আজঃ মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

নয় অঞ্চলে ৬০ কিমি বেগে ঝড়ের আভাস

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

দেশের নয়টি অঞ্চলের ওপর দিয়ে দুপুরের মধ্যে সর্বোচ্চ ৬০ কিমি বেগে অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। বৃহস্পতিবার (২০ জুন) দুপুর ১টা পর্যন্ত দেশের অভ্যন্তরীণ নদীবন্দরগুলোর জন্য দেওয়া আবহাওয়ার পূর্বাভাসে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, রংপুর, দিনাজপুর, বগুড়া, ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, কুমিল্লা এবং সিলেট অঞ্চলের উপর দিয়ে দক্ষিণ দক্ষিণ-পূর্ব দিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫-৬০ কিমি বেগে অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এসব এলাকার নদীবন্দরকে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

এদিকে বুধবার রাতে দেওয়া আবহাওয়ার সবশেষ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, রংপুর, রাজশাহী, ঢাকা, ময়মনসিংহ, খুলনা ও বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে অতিভারী বর্ষণ হতে পারে।


আরও খবর



কুমিল্লায় পুলিশের গাড়ি ভাঙচুর, এএসপি অবরুদ্ধ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জেলা প্রতিনিধি

Image

কুমিল্লায় পুলিশের গাড়ি ভাঙচুর করেছেন কোটাবিরোধী আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। এসময় পুলিশের এক এএসপিসহ দুই পুলিশ সদস্যকে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়। মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) বিকেল ৪টার দিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লা কোটবাড়ি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, কোটা ইস্যুতে বিকেল পৌনে ৪টার দিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কোটবাড়ি এলাকা অবরোধ করেন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। খবর পেয়ে কুমিল্লা সদর দক্ষিণ মডেল থানা পুলিশ এবং কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) কামরান হোসেন সেখানে যান।

এসময় আন্দোলনকারীরা সদর দক্ষিণ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) মোহাম্মদ আলমগীর ভূঁইয়ার ব্যবহৃত গাড়ি লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেন। একপর্যায়ে গাড়িটি ভাঙচুর করা হয়। এসময় পাশের একটি ভবনে অবস্থান নেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) কামরান হোসেন। পরে ওই ভবনে তাকেসহ দুই পুলিশ সদস্যকে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়।

এ বিষয়ে কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নামজুল হাসান বলেন, শিক্ষার্থীরা বিনা উসকানিতে পুলিশের ওপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও পুলিশের একটি গাড়ি ভাঙচুর করেন। এসময় পুলিশ ধৈর্যের পরিচয় দিয়েছে। অবরুদ্ধ পুলিশ সদস্যদের উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।


আরও খবর



লক্ষ্মীপুরে গৃহবধূকে শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগ, স্বামী আটক

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৪ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি

Image

লক্ষ্মীপুরে পারিবারিক কলহের জের ধরে গৃহবধূ সালমা আক্তারকে মারধরের পর শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগ উঠেছে তার স্বামী কামরুল হাসান সুমনের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় স্বামী কামরুলকে আটক করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) সকালে সদর হাসপাতাল থেকে তাকে আটক করা হয়।

বুধবার (৩ জুলাই) দিবাগত রাত ৩ টার দিকে সালমাকে মারধর ও পরে গলা টিপে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ স্বজনদের। কামরুলের দ্বিতীয় বিয়ে নিয়ে পারিবারিক কলহ থেকেই ঘটনাটি ঘটেছে বলে জানিয়েছে পরিবার ও স্থানীয় লোকজন।

সালমা সদর উপজেলার টুমচর ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের টুমচর গ্রামের আলমগীর হোসেনের মেয়ে। কামরুল একই এলাকার মো. খোকনের ছেলে। তাদের সংসারে একটি কন্যা সন্তানও রয়েছে।

সালমার স্বজনরা জানায়, প্রায় ৪ বছর আগে প্রেম করে কামরুল ও সালমা বিয়ে করে। তাদের বিবাহিত জীবন ভালোই চলছিল। এরমধ্যে গত ৬ মাস আগে টিকটকের মাধ্যমে পরিচিত অন্য এক মেয়েকে কামরুল বিয়ে করে। ঘটনাটি জানাজানি হলে সালমার সঙ্গে পারিবারিক কলহ শুরু হয়। এতে কামরুল তাকে নানানভাবে অত্যাচার করতো। বিষয়টি সালমা তার পরিবারকেও জানায়।

