আজঃ মঙ্গলবার ২৫ জানুয়ারী ২০২২
শিরোনাম

সাতছড়িতে মর্টারশেল-গোলাবারুদ উদ্ধার

প্রকাশিত:সোমবার ২৭ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২৭ ডিসেম্বর ২০২১ | ৬৩০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

হবিগঞ্জের সাতছড়ির দুটি গহিন অরণ্যে অভিযান চালিয়ে মর্টারশেল ও গোলাবারুদ উদ্ধার করেছে কাউন্টার টেররিজম ইউনিট। তবে কি পরিমাণে উদ্ধার করা হয়েছে তা ব্রিফিংয়ে জানানো হবে।

কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের প্রধান কর্মকর্তা এলে ব্রিফিং করা হবে বলে জানিয়েছেন অভিযানে থাকা সোয়াদ কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান। তিনি বলেন, সোমবার ভোর থেকে কাউন্টার টেররিজমের একটি টিম সতর্কতার সঙ্গে সাতছড়ির গহিন অরণ্যে অভিযান চালায়। পরে একটি ব্যাংকার থেকে এসব গোলাবারুদ উদ্ধার করা হয়।

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের ১ জুন থেকে ১৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ছয় দফায় অভিযান চালিয়ে সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান থেকে ৩৩৪টি কামান বিধ্বংসী রকেট, ২৯৬টি রকেট চার্জার, একটি রকেট লঞ্চার, ১৬টি মেশিনগান এবং প্রায় ১৬ হাজার রাউন্ড বুলেটসহ বিপুল পরিমাণ গোলাবারুদ উদ্ধার করে র‌্যাব।

এরপর একই বছরের ১৬ অক্টোবর থেকে চতুর্থ দফার প্রথম পর্যায়ে উদ্যানের গহিন অরণ্যে মাটি খুঁড়ে ৩টি মেশিনগান, ৪টি ব্যারেল, ৮টি ম্যাগাজিন, ২৫০ গুলির ধারণক্ষমতাসম্পন্ন ৮টি বেল্ট ও উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন রেডিও উদ্ধার করা হয়। পরে ১৭ অক্টোবর দুপুরে এসএমজি ও এলএমজির ৮ হাজার ৩৬০ রাউন্ড, রাইফেলের ১৫২ রাউন্ড, পিস্তলের ৫১৭ রাউন্ড, মেশিনগানের ৪২৫ রাউন্ডসহ মোট ৯ হাজার ৪৫৪ রাউন্ড বুলেট উদ্ধার করা হয়।

পঞ্চম দফায় ২০১৮ সালের ২ ফেব্রুয়ারি সাতছড়িতে অভিযান চালিয়ে ১০টি হাই এক্সক্লুসিভ ৪০ এমএম অ্যান্টি-ট্যাংক রকেট উদ্ধার করা হয়। ষষ্ঠ দফায় ২০১৯ সালের ২৪ নভেম্বর সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান থেকে ১৩টি রকেট লঞ্চারের শেলসহ বেশ কিছু বিস্ফোরক উদ্ধার করা হয়। গত ২ মার্চ বিজিবি অভিযান চালিয়ে ১৮ ট্যাংক বিধ্বংসী রকেট গোলা উদ্ধার করে।

সর্বশেষ গত ১৩ আগস্ট হবিগঞ্জের চুনারুঘাটের সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানসংলগ্ন একটি ব্রিজের পাশ থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় ৯টি একনলা বন্দুক, ৩টি পিস্তল ও ১৯ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করেছে বিজিবি।


আরও খবর
হবিগঞ্জে এসপিসহ ৫৪ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা

বৃহস্পতিবার ৩০ ডিসেম্বর ২০২১




১৫ জানুয়ারির পর টিকা ছাড়া স্কুলে যাওয়া যাবে না

প্রকাশিত:রবিবার ০৯ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৯ জানুয়ারী ২০২২ | ৪৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

