আজঃ শুক্রবার ০৫ মার্চ ২০২১
শিরোনাম

শাহবাগ থেকে আন্দোলনকারীদের সরিয়ে দিল পুলিশ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৯৮জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের অবরোধের ফলে শাহবাগে যান চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ ছিল। ফলে রাজধানীর বিভিন্ন জায়গায় ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়। সন্ধ্যার পর শাহবাগ এলাকায় যান চলাচল স্বাভাবিক হয়

৩০ শতাংশ কোটাসহ সাত দফা দাবিতে রাজধানীর শাহবাগ মোড় অবরোধ করে রাখা বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের নেতাকর্মীদের সরিয়ে দিয়েছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টায় প্রথমে জাতীয় জাদুঘরের সামনে তারা অবস্থান কর্মসূচি শুরু করে। পরে দুপুর ১২টা থেকে শাহবাগ অবরোধ করে রাখে আন্দোলনকারীরা। সন্ধ্যা ৬টায় পুলিশ জলকামান ও লাঠিচার্জ শুরু করলে তারা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। এতে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের কয়েকজন আহত হন এবং একজনকে পুলিশ আটক করেছে বলে দাবি আন্দোলনকারীদের।

মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের অবরোধের ফলে শাহবাগে যান চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ ছিল। ফলে রাজধানীর বিভিন্ন জায়গায় ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়। সন্ধ্যার পর শাহবাগ এলাকায় যান চলাচল স্বাভাবিক হয়।

মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড ঢাকা বিভাগের আহ্বায়ক হালদার মামুন বলেন, আমরা শান্তিপূর্ণভাবে অবস্থান কর্মসূচি করছিলাম। এর মধ্যেই বিনা উস্কানিতে পুলিশ আমাদের ওপর হামলা চালায়, জলকামান ব্যবহার করে। এতে আমাদের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। একজনকে গাড়িতে তুলে নিয়ে গেছে। আমার ওপর হামলা করেছে পুলিশ। আমরা এর তীব্র প্রতিবাদ জানাই। আগামীতে আমরা আরও কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করবো।

Share

আরও খবর



২২ ফেব্রুয়ারি আসছে টিকার দ্বিতীয় চালান

প্রকাশিত:সোমবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৯৪জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
এবার করোনা টিকার ২০-৩০ লাখ ডোজ আসবে। টিকা আনাটা চাহিদার ওপর ভিত্তি করে নির্ভর করছে। তবে চুক্তি লঙ্ঘন হওয়ার কোনো বিষয় নেই। টিকা নিয়ে সংকট হওয়ার কোনো সুযোগ নেই

দেশে করোনা টিকার দ্বিতীয় চালান আসবে আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি বলে জানিয়েছেন বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। সোমবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) সকালে রাজধানীর কুর্মিটোলা হাসপাতালে টিকা গ্রহণ শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, এবার করোনা টিকার ২০-৩০ লাখ ডোজ আসবে। টিকা আনাটা চাহিদার ওপর ভিত্তি করে নির্ভর করছে। তবে চুক্তি লঙ্ঘন হওয়ার কোনো বিষয় নেই। টিকা নিয়ে সংকট হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। ক্রিকেটারদের কাউকে টিকা নিতে বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে না। যে খুশি সে নিতে পারে।

এর আগে ২৫ জানুয়ারি দেশে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে কেনা অক্সফোর্ডের ৫০ লাখ করোনার টিকার চালান আসে। তার আগে ২০ লাখ ডোজ টিকা ঢাকায় এলেও সেটি ছিল বাংলাদেশকে দেওয়া ভারত সরকারের উপহার। ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে কেনা ৩ কোটি ডোজের দ্বিতীয় চালান এটি। প্রতিবারে ৫০ লাখ করে ৬ দফায় ঢাকায় আসবে অক্সফোর্ডের এ টিকা।

গত ২৭ জানুয়ারি এই টিকা প্রথম ৩০ জনকে দেওয়া হয়। সর্বপ্রথম টিকা নেন কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স রুনু ভেরোনিকা কস্তা। এরপর পর্যায়ক্রমে চিকিৎসক হিসেবে প্রথম টিকা নেন মেডিসিন কনসালট্যান্ট ডা. আহমেদ লুৎফর মবিন, তারপর স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা, ট্রাফিক পুলিশের সদস্য দিদারুল ইসলাম এবং সেনাবাহিনীর ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এম ইমরান হামিদ। স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে জানানো হয় দেশের দেশের ৬৪ জেলায় ১ ফেব্রুয়ারির মধ্যে করোনার টিকা পৌঁছে দেওয়া হবে। এবং ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে দেশে করোনাভাইরাসের গণটিকার কার্যক্রম শুরু হয়।

