লক্ষ্যে ঐকান্তিক আলোচনা শুরু করার জন্য কার্যকর পদক্ষেপের প্রয়োজন যা আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত হওয়ার মাধ্যমে  সকল জনসাধারণকে সুরক্ষিত রাখবে। 

বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোঃ মাহবুব হোসেন বলেছেন, আমরা ইন্দোনেশিয়ার নিরাপদ খাদ্য বিষয়ক প্রশাসনিক ব্যবস্থা পর্যবেক্ষণ করেছি এবং ইন্দোনেশিয়া যেভাবে আন্তঃ-সংস্থার সমন্বয়ের মাধ্যমে নিরাপদ খাদ্য বিষয়ক প্রশাসনিক ব্যবস্থা বাস্তবায়ন করছে তা দেখে আমি অভিভূত হয়েছি। মাহবুব হোসেন আরও উল্লেখ করেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের খাদ্য শিল্পের সম্প্রসারণ এবং দেশীয় ও আন্তর্জাতিক বাজারে নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করতে আমাদের বর্তমান খাদ্য বিষয়ক প্রশাসনিক ব্যবস্থাকে সহজীকরণের  জন্য যথাযথ উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে  এবং  খাদ্য নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থাগুলোর মধ্যে সমন্বয় সাধনের মাধ্যমে তাদের কার্যক্রমসমূহ সঠিকভাবে নির্ধারণ করতে হবে যাতে একই কাজ একাধিক সংস্থা করার প্রবণতা দূর হয়।

অন্যান্যদের মধ্যে, প্রাক্তন মুখ্য সচিব মোঃ নজিবুর রহমান, খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ ইসমাইল হোসেন এনডিসি, বিএসটিআই এর মহাপরিচালক, জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর এর মহাপরিচালক, বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান, এফবিসিসিআই এর সিনিয়র সহ-সভাপতি, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ এর যুগ্ম সচিব, বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের সচিব এবং প্রকল্প পরিচালক, STIRC প্রকল্প এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালক ইন্দোনেশিয়া সফরের প্রতিনিধি দলের সদস্য ছিলেন।


আরও খবর