আজঃ মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০21
শিরোনাম

নেপালি পুলিশের গুলিতে যুবক নিহত

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৫ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৫ মার্চ ২০২১ | ১০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সীমান্তে নেপালি পুলিশের গুলিতে মারা গেছেন এক ভারতীয় যুবক। বৃহস্পতিবার রাতে উত্তরপ্রদেশের ভারত-নেপাল সীমান্তবর্তী পিলভিট এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো।

ভারতীয় পুলিশ জানিয়েছে, নিহত যুবকের নাম গোবিন্দ সিংহ, বয়স ২৬ বছর। তার সঙ্গে থাকা আরেক যুবক ঘটনার পর থেকে নিখোঁজ রয়েছেন।

পিলভিটের পুলিশ সুপার জয়প্রকাশ জানান, সীমান্তবর্তী রাঘবপুরী গ্রাম থেকে গোবিন্দ সিং, গুরমিত সিং ও পাপ্পু সিং নামে তিন বন্ধু নেপালের বেলোরি বাজারে কোনও কাজে গিয়েছিলেন। গভীর রাতে ফেরার সময় তাদের মধ্যে কোনও বিষয়ে ঝগড়া লাগে।

ভারতীয় এ পুলিশ কর্মকর্তার দাবি, সীমান্ত এলাকায় তাদের বাকবিতণ্ডায় হয়তো নেতিবাচক কিছু ভাবে নেপাল পুলিশ। একারণে ওই যুবকদের দিকে গুলি চালায় তারা। এতে গুরুতর আহত হন গোবিন্দ। পরে হাসপাতালে নিয়ে গেলে তাকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা।

পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনার পর থেকে গোবিন্দর এক সঙ্গী এখনও নিখোঁজ। আরেকজন কোনওমতে প্রাণ বাঁচিয়ে ভারতে ফিরতে পেরেছেন। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। পাশাপাশি, নেপাল পুলিশের সঙ্গেও যোগাযোগের চেষ্টা করছে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ।

এর আগে, গত বছরের মাঝামাঝি নেপালি পুলিশের গুলিতে মারা গিয়েছিলেন এক ভারতীয়। সেসময় বিহার সীমান্তে এক কৃষককে লক্ষ্য করে গুলি চালায় নেপালের পুলিশ। ওই ঘটনায় আহত হয়েছিলেন আরও তিনজন।


আরও খবর



যেভাবে বানাবেন শসার স্মুদি

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৯ এপ্রিল ২০২১ | ৫৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
শসার স্মুদি তৈরি করতে প্রথমে শসা ছাড়িয়ে কুচি করুন। এরপর কুচানো শসা ব্লেন্ডারে দিয়ে তাতে আইস কিউব, দই, মধু, পুদিনা পাতা ও লেবুর রস দিন। যতক্ষণ না পর্যন্ত ভালোভাবে মিশছে,

শসা ত্বক ও স্বাস্থ্য, উভয়ের জন্যই অত্যন্ত উপকারী। শসা শরীর ঠাণ্ডা রাখে, বিশেষ করে গরমকালে। এ ছাড়া শসায় রয়েছে ফসফরাস, জিঙ্ক, ক্যালসিয়াম ও অন্যান্য খনিজ উপাদান।

ভারতের জীবনধারা ও স্বাস্থ্যবিষয়ক ওয়েবসাইট বোল্ডস্কাইয়ের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শসায় থাকা ফাইবার, পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম থাকে প্রচুর, যা রক্তচাপ কমাতে সহায়তা করে। ডিহাইড্রেশন রুখতেও সাহায্য করে শসা।

আজ আমরা কিউকামবার বা শসার স্মুদি তৈরির রেসিপি বলব, যা গরমে আপনাকে একটু হলেও স্বস্তি দেবে

উপকরণ

১. দুটি শসা

২. দুই টেবিল চামচ মধু

৩. দেড় কাপ টক দই

৪. এক মুঠো পুদিনা পাতা

৫. হাফ কাপ আইস কিউব ও

৬. এক চা চামচ লেবুর রস

 

