আজঃ বৃহস্পতিবার ০৯ ডিসেম্বর ২০২১
শিরোনাম

প্রতিবন্ধী শিশু ধর্ষণের দায়ে খালুর যাবজ্জীবন কারাদন্ড

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০২ নভেম্বর 2০২1 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০২ নভেম্বর 2০২1 | ৫৭১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাজবাড়ীতে শারীরিক প্রতিবন্ধী শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে উজ্জ্বল গাজী নামে এক যুবককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এ ছাড়া ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ছয় মাসের কারাদণ্ড দেন আদালত।

গত সোমবার (১ নভেম্বর) বিকেলে রাজবাড়ী নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতের বিচারক শারমীন নিগার এ রায় দেন। দণ্ডপ্রাপ্ত উজ্জ্বল রাজবাড়ী সদর উপজেলার মিজানপুর ইউনিয়নের পাঁচথুপি গ্রামের মৃত আলী হোসেন গাজীর ছেলে।

বাদীর পরিবার ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, আসামি উজ্জ্বল সম্পর্কে ওই শিশুর খালু। ২০২০ সালের ১০ মার্চ তারিখে উজ্জ্বল তাদের বাড়িতে বেড়াতে যান। শিশুর মা মেয়েকে রেখে শহরে যান। বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে উজ্জল শিশুটিকে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় শিশুর মা বাদী হয়ে উজ্জ্বল গাজীর বিরুদ্ধে রাজবাড়ী সদর থানায় মামলা করেন।

রাজবাড়ী নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের পিপি অ্যাড. উমা সেন জানিয়েছেন, দীর্ঘ সাক্ষ্যপ্রমাণ শেষে আদালত এই রায় দিয়েছেন। দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হওয়ার পর থেকে কারাগারে রয়েছেন।


আরও খবর
চট্টগ্রামে পাট গুদামে ভয়াবহ আগুন

বৃহস্পতিবার ০৯ ডিসেম্বর ২০২১

আজ নেত্রকোনা ট্র্যাজেডি দিবস

বুধবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২১




আবরার হত্যা মামলার রায় ২৮ নভেম্বর

প্রকাশিত:রবিবার ১৪ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ নভেম্বর ২০২১ | ৫৭৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে রায় ঘোষণার জন্য আগামী ২৮ নভেম্বর দিন ধার্য করেছেন আদালত। রোববার (১৪ নভেম্বর) ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১-এর বিচারক আবু জাফর মো. কামরুজ্জামান এ দিন ধার্য করেন।

আজ এ মামলায় কারাগারে থাকা ২২ আসামিকে আদালতে হাজির করা হয়। মামলায় মোট ২৫ আসামির মধ্যে ২৪ জনের পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ হয়েছে। আগামী রোববার আসামি মুজাহিদুর রহমানের পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ করার নির্দেশ দেন আদালত।

গ্রেফতার হওয়া ২২ আসামি হলেন- মেহেদী হাসান রাসেল, মো. অনিক সরকার, ইফতি মোশাররফ সকাল, মো. মেহেদী হাসান রবিন, মেফতাহুল ইসলাম জিওন, মুনতাসির আলম জেমি, খন্দকার তাবাখখারুল ইসলাম তানভির, মুজাহিদুর রহমান, মুহতাসিম ফুয়াদ, মনিরুজ্জামান মনির, আকাশ হোসেন, হোসেন মোহাম্মদ তোহা, মাজেদুর রহমান, শামীম বিল্লাহ, মোয়াজ আবু হুরায়রা, এ এস এম নাজমুস সাদাত, ইসতিয়াক আহম্মেদ মুন্না, অমিত সাহা, মিজানুর রহমান ওরফে মিজান, শামসুল আরেফিন রাফাত, মোর্শেদ অমত্য ইসলাম ও এস এম মাহমুদ সেতু।

মামলার পলাতক তিন আসামি হলেন- মোর্শেদুজ্জামান জিসান, এহতেশামুল রাব্বি তানিম ও মোস্তবা রাফিদ। তাদের মধ্যে প্রথম দুজন এজাহারভুক্ত ও শেষের জন এজাহারবহির্ভূত আসামি।

গত ২৪ অক্টোবর প্রধান সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) মোশাররফ হোসেন কাজল যুক্তি উপস্থাপন শেষ করেন। তিনি ২৫ আসামির মৃত্যুদণ্ড দাবি করেছেন। এরপর আসামিপক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুরু হয়।

আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় এ পর্যন্ত মোট ৪৬ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়েছে। গত বছরের ১৫ সেপ্টেম্বর আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন আদালত। মামলার নথিতে তথ্যগত ভুল থাকায় গত ৮ সেপ্টেম্বর অভিযোগ পুনর্গঠন করেন আদালত।

২০১৯ সালের ৭ অক্টোবর বুয়েটের ইলেকট্রিক অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবরার ফাহাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে আবরারের বাবা বরকত উল্লাহ বাদী হয়ে রাজধানীর চকবাজার থানায় বুয়েট শাখার ছাত্রলীগের ১৯ জন নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় অজ্ঞাতনামা আরও অনেক জনকে আসামি করা হয়।

