আজঃ মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০21
শিরোনাম

মোদী বিরোধী বিক্ষোভে লাঠিচার্জ, আটক ৭

প্রকাশিত:বুধবার ২৪ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২৪ মার্চ ২০২১ | ৬৭জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বাংলাদেশ সফরের বিরোধিতা করে সিলেটে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বাম গণতান্ত্রিক জোট। বিক্ষোভ মিছিলে লাঠিচার্জ করে ৭ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

বুধবার বাম গণতান্ত্রিক জোট নগরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করে। জোটের নেতাকর্মীরা মোদী বিরোধী স্লোগান দিতে থাকলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

বামজোটের নেতাকর্মীরা জানান, বিক্ষোভকারীদের বেধড়ক পিটিয়েছে পুলিশ। মিছিলে অংশ নেওয়া তরুণীদেরও নির্মমভাবে লাঠিপেটা করা হয়। মিছিল থেকে দুই তরুণীসহ বাম গণতান্ত্রিক জোটের ৭ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

সিলেট নগর পুলিশের কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) 


আরও খবর
সিলেটে শিশুর খন্ডিত দুই পা উদ্ধার

মঙ্গলবার ১৩ এপ্রিল ২০২১




৩ দিন আগে করোনায় আক্রান্ত হয় খালেদার গৃহকর্মী ফাতেমার

প্রকাশিত:রবিবার ১১ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১১ এপ্রিল ২০২১ | ৯৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার করোনা আক্রান্তের সত্যতা নিয়ে মতবিরোধ দেখা দিয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে শতভাগ নিশ্চিত করলেও অস্বীকার করা হচ্ছে খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসকের পক্ষ থেকে। একইসাথে নমুনা দেওয়া হয়নি বলেও দাবি করছেন তারা।

এদিকে বিএনপির একটি সূত্র জানিয়েছে, গত ৩ দিন আগে খালেদা জিয়ার দীর্ঘদিনের সঙ্গী গৃহকর্মী ফাতেমা করোনায় আক্রান্ত হন। এরপর শনিবার (১০ এপ্রিল) দুই দফায় খালেদা জিয়ার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। শনিবার রাতে সংগ্রহ করা নমুনায় তার করোনা পজিটিভ আসে।

১১ এপ্রিল স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে প্রকাশিত রিপোর্টে খালেদা জিয়ার করোনা পরীক্ষার রেজাল্ট পজিটিভ আসে বলে জানানো হয়।

করোনা পরীক্ষার ওই প্রতিবেদনে দেখা যায়, আইসিডিডিআর,বি ল্যাবরেটরিতে ১০ তারিখ তার করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা জমা হয়। এরপর আরটিপিসিআর পদ্ধতিতে করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হয়।

এর আগে শনিবার বিএনপির পক্ষ থেকে জানানো হয়, দলটির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা দিয়েছেন এমন খবর সঠিক নয়।


আরও খবর



অগ্নি স্নানে শুচি হোক ধরা

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১৪ এপ্রিল ২০২১ | ৮১জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
আমাদের মনের ভিতরের সকল ক্লেদ, জীর্ণতা দূর করে আমাদের নতুন উদ্যোমে বাঁচার অনুপ্রেরণা দেয়। আমরা যে বাঙালি, বিশ্বের বুকে

মুছে যাক গ্লানি ঘুচে যাক জরা, অগ্নি স্নানে শুচি হোক ধরা। প্রতিবছর রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের এই পঙক্তিতে উচ্চারণ করে বৈশাখকে আবাহন জানানো হয়। কিন্তু গত বছরের মতো এবারও করোনা পরিস্থিতির কারণে আড়ম্বরপূর্ণ বৈশাখ উদযাপন করা যায়নি। আজ পহেলা বৈশাখ। বাংলা বর্ষপঞ্জিতে যুক্ত হবে নতুন বাংলা বর্ষ ১৪২৮।

পয়লা বৈশাখ আমাদের সকল সঙ্কীর্ণতা, কুপমন্ডুকতা পরিহার করে উদারনৈতিক জীবন-ব্যবস্থা গড়তে উদ্বুদ্ধ করে। আমাদের মনের ভিতরের সকল ক্লেদ, জীর্ণতা দূর করে আমাদের নতুন উদ্যোমে বাঁচার অনুপ্রেরণা দেয়। আমরা যে বাঙালি, বিশ্বের বুকে এক গর্বিত জাতি, পয়লা বৈশাখের বর্ষবরণে আমাদের মধ্যে এই স্বাজাত্যবোধ এবং বাঙালিয়ানা নতুন করে প্রাণ পায়, উজ্জীবিত হয়।

