আজঃ বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২
শিরোনাম

নওগাঁয় গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে রসালো ফল কাঁঠাল

প্রকাশিত:বুধবার ১১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১১ মে ২০২২ | ৪৩৫জন দেখেছেন

Image

নওগাঁ প্রতিনিধি:

নওগাঁয় গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে গ্রীষ্ম মৌসুমের বেশ জনপ্রিয় পুষ্টিগুণ সম্পন্ন রসালো জাতীয় ফল কাঁঠাল। যদিও পুরো পাকা পুক্ত কাঠাল হওয়ার সময় বাঁকী রয়েছে ২ মাস।

প্রবাদ আছে গাছে কাঁঠাল গোঁফে তেল- জ্যৈষ্ঠ মাসে এ কথাটি আর কথার কথা থাকে না। গাছে কাঁঠাল দেখলে এ কথা সবাই বলতেই পারে। বর্তমানে জেলার প্রতিটি উপজেলায় গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে রসালো ফল কাঁঠাল। আত্রাই উপজেলার বিভিন্ন এলাকার বাড়ির পাশে, রাস্তার ধারে, জঙ্গলের ভেতরে থাকা গাছে ধরেছে প্রচুর পরিমানে কাঁঠাল। গাছের গোঁড়া থেকে আগা পর্যন্ত শোভা পাচ্ছে সর্বোচ্চ পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ এই ফল।

খাদ্য শষ্য ভান্ডার হিসেবে নওগাঁ জেলা বিখ্যাত হলেও এখানকার মানুষের অতি প্রিয় ফল ও তরকারি হিসেবে কাঁঠাল যুগ যুগ ধরে কদর পেয়ে আসছে। কাঁঠালের বিচি এখানকার মানুষের একটি ঐতিহ্যপূর্ণ তরকারি। বিশেষ করে কাঠালের বিচ দিয়ে শুটকি ভর্তা অত্যন্ত প্রিয় সকলের। বিভিন্ন ধরনের শাক ও কাঁঠালের বিচির সমন্বয়ে রান্না করা তরকারি এখানকার মানুষ তৃপ্তির সঙ্গে ভাত খেতে পারেন। তাছাড়া গবাদিপশুর জন্যও কাঁঠালের ছাল উন্নতমানের গো-খাদ্য হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এক প্রকারের সবুজ রঙের সুমিষ্ট গ্রীষ্মকালীন ফল। এটি বাংলাদেশের জাতীয় ফল হিসাবে সরকারীভাবে নির্ধারিত। বাংলাদেশের সর্বত্র কাঁঠাল গাছ পরিদৃষ্ট হয়। কাঁঠাল গাছের কাঠ আসবাবপত্র তৈরির জন্য সমাদৃত। কাঁঠাল পাতা বিভিন্ন প্রাণীর পছন্দের খাদ্য। তুলনামূলকভাবে বিশালাকার এই ফলের বহির্ভাগ পুরু এবং কান্টকাকীর্ণ, অন্যদিকে অন্তরভাগে একটি কান্ড ঘিরে থাকে অসংখ্য রসালো কোয়া। কাঁঠালের বৃহদাকার বীজ কোয়ার অভ্যন্তরভাগে অবস্থিত।

বহুগুণ সমৃদ্ধ এ কাঁঠাল এখানকার হাট-বাজারে এখনও উঠতে শুরু করেনি। তবে জ্যৈষ্ঠের শেষ ও আষাঢ় মাসের শুরু থেকে এখানকার হাট-বাজারে কাঁঠাল কেনাবেচা শুরু হবে এমনটি ধারণা কাঁঠাল ব্যবসায়ীদের।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ কেএম কাউছার হোসেন বলেন, এ উপজেলায় তেমন একটা কাঁঠালের বাগান নেই তবে দিন দিন বাড়ছে। তিনি আরো বলেন গত বছরের তুলনায় এ বছর উপজেলায় কাঁঠাল ভালো হয়েছে। দিন দিন উপজেলার মানুষের মাঝে কাঁঠালের চারা রোপনের আগ্রহ বাড়ছে।

