আজঃ শুক্রবার ০৫ মার্চ ২০২১
শিরোনাম

নিউজিল্যান্ডের উদ্দেশে বিকেলে দেশ ছাড়লেন তামিমরা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ১০৪জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনার প্রকোপের পর প্রথমবার বিদেশ সফরে রওনা হয়েছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে আজ মঙ্গলবার বিকেলে সিঙ্গাপুর এয়ারলাইনসের একটি ফ্লাইটে করে দেশ ছেড়েছেন তামিম-মুশফিকরা।

এই সফরে ২০ সদস্যের দল পাঠিয়েছে বাংলাদেশ। দলের সঙ্গে কোচিং স্টাফসহ গেছেন আরো ১৫ জন। সব মিলিয়ে ৩৫ সদস্যের বহর রওনা হয়েছে নিউজিল্যান্ডের উদ্দেশে। সঙ্গে গেছেন বিসিবির মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস।  মূলত ঘরের মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ভরাডুবির পর ক্রিকেটারদের সাপোর্ট জোগাতে দলের সঙ্গে গেছেন জালাল ইউনুস।

দেশ ছাড়ার আগে নিজের প্রত্যাশার কথা জানিয়ে গেলেন ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল। সাংবাদিকদের তিনি বলেন, আমরা সবাই জানি, নিউজিল্যান্ড কন্ডিশন আমাদের জন্য কঠিন। কিন্তু অসম্ভব কিছুই না। আমরা চেষ্টা করব যে জিনিসটা নিউজিল্যান্ডে কোনোদিন অর্জন করিনি, এবার সেটা অর্জন করতে পারি। আমরা আশাবাদী।

একই বার্তা দিলেন বিসিবি পরিচালক জালাল ইউনুসও। তিনি বলেন, কঠিন সফর। খুবই চ্যালেঞ্জিং একটা সিরিজ। এটাতে কোনো বিতর্ক নেই। ছেলেদের দেখে মনে হয়েছে ওরা প্রস্তুত। আমাদের যেমন করেই হোক, লড়াই করে আসতে হবে। আমাদের সিরিজটা ভালো খেলতেই হবে।

সফরে বিশ্বকাপ সুপার লিগের অধীনে স্বাগতিকদের বিপক্ষে তিনটি করে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। গত শুক্রবার নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টির জন্য দল ঘোষণা করে বিসিবি। দলে ফিরেছেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। এ ছাড়া আছেন পেসার আল আমিন হোসেন ও বাঁহাতি স্পিনার নাসুম আহমেদ।

আগামী ২০ মার্চ থেকে ওয়ানডে সিরিজ দিয়ে শুরু হবে বাংলাদেশ বনাম নিউজিল্যান্ডের লড়াই। সিরিজের পরের দুই ওয়ানডে হবে ২৩ ও ২৬ মার্চ। কয়েকদিন আগে নিউজিল্যান্ড সফরের সূচিতে কিছুটা বদল এনেছিল স্বাগতিক ক্রিকেট বোর্ড। তবে সূচি বদলালেও আগের ভেন্যুতেই হবে খেলা। সিরিজের প্রথম ওয়ানডে হবে ডানেডিনে, দ্বিতীয়টি হবে ক্রাইস্টচার্চে আর শেষটি হবে ওয়েলিংটনে।

এই ক্রাইস্টচার্চেই সবশেষ নিউজিল্যান্ড সফরে খেলার কথা ছিল বাংলাদেশের। ওই টেস্টের আগে ক্রাইস্টচার্চের একটি মসজিদে হামলা হলে টেস্ট সিরিজের মাঝপথে দেশে ফিরে আসে বাংলাদেশ দল।

আসন্ন সফরে আগামী ২৮ মার্চ থেকে শুরু হবে টি-টোয়েন্টি সিরিজ। সিরিজের পরের দুটি টি-টোয়েন্টি হবে ৩০ মার্চ ও ১ এপ্রিল। প্রথম ম্যাচটি হবে হ্যামিল্টনে, দ্বিতীয়টি নেপিয়ারে, শেষটি অকল্যান্ডে।

