আজঃ বৃহস্পতিবার ২৫ এপ্রিল ২০২৪
শিরোনাম
ভোগান্তিতে সেবাপ্রার্থীরা

পিয়নরা সময়মতো আসলেও কর্মকর্তারা আসেন না

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৭ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৭ মার্চ ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
রেদওয়ানুল হক মিলন, ঠাকুরগাঁও

Image

সকাল ৯টা বেজে ১৩ মিনিট সদর উপজেলার অধিকাংশ অফিসে তালাবদ্ধ। একটু পরেই চারজন লোক এসে অফিস খোলেন। তিনি নিজেকে অফিস সহকারী হিসেবে পরিচয় দিয়ে বলেন একটু দেরি হয়ে গেছে। অফিসের আর কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারী তখনও আসেননি। ৯টা বেজে ১৫ মিনিটে সমাজ সেবা অফিসের দরজায়ও তালা দেখা যায়। বেশিরভাগ কর্মকর্তা-কর্মচারী সকাল ৯টার মধ্যে কর্মক্ষেত্রে উপস্থিত হচ্ছেন না। এতে ভোগান্তিতে পড়ছেন সেবাপ্রার্থীরা।

সময়মতো অফিসে উপস্থিত থাকার জন্য মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ গত মাসে জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেয়। শীর্ষ পর্যায় থেকে দেওয়া এ নির্দেশনা কতটা পালন হচ্ছে, তা জানতে গত রবি-সোম-মঙ্গলবার সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত উপজেলার দপ্তরগুলোতে সরেজমিনে গিয়ে এ তথ্য জানা গেছে।

সরকার ঘোষিত সময় সকাল ৯টায় অফিসে কর্মকর্তা ও কর্মচারিদের উপস্থিত হতে বলা হলেও বাস্তবে অনেক কর্মকর্তা ও কর্মচারিকে নির্ধারিত সময়ে অফিসে পাওয়া যায়নি। উপজেলা সমাজসেবা অফিসারের কার্যালয়ে মঙ্গলবার (১৪ মার্চ) সকাল ৯ টায় ২০ মিনিটেও অফিসে কর্মকর্তা শরিফুল ইসলামকে পাওয়া যায়নি। পরে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে অফিসে আসেন তিনি। এসময় তিনি বলেন, সকালে রেডিও সেন্টারে আমার একটি অনুষ্ঠান ছিলো তাই সেখানে  ছিলাম।

সকাল পৌঁনে ১০ টা। উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা মো: রেজাউল করিমকে না পেয়ে মুঠোফোন দিয়ে কল করা হলে তিনি জানান, আমি আসন্ন পৌর সভার উপ-নির্বাচনে প্রিজাইডিং অফিসারের দায়িত্বে রয়েছি। সকাল ৯ টা বেজে ৪৮ মিনিট। সদর উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা নরেশ চন্দ্র রায়কে অফিসে পাওয়া যায়নি। অফিসে কর্মরত টিএফপি এ রাখি দাস বলেন, স্যার এখনো অফিসে আসেনি। তবে কিছুক্ষণের মধ্যেই আসবেন। সকাল সাড়ে ১০টা। উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের কার্যালয়ে গেলে উপ-সহকারী প্রকৌশলী ও সহকারী প্রকৌশলী কর্মকর্তাকে না পেয়ে সহকারী প্রকৌশলী আফাজ উদ্দিনকে কল করলে তিনি বলেন, আমি বাসায় আছি। সঠিক সময়ে অফিসে পাওয়া যায়নি উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুর রহমান কেউ।

এছাড়াও অফিসে পাওয়া যায়নি উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা জসিম উদ্দিন কেউ। সহকারী পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা আব্দুর খালেকের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা জসিম উদ্দিন হয়তো কিছুক্ষণে অফিসে চলে আসবেন। আর উপজেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তা শারমিন আকতার অসুস্থতা জনিত কারণে ছুটিতে আছেন বলে জানান তার অফিস সহকারী।

সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আয়শা আক্তারের কার্যালয়ে গেলে তাকে না পেয়ে তার মুঠোফোনে একাধিকবার কল করলেও তিনি কল রিসিভ করেননি। বেলা প্রায় পৌনে ১১ টায় তার অফিসে জেলা মৎস্য কর্মকর্তা খালিদুজ্জামন এসেও তাকে পাননি। খালিদুজ্জামনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, 'আমি এসে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তাকে পাইনি। তার খোঁজ নিতে হবে। তিনি ফিলডের কাজেও বাইরে থাকতে পারেন বলে জানান তিনি। উপজেলা ই-তথ্য সেন্টার ও খোলা হয় সকাল সাড়ে ৯ টার পরে। ই-তথ্য সেন্টার রেজাউল করিম বলেন, কাল অনেক রাত পর্যন্ত কাজ করেছি তাই আজকে সেন্টার খুলতে একটু দেরি হয়েছে। এছাড়া আমরা প্রতিদিন ৯ টার মধ্যেই সেন্টার খুলি।

অন্যদিকে বেলা ১১টার পরে জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালকের কার্যালয়ে নিয়ে দেখা যায়, অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জিন্নাতারা ইয়াছমিনও অফিসে আসেননি।

দপ্তরের অফিস সহকারী স্বপন জানান, দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গত ১২ মার্চ থেকে ঢাকা এক কর্মশালায় আছেন।

সদর উপজেলা থেকে আরাজী পাহারভাঙ্গা থেকে এক বৃদ্ধা এসেছেন সমাজসেবা অধিদপ্তরে বয়ষ্ক ভাতার কাগজ ঠিক করতে। তিনি বলেন, অফিসার নাই তাই বসে আছি। তিনি আসলে কাগজগুলো জমা দিতাম।

ফয়সাল আহম্মেদের বাড়ি সদরের ভুল্লিতে তিনি সকাল ৯টায় উপজেলার সমাজসেবা কার্যালয়ে এসেছেন একটি আবেদন ফরম জমা দিতে। কিন্তু অফিসে কাউকে না পেয়ে অফিসের পাশেই একটি জায়গায় বসে অপেক্ষা করে বলেন, সকাল সকাল অফিস শুরু তাই সকালেই আসছি। কিন্তু এসে কাউকে পাইনি। সকাল সাড়ে ৯টার বেশি বেজে গেলেও এখনও কেউ নেই অফিসের পিয়ন ছাড়া। ভাবছিলাম সকাল সকাল কাজ সেরে আরেকটি কাজে যাবো। কিন্তু সেটা আর হলো না।

এসময় বিভিন্ন অফিসে সেবা নিতে আসা অনেকেই বলেন, সকালেই আসছি যাতে তাড়াতাড়ি কাজটি শেষ করা যায়। কিন্তু সকালে এসে কাউকে পাওয়া যায় না ১০টার আগে।

নিউজ ট্যাগ: ঠাকুরগাঁও

আরও খবর



ইতিকাফের সময় গোসল ফরজ হলে করণীয়

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৪ এপ্রিল ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ধর্ম ও জীবন

Image

ইতিকাফ বলা হয়, বিশেষ নিয়তে বিশেষ অবস্থায় আল্লাহ তায়ালার আনুগত্যের উদ্দেশ্যে মসজিদে অবস্থান করাকে। ইতিকাফরত অবস্থায় বান্দা নিজেকে আল্লাহর ইবাদতের জন্য দুনিয়ার অন্য সব কিছু থেকে আলাদা করে নেয়। ঐকান্তিকভাবে মশগুল হয়ে পড়ে আল্লাহর নৈকট্য অর্জনের নিরন্তর সাধনায়।

