আজঃ শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪
শিরোনাম

প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকি দেওয়া সৌদি যুবদল নেতা গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:রবিবার ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

২০২৩ সালের এপ্রিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিদেশ সফরে ছিলেন। সেসময় ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের অফিসিয়াল ইমেইল [email protected][email protected] নামের আইডি থেকে ইংরেজিতে একটি হুমকি বার্তা সম্বলিত ইমেইল আসে।

হুমকি বার্তায় বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ২৭ এপ্রিল ভোর ৪টায় গুলি করা হবে। তাৎক্ষণিকভাবে বিষয়টি ডিএমপি ও পুলিশ সদর দপ্তরের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে জানানো হয়। ফলে বিদেশ সফরকালেই প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা বাড়ানো হয়।

এ ঘটনা সৌদি আরবে অবস্থানরত বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূত ও সাবেক আইজিপি জাবেদ পাটোয়ারীর মাধ্যমে সৌদি সরকার এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে অবগত করা হয়। এরপর চলতি বছরের ২৯ জানুয়ারি দুজনকে শনাক্ত করে বাংলাদেশে পাঠানো হলে তাদের গ্রেপ্তার করে সিটিটিসি।

গ্রেপ্তাররা হলেন, সৌদি যুবদলের সভাপতি কবির হোসেন ও সহযোগী দীন ইসলাম।

সিটিটিসি বলছে, রাষ্ট্রীয় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির পাঁয়তারার অংশ হিসেবে খোদ প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছিল।

সিটিটিসি প্রধান ও ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার মো. আসাদুজ্জামান রবিবার (০৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান।

সিটিটিসি জানায়, ইমেইলের সাবজেক্ট লাইনে লেখা ছিল- Prime Minister Sheikh Hasina will be shot at 4 am on April 27. Bangladesh police do not have the power to prevent this attack (২৭ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ভোর ৪টায় গুলি করা হবে। বাংলাদেশ পুলিশের ক্ষমতা নেই এই হামলা ঠেকানোর)। ইমেইলের বডিতেও একই হুমকি বার্তা লেখা ছিল।

সিটিটিসি প্রধান বলেন, বিষয়টি অবহিত হওয়ার পর তাৎক্ষণিকভাবে হুমকি বার্তার ভয়াবহতা, জাতীয় নিরাপত্তা ও শান্তি-শৃংখলার স্বার্থে বিষয়টি নিয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করা হয়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকি বার্তামূলক ইমেইল প্রেরণকারীকে দ্রুত শনাক্ত করে আইনের আওতায় নিয়ে আসার জন্য সিটিটিসি সাইবার ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন ডিভিশনকে নির্দেশনা প্রদান করা হয়।

গোপনীয় অনুসন্ধান এবং প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণ শেষে ইমেইল বার্তা পাঠানো ব্যক্তিকে শনাক্ত করতে সক্ষম হয় সিটিটিসি। হুমকি বার্তা পাঠানো ব্যক্তির নাম দীন ইসলাম বাদল বলে নিশ্চিত হয় পুলিশ। হুমকি বার্তা প্রদানকারীর ইন্টারনেট (IP) অ্যাকটিভিটি পর্যালোচনা করে তার অবস্থান সৌদি আরব বলে তদন্তে নিশ্চিত হয় তদন্ত টিম।

এ ঘটনায় গত বছর ২০২৩ এর ২০ এপ্রিল ডিএমপি মিডিয়া পাবলিক রিলেশন সেন্টারের ইমেইলে প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকিদাতাসহ অজ্ঞাতনামা সহযোগীদের বিরুদ্ধে রমনা মডেল থানায় মামলা করে সিটিটিসি। যার মামলা নং ১৫।


আরও খবর



পিপিপির সঙ্গে জোট করবেন ইমরান খান!