নিউজ ট্যাগ: কাঁঠাল নওগাঁ

আরও খবর



করোনা: বিশ্বজুড়ে কমেছে সংক্রমণ

প্রকাশিত:শুক্রবার ২২ এপ্রিল 20২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২২ এপ্রিল 20২২ | ৩০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

চলমান করোনা মহামারিতে বিশ্বজুড়ে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা আরও বেড়েছে। তবে আগের দিনের তুলনায় কমেছে নতুন শনাক্ত রোগীর সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন প্রায় ৩ হাজার ৩০০ জন মানুষ। একই সময়ে ভাইরাসটিতে নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা নেমে এসেছে ৮ লাখের নিচে।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বজুড়ে সবচেয়ে বেশি সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে জার্মানিতে। অন্যদিকে দৈনিক প্রাণহানির তালিকায় শীর্ষে রয়েছে যুক্তরাজ্য। প্রাণহানির তালিকায় এরপরই রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি, রাশিয়া, ফ্রান্স, ইতালি ও দক্ষিণ কোরিয়া। এতে বিশ্বব্যাপী করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৫০ কোটি ৭৬ লাখের ঘর। অন্যদিকে মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৬২ লাখ ৩৫ হাজার।

শুক্রবার (২২ এপ্রিল) সকালে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থতার হিসাব রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারস থেকে পাওয়া সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৩ হাজার ২৫৯ জন। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে অর্ধশতাধিক। এতে বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা পৌঁছেছে ৬২ লাখ ৩৫ হাজার ৩৫৯ জনে।

একই সময়ের মধ্যে ভাইরাসটিতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৭ লাখ ৯৭ হাজার ৩২২ জন। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় নতুন শনাক্ত রোগীর সংখ্যা কমেছে লক্ষাধিক। এতে মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত ভাইরাসে আক্রান্ত মোট রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫০ কোটি ৭৬ লাখ ৪১ হাজার ৪৯৬ জনে।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে করোনায় সবচেয়ে বেশি সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে জার্মানিতে। এই সময়ের মধ্যে দেশটিতে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৩৯ হাজার ৮৪৯ জন এবং মারা গেছেন ৩৯০ জন। করোনা মহামারির শুরু থেকে ইউরোপের এই দেশটিতে এখন পর্যন্ত ২ কোটি ৩৯ লাখ ১৫ হাজার ৪৩৭ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং ১ লাখ ৩৪ হাজার ২৮৪ জন মারা গেছেন।

অন্যদিকে দৈনিক প্রাণহানির তালিকায় শীর্ষে রয়েছে যুক্তরাজ্য। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১৯ হাজার ৪৭২ জন এবং মারা গেছেন ৬৪৬ জন। করোনা মহামারির শুরু থেকে দেশটিতে এখন পর্যন্ত ২ কোটি ১৯ লাখ ৯ হাজার ৫০৯ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং ১ লাখ ৭৩ হাজার ৩২ জন মারা গেছেন।

যুক্তরাষ্ট্রে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৪৪ হাজার ৯১৮ জন এবং মারা গেছেন ২৭৩ জন। করোনাভাইরাসে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত এই দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৮ কোটি ২৫ লাখ ৫২ হাজার ৭৭২ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং ১০ লাখ ১৭ হাজার ৫৮৩ জন মারা গেছেন।

