আজঃ মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০21
শিরোনাম

রাজশাহীতে ট্রাক-অটোরিকশার সংঘর্ষে স্বামী-স্ত্রীসহ নিহত ৩

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৭ এপ্রিল ২০২১ | ১০৯জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাজশাহীতে সিএনজিচালিত অটোরিকশা ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে এক দম্পতিসহ তিনজন নিহত হয়েছেন। আজ বুধবার দুপুর আড়াইটার দিকে রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জ মহাসড়কের পবা উপজেলার মুরারিপুর এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলার ঘাসিয়ালপাড়া গ্রামের বাসিন্দা আব্দুস সাত্তার (৫৫), তাঁর স্ত্রী ফেরদৌসি বেগম (৪৭) এবং গোমস্তাপুর উপজেলার বাগডাস গ্রামের সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক আনসার আলী (৪৫)।

দামকুড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহবুব হোসেন জানান, আব্দুস সাত্তার তাঁর অসুস্থ স্ত্রীকে নিয়ে গোমস্তাপুর থেকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে যাচ্ছিলেন। পথে রাজশাহীর গোদাগাড়ী থেকে ওই অটোরিকশায় রায়হান শুভ নামের আরেক যুবক উঠেন। সিএনজি অটোরিকশাটি পবা উপজেলার মুরারিপুর এলাকায় আসার পর চাঁপাইনাবগঞ্জগামী একটি খালি ট্রাকের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই ফেরদৌসি বেগম ও সিএনজির চালক আনসার আলী নিহত হন। আহত হন দুজন। স্থানীয়রা আহত আব্দুস সাত্তার ও রায়হান শুভকে উদ্ধার করে রামেক হাসপাতালে পাঠায়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আব্দুস সাত্তার মারা যান। আহত শুভর অবস্থাও আশঙ্কাজনক।

ওসি আরও জানান, দুর্ঘটনার পর ট্রাকের চালক-হেলপার পালিয়েছেন। ট্রাকটি জব্দ করা হয়েছে। দুমড়ে-মুচড়ে যাওয়া সিএনজিচালিত অটোরিকশাটিও উদ্ধার করা হয়েছে।


আরও খবর
গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দগ্ধ ৪

শুক্রবার ১৬ এপ্রিল ২০২১




করোনা নিয়ে বিএনপির অপরাজনীতি মানুষকে বিভ্রান্ত করছে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৮ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৮ এপ্রিল ২০২১ | ৬৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ে বিএনপি নির্মম ও নির্লজ্জ রাজনীতি করছে। তারা একবার বলে লকডাউন দিতে হবে, আবার বলে লকডাউন দিলে মানুষ খাবে কী? বিএনপির এমন দ্বিমুখী নীতি এবং করোনা নিয়ে অপরাজনীতি মানুষকে বিভ্রান্ত করছে। আর এজন্যই ক্ষেত্রবিশেষে সংক্রমণের মাত্রাও বেড়ে যাচ্ছে।

আজ বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) ওবায়দুল কাদের তার সরকারি বাসভবনে ব্রিফিংকালে এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, মহামারিকালে বিএনপি নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে সরকার হটানোর নামে ধান ভানতে শীবের গীত গাইছেন। আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা যখন অসহায়, কর্মহীন, খেটে খাওয়া মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে এবং স্বাস্থ্যবিধি মানতে জনগণকে সতর্ক করছে, তখন বিএনপি তাদের উগ্র সাম্প্রদায়িক মিত্রদের নিয়ে দেশে নৈরাজ্য তৈরির অপপ্রয়াস চালাচ্ছে। দেশের সম্পদ জ্বালিয়ে দিচ্ছে।

তিনি বলেন, দেশে অগ্নিসন্ত্রাসের জনক বিএনপি। আর এই সন্ত্রাসের আগুনে একসময় তাদের নিজেদের ঘরও পুড়বে। নিজেরা আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে এখন হেফাজতের ওপর ভর করছে। এজন্য বিএনপির অপরাজনীতি বুমেরাং হতে বাধ্য।