তার পরিবারের অভিযোগ, দ্বিতীয় বিয়ে নিয়ে কলহের জের ধরেই কামরুল সালমাকে মারধর করে গলা টিপে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে।

টুমচর ইউনিয়ন পরিষদের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য (মেম্বার) মাকছুদুর রহমান বলেন, খবর পেয়ে আমি হাসপাতাল যাই। সেখানে সালমার স্বজনদের সঙ্গে কথা বলেছি। পরিবারের অভিযোগ পেয়ে পুলিশ অভিযুক্ত কামরুলকে আটক করে নিয়ে গেছে।

লক্ষ্মীপুর সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইফুদ্দিন আনোয়ার বলেন, সালমার পরিবারের অভিযোগে কামরুলকে আটক করা হয়েছে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতালের মর্গে রয়েছে। তদন্ত করে এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিউজ ট্যাগ: লক্ষ্মীপুর

আরও খবর



চট্টগ্রামে উল্টো রথের মধ্য দিয়ে রথযাত্রা উৎসব সম্পন্ন

প্রকাশিত:সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
রাহুল সরকার, চট্টগ্রাম ব্যুরো

Image

বন্দরনগরীতে উল্টো রথের মধ্য দিয়ে শেষ হলো সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব রথযাত্রা। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস জগন্নাথ দেব হলেন জগতের নাথ বা অধীশ্বর। জগত হচ্ছে বিশ্ব আর নাথ হচ্ছেন ঈশ্বর। তাই জগন্নাথ হচ্ছে জগতের ঈশ্বর। তার অনুগ্রহ পেলে মানুষের মুক্তিলাভ হয়। জীবরূপে তাকে আর জন্ম নিতে হয় না। এ বিশ্বাস থেকেই রথের ওপর জগন্নাথ দেবের প্রতিমা রেখে রথযাত্রা করেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা।

উল্টো রথযাত্রা উপলক্ষে বিভিন্ন ধর্মীয় সংগঠন এবং মন্দির নানা মাঙ্গলিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। সকালে বিভিন্ন মাঙ্গলিক আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে শুরু হয় অনুষ্ঠানমালা। এর মধ্যে ছিল হরিনাম সংকীর্তন, মহাপ্রসাদ বিতরণ, আলোচনা সভা, পদাবলী কীর্তন, আরতি কীর্তন, ভাগবত কথা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও শ্রীমদ্ভাগবত গীতা পাঠ।

সোমবার বিকেলে চট্টগ্রাম নগরীর এতে লাখো ভক্তের সমাগম মধ্য দিয়ে টেনে নিয়ে যান জগন্নাথ দেবের রথ।

আন্তর্জাতিক কৃষ্ণভাবনামৃত সংঘ (ইসকন) প্রর্বতক শ্রীকৃষ্ণ মন্দির ও নন্দনকানন শ্রীশ্রী রাধামাধব মন্দির ও শ্রীশ্রী গৌর নিতাই আশ্রমের উদ্যোগে নগরীর সিনেমা প্যালেস ও নন্দনকানন থেকে পরমেশ্বর ভগবান শ্রী শ্রী জগন্নাথ বলদেব সুভদ্রা মহারানীর উল্টো রথের শোভাযাত্রা শুরু হয়।  রথযাত্রা নন্দনকানন থেকে শুরু হয়ে নগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

উল্টো রথযাত্রা উপলক্ষে মঙ্গলারতি, তুলসি আরতি, নৃসিংহ বন্দনা, গুরু পুজা, ভাগবত পাঠ, ভোগারাতি, ভজন কীর্তন, আলোচনা সভা, মহাপ্রসাদ বিতরণসহ বিভিন্ন কর্মসূচির আয়োজন করা হয়।

চট্টগ্রামের রথযাত্রা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক চসিক মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিন। তিনি বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে মহান মুক্তিযুদ্ধের বদৌলতে স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে এই ভূখণ্ডে সাম্প্রদায়িকতার কবর রচিত হয়েছে। তাই স্বাধীন বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির সুমহান ঐতিহ্য আমাদেরকে যেকোনও মূল্যে সমুন্নত রাখতে হবে। আমরা যার যার নিজ ধর্ম পালনের পাশাপাশি অন্য ধর্মালম্বীদের সম্মান করব। তাদের সুখে-দুঃখে পাশে থাকব। এটাই মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও জাতির জনকের আদর্শ। 

