আজঃ বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১
শিরোনাম

নেত্রকোনায় বজ্রপাতে ৭ জনের মৃত্যু,আহত ৯

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৮ মে ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৮ মে ২০২১ | ১৬৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

হাওরে কাজ করতে গিয়ে নেত্রকোনার তিন উপজেলায় বজ্রপাতে সাতজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও নয়জন।

এদের মধ্যে কেন্দুয়া উপজেলায় দুজন, মদনে দুজন ও খালিয়াজুরীতে তিনজন। নিহতরা সবাই কৃষক এবং হাওরে কাজ করতে গিয়ে নিহত হন। আহতদের মধ্যে খালিয়াজুরীতে পাঁচজন ও মদনে চারজন রয়েছেন।

মঙ্গলবার (১৮ মে) বিকেল পৌনে ৩টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। নেত্রকোনার পুলিশ সুপার মো. আকবর আলী মুন্সি বজ্রপাতে সাতজনের নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নিহতরা হলেন- কেন্দুয়া উপজেলার পাইকুড়া ইউনিয়নের বৈরাটী গ্রামের মো. বায়েজিদ মিয়া (৪২) ও কান্দিউড়া ইউনিয়নের কুণ্ডলী গ্রামের মো. ফজলুর রহমান (৫৫), খালিয়াজুরী উপজেলার মেন্দিপুর ইউনিয়নের জগন্নাথপুর গ্রামের খেলু ফকিরের ছেলে কৃষক অছেক মিয়া (৩২) একই গ্রামের আমির সরকারের ছেলে কৃষক বিপুল মিয়া (২৮), বাতুয়াইল গ্রামের মঞ্জুরুল হকের ছেলে মনির হোসেন, মদন উপজেলার পশ্চিম ফতেপুর গ্রামের মৃত আব্দুল কাদেরের ছেলে হাফেজ মো. শরীফ ( ১৮) ও একই গ্রামের মৃত আব্দুল মন্নাফের ছেলে মাওলানা আতাবুর রহমান (১৯)।

নিউজ ট্যাগ: বজ্রপাতে মৃত্যু

আরও খবর



করোনায় মৃত্যু ৩৫ লাখ ৭৫ হাজার ছাড়ালো

প্রকাশিত:বুধবার ০২ জুন 2০২1 | হালনাগাদ:বুধবার ০২ জুন 2০২1 | ৯২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানি একদিন বাড়ছে আবার একদিন কমছে। সবশেষ করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৭ কোটি ১৯ লাখ ২৭ হাজার ৮০২ জন। আর এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বিশ্বে মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩৫ লাখ ৭৫ হাজার ৫৪৫ জনে। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছে ১৫ কোটি ৪৪ লাখ ৭ হাজার ১৮২ জন।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটার থেকে বুধবার (২ জুন) সকালে এই তথ্য জানা গেছে।

ওয়ার্ল্ডওমিটারের সবশেষ তথ্য অনুযায়ী, করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও মৃত্যু হয়েছে বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাষ্ট্রে। তালিকায় শীর্ষে থাকা দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনা সংক্রমিত হয়েছেন ৩ কোটি ৪১ লাখ ৩৬ হাজার ৭৩৮ জন আর মারা গেছেন ৬ লাখ ১০ হাজার ৪৩৬ জন। আর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২ কোটি ৭৯ লাখ ৪০ হাজার ৯১৮ জন।

করোনায় আক্রান্তের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে প্রতিবেশী দেশ ভারত। দেশটিতে মোট আক্রান্ত ২ কোটি ৮৩ লাখ ৬ হাজার ৮৮৩ জন এবং মারা গেছেন ৩ লাখ ৩৫ হাজার ১১৪ জন। আর সুস্থ হয়েছেন ২ কোটি ৬১ লাখ ৭০ হাজার ৯৯২ জন।

লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিল করোনায় আক্রান্তের দিক থেকে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে। দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগী ১ কোটি ৬৬ লাখ ২৫ হাজার ৫৭২ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৪ লাখ ৬৫ হাজার ৩১২ জনের। সুস্থ নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১ কোটি ৫০ লাখ ৬৮ হাজার ১৪৬ জন।