ইতিকাফের মাহাত্ম্য ও তাৎপর্য ব্যাখ্যা করতে গিয়ে শাহ ওয়ালি উল্লাহ মুহাদ্দিসে দেহলভি রহ. বলেন, মসজিদে ইতিকাফ হচ্ছে হৃদয়ের প্রশান্তি, আত্মার পবিত্রতা ও চিত্তের নিষ্কলুষতা; চিন্তার পরিচ্ছন্নতা ও বিশুদ্ধতা।

পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তায়ালা বলেছেন, আমি ইবরাহিম ও ইসমাইলকে আদেশ করলাম, তোমরা আমার গৃহকে তাওয়াফকারী, ইতিকাফকারী ও রুকু-সিজদাকারীদের জন্য পবিত্র করো। (সূরা বাকারা, আয়াত : ১২৫)

মদিনায় অবস্থানকালে রাসূলুল্লাহ সা. প্রতিবছরই ইতিকাফ পালন করেছেন। শত ব্যস্ততা সত্ত্বেও রমজানে তিনি ইতিকাফ ছাড়েননি। আবু হুরায়রা রা. থেকে বর্ণিত, রাসূল সা. প্রতি রমজানে ১০ দিন ইতিকাফ করতেন, তবে যে বছর তিনি ইন্তেকাল করেন, সে বছর তিনি ২০ দিন ইতিকাফে কাটান। (বুখারি, হাদিস : ১৯০৩)

ইতিকাফের সময় দুনিয়াবি সব কাজ থেকে নিজেকে বিরত রাখতে হয়। এ সময় প্রয়োজন ছাড়া মসজিদ থেকে বের হলে ইতিকাফ ভেঙে যাবে। তবে কারো যদি স্বপ্ন দোষের কারণে গোসল ফরজ হয় তাহলে তার করণীয় বিষয়ে ইসলামি আইন ও ফেকাহশাস্ত্রবিদদের মতামত হলো

ইতিকাফের সময় কারো গোসল ফরজ হলে এমন ব্যক্তি তাৎক্ষণিক তায়াম্মুম করে মসজিদ থেকে বের হয়ে গোসল করে নেবেন। আর যদি তায়াম্মুম করার মত কোনো কিছু না পায় তাহলে দ্রুত মসজিদ থেকে বের হয়ে গোসল করে আসবে। মসজিদের বাইরে গোসল ছাড়া অন্য কোনো কাজ বা বিষয়ে সামান্য সময়ও ব্যয় করা যাবে না। (রদ্দুল মুহতার ১/৪১০;)

নিউজ ট্যাগ: ইতিকাফ

আরও খবর
কুরবানি ঈদ কবে, জানাল আরব আমিরাত

মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪

শুক্রবারের বিশেষ ৪ আমল

শুক্রবার ১২ এপ্রিল ২০২৪




বাংলাদেশি শ্রমিকরা মালয়েশিয়ায় শোষণের শিকার: জাতিসংঘ

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৯ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৯ এপ্রিল ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি অভিবাসীদের অবস্থা নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘের বিশেষজ্ঞরা। এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে সংস্থাটি বলেছে, কর্মসংস্থানের আশায় সরকারি নিয়ম মেনে দেশটিতে গিয়ে চরম দুরবস্থায় পড়তে হয় অনেক বাংলাদেশি অভিবাসীকে।

জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয় বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিগত কয়েক মাস ধরেই দেশটিতে বাংলাদেশি অভিবাসীরা অসম্মানজনক অবস্থায় বাস করছেন।

এসব শ্রমিকদের ওপর যেন কোন শোষণ, অন্যান্য মানবাধিকার লঙ্ঘন না করা হয় সেজন্যে জরুরি পদক্ষেপ নেওয়ার প্রতি জোর দেওয়া হয়েছে ওই বিজ্ঞপ্তিতে।

এতে আরো উল্লেখ করা হয়েছে, বেশিরভাগ অভিবাসী মালয়েশিয়ায় পৌঁছে দেখেন যে তাদের প্রতিশ্রুত অনুযায়ী কর্মসংস্থান নেই। এমন অবস্থায় প্রায়শই তাদের ভিসা শেষ করতে বাধ্য করা হয়। ফলস্বরূপ এ অভিবাসীরা গ্রেফতার, আটক, দুর্ব্যবহার এবং নির্বাসনের ঝুঁকিতে রয়েছে। এমন পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে ব্যবস্থা নিতে জাতিসংঘের বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দিয়েছেন।