১২ বছরের বেশি বয়সি শিক্ষার্থীদের টিকা গ্রহণ না করলে শ্রেণি কার্যক্রম তথা স্কুল-কলেজে না যাওয়ার লিখিত নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। শনিবার মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা পাঠিয়েছে। এতে নিবন্ধিত ও অনিবন্ধিত ১২-১৮ বছর বয়সী সব শিক্ষার্থীর টিকা গ্রহণ নিশ্চিত করতে বলা হয়।

মাউশির নির্দেশনায় বলা হয়, ১২-১৮ বছর বয়সী সব শিক্ষার্থীকে ১৫ জানুয়ারির মধ্যে কোভিড-১৯ প্রতিরোধে ভ্যাকসিন দেওয়ার লক্ষ্যে ইতোমধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে গত ৩০ ডিসেম্বর বিভিন্ন নির্দেশনা দেওয়া হয়। রাষ্ট্রের এ গুরুত্বপূর্ণ ও অগ্রাধিকার কর্মসূচির সফল বাস্তবায়নে নতুন করে নির্দেশনা দেওয়া হলো।  

আগামী ১৫ জানুয়ারির মধ্যে প্রায় সব শিক্ষার্থীর টিকাদান কার্যক্রম শেষ হবে এবং এরপর থেকেই টিকা না নেওয়া শিক্ষার্থীরা শ্রেণি কার্যক্রমে অংশ নিতে পারবেন না বলে জানা গেছে।

এর আগে বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম জানিয়েছিলেন, ১২ বছরের বেশি বয়সি শিক্ষার্থীদের টিকা নিয়েই স্কুলে যেতে হবে। করোনাভাইরাসের টিকার অন্তত এক ডোজ নেওয়া না থাকলে তাদের স্কুলে যেতে নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি নিয়ে সরকার জোরালোভাবে ভাবছে।


আরও খবর
করোনায় ১৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৪৮২৮

সোমবার ২৪ জানুয়ারী ২০২২




আজ আপনার জন্মদিন হলে

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৪ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ জানুয়ারী ২০২২ | ৩০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আজ আপনার জন্মদিন হলে পাশ্চাত্য জ্যোতিষে আপনি মকর রাশির জাতক/ জাতিকা। আপনার জন্মসংখ্যা : ৫। আপনার ওপর প্রভাবকারী গ্রহ : শনি ও বুধ। আপনার শুভ সংখ্যা : ৫ ও ৮। শুভ বার : শনি ও বুধ। শুভ রত্ন : নীলা ও পান্না।

মেষ (২১ মার্চ-২০ এপ্রিল)

অধীনদের কাজে লাগাতে পারবেন। মূল্যবোধ সমুন্নত থাকতে পারে। আত্মীয়দের সঙ্গে দেখা হতে পারে। আর্থিক দিক ভালো যাবে। প্রাপ্তিযোগ আছে।

বৃষ (২১ এপ্রিল-২০ মে)

শরীর ভালো থাকবে। মানসিক প্রশান্তি বজায় থাকতে পারে। ভালো ব্যবহার দিয়ে কাজ আদায় করতে পারবেন। ব্যক্তিত্ব বিকাশের সুযোগ পেতে পারেন। ব্যবসায়িক দিক ভালো যাবে।

মিথুন (২১ মে-২০ জুন)

দিনটি মিশ্র সম্ভাবনাময়। আইনগত ঝামেলা এড়িয়ে চলুন। গোপন শত্রুরা ক্ষতি করার চেষ্টা করতে পারে। শরীর অসুস্থ হতে পারে। অসুস্থতাকে অবহেলা না করে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

কর্কট (২১ জুন-২০ জুলাই)

জ্যেষ্ঠ ভাইবোনদের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় থাকতে পারে। প্রয়োজনে তাদের সহযোগিতা পেতে পারেন। আর্থিক দিক ভালো যাবে। আয় উপার্জন বৃদ্ধি পেতে পারে। ভবিষ্যতের জন্য কোনো পরিকল্পনা গ্রহণ করতে পারেন।

