আজঃ মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০21
শিরোনাম

পয়লা বৈশাখে জনসমাগম করা যাবে না

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৮ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৮ এপ্রিল ২০২১ | ১০৯জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
গত ২১ মার্চ অনুষ্ঠিত আন্তঃমন্ত্রণালয় সভার সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলা নববর্ষ ১৪২৮ উদযাপন সংক্রান্ত গৃহীত কর্মসূচির বিষয়ে জানানো যাচ্ছে যে, বর্তমান কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ কর্তৃক জারি

বিদ্যমান করোনা পরিস্থিতিতে পয়লা বৈশাখে কোনো অবস্থাতেই জনসমাগম করা যাবে না বলে জানিয়েছে সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয়ের উপসচিব আ স ম হাসান আল আমিন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে গতকাল বুধবার এই নির্দেশনা দেওয়া হয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সম্ভব হলে অনলাইনে বাংলা নববর্ষ পালন করতে হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত ২১ মার্চ অনুষ্ঠিত আন্তঃমন্ত্রণালয় সভার সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলা নববর্ষ ১৪২৮ উদযাপন সংক্রান্ত গৃহীত কর্মসূচির বিষয়ে জানানো যাচ্ছে যে, বর্তমান কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ কর্তৃক জারি করা নির্দেশনা অনুসরণ করে জনসমাগম হয় এমন অনুষ্ঠান পরিহার করে সম্ভব হলে অনলাইন বা ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মে অনুষ্ঠান আয়োজনের জন্য অনুরোধ জানানো হলো। কোনো অবস্থাতেই জনসমাগম করা যাবে না।

গত বছরও করোনা পরিস্থিতির জন্য ছায়ানটের বর্ষবরণ অনুষ্ঠান ও মঙ্গল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়নি। ওই সময় বিভিন্ন সংগঠন ভার্চুয়ালি বর্ষবরণের আয়োজন করে।


আরও খবর
অগ্নি স্নানে শুচি হোক ধরা

বুধবার ১৪ এপ্রিল ২০২১




মার্কেট–শপিংমলে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে কঠোর মালিকরা

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৯ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৯ এপ্রিল ২০২১ | ৭৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে দেশে চলছে লকডাউন। আর এই লকডাউনের মধ্যে আজ থেকে সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত খোলা থাকবে দেশের মার্কেট ও দোকানপাট তবে এই সময়ের মধ্যে সব ব্যবসায়ীকে মানতে হবে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি।

রাজধানীর মিরপুর, শ্যামলী এলাকার অভিজাত বিপণিবিতানগুলোয় স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে কড়া ব্যবস্থা নিশ্চিত করেছে মার্কেটগুলোর কর্তৃপক্ষ। মাস্ক পরা ছাড়া কাউকে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না। জীবাণুনাশক বা হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবহার ও তাপমাত্রা মাপার ব্যবস্থাও রয়েছে।

তবে এসব নিয়ম সাধারণ মার্কেট বা বিপণিবিতানগুলোয় তেমন একটা মানা হচ্ছে না। অনেকেই মাস্ক ছাড়া প্রবেশ করছেন আমার অনেক মার্কেটের সামবে নেই জীবানুনাশক স্প্রে।

রাজধানীর শ্যামলী স্কয়ার, মিরপুর-১ নম্বর এলাকায় আড়ং, লা-রিভ, জেন্টেলপার্ক, ইয়োলো, টুয়েলভ, ফ্রিল্যান্ডসহ আরও কিছু অভিজাত শোরুম ঘুরে দেখা গেছে, ক্রেতাদের মাস্ক ছাড়া প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না। এমনকি শোরুমে ঢোকার শুরুতেই ভালোভাবে হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে জীবানুমুক্ত করে প্রবেশ করতে দিচ্ছেন নিরাপত্তাকর্মীরা।