২০২০ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক আবু জাফর মো. কামরুজ্জামান আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। মামলায় মোট ৬০ জন সাক্ষীর মধ্যে ৪৬ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়েছে।


আরও খবর
আবরার হত্যায় ২০ আসামির মৃত্যুদণ্ড

বুধবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২১




মার্কিন নৌবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে ৯ জন ইরানি সেনা নিহত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৩ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৩ নভেম্বর ২০২১ | ৪২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পারস্য উপসাগরের জলসীমায় মার্কিন নৌবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে ৯ জন ইরানি সেনা নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে ইরানের এলিট ফোর্স হিসেবে পরিচিত রেভল্যুশনারি গার্ড কর্পস (আইআরজিসি)। 

তুর্কি গণমাধ্যম আনাদোলু এজেন্সির রবাত দিয়ে সোমবার (২২ নভেম্বর) মিডলইস্ট মনিটর জানায়, ইরানি বার্তা সংস্থা মেহর নিউজ এজেন্সিকে সে দেশের নৌবাহিনীর কমান্ডার আলিরেজা তাংসিরি পারস্য উপসাগরে মার্কিন নৌবাহিনীর সাথে তাদের সংঘর্ষ হয়েছে বলে জানিয়েছেন।

তবে কবে কখন এ সংঘর্ষ হয় তা জানাননি তিনি।

কমান্ডার তাংসিরি জানান, সংঘর্ষে আইআরজিসির ৯ জন সৈন্য নিহত হয়েছেন। তবে নিহতদের সম্পর্কে কিছু বলেননি তিনি। নৌবাহিনীর কমান্ডার ইরান ও মার্কিন নৌবাহিনীর মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়েছে বলেও উল্লেখ করেছেন। 

 


আরও খবর



‘বিশ্বে যে কোনো স্থানে শান্তি প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশ প্রস্তুত’

প্রকাশিত:শনিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২১ | ৩২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
শান্তি মানুষের সকল স্বাধীনতার মূলমন্ত্র। ৫০ বছর আগে স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু সংবিধানে শান্তির কথা বলতেই লেখা হয়েছে, ‘সকলের সঙ্গে বন্ধুত্ব কারো সঙ্গে বৈরিতা নয়’

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, বিশ্বে যে কোনো স্থানে শান্তি প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশ প্রস্তুত রয়েছে। ডাক দিলেই হাজির হয়ে যাব।

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ শনিবার (৪ ডিসেম্বর) বিকেলে হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনের উদ্বোধন অনুষ্ঠান বিশ্ব শান্তি সম্মেলনে এসব কথা বলেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, শান্তি মানুষের সকল স্বাধীনতার মূলমন্ত্র। ৫০ বছর আগে স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু সংবিধানে শান্তির কথা বলতেই লেখা হয়েছে, সকলের সঙ্গে বন্ধুত্ব কারো সঙ্গে বৈরিতা নয়। এ কারণেই বঙ্গবন্ধু থেকে তিনি বিশ্ব নেতা হয়ে উঠেছিলেন।

নতুন বিশ্বে নানান চ্যালেঞ্জ লক্ষ্য করা যাচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, কোভিড-১৯ আমাদের দুর্বলতা বের করে দিয়েছে। জলবায়ু সংকট মানব জাতিকে বিপদে ফেলছে। সবার জন্য সমান অধিকার নিশ্চিত করা গেলেই বিশ্বে শান্তি নিশ্চিত হবে।

বিশ্ব শান্তি সম্মেলন উদ্বোধনের আগে বিভিন্ন ধর্মগ্রন্থ পাঠ করা হয়। থিম সঙ্গীত, বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার এবং রোহিঙ্গাসহ নির্যাতিত মানুষের ওপর ভিডিও ক্লিপ পরিদর্শন করা হয়।

সম্মেলনের সভাপতি জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, বিশ্ব এখন বিভিন্নভাবে বিভক্ত। টিকা পেতেও এখন বিশ্ব বিভক্ত হয়ে গেছে। সামাজিক ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে দরিদ্র মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা করা দরকার। বিশ্বে মাত্র ১ শতাংশ মানুষ বিশ্বের অর্ধেক সম্পত্তির মালিক।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু সাধারণ মানুষের জন্য সামাজিক ন্যায় বিচার ও শোষণ থেকে রক্ষা করতে সংগ্রাম করে গেছেন। আমাদের সংবিধানের প্রতিটি ছত্রে ছত্রে মুজিবের এই দর্শন প্রতিফলিত হয়েছে। ১৯৭৪ সালে জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধু তার ভাষণই বিশ্ব শান্তির কথা বলেছেন।

জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব বান কি-মুন রেকর্ডকৃত বক্তব্যে বলেন, শান্তির জন্য সকলকে একত্রে কাজ করতে হবে। কোভিড-১৯ মহামারি থেকে বাচঁতে ধনী-গরিব নির্বিশেষে টিকা নিশ্চিত করতে হবে। তিনি বলেন, কেউ একা বিশ্বে নিরাপদ নয় যতক্ষণ পর্যন্ত সকলে নিরাপদ হবে না।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন তার বক্তব্যে বলেন, বঙ্গবন্ধু তার সারাজীবন শান্তি অন্বেষণ করেছেন। মানুষের জন্য শান্তির খোঁজই তাকে ক্যারিশম্যাটিক নেতা হিসেবে উপস্থাপিত করেছে।

পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন অনুষ্ঠানের শুরুর বক্তব্যে সম্মেলনের উদ্দেশ্য বর্ণনা করেন।

সম্মেলনে শান্তি রক্ষায় কাজ করা বিশ্বের বিভিন্ন দেশের কবি, সাহিত্যিক, নোবেল বিজয়ী, শিক্ষাবিদ, বিজ্ঞানী, শিল্পী, সাংবাদিক, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, রাজনীতিক, মানবাধিকারকর্মী ও বুদ্ধিজীবীরা অংশ নিচ্ছেন। এতে বিশ্বের ৫০টি দেশের প্রতিনিধিরা অংশ নেবেন। তাদের মধ্যে ৬০ জন প্রতিনিধি সশরীরে আসবেন। বাকি ৪০ জন প্রতিনিধি ভার্চুয়ালি অংশ নেবেন।


আরও খবর



পাটুরিয়া-দৌলতদিয়ায় ফেরি চলাচল শুরু

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২১ | ৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঘন কুয়াশার কারণে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া রুটে সাড়ে ৭ ঘণ্টা পর ফেরি চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে। দীর্ঘ সময় ফেরি বন্ধ থাকায় ঘাট এলাকায় প্রায় ৮ শতাধিক যানবাহন নৌপথ পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে।

বুধবার (০৮ ডিসেম্বর) সকাল সোয়া ৯টার দিকে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) আরিচা কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মো. সামাল হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এর আগে মঙ্গলবার রাত দেড়টা থেকে ফেরি চলাচল বন্ধ রাখা হয়।

মো. সালাম হোসেন বলেন, মঙ্গলবার মধ্যরাতে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুট ঘন কুয়াশায় আচ্ছন্ন হয়ে যায়। এ সময় ফেরির দিকনির্দেশনামূলক বাতির আলো অস্পষ্ট হয়ে পড়ে। এজন্য নৌরুটে দুর্ঘটনা এড়াতে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল সাময়িকভাবে বন্ধ রাখা হয়। কুয়াশা কেটে গেলে সিরিয়াল অনুযায়ী অপেক্ষামাণ যানবাহন পারাপার শুরু হয়েছে। সবশেষ পাটুরিয়া ফেরিঘাট এলাকায় বাস, ছোট গাড়ি ও পণ্যবাহী ট্রাক মিলে ৮ শতাধিক যানবাহন পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে।

 


আরও খবর



টিকিট ক্রয়ের জন্য উপচেপড়া ভিড়

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৮ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ নভেম্বর ২০২১ | ৪০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলাদেশ-পাকিস্তান সিরিজ দিয়ে দীর্ঘসময় পর স্টেডিয়ামে প্রবেশের সুযোগ পাচ্ছেন ক্রীড়াপ্রেমীরা। আজ বৃহস্পতিবার থেকে টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে। ভোর থেকেই টিকিট ক্রয়ের জন্য লাইনে অপেক্ষা শুরু করেন দর্শকরা। নারীদের লাইনের চেয়ে পুরুষদের জন্য নির্ধারিত লাইনে ভিড় বেশি দেখা গেছে।

শহীদ সোহরাওয়ার্দী ইনডোর স্টেডিয়ামে চলছে প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচের টিকিট বিক্রির কার্যক্রম। সকাল ৯টায় শুরু হয়েছে টিকিট বিক্রির কার্যক্রম। টিকিট থাকা সাপেক্ষে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত খোলা থাকবে টিকিট বুথ। শহীদ সোহরাওয়ার্দী ইনডোর স্টেডিয়ামে বিক্রয়ের পর যদি ম্যাচের দিন টিকিট পর্যাপ্ত থাকে, তাহলে স্টেডিয়াম সংলগ্ন বুথে (এক নম্বর গেট সংলগ্ন) বিক্রি করা হবে।

স্টেডিয়ামে ধারণ ক্ষমতার ৫০ শতাংশের বেশি টিকিট দেওয়া হবে না। সঙ্গে শর্ত হলো করোনাভাইরাসের ডাবল ডোজ টিকা নিয়েছেন কেবল তারাই খেলা দেখার সুযোগ পাবেন।

টিকিট পাওয়া যাচ্ছে মোট ৫ ক্যাটাগরিতে। যেখানে সর্বোচ্চ টিকিট মূল্য ধরা হয়েছে ১০০০ টাকা, সর্বনিম্ন ১০০ টাকা। গ্র্যান্ড স্ট্যান্ড ১০০০, ভিআইপি স্ট্যান্ড ৫০০, ক্লাব হাউজ ৩০০, সাউদার্ন-নর্দার্ন স্ট্যান্ড ১৫০ ও ইস্টার্ন স্ট্যান্ড গ্যালারির টিকিট মিলবে ১০০ টাকায়।

 


আরও খবর