আজঃ বৃহস্পতিবার ০৯ ডিসেম্বর ২০২১
শিরোনাম

পাবনায় ট্রলিচাপায় বৃদ্ধার মর্মান্তিক মৃত্যু

প্রকাশিত:শুক্রবার ১২ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১২ নভেম্বর ২০২১ | ৪৭৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পাবনার ভাঙ্গুড়ায় ইঞ্জিনচালিত ট্রলির চাপায় রহমজান বেগম (৭০) নামে এক বৃদ্ধার মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। এ সময় আহত হয় তার দুই নাতনি। আহত দুই নাতনিকে উদ্ধার করে ভাঙ্গুড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

শুক্রবার (১২ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ১১টার দিকে বাঘাবাড়ি-টেবুনিয়া মিনি বিশ্বরোডের ভেরামারা গোরস্থান-সংলগ্ন এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত রহমজান উপজেলার ভেড়ামারা গ্রামের মৃত আ. ছামাদ সরকারের স্ত্রী। আহতরা হলো ওই গ্রামের নুর ইসলামের মেয়ে নুরানী বেগম (১২) ও ছেলে ইমান হাছান (৫)।

স্থানীয়রা জানায়, সকালে রহমজান বেগম তার দুই নাতনিকে নিয়ে বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। এ সময় দ্রুতগতিতে আসা একটি স্টিয়ারিং ট্রলি বৃদ্ধাকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই রহমজান বেগম মারা যান এবং তার দুই নাতনি গুরুতর আহত হয়। দুর্ঘটনার পর ট্রলি ফেলে রেখে চালক পালিয়ে যায়। পরে স্বজনেরা আহত দুইজনকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, ২ সপ্তাহ ধরে অন্তত অর্ধশত অবৈধ স্টিয়ারিং ট্রলি পার্শ্ববর্তী ফরিদপুর উপজেলার বিভিন্ন ইটভাটার মাটি পরিবহন করছে। ভাঙ্গুড়ার পাথরঘাটা গ্রামের বিভিন্ন ফসলি জমিতে থেকে অবৈধভাবে এই মাটি নেওয়া হচ্ছে। অবৈধ এই যানবাহনের অধিকাংশ চালক অদক্ষ হওয়ায় প্রতিনিয়ত ঘটছে এমন দুর্ঘটনা।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল কাদের একজনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আরেকজনের অবস্থাও সংকটাপন্ন। ভাঙ্গুড়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফয়সাল বিন আহসান বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। চালক পালিয়ে যাওয়ায় আটক করা সম্ভব হয়নি। তবে গাড়িটি জব্দ করা হয়।


আরও খবর
পাবনায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৪

শনিবার ৩১ জুলাই ২০২১




পারদর্শী বিদেশিদের নাগরিকত্ব দেবে সৌদি আরব

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ নভেম্বর ২০২১ | ৫৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বিদেশিদের নাগরিকত্ব দিতে যাচ্ছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সৌদি আরব।  বৃহস্পতিবার এক রাজকীয় ফরমানে এই অনুমোদন দেন সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আব্দুল আজিজ। 

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিভিন্ন ক্ষেত্রে পারদর্শী বিদেশিদের নাগরিকত্ব দেবে সৌদি আরব।  আইন, চিকিৎসা, বিজ্ঞান, সংস্কৃতি, খেলাধুলা ও প্রযুক্তিবিদ্যায় বিশেষ দক্ষতাসম্পন্ন ও মেধাবীদের এই নাগরিকত্ব দেওয়া হবে।

শর্তে বলা হয়েছে, মা বাবা উভয়েই যদি সৌদির নাগরিক হন তবে তাদের শিশু সৌদি বা বাইরের কোন দেশে জন্ম নিলে সে সৌদি নাগরিকত্ব পাবে।

এছাড়া দক্ষ ও চৌকস পেশাজীবীদের আকৃষ্ট করতে পেশাজীবীদের নাগরিকত্ব দিতে চায় দেশটি।

সৌদি গেজেটের খবরে বলা হয়, কর্তৃপক্ষের আশা নাগরিকত্ব পাওয়া দক্ষ পেশার মানুষজন সৌদি আরবের বিভিন্ন উন্নয়নে অবদান রাখবেন।

তবে খুব বেশি মানুষকে নয়, সীমিত সংখ্যক পেশাজীবীদের এই সুযোগ দেওয়া হবে। 

 

নিউজ ট্যাগ: সৌদি আরব

আরও খবর



সমুদ্র বন্দরগুলোকে ২ নম্বর হুশিয়ারি সঙ্কেত

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২১ | ২৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত গভীর নিম্নচাপটি উত্তর-পশ্চিমে সরে ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে। এই ঘূর্ণিঝড়ের নাম দেওয়া হয়েছে জাওয়াদ।

ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রস্থলের কাছে সাগর উত্তাল থাকায় দেশের সমুদ্র বন্দরগুলোকে ২ নম্বর দূরবর্তী হুশিয়ারি সতর্কসঙ্কেত দেখাতে বলা হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর থেকে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে সাবধানে চলাচল করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

এদিকে ভারতের আবহাওয়া অফিসের তথ্য বলছে, ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদের বর্তমান গতিধারা অব্যাহত থাকলে এটি আরও শক্তিশালী হয়ে শনিবার প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে।

ভারতের আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, বর্তমান অবস্থান থেকে উত্তর উত্তরপশ্চিমে এগিয়ে ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশ এবং ওড়িষার মাঝামাঝি এলাকায় উপকূলের কাছে পৌঁছে উত্তর উত্তর-পূর্ব দিকে বাঁক নিতে পারে। এরপর উপকূল ধরে এগিয়ে শনিবার মধ্যরাত নাগাদ ওড়িষা রাজ্যের পুরি উপকূলের কাছাকাছি পৌঁছতে পারে ঘূর্ণিঝড় জোয়াদ।এরপর এটি আরও উত্তর উত্তর-পূর্বে পশ্চিমবঙ্গ উপকূলের দিকে এগিয়ে যেতে পারে।

এদিকে বাংলাদেশের আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, আগামী ৭২ ঘণ্টা বা তিন দিনে দেশে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।


আরও খবর



পায়রা বন্দর থেকে ৮৯৫ কিলোমিটার দূরে ‘জাওয়াদ’

প্রকাশিত:শনিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২১ | ৩৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদের প্রভাবে পটুয়াখালীর উপকূলীয় এলাকায় থেমে থেমে হালকা গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। শনিবার (৪ ডিসেম্বর) সকাল থেকে আকাশ ঘন মেঘাচ্ছন্ন রয়েছে। এছাড়া ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে পায়রা সমুদ্র বন্দরকে ২ নম্বর দূরবর্তী হুশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলেছে আবহাওয়া অফিস। বর্তমানে সাগর উত্তাল রয়েছে। গভীর সাগরে মাছ ধরা সকল ট্রলারকে ফিরে এসে উপকূলের কাছাকাছি থেকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে।

পটুয়াখালী আবহাওয়া অফিস সূত্র জানায়, ঘর্নিঝড়টি আজ শনিবার সকাল ছয়টায় চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দর থেকে ১০৩০ কিলোমিটার, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৯৯৫ কিলোমিটার, মংলা সমুদ্র বন্দর থেকে ৮৮৫ কিলোমিটার এবং পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ৮৯৫ কিলোমিটার দক্ষিণ, দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান করছিলো। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৫৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৬২ কিলোমিটার। যা দমকা অথবা ঝড়ো আকারে ৮৮ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

এদিকে হঠাৎ বৃষ্টিসহ শীতের তীব্রতা বাড়ায় জনজীবন হয়ে পড়েছে বিপর্যস্ত। এর ফলে ভোগান্তিতে পড়েছে কর্মজীবীসহ নিম্ন আয়ের শ্রমজীবী মানুষ। ক্ষতির শঙ্কায় পড়েছে কৃষকরা। বৃষ্টির তীব্রতা বৃদ্ধি পেলে ক্ষতি হতে পারে ক্ষেতের পাঁকা আমন ধান। রবি শস্যসহ তরমুজের প্রস্তুত ক্ষেত নষ্ট হতে পারে।

পটুয়াখালী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক আব্দুল মন্নান বলেন, বৃষ্টির তীব্রতা বৃদ্ধি পেলে ক্ষেতের ধানসহ রবি শস্যের ব্যাপক ক্ষতি হতে পারে।

পটুয়াখালী আবহাওয়া অফিসের কর্মকর্তা মাসুদ রানা জানান, ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদের প্রভাবে হালকা থেকে মাঝারী বৃষ্টিপাত এবং দমকা হাওয়া বয়ে যেতে পারে।

নিউজ ট্যাগ: ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ

আরও খবর



সু চির সাজা ৪ থেকে ২ বছর করল জান্তা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৭ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৭ ডিসেম্বর ২০২১ | ২২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মিয়ানমারের রাখাইনে প্রায় চার বছর আগে রোহিঙ্গা মুসলিম জনগোষ্ঠীর ওপর জ্বালাও-পোড়াও শুরু করেছিল দেশটির সেনাবাহিনী। প্রাণ বাঁচাতে তখন পালিয়ে বাংলাদেশে আসে সাড়ে ৭ লাখের বেশি রোহিঙ্গা। সেনাসদস্য ও তাদের দোসরদের বর্বরতায় সারা বিশ্বের বিবেক নড়ে উঠেছিল; কিন্তু নড়েনি সু চির। শান্তিতে নোবেল পদকজয়ী গণতন্ত্রকামী এই নেত্রীকেই কি না এবার চার বছরের কারাদণ্ড দিলেন রোহিঙ্গাবিরোধী নিষ্ঠুরতায় তাঁর মৌন সমর্থন পাওয়া সেনাশাসকেরা।