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

পাকিস্তান পিপলস পার্টির সঙ্গে জোট গঠনের ইঙ্গিত দিয়েছেন দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বিদের সঙ্গে জোট গঠন না করার ব্যাপারে অনঢ় থাকলেও পিটিআই প্রতিষ্ঠাতা কিছুটা নরম হয়েছেন বলে জানা গেছে। পার্টির সূত্রে এমনটাই দাবি করেছে দেশটির সংবাদমাধ্যম জিও নিউজ।

গত বৃহস্পতিবার পাকিস্তানে সাধারণ পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ৬০ ঘণ্টা পর প্রকাশিত ফলে দেখা যায়, স্বতন্ত্র প্রার্থীরা পেয়েছেন ১০২টি আসন, পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) ৭৪টি এবং পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) ৫৪টি। এ ছাড়া মুত্তাহিদা কওমি মুভমেন্ট পাকিস্তান (এমকিউএম) ১৭ আসনে জয়ী হয়েছে। অন্য দলগুলো পেয়েছে ১৭টি আসন। পাকিস্তানে সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজন ১৩৪ আসন। কিন্তু কোনো দলই এই সংখ্যায় না পৌঁছানোয় এখন জোট সরকার গঠন করেন দেশটির রাজনীতিবিদরা।

সর্বোচ্চ আসন পেলেও নওয়াজ শরীফের পিএমএল-এন বা বিলাওয়াল ভুট্টর পিপিপির মতো প্রতিদ্বন্দ্বির সঙ্গে জোট না করে বিরোধী দলে থাকার পরিকল্পনা ছিল ইমরান খানের। তবে জিও নিউজ জানিয়েছে এখন পিপিপির সঙ্গে আলোচনা করে সরকার গঠনে প্রস্তুত ইমরান খান।

ওই সূত্র জানায়, ‍দুই রাজনৈতিক দলের সম্পর্ক সামনে এগিয়ে নিতে প্রস্তুত নেতারা। এ ছাড়া জমিয়াত উলেমা ই-আসলাম-ফজল, আওয়ামী ন্যাশনাল পার্টি, জামায়াতে ইসলামীসহ অন্যান্য দলগুলোর সঙ্গেও আলোচনার করতে চায় পিটিআই।

তবে পিটিআইয়ের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে পিপিপির সঙ্গে জোট গঠনের দাবি প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে। দলটির নেতা ব্যারিস্টার মুহাম্মদ আলি সাইফ বলেন, ইমরান খান এমন আলোচনায় অংশ না নেওয়ার জন্য কঠোর নির্দেশনা দিয়েছেন।

দুইদিন আগে পিপিপির কো-চেয়ারম্যান আসিফ আলি জারদারিও পিটিআইয়ের সঙ্গে আলোচনার আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন। তিনি বলেন, আমরা চাই রাজনৈতিক সংস্কার প্রক্রিয়াতে পিটিআিই যুক্ত থাকুক। প্রত্যেকটি রাজনৈতিক শক্তিকেই যুক্ত থাকা উচিত।

মঙ্গলবার তিনি বলেছিলেন, আমরা অর্থনৈতিক, সামরিকসহ অন্যান্য ইস্যুতে একসঙ্গে কাজ করতে চাই। তাহলেই পাকিস্তান ও এর জনগণে সাফল্য আসবে।


আরও খবর



তুমব্রু সীমান্তে ফের গোলাগুলি, সতর্ক বিজিবি

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম ইউনিয়নের তুমব্রু সীমান্ত এলাকা ও মিয়ানমারের ঢেকিবুনিয়া এলাকা থেকে কয়েক দফায় বিকট শব্দ শোনা গেছে। রোববার (২৫ ফেব্রুয়ারি) বিকাল ৩টা ৪০ মিনিট থেকে এ সংবাদ লেখা পর্যন্ত গোলাগুলির শব্দ পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। এর আগে শনিবার রাত সোয়া ২টা থেকে টানা শত রাউন্ড গুলির আওয়াজ শুনেছেন বলে জানিয়েছেন স্থানীয় ইউপি সদস্য দিল মোহাম্মদ ভুট্টো।

বাইশফাড়ি সীমান্তের বাসিন্দা মো. এরশাদ বলেন, দু'দিন ধরে মিয়ানমার সীমান্তে ব্যাপক গোলাগুলিতে আমরা আতঙ্কের মধ্যে আছি। সীমান্ত এলাকায় কাজকর্ম করতে ভয় লাগছে।

তবে সীমান্ত এলাকায় বিজিবি সদস্যদের সতর্ক অবস্থানে দেখা গেছে। বন্ধ হয়ে যাওয়া সাতটি স্কুল এখনও খোলেনি। পরিস্থিতি পুরো স্বাভাবিক হলে কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদনের মাধ্যমে বন্ধ স্কুলগুলো খুলে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ফরিদুল আলম হুসাইনি।

