আজঃ মঙ্গলবার ২৫ জানুয়ারী ২০২২
শিরোনাম

নতুন ফিচার চালু করেছে ইমো

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৩ জানুয়ারী ২০২২ | ৪৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ব্যবহারকারীদের সুবিধার কথা বিবেচনা করে ছবি শেয়ার ও ভয়েস মেসেজের জন্য নতুন ফিচার চালু করেছে ইমো।

নতুন ফিচারগুলো ব্যবহারকারীদের অভিজ্ঞতায় পরিবর্তন আনবে বলে আশা করছে প্রতিষ্ঠানটি। ইমো ছবি শেয়ারের দুটি নতুন অপশন- অরিজিনাল ইমেজ এবং হাই কোয়ালিটি যুক্ত করেছে।

এ ছাড়া প্রতিষ্ঠানটি ডেটা সেভার মোডের জন্য ছবির ডেফিনিশন আরও উন্নত করার পেছনে কাজ করেছে। অন্যান্য ফিচারের মধ্যে ম্যানুয়ালি ইয়ার স্পিকার মোড, ভয়েস মেসেজিং ফাংশনটি ব্যবহারকারীদের জন্য চালু করা হয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: ইমো

আরও খবর



অস্কারে লড়বে গাজী রাকায়েতের সিনেমা ‘দ্য গ্রেভ’

প্রকাশিত:শনিবার ২২ জানুয়ারী 20২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২২ জানুয়ারী 20২২ | ১৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলাদেশ থেকে এর আগে বহুবার অস্কার পুরস্কারের বিদেশি ভাষার ছবির জন্য সিনেমা পাঠানো হয়েছিল। তবে প্রয়াত তারেক মাসুদের মাটির ময়না ছাড়া মনোনয়ন পায়নি কোনোটিই। এবার বাংলাদেশিদের জন্য সুখবর বয়ে আনলো গাজী রাকায়েতের গোর বা দ্য গ্রেভ। ছবিটি অস্কার রিমাইন্ডার লিস্টে জায়গা করে নিয়েছে। ২৭৬টি সিনেমার সঙ্গে এটি ১২টি প্রতিযোগিতায় অংশ নেবে

অ্যাকাডেমি অব মোশন পিকচার আর্টস অ্যান্ড সায়েন্সেস প্রতিযোগিতার জন্য ২৭৬টি ছবির নাম ঘোষণা করেছে। তার মধ্যে স্থান পেয়েছে দ্য গ্রেভ। ছবিটি অস্কারের মূল প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করবে।

বিষয়টি নিয়ে গাজী রাকায়েত বলেন, ছবিটি অস্কারের মূল প্রতিযোগিতা ১২টি ক্যাটাগরিতে লড়াই করবে। সারাবিশ্বে অস্কারের ১০ হাজার ভোটার রয়েছেন। তাদের প্রত্যেকে ভোটারের কাছে এই ছবিগুলো ব্যালট আকারে পৌঁছে যাবে। যারা ম্যাক্সিমাম ভোট পাবে তারা পুরস্কার পাবে।

আমার জানা মতে, বাংলাদেশ থেকে এর আগে এতটা উঁচুতে কোনো ছবি যায়নি। এছাড়াও আরও একটা সম্ভাবনা তৈরি করলো যে, এর ফলে বাংলাদেশের দুএকজন অস্কার ভোটার হিসেবে যুক্ত হতে পারেন। সবমিলিয়ে এই অনুভূতিটা দারুণ লাগছে।'

চলতি বছরের ২৭ মার্চ অনুষ্ঠিত হবে ৯৪তম অস্কারের অ্যাওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠান। যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলসে ক্যালিফোর্নিয়ার ডলবি থিয়েটারে মোট ২৪টি শাখায় দেওয়া হবে পুরস্কারগুলো।

গাজী রাকায়েত নির্মিত বাংলাদেশের প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্য ইংরেজি ছবি দ্য গ্রেভ। এর বাংলা নাম গোর। ছবির মূল চরিত্রে আছেন রাকায়েত। সরকারি অনুদানের এই ছবিটি পরিচালনার পাশাপাশি এর কাহিনি, সংলাপ ও চিত্রনাট্য করেছেন নির্মাতা নিজেই। ২০২০ সালের ডিসেম্বর মাসে বাংলাদেশে মুক্তি পেয়েছিল ছবিটি। আন্তর্জাতিকভাবেও ছবিটি মুক্তি দেওয়ার জন্য এটি দুই ভাষায় নির্মাণ করা হয়। যা ইতোমধ্যে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক দুটো ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে মুক্তি পেয়েছে।