Share

আরও খবর



পি কে হালদার কীভাবে বিদেশে পালিয়েছেন, জানতে চান হাইকোর্ট

প্রকাশিত:সোমবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ১১১জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
পি কে হালদার দেশ ত্যাগ করার দিন বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশনে দায়িত্বরতদের এবং দুদকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের তালিকাও দাখিল করতে হবে। পুলিশের মহাপরিদর্শক, দুদকের তদন্ত কর্মকর্তা ও বাংলাদেশ

পাসপোর্ট জব্দের আদেশের পরও প্রশান্ত কুমার (পি কে) হালদার কীভাবে বিদেশে পালিয়ে গেলেন, জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে পি কে হালদারের মামলার সবশেষ অগ্রগতি জানাতে বলেছেন আদালত। ২০০৮ সাল থেকে বাংলাদেশ ব্যাংকের তিনটি বিভাগের কর্মকর্তাদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা ১৫ মার্চের মধ্যে দাখিল করার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তিনটি বিভাগে ২০১০ সাল থেকে কর্মরত ৩৯৪ কর্মকর্তার তালিকা হাইকোর্টে জমা দেওয়ার পর বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি মহি উদ্দিন শামীমের বেঞ্চ আজ সোমবার এ আদেশ দেন।

আদালত বলেছেন, পি কে হালদার দেশ ত্যাগ করার দিন বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশনে দায়িত্বরতদের এবং দুদকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের তালিকাও দাখিল করতে হবে। পুলিশের মহাপরিদর্শক, দুদকের তদন্ত কর্মকর্তা ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে এই নির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে হবে।

আদালতে দুদকের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক। বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার খান মোহাম্মদ শামীম আজিজ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তিনটি বিভাগে ২০০৮ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তাদের নাম, পদবি ও ঠিকানা সরবরাহ করতে গত ২১ জানুয়ারি নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে অর্থপাচার রোধে এসব কর্মকর্তার ব্যর্থতা আছে কি না এবং দায়িত্ব পালনে ব্যর্থদের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে কি না, তাও জানতে চান আদালত।

এ আদেশ অনুযায়ী বাংলাদেশ ব্যাংক হাইকোর্টকে জানায়, ডিপার্টমেন্ট অব ফিন্যান্সিয়াল ইনস্টিটিউশনস অ্যান্ড মার্কেটসে ১৪৭ জন, ফিন্যান্সিয়াল ইনস্টিটিউশনস ইন্সপেকশন ডিপার্টমেন্টে ৫৭ জন, ইন্টার্নাল অডিট ডিপার্টমেন্টে ১৯০ জন ২০১০ সাল থেকে কর্মরত। তবে, এর আগে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে জনবলের হিসাব রাখা হতো বলে ২০০৮ ও ২০০৯ সালের কর্মকর্তাদের তালিকা প্রণয়নে সময় চেয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বাংলাদেশ ব্যাংক হাইকোর্টকে জানায়, জালিয়াতি ও অর্থপাচার ঠেকাতে ব্যর্থতার বিষয়েও তদন্ত হচ্ছে। এ জন্যেও সময় প্রয়োজন। বিষয়গুলো উপস্থাপনের পর আদালত নতুন তারিখ দিয়েছে বলে জানান ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন।

একটি জাতীয় দৈনিকে পি কে হালদারকে ধরতে ইন্টারপোলের সহায়তা চাইবে দুদক শীর্ষক প্রতিবেদনের পর গত ১৯ নভেম্বর স্বপ্রণোদিত আদেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। এরই ধারাবাহিকতায় মামলাটির শুনানি চলছে।

Share

আরও খবর
অবশেষে জামিন পেলেন কার্টুনিস্ট কিশোর

বৃহস্পতিবার ০৪ মার্চ ২০২১




৩৯৫ রানের লক্ষ্য নিয়ে মঠে নামছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ

প্রকাশিত:শনিবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ১২৩জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

চট্টগ্রাম টেস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সামনে ৩৯৫ রানের জয়ের লক্ষ্য ছুড়ে দিয়েছে বাংলাদেশ। দ্বিতীয় ইনিংসে মুমিনুল হকের সেঞ্চুরিতে ভর করে ৮ উইকেটে ২২৩ রান তুলে ইনিংস ঘোষণা করেছে স্বাগতিকরা।

জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম মানেই যেন মুমিনুল হকের ব্যাটে রানের ফোয়ারা। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে চলতি টেস্টের প্রথম ইনিংসে তা হয়নি। তবে দ্বিতীয় ইনিংসেই মুমিনুল ফিরেছেন স্বরুপে। ক্যারিয়ারের দশম সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে। দেশের পক্ষে তিনিই এখন সবচেয়ে বেশি টেস্ট সেঞ্চুরির মালিক। ছাড়িয়ে গেছেন তামিমের ৯ সেঞ্চুরিকে।

১৮২ বলে ১০ বাউন্ডারিতে ১১৫ রান করে শ্যানন গ্যাব্রিয়েলের শিকার হয়েছেন মুমিনুল। তার আগে ১১২ বলে ৫ চারে ৬৯ রান করে জোমেল ওয়ারিকেনের বলে আউট হন লিটন দাস।

এরপর ইনিংসের ৬৮তম ওভারে এসে তাইজুল ইসলাম (৩) আর মেহেদি মিরাজকে (৭) ক্যারিবীয় এই স্পিনার চার বলের ব্যবধানে ফিরিয়ে দিলে আর দেরি না করে ইনিংস ঘোষণা করে দিয়েছে বাংলাদেশ।

আগের দিনের শেষ সেশনে ৩ উইকেটে ৪৭ রান করেছিল বাংলাদেশ। আজ চতুর্থ দিনের সকালে শুরুর পৌনে এক ঘণ্টা ভালোভাবেই কাটিয়ে দেন মুশফিকুর রহীম ও মুমিনুল হক। কিন্তু এরপরই ঘটে বিপদ। রাহকিম কর্নওয়ালের একটি অফস্ট্যাম্পের ডেলিভারি অনসাইডে খেলতে গিয়ে মিস করেন মুশফিক, বল আঘাত হানে প্যাডে।

বোলার ছাড়া বাকি ফিল্ডারদের কেউ সেভাবে আবেদনও করেননি। কিন্তু আম্পায়ার আঙুল তুলে দেন। মুশফিক রিভিউ নিয়েছিলেন। কাজ হয়নি, বল উইকেট হিট করেছে দেখা যায়। ফলে ৪৮ বলে ১৮ রানের ইনিংস নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয় মিস্টার ডিপেন্ডেবলকে। চতুর্থ উইকেটে মুশফিক-মুমিনুলের জুটিটি ছিল ৪০ রানের।

মুশফিক সাজঘরে ফেরার কিছু পরই ক্যারিয়ারের ১৪তম হাফসেঞ্চুরি তুলে নেন মুমিনুল। ক্যারিয়ারের ১৪তম ফিফটি করতে ৮৪ বল খেলেন তিনি। যেখানে ছিল ৫টি চারের মার।

দিনের শুরু থেকে গ্যাব্রিয়েলের শরীর বরাবর ধেয়ে আসা বাউন্সার কিংবা কর্নওয়ালের স্পিনের বিপক্ষে সাবলীল ব্যাটিং করেছেন মুমিনুল। ক্যারিবীয়দের কোনো পরিকল্পনাই সফল হতে দেয়নি মুমিনুল-লিটন জুটি।

দুই প্রান্ত থেকে সমান গতিতে রান করেছেন তারা। লিটনের বিপক্ষে অবশ্য একবার লেগ বিফোরের জোরাল আবেদন করেছিল ক্যারিবীয়রা। কিন্তু আম্পায়ার আউট দেননি, রিভিউ নিয়েও সফলতা পায়নি সফরকারি দল।

Share

আরও খবর



ভালোবাসা সম্পর্কে ইসলামের আইন

প্রকাশিত:বুধবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৬৪জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ভালোবাসা না থাকলে পৃথিবী টিকে থাকত না। সন্তানের প্রতি পিতা-মাতার অফুরন্ত ভালোবাসা আছে বলেই এত কষ্ট করে তারা সন্তানকে লালন-পালন করে। স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে গভীর ভালোবাসার কারণেই পারিবারিক বন্ধন আমরণ হয়। সম্পর্ক, বন্ধুত্ব ও ভালোবাসা সম্পর্কে ইসলামের দৃষ্টিভঙ্গি কী তার কিছু উদাহরণ দেয়া হলো-