আড়ং শোরুমের প্রবেশমুখে একজন নিরাপত্তারক্ষীকে জীবাণুনাশক নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। ক্রেতারা গেলে তাদের হাতে জীবাণুনাশক ছিটিয়ে দেন তিনি। আবার তাপমাত্রাও মাপা হয়। আর সব ক্রেতারা মাস্ক পরা।

আসমা আক্তার নামের এক ক্রেতা বলেন, মার্কেট এমনিতেই খুব ভিড়ের জায়গা। সেখানে স্বাস্থ্যবিধির বিষয়ে কড়াকড়ি না থাকলে আসাটা ঝুঁকিপূর্ণ। তাই নিজ থেকেই হ্যান্ড স্যানিটাইজার নিয়ে এসেছি। কিন্তু এখানে এসে দেখি স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়ে খুব কড়াকড়ি।

রাজধানীতে অনেক শপিংমলে বসানো হয়েছে জীবাণুনাশক টানেল। কিছু কিছু স্থানে এর ব্যবহার করা হচ্ছে। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শ্যামলী স্কয়ারে ক্রেতার সংখ্যা ভালোই ছিলো। মার্কেটের বিক্রেতারা জানান, বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ক্রেতার সংখ্যা বাড়ছে।

নিউজ ট্যাগ: করোনাভাইরাস

আরও খবর
সব সবজির দাম ঊর্ধ্বমুখী

শুক্রবার ১৬ এপ্রিল ২০২১




৫০ শতাংশ উপস্থিতি বাস্তবায়ন হচ্ছে: জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ৩১ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ৩১ মার্চ ২০২১ | ১০৭জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
৫০ শতাংশ উপস্থিতির বিষয়টি আমাদের ডিপার্টমেন্টে প্রায় শতভাগ নিশ্চিত করেছি। কারা অফিসে থাকবে বা কারা বাসায় থাকবেন, সে রোস্টার করা হয়েছে

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ১৮ দফা নির্দেশনার একটি- অফিস-আদালতে ৫০ শতাংশ উপস্থিতির বিষয়টি বাস্তবায়ন শুরু হয়েছে জানিয়ে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেছেন, তার মন্ত্রণালয় এটি শতভাগ বাস্তবায়ন করেছে। আর অন্যান্য মন্ত্রণালয়গুলোও বাস্তবায়ন করছে এবং এ হার প্রায় ৭০ শতাংশ বলে জানিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী।

করোনা সংক্রমণ বাড়ায় গত সোমবার (২৯ মার্চ) প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব ড. আহমদ কায়কাউস স্বাক্ষরিত নির্দেশনাগুলোর একটিতে বলা হয়েছে, জরুরি সেবায় নিয়োজিত প্রতিষ্ঠান ছাড়া সব সরকারি-বেসরকারি অফিস/প্রতিষ্ঠান শিল্প কারখানাগুলো ৫০ ভাগ জনবল দ্বারা পরিচালনা করতে হবে। গর্ভবতী/অসুস্থ/বয়স ৫৫-ঊর্ধ্ব কর্মকর্তা/ কর্মচারীর বাড়িতে অবস্থান করে কর্মসম্পাদনের ব্যবস্থা নিতে হবে।

সরকারের ১৮ দফা নির্দেশনার পরদিন শবে বরাতের সরকারি ছুটি শেষে বুধবার (৩১ মার্চ) প্রথম অফিস। সচিবালয়ে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে দেখা গেছে, প্রায় স্বাভাবিকের মতোই উপস্থিতি। তবে স্বাস্থ্যবিধি মানতে কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। মাস্ক পরা নিয়ে নির্দেশনা, তাপমাত্রা পরিমাপক যন্ত্র ব্যবহার করা হচ্ছে। 