এছবিতে আরও অভিনয় করেছেন মামুনুর রশীদ, আশিউল ইসলাম, দীপান্বিতা মার্টিন, মৌসুমী হামিদ, দিলারা জামান প্রমুখ।

নিউজ ট্যাগ: দ্য গ্রেভ

আরও খবর



শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের ঘোষণা

প্রকাশিত:শুক্রবার ২১ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জানুয়ারী ২০২২ | ২৪৬০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দেশে করোনা সংক্রমণ বাড়তে থাকায়  স্কুল-কলেজ ও সমমানের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো দুসপ্তাহের জন্য বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। অর্থাৎ আজ থেকে আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত স্কুল-কলেজ ও সমমানের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ থাকবে।

আজ মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের জেলা ও মাঠ প্রশাসন অধিশাখা থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

তবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো খোলা থাকবে না কি বন্ধ হবে সে বিষয়ে পরিষ্কার করে প্রজ্ঞাপনে কিছু লেখা হয়নি। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিষয়ে এতে লেখা হয়েছে-  বিশ্ববিদ্যালয়গুলো নিজ নিজ ক্ষেত্রে অনুরুপ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়েছে, সামাজিক/রাজনৈতিক/ধর্মীয়/রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানে ১০০-এর বেশি জনসমাবেশ করা যাবে না। এসব ক্ষেত্রে যারা যোগদান করবেন তাদের অবশ্যই টিকা সনদ বা ২৪ ঘণ্টার মধ্যে পিসিআর সার্টিফিকেট আনতে হবে।

সরকারি/বেসরকারি অফিস, শিল্প-কারখানাগুলোতে কর্মকর্তা বা কর্মচারীদের টিকা সনদ গ্রহণ করতে হবে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে দায়িত্ব বহন করবেন।

বাজার, শপিং মল, মসজিদ, বাসস্ট্যান্ড, লঞ্চঘাট, রেল স্টেশনসহ সব ধরনের জনসমাবেশে মাস্ক ব্যবহারসহ যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করতে হবে।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ শুরু হলে ২০২০ সালের মার্চের মাঝামাঝিতে দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ করা হয়। দফায় দফায় সেই ছুটি বাড়ানো হয়। ফলে প্রায় দেড় বছর বন্ধ ছিল স্কুল-কলেজগুলো। করোনা সংক্রমণ কমতে শুরু করলে ২০২১ সালের সেপ্টম্বরে খুলে দেওয়া হয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো।  


আরও খবর



সাংস্কৃতিক বিপ্লবের মাধ্যমে সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে : মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

প্রকাশিত:শনিবার ২২ জানুয়ারী 20২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২২ জানুয়ারী 20২২ | ৪৬০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সাংস্কৃতিক বিপ্লবের মাধ্যমে সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

‌‌শনিবার (২২ জানুয়ারি) রাতে রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ মিলনায়তনে বাংলাদেশ বিনোদন সাংবাদিক সমিতি আয়োজিত বাবিসাস অ্যাওয়ার্ড ২০১৯, ২০২০ ও ২০২১ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ আহ্বান জানান।

বাংলাদেশ বিনোদন সাংবাদিক সমিতির সভাপতি আবুল হোসেন মজুমদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে সংসদ সদস্য গ্লোরিয়া ঝর্ণা সরকার, সংসদ সদস্য মমতাজ বেগম, নাগরিক ঢাকার সভাপতি এম নাঈম হোসেন, বেসরকারি টেলিভিশন এটিএন বাংলার সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট তাশিক আহমেদ উপস্থিত ছিলেন। স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন অনুষ্ঠান উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক দুলাল খান।