নিউজিল্যান্ড সিরিজের দল : তামিম ইকবাল (অধিনায়ক), মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, নাজমুল হোসেন শান্ত, মুশফিকুর রহিম, মোহাম্মদ মিঠুন, লিটন দাস, মাহমুদউল্লাহ, আফিফ হোসেন, সৌম্য সরকার, মোহাম্মদ নাঈম, তাসকিন আহমেদ, আল আমিন হোসেন, শরিফুল ইসলাম, হাসান মাহমুদ, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, মুস্তাফিজুর রহমান, মেহেদী হাসান মিরাজ, রুবেল হোসেন, মেহেদী হাসান ও নাসুম আহমেদ।

Share

আরও খবর



'ডিজিটাল বাংলাদেশ' নিয়ে নিউজ উইকে জয়ের নিবন্ধ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৪ মার্চ ২০২১ | ৬৯জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
ডিজিটালাইজেশন থেকে বাংলাদেশ উল্লেখযোগ্য সুফল পাচ্ছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পর থেকে ১৩ লক্ষাধিক প্রযুক্তিবিদ বাংলাদেশকে তাঁদের আবাসস্থল করে তুলেছে। প্রায় ১০ হাজারেরও বেশি প্রযুক্তি উদ্যোক্তা রয়েছে

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সাপ্তাহিক পত্রিকা নিউজ উইক-এর সর্বশেষ সংখ্যায় প্রকাশিত হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আইসিটিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের নিবন্ধ।

নিবন্ধে বাংলাদেশ সরকারের 'ডিজিটাল বাংলাদেশ' কর্মসূচিতে ২০০৯ সাল থেকে ১৩ লক্ষাধিক আইটি পেশাজীবী ও ১০ হাজার আইটি উদ্যোক্তা তৈরি হয়েছে বলে উল্লেখ করেছেন জয়।

'বাংলাদেশ : এশিয়ার বিস্ময়কর ডিজিটাল নেতা' শিরোনামে প্রকাশিত নিবন্ধটিতে জয় লিখেছেন, 'ডিজিটাল বাংলাদেশ শুরুর পর থেকে, ১৩ লক্ষাধিক আইটি পেশাজীবী বাংলাদেশে স্থায়ী হয়েছে। পাশাপাশি তৈরি হয়েছে ১০ হাজার আইটি উদ্যোক্তাও।'

নিবন্ধটিতে দক্ষিণ এশিয়ার দেশটির মাত্র এক দশকের মধ্যে ডিজিটালাইজেশনে রূপান্তরিত হওয়া ও এর ফলে কী সুফল পাচ্ছে এবং কীভাবে দেশটি তৃণমূল পর্যায়ে তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) সুবিধা পৌঁছে দিচ্ছে, তা বিশ্লেষণ করা হয়েছে।

নিচে জয়ের নিবন্ধটি তুলে ধরা হলো

এক দশক আগে, বাংলাদেশ ২০২১ সাল নাগাদ প্রযুক্তিগত দিক দিয়ে একটি উন্নত দেশে পরিণত হওয়ার প্রতিজ্ঞা নেয়। ২০২১ সাল বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী। তখন খুব বেশি লোক এটা বিশ্বাস করতে পারেনি।

প্রকল্পটির প্রধান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০০৯ সালে যখন দায়িত্ব গ্রহণ করেন, তখন মাত্র দুই কোটি বাংলাদেশি মোবাইল ফোন ব্যবহার করত। কিন্তু এখন ১২ কোটি বাংলাদেশি  মোবাইল ব্যবহার করে। এর পাশাপাশি কয়েক লাখ বাংলাদেশির মোবাইলে উচ্চগতিসম্পন্ন ইন্টারনেট সংযোগ রয়েছে। এদের অনেকেই প্রত্যন্ত অঞ্চলের গ্রামের বাসিন্দা। এর ফলে অসংখ্য মানুষের জীবন ও জীবিকার উন্নয়ন ঘটেছে।