একই সঙ্গে মালয়েশিয়া ও বাংলাদেশের অপরাধ নেটওয়ার্ক দ্বারা অভিবাসী শ্রমিকদের প্রতারণামূলক নিয়োগের মাধ্যমে প্রচুর অর্থ উপার্জন অভিযোগ গুরুত্বের সঙ্গে তদন্তের আহবান করেছে। যদি এতে কোনো সরকারি কর্মকর্তা জড়িত থাকে তাদের শাস্তির আওতায় আনা হোক।


আরও খবর



ইউনেস্কোর ‘ট্রি অব পিস’ পুরস্কার পাননি ড. ইউনূস : শিক্ষামন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ২৭ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৭ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

Image

শান্তিতে নোবেল বিজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূস ইউনেস্কোর ট্রি অব পিস পুরস্কার পেয়েছেন বলে যে তথ্য প্রচারিত হয়েছে তা সঠিক নয় বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী।

শিক্ষামন্ত্রী বলেছেন, ইসরায়েলি একজন ভাস্করের দেওয়া পুরস্কার ড. মুহাম্মদ ইউনূস প্রতারণামূলকভাবে ইউনেস্কোর পুরস্কার বলে প্রচার চালিয়েছেন।

বুধবার (২৭ মার্চ) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

গত ২১ মার্চ ইউনূস সেন্টারের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, আজারবাইজানের বাকুতে ১৪-১৬ মার্চ অনুষ্ঠিত একাদশ বিশ্ব বাকু ফোরামের শেষ দিনে ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে দ্য ট্রি অব পিস পুরস্কারে ভূষিত করে জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতিবিষয়ক সংস্থা ইউনেস্কো।

এদিকে শ্রম আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে করা মামলায় চলতি বছরের ১ জানুয়ারি ড. মুহাম্মদ ইউনূসসহ চারজনের বিরুদ্ধে রায় ঘোষণা করেন ঢাকার শ্রম আদালত-৩ এর বিচারক শেখ মেরিনা সুলতানা।

রায়ে তাদের শ্রম আইনের ৩০৩ (ঙ) ধারায় সর্বোচ্চ ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে ১০ দিনের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। অপরদিকে ৩০৭ ধারায় ২৫ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে ১৫ দিনের কারাদণ্ড দেন আদালত।


আরও খবর



ফখরুলের কাছে ৬০ লাখ কারাবন্দির তালিকা চাইলেন কাদের

প্রকাশিত:সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, কারাবন্দি থাকা নেতা-কর্মীর সংখ্যা নিয়ে বিএনপি মিথ্যাচার করছে। একটা সময় তারা বলেছে ২০ হাজার, এখন সেটা ৬০ লাখ হলো কীভাবে? ৬০ লাখ বন্দির তালিকা অবিলম্বে প্রকাশ করুক। না হয় মিথ্যাচারের জন্য জাতির কাছে মির্জা ফখরুলকে ক্ষমা চাইতে হবে।

সোমবার (১৫ এপ্রিল) ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, তাদের জেলে থাকা ৬০ লাখ লোকের তালিকা দিতে হবে। এই তালিকা আমরা দেখতে চাই।

তিনি আরও বলেন, স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সরকারের শপথ দিবস, সেই দিনটিকে তারা অস্বীকার করে। ১০ এপ্রিল প্রথম স্বাধীন বাংলাদেশের সরকার গঠন হয় সেটা অস্বীকার করে। স্বাধিকার আন্দোলনের মাইলফলক ৭ জুন অস্বীকার করে। বিএনপির কাছ থেকে বাঙালি সংস্কৃতির চেতনা নিয়ে ইতিবাচক রাজনীতি করবে এটা আমি বিশ্বাস করি না।