অন্য দিকে পহেলা বৈশাখ বাঙালির একটি সার্বজনীন লোকউৎসব। এদিন আনন্দঘন পরিবেশে বরণ করে নেওয়া হয় নতুন বছরকে। কল্যাণ ও নতুন জীবনের প্রতীক হলো নববর্ষ। অতীতের ভুলত্রুটি ও ব্যর্থতার গ্লানি ভুলে নতুন করে সুখ-শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনায় উদ্যাপিত হয় নববর্ষ। এদিন সরকারি বেসরকারি সকল প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকে।

আসলে কল্যাণ ও নতুন জীবনের প্রতীক হলো নববর্ষ। কাল সকালে ভোরের প্রথম আলো রাঙিয়ে দেবে নতুন স্বপ্ন, প্রত্যাশা আর সম্ভাবনাকে। স্বাভাবিক ভাবেই সেই স্বপ্ন, করোনাভাইরাস মুক্ত নতুন বিশ্বনতুন বালাদেশ। বাংলাদেশসহ বিশ্বের বাঙালিরা করোনা মহামারি থেকে সহসা মুক্তির প্রত্যাশা নিয়েই কাল নতুন বছরকে বরণ করে নেবে তেমন কোন আনুষ্ঠানিকতা ছাড়া।

পহেলা বৈশাখে বর্ণিল উৎসবে মাতার কথা দেশ। ভোরের প্রথম আলো রাঙিয়ে দেয়ার কথা নতুন স্বপ্ন, প্রত্যাশা আর সম্ভাবনাকে। রাজধানী জুড়ে থাকার কথা বর্ষবরণের নানা আয়োজন। কিন্তু বাংলাদেশসহ সারাবিশ্বে এখন চলছে করোনাকাল। মানুষের পৃথিবীতে এখন অনিশ্চিত সময়। দেশে দ্বিতীয়বারের মত করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে পয়লা বৈশাখসহ সবধরনের সমাগমের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে সরকার। সারা দেশে আগামীকাল ১৪ এপ্রিল থেকে সাত দিনের জন্য সর্বাত্মক লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। এর আগে ৫ থেকে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত প্রথম লকডাউন আরো দুইদিন বর্ধিত করে ১৪ এপ্রিল ভোর পর্যন্ত চলমান করা হয়।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউতে সংক্রমণ অনেক বেশি হওয়ায় গত বছরের মতো এবারও বর্ষবরণ উৎসবের উপর সরকার বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। একাত্তরের পর গত বছর নববর্ষের প্রখম প্রহরে রমনার বটমুলে ছায়ানটের অনুষ্ঠান হয়নি। তারেই ধারাবাহিকতায় এবছরও থাকছে না ছায়ানটের নতুন বছরের বন্দনা। তবে, রমনার বটমূলে বর্ষবরণ অনুষ্ঠান থেকে ছায়ানট সরে আসলেও জানা গেছে এ উপলক্ষে নতুন কিছু গান রেকর্ড করা হয়েছে। নববর্ষের দিন সকালে এগানগুলোসহ সংগঠনের সভাপতি সনজীদা খাতুনের কথন বাংলাদেশ টেলিভিশনে সম্প্রচারিত হবে। বেসরকারি টেলিভিশন গুলোতেও বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচারিত হবে।

এক সময় নববর্ষ পালিত হতো আর্তব উৎসব বা ঋতুধর্মী উৎসব হিসেবে। তখন এর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল কৃষির, কারণ কৃষিকাজ ছিল ঋতুনির্ভর। পরে কৃষিকাজ ও খাজনা আদায়ের সুবিধার জন্য মোঘল সম্রাট আকবরের সময়ে বাংলা সন গণনার শুরু হয়। হিজরি চান্দ্রসন ও বাংলা সৌর সনের ওপর ভিত্তি করে প্রবর্তিত হয় নতুন এই বাংলা সন।

অতীতে বাংলা নববর্ষের মূল উৎসব ছিল হালখাতা। এটি পুরোপুরিই একটি অর্থনৈতিক ব্যাপার। গ্রামে-গঞ্জে-নগরে ব্যবসায়ীরা নববর্ষের প্রারম্ভে তাঁদের পুরানো হিসাব-নিকাশ সম্পন্ন করে হিসাবের নতুন খাতা খুলতেন। এ উপলক্ষে তাঁরা নতুন-পুরাতন খদ্দেরদের আমন্ত্রণ জানিয়ে মিষ্টি বিতরণ করতেন এবং নতুনভাবে তাদের সঙ্গে ব্যবসায়িক যোগসূত্র স্থাপন করতেন। চিরাচরিত এ অনুষ্ঠানটি আজও পালিত হয়।