সিংহ (২১ জুলাই-২১ আগস্ট)

পিতৃস্বাস্থ্য ভালো যাবে। সামাজিক অবস্থান সুদৃঢ় হতে পারে। কর্মপরিবেশ অনুকূল থাকবে। কর্মস্থলে নিজের কর্তৃত্ব বজায় রাখতে পারবেন। সুনাম ও মর্যাদা বৃদ্ধি পেতে পারে।

কন্যা (২২ আগস্ট-২২ সেপ্টেম্বর)

উচ্চ শিক্ষার্থীদের জন্য দিনটি শুভ। জ্ঞানস্পৃহা বৃদ্ধি পাবে। কোনো আশা পূরণ হতে পারে। কাজকর্মে ভাগ্যের আনুকূল্য পেতে পারেন। ভ্রমণ ফলপ্রসূ হতে পারে।

তুলা (২৩ সেপ্টেম্বর-২২ অক্টোবর)

ব্যবসায়িক দিক খুব একটা ভালো যাবে না। ঝুঁকিপূর্ণ বিনিয়োগ পরিহার করুন। ট্যাক্স সংক্রান্ত কোনো ঝামেলা হতে পারে। পরধন প্রাপ্তির সম্ভাবনা আছে। জৈবিক কামনা বাসনাকে সংযত রাখুন।

বৃশ্চিক (২৩ অক্টোবর-২১ নভেম্বর)

পারস্পরিক সামাজিক সম্পর্ক বজায় রাখুন। দাম্পত্য সম্পর্ক ভালো থাকবে। ব্যবসায়িক দিক ভালো যাবে। নতুন বিনিয়োগ ফলপ্রসূ হতে পারে। কোনো ঘনিষ্ঠ বন্ধুর সহযোগিতা পেতে পারেন।

ধনু (২২ নভেম্বর-২০ ডিসেম্বর)

ব্যক্তিগত দায় দায়িত্ব বৃদ্ধি পেতে পারে। কর্মপরিবেশ খুব একটা অনুকূল না-ও থাকতে পারে। সীমা লংঘন করা ঠিক হবে না। শরীর অসুস্থ হতে পারে। প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ করুন।

মকর (২১ ডিসেম্বর-১৯ জানুয়ারি)

বিদ্যার্থীদের জন্য দিনটি শুভ। পড়াশোনায় মন বসাতে পারবেন। সৃজনশীল কাজে অংশ নিতে পারেন। সেক্ষেত্রে সাফল্য পেতে পারেন। প্রণয় প্রস্তাবে সাড়া পেতে পারেন।

কুম্ভ (২০ জানুয়ারি-১৮ ফেব্রুয়ারি)

বিলাস দ্রব্য ক্রয় করতে পারেন। মনের কোনো গোপন ইচ্ছা পূরণ হতে পারে। মন ভালো থাকবে। আত্মীয়দের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় থাকতে পারে। জ্ঞানস্পৃহা বৃদ্ধি পেতে পারে।

মীন (১৯ ফেব্রুয়ারি-২০ মার্চ)

প্রবাসী আপনজনের সঙ্গে যোগাযোগ হতে পারে। প্রাপ্ত তথ্যের উপর নির্ভর করতে পারেন। কাজকর্মে উৎসাহ বোধ করতে পারেন। ছোট ভাইবোনদের সঙ্গে সম্পর্ক ভালো থাকতে পারে। প্রয়োজনে তাদের সহযোগিতা পেতে পারেন।

নিউজ ট্যাগ: আজকের রাশিফল

আরও খবর
আজ আপনার জন্মদিন হলে

সোমবার ২৪ জানুয়ারী ২০২২

আজ আপনার জন্মদিন হলে

রবিবার ২৩ জানুয়ারী ২০২২




র‌্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে যুক্তরাষ্ট্রকে বাংলাদেশের চিঠি

প্রকাশিত:রবিবার ০২ জানুয়ারী 2০২2 | হালনাগাদ:রবিবার ০২ জানুয়ারী 2০২2 | ৪৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) কর্মকাণ্ড তুলে ধরে চিঠি দিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আব্দুল মোমেন।