এদিকে রায় ঘোষণার পর মিয়ানমারের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের খবরে বলা হয়, সু চিকে আংশিক ক্ষমা করেছেন সেনাপ্রধান। তাঁর সাজা দুই বছর কমিয়ে দিয়েছেন তিনি। খবর বিবিসি, এএফপি ও রয়টার্সের।

মিয়ানমারের ক্ষমতাচ্যুত নির্বাচিত সরকারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চিকে সোমবার দুই মামলায় ওই কারাদণ্ড দিয়েছেন দেশটির এক আদালত। তাঁর বিরুদ্ধে করোনাসংক্রান্ত বিধিনিষেধ ভঙ্গ ও অভ্যুত্থানকারী সামরিক সরকারের বিরুদ্ধে উসকানি দেওয়ার অভিযোগ আনা হয় এই দুই মামলায়। রাষ্ট্রীয় গোপনীয়তা আইন ভঙ্গসহ তাঁর বিরুদ্ধে আরও ৯টি মামলা করেছে জান্তা। সব কটিতে দোষী সাব্যস্ত হলে ১০০ বছরের বেশি কারাদণ্ড হতে পারে তাঁর।

চলতি বছরের ১ ফেব্রুয়ারি রক্তপাতহীন অভ্যুত্থানের মাধ্যমে সু চি সরকারকে উৎখাত করে সেনাবাহিনী। পরে তাঁর বিরুদ্ধে বিগত নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ আনে জান্তা। গ্রেপ্তার করা হয় তাঁকে ও তাঁর দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসির (এনএলডি) শীর্ষ নেতাদের। সেনা হেফাজতে নেওয়ার চার মাস পর গত জুনে তাঁর বিচার শুরু হয়।

সু চির বিরুদ্ধে করা এসব মামলার সমালোচনা করেছেন দেশি-বিদেশি মানবাধিকারকর্মীরা। তিনিও সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। ফেব্রুয়ারিতে গ্রেপ্তার হওয়ার পর থেকেই অজ্ঞাত স্থানে বন্দী হয়ে আছেন তিনি। এখন কারাদণ্ডাদেশ পাওয়ার পর তাঁকে ঠিক কখন বা আদৌ কারাগারে পাঠানো হবে কি না, তা পরিষ্কার নয়।

সু চির এ রায় নিয়ে বার্তা সংস্থা এএফপির সঙ্গে কথা বলেছেন জান্তা সরকারের মুখপাত্র জ মিন তুন। তিনি বলেন, সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে ভিন্নমতাবলম্বীদের উসকে দেওয়া ও করোনাবিধি ভঙ্গ করায় সু চিকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে। তাঁকে দুই বছর করে মোট চার বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। একই অভিযোগে তাঁর ঘনিষ্ঠ সহযোগী হিসেবে পরিচিত ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্ট উইন মিন্টকেও চার বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। দুজনের কাউকে এখনই কারাগারে নেওয়া হবে না বলে জানিয়েছেন মিন তুন।

বলেছেন, রাজধানী নেপিডোর যেখানে তাঁরা এখন আছেন, আপাতত সেখানে রেখেই অপর মামলাগুলোর বিচারকাজ শুরু হবে। সু চি ও উইন মিন্টকে কোথায় রাখা হয়েছে, সে বিষয়ে তথ্য জানাননি তুন। অবৈধভাবে ওয়াকিটকি রাখার অভিযোগে করা মামলায় ১৪ ডিসেম্বর তাঁর বিচার শুরু হবে।

রায় হওয়া দুই মামলায় নেপিডোর বিশেষ সেনা আদালতে সু চির বিচারকাজ চলে। সেখানে সাংবাদিকদের প্রবেশের অনুমতি নেই। এমনকি সু চির আইনজীবীরাও সংবাদমাধ্যমে কথা বলতে পারেননি। রায় ঘোষণার সময় দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি সামাল দিতে বেশ কিছু পদক্ষেপ নেয় জান্তা সরকার। এর একটি রাজধানীর ইন্টারনেট সেবা বিচ্ছিন্ন করা। এর মাধ্যমে দেশটির সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম নিয়ন্ত্রণে নেয় তারা।