এছাড়া এখন পর্যন্ত ফ্রান্সে ৫৬ লাখ ৭৭ হাজার ১৭২ জন, রাশিয়ায় ৫০ লাখ ৮১ হাজার ৪১৭ জন, যুক্তরাজ্যে ৪৪ লাখ ৯০ হাজার ৪৩৮ জন, ইতালিতে ৪২ লাখ ২০ হাজার ৩০৪ জন, তুরস্কে ৫২ লাখ ৫৬ হাজার ৫১৬ জন, স্পেনে ৩৬ লাখ ৮২ হাজার ৭৭৮ জন, জার্মানিতে ৩৬ লাখ ৯২ হাজার ৯০৮ জন এবং মেক্সিকোতে ২৪ লাখ ১৩ হাজার ৭৪২ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

অন্যদিকে করোনায় আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত ফ্রান্সে এক লাখ ৯ হাজার ৬৬২ জন, রাশিয়ায় এক লাখ ২১ হাজার ৮৭৩ জন, যুক্তরাজ্যে এক লাখ ২৭ হাজার ৭৮২ জন, ইতালিতে এক লাখ ২৬ হাজার ২২১ জন, তুরস্কে ৪৭ হাজার ৬৫৬ জন, স্পেনে ৭৯ হাজার ৯৮৩ জন, জার্মানিতে ৮৯ হাজার ৩১৬ জন এবং মেক্সিকোতে ২ লাখ ২৩ হাজার ৫৬৮ জন মারা গেছেন।

নিউজ ট্যাগ: করোনাভাইরাস

আরও খবর
করোনায় আরও ৭৬ জনের মৃত্যু

মঙ্গলবার ২২ জুন ২০২১




ইউপি নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হয়েছে : ইসি সচিব

প্রকাশিত:সোমবার ২১ জুন 20২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২১ জুন 20২১ | ৫১জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দু-একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া সোমবার (২১ জুন) ২০৪টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হয়েছে বলে দাবি করেছেন নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সচিব হুমায়ুন কবীর। একই দিনে লক্ষ্মীপুর-২ আসনের উপ-নির্বাচন এবং ঝালকাঠি ও সেতাবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনও শান্তিপূর্ণ হয়েছে বলে দাবি করেছেন তিনি।

সোমবার (২১ জুন) বিকেলে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ দাবি করে ইসি সচিব।

তিনি জানান, ভোলার চরফ্যাশন উপজেলায় একটি ভোট কেন্দ্রের বাইরে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছেন। বরিশালের গৌরনদীতে জাল ভোট দেওয়ার অভিযোগে একজনকে গ্রেপ্তার করাকে কেন্দ্র করে দুই প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে আরেক ব‌্যক্তি নিহত হয়েছেন।

ইসি সচিব বলেন, নির্বাচন কমিশন সারা দেশে নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করেছে। বিভিন্ন মিডিয়ায় যেসব খবর প্রচারিত হয়েছে, তার ওপর ভিত্তি করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সচিব বলেন, কয়েকটি জায়গায় বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে হয়েছে। দুই জায়গায় দুজন নিহত হয়েছেন। তবে, কোনো মৃত্যুই কাম্য নয়।

দুজন নিহতের ঘটনায় আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে সচিব বলেন, বিভিন্ন প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় দুজন নিহত হয়েছে। তারা এ বিষয়ে আইনি ব্যবস্থা নেবে। তদন্ত হলে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে।

আগে নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ জানানোর পরও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি, এমন অভিযোগের জবাবে ইসি সচিব বলেন, যেসব অভিযোগ আমাদের কাছে এসেছে, আমরা ব্যবস্থা নিয়েছি। আমরা গণমাধ্যমের সংবাদ দেখেও অনেক জায়গায় ব্যবস্থা নিয়েছি।

স্থগিত হওয়া নির্বাচন কবে হতে পারে, এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এ মুহূর্তে এটা বলা যাবে না। কমিশন সভা হলে তখন জানা যাবে। নির্বাচন কমিশন পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবে।

ভবিষ্যতে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়াতে কী ব্যবস্থা নেবেন, জানতে চাইলে হুমায়ুন কবীর বলেন, আমরা প্রতিটি কেন্দ্রে যথেষ্ট সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করেছি। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভালো ছিল। ভবিষ্যতে যাতে এ ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা না ঘটে, কমিশন সে বিষয় পর্যালোচনা করবে।


আরও খবর



সর্দি-মাথাব্যথা ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টের লক্ষণ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৫ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৫ জুন ২০২১ | ৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কোভিডের উপসর্গবিষয়ক গবেষক অধ্যাপক টিম স্পেক্টর বলেন, তরুণদের ক্ষেত্রে ডেল্টা বা ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত হওয়াটা মারাত্মকভাবে সর্দি লাগার মতোই মনে হতে পারে।