র‌্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা পুনর্বিবেচনা করতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে আব্দুল মোমেন এই আহ্বান জানিয়েছেন। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেনকে দেওয়া চিঠিতে সন্ত্রাসবিরোধী কর্মকাণ্ডে র‌্যাবের ভূমিকাও তুলে ধরেছেন আব্দুল মোমেন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র থেকে জানা গেছে, ২০২২ সালের ইংরেজি নববর্ষ শুভেচ্ছা জানিয়ে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে চিঠি দেন আব্দুল মোমেন। ওই চিঠিতে বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক আরও শক্তিশালী করার আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দেওয়া চিঠিতে সন্ত্রাস, জঙ্গি, মাদকবিরোধী কর্মকাণ্ডে র‌্যাবের ভূমিকাও তুলে ধরেছেন তিনি।

প্রসঙ্গত, ২০২১ সালে ১০ ডিসেম্বর বাংলাদেশে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে র‌্যাবের সাবেক ও বর্তমানসহ সাত কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

এ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে বাংলাদেশ সরকার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এটিকে যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে বড় ধরনের কূটনৈতিক চাপ হিসেবেও দেখছে সরকার।


আরও খবর



খুলনায় বিড়ি শ্রমিকদের মানববন্ধন

প্রকাশিত:বুধবার ১২ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১২ জানুয়ারী ২০২২ | ৪৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

খুলনা প্রতিনিধি :

৫ দফা দাবিতে মানববন্ধন করেছে খুলনা জেলা বিড়ি শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদ। বুধবার বেলা ১১টায় খুলনা প্রেসক্লাবের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে বিড়ির উপর শুল্ক কমানো, বিড়ির উপর অর্পিত ১০ শতাংশ অগ্রিম আয়কর প্রত্যাহার, বিড়ি শ্রমিকদের সপ্তাহে ৬দিন কাজের ব্যবস্থা, বহুজাতিক কোম্পানীর ষড়যন্ত্র বন্ধ ও কাস্টমস্ কর্তৃপক্ষকে আইনী প্রক্রিয়ায় নকল বিড়ি বন্ধে পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি জানান শ্রমিকরা।

বাংলাদেশ বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশনের যুগ্ম সম্পাদক হারিক হোসেনের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন খুলনা অঞ্চলের বিড়ি শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক আব্দুস সালামা মুন্সী। মানববন্ধনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি এমকে বাঙ্গালী। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশনের  সহ-সভাপতি আনোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান, প্রচার সম্পাদক শামীম ইসলাম, খুলনা অঞ্চলের বিড়ি শ্রমিক নেতা আজাদ প্রমুখ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, খুলনাসহ পার্শ্ববর্তী এলাকার বহু শ্রমিক বিড়ি কারখানায় কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে। দেশের প্রাচীন শ্রমঘন বিড়ি শিল্পে সমাজের অসহায়, হতদরিদ্র, স্বামী পরিত্যক্তা, নদী ভাঙ্গন কবলিত জনগন, শারীরিক বিকলঙ্গসহ সুবিধা বঞ্চিত মানুষ কাজ করে পরিবার পরিচালনা করে। স্বাধীনতার পর এদেশের সাধারণ মানুষ ও অসহায় শ্রমিকদের কথা বিবেচনা করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিড়ি শিল্পকে শুল্কমুক্ত ঘোষণা করেন। শ্রমবান্ধব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০০৯-২০১০ অর্থবছরের বাজেট বক্তৃতায় বিড়িতে শুল্ক কমিয়ে সিগারেটে শুল্ক বৃদ্ধির নির্দেশনা দেন। কিন্তু ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো কোম্পানী এদেশের কিছু দুর্নীতিগ্রস্থ আমলাকে ব্যবহার করে বিড়ির উপর চাপিয়ে দেওয়া হয় মাত্রাতিরিক্ত করের বোঝা। ফলে করের বোঝা সহ্য করতে না পেরে বিড়ি মালিকরা কারখানা বন্ধ করতে বাধ্য হচ্ছে। কারখানা বন্ধ হওয়ায় কর্ম হারিয়ে বেকার হয়ে পড়ছে বিড়ি শ্রমিকরা। অন্য কাজ না পেয়ে অনাহারে, অর্ধাহারে দিনাতিপাত করছে।