আরও খবর



ব্যাংকের প্রশ্ন ফাঁস আহছানউল্লাহ থেকে, গ্রেপ্তার ৫

প্রকাশিত:বুধবার ১০ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১০ নভেম্বর ২০২১ | ৮৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সম্প্রতি পাঁচটি ব্যাংকের অফিসার ক্যাশ পদে নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনায় চক্রের মূলহোতা মো. মুক্তারুজ্জামান রয়েলসহ পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। রয়েল আহছানউল্লাহ ইউনির্ভাসিটি অব সাইন্স অ্যান্ড টেকনোলজিতে আইসিটি টেকনিশিয়ান হিসেবে কর্মরত। তার মাধ্যমেই বিশ্ববিদ্যায়টিতে কর্মরত অন্যদের সহায়তায় ওই পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে বলে জানিয়েছেন ডিবির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার এ কে এম হাফিজ আক্তার।

আজ বুধবার বিকেলে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, বাংলাদেশ ব্যাংকের অধীনে পাঁচটি ব্যাংকের অফিসার ক্যাশ পদে ১৫১১টি শূন্য আসনে নিয়োগ পরীক্ষা হয় গত শনিবার। আহছানউল্লাহ ইউনির্ভাসিটির মাধ্যমে ব্যাংকার সিলেকশন কমিটি পরীক্ষাটি সম্পাদন করে।

হাফিজ আক্তার জানান, গোয়েন্দা তেজগাঁও বিভাগের জোনাল টিম তথ্য পায় পরীক্ষা শুরুর আগেরদিন রাতে প্রশ্ন ফাঁস হতে পারে। পরে ডিবির এক সদস্য ছদ্মবেশে পরীক্ষার্থী সেজে পরীক্ষার দিন সকালে প্রশ্ন ও উত্তরপত্র পেতে চক্রের সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগ করে।

চক্রের সদস্য রাইসুল ইসলাম স্বপনকে অগ্রিম টাকা দিলে পরীক্ষার্থীকে বুথে নিয়ে যান। এ সময় উত্তরপত্রসহ তাকে হাতেনাতে গ্রেপ্তার করা হয়। স্বপনের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে শনিবার সাভারের শ্রীনগর থেকে রূপালী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার জানে আলম মিলনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এরপর জানে আলমের তথ্যের ভিত্তিতে রাজধানীর দক্ষিণ বাড্ডা থেকে মো. শামসুল হক শ্যামলকে গ্রেপ্তার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে প্রশ্নপত্র ও উত্তরপত্র ফাঁস করার কথা স্বীকার করেন শ্যামল। পরে চক্রের মূল হোতা মো. মুক্তারুজ্জামান রয়েলকে বাড্ডার আলিফনগর থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। রয়েল প্রশ্ন ফাঁসের কথা স্বীকার করেছেন বলে জানিয়েছেন ডিবির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার হাফিজ আক্তার।

আসামিদের কাছ থেকে একটি ল্যাপটপ, পাঁচটি মোবাইল, চারটি প্রশ্নপত্র, চারটি উত্তরপত্র। হোয়াটসঅ্যাপে থাকা উত্তরপত্রের ছবি, একটি প্রবেশপত্রের ফটোকপি ও নগদ ছয় লাখ টাকা জব্দ করা হয়েছে।

আসামিরা জানিয়েছেন, রাজধানীর বাড্ডা, বসুন্ধরা, উত্তরা, মোহাম্মদপুর, কল্যানপুর, রূপনগর, মিরপুর, মাতুয়াইল, শেওড়াপাড়া, শেরেবাংলানগর, পল্লবী এলাকায় বুথ  স্থাপন করা হয়। এসব বুথে পরীক্ষার পাঁচ থেকে ছয় ঘণ্টা আগে পরীক্ষার্থীদের প্রশ্ন ও উত্তরপত্র মুখস্থ করানো হয়। চক্রের সদস্যদের তত্ত্বাবধানে প্রত্যেক বুথে ২০ থেকে ৩০ জন পরীক্ষার্থী উত্তর মুখস্থ করে পরীক্ষার কেন্দ্রে যান।

আসামি মুক্তারুজ্জামান ও শ্যামল কৌশলে তিনবার বিভিন্ন নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন ও উত্তর ফাঁস করেছে। তারা পরীক্ষার পাঁচ থেকে ছয় ঘণ্টা আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রায় দুই হাজার পরীক্ষার্থীদের কাছে উত্তরপত্র পৌঁছে দেন। এজন্য নিয়োগ পাওয়ার আগ পর্যন্ত বিভিন্ন ধাপে পাঁচ থেকে ১৫ লাখ টাকা পর্যন্ত আদায় করেন তারা। আসামিদের বিরুদ্ধে বাড্ডা থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।


আরও খবর