পরিকল্পনামাফিক শ্রমসাধ্য, কাগজভিত্তিক সরকারি সেবাসমূহকে সহজে ব্যবহারযোগ্য ইন্টারনেট ও স্মার্টফোন-ভিত্তিক কর্মসূচিতে রূপান্তরিত করতে ২০০৯ সালে উচ্চাভিলাষী ডিজিটাল বাংলাদেশের পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়। পাশাপাশি ই-সিগনেচার ও ইলেকট্রনিক ফাইলিংও ব্যাপকভাবে চালু করা হয় ও এতে উৎসাহ দেওয়া হয়। এতে সুফল মেলে। সরকার আট হাজার ৫০০ ডিজিটাল সেন্টারের একটি নেটওয়ার্ক গড়ে তোলে- যা এখন মানুষকে কার্যত সব ধরনের অনলাইন সেবা দিয়ে যাচ্ছে। এই ডিজিটাল সেন্টারগুলো মানুষকে অনলাইনের মাধ্যমে জন্ম নিবন্ধন, চাকরি ও চিকিৎসাসেবা নিতে সহায়তা করছে। এমনকি অনেক জাতীয় কর্মকাণ্ডও অনলাইনে হচ্ছে। অনলাইনে এই ডিজিটাল সেবার কারণেই মূলত গত বছর করোনাভাইরাসের সময় প্রায় নির্বিঘ্নে সরকারি সেবাসমূহ দেওয়া হয়েছে।

একটি নতুন জুডিশিয়ারি পোর্টালের সহায়তায় আদালতগুলোও তাদের কার্যাবলি অব্যাহত রাখে। কৃষকরা অনলাইনে অ্যাগ্রিকালচারাল পোর্টারের মাধ্যমে আবহাওয়ার পূর্বাভাস ও সর্বশেষ আবহাওয়া পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে পারে। নাগরিকরা এখন সহজলভ্য মোবাইল ব্যবহার করে কভিড-১৯ সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য জানতে পারছে। অনলাইনে অনেক কর্মসূচি যুক্ত হয়েছে- যেগুলোর মাধ্যমে পাসপোর্ট থেকে শুরু করে ড্রাইভিং লাইসেন্স পর্যন্ত প্রায় সব সরকারি ফরম পূরণ করা যায়।

মোবাইল ফোনগুলো হচ্ছে এই বিস্ময়কর ঘটনার মূল চাবিকাঠি। বাংলাদেশে এখন জাতীয় জরুরি হেল্পলাইন ৯৯৯ চালু হয়েছে। এটি সম্পূর্ণ টোলমুক্ত। এই সেবাটির মাধ্যমে নাগরিকরা দুর্ঘটনা, সাইবারক্রাইম, নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতা, অগ্নিকাণ্ড, জরুরি চিকিৎসাসেবাসহ যেকোনো প্রয়োজনে কল করতে পারে। জাতীয় হেল্প ডেস্ক প্রতি মিনিটে ৬০টি কলে সাড়া দিচ্ছে। জাতীয় ডিজিটাল স্বাস্থ্য কৌশলের কল্যাণে টেলিমেডিসিন শুধু সম্ভবই নয়, বিশেষত সেবাদান এলাকার আওতার বাইরে প্রত্যন্ত গ্রামীণ অঞ্চলেও এখন বাস্তবতা। এসব কর্মসূচির আওতায় স্বাস্থ্যসম্পর্কিত মৌলিক তথ্য প্রচার করে স্বাস্থ্যকর জনসংখ্যা গড়ে তোলা হচ্ছে।

এ ছাড়া সরকার জবাবদিহি এবং সক্রিয় হয়ে উঠেছে। অনলাইন অভিযোগের প্রতিকারব্যবস্থা বাংলাদেশিদের সহজেই সরকারি পরিষেবা বা পণ্য সম্পর্কে অনলাইনে অভিযোগ জমা দেওয়ার সুযোগ করে দেয়। ব্যাপক কানেকটিভিটি অর্থনীতিতেও সহায়তা করেছে এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টি করেছে। একটি দক্ষ, ডিজিটালি প্রস্তুত শ্রমশক্তি বিকাশের জন্য প্রশিক্ষণ কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে। এই লক্ষ্যে বাংলাদেশ তার পুরো শিক্ষাব্যবস্থা ঢেলে সাজানো হয়েছে এবং যা এখন বছরে পাঁচ লাখ স্নাতক কর্মী তৈরি করছে। শুধু গত বছরেই তাদের মধ্যে ৬৫ হাজারেরও বেশি তথ্য-প্রযুক্তি পেশাদার ছিলেন। ডিজিটাল কেন্দ্রগুলো নিজেরাই কর্ম সৃজনকারী। প্রতিটি কেন্দ্রে তিনজনের মধ্যে কমপক্ষে একজন মহিলা মনোনীত করা হয়েছে।