উল্টো রথযাত্রা উপলক্ষে গতকাল সোমবার প্রবর্তক শ্রীকৃষ্ণ মন্দির ও নন্দকানন ইসকন মন্দিরের উদ্যোগে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

নন্দনকানন ইসকনের সভাপতি পণ্ডিত গদাধর দাসের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক তারণ নিত্যানন্দ দাসের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা পর্বে মহান আশীর্বাদক ছিলেন ভারতের উড়িষ্যার শ্রীমৎ ভক্তি নীলাচল স্বামী মহারাজ।  প্রধান আলোচক ছিলেন ইসকন বাংলাদেশের সাধারণ সম্পাদক ও প্রবর্তক শ্রীকৃষ্ণ মন্দিরের অধ্যক্ষ চারু চন্দ্র দাস ব্রহ্মচারী।

বিশেষ অতিথি ছিলেন জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী প্রবীর সেন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট চন্দন তালুকদার, যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সদস্য ও তরুণ আওয়ামী লীগ নেতা হেলাল আকবর চৌধুরী বাবর, নগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি দেবাশীষ নাথ দেবু ও নগর যুবলীগের সহ-সভাপতি দেবাশীষ পাল দেবু, মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সাবেক সহসভাপতি অনুরূপ পাল, পূজা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক হিল্লোল সেন উজ্জ্বল ও সাবেক ছাত্র নেতা শিবু প্রসাদ চৌধুরী।

এছাড়া নন্দনকানন ইসকন রাধামাধব মন্দির ও গৌর নিতাই সেবাশ্রমের সহ সভাপতি অকিঞ্চন গৌর দাস ব্রহ্মচারী, যুগ্ম সম্পাদক মুকুন্দ ভক্তি দাস ব্রহ্মচারী, সদস্য অপূর্ব মনোহর দাস ব্রহ্মচারী ও সুবল সখা দাস ব্রহ্মচারীসহ টিএমসি নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। আলোচনা পর্ব শেষে আমন্ত্রিত অতিথিরা মঙ্গল দ্বীপ প্রজ্জ্বালন ও বেলুন উড়িয়ে উল্টো রথযাত্রার শুভ উদ্বোধন করেন।

আওয়ামী লীগ নেতা হেলাল আকবর চৌধুরী বাবর বলেন, রথযাত্রা বাঙালি হিন্দুদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব। আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ধর্ম যার যার উৎসব সবার। আমরা প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশিত পথে থেকে সবাই মিলে সম্প্রীতির বাংলাদেশ গড়ে তুলব। হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান সবাই মিলে এই চট্টগ্রামে আমরা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ঐতিহ্য অক্ষুণ্ন রেখেছি। এই রথযাত্রা আমরা একসঙ্গে সবাই মিলে করছি।  বাংলাদেশকে সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায়, যারা ধর্মে-ধর্মে মানুষে-মানুষের বিভাজন সৃষ্টি করে, যারা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ধর্মনিরপেক্ষ বাংলাদেশ গড়ার বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়। তাদেরকে বলতে চাই, আমরা আপনাদের প্রতিরোধ করব।

তিনি বলেন, 'জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে আমরা সবাই মিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সুখি, সুন্দর বাংলাদেশ গড়ে তুলব।'

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, স্বাধীন বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক অপশক্তির কখনওই ঠাঁই হবে না। আজকের বাংলাদেশে ধর্ম যার যার, রাষ্ট্র সবার। তাই ধর্মের আধ্যাত্মিক চেতনাকে হৃদয়ে ধারণ করে আমাদের সকলকে জগতের কল্যাণ ও সম্প্রীতির চর্চা করতে হবে। শ্রী শ্রী জগন্নাথ, সুভদ্রা ও বলরামের আশীর্বাদে জীবন হয় সুন্দর। সমস্যায় ঘেরা জীবনে মুক্তি এনে দেন ত্রি-দেবতা।

 উল্টো রথযাত্রার উদ্বোধন শেষে ভক্ত-পূণ্যার্থীরা শ্রী শ্রী জগন্নাথ, বলরাম ও সুভদ্রা মহারাণী অধিষ্ঠিত রথ টেনে নগর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করেন। ভক্তরা বিভিন্ন ধরনের ব্যানার, ফেস্টুন, প্ল্যাকার্ড, পৌরাণিক সাজ ও বাদ্যযন্ত্রসহকারে রথের শোভাযাত্রায় অংশগ্রহণ করেন।

