আজঃ বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১
শিরোনাম

পিরোজপুরের পৌর কমিশনার আবুয়াল শিকদার গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:সোমবার ২৪ মে ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ মে ২০২১ | ৮৭৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
আবু শিকদার ও তার ছেলে এম শিকদারের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী, একাধিক অভিযোগ রয়েছে। সম্প্রতি সদ্য পৌর নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রার্থীদের হুমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় কাউন্সিল নির্বাচিত হন

পিরোজপুর পৌরসভার কাউন্সিলর আবুয়াল শিকদার (৫০) ওরফে আবু শিকদার হামলা, সহিংসতা ও সন্ত্রাসী মামলায় গ্রেপ্তার করেছে সদর থানা পুলিশ। রবিবার রাতে অভিযান চালিয়ে তার নিজ এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর।

থানা পুলিশ সূত্র ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, তিনি একটি হামলা, সহিংসতা ও সন্ত্রাসী মামলার প্রধান আসামী। ওই মামলায় তাকে গ্রেপ্তার কার হয়েছে। এছাড়া আবু শিকদার ও তার ছেলে এম শিকদারের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী, একাধিক অভিযোগ রয়েছে। সম্প্রতি সদ্য পৌর নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রার্থীদের হুমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় কাউন্সিল নির্বাচিত হন। অভিযোগ আছে আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী এক নেতার ছত্রছায়ায় থেকে তারা একের পর এক সন্ত্রাসী কার্যকলাপ চালাচ্ছিলো। কয়েকদিন আগে কুমারখালী এলাকায় আসামী ধরতে গেলে দায়িত্বে থাকা ৩ পুলিশের এসআই সহ ৭ পুলিশ সদস্যকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগেও একটি মামলা হয়।

জানা গেছে, কাউন্সিলর আবুয়াল শিকদারের ও তার ছেলে ইমরান সিকদার ওরফে এম শিকদারের নেতৃত্বে ৮/১০ জনের একটি সন্ত্রাসী দল গত ০৩ মে জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি সোহাগ শিকদারসহ ৩ ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে আহত করে। এসময় হামলাকারীরা ৪টি মোটর সাইকেল ভাংচুর করে। ওই হামলায় আহত হন শহরের সাপ্ল্ইা মোড় এলাকার তপন চন্দ্র্র শীলের ছেলে ছাত্রলীগ নেতা কৃষ্ণ চন্দ্র্র শীল (২৫)। আর এতে আহত ছাত্রলীগ নেতার পিতা বাদী হয়ে গত ০৫ মে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। তার মামলায় কাউন্সিলর আবুয়াল শিকদারকে প্রধান আসামী করে ১০জনকে নামীয় ও আরো ৬ জনকে অজ্ঞাত করে একটি মামলা দায়ের করেন। আবুয়াল শিকদার পৌর সভার ২ নং ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও তার ছেলে এম ছাত্রদলের সক্রিয় সদস্য ছিলো।

পিরোজপুর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন বলেন, আবুয়াল শিকদার পৌর বিএনপির ২নং ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক। তবে সম্প্রতি সে বা তার ছেলে বিএনপির কোন কার্যক্রমে অংশগ্রহন করে না।

সদর থানার অফিসার ইন চার্জ (ওসি) আ.জ.ম মাসুদুজ্জামান বলেন, আবু শিকদারকে তার নিজ এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ রয়েছে। এলাকার আইন শৃংঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে তাকে গ্রেপ্তার করা অনিবার্য হয়ে উঠেছিলো।


আরও খবর



হাড়ক্ষয় হয়েছে কিনা বুঝবেন কীভাবে

প্রকাশিত:বুধবার ১৬ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১৬ জুন ২০২১ | ৮৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

অস্টিওপোরোসিস হচ্ছে ক্যালসিয়ামের ঘাটতিজনিত একটা রোগ। এ রোগ হলে হাড় দুর্বল হয়ে যায়। ফলে হাড় ভেঙে যাওয়ার ঝুঁকি অনেক বেড়ে যায়।