তৈরির পদ্ধতি

শসার স্মুদি তৈরি করতে প্রথমে শসা ছাড়িয়ে কুচি করুন। এরপর কুচানো শসা ব্লেন্ডারে দিয়ে তাতে আইস কিউব, দই, মধু, পুদিনা পাতা ও লেবুর রস দিন। যতক্ষণ না পর্যন্ত ভালোভাবে মিশছে, ততক্ষণ ব্লেন্ড করুন। তৈরি হয়ে গেলে কাঁচের গ্লাসে ঢালুন। প্রত্যেক গ্লাসের ওপর পুদিনা পাতা দিয়ে সাজিয়ে নিন। এরপর ঝটপট পরিবেশন করুন।

নিউজ ট্যাগ: শসা

আরও খবর
মাস্ক কখন পরিবর্তন করবেন

শনিবার ১৭ এপ্রিল ২০২১




পাকিস্তানি সাময়িকীর প্রচ্ছদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ৩০ মার্চ ২০২১ | ৯৬জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সাউথ এশিয়া নামের একটি সাময়িকীর মার্চ ২০২১ সংখ্যার প্রচ্ছদে স্থান করে নিয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পাকিস্তানের করাচি থেকে প্রকাশিত হয় এই সাময়িকীটি।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী নিয়ে সংখ্যাটি সাজানো হয়েছে। স্থান পেয়েছে সাতটি প্রবন্ধ।


আরও খবর



তাদের অবস্থানটা কি বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে?

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০১ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০১ এপ্রিল ২০২১ | ৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
ব্রাহ্মণবাড়িয়া-বাসীকে স্পষ্ট করে বলতে চাই, ১৮ কোটি বাংলাদেশি আপনাদের সাথে রয়েছে। এক সাথে আমরা ভয়কে অতিক্রম করতে পারব। কোনও বিশেষ গোষ্ঠী কোনও একটি অঞ্চলকে উপদ্রুত

ব্রাহ্মণবাড়িয়া হেফাজতে ইসলামের তাণ্ডবের ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে পুলিশের মহাপরিদর্শক ড. বেনজীর আহমেদ বলেছেন, বারবার কেন রাষ্ট্রীয় সম্পত্তির ওপর আঘাত করা হচ্ছে? তাদের অবস্থানটা কি বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে?

বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন শেষে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের কাছে একথা বলেন তিনি।

আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-বাসীকে স্পষ্ট করে বলতে চাই, ১৮ কোটি বাংলাদেশি আপনাদের সাথে রয়েছে। এক সাথে আমরা ভয়কে অতিক্রম করতে পারব। কোনও বিশেষ গোষ্ঠী কোনও একটি অঞ্চলকে উপদ্রুত এলাকা হিসেবে পরিণত করবে এটা হতে দিব না। আমরা দেখছি প্রায় প্রতি বছরই ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এমন ন্যক্কারজনক হামলা ঘটছে। একই সাথে হাটহাজারীতেও এমন হামলা হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মানুষের নিরাপদে ও নিশ্চিন্তে ঘুমানোর অধিকার আছে। এই অধিকার আমরা নিশ্চিত করব। যারা যার কাছে হামলার ভিডিও ও ছবি আছে তারা যেন তা পুলিশকে সরবরাহ করে। আপনারা মামলা করেন, আমরা ব্যবস্থা নেব।


আরও খবর



শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটে যাত্রীদের উপচেপড়া ভিড়

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৩ এপ্রিল ২০২১ | ৮৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মাদারীপুর থেকে দেলোয়ার হোসাইন

