আজঃ বৃহস্পতিবার ০৯ ডিসেম্বর ২০২১
শিরোনাম
বসুন্ধরার এমডিকে হত্যাচেষ্টা

সাদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ মা-বাবা এলাকাবাসী

প্রকাশিত:সোমবার ০৮ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ০৮ নভেম্বর ২০২১ | ৮৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র লিমিটেডের চেয়ারম্যান সায়েম সোবহান আনভীরকে হত্যা চেষ্টাকারী সাইফুল ইসলাম সাদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ ছিলেন খোদ তার মা-বাবা এবং এলাকাবাসী। ধীরে ধীরে বখাটে ও সন্ত্রাসী কার্যকলাপে জড়িয়ে পড়ার ঘটনায় লাগাম টানতে না পেরে শেষ পর্যন্ত ছেলেকে ত্যাজ্যপুত্র ঘোষণা করেছিলেন মা-বাবা। সাদের গ্রামের বাড়ি চট্টগ্রামের চন্দনাইশ উপজেলার দোহাজারী পৌরসভার হাছনদন্ডী এলাকায় সরেজমিন ঘুরে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

গত রবিবার দুপুরে ওই এলাকায় গেলে তার বাবা সুজন দত্ত বলেন, বখাটে ও সন্ত্রাসী প্রকৃতির হওয়ায় অতিষ্ঠ হয়ে ছেলেকে ২০১৭ সালে ত্যাজ্য ঘোষণা করি। পরে সে মুসলমান ধর্ম গ্রহণ করে। অবশ্য পরে আবার হিন্দু ধর্মে ফেরার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু ঘরে জায়গা দেওয়া হয়নি। শুনেছি ঢাকায় গিয়ে অপরাধে জড়িয়েছে। এই বখাটে যদি কোনো অপরাধে জড়ায় তাহলে তার উপযুক্ত শাস্তি হওয়া দরকার বলেও মনে করেন সুজন দত্ত।

জানা গেছে, প্রায় চার বছর আগে সাদকে ত্যাজ্য ঘোষণা করেছিলেন তা মা-বাবা। জন্ম চন্দনাইশে হলেও তার বেড়ে ওঠা পটিয়ায়। দশম শ্রেণিতে পড়ার সময় পরিচয় হয় পটিয়ার সাংসদ হুইপ সামশুল হক ও তার ছেলে নাজমুল করিম ওরফে শারুন চৌধুরীর সঙ্গে। সাদকে মানসিকভাবে প্রস্তুত করে বসুন্ধরা গ্রুপের এমডিকে হত্যা পরিকল্পনায় যুক্ত করেন তারা। তারই অংশ হিসেবে কৌশলে দিনমজুরের ছদ্মবেশ নিয়ে বসুন্ধরার এমডি হাউসে প্রবেশ করেন সাদ। এরপর একাধিকবার চালান হত্যাচেষ্টা।

গত বৃহস্পতিবার দিনগত রাত ১টার দিকে রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার সাউতুল কোরআন মাদরাসা ও এতিমখানা থেকে সাদকে আটক করে পুলিশ। বসুন্ধরার এমডিকে হত্যার পরিকল্পনায় যুক্ত সন্দেহে তাঁকে শুক্রবার ৫৪ ধারায় আদালতে সোপর্দ করা হয়। গত রবিবার আদালত তাঁকে তিন দিনের রিমান্ডে দেন। তাঁকে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করছে ভাটারা থানা পুলিশ।

চন্দনাইশে সরেজমিনে গেলে কথা হয় সাদের মা-বাবা, বন্ধু ও এলাকাবাসীর সঙ্গে। সাদের সঙ্গে হুইপ শামসুল হক কিংবা শারুন চৌধুরীর সঙ্গে যোগাযোগ হয়েছিল কি না জানতে চাইলে তার বাবা সুজন দত্ত বলেন, এই বিষয়ে আমি জানি না। সর্বশেষ যখন গ্রামে ফিরেছিল তখন তাকে ঘরে জায়গা না দেওয়ায় আমার সঙ্গে ঝগড়া করে। তবে তার ফেসবুকে কিছু ছবি দেখা গেছে, সেখানে প্রবীণ রাজনীতিবিদদের সঙ্গে তার ছবি দেখা গেছে।