আল্লাহর প্রতি ভালোবাসা : প্রতিটি মানুষের প্রথমেই দরকার আল্লাহর প্রতি ভালোবাসা। ঈমানের ভিত্তিতে মহান আল্লাহর সঙ্গে বান্দার সম্পর্ক ও ভালোবাসা তৈরি হয়। যার প্রতি ভালোবাসা তৈরি হয়, তার চাওয়া-পাওয়া অগ্রাধিকার পায়। আল্লাহকে ভালোবাসার উপায় ও পরিণাম সম্পর্কে আল্লাহ বলেন, মনে রেখো, যারা আল্লাহর বন্ধু, তাদের কোনো ভয়-ভীতি নেই, তারা চিন্তিতও হবে না। যারা ঈমান এনেছে এবং তাকওয়া অবলম্বন করেছে, তাদের জন্য সুসংবাদ পার্থিব জীবনে ও পরকালীন জীবনে। আল্লাহর কথার কখনো হেরফের হয় না। এটাই হলো মহা সফলতা। (সুরা : ইউনুস, আয়াত : ৬২-৬৪)

রাসুল (সা.)-এর প্রতি ভালোবাসা: রাসুল (সা.)-এর প্রতি ভালোবাসা ছাড়া ঈমানের পূর্ণতা আসে না।পার্থিব সব কিছুর ওপর রাসুল (সা.)-এর প্রতি ভালোবাসাকে প্রাধান্য দিতে হবে এবং তার আনুগত্যের মাধ্যমে ভালোবাসার প্রকাশ ঘটাতে হবে। আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী (সা.) বলেন, তোমাদের কেউ ততক্ষণ পর্যন্ত ঈমানদার হতে পারবে না, যতক্ষণ না আমি তার কাছে তার মাতা-পিতা সন্তান-সন্ততি ও সব মানুষ থেকে প্রিয় হব। (বুখারি, হাদিস : ১৫)

মুমিনদের প্রতি ভালোবাসা: সব ঈমানদার একে অন্যের ভাই। ভ্রাতৃত্বের এই বন্ধনের ক্ষেত্রে সময়-কাল বা ভৌগোলিক অবস্থাকে অন্তরায় করা যাবে না।

নোমান ইবনে বাশির (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, সব মুসলমান একটি দেহের মতো। যদি তার চোখ অসুস্থ হয় তাহলে পুরো শরীর অসুস্থ হয়ে যায়, যদি তার মাথা অসুস্থ হয় তাহলে পুরো শরীর অসুস্থ হয়ে যায়। (মুসলিম, হাদিস : ৬৭৫৪)

সব মানুষের প্রতি ভালোবাসা: মানুষ হিসেবে সবাই এক আদমের সন্তান। সব মানুষের প্রতি ভালোবাসা, উদার মনোভাব পোষণ এবং মানবীয় আচরণ প্রদর্শন ইসলামের অন্যতম শিক্ষা। জারির ইবনে আবদুল্লাহ (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি মানুষের প্রতি অনুগ্রহ করে না, আল্লাহ তার প্রতি অনুগ্রহ করেন না। (সহিহ বুখারি, হাদিস : ৬০১৩)

জীবের প্রতি ভালোবাসা: মানুষই শুধু মানুষের ভালোবাসা লাভের যোগ্য নয়, বরং বন্য ও গৃহপালিত পশু-পাখির প্রতিও ভালোবাসা প্রদর্শন ও দয়াশীল আচরণ করতে হবে। আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, সাহাবিরা জিজ্ঞাসা করেন, হে আল্লাহর রাসুল! জীবজন্তুর প্রতি দয়া প্রদর্শনের জন্যও কি আমাদের পুরস্কার আছে? রাসুল (সা.) বলেন, হ্যাঁ, প্রত্যেক দয়ার্দ্র হৃদয়ের অধিকারীদের জন্য পুরস্কার আছে। (বুখারি, হাদিস : ৫৬৬৩)

বৃক্ষলতার প্রতি ভালোবাসা: শুধু মানুষ আর প্রাণী নয়, বৃক্ষ-তরুলতাকেও ভালোবাসতে হবে। এরাই প্রকৃতির প্রাণ এবং পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষাকারী। কাজেই বৃক্ষরোপণ ও পরিচর্যা করতে হবে। আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী (সা.) বলেন, যদি নিশ্চিতভাবে জানো যে কিয়ামত এসে গেছে, তখন হাতে যদি একটি গাছের চারা থাকে, যা রোপণ করা যায়, তাহলে সেই চারাটি রোপণ করবে। (বুখারি, আদাবুল মুফরাদ : ৪৭৯; মুসনাদ আহমদ, হাদিস : ১৮৩)