মোট জনসংখ্যার প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ ২৫ বছরের কম বয়সী তরুণ হলো বাংলাদেশ সাইবার শ্রমিকদের জন্য উর্বর স্থল। তরুণরা এই সুযোগ পেয়ে লাফিয়ে উঠছে। বিগত বছরগুলোতে, তাদের বেশির ভাগ পরিবারের ব্যবসার বাইরে তাদের জীবন কল্পনাও করতে পারেনি। আজ তরুণ বাংলাদেশিরা ক্রমবর্ধমান হারে শহুরে, ভ্রাম্যমাণ এবং নতুন অর্থনীতিতে প্রবেশের জন্য প্রস্তুত।

ডিজিটালাইজেশন থেকে বাংলাদেশ উল্লেখযোগ্য সুফল পাচ্ছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পর থেকে ১৩ লক্ষাধিক প্রযুক্তিবিদ বাংলাদেশকে তাঁদের আবাসস্থল করে তুলেছে। প্রায় ১০ হাজারেরও বেশি প্রযুক্তি উদ্যোক্তা রয়েছে।

সব মিলিয়ে তাঁরা এখন তথ্য-প্রযুক্তি পরিষেবা থেকে বছরে এক বিলিয়ন ডলারের বেশি বৈদেশিক মুদ্রা উপার্জন করছে। অন্যভাবে বলা যায়, ডিজিটাল বাংলাদেশ শুরু হওয়ার পর থেকে বাংলাদেশিরা ২ বিলিয়ন ঘণ্টা, ৮ বিলিয়ন ডলার এবং সরকারি সেবা গ্রহণে ১ বিলিয়ন পরিদর্শন সাশ্রয় করেছে।

বাংলাদেশ আক্ষরিক অর্থেই তারকা বনে যাচ্ছে। দেশটি ২০১৮ সালে প্রথম যোগাযোগ স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১ উৎক্ষেপণ করেছে। উপগ্রহ টেলিযোগাযোগ সেবায় বিন্যস্ত করে সরবরাহ আমাদের অর্থনীতিকে আরো জোরদার করে তুলেছে। ২০০৮ সালে বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনের বার্ষিক প্রবৃদ্ধি হার ছিল প্রায় ৫ শতাংশ। আজ এটি ৮ শতাংশেরও ওপরে রয়েছে। এটি সহজেই উপলব্ধি করা যায়, উচ্চগতির সংযোগ বৃদ্ধির কারণেই এটি সম্ভব হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ অনেক কিছু অর্জন করেছে। তবে সেগুলোর মধ্যে কিছু রয়েছে, যা ইন্টারনেট যুগের দিকে দেশের নাটকীয় পদক্ষেপের চেয়ে আরো উল্লেখযোগ্য। এমনকি আমরা আমাদের ডিজিটাল দক্ষতা রপ্তানি করছি। বাংলাদেশি প্রশিক্ষকরা মালদ্বীপ, ভুটান এবং শ্রীলঙ্কায় আমাদের এশীয় প্রতিবেশীদের ডিজিটালাইজেশন সম্প্রসারণে দিতে সহায়তা করছেন। এক দশক আগে কেউই এটি সম্ভব হবে বলে ভাবেননি।

Share

আরও খবর



বিয়ে সারলেন ছোট পর্দার অভিনেত্রী তিথি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৮৯জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সম্প্রতি সিনেমাটোগ্রাফার সাহিল রনির সাথে জীবন ফ্রেমে বাধা পড়লেন ছোটপর্দার পরিচিত অভিনেত্রী ইফফাত আরা তিথি। দীপ্ত টেলিভিশনের মান অভিমান ধারাবাহিকে অভিনয় করে পরিচিতি পেয়েছেন তিনি। ধারাবাহিকের বীথি চরিত্রে অভিনয় করে দর্শক হৃদয়েও বেশ জায়গা করে নিয়েছেন তিনি।

গেল ২১ ফেব্রুয়ারি বিয়ে করেছেন তিথি। ২২ ফেব্রুয়ারি সেরেছেন বিবাহোত্তর সংবর্ধনা। বিয়ের পর রিলেশনশিপ স্ট্যাটাস পরিবর্তন করেছেন বিথি। তার সূত্র ধরেই অভিনেত্রীর সঙ্গে আলাপ।

জানতে চাইলে ইফফাত আরা তিথি বলেন, সাহিল রনির সঙ্গে পরিচয় অনেক আগে থেকেই। কাজের সূত্রে তার সঙ্গে পরিচয়। পরিচয় থেকে বন্ধুত্ব। গত কয়েকমাস আগে থেকে বোঝাপড়া শুরু হয়েছে। তারপরই বিয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