তার মা রীনা বালা দে বলেন, ত্যাজ্য ঘোষণার পরও মাঝে মধ্যে গ্রামের বাড়িতে আসতো জয় (সাদের পূর্বের নাম)। সর্বশেষ পূজার সময় এসেছিল। হাতে দামি মোবাইল ফোন ও ঘড়ি দেখেছি। পোশাকও ছিল দামী। এসব দামি জিনিসপত্র কোথায় পেয়েছে তা জানতে প্রশ্ন করা হলেও জয় উত্তর দেয়নি। তিনি বলেন, জয়ের আচরণে মনে হয়েছে সে কোনো অপরাধী চক্রের সঙ্গে জড়িয়ে গেছে। ছেলেকে যারা ভুল পথে নিয়ে গেছে তাদের বিচার দাবি করেন রীনা।

সাদের প্রতিবেশী হাছনদন্ডী ব্রাইট স্টার সোসাইটির সভাপতি সুমন চন্দ্র দে বলেন, জয় মুসলমান ধর্ম গ্রহণের পর পুনরায় হিন্দু ধর্মে ফিরেছে। কিন্তু এখন শুনছি সে মুলমান হিসেবে মাদ্রাসায় পড়ছে। সর্বশেষ পূজার সময় গ্রামে এসেছিল। এই সময় ঘরে থাকতে চেয়েছিল। কিন্তু তার বাবা ঘরে জায়গা দেননি। এই কারণে আমাদের কাছে নালিশ দিয়েছিল। আমরা এই বিষয়ে সুজন দত্তের সঙ্গে কথা বলেছিলাম। তারা ত্যাজ্য ঘোষণার কাগজ দেখানোর পর তাকে ঘর ছেড়ে চলে যেতে বলি। তার স্বভাব চরিত্র ভালো ছিল না। মারধর ও ঝগড়া বিবাদ করা তার স্বভাব।

একই বিষয়ে গ্রামের বাসিন্দা নূর নবী বলেন, শুরুতে শুনেছিলাম সে মুসলমান হয়েছে। পরে তার মা তাকে হিন্দু ধর্মে ফিরিয়ে নিয়ে গেছে বলে শুনেছি। সব পাঞ্জাবিসহ অন্য কাপড় খুলে ধুতি পরে এবং মাথার চুল ফেলে দিয়ে পুনরায় হিন্দু রীতি অনুযায়ী চালচলন শুরু করে। গত মাসে পূজাও করে গেছে।

সাদের বন্ধু জনি দে বলেন, কিছুদিন আগে আমিও ঢাকায় ছিলাম। পরে গ্রামে ফিরে এসেছি। ঢাকায় থাকতে তার সঙ্গে আমার যোগাযোগ হতো। এই সময় তার আচরণে পরিবর্তন লক্ষ্য করি এবং সে যেন ভিন্ন জগতের বাসিন্দা হয়ে গেছে এমন ভাব ধরে আমার সঙ্গে। পরে রাগ করে আমি যোগাযোগ বন্ধ করে দিই।

প্রতিবেশী সুবল চন্দ্র দে বলেন, জয় দত্ত ধর্মান্তরিত হওয়ার পর তাকে পুনরায় তার মা হিন্দু ধর্মে নিয়ে আসে। সে গ্রামে এসে প্রতিবেশীদের সঙ্গে ঝগড়া ফ্যাসাদ করে। ছেলে হিসেবে ভালো না। এখন শুনছি যে নাকি হত্যাচেষ্টা মিশনে যুক্ত হয়েছিল।


আরও খবর



বাইডেনের গণতন্ত্র সম্মেলনে নাম নেই বাংলাদেশের

প্রকাশিত:বুধবার ১০ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১০ নভেম্বর ২০২১ | ৬২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের উদ্যোগে ডিসেম্বরে গণতন্ত্র সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছে। আমন্ত্রিত শতাধিক দেশের বা সরকারের নামের একটি তালিকা প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক পলিটিক্যাল জার্নাল পলিটিকো।

তবে এই তালিকায় নেই বাংলাদেশের নাম। 

তালিকায় দেখা যায় অন্যান্য দেশের সঙ্গে ভারত, মালদ্বীপ, নেপাল ও পাকিস্তান আমন্ত্রণ পেয়েছে।

ঢাকা ও ওয়াশিংটন ডিসিতে বাংলাদেশি কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে জানা গেছে, প্রেসিডেন্ট বাইডেনের সম্মেলন প্রস্তুতি নিয়ে বিভিন্ন খবরের দিকে তারাও নজর রাখছেন। তবে আপাতত এ বিষয়ে তাদের কোনো বক্তব্য নেই।

