আজঃ বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১
শিরোনাম
মহাকাশে ভেসে খাবার খাচ্ছেন চীনা নভোচারীরা কলম্বিয়াকে ২-১ গোলে হারাল ব্রাজিল স্পেনের কারাগারে ম্যাকাফি অ্যান্টিভাইরাস আবিষ্কারকের ‘আত্মহত্যা’ আগস্টে মুক্তি পাচ্ছে চলচ্চিত্র ‘চিরঞ্জীব মুজিব’ গত ২৪ ঘণ্টায় রাজশাহীতে আরও ১৮ জনের মৃত্যু ‘আ.লীগ হীরার টুকরা, যতবার কেটেছে নতুন করে জ্যোতি ছড়িয়েছে’ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার নামে মিথ্যাচারের প্রতিবাদে মানববন্ধন স্বাক্ষর জালিয়াতি ও তথ্য গোপন করায় ছাত্র ইউনিয়নের দুই শীর্ষ নেতা বহিষ্কার ইতিহাসে আওয়ামী লীগ, বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ ও শেখ হাসিনা সমার্থক হয়ে থাকবে: : মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী পরীমনির মামলায় সেই নাসির-অমি ৫ দিনের রিমান্ডে

পুলিশ সদস্যকে ঘুষি মেরে হাতকড়াসহ পালালো যুবক!

প্রকাশিত:শনিবার ০৫ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০৫ জুন ২০২১ | ১৩৬জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ফরিদপুর থেকে নাজমুল হাসান নিরব

ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা উপজেলায় মো. বরকত শেখ (২১) নামে এক যুবককে ধরে হাতকড়া লাগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলো থানা পুলিশ। হাতকড়া অবস্থায় ওই যুবক দুই পুলিশ সদস্যকে কিল-ঘুষি মেরে হ্যান্ডকাপ নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার(৪ জুন) সন্ধ্যা ৭টার দিকে আলফাডাঙ্গা উপজেলার পাঁচুড়িয়া ইউনিয়নের বেড়িরহাট বাজার সংলগ্ন ধুলজুড়ি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশের হাত থেকে হাতকড়াসহ পালিয়ে যাওয়া ওই যুবক পাঁচুড়িয়া ইউনিয়নের ধুলঝুড়ি গ্রামের বাসিন্দা ও ধুলজুড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. নিজামউদ্দিন ওরফে মঞ্জুর ছেলে। তবে এখন পর্যন্তু ওই যুবককে আটক করতে পারেনি পুলিশ। এ ঘটনায় দুই পুলিশ সদস্য আহত হয়ে আলফাডাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী এক ইউপি সদস্য জানান, বরকতের হাতে হাতকড়া অবস্থায় পুলিশ সদস্য মঞ্জুরকে ধরে রাখতে দেখতে পাই। এ সময় বরকতের বাবা ও মা ছেলেকে ছেড়ে দেওয়ার জন্য পুলিশকে অনুরোধ করেন। ঘটনার সময় লোকজন জড়ো হলে এক পর্যায়ে বরকত পুলিশের এসআই মঞ্জুর হোসেনকে কপালে ঘুষি মেরে দেয়। পুলিশ সদস্য মঞ্জুরকে ঘুষি মারা দেখে অন্য এসআই মো. জামাল উদ্দিন এগিয়ে আসলে তাঁকেও বরকত হ্যান্ডকাপ পরা হাত দিয়ে ঘুষি মারে। আমি জামালউদ্দিনকে নিয়ে স্থানীয় বেড়িরহাট বাজারের গ্রাম্য ডাক্তার মারুফ সরদারের কাছে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা করায়। কিছুক্ষণ পর শুনতে পাই হাতকড়া অবস্থায় মো. বরকত শেখ পালিয়েছে। পরে কি হয়েছে বলতে পারেনা।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে আলফাডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো.ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, পাঁচুড়িয়া ইউনিয়নের বেড়িরহাটি-ধুলজুড়ি গ্রামে দীর্ঘদিন ধরে তিনটি বিবাদমান পক্ষ মারামারি, ভাঙচুর করে আসছিলো। সেই কারণে ওই গ্রামে শুক্রবার সন্ধ্যায় বেড়িরহাট বাজার চলাকালে তিন গ্রুপের কিছু লোকজন বিভিন্ন জায়গায় জড়ো হওয়ার কথা শুনা যায়। এক পর্যায়ে বরকতের নামে ওই এলাকার একজনকে মারধর করার অভিযোগ পাওয়া যায়। এ খবর শুনে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে ওই যুবককে আটক করে হ্যান্ডকাপ পরায়। ওই সময় বরকতের লোকজন পুলিশের কাছ থেকে হ্যান্ডকাপসহ তাকে ছিনিয়ে নেয়।

নিউজ ট্যাগ: ফরিদপুর পুলিশ

আরও খবর



ভাসানচরে যেতে লাগবে সরকারের অনুমতি

প্রকাশিত:বুধবার ০২ জুন 2০২1 | হালনাগাদ:বুধবার ০২ জুন 2০২1 | ১২৬জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সরকারের অনুমতি ছাড়া ভাসানচরে যাতায়াত নিষিদ্ধ করা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