তিনি আরও বলেন, বিএনপি সরকার হটাতে ছাত্র ও শ্রমিকদের ঐক্যের কথা বলছেন, কিন্তু তারা ছাত্র-শ্রমিকদের কোনও সাড়া পাচ্ছে না। জনগণেরও কোনও আস্থা পাচ্ছে না। বিএনপির এখন রাজনৈতিক আইসোলেশন দরকার।

ব্রিফিং শেষে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ঢাকা সড়ক জোনের অধীনে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের আমিনবাজারে ৮ লেন বিশিষ্ট নতুন সেতুর নির্মাণকাজের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হন।

নিউজ ট্যাগ: ওবায়দুল কাদের

আরও খবর



রফিকুলের বিরুদ্ধে পর্নগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৩ এপ্রিল ২০২১ | ৪৭জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বয়স ২৬-২৭ এর মধ্যে হলেও শারীরিক গঠন ও কণ্ঠ শিশুদের মতো হওয়ায় শিশু বক্তাহিসেবে পরিচিত যুবক রফিকুল ইসলাম মাদানী। সাম্প্রতিক সময়ে টক অব দ্য কান্ট্রি এই ইসলামিক বক্তার বিরুদ্ধে পর্নগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনেও মামলা করল পুলিশ।

মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) দুপুরে গাজীপুর মেট্রোপলিটনের উপ-পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ ইলতুৎমিশ এক প্রেস ব্রিফিং জানান, রফিকুল ইসলাম মাদানী মোবাইল ফোনে নিয়মিত পর্নগ্রাফি ভিডিও দেখাসহ রাষ্ট্রবিরোধী বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করতেন।

গাজীপুর মেট্রোপলিটনের উপ-পুলিশ কমিশনার রফিকুল বলেন, রফিকুলের বিরুদ্ধে মামলায় পর্নগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইন ২০১২ এর ৮ (৫)(ক) ধারা যুক্ত করা হয়েছে। তার সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে মঙ্গলবার সকালে গাজীপুর জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিমের আদালতে আবেদন করা হয়েছে।

গাছা থানার ওসি ইসমাইল হোসেন জানান, রফিকুলের মোবাইল সিজ করে এক্সপার্টের কাছে দেয়ার পর জানা গেছে তিনি পর্নগ্রাফি ভিডিও দেখতেন এবং সংরক্ষণ করতেন।

তিনি আরও বলেন, পর্নগ্রাফি ভিডিও সংরক্ষণ করা দণ্ডনীয় অপরাধ। তাই তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলায় পর্নগ্রাফি মামলার ওই ধারাও সংযুক্ত করা হয়েছে। ওই দুইটি বিষয়ে আলাদাভাবে অভিযোগপত্র দেয়া হবে।

গাছা থানার ওসি জানান, আসছে ১৫ এপ্রিল রফিকুলের রিমাণ্ডের আবেদনের শুনানির দিন ধার্য্য করেছেন আদালত।

উল্লেখ্য, নেত্রকোণায় নিজ বাড়ি থেকে রফিকুলকে আটকের পর গেলো ৮ এপ্রিল গাছা থানায় তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করে র‌্যাব। এ সময় তার কাছ থেকে চারটি মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়। তারপর থেকে গাজীপুরে কাশিমপুর কারাগারে বন্দি রয়েছেন তিনি। রফিকুলের বিরুদ্ধে একই আইনে গাজীপুরের বাসন থানায় আরও একটি মামলা হয়েছে।


আরও খবর



টাকা দিয়েও গাঁজা না পেয়ে বন্ধুকে গলাকেটে হত্যা

প্রকাশিত:রবিবার ১১ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১১ এপ্রিল ২০২১ | ১১৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দুইশ টাকা দিয়েও গাঁজা না পেয়ে বন্ধু সালাউদ্দিনকে (১৫) ছুরি দিয়ে গলাকেটে হত্যা করে সাগর (১৪)। শনিবার (১০ এপ্রিল) বিকেলে সাতক্ষীরা শহরের রসুলপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার হওয়া আত্মস্বীকৃত হত্যাকারী সাগর পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে এমনই জবানবন্দি দিয়েছে।

