আজঃ শনিবার ০৬ মার্চ ২০২১
শিরোনাম

নিজেকে উৎসর্গ করার প্রত্যয় নিয়েই রাজনীতি করি: সুমন কুমার সাহা

প্রকাশিত:শনিবার ২৩ জানুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৩৯৯জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
মহান স্বাধীনতার স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার একজন ক্ষুদ্র কর্মী হিসেবে নিজেকে উৎসর্গ করার প্রত্যয় নিয়েই রাজনীতি করি

জয়পুরহাট থেকে শাহাদাৎ হোসেন  

রাজনীতি ও জনসেবা শব্দ দুটি পরিপূরক। রাজনীতির মূখ্য উদ্দেশ্য জনগণের প্রত্যাশা পুরণে সুখে দুঃখে তাদের পাশে থেকে নিজেকে উৎসর্গ করা। একজন রাজনীতিবীদ তখন-ই স্বার্থক যখন সাধারণ জনগণ তাকে দিয়ে সমাজের উন্নয়নের কথা চিন্তা করে। রাজনৈতিক আর ব্যক্তিগত জনপ্রিয়তা দুটি আলাদা বিষয়, ব্যক্তিগত জনপ্রিয়তা অর্জন করতে গেলে মানুষের পাশাপাশি-কাছাকাছি গিয়ে অসহায়দের সহায় হয়ে নিজেকে উৎসর্গ করতে হবে তবেই ব্যক্তি জনপ্রিয়তা অর্জিত হয়। অপরদিকে রাজনৈতিক জনপ্রিয়তা রাজনৈতিক দর্শন বা প্রজ্ঞা দিয়েই অর্জণ করতে হয়, স্বচ্ছ রাজনৈতিক ব্যক্তি হিসেবে সমাজের নানাবিধ উন্নয়ন ও সেবামূলক কাজে নিজেকে সংশ্লিষ্ট রেখে রাজনৈতিক দূরদর্শিতা অর্জনের মাধ্যমে রাজনৈতিক জনপ্রিয়তা অর্জিত হয়। এক্ষেত্রে রাজনৈতিক দলের মানদণ্ড বা আদর্শ অন্যতম। একসাথে রাজনৈতিক ও ব্যক্তিগত জনপ্রিয়তা কোন ব্যক্তির অর্জন হয়ে থাকলে ধরে নিতে হবে সে প্রকৃত অর্থেই একজন ভালো মানুষ বা ভালো রাজনৈতিক ব্যক্তি। যদিও তা আমাদের সমাজে খুব দুরুহ ব্যাপার। কিন্তু এর সব বাস্তবতায় তিলে তিলে নিজ এলাকার সর্বস্তরের জনগণের ভালোবাসা ও আস্থা অর্জন করে নিয়েছেন আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি জয়পুরহাট সদর পৌরসভার মেয়র পদে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর মনোনয়ন প্রত্যাশী জেলা আওয়ামী যুবলীগ এর সভাপতি প্রভাষক সুমন কুমার সাহা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, নির্বাচন কমিশনের তফসিল অনুযায়ী ৫ম ধাপে ২৮ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে জয়পুরহাট পৌর সভার নির্বাচন। নির্বাচনকে ঘিরে শহরের প্রতিটি অলি-গলি চায়ের টেবিলে একই আলাপ, কারা পাচ্ছেন দলীয় মনোনয়ন, কে হচ্ছে পৌর মেয়র, এছাড়াও নিজ নিজ নেতার সমর্থনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যে ফেসমবুকেও জমে উঠেছে নির্বাচনী প্রচারনা। দলীয় নেতাকর্মীরা অপেক্ষার প্রহর গুনছে এ আশায় কে হবেন দলের মনোনীত প্রার্থী।

এ প্রসঙ্গে জয়পুরহাট পৌরসভার মেয়র প্রার্থী যুবনেতা সুমন কুমার সাহা প্রতিবেদককে বলেন, মহান স্বাধীনতার স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার একজন ক্ষুদ্র কর্মী হিসেবে নিজেকে উৎসর্গ করার প্রত্যয় নিয়েই রাজনীতি করি। রাজনীতি করি জনগণের জন্য, তাদের প্রাপ্য অধিকার নিশ্চিত করাই আমার লক্ষ্য, ক্ষুদ্র এই রাজনৈতিক জীবনে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে লালন করে ১৯৮৯ সালে স্কুল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে রাজনীতিতে সক্রিয় হয়ে ২০০২ সাল পর্যন্ত জয়পুরহাটের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, উপজেলা ও জেলা ছাত্রলীগের গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেছি। ২০০৩ সাল জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক, ২০০৬ সালে সাধারণ সম্পাদক পরবর্তীতে ২০১৬ সালে জেলা যুবলীগের সভাপতি নির্বাচিত হয়ে অদ্যবধি আমার উপর অর্পিত দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করে আসছি, এছাড়াও আমি সামাজিক বিভিন্ন সংগঠনের সাথে জড়িত থেকে জয়পুরহাটের যুব সমাজকে সাথে নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি।