সূত্রে জানা গেছে, মিয়ানমার জান্তা বাহিনীর হাতছাড়া হওয়া আরকান আর্মি নিয়ন্ত্রিত তুমব্রু রাইট ক্যাম্প থেকে গুলি ছোড়া হলে প্রতিপক্ষ অপর বিদ্রোহীরা তাদের ওপর পাল্টা গুলি চালায়।

ঘুমধুম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আজিজ বলেন, আবরও গোলাগুলির শব্দে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে তার এলাকার হাজারও মানুষ। তবে লোকজন কাজকর্ম স্বাভাবিকভাবে চালিয়ে যাচ্ছেন।


আরও খবর



মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে তলব করছে সরকার

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

সীমান্তে মিয়ানমারের অভ্যন্তর থেকে আসা মর্টার শেলের আঘাতে বাংলাদেশে দুজনের মৃত্যুর ঘটনাসহ চলমান প‌রি‌স্থি‌তিতে দেশটির রাষ্ট্রদূত অং কিউ মোয়েকে তলব কর‌ছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। মঙ্গলবার (০৬ ফেব্রুয়ারি) মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করা হ‌চ্ছে।

কূট‌নৈ‌তিক সূত্রগু‌লো বল‌ছে, মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে ডেকে সীমা‌ন্তের ওপার থে‌কে আসা মর্টার শেলের আঘাতে দুজনের মৃত্যুর ঘটনাসহ সীমান্তের চলমান পরিস্থিতি নিয়ে বাংলাদেশ কড়া প্রতিবাদ জানাবে।

মিয়ানমারের বিদ্রোহী দল আরাকান আর্মির সঙ্গে দেশটির সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বর্ডার গার্ড পুলিশ-বিজিপি) সংঘা‌তের জে‌রে বাংলাদেশে আশ্রয় নি‌য়ে‌ছে বি‌জি‌পির ১১৩জন সদস্য।

বাংলাদেশ সীমান্তে আশ্রয় নেওয়া বিজিপি সদস্যদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমার যোগাযোগ করেছে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

এদিকে, মিয়ানমার ইস্যুতে বাংলাদেশের সশস্ত্রবাহিনী ও বিজিবিকে (বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ) ধৈর্য ধারণ করার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।


আরও খবর
শপথ নিলেন নতুন ৭ প্রতিমন্ত্রী

শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪




আবু ধাবিতে মন্দির উদ্বোধন করবেন নরেন্দ্র মোদি

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সংযুক্ত আরব আমিরাতের (ইউএই) রাজধানী আবু ধাবিতে একটি বিশাল হিন্দু মন্দির উদ্বোধন করবেন।

আবু ধাবির বিএপিএস হিন্দু মন্দিরটি সংযুক্ত আরব আমিরাত সরকার কর্তৃক দান করা ২৭ একর জায়গা জুড়ে নির্মাণ করা হয়েছে।

২০১৮ সালে মোদির সংযুক্ত আরব আমিরাত সফরের সময় এটি নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছিল ভারত সরকার।

বিশ্লেষকরা বলছেন, দুই মাসের মধ্যে ভারতে হতে যাওয়া সাধারণ নির্বাচনের আগে মোদির এই মন্দিরের উদ্বোধন বিজেপি সরকারের হিন্দু জাতীয়তাবাদী অ্যাজেন্ডা বৃদ্ধি করবে।

উত্তর ভারতীয় শহর অযোধ্যায় হিন্দু দেবতা রামের একটি বিশাল মন্দির উদ্বোধন করার কয়েক সপ্তাহ পরেই নতুন এই মন্দিরটি উদ্বোধন করা হচ্ছে।

দেবতা রামের মন্দিরটি ১৯৯২ সালে হিন্দু জনতার ভেঙে ফেলা ১৬ শতকের বাবরি মসজিদের জায়গার উপর নির্মাণ করা হয়েছে। মসজিদটি ভাঙায় দাঙ্গা শুরু হয়েছিল এবং এতে প্রায় ২ হাজার মানুষ নিহত হয়েছিল।