মূলত ১৫৫৬ সালে কার্যকর হওয়া বাংলা সন প্রথমদিকে পরিচিত ছিল ফসলি সন নামে, পরে তা পরিচিত হয় বঙ্গাব্দ নামে। কৃষিভিত্তিক গ্রামীণ সমাজের সঙ্গে বাংলাবর্ষের ইতিহাস জড়িয়ে থাকলেও এর সঙ্গে রাজনৈতিক ইতিহাসেরও সংযোগ ঘটেছে। পাকিস্তান শাসনামলে বাঙালি জাতীয়তাবাদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক তৈরি হয় বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের। আর ষাটের দশকের শেষে তা বিশেষ মাত্রা পায় রমনা বটমূলে ছায়ানটের আয়োজনের মাধ্যমে। এসময় ঢাকায় নাগরিক পর্যায়ে ছায়ানটের উদ্যোগে সীমিত আকারে বর্ষবরণ শুরু হয়। আমাদের মহান স্বাধীনতার পর ধীরে ধীরে এই উৎসব নাগরিক জীবনে প্রভাব বিস্তার করতে শুরু করে। পয়লা বৈশাখের বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে বাঙালির অসাম্প্রদায়িক এবং গণতান্ত্রিক চেতনার বহিঃপ্রকাশ ঘটতে থাকে। কালক্রমে বর্ষবরণ অনুষ্ঠান এখন শুধু আনন্দ-উল্লাসের উৎসব নয়, এটি বাঙালি সংস্কৃতির একটি শক্তিশালী ধারক-বাহক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। শুধু তাই নয়, উৎসবের পাশাপাশি স্বৈরাচার-অপশক্তির বিরুদ্ধে প্রতিবাদও এসেছে পহেলা বৈশাখের আয়োজনে। ১৯৮৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউটের উদ্যোগে বের হয় প্রথম মঙ্গল শোভাযাত্রা। যা ২০১৬ সালের ৩০ নভেম্বর ইউনেস্কো এ শোভাযাত্রাকে বিশ্ব সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের মর্যাদা দেয়। তবে, এবছর মঙ্গল শোভাযাত্রার অনুষ্ঠানটি হচ্ছে না।

বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণীতে দেশবাসীসহ বাঙালিদের আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন।


আরও খবর



আবাসিক হোটেল থেকে মরদেহ উদ্ধার

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ০৫ এপ্রিল ২০২১ | ৯৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাজধানীর মেরুল বাড্ডা প্রগতি সরণির একটি আবাসিক হোটেল থেকে আলি মিয়া (৬৫) নামে এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

 

সোমবার (৫ এপ্রিল) সকাল ১১ টার দিকে মোহনা আবাসিক হোটেল থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে। পরে বিকেলে ময়না তদন্তের জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ মর্গে পাঠানো হয়।

 

বাড্ডা থানার উপ-পরিদশর্ক (এসআই) মো. মাসুদুর রহমান জানান, খবর পেয়ে সকাল ১১টার দিকে হোটেলটির তৃতীয় তলার ৩০৩ নম্বর রুম থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এর চার দিন আগে তিনি ওই হোটেলের রুমটি ভাড়া নেন। সোমবার সকালে হোটেল কর্মচারী তার রুমে গিয়ে তাকে বিছানায় অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন। পরে থানায় খবর দেন। তার শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি বলেও জানান এসআই।

 

মৃত আলির দ্বিতীয় স্ত্রী রোকসানা আক্তার জানান, আলি মিয়ার বাড়ি টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার দক্ষিণ পাড়ায়। তিনি থাকতেন মহানগর প্রোজেক্ট হাতিরঝিল বি ব্লকের ১ নম্বর রোডে।

 

তিনি জানান, তার প্রথম স্ত্রী গ্রামে থাকে। হার্টের সমস্যা ছিলো তার স্বামীর। জমির ব্যবসা করতেন তিনি। বাসায় বসে ঠিকমত কাজ করতে পারতো না বলে তিনি ওই হোটেলে উঠেন, সেখান থেকেই ব্যবসার কাজ করতেন।

নিউজ ট্যাগ: মরদেহ উদ্ধার

আরও খবর



দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বৃষ্টিসহ কালবৈশাখী ঝড় হতে পারে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৩ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৩ মার্চ ২০২১ | ১৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সারাদেশের তাপমাত্রা আগামী ২৫ মার্চ পর্যন্ত আরও বাড়তে পারে। এরপর তাপমাত্রা কমে বৃষ্টিসহ কালবৈশাখী ঝড় হতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