বাইডেন প্রশাসনের কর্মকর্তারা বলেছেন, এই সম্মেলন গণতন্ত্র নিয়ে দীর্ঘ আলোচনার শুরু মাত্র। আগামী বছর পরবর্তী সম্মেলন আয়োজনের পরিকল্পনা করা হয়েছে। সেই সম্মেলনে অংশ নিতে দেশগুলোকে সংস্কারের অঙ্গীকার পূরণ করতে হবে।

গণতন্ত্র ও মানবাধিকার বিষয়ে বিশেষজ্ঞ প্রতিষ্ঠান ফ্রিডম হাউসের নীতি ও প্রচারণাবিষয়ক ভাইস প্রেসিডেন্ট অ্যানি বোয়াজিন বলেছেন, অন্য যেকোনো বৈঠকের চেয়ে এই সম্মেলন আলাদা হতে হলে যুক্তরাষ্ট্রসহ প্রতিটি অংশগ্রহণকারী দেশকে আগামী দিনগুলোতে গণতন্ত্র ও মানবাধিকারের পথ অনুসরণের অর্থবহ অঙ্গীকার করতে হবে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, বিশ্বজুড়ে গণতন্ত্র ও স্বাধীনতা থেকে বিচ্যুতি ঠেকাতে প্রেসিডেন্ট বাইডেন সম্মেলনে বক্তব্য দেওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন। তবে আমন্ত্রিত নেতাদের অনেককে নিয়েই প্রশ্ন রয়েছে। কারণ ওই নেতাদের অনেকের বিরুদ্ধেই একনায়কতন্ত্র চর্চার অভিযোগ রয়েছে।

এ বছর যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক ফ্রিডম হাউসের প্রতিবেদনেও বলা হয়েছে, বাংলাদেশে রাজনৈতিক অধিকার চর্চা ও নাগরিক স্বাধীনতা অনেক কম। বিশ্বের ২১০টি দেশ ও অঞ্চলের মধ্যে বাংলাদেশ এ ক্ষেত্রে আংশিক স্বাধীন দেশগুলোর তালিকায় আছে।

পলিটিকোর ফাঁস করা তালিকা এবং দেশ বা সরকারগুলোকে আমন্ত্রণ জানানোর প্রক্রিয়ার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে, ওই তালিকায় ফ্রান্স, সুইডেনের মতো পরিপক্ব গণতন্ত্রের দেশ যেমন আছে, তেমনি আছে গণতান্ত্রিক পরিস্থিতির কারণে বিতর্কিত ফিলিপাইন ও পোল্যান্ডের মতো দেশগুলোও। এশিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের মিত্র জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়াকে আমন্ত্রণ জানানো হলেও বাদ পড়েছে থাইল্যান্ড ও ভিয়েতনাম। মধ্যপ্রাচ্য থেকে আমন্ত্রিতদের মধ্যে আছে ইসরায়েল ও ইরাক। তবে যুক্তরাষ্ট্র তার মিত্র মিসর ও ন্যাটো শরিক তুরস্ককেও গণতন্ত্র সম্মেলনে ডাকছে না।

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, বাইডেনের সম্মেলনে এমন অনেক দেশের আমন্ত্রণ পাওয়ার কথা শোনা যাচ্ছে, যাদের অবস্থা বাংলাদেশের চেয়েও নাজুক। 

ইমতিয়াজ আহমেদ আরো বলেন, আমার মনে হয়, আমন্ত্রণ পেলে বাংলাদেশ যাবে। আমন্ত্রণ না পেলেও এ নিয়ে খুব দুশ্চিন্তার কিছু নেই। কারণ যুক্তরাষ্ট্রের নিজেরই এখন গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় অনেক সমস্যা আছে। 


আরও খবর



আজ চাঁদপুর মুক্ত দিবস

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২১ | ১৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
৩৬ ঘণ্টার তীব্র লড়াইয়ের পর ৮ ডিসেম্বর হাজীগঞ্জ শহর এবং বিনা প্রতিরোধেই চাঁদপুর শহর মুক্ত হয়। জেলার সব স্থান থেকে পাক-হানাদার বাহিনী পালিয়ে যায়

আজ ৮ ডিসেম্বর চাঁদপুর মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে পাক-হানাদার বাহিনীর কবল থেকে মুক্ত হয়েছিল চাঁদপুর জেলা। ১৯৭১ সালের এই দিনে চাঁদপুর থানার সামনে বিএলএফ বাহিনীর প্রধান মরহুম রবিউল আউয়াল কিরণ প্রথম চাঁদপুরে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেছিলেন।