মূলত ভিটামিন ও ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার কম খাওয়ার ফলে এ রোগ হয়ে থাকে। এ ছাড়া বয়স বেশি হলে বংশগত কারণে, ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ডির অভাবে হাড়ক্ষয় রোগ হয়ে থাকে।  তবে এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার পরও অনেকে বুঝতে পারেন না।

এ বিষয়ে স্বাস্থ্যবিষয়ক ওয়েবসাইট ইটদিস ডটকমর এক প্রতিবেদনে যুক্তরাষ্ট্রের ইয়েল স্কুল অব মেডিসিন-এর ডা. আনিকা কে আনাম বলেন, অস্টিওপোরোসিস হচ্ছে হাড়ের অসুখ। এই রোগে হাড় দুর্বল হওয়া এবং এর গঠনগত মান কমে যাওয়ার কারণে তা ভাঙা কিংবা ফেটে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে অনেক বেশি।  ফলে সামান্য দুর্ঘটনা থেকেই হাঁড় ভেঙে যেতে পারে।  রোগের মাত্রা যখন তীব্র হয়, তখন সামান্য হাঁচি দেওয়ার কারণেও রোগীর বুকের হাড় ভেঙে যেতে পারে।  আবার দাঁড়ানো অবস্থা থেকে পড়ে গিয়েও হাড় ভেঙে যেতে পারে।

বেশিরভাগ রোগী প্রথমবার হাড় ফেটে না যাওয়া পর্যন্ত কোনো লক্ষণই টের পান না।  আর এই রোগে সাধারণত মেরুদণ্ড, নিতম্ব ও হাতের কব্জির হাড়ে সবচাইতে বেশি ফাটল দেখা দেয়।  তাই শরীরের এই অংশগুলোতে বোন মিনারেল ডেনসিটি টেস্ট করার মাধ্যমে হাড়ক্ষয় হয়েছে কিনা তা জানা যাবে।

ডা. আনিকা কে. আনাম জনান, বোন মিনারেল ডেনসিটি টেস্ট পরীক্ষায় সময় কম লাগে, এটি ব্যথাহীন ও নিরাপদ।  এ পরীক্ষায় হাড়ের ঘনত্ব কম কিনা তা পরীক্ষা করা হয়। এ ছাড়া অন্য কোনো কারণে হাড়ের ক্ষয় হচ্ছে কিনা তা জানার জন্য রক্ত ও মূত্র পরীক্ষা করা হয়।

এ রোগ হওয়ার কারণসমূহ

ডা. আনাম এ রোগের প্রধান কারণ হিসেবে দ্বায়ী করেন বয়স বেশি হওয়া, বংশগত কারণ, ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ডি এর অভাব, ধূমপান ও মদ্যপান বেশি করা ইত্যাদি।

তিনি আরও বলেন, এগুলো বাদে যকৃতের রোগ, রিউমাটয়েড আথ্রাইটিস, ইনফ্লামাটরি বাওয়েল ডিজিজ, দীর্ঘদিন স্টেরয়েড ব্যবহার ইত্যাদিও হাড়ের ক্ষয়রোগের কারণ হতে পারে।  আবার হাইপারথাইরয়েডিজম, অ্যানোরেক্সিয়া নারভোসা, বৃক্কের সমস্যা ইত্যাদি রোগে আক্রান্ত রোগীদেরও অস্টিওপোরোসিস হবার ঝুঁকি থাকে

তবে সব সম্ভাব্য কারণের মধ্যে সবচেয়ে ভয়ানক বিষয়টি হলো ইস্ট্রোজেন হরমোনের অভাব।  এটি নারীদের মাসিক বন্ধ হওয়ার পর হওয়াটাই স্বাভাবিক। তাই নারীদের এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

এ রোগ সম্পর্কে পরিসংখ্যান করে দেখা যায়, ৫০ বা তার বেশি বয়সের প্রতি তিনজন নারীর মধ্যে একজনের এই রোগে হাড় ফেটে থাকে।

এ রোগ প্রতিরোধে করণীয়

এ রোগ প্রতিরোধ করার বিষয়ে ডা. আনাম বলেন, হাড়ক্ষয় রোগ থেকে সুরক্ষিত থাকতে হলে হাড়ের সুস্বাস্থ্য বজায় রাখার বিকল্প নেই। এ জন্য শরীরে পর্যাপ্ত ক্যালসিয়াম, ভিটামিন ডি ও প্রোটিন সরবরাহ করাতে হবে। এবং খেতে হবে প্রচুর পরিমাণে ফল ও সবজি।