একইসঙ্গে পুলিশ তার দেওয়া তথ্য মতে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরি বেতলা বাইপাস সড়কের নয়নের গ্যারেজ থেকে উদ্ধার করেছে।

সাগরের উদ্ধৃতি দিয়ে পুলিশ শনিবার রাতে প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে গণমাধ্যমকে জানায়, শুক্রবার (৯ এপ্রিল) দিবাগত রাতে সালাউদ্দীনের বাসায় শুয়েছিল সাগর। তারা দুজনই মাদকাসক্ত। সাগর গাঁজা কেনার জন্য সালাউদ্দীনকে দুইশ টাকা দিয়েছিল। কিন্তু সালাউদ্দীন গাঁজা না নিয়ে এসে সাগরকে জানায়, গাঁজা আনার সময় পুলিশের ধাওয়া খেয়ে সে গাঁজা ফেলে পালিয়ে এসেছে। গাঁজা না আনায় রাতে পাশে শুয়ে সালাউদ্দীনকে হত্যার পরিকল্পনা করে সাগর। রাত ৩টার দিকে ঘুমন্ত অবস্থায় সালাউদ্দীনকে ছুরি দিয়ে গলা কেটে হত্যা করে। সালাউদ্দীনের দেহ নিস্তেজ হয়ে পড়লে সে ঘরের দরজা বাইরে থেকে তালা দিয়ে পালিয়ে যায়।

শনিবার সকালে সাগর তার বাবা শহিদুল ইসলামকে ফোন করে ঘটনাটি জানায় এবং সালাউদ্দীনের বাবাকে জানাতে বলে। পরবর্তীতে ঘটনাটি এলাকায় জানাজানি হলে পুলিশ সংবাদ পেয়ে দুপুর ২টার দিকে সালাউদ্দীনের মরদেহ উদ্ধার করে এবং ঘটনার রহস্য উদঘাটন ও সাগরকে গ্রেফতারের জন্য মাঠে নামে। একপর্যায়ে বিকেল ৪টায় শহরের রসুলপুর এলাকা থেকে সাগরকে গ্রেফতার করা হয় এবং তার দেওয়া তথ্যমতে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরি বেতলা বাইপাসের নয়নের গ্যারেজ থেকে উদ্ধার করা হয়।

সাতক্ষীরার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।


আরও খবর



‘খেলাফত প্রতিষ্ঠা হলে ধরে ধরে জবাই করা হবে’— বলা নোমানী আটক

প্রকাশিত:সোমবার ১২ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১২ এপ্রিল ২০২১ | ২০৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
ওয়াসেক বিল্লাহ নোমানী উগ্র কণ্ঠে বলছেন, খেলাফত তথা ইসলামী শাসন ব্যবস্থা কায়েম হলে সব সাংবাদিককে ধরে ধরে জবাই করা হবে। দ্বীন ইসলাম প্রতিষ্ঠায় অনেক রক্ত দেওয়া হয়ে গেছে। এখন আর রক্ত দেবো না

কওমি মাদরাসা শিক্ষক ওয়াসেক বিল্লাহ নোমানী এক ওয়াজ মাহফিলে মুসল্লিদের সহিংসতায় উসকানি দেওয়ার অভিযোগে তাকে আটক করেছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। তবে কখন কোথা থেকে তাকে আটক করা হয়েছে তা জানা যায়নি।

নোমানীকে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে এ কথা আনুষ্ঠানিকভাবে কেউ না দিলেও এসবি প্রধান অতিরিক্ত আইজিপি মনিরুল ইসলাম সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে লিখেছেন, নতুন কিছুর ঝাল বেশিই থাকে। তিনি একজন নব্য মুসলিম। তিনি এখন পুলিশ হেফাজতে।

রবিবার (১১ এপ্রিল) রাতে শাখাওয়াত আল আমিন নামে একজন তার ফেসবুক ওয়ালে ওয়াসেক বিল্লাহ নোমানীকে নিয়ে করা একটি নিউজ শেয়ার দিলে এসবি প্রধান ওই লিংকে গিয়ে এ তথ্য জানান।