সব সৃষ্টির প্রতি ভালোবাসা: আল্লাহর সব সৃষ্টির প্রতি ভালোবাসা প্রদর্শন করতে হবে। আনাস ও আবদুল্লাহ (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেন, গোটা সৃষ্টিজগৎ আল্লাহর পরিবার। সুতরাং সৃষ্টির মধ্যে আল্লাহর কাছে অতি প্রিয় ওই ব্যক্তি, যে তাঁর (আল্লাহর) পরিবারভুক্তদের প্রতি সদাচার করে। (মিশকাত, হাদিস : ৪৯৯৯)

ইসলামের দৃষ্টিতে ভালোবাসা সব সময়ের জন্য এবং সবার জন্য। ভালোবাসায় আছে আল্লাহর নির্দেশনার বাস্তবায়ন এবং দায়িত্ব ও কর্তব্যবোধ। কোনো অশ্লীলতা ও নির্লজ্জতার ভালোবাসা কোনোভাবেই ইসলামের ভালোবাসা নয়।

নিউজ ট্যাগ: ভালোবাসা
Share

আরও খবর
আজ সরস্বতী পূজা

মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১




রক্তাক্ত মিয়ানমার, এক দিনে নিহত অন্তত ৩৮

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৪ মার্চ ২০২১ | ৯০জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মিয়ানমারে ক্ষমতা দখলকারী সামরিক জান্তার বিরুদ্ধে বিক্ষোভে আবারও নিরাপত্তা বাহিনী গুলি চালিয়েছে। জাতিসংঘ জানিয়েছে, গতকাল বুধবার দেশটির বিভিন্ন নগর ও শহরে ৩৮ জন নিহত হয়েছে। পুলিশ ও সেনাদের গুলিতে নিহতদের মধ্যে রয়েছে চারটি শিশু । গত মাসে সেনা অভ্যুত্থানের পর শুরু হওয়া বিক্ষোভে গতকাল বুধবার একদিনে এত বেশি মানুষের মৃত্যু হলো।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মিয়ানমারে বুধবারের দেশব্যাপী বিক্ষোভে নিরাপত্তা বাহিনী অনেক ক্ষেত্রে সতর্ক না করেই নির্বিচারে গুলি চালায়। এর  আগে গত রোববার দেশটিতে জান্তাবিরোধী বিক্ষোভে গুলি ও সহিংসতায় অন্তত ১৮ জন নিহত হন।

মেসেজিং অ্যাপের মাধ্যমে অ্যাক্টিভিস্ট থিনজার শুনলেন গতকালের ঘটনায় বীভৎস ঘটনা। এটা রীতিমতো হত্যাকাণ্ড। পরিস্থিতি বা অনুভূতি বর্ণনা করার ভাষা নেই আমার।

নিউইয়র্কে অবস্থানরত মিয়ানমারে নিযুক্ত জাতিসংঘের বিশেষ দূত ক্রিস্টিন শ্রেনার বার্গেনার বলেন, গত ১ ফেব্রুয়ারি সেনা অভ্যুত্থানের পর থেকে আজ ছিল রক্তাক্ততম দিন। আজকেবল আজএকদিনে ৩৮ জন মানুষ নিহত হয়েছে। ক্যু শুরু হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত অর্ধশতাধিক মানুষ নিহত হয়েছে, আর আহত হয়েছে অনেক।

মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর এক মুখপাত্রের কাছে দেশটির বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলি চালানোর বিষয়ে জানতে ফোন করা হলে তিনি কিছু বলতে রাজি হননি।

মিয়ানমারে বুধবার সবচেয়ে বেশি হতাহতের ঘটনা ঘটেছে মোনায়া শহরে। নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে কমপক্ষে পাঁচজন নিহত হন সেখানে। পাঁচজনের মধ্যে চারজন পুরুষ, অন্যজন নারী।

গত ১ ফেব্রুয়ারির সামরিক অভ্যুত্থানের পর থেকে মিয়ানমারজুড়ে অস্থিরতা বিরাজ করছে। এতে ৫০ বছরেরও বেশি সময় ধরে সামরিক শাসনের অধীনে থাকা দেশটির গণতান্ত্রিক অগ্রযাত্রা রুদ্ধ হয়ে গেছে।

অভ্যুত্থানের পর থেকেই সামরিক শাসনবিরোধী গণতন্ত্রপন্থিরা রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ করছেন। আর, বিক্ষোভ দমনে সামরিক জান্তাও কঠোর অবস্থান নিয়েছে।

Share

আরও খবর
নেপালি পুলিশের গুলিতে যুবক নিহত

শুক্রবার ০৫ মার্চ ২০২১

কুয়েতে মাসজুড়ে কারফিউ ঘোষণা

শুক্রবার ০৫ মার্চ ২০২১