দুধ ক্যালসিয়ামের আদর্শ উৎস। তবে এটি ছাড়াও আরও অনেক খাবার থেকে ক্যালসিয়ামের চাহিদা জোগানো যেতে পারে। শরীরচর্চার গুরুত্বকেও অবহেলা করা যাবে না। নিয়মিত ভারোত্তোলন ও শক্তিবর্ধক ব্যায়াম করা ভালো। বাদ দিতে হবে ধূমপান ও মদ্যপান।

নিউজ ট্যাগ: হাড়ক্ষয়

আরও খবর
করোনায় আরও ৭৬ জনের মৃত্যু

মঙ্গলবার ২২ জুন ২০২১




পাবজি খেলতে না পেরে ইন্টারনেটের তার কাটতে গিয়ে ছাত্রের মৃত্যু

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৮ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৮ জুন ২০২১ | ১৮০জন দেখেছেন
Image

শেরপুর(বগুড়া) থেকে আবু বকর সিদ্দিক

বগুড়ার শেরপুরের আওলাকান্দি গ্রামে পাপজি গেমস খেলতে না পারায় ক্ষুব্ধ হয়ে ইন্টারনেটের তার কাটতে গিয়ে পল্লী বিদ্যুতের তারে সাথে আটকে মঙ্গলবার সকালে স্কুল ছাত্র রকি হোসেন (১৫) ঘটনাস্থলে মারা যায়।

জানা যায়, উপজেলার সুঘাট ইউনিয়নের আওলাকান্দি গ্রামের মো. মাহবুবের ছেলে ফুলজোড় উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র রকিসহ কয়েকজন পাপজি গেমস খেলার জন্য ইন্টারনেট সংযোগ নেয় একই গ্রামের আবু বকর বাড়িতে। ওই বাড়ি থেকে ইন্টারনেটের রাউটার চুরি হয়ে যায়।

পরে ওই বাড়ির মালিক সংযোটি খুলে নেওয়ার কথা বলে নেট ব্যবসায়িকে। এ কথা শুনে রকি ক্ষুব্ধ হয়ে মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে পল্লী বিদ্যুতের খুঁটির সাথে লাগানো ইন্টারনেট সংযোগ কাটতে গিয়ে বিদ্যুতের তারের সাথে আটকে গিয়ে ঘটনাস্থলেই সে মারা যায়।

নিউজ ট্যাগ: বগুড়া মৃত্যু

আরও খবর



দেশে অনুমোদন পেলো ফাইজারের টিকা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৭ মে ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৭ মে ২০২১ | ১১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
মূল্যায়ণপূর্বক কোভিড-১৯ চিকিৎসার জন্য পাবলিক হেলথ ইমারজেন্সির ক্ষেত্রে ওষুধ, ইনভেস্টিগেশনাল ড্রাগ, ভ্যাক্সিন এবং মেডিকেল ডিভাইস মূল্যায়নের নিমিত্তে গঠিত কমিটির মতামতের জন্য ২৫ মে উপস্থাপন করে

দেশে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে ফাইজারের টিকা জরুরি ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর। করোনা প্রতিরোধে এখন পর্যন্ত দেশে জরুরি ব্যবহারে চারটি টিকা অনুমোদন পেলো।

বৃহস্পতিবার (২৭ মে) ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. মাহবুবুর রহমানের স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ফাইজারের এই টিকা অনুমোদন প্রদানের জন্য ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর গত ২৪ মে আবেদন করে জনস্বাস্থ্য-২ অধিশাখা। ঔষধ প্রশাসন অধিদফতর ভ্যাকসিনটির ডোসিয়ার (ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল পার্ট, সিএমসি পার্ট এবং রেগুলেটরি স্ট্যাটাস) মূল্যায়ণপূর্বক কোভিড-১৯ চিকিৎসার জন্য পাবলিক হেলথ ইমারজেন্সির ক্ষেত্রে ওষুধ, ইনভেস্টিগেশনাল ড্রাগ, ভ্যাক্সিন এবং মেডিকেল ডিভাইস মূল্যায়নের নিমিত্তে গঠিত কমিটির মতামতের জন্য ২৫ মে উপস্থাপন করে। উক্ত কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর বৃহস্পতিবার (২৭ মে) এই টিকা জরুরি ব্যবহারের অনুমোদন প্রদান করেছে।