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া এক ভিডিওতে দেখা যায়, কওমি মাদ্রাসা শিক্ষক ওয়াসেক বিল্লাহ নোমানী উগ্র কণ্ঠে বলছেন, খেলাফত তথা ইসলামী শাসন ব্যবস্থা কায়েম হলে সব সাংবাদিককে ধরে ধরে জবাই করা হবে। দ্বীন ইসলাম প্রতিষ্ঠায় অনেক রক্ত দেওয়া হয়ে গেছে। এখন আর রক্ত দেবো না। এখন থেকে রক্ত নেওয়া হবে বলে লাফিয়ে ওঠেন।

মাহফিলটি কবে কোথায় হয়েছিল, সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট তথ্য পাওয়া না গেলেও সেই বক্তার নাম-পরিচয় ঠিকানা বের করেছে পুলিশ। ওই বক্তার নাম ওয়াসেক বিল্লাহ নোমানী। তিনি ময়মনসিংহ নগরীর সানকি পাড়ার ফজলুল হক মারকাযুল উলুম মাদরাসায় বাংলা, ইংরেজি ও গণিত বিষয়ে শিক্ষা দেন।

ওই মাদরাসার নূরানি বিভাগের শিক্ষক রাশেদ মাহমুদ জানান, নোমানীর বাড়ি ও জন্ম নেত্রকোণার পূর্বধলা উপজেলায়। তিনি ময়মনসিংহের আনন্দমোহন কলেজ থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি নিয়েছেন। ২০১২ সালে তিনি হিন্দু থেকে ধর্মান্তরিত হয়ে মুসলিম হন। এরপর থেকে তিনি ওই মাদ্রাসায় শিক্ষক হিসেবে আছেন।

নোমানী শহরের সানকিপাড়ায় সরকার রোডের ১১০/২ নম্বর বাড়ি সুখ আলয়-এ ভাড়া থাকেন। তবে একাধিক হেফাজত নেতার দাবি, নোমানী হেফাজতে ইসলামের কোনো কমিটিতেই নেই।


আরও খবর



বিলাসবহুল নতুন ফ্ল্যাটটি কার নামে কিনলেন সানি লিওন?

প্রকাশিত:সোমবার ১২ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১২ এপ্রিল ২০২১ | ৬৯জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মুম্বাইয়ে এক বিলাসবহুল অ্যাপার্টমেন্ট কিনেছেন বলিউডের আলোচিত অভিনেত্রী সানি লিওন। যার মূল্য ১৮ কোটি ১০ লাখ টাকা। নতুন এই সম্পত্তি নিজের আসল নাম, অর্থাৎ করণজিৎ কউর নামে কিনেছেন তিনি।

মুম্বাইয়ের আন্ধেরি এলাকার আটলান্টিস নামের বিল্ডিংয়ের ১২ তলায় ৩ হাজার ৯৬৭ বর্গমিটার আয়তনের এই ফ্ল্যাটে রয়েছে পাঁচটি শোবার ঘর, একটি হলরুম, বিশাল রান্নাঘর। এছাড়াও গাড়ি পার্কিংয়ের জন্য তিনটি স্থান পেয়েছেন সানি লিওন।

বিবাহিত জীবনের এক দশক পূর্ণ উপলক্ষ্যে সানি লিওনকে একটি হীরার হার উপহার দিয়েছেন স্বামী ড্যানিয়েল ওয়েবর। গেলো ৯ এপ্রিল সেই উপহারের ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করে সানি লিওন লিখেছেন, বিবাহবার্ষিকীর হীরার জন্য ধন্যবাদ প্রিয়। ১০ বছরের বিবাহিত জীবন আর ১৩ বছরের পথচলা। কে ভেবেছিল, এক সুন্দর দিনে আমাদের একসঙ্গে জীবন কাটানোর সিদ্ধান্ত আজ আমাদের এখানে এত দূর নিয়ে আসবে! কী চমৎকার একটা জীবনই না আমরা ভাগাভাগি করে নিচ্ছি...ভালোবাসা!

নিউজ ট্যাগ: সানি লিওন

আরও খবর