প্রধান অতিথি আরো বলেন, "যে জাতির নিজস্ব সংস্কৃতি থাকে না, কৃষ্টি থাকে না, যে জাতি ইতিহাস, ঐতিহ্য ধারণ করে না সে জাতি অস্তিত্বহীন হয়ে যায়। এ জন্য আমাদের বাঙালিত্বকে টিকিয়ে রাখতে হবে। বাঙালির অত্যন্ত সমৃদ্ধ ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি রয়েছে। যদিও তথাকথিত আকাশ সংস্কৃতি আমাদের অনেক জায়গা বিপন্ন করে দিচ্ছে। সে জায়গা আমাদের শিল্পীদের অভিনয়, গানসহ অন্যান্য নৈপুণ্য দিয়ে ফিরিয়ে আনতে হবে। সাংস্কৃতিক অঙ্গনের গুণীজনদের সম্মানিত করা, সমৃদ্ধ করা আমাদের দায়িত্ব"।

মন্ত্রী আরো যোগ করেন, "যিনি বাঙালির নিজস্ব সংস্কৃতির সাথে আকৃষ্ট থাকেন না তার স্বকীয়তা বিপন্ন হয়। বাংলাদেশি নাটক-চলচ্চিত্র অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করছে বিশ্ব পরিমণ্ডলে। তবে একথাও সত্য হঠাৎ করে ব্যবসায়ের নামে, দ্রুততার সাথে জনপ্রিয়তার নামে কিছু অনাকাঙ্খিত শিষ্টাচারবর্জিত সৃষ্টিও দেখা যায়। যদিও এগুলোর আয়ুস্কাল স্বল্পসময়ের। বাঙালিত্বকে টিকিয়ে রাখার জন্য বিশেষ করে হিন্দু, মুসলিম,বৌদ্ধ, খ্রিস্টানের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও ঐক্যের বাংলাদেশ টিকিয়ে রাখতে গেলে সংস্কৃতি বিকাশের, সংস্কৃতির বিপ্লবের কোন বিকল্প নেই। যখনই সংস্কৃতি মুখ থুবড়ে পড়ে তখনই উগ্রতা, জঙ্গিবাদ মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে। তাই দৃশ্যমান শক্তি প্রয়োগ না করে সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে এই উগ্রবাদ-জঙ্গিবাদ প্রতিহত করতে হবে"।

"প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চলচ্চিত্রসহ সংস্কৃতির নানা ক্ষেত্রে ব্যাপক পৃষ্ঠপোষকতা প্রদান করছেন। যতদিন মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশ থাকবে, যতদিন শেখ হাসিনা দেশে প্রধানমন্ত্রী থাকবেন, ততদিন সংস্কৃতি চর্চার জন্য রাষ্ট্রের সকল পৃষ্ঠপোষকতা থাকবে"-যোগ করেন মন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে আজীবন সম্মাননা প্রদান করা হয় চলচ্চিত্র পরিচালক, প্রযোজক ও কাহিনীকার ছটকু আহমেদ এবং নাট্যব্যক্তিত্ব মামুনুর রশীদকে। এছাড়া সংগীতে অনন্য অবদানের জন্য সংগীতশিল্পী কুমার বিশ্বজিৎকে বিশেষ সম্মাননা প্রদান করা হয় ।


আরও খবর



দিনাজপুরে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৪ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ জানুয়ারী ২০২২ | ৩৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দিনাজপুরে দেশের সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাতের পর আবারও উত্তরের হিমেল বায়ু সক্রিয় হওয়ায় কমতে শুরু করেছে তাপমাত্রা। একদিনের ব্যবধানে দিনাজপুরে তাপমাত্রা কমেছে ১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ফলে পড়ছে তীব্র শীত।

আগামী সপ্তাহে দিনাজপুরসহ এ অঞ্চলে আরও একটি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাওয়ার আভাস দিয়েছে আবহাওয়া দপ্তর।

দিনাজপুর আঞ্চলিক আবহাওয়া অফিসের কর্মকর্তা তোফাজ্জল হোসেন জানিয়েছে, শুক্রবার সকাল ৬টায় দিনাজপুরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ১২ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এর একদিন আগে বৃহস্পতিবার দিনাজপুরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ১৩ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

তিনি জানান, শুক্রবার সকাল ৬টায় দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে দেশের সর্বোত্তরের উপজেলা পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায়। এ অঞ্চলে তাপমাত্রা ছিল ৭ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

