আজঃ বুধবার ০৪ আগস্ট ২০২১
শিরোনাম

মৌলভীবাজারে করোনাভাইরাস শনাক্ত হার ১০০ শতাংশ

প্রকাশিত:রবিবার ০৪ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ জুলাই ২০২১ | ১৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
গত ২৪ ঘণ্টায় সিলেট বিভাগে ৫৯৫টি নমুনা পরীক্ষায় ২২৮ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এরমধ্যে ১৩৬ জন সিলেট জেলার। সুনামগঞ্জ জেলার ১৭ জন, হবিগঞ্জের ২২ জন ও মৌলভীবাজারের ২১ জন

মৌলভীবাজারে গত ২৪ ঘণ্টায় ২১ জনের করোনা নমুনা পরীক্ষায় সবারই রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। অর্থাৎ জেলাটিতে পরীক্ষা বিবেচনায় করোনাভাইরাসের শনাক্ত হার ১০০ শতাংশ।

রবিবার (৪ জুলাই) সন্ধ্যায় মৌলভীবাজার সিভিল সার্জন ডা. চৌধুরী জালাল উদ্দিন মুরশেদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তবে পুরো সিলেট বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত হার ৩৮.৩২ শতাংশ। এছাড়া বিভাগের ৪ জেলার মধ্যে মৌলভীবাজারেই সবচেয়ে কম নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। এদিকে সিলেট জেলায় শনাক্ত হার ৩৫.৩৭ শতাংশ, সুনামগঞ্জে ৪১.৪৬ শতাংশ ও হবিগঞ্জে ৩৭.৯৩ শতাংশ।

জানা গেছে, গত ২৪ ঘণ্টায় সিলেট বিভাগে ৫৯৫টি নমুনা পরীক্ষায় ২২৮ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এরমধ্যে ১৩৬ জন সিলেট জেলার। সুনামগঞ্জ জেলার ১৭ জন, হবিগঞ্জের ২২ জন ও মৌলভীবাজারের ২১ জন। পাশাপাশি সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ৩২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় সিলেটে করোনায় আরও ২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে সিলেটে মোট মৃত্যু বেড়ে ৪৮৩ জন হয়েছে। সর্বমোট সিলেটে ২৬ হাজার ৭১৪ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে, যার মধ্যে ২৩ হাজার ৯৮০ জন সুস্থ হয়েছেন।

নিউজ ট্যাগ: মৌলভীবাজার

আরও খবর



ঈদ-পরবর্তী লকডাউনেও খোলা থাকবে যেসব শিল্প-কারখানা

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৯ জুলাই ২০২১ | ১৯৭জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কঠোর লকডাউনে আগামী ২৩ জুলাই সকাল ৬টা থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত নির্দিষ্ট কিছু শিল্প-কারখানা খোলা রাখার ঘোষণা দিয়েছে সরকার। সোমবার এক প্রজ্ঞাপনে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ এ তথ্য জানায়।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় আরোপিত বিধি -নিষেধের আওতামুক্ত থাকবে খাদ্য ও খাদ্যদ্রব্য উৎপাদন/প্রক্রিয়াজাতকরণ মিল কারখানা, কোরবানির পশুর চামড়া পরিবহণ, সংরক্ষণ ও প্রক্রিয়াজাতকরণ এবং ঔষধ, অক্সিজেন ও কোভিড-১৯ প্রতিরোধে ব্যবহারের জন্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য উৎপাদনকারী শিল্প কারখানা।

১৪ জুলাই মধ্যরাত থেকে চলমান বিধিনিষেধ শিথিল করা হলেও ২৩ জুলাই থেকে আবার কঠোর লকডাউন শুরু হবে। করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় গত ১ জুলাই থেকে এক সপ্তাহের কঠোর লকডাউন আরোপ করে সরকার। পরে সময়সীমা বাড়িয়ে ১৪ জুলাই পর্যন্ত করা হয়।  