তিনি বলেন, প্রায় ৩২ বছর রাজনীতির এই পথ চলায় কখনও আমার ব্যক্তিগত চাওয়া পাওয়ার কিছু নেই, স্বপ্ন শুধু একটাই আমৃত্যু জনগণের পাশে থেকে নিজেকে বিলিয়ে দিবো। এ প্রত্যাশা নিয়ে আগামী ২৮-ই ফেব্রুয়ারি জয়পুরহাট সদর পৌর সভার নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর দলীয় মনোনয়ন পেতে প্রার্থী হিসেবে নিজেকে সমর্পণ করেছি। আমি আশাবাদী আমাদের আস্থার শেষ ঠিকানা রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা ও দলের নীতি নির্ধারকগণ সুবিবেচনা করে আমাকে দলীয় মনোনয়ন দিবেন। দলীয় মনোনয়ন দেয়া হলে নির্বাচনী এলাকায় নৌকার বিজয় ধ্বনিতে মুখরিত হবে। একই সাথে মেয়র নির্বাচিত হলে আমার পৌর এলাকার জনগণের প্রত্যাশা পুরণে উন্নয়ন ও সমৃদ্ধিতে জয়পুরহাট পৌরসভাকে অত্যাধুনিক রুপরেখায় সার্বিক উন্নয়ন দৃশ্যমান করবো।

Share

আরও খবর



উত্তেজিত বিএনপি কর্মীদের সাথে পুলিশের বাগবিতণ্ডা

প্রকাশিত:শনিবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ১০১জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
পুলিশ বিএনপির নেতাকর্মীদের সরিয়ে যান চলাচল স্বাভাবিক করতে চাইলে উভয়পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি, উত্তেজনা ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের বীর উত্তম খেতাব প্রত্যাহারের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে বিএনপির পূর্বঘোষিত প্রতিবাদ সমাবেশে পুলিশের সঙ্গে দলটির নেতাকর্মীদের বাগবিতণ্ডায় উত্তেজনা দেখা দিয়েছে।

আজ শনিবার সকাল ১০টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির উদ্যোগে প্রতিবাদ সমাবেশ শুরু হলেও সকাল সাড়ে ৮টা থেকেই বিএনপি ও এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে প্রেসক্লাবের সামনে এসে জড়ো হতে থাকেন। এক পর্যায়ে যুবদলের একটি মিছিলকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে দলটির নেতাকর্মীদের বাকবিতণ্ডায় উত্তেজনা দেখা দেয়। এদিকে, সমাবেশকে কেন্দ্র করে বিপুল সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য উপস্থিত রয়েছেন।

এদিকে, বিএনপির সমাবেশের কারণে প্রেসক্লাবের সামনের রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পুলিশ বিএনপির নেতাকর্মীদের সরিয়ে যান চলাচল স্বাভাবিক করতে চাইলে উভয়পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি, উত্তেজনা ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। এ অবস্থা চলে প্রায় ১০ মিনিট। এরই মধ্যে সমাবেশের পাশেই বিপুল সংখ্যক পুলিশ অবস্থান নিয়েছে। এদিকে বিএনপির জ্যেষ্ঠ নেতারা দলের নেতাকর্মীদের শান্ত থাকার জন্য বারবার অহ্বান জানাচ্ছেন। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

প্রতিবাদ সমাবেশে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সভাপতি হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নীরব, সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের ভূইয়া জুয়েল, কৃষকদলের সদস্য সচিব কৃষিবিদ হাসান জাফির তুহিন, ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন, জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আমিনুর রহমান আমিন, যুবদল মহানগর দক্ষিণের সভাপতি রফিকুল আলম মজনু প্রমুখ।