বক্তারা আরো বলেন, বিদেশী বহুজাতিক কোম্পানী এদেশের মানুষের ফুসফুস পুড়িয়ে বিদেশে টাকা পাচার করছে। অথচ ষড়যন্ত্রমূলকভাবে দেশীয় বিড়ি শিল্প ধ্বংস করা হচ্ছে। আমরা এষড়যন্ত্রের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। দেশীয় শিল্প বন্ধের ষড়যন্ত্র বন্ধ না হলে তীব্র আন্দোলনের হুমকি দেন বক্তারা।


আরও খবর



বিশ্ব দরবারে পাওয়া মর্যাদা ধরে রাখার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

প্রকাশিত:বুধবার ১৯ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জানুয়ারী ২০২২ | ২৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলাদেশ উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে বিশ্ব দরবারে যে মর্যাদা পেয়েছে, সেটি ধরে রাখার লক্ষ্য নিয়ে সবাইকে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।বুধবার (১৯ জানুয়ারি) গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সামরিক বাহিনী কমান্ড ও স্টাফ কলেজ (ডিএসসিএসসি) কোর্সের ২০২১-২০২২ গ্র্যাজুয়েশন অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে তিনি এই আহ্বান জানান।

শেখ হাসিনা বলেন, এক সময় বাংলাদেশ সম্পর্কে বিদেশে অনেক নেতিবাচক কথা ছিল। তবে এখনও কিছু কিছু লোক আছে বাংলাদেশ সম্পর্কে বদনাম করতেই বেশি পছন্দ করে। কিন্তু আমাদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের ফলে এবং আন্তর্জাতিক শান্তি রক্ষা এবং দেশের অভ্যন্তরে সন্ত্র্যাস, জঙ্গিবাদ দমনে আমরা যে দক্ষতা দেখিয়েছি, তার ফলে আজকে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি বিশ্বে উজ্জ্বল হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ঠিক ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে জয়লাভ করার পর যে সম্মান আমরা আন্তর্জাতিকভাবে পেয়েছিলাম, ১৯৭৫ সালের ১৫ অগাস্টের পর যে সম্মান আমরা হারিয়েছিলাম, আজকে আবার সেই সম্মান আমরা পুনরুদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছি। এখন আর বাংলাদেশকে কেউ অবহেলা করতে পারে না। বাংলাদেশ উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে বিশ্ব দরবারে মর্যাদা পেয়েছে। এই মর্যাদা ধরে রাখতে হবে।

২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশের কাতারে পৌঁছে ২০৭১ সালে স্বাধীনতার শতবর্ষ উদযাপনের স্বপ্নের কথা জানিয়ে নবীন কর্মকর্তাদের উদ্দেশে শেখ হাসিনা বলেন, উন্নত বাংলাদেশ গড়ে তোলার সৈনিক হিসেবে কাজ করতে হবে। সব সময় মাথা উঁচু করে চলতে হবে এবং দেশকে ভালোবাসতে হবে, দেশের মানুষকে ভালোবাসতে হবে। দেশের জন্য নিবেদিতপ্রাণ হতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ আজকে স্বাধীন দেশ। বাংলাদেশের এই অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রা আর কখনো কেউ থামিয়ে দিতে পারবে না, সেই ভাবেই বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে সামনের দিকে।