বুধবার (২ জুন) সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত কমিটির বৈঠক শেষে সংবাদ ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভাপতি ও মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

তিনি বলেন, ভাসানচর বিচ্ছিন্ন এলাকা। সেখানে প্রতিদিনই বহুসংখ্যক নৌযান যাচ্ছে, ব্যবসা-বাণিজ্য করছে। এসব আর হতে দেওয়া যাবে না। এগুলো বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কোনো নাগরিক এখন থেকে সরকারের অনুমতি ছাড়া ভাসানচরে যেতে পারবেন না।

আ ক ম মোজ্জাম্মেল হক বলেন, এ পর্যন্ত ১৮ হাজার রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে স্থানান্তর করা হয়েছে। সেখানে তাদের জন্য মানসম্মত থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এখন তারা পাঁচ হাজার করে টাকা দেওয়ার জন্য বিক্ষোভ করছে। পৃথিবীর কোনো দেশে শরণার্থীদের জন্য নাগরিক সুবিধা থাকে না। তাদের থাকার ব্যবস্থা করা হয়, নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয় মাত্র। কিন্তু বাংলাদেশে শরণার্থীদের থাকা-খাওয়া ও নিরাপত্তার ব্যবস্থা সরকার করছে। এর মধ্যে আবার তারা বাড়তি টাকার জন্য বিক্ষোভ করছে। তাদের পকেট খরচ দেওয়ার কোনো বিধান নেই। তারা হয়তো কারও প্ররোচণায় এমন দাবি তুলেছে।

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী বলেন, যেসব রোহিঙ্গা কক্সবাজার বা অন্যত্র রয়েছে তারা মাদক ব্যবসা ও অনৈতিক কাজের সঙ্গে জড়িত। সেগুলো নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য চারদিকে দেয়াল নির্মাণের কাজ চলছে। সেখানে সিসি ক্যামেরা বাড়ানো হবে। অবৈধ কর্মকাণ্ড বন্ধ করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে কঠোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানান মন্ত্রী।

তিনি বলেন, দেশের বিভিন্ন স্থানে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের ধরে এনে ক্যাম্পে পাঠাতে পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।


আরও খবর



কর দিতে হবে প্রাইভেট কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়কে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৩ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৩ জুন ২০২১ | ১১৭জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

২০২১-২২ অর্থবছরে বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বাজেট উত্থাপন করছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। আজ বৃহস্পতিবার বেলা ৩টায় জাতীয় সংসদে ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকার প্রস্তাবিত বাজেট পেশ করেন তিনি। প্রস্তাবিত বাজেটে বেসরকারি কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের আয়ের ওপর ১৫ শতাংশ কর আরোপের প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী।

বাজেট প্রস্তাবে বলা হয়েছে, প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে প্রযোজ্য সাধারণ করহার হ্রাস করে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, বেসরকারি মেডিকেল কলেজ, বেসরকারি ডেন্টাল কলেজ, বেসরকারি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ বা কেবল তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ে শিক্ষাদানে নিয়োজিত বেসরকারি কলেজ থেকে উদ্ভূত আয়ের ১৫ শতাংশ হারে কর নির্ধারণ করা হয়েছিল। মহান এ সংসদে আমি এ করহার অর্থ আইনের মাধ্যমে ১৫ শতাংশ করার প্রস্তাব করছি।

এর আগে ২০১০ সাল থেকে বেসরকারি এসব প্রতিষ্ঠানে কর আরোপ করা হয়েছিল। তখন এটা নিয়ে দেশজুড়ে আন্দোলন করেন শিক্ষার্থীরা। তবে মামলার কারণে আদায় হয়নি। মামলা নিষ্পত্তি হওয়ায় এখন নতুন করে কর আরোপের প্রস্তাব করেন অর্থমন্ত্রী।


আরও খবর



চাঁপাইনবাবগঞ্জে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা টেস্টে ২০২ জনের মধ্যে ৯২ জনই পজিটিভ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৫ মে ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৫ মে ২০২১ | ১৪৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image


চাঁপাইনবাবগঞ্জে করোনাভাইরাসে গত ৪৮ ঘণ্টায় প্রাণ গেছে আটজনের। গত ২৪ ঘণ্টায় র‍্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্টে ২০২ জনের মধ্যে ৯২ জনই করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। মৃত্যু হয়েছে একজনের। তার আগের দিন ৯৫ জনের নমুনা পরীক্ষায় করোনা পজিটিভ ফলাফল আসে ৫২ জনের।

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে মোট ১০ জনের মৃত্যু হয়। এদের মধ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জেরই ছয়জন। গত রবিবার (২৩ মে) ১০২ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৫৯ জনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়। মৃত্যু হয় দুইজনের। সবমিলিয়ে গত তিন দিনে রামেকসহ জেলায় মৃত্যুবরণ করেছেন নয়জন। করোনা সংক্রমণের হার ৫৫ শতাংশ।