আবহাওয়া অফিসের এ কর্মকর্তা জানান, বৃষ্টিপাতের পর হিমালয়ের পাদদেশে অবস্থিত এ জনপদে উত্তরের হিমেল বায়ু সক্রিয় হয়েছে। সকালে এ বাতাসের গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ৩-৪ কিলোমিটার। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এর গতিবেগ বৃদ্ধি পেয়ে ঘণ্টায় ৮-১০ কিলোমিটার বেগে প্রবাহিত হয়। ইতোমধ্যে দেশের সর্বোত্তরে শুরু হয়েছে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ। আগামী সপ্তাহে দিনাজপুরেও এ শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানান তোফাজ্জল হোসেন।

চলতি পৌষ মাসের মাঝামাঝি সময়ে দিনাজপুরে প্রথম দফায় বৃষ্টিপাত হয়। চলতি পৌষ মাসের ১৫ তারিখেও দিনাজপুরে দেশের সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়। সেদিন ২৪ ঘণ্টায় বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয় ৫ দশমিক ২ মিলিমিটার।


আরও খবর



দেশে করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যুহার বাড়ছে

প্রকাশিত:রবিবার ০২ জানুয়ারী 2০২2 | হালনাগাদ:রবিবার ০২ জানুয়ারী 2০২2 | ৪৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
২০ ডিসেম্বর পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্তের হার ২ শতাংশের নিচে ছিল। কখনও কখনও তা ছিল ১ শতাংশের কাছাকাছি। কিন্তু ২১ ডিসেম্বর থেকে ক্রমেই সংক্রমণের হার বেড়ে বর্তমানে দুই দশমিক ৭৮ পর্যন্ত বেড়েছে

দেশে বেড়েছে করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যুহার। গত এক সপ্তাহে আগের সপ্তাহের তুলনায় নতুন রোগী শনাক্ত বেড়েছে ৬০ শতাংশ এবং মৃত্যু ১৫০ শতাংশ।

রোববার (২ জানুয়ারি) দুপুরে কোভিড-১৯ পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ভার্চুয়াল বুলেটিনে এ কথা জানানো হয়।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের লাইন ডিরেক্টর (অসংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণ) অধ্যাপক ডা. মো. রোবেদ আমিন বলেন, গত এক সপ্তাহে এক লাখ ৩০ হাজার ৭৪৯টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়, যা আগের সপ্তাহের তুলনায় ২০ শতাংশ বেশি। এছাড়া গত এক সপ্তাহে নতুন করে করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে দুই হাজার ৯২৪ জন। এর আগের সপ্তাহের তুলনায় শনাক্ত রোগী ৬০ শতাংশ বেড়েছে।

গত সপ্তাহের তুলনায় সর্বশেষ সপ্তাহে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ১২ জন বেশি মারা গেছেন। অর্থাৎ মৃত্যুহার ১৫০ শতাংশ বেশি। ২৬ ডিসেম্বর করোনায় আক্রান্তের হার ছিল ২ শতাংশের কম। ৩১ ডিসেম্বর এ হার বেড়ে দুই দশমিক ৭৪ শতাংশ হয়েছে।

ডা. মো. রোবেদ আমিন বলেন, ২০ ডিসেম্বর পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্তের হার ২ শতাংশের নিচে ছিল। কখনও কখনও তা ছিল ১ শতাংশের কাছাকাছি। কিন্তু ২১ ডিসেম্বর থেকে ক্রমেই সংক্রমণের হার বেড়ে বর্তমানে দুই দশমিক ৭৮ পর্যন্ত বেড়েছে।

বলা যায়, বেশ কিছুদিন করোনা সংক্রমণ স্থিতিশীল থেকে তা আবার বাড়ছে। নভেম্বর মাসে শনাক্ত হওয়া করোনা রোগীর সংখ্যা ছিল ছয় হাজার ৭৪৫ জন। ডিসেম্বর মাসে তা নয় হাজার ২৫৫ জনে বেড়েছে।

করোনা প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। বিশেষ করে মাস্ক ব্যবহারের কোনো বিকল্প নেই বলে অভিমত অধ্যাপক ডা. মো. রোবেদ আমিনের।

নিউজ ট্যাগ: করোনাভাইরাস

আরও খবর
করোনায় ১৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৪৮২৮

সোমবার ২৪ জানুয়ারী ২০২২