যদিও তাদের খুব বেশি অসুস্থ হয়ে পড়ার আশঙ্কা নেই, তবে তারা সংক্রামক হতে পারে এবং অন্যদের ঝুঁকিতে ফেলতে পারে। যে কারও যদি সন্দেহ হয় যে, তিনি হয়তো কোভিডে আক্রান্ত হয়ে থাকতে পারেন, তা হলে তার অবশ্যই টেস্ট করানো উচিত।

যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ এনএইচএসের মতে সাধারণত কোভিডের যে উপসর্গ দেখা যায় তা হলো কাশি, জ্বর, স্বাদ ও গন্ধ না পাওয়া।

কিন্তু অধ্যাপক স্পেক্টর বলছেন, এই উপসর্গগুলো এখন আর তেমন দেখা যাচ্ছে না। কোভিড আক্রান্ত হাজার হাজার মানুষের উপসর্গভিত্তিক তথ্যের ভিত্তিতে এমনটি জানিয়েছে।

তিনি বলেন, মে মাসের শুরু থেকে সবচেয়ে বেশি যে উপসর্গগুলো দেখা গেছে সেগুলো আগের উপসর্গগুলোর মতো নয়।

এই পরিবর্তন ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট সংক্রমণের কারণে হয়েছে। ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট প্রথম ভারতে শনাক্ত করা হয়েছিল এবং এর পর থেকে যুক্তরাজ্যে এখন ৯০ শতাংশ সংক্রমণের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে এটি।

জ্বরের উপসর্গ এখনও একই আছে। কিন্তু প্রথম ১০টির মধ্যে এখন গন্ধ না পাওয়ার উপসর্গটি আর নেই, বলেন অধ্যাপক স্পেক্টর।

মানুষের মনে হতে পারে যে, তারা হয়তো সাধারণ মৌসুমি ঠাণ্ডা লাগায় আক্রান্ত হয়েছে এবং এটা ভেবে তারা বাইরে বিভিন্ন পার্টিতে অংশ নিচ্ছে। এভাবে তারা আরও ছয়জনের মধ্যে এটি ছড়িয়ে দিতে পারে।

আমরা মনে করি এটা খুব বড় সমস্যার দিকে এগোচ্ছে। এখানে বার্তাটি হচ্ছে আপনি যদি তরুণ হয়ে থাকেন তা হলে আপনার মৃদু উপসর্গ দেখা দেবে।

মনে হতে পারে যে, আপনার হয়তো বাজে ধরনের ঠাণ্ডা লেগেছে এবং আপনি হয়তো নেতিয়ে পড়ছেন; কিন্তু বাড়িতে থাকুন ও টেস্ট করান।


আরও খবর
করোনায় আরও ৭৬ জনের মৃত্যু

মঙ্গলবার ২২ জুন ২০২১




ভাসানচর যাবে আরও ৮০ হাজার রোহিঙ্গা

প্রকাশিত:রবিবার ০৬ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ০৬ জুন ২০২১ | ১০৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কক্সবাজারের শরণার্থী শিবিরগুলো থেকে আরও ৮০ হাজার রোহিঙ্গাকে নোয়াখালীর হাতিয়ার ভাসানচরে স্থানান্তরিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

রবিবার (৬ জুন) বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত এবং হাইকমিশনার, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও ইউএনএইচসিআরের প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউসের বৈঠক হয়।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে (পিএমও) অনুষ্ঠিত বৈঠকে জানানো হয়, সরকার কক্সবাজারের বিভিন্ন ক্যাম্পে অবস্থানরত আরও ৮০ হাজার রোহিঙ্গাকে দ্রুত সময়ের মধ্যে ভাসানচরে স্থানান্তরিত করার উদ্যোগ নিয়েছে।

বৈঠকের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রীর উপ-প্রেস সচিব কে এম সাখাওয়াত মুন এ তথ্য জানিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব বলেন, মিয়ানমার থেকে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বসবাসের উপযোগী ব্যবস্থাসহ সকল মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করতে সরকার সচেষ্ট রয়েছে। ইতোমধ্যে ভাসানচরের উন্নত পরিবেশ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে প্রশংসিত হয়েছে।