১৯৭১ সালের ৭ এপ্রিল চাঁদপুরে দখলদার বাহিনী দু’টি বিমান থেকে বোমা নিক্ষেপের মাধ্যমে প্রথম আক্রমণের সূচনা করে। এরপর থেকে হানাদার বাহিনীর সাথে মুক্তিযোদ্ধাদের চলে দফায় দফায় গুলি বিনিময়। পরে গঠন করা হয় শান্তিবাহিনী’। শান্তিবাহিনী ও পাক-হানাদার বাহিনী বিভিন্ন জায়গায় চালাতে থাকে বর্বরোচিত অত্যাচার ও হত্যাযজ্ঞ। যৌথবাহিনী হাজীগঞ্জ দিয়ে ৬ ডিসেম্বর চাঁদপুর আসতে থাকলে মুক্তিসেনা কর্তৃক হানাদার বাহিনী প্রতিরোধের সম্মুখিন হয়।

ভারতের মাউন্টেন ব্রিগেড ও ইস্টার্ন সেক্টরের মুক্তিযোদ্ধারা যৌথ আক্রমণ চালায়। উপায়ন্তর না পেয়ে পাকিস্তানের ৩৯ অস্থায়ী ডিভিশনের কমান্ডিং অফিসার মেজর জেনারেল রহিম খান চাঁদপুর থেকে পালিয়ে যান।  ৩৬ ঘণ্টার তীব্র লড়াইয়ের পর ৮ ডিসেম্বর হাজীগঞ্জ শহর এবং বিনা প্রতিরোধেই চাঁদপুর শহর মুক্ত হয়। জেলার সব স্থান থেকে পাক-হানাদার বাহিনী পালিয়ে যায়। রাজাকার বাহিনীর সদস্যরা অনেকে পালিয়ে যায়, আবার কেউ-কেউ মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে নিহত হয়।

মুক্তিযুদ্ধে অগণিত শহীদদের স্মৃতির উদ্দেশ্যে ১৯৮৭ সালে চাঁদপুর শহরের শহীদ মুক্তিযোদ্ধা সড়কস্থ লেকের পাড়ে নির্মিত হয় স্মৃতিস্তম্ভ অঙ্গীকার’। দেশের প্রথিতযশা ভাস্কর্য শিল্পী আব্দুল্লাহ খালিদ এটি নির্মাণ করেছিলেন।  পরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে জেলার বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নামের তালিকাসহ স্থাপন করা হয় আরেকটি স্মৃতিস্তম্ভ। এছাড়া হাজীগঞ্জের নাসিরকোর্টে নিহত ১১ জন শহীদের কবরসহ স্মৃতিস্তম্ভ রয়েছে।

২০১২ সালে বড়স্টেশন মোলহেড এলাকায় তৈরি হয় রক্তধারা’। এছাড়া ২০০৬ সালে চাঁদপুরের প্রথম শহীদ মুক্তিযোদ্ধা কালাম, খালেক, সুশীল ও শংকরের জন্য শহরের ট্রাক রোডে একটি স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করা হয়।


আরও খবর



‘ওমিক্রন’ সংক্রমণ রোধে যা বলল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২৯ নভেম্বর ২০২১ | ৩৩০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনার দক্ষিণ আফ্রিকান ধরন ওমিক্রন সংক্রমণ রোধে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ১৫ দফা পদক্ষেপ কঠোরভাবে বাস্তবায়নের কথা বলেছে। রোববার (২৮ নভেম্বর) অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলামের সই করা এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব পদক্ষেপ সম্পর্কে জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, অন্যান্য দেশে করোনাভাইরাসের দক্ষিণ আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন-এর সংক্রমণ দেখা দেওয়ায় অধিকতর সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সব দেশকে এ সম্পর্কে সতর্ক করেছে।

এ পরিস্থিতিতে দেশব্যাপী ১৫টি পদক্ষেপ কঠোরভাবে বাস্তবায়নের জন্য অনুরোধ জানিয়েছে অধিদপ্তর।

১. দক্ষিণ আফ্রিকা, নামিবিয়া, জিম্বাবুয়ে, বতসোয়ানা, এসওয়াতিনি, লেসোথো ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কর্তৃক সময় সময় ঘোষিত অন্যান্য আক্রান্ত দেশ থেকে আসা যাত্রীদের বন্দরসমূহে স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও স্ক্রিনিং জোরদার করতে হবে।