Share

আরও খবর
গণফোরামের ভাগ্য নির্ধারণ আজ

শনিবার ০৬ মার্চ ২০২১




ভ্যাকসিন নিয়েও করোনায় আক্রান্ত ত্রাণ সচিব

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ১১০জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ সচিব মো. মোহসীন টিকা নেয়ার ১২ দিন পর করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তিনি গত ৭ ফেব্রুয়ারি টিকা নেন। পরে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি করোনা আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হন। বর্তমানে তিনি রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. সেলিম হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, করোনার লক্ষণ দেখা দেয়ায় পরীক্ষার জন্য গত ১৮ ফেব্রুয়ারি সচিব মহোদয় নমুনা দেন। ১৯ ফেব্রুয়ারি ফলাফল পজিটিভ আসে। পরে শ্বাসকষ্ট ও অক্সিজেন সেচুরেশন কমে যাওয়ায় তাকে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আজ তার শ্বাসকষ্ট কিছুটা কমেছে। অক্সিজেন সেচুরেশনও ভালো। তবে তার বেশ কাশি রয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ৭ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর জাতীয় ক্যানসার গবেষণা ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালে টিকা নিয়েছিলেন সচিব মো. মোহসীন।

Share

আরও খবর



নতুন হল নির্মাণের জন্য ৫ শতাংশ সুদে ঋণ পাবেন হল মালিকরা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৮৬জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সিনেমা হল মালিকদের স্বল্প সুদে দীর্ঘমেয়াদে ঋণ দেয়া হবে। সিনেমা হল সংস্কার, আধুনিকায়ন ও নতুন হল নির্মাণের জন্য এক হাজার কোটি টাকার বিশেষ পুনঃঅর্থায়ন স্কিম গঠন করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

রোববার পুনঃঅর্থায়ন তহবিলের সুদের হার নির্ধারণ করে নীতিমালা জারি করে বাংলাদেশ ব্যাংক। মেট্রোপলিটন এলাকার হল মালিকরা ৫ শতাংশ সুদে ঋণ পাবেন। আর মেট্রোপলিটন এলাকার বাইরের হল মালিকরা সাড়ে ৪ শতাংশ সুদে ঋণ পাবেন।

এর আগে গত ২৬ জানুয়ারি এই তহবিলের অনুমোদন দেয় বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ।

নীতিমালা অনুযায়ী, বাংলাদেশ ব্যাংক বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে ১ দশমিক ৫ শতাংশ সুদে এই ঋণ দেবে। ব্যাংকগুলো আবার গ্রাহক পর্যায়ে সর্বোচ্চ ৫ শতাংশ সুদে এই ঋণ বিতরণ করতে পারবে। একটি সিনেমা হলের বিপরীতে সর্বোচ্চ ৫ কোটি টাকা ঋণ বিতরণ করতে পারবে ব্যাংকগুলো।

প্রথম বছর এই ঋণের কোনো কিস্তি দিতে হবে না হল মালিকদের। ঋণ পরিশোধের জন্য সর্বোচ্চ সময় পাওয়া যাবে ৮ বছর।

যেসব হল মালিক এই ঋণ পাবেন

সিনেমা হল মালিকদের সুবিধার্থে বিভিন্ন মেয়াদে ঋণ বা বিনিয়োগ সুবিধা দেয়া হবে। বর্তমান সিনেমা হল সংস্কার, আধুনিকায়ন, যন্ত্রাংশ কেনা ও নতুন সিনেমা হল নির্মাণের জন্য তফসিলি ব্যাংকের অর্থায়নের বিপরীতে বাংলাদেশ ব্যাংক পুনঃঅর্থায়ন সুবিধা দেবে। বিভিন্ন শপিং কমপ্লেক্সে যেসব সিনেমা হল আছে, সেগুলো নতুনভাবে নির্মাণ করার ক্ষেত্রেও এ স্কিম সুবিধা প্রযোজ্য হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নিজস্ব তহবিল থেকে দেয়া হবে এ টাকা। প্রথম ধাপে ৫০০ কোটি টাকা বিতরণ করা হবে। টাকা ব্যয়ের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর দ্বিতীয় ধাপে আরো ৫০০ কোটি টাকা দেয়া হবে। প্রত্যেক গ্রাহককে প্রতিটি সিনেমা হলের জন্য ঋণ বা বিনিয়োগ সুবিধার নিশ্চয়তা অর্থায়নকারী ব্যাংক নির্ধারণ করবে। কিন্তু কোনো সিনেমা হলই ৫ কোটি টাকার বেশি পাবে না।

ঋণ নিতে যা করতে হবে

এ স্কিম থেকে যারা ঋণ নিতে চান, তাদের ২০২২ সালের ৩১ মার্চের মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে আবেদন করতে হবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের ডিপার্টমেন্ট অব অফ-সাইট সুপারভিশন এ স্কিম পরিচালনা করবে।