সম্প্রতি জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সহকারী কমিশনার (অপারেশন) রাউফ মাজৌ ভাসানচর পরিদর্শন করেন। তিনি ভাসানচরের অবকাঠামোর প্রশংসা করেন। বলেন, সরকার ভাসানচরে খুব গুরুত্বপূর্ণ বিনিয়োগ করেছে। আপনি যদি কক্সবাজারের সঙ্গে ভাসানচরের তুলনা করেন, তাহলে ভাসানচর বেশি ভালো।

২০১৭ সালের আগস্টে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নিপীড়নের মুখে দেশটি থেকে কয়েক লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আসেন। আগেরসহ প্রায় ১১ লাখ রোহিঙ্গা কক্সবাজারে অবস্থান নেন। এরপর কয়েক ধাপে ভাসানচরে স্থানান্তরিত করা হয় রোহিঙ্গাদের। সব মিলিয়ে প্রায় ১৮ হাজারের বেশি রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে নেয়া হয়।


আরও খবর



হেফাজত নেতাদের ব্যাংক হিসাবের তথ্য চেয়েছে দুদক

প্রকাশিত:বুধবার ০৯ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৯ জুন ২০২১ | ৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কওমি মাদ্রাসাভিত্তিক আলোচিত-সমালোচিত সংগঠন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় নেতাদের আর্থিক বিষয়ে অনুসন্ধান করবে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এজন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএএফইইউ) এর কাছে তথ্য চেয়েছে দুর্নীতিবিরোধী সংস্থাটি।

বুধবার বিকালে দুদকের সচিব মু. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার জানিয়েছেন এই তথ্য। দুদক প্রধান কার্যালয়ের সামনে তিনি সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন।

দুদক সচিব বলেন, আমাদের যে জায়গাগুলোতে তথ্যের জন্য যোগাযোগ করা করা দরকার, সেইসব জায়গায় আমরা ইতিমধ্যে তথ্য চেয়ে চিঠি দিয়েছি। এখনো আমরা সব তথ্য পাইনি। কেন্দ্রীয় আর্থিক গোয়েন্দা বাংলাদেশ ফিন্যানশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট এই বিষয়ে কাজ করছে।

হেফাজত নেতাদের বিষয়ে দুদকের তদন্তের অগ্রগতি জানতে চাইলে তিনি বলেন, হেফাজত নেতাদের জমি-জমার হিসাব চাওয়া হয়েছে। তাদের বিভিন্ন ব্যাংক অ্যাকাউন্টে লেনদেনের তথ্য চাওয়ার কথা আপানারা ইতিমধ্যে জেনেছেন। বিএফআইইউ তথ্য সংগ্রহ করছে, সে তথ্যগুলো পেতে একটু দেরি হচ্ছে।

দুর্নীতি দমন কমিশন হেফাজত ইসলাম নেতাদের জিজ্ঞাসাবাদ করবে কি না এমন প্রশ্নে দুদক সচিব বলেন, তদন্তকারী কর্মকর্তাদের এসব বিষয়ে এখতিয়ার দেয়া আছে। তারা যদি প্রয়োজন মনে করেন অবশ্যই জিজ্ঞাসাবাদ করবেন। সেটা তারা তদন্তের স্বার্থেও জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারেন।

এখন পর্যন্ত দুদক সর্বমোট ৫০ জন হেফাজত নেতার তথ্য চেয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, এখনো কোনো তথ্য আসেনি। তদন্ত অনুসন্ধান করতেও আমাদের কিছু তথ্য লাগবে। ডিবির তথ্য যদি আমাদের দেয় তাহলে সেটা আমরা আমলে নেব। তারপর এসব বিষয়ে কাজ করবো।

হেফাজত নেতাদের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হবে কি না জানতে চাইলে সচিব বলেন, হেফাজত নেতাদের পাসপোর্টসংক্রান্ত বিষয়ে ইমিগ্রেশনে চিঠি দেয়া হয়েছে। তাদের বিদেশযাত্রা ও পাসপোর্ট সম্পর্কে তথ্য চাওয়া হয়েছে। প্রয়োজন হলে তাদের বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা দেয়া হবে।

দুদক সচিব বলেন, আজকে বর্তমান কমিশনের তৃতীয় সভা এবং চলতি বছরের চতুর্থ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কমিশনে ৭টা ইস্যু ছিল। মামলা ও প্রশাসনিক ইস্যু ছিল। এর মধ্যে একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে। কমিশনে লোকবলের খুব সংকট। যত লোকবল খালি আছে, সেটা নিয়োগের একটা সিদ্ধান্ত হয়েছে। যত দ্রুত সম্ভব নিয়োগ করা হবে।


আরও খবর