আরও খবর



পরীর বিরুদ্ধে পর্নোগ্রাফিতে যুক্ত থাকার অভিযোগ

প্রকাশিত:বুধবার ০৪ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৪ আগস্ট ২০২১ | ১৫২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
বিশেষ সূত্রে জানিয়েছে, নায়িকা পরীমণি ও তার পরিচিত কয়েক জনের বিরুদ্ধে পর্নোগ্রাফি ও ব্ল্যাকমেইলের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সেই অভিযোগের ভিত্তিতেই

সুনির্দিষ্ট কিছু অভিযোগের ভিত্তিতে চিত্রনায়িকা পরীমণির বাসায় অভিযান চালাচ্ছে র‌্যাব। এরই মধ্যে বিপুল পরিমাণ মাদক উদ্ধারের খবর পাওয়া গেছে।

অন্যান্য অভিযোগের সঙ্গে গুরুতর দুই অভিযোগে এই অভিযান চালানো হচ্ছে। বিশেষ সূত্রে জানিয়েছে, নায়িকা পরীমণি ও তার পরিচিত কয়েক জনের বিরুদ্ধে পর্নোগ্রাফি ও ব্ল্যাকমেইলের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সেই অভিযোগের ভিত্তিতেই এ অভিযান। তবে পরীমণির বিরুদ্ধে এসব অভিযোগের বিষয়ে এখনও আনুষ্ঠানিক কিছু জানায়নি র‌্যাব।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি ফারিয়া মাহবুব পিয়াসা ও মরিয়ম আক্তার মৌ গোয়েন্দা পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হয়েছেন। তাদের বাসা থেকে বিপুল পরিমাণ মদ-ইয়াবাসহ নানা মাদকদ্রব্য উদ্ধার করা হয়েছে।

বুধবার খবর বেরিয়েছে, রিমান্ডে প্রথম দিনের জিজ্ঞাসাবাদে দুই মডেল জানিয়েছেন, এই চক্রের নারী সদস্যের সংখ্যা শতাধিক। তাদের কাজই ছিল তরুণদের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তুলে পার্টির নামে বাসায় ডেকে নিয়ে আসা। এরপর মদ-ইয়াবাসহ নেশাজাতীয় দ্রব্য খাইয়ে তাদের আপত্তিকর অবস্থার ছবি ও ভিডিও ধারণ করা। পরে সেই ছবি-ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়েই ব্ল্যাকমেইল করা হতো তরুণদের।

অন্যদিকে কিছু দিন হলো ঢাকা বোট ক্লাবের নির্বাহী সদস্য নাসির উদ্দিন মাহমুদের বিরুদ্ধে নায়িকা পরীমণি ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ আনেন। তার করা মামলায় নাসির উদ্দিনকে গ্রেফতার করা হয়। পরে জামিনে মুক্তি পান নাসির উদ্দীন।

এর পর পরীমণির বিরুদ্ধে গুলশানের অল কমিউনিটি ক্লাবে ভাঙচুরের অভিযোগ ওঠে। ৭ জুন পরীমণি ও তাঁর সঙ্গে আরও কয়েকজন ওই ক্লাবে গিয়ে গ্লাস ভাঙচুর করের।

গুলশান থানা-পুলিশ গণমাধ্যমকে জানান, ঘটনাটি ঘটেছে ৭ জুন গভীর রাতে। তবে এ ঘটনায় থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) বা মামলা হয়নি। তবে পুলিশ নতুন করে ওই ঘটনা তদন্তে ক্লাব পরিদর্শনে যাবে।

জানতে চাইলে পরীমলি গণমাধ্যমকে বলেন, এটা ফালতু একটা অভিযোগ। এত দিন পরে কেন এই অভিযোগ?