দক্ষিণ কোরিয়ায় গত একদিনে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৯০ হাজার ৮২৫ জন এবং মারা গেছেন ১৪৭ জন। করোনা মহামারির শুরু থেকে পূর্ব এশিয়ার এই দেশটিতে এখন পর্যন্ত ১ কোটি ৬৬ লাখ ৭৪ হাজার ৪৫ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং ২১ হাজার ৬৬৭ জন মারা গেছেন। গত একদিনে জাপানে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৪৭ হাজার ৪৬০ জন এবং মারা গেছেন ৪৯ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় রাশিয়ায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১৯৭ জন এবং নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ৮ হাজার ৮৭৫ জন। এছাড়া মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ১ কোটি ৮১ লাখ ১০ হাজার ৮৬১ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৩ লাখ ৭৪ হাজার ৩৬৮ জনের।

ফ্রান্সে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৪ হাজার ৭ জন এবং মারা গেছেন ১৮৫ জন। করোনা মহামারির শুরু থেকে দেশটিতে এখন পর্যন্ত ২ কোটি ৮০ লাখ ৭৬ হাজার ১৭ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং ১ লাখ ৪৪ হাজার ৭৯৯ জন মারা গেছেন। থাইল্যান্ডে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ২১ হাজার ৯৩১ জন এবং মারা গেছেন ১২৯ জন।

লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিল করোনায় আক্রান্তের দিক থেকে তৃতীয় ও মৃত্যুর সংখ্যায় তালিকার দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৮৬ জন এবং নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ১৮ হাজার ৬৬০ জন। অপরদিকে মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৩ কোটি ৩ লাখ ৩০ হাজার ৬২৯ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৬ লাখ ৬২ হাজার ৫৫৬ জনের।

করোনায় আক্রান্তের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে প্রতিবেশী দেশ ভারত। তবে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যার তালিকায় দেশটির অবস্থান তৃতীয়। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৩৩ জন এবং নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ৯০৩ জন। মহামারির শুরু থেকে দেশটিতে এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৪ কোটি ৩০ লাখ ৫০ হাজার ৮৭৭ জন এবং মারা গেছেন ৫ লাখ ২২ হাজার ৯৫ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় তুরস্কে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৩৫৪ জন এবং মারা গেছেন ১৭ জন। একই সময়ে ইতালিতে নতুন করে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৭৫ হাজার ২০ জন এবং মারা গেছেন ১৬৬ জন। ভিয়েতনামে নতুন করে ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ১২ হাজার ২৯ জন এবং মারা গেছেন ৯ জন।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এরপর ২০২০ সালের ১১ মার্চ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) করোনাকে বৈশ্বিক মহামারি’ হিসেবে ঘোষণা করে। এর আগে একই বছরের ২০ জানুয়ারি বিশ্বজুড়ে জরুরি পরিস্থিতি ঘোষণা করে সংস্থাটি।


আরও খবর



রাশিয়ার সঙ্গে শান্তি আলোচনা বাতিলের হুমকি জেলেনস্কির

প্রকাশিত:রবিবার ২৪ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৪ এপ্রিল ২০২২ | ৪২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বন্দরনগরী মারিউপোলের একটি বৃহৎ ইস্পাত কারখানার ভেতরে অবস্থান করা ইউক্রেনীয় বাহিনীর কোনো ক্ষতি হতে শান্তি আলোচনা থেকে সরে আসবে বলে হুশিয়ারি দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি।

তিনি বলেছেন, মারিউপোলের যোদ্ধাদের হত্যা করলে শান্তি আলোচনা আর চালিয়ে যাবে না কিয়েভ। শনিবার ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি এসব কথা বলেন। খবর বিবিসির।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আট সপ্তাহ আগে ইউক্রেনে হামলা শুরু করেন রাশিয়ান সেনারা। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ইউরোপের প্রথম দেশ হিসেবে রাশিয়ার সশস্ত্র বাহিনী স্থল, আকাশ ও সমুদ্রপথে ইউক্রেনে এ হামলা শুরু করে। এক সঙ্গে তিন দিক দিয়ে হওয়া এ হামলায় ইউক্রেনের বিভিন্ন শহরে রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র পড়েছে বৃষ্টির মতো।