এতে বলা হয়, বাংলাদেশে টিকাটির লোকাল লিগ্যাল অর্গানাইজেশন হচ্ছে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়। ভ্যাকসিনটি ইউএসএফডিএ (USFDA) কর্তৃক গত বছরের ১১ ডিসেম্বর, ইউকেএমএইচআরএ (UKMHRA) কর্তৃক গত বছরের ২ ডিসেম্বর এবং ইএমএ (EMA) কর্তৃক গত বছরের ২১ ডিসেম্বর জরুরি ব্যবহারের জন্য অনুমোদনপ্রাপ্ত হয়। এছাড়াও টিকাটি গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার জরুরি ব্যবহার তালিকায় স্থান পেয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, ফাইজারের টিকাটি ১২ বছর এবং তার বেশি বয়সী ব্যক্তির ব্যবহারের জন্য । দেশে এটি সরকারের ডিপ্লয়মেন্ট প্ল্যান অনুযায়ী নির্ধারিত বয়সের ব্যক্তিদের মধ্যে প্রদান করা হবে। টিকাটি দুই ডোজের। প্রথম ডোজের ৩ থেকে ৪ সপ্তাহ পর দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হবে। এর সংরক্ষণ তাপমাত্রা মাইনাস ৯০ ডিগ্রি থেকে মাইনাস ৬০ ডিগ্রি। তবে টিকাটি ৫ দিন ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় এবং ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় ২ ঘণ্টা স্ট্যাবল থাকবে।


আরও খবর
করোনায় আরও ৭৬ জনের মৃত্যু

মঙ্গলবার ২২ জুন ২০২১




মা-বাবা-বোনকে হত্যা : মেহজাবিন চার দিনের রিমান্ডে

প্রকাশিত:রবিবার ২০ জুন ২০21 | হালনাগাদ:রবিবার ২০ জুন ২০21 | ৮৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাজধানীর কদমতলীতে একই পরিবারের মা, বাবা ও বোনকে হত্যার ঘটনায় করা মামলায় মেহজাবিন ইসলাম মুনের চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

রবিবার (২০ জুন) তাকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে পুলিশ। এরপর হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় করা মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য তাকে সাত দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কদমতলী থানার পরিদর্শক জাকির হোসেন। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম দেবব্রত বিশ্বাস তার চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে রাজধানীর কদমতলীতে একই পরিবারের মা, বাবা ও বোনকে হত্যার ঘটনায় মেহজাবিন ইসলাম মুন ও তার স্বামী শফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।

রবিবার (২০ জুন) দুপুরে মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেন কদমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জামাল উদ্দিন মীর।

তিনি বলেন, নিহত মাসুদ রানার বড় ভাই এবং আটক মেহজাবিন ইসলাম মুনের বড় চাচা সাখাওয়াত হোসেন বাদী হয়ে মেহজাবিন ইসলাম মুন ও তার স্বামী শফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।

কদমতলী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবুল কালাম আজাদ জানান, নিহতের বড় মেয়ে মেহজাবিন সকালে ৯৯৯-এ ফোন দিয়ে বলেন, মা-বাবা ও ছোট বোনকে হত্যা করেছি। আপনারা আসেন। এসে আমাকে ধরে নিয়ে যান।

সূত্রে জানা যায়, দুদিন আগে স্বামী ও সন্তানকে নিয়ে মায়ের বাড়িতে বেড়াতে আসেন মেহজাবিন। এসেই তার ছোট বোন জান্নাতুলের সঙ্গে তার স্বামীর পরকীয়া রয়েছে বলে বাবা-মাকে অভিযোগ করেন। এ নিয়ে কথাকাটাকাটি হয়। তার জেরেই হয়তো তিনি এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছেন।