সর্বাত্মক লকডাউনের ঘোষণায় শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটে উভয়মুখী যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড় পড়েছে। লঞ্চ বন্ধ থাকলেও ফেরি, স্পীডবোট, ট্রলারে হাজার হাজার যাত্রী গাদাগাদি ঠাসাঠাসি করে পারাপার হচ্ছে। ফেরিতে যাত্রীদের চাপ সামলাতে কম যানবাহন নিয়েই ফেরি পাড়ি দিতে বাধ্যা হচ্ছেন। গণপরিবহন বন্ধ থাকায় মাইক্রোবাস, মোটরসাইকেল, ইজিবাইকসহ বিভিন্ন যানবাহনে বাড়তি ভাড়া দিয়ে বাড়ি ফিরছে যাত্রীরা। কোথাও দেখা যায়নি স্বাস্থ্যবিধি মানার লক্ষণ। এদিকে ফেরি চলাচল সীমিত থাকায় ঘাট এলাকায় পন্যবাহী ট্রাকের জট রয়েছে। শতাধিক কাচামালবাহী ট্রাক আটকে মালে পচন ধরেছে। দক্ষিনাঞ্চলের ২১ জেলার কাচামালবাহী ট্রাক সঠিকভাবে পার হতে না পারায় দ্রব্যমূল্যে প্রভাব পড়ার শংকা রয়েছে।

সরেজমিনে একাধিক জানা যায়, ১৪ এপ্রিল থেকে সর্বাত্মক কঠোর লকডাউন ঘোষণা দিয়েছে সরকার। ফলে সোমবার সকাল থেকেই শিমুলিয়া-বাংলাবাজার রুটে দক্ষিণাঞ্চল ও ঢাকাগামী যাত্রী ও যানবাহনের চাপ বাড়তে থাকে। শিমুলিয়া থেকে এ চাপ আরো বেশি ছিল। দুপুরের পর ভীড় উপচেপড়ায় রূপ নেয়। শিমুলীয়া থেকে বাংলাবাজার ঘাটে আসা প্রতিটি ফেরি ছিল যাত্রী ও যানবাহনে কানায় কানায় পরিপূর্ণ। যাত্রী চাপে যানবাহন কম নিয়েই পার হতে বাধ্য হয় ফেরিগুলো। লঞ্চ বন্ধ থাকলেও প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে শিমুলীয়া ঘাট থেকে ছেড়ে আসা স্পীডবোট ও ট্রলারে পারাপার হয় শতশত যাত্রী।

ঘাট এলাকায় এসে ইজিবাইক, সিএনজি, মোটরসাইকেলসহ বিকল্প যানবাহনে দ্বিগুন ভাড়া দিয়ে গন্তব্যে পৌছেন। ঢাকা থেকে দক্ষিনাঞ্চলের জেলাগুলোতে পৌছতে ৪ গুনেরও বেশি ভাড়া পড়ে যাচ্ছে। ঢাকা থেকে ৩ থেকে ৪ গুন ভাড়া গুনে শিমুলিয়া থেকে স্পীডবোটে ভাড়া যাত্রী প্রতি নেয়া হচ্ছে ৪ শ থেকে ৫ শ টাকা, ট্রলারেও ভাড়া নেয়া হচ্ছে দেড়শ টাকা। ঘাটে নেমে ইজিবাইক, সিএনজি, মোটরসাইকেলে বরিশালে ৫ শ থেকে ৬ শ টাকা, গোপালগঞ্জ ৫ শ টাকা, খুলনা ৭ শ টাকা, মাদারীপুর ২ শ টাকা, বাগেরহাট ৬ শ ৫০ টাকাসহ প্রতিটি যানবাহনেই কয়েকগুন ভাড়া আদায় করা হচ্ছে। এদিকে উভয় ঘাটেই যানবাহনের দীর্ঘ লাইন দেখা গেছে। পন্যবাহী ট্রাকগুলো উভয় ঘাটে আটকে রয়েছে বেশ কয়েকদিন ধরে।

বিআইডব্লিউটিসির বাংলাবাজার ঘাট ম্যানেজার মো: সালাহউদ্দিন বলেন, ফেরি চলাচল সীমিত করায় ঘাটে ট্রাকের দীর্ঘ সাড়ি পড়েছে। আর জনগণকে আমরা স্বাস্থ্যবিধি বুঝানোর চেষ্টা করছি।