বিয়ের পর স্বামীর বাড়িতে থাকছেন বলে জানান তিথি। তিথি আরও জানান, আপাতত সংসার সামলানোর দায়িত্ব নিয়েছেন এ অভিনেত্রী। কিছুদিনের জন্য ছুটি নিয়েছেন মান অভিমান ধারাবাহিক থেকে। ছুটি কাটিয়ে শিগগিরই কাজে ফিরবেন।

Share

আরও খবর
মা হচ্ছেন শ্রেয়া ঘোষাল

বৃহস্পতিবার ০৪ মার্চ ২০২১




৩ বগি লাইনচ্যুত

কুষ্টিয়া-রাজবাড়ী রুটে ট্রেন চালাচল বন্ধ

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৫ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৫ মার্চ ২০২১ | ১৪জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কুষ্টিয়ায় মালিবাহী ট্রেনের তিনটি বগি লাইনচ্যুত হয়েছে। এতে কুষ্টিয়া-রাজবাড়ী রুটে ট্রেন চালাচল বন্ধ রয়েছে।

শুক্রবার (০৫ মার্চ) দুপুর পৌনে ২টার দিকে কুষ্টিয়া-রাজবাড়ী ট্রেন রুটের কুষ্টিয়া মিলপাড়া ঘোরলাইন এলাকায় বগিগুলো লাইনচ্যুত হয়। 

পশ্চিমাঞ্চল পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে পরিবহন কর্মকর্তা প্রকৌশলী বীরবল মণ্ডল এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, উদ্ধার কাজের জন্য পাকশী থেকে উদ্ধারকারী ট্রেন ঘটনাস্থলে যাচ্ছে। মেইন লাইন ব্লক হওয়ায় ওই রুটের ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

লাইনচ্যুত বগিগুলো লাইন থেকে না সরানো পর্যন্ত এ রুটে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হবে না। তবে উদ্ধার কাজে কতক্ষণ লাগবে, তা বলা যাচ্ছে না।

Share

আরও খবর



মির্জা কাদেরের গাড়ি বহরে হামলা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৮৫৯জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলায় নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জার গাড়ি বহরে হামলার ঘটনা ঘটেছে।

বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) সকাল সাড়ে ৬টার দিকে দাগনভূঞা বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

ফেনী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন হাজারী ও নোয়াখালীর একরামুল করিম চৌধুরীর সন্ত্রাসীরা এ ঘটনাটি ঘটিয়েছে বলে দাবি করেছেন মির্জা কাদের।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বৃহস্পতিবার বসুরহাট পৌরসভার নব নির্বাচিত মেয়র ও কাউন্সিলর বৃন্দ্র চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে শপথ গ্রহণের জন্য গাড়ি বহর নিয়ে যাচ্ছিলেন। ফেনীর দাগনভূঞা বাজার এলাকা অতিক্রম করার সময়ে কিছু যুবক মির্জা কাদেরের গাড়ি বহরে ডিম ও ইটপাটকেল ছুড়তে থাকে। এতে কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। তবে বহরে থাকা নব নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

পরে সাড়ে ৯টার দিকে ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই মির্জা কাদের ফেসবুক পেইজে লাইভে এসে বলেন, সকাল ১০টায় চট্টগ্রামে শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে ফেনীর দাগনভূঞাতে আমার গাড়ি বহরে হামলা করা হয়েছে। যারা ফেনীতে একরামকে হত্যা করেছে ঠিক একই কায়দায় আমাকে হত্যা করার জন্য একরাম চৌধুরী ও নিজাম হাজারীর সন্ত্রাসীরা আমার গাড়ি গতিরোধ করে। কিন্তু আল্লাহর অশেষ মেহেরবানীতে একটা ট্রাক থাকায় আমি বেঁচে যাই।

তিনি আরও বলেন, পেছনে থাকা বহরের ১০-১২টি গাড়ির ওপর হামলা করা হয়েছে। সেলিম নামের আওয়ামী লীগের এক নেতা আহত হয়েছেন।