ওবায়দুল কাদের বলেন, স্বাধীনতার চেতনাকে ধ্বংস করার জন্য বিএনপির জন্ম। বিএনপি বাংলাদেশের অস্তিত্বের মূলে আঘাত করতে চায়। দেশের প্রতি তাদের কোনো ভালোবাসা নেই। ৭১-এ তাদের যে ভূমিকা, হঠাৎ করে বাঁশিতে ফুঁ দিলেন অমনিই তিনি ঘোষক হয়ে গেলেন। ২৪ বছরের যে আন্দোলন এসবের কোনো দাম নেই?


আরও খবর



তুরস্কে স্থানীয় নির্বাচনে এরদোগান বিরোধীদের জয়

প্রকাশিত:সোমবার ০১ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ০১ এপ্রিল ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

তুরস্কের স্থানীয় নির্বাচনে প্রধান নগরীগুলোতে বড় জয় পাওয়ার দাবি করেছেন দেশটির প্রধান বিরোধী দল সিএইচপি। ধারণা করা হচ্ছে, ইস্তাম্বুল ও রাজধানী আঙ্কারায় দুই দশকেরও বেশি সময় পর প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান এবং তার জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টির (একে পার্টি) সবচেয়ে বড় পরাজয় হতে যাচ্ছে।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়, রবিবার (৩১ মার্চ) ইস্তাম্বুলে স্থানীয় নির্বাচনে ৯৫ শতাংশ ভোট পড়েছে।

শহরটির মেয়র সিএইচপি পার্টির একরেম ইমামোগলু জানিয়েছেন, তিনি ক্ষমতাসীন একে পার্টির প্রার্থীকে ১০ লাখের বেশি ভোটে হারিয়েছেন।

ভোটের পর এক প্রতিক্রিয়ায় সাবেক ব্যবসায়ী ইমামোগলু জানিয়েছেন, যারা জাতির বার্তা বোঝে না তারা শেষ পর্যন্ত হেরে যাবে। আজ রাতে ইস্তাম্বুলের এক কোটি ৬০ লাখ নাগরিক আমাদের প্রতিদ্বন্দ্বী এবং প্রেসিডেন্টের কাছে একটি বার্তা পাঠিয়েছে।

তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারাতেও জয় পেয়েছে সিএইচপি দলীয় মেয়র মনসুর ইয়াভাস। তুরস্কের তৃতীয় বড় শহর ইজমিরেও এগিয়ে আছে সিএইচপি।

তুরস্কের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা আনাদোলু এজেন্সির পক্ষ থেকে বলা হয়, তুরস্কের ৮১টি প্রদেশের মধ্যে ৩৬টিতেই জয় পেয়েছে সিএইচপি।

এদিকে ভোটে এগিয়ে থাকার খবর পাওয়ার পর বিরোধী সমর্থকেরা উদযাপন করতে ইস্তাম্বুলে জড়ো হয়েছিল। হাজার হাজার মানুষ মশাল জ্বালিয়ে এবং তুর্কি পতাকা নেড়ে ভোটের ফল উদযাপন করে।

স্থানীয় নির্বাচন নিয়ে প্রেসিডেন্ট প্রাসাদ থেকে দেওয়া এক ভাষণে এরদোয়ান বলেন, সারা দেশে তার দলের জনপ্রিয়তা কমেছে। এই ফল মূল্যায়ন করে ভুলগুলো সংশোধন করা হবে।’

২০১৯ সালে অনুষ্ঠিত আগের নির্বাচনে সিএইচপির ইমামোগলু হারিয়ে দিয়েছিলেন এরদোয়ান ও তার দলকে। দুই দশক পর তিনি ইস্তাম্বুলকে এরদোয়ানের হাতছাড়া করেছিলেন। এবারের পরাজয়ও এরদোয়ানের জন্য বড় আঘাত হিসেবে বিবেচিত হতে পারে।


আরও খবর