নিউজ ট্যাগ: বাংলাদেশ ব্যাংক
Share

আরও খবর



কর্নওয়ালের ঘূর্ণিতে ২৯৬ রানে অলআউট বাংলাদেশ

প্রকাশিত:শনিবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৯৫জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাখিম কর্নওয়ালের ঘূর্ণিতে ২৯৬ রানে অলআউট হলো বাংলাদেশ। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৭১ রান করলেন লিটন দাস। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৫৭ রান করেছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ৫৪ রান করেছেন মুশফিকুর রহিম। ক্যারিবীয় স্পিনার রাখিম কর্নওয়াল ৭৪ রান দিয়ে শিকার করেছেন ৫টি উইকেট। এছাড়া শ্যানন গ্যাব্রিয়েল ৩টি আলজারি যোসেফ ২টি করে উইকেট শিকার করেন। প্রথম ইনিংস শেষে বাংলাদেশ পিছিয়ে ১১৩ রানে।

আজ দিনের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে প্যাভিলিয়নে ফেরেন মোহাম্মদ মিথুন। গতকাল দিন শেষে ব্যক্তিগত ৬ রানে অপরাজিত থাকা ‍মিথুন আজ ফিরেন ব্যক্তিগত ১৫ রানে। দলীয় ১৪২ রানে কর্নওয়ালের বলে শর্ট মিডউইকেটে ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েটের হাতে ক্যাচ হন তিনি।

এরপর মুশফিকুর রহিম ফিরে যান ব্যক্তিগত ৫৪ রানে। দলীয় ১৫৫ রানে কর্নওয়ালের বলে রিভার্স সুইপ খেলতে গিয়ে মায়ার্সের হাতে ক্যাচ হন তিনি। তারপর থেকে লিটন দাস ও মেহেদী হাসান মিরাজের জুটিতে এগোতে থাকে বাংলাদেশ। প্রথম সেশনে জুটি বাঁধা এই দুই ব্যাটসম্যান মিলে দ্বিতীয় সেশন পার করে দেন।

কিন্তু তৃতীয় সেশনে আবার ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে বাংলাদেশ। কর্নওয়ালের করা একই ওভারে ফিরে যান লিটন দাস ও নাঈম হাসান। ৯২তম ওভারে ব্লাকউডের হাতে ক্যাচ হন লিটন। পঞ্চম বলে নাঈমও ক্যাচ হন এই ব্লাকউডের হাতে। লিটন ৭১ রান করলেও নাঈম রানের খাতা খুলতে পারেননি।

এই দুই ব্যাটসম্যানের বিদায়ের পর মিরাজও টিকতে পারেননি। দলীয় ২৮৩ রানে গ্যাব্রিয়েলের বলে কাভারে ব্র্যাথওয়েটের হাতে ক্যাচ হন মিরাজ। তার ব্যাট থেকে আসে ৫৭ রান। দলের রান যখন ২৯৬ তখন যোসেফের বলে বোনারের হাতে ক্যাচ হন আবু জায়েদ রাহি।

গত বৃহস্পতিবার মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শুরু হয়েছে বাংলাদেশ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যকার দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচ। প্রথম দিন টস জিতে ব্যাট করতে নামে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। দ্বিতীয় দিন শেষ হয় তাদের প্রথম ইনিংস। ৪০৯ রান করে অলআউট হয় ক্যারিবীয়রা।

সফরকারীদের পক্ষে এনক্রুমাহ বোনার ৯০, জশুয়া ডি সিলভা ৯২ ও আলজারি যোসেফ ৮২ রান করেন। বাংলাদেশের বোলারদের মধ্যে আবু জায়েদ রাহি ৪টি, তাইজুল ইসলাম ৪টি, সৌম্য সরকার ১টি ও মেহেদী হাসান মিরাজ ১টি করে উইকেট শিকার করেন। দ্বিতীয় দিনই বাংলাদেশ নিজেদের প্রথম ইনিংসের ব্যাট করতে নামে। ৪ উইকেটে ১০৫ রান করে দিনের খেলা শেষ করেছিল টাইগাররা।

নিউজ ট্যাগ: ক্যারিবীয়
Share

আরও খবর



‘আমরা চাই, মানুষ বীমা সম্পর্কে আরও আস্থাশীল হোক’

প্রকাশিত:সোমবার ০১ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ০১ মার্চ ২০২১ | ১০৬জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
বঙ্গবন্ধু শিক্ষা বীমা চালু করা হয়েছে। বার্ষিক ৮৫ টাকা দিয়ে একটা পলিসি করতে পারবে। এক্ষেত্রে নতুন বিবাহিত কাপল বীমা করলে সন্তান শিক্ষা সমাপনী পর্যন্ত আর কোনো সমস্যায় পড়তে হবে না, এরকম ব্যবস্থা করতে হবে