আরও খবর



লকডাউনের একাল-সেকাল

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ০৫ এপ্রিল ২০২১ | ৮৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সরকারের দেওয়া দুটি ছবির চিত্রই বলে দিচ্ছে গতবছর কেমন ছিল লকডাউন। রাস্তা ছিল একেবারেই ফাঁকা।

তপ্ত গরমে জনশূন্য এক অন্যরকম রাজধানী। তবে এবার চিত্র ভিন্ন। রাস্তায় যানবাহনও চলছে, রয়েছে জনসমাগমও। অথচ দেশে গতবছরের এই সময়ের কয়েকগুণ বেশি সংক্রমণ। 

সারাদেশে সোমবার (৫ এপ্রিল) থেকে এক সপ্তাহের লকডাউন শুরু হয়েছে। উদ্দেশ্য করোনা সংক্রমণ রোধ করা। এবারের লকডাউনে সড়কে মানুষের চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা যায়নি। গণপরিবহন আর সড়কের পাশের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ছাড়া এবার সবই খোলা।

গতবছর সাধারণ ছুটি ঘোষণা করায় মানুষ প্রথম দিকে ঘর থেকে বের হয়নি। কিন্তু এবার হয়েছে তার উল্টো।

করোনাভাইরাসজনিত রোগ কোভিড-১৯ এর বিস্তার রোধে শর্তসাপেক্ষে সার্বিক কার্যাবলী/চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ শিরোনামের মন্ত্রিপরিষদ রোববার (৪ এপ্রিল) প্রজ্ঞাপন জারি করে। ৫ এপ্রিল ভোর ৬টা থেকে ১১ এপ্রিল রাত ১২টা পর্যন্ত প্রতিপালনের জন্য প্রজ্ঞাপনে ১১টি নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

মানুষের চলাচলে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হলেও অফিস-আদালত খোলা রাখা হয়েছে। বলা হয়েছে, সব সরকারি/আধাসরকারি/স্বায়ত্তশাসিত অফিস ও আদালত এবং বেসরকারি অফিস কেবল জরুরি কাজ সম্পাদনের জন্য সীমিত পরিসরে প্রয়োজনীয় জনবলকে নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থাপনায় অফিসে আনা-নেওয়া করতে পারবে।

সরকারি অফিসগুলো তাদের জনবল সীমিত করে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় লোকবল অফিসে নিয়ে এলেও বেসরকারি চাকুরেদের সকালে অফিসে যেতে নাজেহাল হতে হয়। গণপরিবহন না পেয়ে রিকশা-ভ্যান, অটোরিকশা বা সিএনজি অটোরিকশায় চড়া দামে অফিসে এসেছেন অনেকেই।

গতবছর লকডাউনের শুরুতে রাজধানীর পাড়া-মহল্লার দোকানপাটও বন্ধ ছিল। এবার সকাল থেকেই খুলেছে সে সব দোকানপাট। নিত্যপণ্য ছাড়াও অনেক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা দেখা গেছে।

পুরান ঢাকার ভিক্টোরিয়া পার্ক এলাকায় সকালে সাধারণ মানুষের জটলা দেখা গেছে। রায়সাহেব বাজার, বংশাল, গুলিস্তানে মানুষের জটলা ছিল চোখে পড়ার মতো।

জিরোপয়েন্টে গতবছর সরকারিভাবে পিআইডি থেকে যে ছবি দেওয়া হয় তার সঙ্গে এবছরের প্রথম দিনের চিত্র ভিন্ন। শাহবাগের চিত্রটাও তেমন।

যদিও জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলছেন, সড়কে গণপরিবহন না থাকায় মানেুষের চলাচল সীমিত ছিল, মানুষের আনাগোনা ছিল না। কিন্তু বাস্তবে তার ভিন্নটাই দেখা গেছে রাজধানীজুড়ে।

করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে যে লকডাউন তা আর বাড়বে কিনা- সেটি আগামী বৃহস্পতিবার সিদ্ধান্ত হবে বলে সচিবালয়ে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

নিউজ ট্যাগ: লকডাউন

আরও খবর