আবু ধাবির মন্দিরটি বিএপিএস স্বামীনারায়ণ সংস্থা দ্বারা পরিচালিত হয়। সংস্থাটি নিজেকে 'আধ্যাত্মিক, স্বেচ্ছাসেবক দ্বারা পরিচালিত সংঘ' বলে দাবি করে। এটির লক্ষ্য হল 'বিশ্বাস, সেবা এবং বৈশ্বিক সম্প্রীতির হিন্দু মূল্যবোধকে লালন করা।'

সংস্থাটির সদর দফতর নরেন্দ্র মোদির নিজ রাজ্য গুজরাটে।

আরব আমিরাতে কয়েক দশক ধরেই মন্দির থাকলেও বলা হচ্ছে, এটিই প্রথম মন্দির যেটি ঐতিহ্যবাহী কৌশল ব্যবহার করে নির্মাণ করা হয়েছে।

মন্দিরটি রাজস্থানের গোলাপি বেলেপাথর এবং সাদা ইতালীয় মার্বেল দিয়ে তৈরি করা হয়েছে। মন্দিরটি ভারতে খোদাই করে দুবাইতে এনে যুক্ত করা হয়েছে।

ভারত এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের মধ্যে ভালো সম্পর্ক রয়েছে এবং ৮৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যে যুক্ত আছে।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের সব থেকে বেশী প্রবাসী ভারতীয় এবং দেশটিতে হাজার হাজার হিন্দু বসবাস করে।

বিশ্ব নেতাদের ফোরাম ওয়ার্ল্ড গভার্নমেন্টস সামিটে অংশ নিতে নরেন্দ্র মোদি বর্তমানে সংযুক্ত আরব আমিরাতে অবস্থান করছেন।

সফরের প্রথম দিন মঙ্গলবারে (১৩ ফেব্রুয়ারি) তিনি সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাষ্ট্রপতির সাথে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন।

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, দুই দেশ একটি দ্বিপাক্ষিক বিনিয়োগ চুক্তি এবং একটি বড় অর্থনৈতিক অংশীদারিত্ব চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে।

চুক্তিগুলো দুই দেশের মধ্যে সুরক্ষা, বাণিজ্য এবং আধুনিক অবকাঠামোগত উন্নয়নে পারস্পরিক সহযোগিতা বাড়ানোর উদ্দেশ্যে করা হয়েছে।

মোদি আবু ধাবিতে ভারতীয় সম্প্রদায়ের এক সমাবেশে ভাষণ দিয়েছেন। সেখানে তিনি মন্দিরের জন্য জমি বরাদ্দ দেওয়ায় সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাষ্ট্রপতিকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।


আরও খবর



ঠাকুরগাঁওয়ে টাঙ্গন নদী ভরাট করে রিসোর্ট নির্মাণের অভিযোগ

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
রেদওয়ানুল হক, ঠাকুরগাঁও

Image

ঠাকুরগাঁওয়ের টাঙ্গন নদীর গতিপথ বন্ধ করে রিসোর্ট নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে স্থানীয় এলাকাবাসী সংসদ সদস্য, বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসকসহ কয়েকটি দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেছেন।

লিখিত অভিযোগের বিষয়ে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সদর উপজেলার মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের ফেসরাডাঙ্গী ব্রীজের নিচের অনেকটা অংশে মাটি ভরাট করে ব্যাক্তি উদ্যোগে শ্বেতপদ্ম রিসোর্ট লিমিটেড নামে একটি প্রকল্পের কাজ চলছে। যা সম্পূর্ণ জমি রিসোর্ট কর্তৃপক্ষের বলে দাবি উদ্যোক্তাদের।

রিসোর্টটি রক্ষায় অনেকটা তড়িঘড়ি করে বাঁধ নির্মাণের জন্য নিজেরাই ব্লক ও বাঁধ তৈরি করছেন। এতে নদীর স্বাভাবিক প্রবাহ বাঁধাগ্রস্থ হওয়ার পাশাপাশি বর্ষা মৌসুমে পানির চাপ বাড়লে তা উপচে আশেপাশের কৃষি জমির ফসল নষ্টের আশঙ্কা করছেন কৃষকরা।