অভিযান শুরুর পর রাশিয়া ইউক্রেনীয় ভূখণ্ডের অনেক এলাকায় সাফল্য পেলেও দেশটির উল্লেখযোগ্য বা বড় কোনো শহর এখনও দখলে নিতে পারেননি রুশ সেনারা। এ ছাড়া মস্কো ইতিপূর্বে মারিউপোল শহরের বেশিরভাগ অংশ দখলে নেওয়ার দাবি করলেও ইউক্রেনীয় যোদ্ধাদের অবশিষ্ট একটি অংশ শহরটির একটি ইস্পাত কারখানায় অবস্থান করছে। মূলত কারখানার ভেতরে রুশ বাহিনীর হাতে সম্পূর্ণরূপে অবরুদ্ধ অবস্থায় রয়েছে তারা।

এর আগে গত সপ্তাহে ইউক্রেনীয় সেনাদের ওই দলটিকে আত্মসমর্পণের আলটিমেটাম দিয়েছিল মস্কো। এমনকি আত্মসমর্পণ করা যোদ্ধাদের জীবন রক্ষার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছিল দেশটি। সেই আহ্বানে সাড়া না মেলায় গত বুধবার ফের আত্মসমর্পণের সময়সীমা বেঁধে দেয় রাশিয়া। তবে এর পরও মেলেনি সাড়া।

আজভ রেজিমেন্টের প্রকাশিত একটি ভিডিওতে দেখা গেছে, একটি ঘরে মহিলা এবং শিশুদের বলতে শোনা যায় যে, তাদের খাবার এবং পানি শেষ হয়ে যাচ্ছে, তাদের সরিয়ে নেওয়ার জন্য অনুরোধ করছে।


আরও খবর



মেক্সিকো থেকে যুক্তরাষ্ট্রে মাদক চোরাচালান সুড়ঙ্গের সন্ধান

প্রকাশিত:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | ২১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মেক্সিকোর তিজুয়ানা থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সান দিয়েগোর একটি গুদাম পর্যন্ত একটি বিশাল মাদক চোরাচালান সুড়ঙ্গের সন্ধান পাওয়া গেছে। এক হাজার ৭৪৪ ফুট (৫৩১ মিটার) দৈর্ঘ্যের সুড়ঙ্গটিতে রেললাইন, বিদ্যুৎ এবং বায়ু নির্গমনের ব্যবস্থা রয়েছে।

মার্কিন কর্তৃপক্ষ কোকেন চোরাচালানের জন্য আগে ব্যবহৃত একটি সম্পত্তির ওপর নজরদারি চালাতে গিয়ে তারা এই সুড়ঙ্গটি আবিষ্কার করে। সেখান থেকে কোকেন, মেথামফেটামিন ও হেরোইন জব্দ করা হয়েছে। মাদক পাচারের অভিযোগে ছয়জনকে আটক করা হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার সাউদার্ন ডিস্ট্রিক্টের অ্যাটর্নি অফিস জানায়, সুড়ঙ্গটির গভীরতা ৬১ ফুট (১৮ মিটার) এবং ৪ ফুট (১ মিটার) ব্যাস।

প্রসিকিউটররা জানান, সুড়ঙ্গটি আবিষ্কারের আগে ১৩ মে (শুক্রবার) কর্মকর্তারা তিজুয়ানা এবং গুদাম থেকে বেশ কয়েকটি গাড়ি আসা-যাওয়া করতে দেখেছিল। তখন তাদের থামিয়ে তল্লাশি করে মাদক জব্দ ও গ্রেপ্তার করা হয়। কর্মকর্তারা গুদামে প্রবেশ করে দেখতে পান আন্তঃসীমান্ত সুড়ঙ্গের বের হওয়ার মুখে মেঝেতে খোদাই করে রাখা হয়েছে।