নিজেকে সেনা পরিবারের একজন সদস্য বলেই মনে করেন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানে বলেন, আমার দুই ভাই সেনাবাহিনীর সদস্য ছিল। ক্যাপ্টেন শেখ কামাল এবং লেফটেন্যান্ট শেখ জামাল। কামাল মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশ প্রথম যুদ্ধ প্রশিক্ষণ কোর্স শেষ করে যুদ্ধে অংশগ্রহণ করে। পরে তাকে মুক্তিযুদ্ধকালীন প্রধান সেনাপতির এডিসি হিসেবে আমাদের সরকার দায়িত্ব দেয় এবং সেই দায়িত্ব সে পালন করে। আর জামাল সরাসরি মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করে। আমার চাচা শেখ আবু নাসেরের সাথে ৯ নম্বর সেক্টরে যুদ্ধ করেছিল।

মুক্তিযুদ্ধের দিনগুলোর কথা স্মরণ করে বঙ্গবন্ধুর মেয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ১৯৭১ সালে আমার মা, জামাল, রেহানা, রাসেল এবং আমি; আমরা গ্রেপ্তার হয়েছিলাম। জামাল গেরিলা কায়দায় সেখান থেকে পালিয়ে যায় এবং পালিয়ে গিয়ে সে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করে। তার ওই বন্দিখানা থেকে বের হয়ে যাওয়াটা মুক্তিযুদ্ধে যখন ট্রেনিং দেওয়া হয়, তখন সেটা খুব ভালোভাবে প্রচার করা হত এবং প্রশিক্ষণের একটা অংশ হিসেবে ব্যবহার করা হতো। পরে ব্রিটিশ রয়্যাল মিলিটারি অ্যাকাডেমি, স্যান্ডহার্স্ট থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে স্বাধীনতার পর সে সরাসরি আমাদের সেনাবাহিনীতে কমিশন লাভ করেছিল।

ছোট ভাই রাসেলের ইচ্ছার কথা স্মরণ করে শেখ হাসিনা বলেন, তার একটা আকাঙ্ক্ষাই ছিল ছোটবেলা থেকে, যে সে বড় হলে সামরিক বাহিনীর অফিসার হবে। কিন্তু সেই আকাঙ্ক্ষা তার আর পূরণ হয়নি।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু পরিবারের প্রায় সবাইকে হত্যা করে একদল সেনা সদস্য। দেশের বাইরে থাকায় বেঁচে যান কেবল শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা।

সশস্ত্র বাহিনীর উন্নয়ন ও আধুনিকায়নে আওয়ামী লীগ সরকারের নেওয়া নানা পদক্ষেপের কথাও অনুষ্ঠানে তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ডিএসসিএসসি এ পর্যন্ত সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী এবং বিমান বাহিনীর মোট ১২৮টি কোর্স পরিচালনা করেছে এবং ৫ হাজার ৬৮৬ জনকে ডিগ্রি দিয়েছে। ৪৩টি দেশের ১ হাজার ২৫৫ জন অফিসার সেখান থেকে ডিগ্রি নিয়ে নিজ দেশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। আমি আনন্দিত, এবারও ১৮টি দেশের ৪৭ জন বিদেশি কর্মকর্তা এবং বাংলাদেশ পুলিশের তিনজন কর্মকর্তাসহ মোট ২৫১ জন পিএসসি ডিগ্রি লাভ করলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, চলতি ডিএসসিএসসি কোর্সে সেনা, নৌ ও বিমানবাহিনী থেকে নারীদের জন্য ৫টি আসন সংরক্ষণের নির্দেশ তিনি দিয়েছিলেন। প্রকৃতপক্ষে আমরা ১০টি আসন সংরক্ষণ করি পরে। আমাদের সশস্ত্র বাহিনীতে নারীর ক্ষমতায়ন ত্বরান্বিত হয়েছে। অংশগ্রহণকারী অফিসারদের স্পাউসরাও প্রশিক্ষণের অংশ হিসেবে বিভিন্ন গঠনমূলক ও সামাজিক কর্মকাণ্ডে অংশ নিচ্ছেন, আমি মনে করি প্রশিক্ষণের ক্ষেত্রে তারাও অবদান রাখতে পারছেন।


আরও খবর