২. সব ধরনের (সামাজিক, রাজনৈতিক, ধর্মীয় ও অন্যান্য) জনসমাগম নিরুৎসাহিত করতে হবে।

৩. প্রয়োজনে বাড়ির বাইরে গেলে প্রত্যেক ব্যক্তিকে সর্বদা সঠিকভাবে নাক-মুখ ঢেকে মাস্ক পরাসহ সব স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করতে হবে।

৪. রেস্তোরাঁয় বসে খাওয়ার ব্যবস্থা ধারণক্ষমতার অর্ধেক বা তার কম করতে হবে।

৫. সব জনসমাবেশ, পর্যটন স্থান, বিনোদনকেন্দ্র, রিসোর্ট, কমিউনিটি সেন্টার, সিনেমা হল বা থিয়েটার হল ও সামাজিক অনুষ্ঠানে (বিয়ে, বৌভাত, জন্মদিন, পিকনিক, পার্টি ইত্যাদি) ধারণক্ষমতার অর্ধেক বা তার কমসংখ্যক লোক অংশগ্রহণ করতে পারবে।

৬. মসজিদসহ সব উপাসনালয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করতে হবে।

৭. গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে হবে।

৮. আক্রান্ত দেশসমূহ থেকে আসা যাত্রীদের ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করতে হবে।

৯. সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (মাদরাসা, প্রাক-প্রাথমিক, প্রাথমিক, মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক, বিশ্ববিদ্যালয়) ও কোচিং সেন্টারে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে হবে।

১০. সব স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানে সেবা গ্রহীতা, সেবা প্রদানকারী ও স্বাস্থ্যকর্মীদের সর্বদা সঠিকভাবে নাক-মুখ ঢেকে মাস্ক পরাসহ সব স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করতে হবে।

১১. স্বাস্থ্যবিধি মেনে ভ্যাকসিন কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে।

১২. করোনা উপসর্গ বা লক্ষণযুক্ত সন্দেহজনক ও নিশ্চিত করোনা রোগীর আইসোলেশন ও করোনা পজিটিভ রোগীর ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা অন্যদের কোয়ারেন্টাইনের ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।

১৩. কোডিড-১৯ এর লক্ষণযুক্ত ব্যক্তিকে আইসোলেশনে রাখা এবং তার নমুনা পরীক্ষার জন্য স্থানীয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে সহায়তা করা যেতে পারে।

১৪. অফিসে প্রবেশ এবং অবস্থানকালে বাধ্যতামূলকভাবে নাক-মুখ ঢেকে মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা দাপ্তরিকভাবে নিশ্চিত করতে হবে।

১৫. কোডিড-১৯ রোগ নিয়ন্ত্রণ ও হ্রাস করার নিমিত্তে কমিউনিটি পর্যায়ে মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার সচেতনতা তৈরির জন্য মাইকিং ও প্রচারণা চালানো যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে প্রয়োজনে মসজিদ, মন্দির, গির্জা ও প্যাগোডার মাইক ব্যবহার করা যেতে পারে এবং ওয়ার্ড কাউন্সিলর বা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যসহ নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের সম্পৃক্ত করা যেতে পারে।


আরও খবর
করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত বেড়েছে

মঙ্গলবার ০৭ ডিসেম্বর ২০২১




৯ ডিসেম্বর নিউজিল্যান্ড সফরে যাবে বাংলাদেশ দল

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০২ ডিসেম্বর 2০২1 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০২ ডিসেম্বর 2০২1 | ৩৭৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বিশ্বকাপ শেষেই ঘরের মাঠে পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। আগামী ৮ ডিসেম্বর শেষ হবে পাকিস্তান সিরিজ। এর পরেও অবশ্য বিশ্রামের সুযোগ নেই। পাকিস্তান সিরিজ শেষ হওয়ার পর দিনই নিউজিল্যান্ডে উড়াল দেবে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। সূচি অনুযায়ী, দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে নিউজিল্যান্ডে যাবে বাংলাদেশ দল। নতুন বছরের প্রথম দিন থেকেই শুরু হবে দুদলের লড়াই।

নিউজিল্যান্ড সফর নিয়ে আজ বৃহস্পতিবার মিরপুরে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন জানিয়েছেন, ৯ ডিসেম্বর সকালে যাত্রা নিউজিল্যান্ডের জন্য দেশ ছাড়বেন মুমিনুলরা।