বীমার প্রিমিয়াম জমা দেয়া ও ক্ষতি নিরূপণে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোমবার (১ মার্চ) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় বীমা দিবস-২০২১ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে অনুষ্ঠানে যুক্ত হন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা চাই, মানুষ বীমা সম্পর্কে আরও আস্থাশীল হোক। এতে তারা যেন সুফলটা ভোগ করতে পারে। সেজন্য বীমা পদ্ধতির আধুনিকায়ন ও যাবতীয় আইন করে দিয়েছি। বীমায় গ্রাহকদের সর্বোচ্চ সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করতে হবে। বীমার দাবি পূরণে সতর্ক থাকতে হবে। গ্রাহকের পাওনা সহজে পাওয়ার বিষয়ে যত্নবান হতে হবে। পাশাপাশি আর্টিফিশিয়াল ক্ষতি দেখিয়ে কেউ যেন বীমা দাবি করতে না পারে, সে ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের দেশে এই সমস্যা আছে। একটা সুবিধার ব্যবহারের চেয়ে অপব্যবহার করতে চায় অনেকে। এ বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। আমি হাতেনাতে ধরতে পেরেছি বলে বললাম। বীমা জীবন ঘনিষ্ঠ সেবা। এই সেবাকে যাতে অন্যভাবে ব্যবহার করতে না পারে, খেয়াল রাখতে হবে। অবশ্য এটা এখন অনেকে কমে গেছে। বীমার সুফল সম্পর্কে সচেতনতার অভাব আছে। সচেতনতা বাড়াতে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। জাতির পিতা এই সচেতনতা তৈরিতে কাজ করেছিলেন। ১৯৬১ সালের ১ মার্চ আলফা ইনস্যুরেন্স কোম্পানিতে আঞ্চলিক প্রধান হিসেবে যোগদান করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এখানে বসেই ৬ দফা রচনা করেছিলেন। তাই এটা শুধু বীমার নয়, রাজনৈতিকভাবেও গুরুত্বপূর্ণ।

শেখ হাসিনা বলেন, বঙ্গবন্ধু শিক্ষা বীমা চালু করা হয়েছে। বার্ষিক ৮৫ টাকা দিয়ে একটা পলিসি করতে পারবে। এক্ষেত্রে নতুন বিবাহিত কাপল বীমা করলে সন্তান শিক্ষা সমাপনী পর্যন্ত আর কোনো সমস্যায় পড়তে হবে না, এরকম ব্যবস্থা করতে হবে। বার্ষিক ২৮৫ টাকা দিয়ে একজন খেলোয়াড়ও নিজের জীবন সুরক্ষিত রাখতে পারবে প্রবাসীদের জন্যও বীমার সুযোগ রাখা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশ গড়ার কাজ করে গেছেন। শূন্য থেকে শুরু করেন। অর্থনৈতিক উন্নতিসহ সব জায়গায় হাত দিয়েছেন। একটি রাষ্ট্র গঠনে সব কাজই তিনি করে গেছেন। উন্নয়নের এই পথেই আসে আঘাত। তাকে হত্যা করা হয়। শুধু তাকে নয় পুরো পরিবারকে। এতে পরিবার শুধু নয় বাঙালি জাতি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে৷ জাতি তাদের সম্ভাবনাকে হারিয়েছে।

সম্মাননাপ্রাপ্ত ও শিক্ষা বীমাপ্রাপ্তদের শুভেচ্ছা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি নিজে গিয়ে সম্মাননা দিতে পারলে ভালো লাগত। কিন্তু করোনা আমাকে একরকম বন্দি করে দিয়েছে। কারণ আমি বের হলে হাজারখানেক লোকের কাজে সম্পৃক্ততা হয়। এতে ঝুঁকি তৈরি হয়। নিজের জন্য তো অন্যের জীবন ঝুঁকিতে ফেলতে পারি না। তবে সমস্যা কাটিয়ে উঠতে আমরা টিকা নিয়ে আসছি। দেয়াও হচ্ছে। টিকা গ্রহণের পরও স্বাস্থ্য সুরক্ষা মেনে চলতে হবে। হাত ধোয়া, মাস্ক পরা, এগুলোর মাধ্যমে নিজেকে সুরক্ষিত রাখতে হবে।

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ইনস্যুরেন্স এসোসিয়েশনের সভাপতি শেখ কবির হোসেন ও আর্থিক বিভাগের সিনিয়র সচিব আসাদুল ইসলাম।

Share

আরও খবর
রাজধানীতে মাছের বাজারে আগুন

শনিবার ০৬ মার্চ ২০২১