আরও খবর
৪ দিনের রিমান্ড দর্জি মনির

বুধবার ০৪ আগস্ট ২০২১




নদীর তীরবর্তী নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ার সম্ভাবনা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৮ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৮ জুলাই ২০২১ | ১০৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নদ-নদীর পানি বেড়ে গিয়ে দেশের উত্তর ও উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল এবং মধ্যাঞ্চলের আট জেলার নিম্নাঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতির শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

এক পূর্বাভাসে এ আশঙ্কার কথা জানিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র।

এতে বলা হয়েছে, ব্রহ্মপুত্র-যমুনা নদীর পানি সমতল আগামী ৯ জুলাই পর্যন্ত স্থিতিশীল থেকে তারপর ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পেতে পারে। আগামী ৭ দিনে আপাতত ব্রহ্মপুত্র নদীর অববাহিকায় বিপৎসীমা অতিক্রমের সম্ভাবনা নেই। তবে কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, বগুড়া, জামালপুর, টাঙ্গাইল এবং সিরাজগঞ্জ জেলার নদী তীরবর্তী নিম্নাঞ্চল এবং চরাঞ্চল সমূহ প্লাবিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

গঙ্গা-পদ্মা নদীর পানি সমতল স্থিতিশীলভাবে বৃদ্ধি পেতে পারে। আগামী ৭ দিনে আপাতত গঙ্গা নদীর অববাহিকায় বিপদসীমা অতিক্রমের সম্ভাবনা নেই। তবে রাজবাড়ী এবং মানিকগঞ্জ জেলার নদী তীরবর্তী নিম্নাঞ্চল সমূহ প্লাবিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

ঢাকার চারপাশের নদীসমূহের পানি সমতল বৃদ্ধি অব্যাহত থাকতে পারে। পারে। তবে ঢাকার চারপাশের নদীসমূহের অববাহিকায় বিপৎসীমা অতিক্রমের সম্ভাবনা নেই।

পাউবোর বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া জানিয়েছেন, ব্রহ্মপুত্র-যমুনা নদ-নদীর পানি সমতল স্থিতিশীল আছে, যা শুক্রবার (০৯ জুলাই) পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। গঙ্গা-পদ্মা নদীর পানি সমতল বৃদ্ধি পাচ্ছে, যা আগামী একই সময় পর্যন্ত স্থিতিশীল থাকতে পারে।

দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের আপার মেঘনা অববাহিকার প্রধান নদ-নদীসমূহের পানি সমতল বৃদ্ধি পাচ্ছে, যা শুক্রবার পর্যন্ত স্থিতিশীল থাকতে পারে। এদিকে শুক্রবার নাগাদ তিস্তা নদীর পানি সমতল ডালিয়া পয়েন্টে বিপৎসীমা অতিক্রম করে সংলগ্ন নিম্নাঞ্চলে আকস্মিক বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি করতে পারে।


আরও খবর



কুষ্টিয়ায় ২৪ ঘণ্টায় আরও ২২ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৯ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৯ জুলাই ২০২১ | ১০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কুষ্টিয়া করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে আজ শুক্রবার সকাল ৮টা পর্যন্ত চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও ২২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এক দিনে এই হাসপাতালে সর্বাধিক মৃত্যুর ঘটনা এটি।

গত ২৪ ঘণ্টায় মৃতদের মধ্যে ১২ জনের করোনা পজিটিভ এবং ১০ জনের করোনার উপসর্গ ছিল বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আবদুল মোমেন। তিনি বলেন, হাসপাতালে বর্তমানে করোনা পজিটিভ নিয়ে ১৮৭ জন ও করোনার উপসর্গ নিয়ে ৯৩ জনসহ মোট ২৮০ জন ভর্তি রয়েছে।