এবারের সফরে কোয়ারেন্টিনে কিছুটা শীথিলতা এনেছে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট। এর আগের সফরে  দুই সপ্তাহ কোয়ারেন্টিনে ছিল বাংলাদেশ দল। এবার থাকতে হবে সাতদিন।

এ ব্যাপারে নিজামউদ্দিন চৌধুরী বলেন, আমাদের শেষ নিউজিল্যান্ড সিরিজে যে প্রটোকল ছিল, সেটা থেকেও কিছুটা শিথিল করা হয়েছে। তিন থেকে চারদিনের রুম কোয়ারেন্টাইন করতে হবে। বাকি সময় ওদের যে কোয়ারেন্টাইন সেন্টার, সেখানে থাকতে হবে তিন থেকে চারদিন। এর ফলে আমাদের কিছু বাড়তি সুযোগ এসেছে। আমাদের দল দুটি অনুশীলন ম্যাচ খেলার সুযোগ পাচ্ছে। দুটি দুদিনের অনুশীলন ম্যাচ হবে। একটা নিজেদের মধ্যে, আরেকটা নিউজিল্যান্ড একাদশের সঙ্গে। দুইটা অনুশীলন ম্যাচ খেলার পর বাংলাদেশ দল সরাসরি টেস্ট খেলবে।

২০২২ সালের ১ জানুয়ারি থেকে শুরু হবে প্রথম টেস্ট। প্রথম ম্যাচটি হবে মাউন্ট মঙ্গানুইতে। এরপর ৯ জানুয়ারি থেকে দ্বিতীয় টেস্ট। সেটি হবে ক্রাইস্টচার্চে। টেস্ট সিরিজের দুটি ম্যাচই টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ।

নিউজ ট্যাগ: নিউজিল্যান্ড

আরও খবর
মেসির সামনেই রেকর্ড ভেঙে দিলেন এমবাপে

বৃহস্পতিবার ০৯ ডিসেম্বর ২০২১




আবরও বিয়ের প্রস্তুতি নিচ্ছেন আমির খান

প্রকাশিত:রবিবার ২১ নভেম্বর 20২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২১ নভেম্বর 20২১ | ৫৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

তৃতীয় বিয়ের প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলিউড সুপারস্টার আমির খান। আগামী বছরের এপ্রিলে লাল সিং চাড্ডা সিনেমা মুক্তির পর বিয়ের ঘোষণা দিবেন এই তারকা। এমন গুঞ্জন অন্তর্জালে ঘুরছে।

সেসব গুঞ্জনে বলা হচ্ছে, আমির খান বিয়ে করতে যাচ্ছেন তাঁর দঙ্গলথাগস অব হিন্দোস্তান সিনেমার সহ-অভিনেত্রী ফাতিমা সানা শেখকে। এই তরুণ অভিনেত্রীকে ঘিরে এর আগেও একাধিকবার প্রেমের গুঞ্জন উঠেছে।

 যদিও এমন গুঞ্জন প্রসঙ্গে বলিউডের প্রেম-বিয়েবিষয়ক সংবাদমাধ্যম বলিউডশাদিস ডটকম বলছে, যত দূর আমরা জানি আমির খান ও ফাতিমা সানা দুজনেরই সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে। আমির খান সানাকে একজন পেশাদার হিসেবে সম্মান করেন, ফাতিমা আমিরকে তাঁর পরামর্শদাতা বলে মনে করেন। দুজনের রোমান্টিক লিঙ্ক-আপ বিষয়ে অনেক গুজব আছে, কিন্তু সত্য জানতে বা নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত আমাদের অপেক্ষা করতে হবে।

এর আগে ফিল্মফেয়ারকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ফাতিমা বলেছিলেন, যেসব মানুষ কোনোদিনও তাঁর সঙ্গে কথা বলেননি, দেখা হয়নি; তাঁরাই এসব লিখে চলেছেন। ওই সব খবরে বিন্দুমাত্র সত্যতা নেই। কিন্তু এসব পড়ার পর মানুষের মধ্যে ধারণা জন্মেছে, তিনি ভালো মানুষ নন।

 গেল জুলাইয়ে ১৫ বছরের সংসারজীবনের ইতি টেনেছেন বলিউড সুপারস্টার আমির খান ও কিরণ রাও দম্পতি।

 

নিউজ ট্যাগ: আমির খান

আরও খবর
সায়ন্তিকার গাড়িতে ট্রাকের ধাক্কা

বৃহস্পতিবার ০৯ ডিসেম্বর ২০২১