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, ৫০ শতাংশ উপস্থিতির বিষয়টি আমাদের ডিপার্টমেন্টে প্রায় শতভাগ নিশ্চিত করেছি। কারা অফিসে থাকবে বা কারা বাসায় থাকবেন, সে রোস্টার করা হয়েছে। অন্যান্য মন্ত্রণালয়গুলোতেও বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে হয়তো ৭০ ভাগ হয়ে গেছে। কেন্দ্রীয় এবং বড় সিদ্ধান্ত, দুই-একদিনের মধ্যে এটি বাস্তবায়ন হবে।

ফরহাদ হোসেন বলেন, গর্ভবতী, অসুস্থ ও যাদের বয়স ৫৫ বছরের বেশি বা যাদের ফুসফুসে সমস্যা রয়েছে, তারা বাড়িতে অবস্থান করে অফিস (হোম অফিস) করবেন।


আরও খবর



লকডাউনে রিকশার রাজত্বে রাজধানী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৫ এপ্রিল ২০২১ | ৬৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনা সংক্রমণ মোকাবেলায় সারাদেশে চলছে এক সপ্তাহের কঠোর লকডাউন। কিন্তু লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে নানা অজুহাতে সড়কে যানবাহনসহ বেড়েছে সাধারণ মানুষের চাপ।

তবে ঢাকার সড়কগুলোতে রাজত্ব করছে রিকশা। এদিকে যানবাহন ও সাধারণ মানুষের চলাচল নিয়ন্ত্রণের জন্য সড়কের মোড়ে মোড়ে বসানো হয়েছে চেকপোস্ট। মুভমেন্ট পাস থাকলেই চলাফেরা করতে দিচ্ছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী।

বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) রাজধানীর সদরঘাট, গুলিস্থান, পল্টন, কাকরাইর, রামপুরা, বাড্ডা, প্রগতি সরণী, নতুনবাজার এলাকা ঘুরে এমন চিত্রই দেখা যায়।

সরেজমিনে দেখা যায়, লকডাউনের দ্বীতিয় দিন বৃহস্পতিবার  রাজধানীর সড়কে গাড়ির চাপ না থাকায় বেশির ভাগ সড়ক ছিলো ফাঁকা। তবে সড়কগুলোতে রিকশার রাজত্ব দেখা গেছে। প্রতিটা সড়কের মোড়ে মোড়ে বসানো হয়েছে পুলিশের চেকপোস্ট। তবে লকডাউনের মধ্যেও ব্যাংকসহ জরুরি যেসব অফিস খোলা রয়েছে সেসব প্রতিষ্ঠানের চাকরিজীবীরা রাস্তায় নেমে অফিসে পৌঁছাতে গিয়ে পড়েছেন বিপাকে।

এদিকে যাত্রী ছাড়া রিকশা দেখলেই আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা এসে রিকশা উল্টিয়ে দিচ্ছে, আবার রেকারে দিচ্ছে। পাশাপাশি সাধারণ যাত্রীদের কাছে মুভমেন্ট পাশ আছে কি দেখতে চাইছে। দেখাতে পারলে ছেড়ে দিচ্ছে নইলে রির্টান করছে বাসা বা জরিমানা করতে দেখা গেছে।

রিকশ চালক আনোয়ার জানান, ভোর থেকেই রাস্তায় রিকশা চালাচ্ছি। সকালের দিকে পুলিশ কিছু রিকশায় রেকার দিয়েছে, আবার কিছু রিকশা উল্টিয়ে রেখেছে। আমার রিকশাও উল্টিয়ে রেখেছিলো। দুই তিন ঘণ্টা পরে ছেড়ে দিয়েছে। আমরা গরিব মানুষ ভাই একদিন রিকশা না চালালে পরিবার নিয়ে না খেয়ে থাকতে হবে। রোজা রাখছি তাই ১টা পর্যন্ত রিকশা চালাবো। পড়ে বাসায় চলে যাবো।