কুষ্টিয়া করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. তাপস কুমার সরকার জানান, জেলার সর্বত্র করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, ভারতীয় ডেলটা ভ্যারিয়্যান্টজনিত কারণে এমনটা হচ্ছে। শহরের তুলনায় গ্রামাঞ্চলে এখন করোনার প্রকোপ বেশি। গ্রামের মানুষের মধ্যে সচেতনতা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার প্রবণতা খুব কম। করোনার উপসর্গ নিয়ে দেরিতে চিকিৎসা নিতে আসা এবং দীর্ঘদিন বিভিন্ন জটিল রোগে ভোগা ৫০ বয়সোর্ধ্বদের মৃত্যু বেশি হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

 


আরও খবর



কলমাকান্দার ঐতিহাসিক নাজিরপুর যুদ্ধ দিবস পালিত

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ জুলাই ২০২১ | ৬৪জন দেখেছেন
Image

নেত্রকোণা থেকে মোনায়েম খান:

করোনাকালীন সময়েও সীমিত অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে নেত্রকোনার কলমাকান্দায় পালিত হয়েছে ঐতিহাসিক নাজিরপুর যুদ্ধ দিবস। সোমবার (২৬ জুলাই) বেলা সাড়ে ১১টায় শহীদদের স্মরণে লেঙ্গুরা সাত শহীদের মাজারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায় জেলার সর্বস্তরের জনতা।

এদিনে পাক হানাদার বাহিনীর সঙ্গে সম্মুখ যুদ্ধে জেলার কলমাকান্দা লেঙ্গুরা সীমান্তে শহীদ হয়েছিলেন সাত বীর মুক্তিযোদ্ধা। এরপর থেকেই বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তর ১১৭২ নং পিলারের কাছে শহীদদের সমাধিস্থল সংরক্ষিত করে যুদ্ধ দিবস পালন করা হয়।

এরই ধারাবাহিকতায় নেত্রকোনা-১ আসনের সংসদ সদস্য মানু মজুমদার, জেলা প্রশাসক কাজি মোঃ আব্দুর রহমান, পুলিশ সুপার আকবর আলী মুন্সী, জেলা সাবেক মুক্তিযোদ্ধা ইউনিট কমান্ড মোঃ নুরুল আমিনসহ রাজনৈতিক ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবার, নেতৃবৃন্দসহ সকল শ্রেণি-পেশার মানুষ পৃথকভাবে শহীদদের সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান প্রদর্শন পর্ব, পুলিশের দল গার্ড অব অনার প্রদান করেন এবং এসময় শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করা হয়।

উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালের ২৬ জুলাই সকালে দূর্গাপুরের বিরিশিরি থেকে কলমাকান্দায় পাকহানাদার ক্যাম্পে রসদ যাবার খবর পেয়ে নেত্রকোনা অঞ্চলের কোম্পানি কমান্ডার নাজমুল হক তারার নেতৃত্বে ৪০ জন মুক্তিযোদ্ধার দল তিনটি ভাগে অবস্থান নেয় নাজিরপুরে। যা টাইগার দল নামে পরিচিত ছিল।

এদিকে নদীপথে পাক বাহিনী আসতেই শুরু হয় সম্মুখযুদ্ধ। এতে ঘটনাস্থলেই শহীদ হন বীর মুক্তিযোদ্ধা নেত্রকোনার আবদুল আজিজ ও মো. ফজলুল হক, ময়মনসিংহের মুক্তাগাছার মো. ইয়ার মামুদ, ভবতোষ চন্দ্র দাস, মো. নরুজ্জামান, দ্বিজেন্দ্র চন্দ্র বিশ্বাস ও জামালপুরের মো. জামাল উদ্দিন।

যুদ্ধের এই ইতিহাস নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতেই লেংঙ্গুরার পাহাড়ি নদী গণেশ্বরী পাড়ে ফুলবাড়ীর নামক ভারত সীমান্তে সাত শহীদের স্মরণে স্থাপিত হয় স্মৃতিফলক।


আরও খবর
আজ ঐতিহাসিক গণঅভ্যুত্থান দিবস

রবিবার ২৪ জানুয়ারী ২০২১