জানা গেছে, টাঙ্গন নদীর উপড় ফেসরাডাঙ্গী ব্রীজ সংলগ্ন ৯ একর জমির উপর ১০ কোটি টাকা ব্যয়ে ব্যক্তি মালিকানা উদ্যোগের এ রিসোর্টটি নির্মাণ করা হচ্ছে। আর সে কারণে এলাকার জমি, ফসল, বসতভিটা রক্ষার দাবি জানিয়ে স্থানীয়রা গত মঙ্গলবার (৬ ফেব্রুয়ারি) সংসদ সদস্য, জেলা প্রশাসক, পানি উন্নয়ণ বোর্ড, উপজেলা প্রশাসন ও এলজিইডিসহ কয়েকটি দপ্তরে লিখিত অভিযোগ প্রদান করেন।

অন্যদিকে, প্রকল্প শুরুর আগে নদীর সীমানা মাপ যোগে জেলা প্রশাসক বরাবরে একটি আবেদন করেছিলেন রিসোর্ট কর্তৃপক্ষ। ওই আবেদনের প্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসক মাহবুবর রহমানের নির্দেশে একটি কমিটি গঠন করে পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষ। কয়েকদিন পর ওই কমিটি জেলা প্রশাসক বরাবরে একটি প্রতিবেদনও দাখিল করেন। কিন্তু কমিটির প্রতিবেদন জমা দেয়ার আগেই রিসোর্ট নির্মাণের কাজ শুরু করেন উদ্যোক্তারা।

গঠিত কমিটির প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, রিসোর্ট কর্তৃপক্ষ যেভাবে মাটি ভরাট করেছেন তাতে ফেসরাডাঙ্গী ব্রিজের বারোটি স্প্যানের মধ্যে উভয় পাশের সাতটি স্প্যানের মুখ বন্ধ হয়ে যাবে। সে ক্ষেত্রে নদীর গতিপথ পরিবর্তিত হয়ে নদীর তীরে ভাঙ্গন দেখা দেওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

স্থানীয় কৃষক গিয়াস উদ্দিন, হামিদুর রহমান, ফজির উদ্দিনসহ অনেকে জানান, নদীর উপর রিসোর্ট নির্মাণ হলে বন্যার সময় কৃষি জমি ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হবে। এলাকায় অবকাঠামোগত উন্নয়ন হবে তবে মানুষের ক্ষতি করে নয়। গরীব মানুষের ঘরবাড়ি ও কৃষি জমির কথাও ভাবতে হবে। অনেকেই নিজ জমিতে নদীর ধারেই পুর্ব-পুরুষের ভিটে মাটিতে বসবাস করছে। এমনিতেই বর্ষায় টাঙ্গন নদী ফুলে ফেপে উঠে। এমন অবস্থায় নদীর গতিপথে বাঁধা সৃষ্টি করা হলে গোটা গ্রাম নদীতে চলে যাবে। বেকার হয়ে পড়বে এলাকার কৃষক। ভিটে ছাড়া হবে কয়েক'শ পরিবার। এ অবস্থায় রিসোর্টটি নির্মাণের আগেই জেলা প্রশাসনসহ সরকারের হস্তক্ষেপ চান স্থানীয়রা।

তবে শ্বেতপদ্ম রিসোর্ট লিমিটেড'র ব্যবস্থাপনা পরিচালক মনোয়ার হোসেন কামাল এর দাবী নদী তাদের জমির উপর দিয়ে বয়ে গেছে। তারা নিজস্ব জমিতে রিসোর্ট নির্মাণ করছেন। নদীর জমি ভরাট করা হয়নি বরং তাদের জমি ভরাটের কারণে ব্রিজটি রক্ষা পাবে বলে জানান তিনি।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী গোলাম যাকারিয়া জানান, জেলা প্রশাসকের নির্দেশে একটি কমিটি গঠন করা হয়। সেই কমিটি ঘটনাস্থল খতিয়ে দেখে প্রতিবেদন দাখিল করা হয়েছে।

এ বিষয়ে ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক (ডিসি) মাহবুবর রহমান জানান, অভিযোগের বিষয়টি খতিয়ে দেখতে সংশ্লিষ্ট দপ্তরকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। দাখিলকৃত প্রতিবেদন দেখে দ্রুতই ব্যবস্থায় উদ্যোগ নেয়া হবে।


আরও খবর