মির্জা কাদের বলেন, ফেনীতে এখন হত্যার রাজনীতি চলছে। আমি আগেও বলেছিলাম এ রাজনীতি বন্ধ করতে। এ দেশে কি সরকার নেই, প্রশসান নেই। এসবের কি বিচার হবে না? ফেনীর একরাম ও দাগনভূঞার নির্দেশদাতারা আজ প্রকাশ্যে চলাফেরা করে।

এসব হামলাকারী ও নির্দেশদাতাদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনতে তিনি প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

নিউজ ট্যাগ: মির্জা কাদের
Share

আরও খবর



চিকিৎসকের স্ত্রীর নির্যাতন : উদ্ধার সেই শিশু গৃহকর্মী

প্রকাশিত:শনিবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৫১জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

হাসপাতাল থেকে নিখোঁজ হওয়ার ২৩ ঘণ্টা পর আত্মীয়ের বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়েছে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালের রেজিস্ট্রার ডা. সিএইচ রবিনের স্ত্রী রাখির নির্যাতনের শিকার শিশু গৃহকর্মী নিপা বাড়ৈকে (১১)।

শনিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) ভোর ৪টার দিকে বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলার আশোয়ার গ্রামের বিমলের বাড়ি থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে উজিরপুর মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জিয়াউল আহসান জানান, শিশুটি হাসপাতাল থেকে নিখোঁজের খবর পাওয়ার পর থেকেই পুলিশ তার সন্ধানে নামে। এরপর ওই শিশুটির চাচা পরিচয়দানকারী তপন বাড়ৈর মামা শ্বশুর বিমলের বাড়ি থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করা হয়। এদিকে শিশুটিকে চিকিৎসা না দিয়ে হাসপাতালে থেকে নিয়ে যাওয়ার কারণ খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শিশুটির গ্রামের বাড়ির পাশেই তপন বাড়ৈ নামে ব্যক্তি রয়েছেন। যিনি শিশুটির সম্পর্কে চাচা হন, তিনিই শিশুটিকে হাসপাতাল থেকে নিয়ে যাওয়াসহ বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য শুরু থেকেই জড়িত ছিলেন। স্থানীয়দের ধারণা, আর্থিক প্রলোভনে নির্যাতনকারীদের পক্ষ হয়ে শিশুটির সঙ্গে অমানবিক আচরণে লিপ্ত হয়েছেন তপন বাড়ৈ।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার বেলা ১১টায় বরিশালের উজিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. মো. শামসুদ্দোহা তাওহিদ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

তিনি জানান, বৃহস্পতিবার রাত ৮টা থেকে ১০টা পর্যন্ত চাচা পরিচয়ে এক ব্যক্তি নির্যাতনের শিকার শিশু নিপাকে হাসপাতাল থেকে নিয়ে যাওয়ার জন্য চেষ্টা চালান। তবে শিশুটি সুস্থ না হওয়া পর্যন্ত এবং বিষয়টি স্পর্শকাতর হওয়ায় পুলিশকে না জানিয়ে তাকে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ছাড়পত্র দিতে রাজি হননি।

পরে শুক্রবার ভোর ৫টা থেকে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ওই শিশুটি এবং তার সঙ্গে থাকা বড় মা পরিচয়দানকারী নারীকে আর দেখা যায়নি।

শিশুটির পাশের বেডের রোগীরা জানিয়েছেন, সারা রাত ওই শিশুটির স্বজনদের মোবাইলে অনেক কল আসে এবং তারা সারা রাত সজাগই ছিলেন। এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে শিশুটি নিখোঁজের ঘটনায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের হয়ে তিনি থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

উল্লেখ্য, গত ২৪ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে নির্যাতনের শিকার শিশু নিপা বাড়ৈকে উজিরপুরের উত্তর জামবাড়ি এলাকার একটি দোকানের সামনে রেখে চলে যান এক ব্যক্তি। খবর পেয়ে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে।

শিশুটি জানায়, ঢাকার অর্থপেডিক ও ট্রমা বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক সিএইচ রবিনের বাসায় ছয় মাস আগে গৃহকর্মী হিসেবে কাজ শুরু করে। শুরু থেকে রবীনের স্ত্রী রাখি দাস শিশুটিকে নির্যাতন করে আসছে। এর ধারাবাহিকতায় গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে লোক মারফত নিপাকে গ্রামের বাড়ির এলাকায় রেখে পালিয়ে যায়।

নিউজ ট্যাগ: নারী নির্যাতন
Share

আরও খবর