আরও খবর



৫৩ দিন পর ফিরোজায় ফিরলেন খালেদা

প্রকাশিত:শনিবার ১৯ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৯ জুন ২০২১ | ৯৬জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে ৫৩ দিন চিকিৎসা শেষে গুলশানে নিজের বাসা ফিরোজায় ফিরলেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। শনিবার (১৯ জুন) রাত ৮টা ৩৫ মিনিটে সিলভার রঙের গাড়িতে গুলশানের বাসভবন ফিরোজায় আসেন তিনি। এসময় তার সঙ্গে কাজের সহকারী ফাতেমাও ছিলেন।

এর আগে রাত সোয়া ৮টার দিকে হাসপাতাল থেকে গাড়িতে করে তিনি বাসার উদ্দেশে রওনা হন। খালেদা জিয়ার বাসভবনে ফেরাকে কেন্দ্র করে বাসার আশেপাশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তৎপর রয়েছে। বিভিন্ন সংস্থার লোকজনকেও দেখা গেছে।

বিএনপি সূত্রে জানা গেছে, দলের নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দেওয়া ছিল, যেন কেউ ফিরোজার সামনে ভিড় না করেন। এ কারণে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ছাড়া কয়েকজন নেতা উপস্থিত ছিলেন।

খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসক ডা. মোহাম্মদ আল মামুন বলেন, শারীরিক অবস্থার উন্নতি হওয়ায় মেডিকেল বোর্ড হাসপাতাল থেকে ম্যাডামকে (খালেদা জিয়া) ছেড়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তিনি বিকালে হাসপাতাল থেকে গুলশানের বাসায় গেছেন।

মামুন বলেন, খালেদা জিয়ার জন্য গঠিত মেডিকেল টিমই তাকে তার বাসায় চিকিৎসা দিবে। গত ১১ এপ্রিল ৭৬ বছর বয়সী এই বিএনপি প্রধানের করোনা শনাক্ত হয়। এরপর ২৭ এপ্রিল তাকে এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে ভর্তির একদিন পর ২৮ এপ্রিল অধ্যাপক শাহাবুদ্দিন তালুকদারের নেতৃত্বে ১০ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়।

গত ১১ এপ্রিল খালেদা জিয়ার করোনার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। শুরুতে গুলশানের বাসভবন ফিরোজার দ্বিতীয় তলায় একটি রুমে চিকিৎসা চলছিল বিএনপি নেত্রীর। গত ১৫ এপ্রিল এভারকেয়ার হাসপাতালে সিটি স্ক্যান করানো হয় খালেদা জিয়ার। এরপর ফিরিয়ে আনা হয় গুলশানের বাসভবনে। অবস্থার অবনতি হলে ২৭ এপ্রিল একই হাসপাতালে ভর্তি করা হয় বিএনপি-প্রধানকে।

আক্রান্তের ২৭ দিন পর ৪ মে পরীক্ষায় করোনা নেগেটিভ হন। কিন্তু করোনা পরবর্তী জটিলতা ও অন্যান্য শারিরীক অসুস্থতার কারণে তিনি হাসপাতালে থেকে চিকিৎসা নিয়েছেন। সিসিইউতে থাকা অবস্থায় গত ২৮ মে হঠাৎ জ্বরে আক্রান্ত হন খালেদা জিয়া। গত ৩ জুন চিকিৎসকদের পরামর্শে তাকে কেবিন ফিরিয়ে আনা হয়।

উন্নত চিকিৎসার জন্য সরকারের কাছে গত ৬ মে খালেদা জিয়ার পরিবার তাকে বিদেশে নেয়ার অনুমতি চেয়ে আবেদন করে। কিন্তু সরকার তা নাকচ করে দেয়।

৭৬ বছর বয়সী খালেদা জিয়ার বাতজ্বর, হাঁটুর ব্যাথা, চোখের সমস্যা, ডায়াবেটিসসহ নানা শারীরিক জটিলতা রয়েছে।

গত বছর ২৫ মার্চ করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের মধ্যে এক নির্বাহী আদেশে খালেদা জিয়াকে ছয় মাসের জন্য কারাগার থেকে মুক্তি দেয়া হয়।


আরও খবর