অ্যাটর্নির অফিস জানায়, এক হাজার ৭৬২ পাউন্ড (৭৯৯ কেজি) কোকেন, ১৬৪ পাউন্ড (৭৪ কেজি) মেথামফেটামিন এবং সাড়ে ৩ পাউন্ড (দেড় কেজি) হেরোইন জব্দ করা হয়েছে। সন্দেহভাজন আটককৃত ব্যক্তিরা ৩১ থেকে ৫৫ বছর বয়সী। দোষী প্রমাণিত হলে তাদের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং ১০ লাখ মার্কিন ডলার জরিমানা হতে পারে।

মার্কিন অ্যাটর্নি রেন্ডি গ্রসম্যান বলেন, এই মাদক চোরাচালান সুড়ঙ্গের শেষের দিকে আর আলো নেই। তিনি বলেন, আমরা যেসব ভূগর্ভস্থ মাদক চোরাচালান পথ খুঁজে পেয়েছি, তা আমরা গুঁড়িয়ে দেব। অবৈধ মাদক যেন আমাদের রাস্তায় পৌঁছতে না পারে এবং আমাদের পরিবার ও সম্প্রদায়কে ধ্বংস করতে না পারে।

২০২০ সালে ক্যালিফোর্নিয়ায় সন্ধান পাওয়া সুড়ঙ্গটি এখন পর্যন্ত দীর্ঘতম। এর দৈর্ঘ্য চার হাজার ৩০৯ ফুট (১ হাজার ৩১৩ মিটার)। ১৯৯৩ সাল থেকে এই ধরনের ৯০টি গোপন সুড়ঙ্গ আবিষ্কৃত হয়েছে।


আরও খবর



ভারত থেকে পেঁয়াজ আসা বন্ধ

প্রকাশিত:সোমবার ০৯ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৯ মে ২০২২ | ৫০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে তিনদিন ধরে ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ রয়েছে। এর প্রভাব পড়তে শুরু করেছে খুচরা বাজারে।

আমদানিকারকরা বলছেন, ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির আগের ইমপোর্ট পারমিটের (আইপি) মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। নতুন করে আইপি না পাওয়ায় কয়েকদিন ধরে আমদানি বন্ধ হয়ে গেছে।

হিলি স্থলবন্দর কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বন্দর দিয়ে সর্বশেষ গত ৩০ এপ্রিল ৬৮টি ট্রাকে ১৯০২ মেট্রিক টন ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে। এরপর ঈদের ছুটি শুরু হয়। ছুটি শেষে শনিবার (৭ মে) থেকে বন্দর দিয়ে আমদানি কার্যক্রম শুরু হয়। তবে শনিবার থেকে বন্ধ রয়েছে ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি।

এদিকে হিলির খুচরা বাজারে ঈদের আগে প্রকারভেদে প্রতি কেজি পেঁয়াজ ১৫ থেকে ১৬ টাকা দরে বিক্রি হলেও বর্তমানে তা বেড়ে ২০ থেকে ২২ টাকায় ঠেকেছে।

আড়তে পেঁয়াজ কিনতে আসা মো. আসলাম বলেন, ঈদের আগে হিলির আড়তে পেঁয়াজের দাম ছিল ১৪ টাকা কেজি। এখন দাম চাচ্ছে ২০ থেকে ২২ টাকা। আমরা অন্য বাজারে ২০ টাকা কেজি খুচরা বিক্রি করেছি। অথচ এখান থেকেই আমাদের ২০-২২ টাকা দিয়ে কিনতে হচ্ছে।

হিলি স্থলবন্দরের পেঁয়াজ আমদানিকারক শাহরিয়ার আলম বলেন, ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির জন্য আমাদের যেসব ইমপোর্ট পারমিট নেওয়া ছিল সেগুলোর মেয়াদ ছিল ৫ মে পর্যন্ত। পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ১ মে থেকে ৬ মে পর্যন্ত ছয়দিন হিলি স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ ছিল। যে কারণে ওই সময়ের মধ্যে বাড়তি পরিমাণে পেঁয়াজ আমদানির ইচ্ছা থাকলেও সেটি সম্ভব হয়নি।