এ উপলক্ষে প্রতিবছরের মতো এবছরও ইসকন প্রবর্তক শ্রীকৃষ্ণ মন্দির, তুলসীধাম ও নন্দনকান রাধামাধব মন্দিরে বিভিন্ন মাঙ্গলিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। প্রত্যেক মন্দির থেকে বিকেলে পৃথকভাবে বের করা হয়েছে বর্ণাঢ্য মহাশোভাযাত্রা।

এদিকে চট্টগ্রাম মহানগরীর অন্যান্য মন্দিরগুলো থেকে এইদিন রথযাত্রা উপলক্ষে বের করা হয়েছে বর্ণিল মহাশোভাযাত্রা।

অন্যদিকে, ইসকন প্রবর্তক শ্রীকৃষ্ণ মন্দিরের  লীলারাজ গৌর দাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সাবেক চসিক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন, নগর মহিলা লীগের সভাপতি হাসিনা মহিউদ্দিন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পেয়ারুল ইসলাম, নগর আওয়ামীলীগ নেত হেলার আকবর চৌধুরী বাবর, চিন্ময় কৃষ্ণ দাস, স্বতন্ত্র গৌরাঙ্গ দাস, চসিক কাউন্সিলর জহুরলাল হাজারী, নীলু নাগ, জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট চন্দন তালুকদার, পূজা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক হিল্লোল সেন উজ্জ্বল ও সাবেক ছাত্র নেতা শিবু প্রসাদ চৌধুরী প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।


আরও খবর



মাদ্রাসা ছাত্রকে বলৎকার, শিক্ষকের বিচারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশিত:বুধবার ০৩ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৩ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
পটুয়াখালী প্রতিনিধি

Image

পটুয়াখালীতে প্রথম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে বলৎকারের অভিযোগ উঠেছে মাহমুদুল হাসান নামে সহকারী শিক্ষিকের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগীর পিতা ঐ শিক্ষকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চেয়ে বুধবার(৩ জুলাই) দুপুরে পটুয়াখালী প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন। মাহমুদুল হাসান পৌর শহরের দারুল কুরআন মাদ্রাসার মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক।

এসময় সংবাদ সম্মেলনে ঐ শিশুর পিতা বলেন, গত ৯ জুন বেলা এগারোটার সময় দারুল কুরআন মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক এবং প্রধান শিক্ষক আহম্মদ কবির ও সহকারী শিক্ষক মাহমুদুল হাসান প্রথম শ্রেণির শিশু শিক্ষার্থীকে মাদ্রাসার তৃতীয় তলার একান্ত রুমে ডেকে নিয়ে শিক্ষক মাহমুদুল হাসানের পুরুষাঙ্গে তৈল মেখে ঐ শিশুকে জোড় পূর্বক ম্যাসেজ করান এবং যৌন কর্ম করেন। পরে ঐ শিশু কান্নাকাটি করলে তাকে মারধর করেন শিক্ষক মাহমুদুল হাসান।

মারধরে শিশুটি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পরলে তাকে কোন চিকিৎসা না করে বাড়িতে পাঠিয়ে দেয় মাদ্রাসার পরিচালক আহম্মদ কবির ও সহকারী শিক্ষক মাহমুদুল হাসান। এমনকি ঐ শিশুর পরিবারকে না জানিয়ে উল্টো কোন কিছু না বলার জন্য শিশুটিকে হুমকি দেন। গত ১২ জুন শিশুটি কুরবানিতে বাড়ি গেলে অসুস্থ হয়ে পরে এবং শিশুটির মা জিগ্যেস করার একপর্যায়ে তার সাথে ঘটে যাওয়া পুরো বিষয়টি খুলে বলেন। এদিকে শিশুটির পিতা কর্মস্থলে থাকায় তার মা ১৫ জুন চিকিৎসার জন্য পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন।

পরে এঘটনায় ঐ শিশুর পিতা বাদী হয়ে বিজ্ঞ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালে দারুল কুরআন মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ও প্রধান শিক্ষক আহম্মদ কবির এবং সহকারী শিক্ষক মাহমুদুল হাসানকে আসামি করে একটি মামলা করেন। যার মামলা নং ৩৫১। এঘটনায় ১লা জুলাই বিজ্ঞ ট্রাইবুনাল মামলাটি এজাহার হিসাবে নেয়ার জন্য পটুয়াখালী সদর থানার অফিসার ইনচার্জ ওসিকে নির্দেশ দেন।