আজ মঙ্গলবার থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৭ দিনের লকডাউন শুরু হয়েছে। লকডাউন কার্যকরে সকাল থেকেই পুলিশ ও জেলা প্রশাসনের একাধিক টিম মাঠে কাজ করছেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহরের সবগুলো প্রবেশ পথেই বসানো হয়েছে পুলিশের চেকপোস্ট। যারা এদিন পথে বের হচ্ছেন সবাইকে পুলিশ সদস্যদের জেরার মুখে পড়তে হচ্ছে, যোক্তিক কারণ ছাড়া যারা বাইরে বের হয়েছেন তাদের আবারও ঘরে পাঠাচ্ছে পুলিশ সদস্যরা।


নিউজ ট্যাগ: চাঁপাইনবাবগঞ্জ

আরও খবর



নদীতে ভাসানো হলো সহস্রাধিক চিতাভস্ম

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৪ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৪ জুন ২০২১ | ১০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পর পর সারি বেঁধে বসানো রয়েছে অসংখ্য মাটির পাত্র। সবই সাদা কাপড়ে বাঁধা। পাত্রগুলোতে রয়েছে করোনায় মৃত নাম-পরিচয়হীন সহস্রাধিকের চিতাভস্ম। বেঙ্গালুরু শহরের সুমনাহল্লি শ্মশানের চিত্র এটি।

প্রতিটি পাত্রের একটি নম্বর রয়েছে।  পাত্রগুলো কাবেরী নদীর ঘাটে আনা হয় প্রথা মেনে।  ঘাট থেকে ভাসিয়ে দেওয়া হয় অজ্ঞাতপরিচয় এক হাজার ২০০ জনের দেহাবশেষ। খবর আনন্দবাজারের।

ঘটনা বেশ অমানবিকই বটে। করোনা মহামারির ভয় মানুষের মধ্যে এমনভাবে ঢুকে গেছে যে, মানুষ মরদেহ সৎকারের ক্ষেত্রেও বাছবিচার শুরু করতে বাধ্য হয়েছে। করোনার আতঙ্কে বহু পরিবার মৃত স্বজনের চিতাভস্ম পর্যন্ত নিতে রাজি নয়। আবার প্রথা মেনে আচার-অনুষ্ঠান করার সামর্থ্যও নেই অনেকের।

বেঙ্গালুরু টিআর মিলস শ্মশানের কনট্রাক্টর কিরণ কুমার বলেন, একটা পরিবারে দুই-তিনজন করোনায় মারা গেলে বাকি সদস্যরা আর শ্মশানে এসে ছাই সংগ্রহ করেন না।

দীর্ঘদিন ধরে প্রচুর ছাইভর্তি মাটির পাত্র জমেছে শহরের প্রায় সবকটি শ্মশানেই। তাই বাধ্য হয়ে সরকারকেই চিতাভস্ম নদীতে ভাসিয়ে দেওয়ার কাজ করতে হচ্ছে।


আরও খবর



সম্পর্ক মজবুত করবেন কিভাবে, জেনে নিন কার্যকরী উপায়

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৭ মে ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৭ মে ২০২১ | ১২৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দীর্ঘ দিনের সম্পর্ক। দুজন মানুষ যখন দীর্ঘদিন একসঙ্গে থাকে তাহলে তাদের সুখে থাকারই কথা। কিন্তু তারপরও সুখ নেই দুজনের মধ্যে। এমনটা হয়ে থাকলে কয়েকটি ক্ষেত্রে খেয়াল রাখা জরুরি। এতে করে সম্পর্কের মাঝে সুখের কোনো ঘাটতি বা বাধা সৃষ্টি হবে না।

প্রথমেই খেয়াল রাখতে হবে যে- দুজনের মধ্যে কথা যেন বন্ধ না হয়। দুজনের মধ্যে কথা বলা খুব বেশি জরুরি। সম্পর্কের মধ্যে যদি মনের ভাব প্রকাশ না পায় তাহলে সেই সম্পর্ক কখনোই টিকে না।

সম্মান: সম্পর্কের মাঝে সম্মান থাকা খুব বেশি জরুরি। একে অপরের প্রতি পরস্পর যদি সম্মান না থাকে তাহলে ক্ষণে ক্ষণে একজন অপরজনের কাছে অসম্মানিত হবেন। এমনকি দুজনের পরিবারও অসম্মানিত হতে পারেন।

বিশ্বাস: সম্পর্কে সম্মান থাকার মতোই গুরুত্বপূর্ণ বিশ্বাস রাখা। বিশ্বাস না থাকলে সম্পর্ক মজবুত হয় না। বিশ্বাস না থাকলে সৎ মানুষটিকে নিয়ে বারবার সন্দেহ জাগবে মনে। এতে দোষারোপ থেকে তর্ক-বিতর্ক ও অসম্মানের মতো ঘটনা ঘটতে থাকবে। তাই সম্পর্কের মাঝে বিশ্বাস থাকা আবশ্যিক।


নিউজ ট্যাগ: ভালোবাসা

আরও খবর
বাবার জন্য ভালোবাসা

রবিবার ২০ জুন ২০21