মঙ্গলবার (২৩ মার্চ) আবহাওয়াবিদ রুহুল কুদ্দুস গণমাধ্যমকে এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, আগামী ২৫ মার্চ পর্যন্ত তাপপ্রবাহ থাকতে পারে। এরপর থেকে তাপমাত্রা কমতে শুরু করবে। বিশেষ করে ২৭, ২৮ ও ২৯ মার্চ ভালো বৃষ্টি হতে পারে। সারাদেশেই কমবেশি ঝড়বৃষ্টি হতে পারে। কালবৈশাখী ঝড়ও হওয়ার আশঙ্কা আছে। মূলত তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়ায় এ ঝড় হতে পারে।

এর আগে সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, ঢাকা, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগসহ রাজশাহী ও পাবনা অঞ্চল এবং নীলফামারী জেলার উপর দিয়ে মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে।

পুর্বাভাসে আরও বলা হয়, অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারাদেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারে। সারাদেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে। এরপরের ৩ দিন আবহাওয়ার সামান্য পরিবর্তন হতে পারে বলেও জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

লঘুচাপের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে বলেও আবহাওয়ার পূর্বাভাসে উল্লেখ করা হয়।

এদিকে সোমবার (২২ মার্চ) দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে সীতাকুণ্ডে ৩৮ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে ৩৬ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

নিউজ ট্যাগ: কালবৈশাখী ঝড়

আরও খবর



রাজবাড়ীতে ট্রেন ও ট্রাক সংঘর্ষে নিহত ২

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ৩০ মার্চ ২০২১ | ১২৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
বিকেল সোয়া ৩টার দিকে বসন্তপুর স্টেশন বাজার সংলগ্ন কামাল মিয়ার ইটভাটার সামনে রেল লাইন পার হচ্ছিলো ইটভাটার মাটিবাহী ড্রাম ট্রাকটি। এ সময় ফরিদপুরের ভাঙ্গা থেকে রাজশাহীগামী মধুমতি

রাজবাড়ীতে ট্রেন ও ইট ভাটার ড্রাম ট্রাকের সংঘর্ষে চালক পলাশ শেখ (৩৫) ও হেলপার মিলন হোসেন (৪০) নিহত হয়েছে। এসময় একজন পথচারী গুরুতর আহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার (৩০ মার্চ) বিকেল সোয়া ৩টার দিকে রাজবাড়ী সদর উপজেলার বসন্তপুর স্টেশন বাজার সংলগ্ন কামাল মিয়ার ইটভাটার সামনে রেল লাইনে এই মর্মান্তিক দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। দুর্ঘটনায় ট্রেনের ইঞ্জিন ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় এই রেল রুটে সোয়া তিন ঘন্টা ট্রেন চলাচল বন্ধ ছিলো।

নিহত ড্রাম ট্রাক চালক পলাশ শেখ খানখানাপুর ইউনিয়নের চরখানখানাপুর গ্রামের ইউসুব শেখে ছেলে এবং হেলপার মিলন হোসেন একই ইউনিয়নের সরদারপাড়া গ্রামের আলী হোসেন (দুলাল)র ছেলে। আহত বাবলু মোল্লা বসন্তপুর ইউনিয়নের বড় ভবানীপুর গ্রামের মৃত আনছের মোল্লার ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিকেল সোয়া ৩টার দিকে বসন্তপুর স্টেশন বাজার সংলগ্ন কামাল মিয়ার ইটভাটার সামনে রেল লাইন পার হচ্ছিলো ইটভাটার মাটিবাহী ড্রাম ট্রাকটি। এ সময় ফরিদপুরের ভাঙ্গা থেকে রাজশাহীগামী মধুমতি ট্রেনটি ওই স্থানে এলে রেল লাইনের মাঝখানে থাকা ট্রাকের সঙ্গে ট্রেনের সংঘর্ষ হয়। ট্রাকটি দুমড়ে-মুচড়ে ছিটকে এসে রেল লাইনের পাশের রাস্তা দিয়ে হেটে যাওয়া পথচারী বাবলু মোল্লার উপর এসে পড়ে।

স্থানীয়রা ট্রাকের চালক পলাশ, হেলপার মিলন ও পথচারী বাবলু মোল্লাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। হাসপাতালে নেওয়ার পর পলাশ ও মিলন মারা যান। বাবলু মোল্লা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে রাজবাড়ী রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাসুদ আলম জানান, দুর্ঘটনায় ট্রেনের ইঞ্জন ও সামনের অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। রেল কর্তৃপক্ষ বাদী হয়ে ট্রাকের মালিক ও ইটভাটা কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করবে। মরদেহ দুটি ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে থাকায় সেখানকার থানা পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। পরবর্তী আইনি কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: রাজবাড়ী

আরও খবর