তিনি বলেন, সরকার নতুন করে পেঁয়াজ আমদানির জন্য ইমপোর্ট পারমিট দেওয়া বন্ধ রেখেছে, যে কারণে বর্তমানে বন্দর দিয়ে পেঁয়াজ আমদানিও বন্ধ রয়েছে।

তবে পেঁয়াজ আমদানির জন্য অনুমতি চেয়ে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে আবেদন করা হয়েছে বলে জানান আমদানিকারক শাহরিয়ার আলম।

তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত অনুমোদন দেওয়া হয়নি। কবে দেওয়া হবে কিংবা দেওয়া হবে কি না সে ব্যাপারেও কর্তৃপক্ষ কিছু বলছে না।

হিলি স্থলবন্দরের জনসংযোগ কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন প্রতাব মল্লিক বলেন, হিলি স্থলবন্দর দিয়ে গত ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি অব্যাহত ছিল। এরপর থেকে বন্দর দিয়ে আর পেঁয়াজ আমদানি হয়নি।


আরও খবর



রাজধানীতে কোরবানির ১৭টি অস্থায়ী পশুরহাট বসবে

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৩ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৩ মে ২০২২ | ৩৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে ঢাকার উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন স্থানে ১৭টি অস্থায়ী কোরবানির পশুরহাট বসবে। এর মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে (ডিএসসিসি) ১০টি এবং ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে (ডিএনসিসি) সাতটি হাট বসবে।

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের জনসংযোগ বিভাগ থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

ডিএনসিসির আওতায় হাটগুলো হলোগাবতলী (স্থায়ী), বাড্ডা ইস্টার্ন হাউজিং ব্লক-ই, এফজিএইচ পর্যন্ত এলাকার খালি জায়গা, মিরপুর সেকশন-৬ ইস্টার্ন হাউজিংয়ের ফাঁকা স্থান, উত্তরা ১৭ নম্বর সেক্টর এলাকার বৃন্দাবন থেকে উত্তর দিকে বিজিএমইএ পর্যন্ত খালি জায়গা, ভাটারা (সাইদনগর) পশুরহাট, কাওলা শিয়ালডাঙ্গা সংলগ্ন খালি জায়গা, ৪৩ নম্বর ওয়ার্ডের ৩০০ ফিট সড়ক সংলগ্ন উত্তর পাশের সালাম স্টিল, যমুনা হাউজিং কোম্পানির ও ব্যক্তিগত মালিকানাধীন খালি জায়গা এবং মোহাম্মদপুরের বছিলায় ৪০ ফুট রাস্তাসংলগ্ন খালি জায়গা।

ডিএসসিসির অধীন হাটগুলো হলোমেরাদিয়া বাজার সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা, দনিয়া কলেজ মাঠসংলগ্ন ফাঁকা স্থান, ধোলাইখাল ট্রাক টার্মিনাল সংলগ্ন উন্মুক্ত জায়গা, উত্তর শাহজাহানপুর খিলগাঁও রেলগেট বাজার মৈত্রী সংঘের ক্লাব সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা, হাজারীবাগ এলাকার ইনস্টিটিউট অব লেদার টেকনোলজি মাঠসংলগ্ন উন্মুক্ত এলাকা, আশুলিয়া মডেল টাউনের আশপাশের খালি জায়গা, লালবাগের রহমতগঞ্জ ক্লাব সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা, শ্যামপুর-কদমতলী ট্রাকস্ট্যান্ডসংলগ্ন খালি জায়গা, লিটল ফ্রেন্ডস ক্লাবসংলগ্ন খালি জায়গা, কমলাপুর স্টেডিয়াম সংলগ্ন বিশ্বরোডের আশপাশের এলাকা এবং পোস্তগোলা শ্মশানঘাট সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা।

এর বাইরে সারুলিয়া স্থায়ী হাট এবং ডিএনসিসির ডিজিটাল হাট চালু থাকবে।


আরও খবর