বর্তমানে দারুল কুরআন মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ও প্রধান শিক্ষক আহম্মদ কবির এবং সহকারী শিক্ষক মাহমুদুল হাসান মামলা হওয়ার পরই পলাতক রয়েছে বলে জানান আরেক সহকারী শিক্ষক জসিম উদ্দিন।

এবিষয়ে পটুয়াখালী সদর থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি মোঃ জসিম কে একাধিক বার তার মুঠোফোনে কল দিলে তিনি তা রিসিভ করেনি।


আরও খবর



বন্যার শঙ্কায় আগাম প্রস্তুতির নির্দেশ দিলেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০২ জুলাই 2০২4 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০২ জুলাই 2০২4 | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

বন্যার বিষয়ে সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বন্যা হতে পারে, পূর্বাভাস সে রকম পাওয়া যাচ্ছে। কাজেই আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে, সবাইকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে।

জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) বৈঠকে এসব নির্দেশ দেওয়া হয়। মঙ্গলবার (২ জুলাই) রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠক শেষে ব্রিফিংয়ে এসব বিষয় তুলে ধরেন পরিকল্পনামন্ত্রী মেজর জেনারেল (অব.) আব্দুস সালাম। পরিকল্পনামন্ত্রী জানান, প্রকল্প পরিচালকদের প্রশিক্ষণে জোর দিতে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। সেই সঙ্গে এক প্রকল্পের জন্য যেন একজন প্রকল্প পরিচালক নিয়োগ দেওয়া হয় সেই কথা বলেছেন তিনি। এছাড়া ঢাকা অঞ্চলের আশে পাশে যেখানে জমি আছে সেগুলোতে চাষাবাদ ত্বরান্বিত করার কথাও বলেছেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জমি অধিকাংশ চলে যাচ্ছে আবাসন প্রকল্পের জন্য। তবে যেসব জমি এখনও আছে সেগুলো যাতে ফাঁকা পড়ে না থাকে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। যেসব এলাকায় তিন ফসলি বা দো ফসলি জমিতে ফসল ভাল হয় সেসব এলাকায় প্রকল্প নেওয়া যাবে না।

পাশাপাশি জমি অধিগ্রহণের ক্ষেত্রে ঘনবসতিপূর্ণ এলাকা এড়িয়ে চলার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

পরিকল্পনামন্ত্রী আরও জানান, প্রেক্ষিত পরিকল্পনা ৪১ এর বাস্তবায়ন বাড়ানোর নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়া সদ্য সমাপ্ত ২০২৩-২৪ অর্থবছরের শেষ সময়ে যেসব প্রকল্পের অনুকূলে অর্থবরাদ্দ দেওয়া হয়েছে সেই টাকা কীভাবে খরচ হয়েছে সেটি খতিয়ে দেখার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

সারাদেশের যেসব থানা জরাজীর্ণ আছে সেগুলো সংস্কারের নির্দেশ দিয়েছেন শেখ হাসিনা। এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা আমাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করে তারাই যদি নিরাপদ না থাকে তাহলে কীভাবে হবে?

প্রধানমন্ত্রী চলতি অর্থবছরে প্রথম তিন মাসে প্রকল্পের প্রস্তুতি সম্পন্ন করার নির্দেশ দিয়ে বলেন, যেহেতু বৃষ্টির কারণে মাঠে প্রকল্পের কাজ করা যায় না সেজন্য কাগুজে প্রস্তুতি শেষ করতে হবে।

ব্রিফিংয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, কাজের মান নিশ্চিত করতে সবারই দায়িত্ব আছে। আগামী ৪ জুন সব মন্ত্রণালয়ের সচিবদের নিয়ে বৈঠক করা হবে। যাতে প্রকল্পের কাজ দ্রুত হয়। এ বিষয়গুলো লক্ষ্য রেখে কাজ করতে হবে। ২০৪১ সালের দিকে উন্নয়নশীল দেশে চলে আসব আমরা। এজন্য আন্তঃমন্ত্রণালয়ের সক্ষমতা বৃদ্ধি করা হচ্ছে।

ব্রিফিংয়ে উপস্থিত ছিলেন, পরিকল্পনা সচিব সত্যজিত কর্মকার, ভৌত অবকাঠামো বিভাগের সদস্য (সচিব) ড. এমদাদউল্লাহ মিয়ান, কৃষি, পানি পল্লী প্রতিষ্ঠান বিভাগের সদস্য (সচিব) আব্দুল বাকী এবং তথ্য ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব ড. শাহনাজ আরেফিন।


আরও খবর
মেট্রোরেল চলাচল পুরোপুরি বন্ধ

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