এদিকে, রাজধানীর সড়কে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত হচ্ছে। যারা বিনা কারণে বাইরে ঘোরাঘুরি করবেন, মুভমেন্ট পাস না নিয়ে বাইরে বের হবেন এবং স্বাস্থ্যবিধি মানবেন না তাদেরকে জরিমানা করা হচ্ছে। জরিমানার পাশাপাশি জনগণকে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাইরে না আসার জন্য এবং স্বাস্থ্যবিধি মানতে উদ্বুদ্ধও করছে র‍্যাব।


আরও খবর



বিবস্ত্র করে নির্যাতন : ১৩ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন

প্রকাশিত:বুধবার ২৪ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২৪ মার্চ ২০২১ | ১০৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের এশলাশপুর ইউনিয়নে নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় দেলোয়ার বাহিনীর দেলোয়ারসহ ১৩ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেছে আদালত।

বুধবার (২৪ মার্চ) দুপুরে শুনানি শেষে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক জয়নাল আবেদীন এ আদেশ দেন।

এ সময় অভিযোগ পত্রের অপর আসামি ইউপি সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন সোহাগ মেম্বারকে মামলা থেকে অব্যাহতির আদেশও দেন।

এর আগে ২০২০ সালের ১৪ ডিসেম্বর ১৪ আসামির বিরুদ্ধে পিবিআই আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। এরও আগে একই বছরের ৫ অক্টোবর নির্যাতিতা নারী বাদী হয়ে বেগমগঞ্জ মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলাটি দায়ের করেন।

মামলার রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মামুনুর রশিদ লাভলু জানান, শুনানিকালে চার্জশিটভুক্ত আসামিদের মধ্যে ৯ জন আদালতে উপস্থিত ছিলেন। অপর আসামিদের মধ্যে চারজন পলাতক রয়েছে।

উল্লেখ‌্য, নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের একটি ভিডিও গত বছরের ৪ অক্টোবর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। এর পরই তৎপর হয় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। মামলা করেন নির্যাতিতা নারী।


আরও খবর



গ্রেপ্তারের পর ডিএমপি কার্যালয়ে মামুনুল

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৮ এপ্রিল ২০২১ | ৫২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
রাজধানীর মোহাম্মাদপুরের জামিয়া রাহমানিয়া মাদ্রাসা থেকে দুপুর ১২টার দিকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন ডিএমপির তেজগাঁও বিভাগের উপ কমিশনার হারুন অর রশীদ

হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরীর সেক্রেটারি মামুনুল হককে গ্রেপ্তারের পর ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনারের কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

এর আগে রাজধানীর মোহাম্মাদপুরের জামিয়া রাহমানিয়া মাদ্রাসা থেকে দুপুর ১২টার দিকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন ডিএমপির তেজগাঁও বিভাগের উপ কমিশনার হারুন অর রশীদ।

এর আগে গত ৩ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ থানাধীন রয়েল রিসোর্টে নারী সঙ্গীসহ স্থানীয় লোকজনের হাতে আটক হওয়ার পর ছাড়া পেয়ে রাতেই ঢাকায় চলে আসেন তিনি।

ঢাকার মোহাম্মদপুরের কাদিরাবাদ হাউজিংয়ের নিজ বাসায় না গিয়ে তিনি পাশেই জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসায় যান মামুনুল হক। সেখানেই অবস্থান করছিলেন। তার বিরুদ্ধে রাজধানীর পল্টন ও নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ থানায় একাধিক মামলা হয়েছে। এ ছাড়া ২০১৩ সালের একাধিক মামলাতেও মামুনুল হক এজাহারভুক্ত আসামি।

মাদ্রাসা থেকে বের হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তাকে গ্রেপ্তার করতে পারে এ কারণে। এ কারণে পাশেই নিজের বাসা হলেও তিনি সেখানে যাচ্ছেন না। মাদ্রাসার একটি কক্ষে অবস্থান করে মাঝে মধ্যে ফেসবুকে এসে বক্তব্য দিতেন তিনি।


আরও খবর