আজঃ মঙ্গলবার ২৫ জানুয়ারী ২০২২
শিরোনাম

সীমান্তে লেথাল আর্মস ব্যবহার বন্ধ হচ্ছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১১ জানুয়ারী ২০২২ | ৪৫৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সীমান্তে লেথাল আর্মস ব্যবহার বন্ধ হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি বলেন, বাংলাদেশ-ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যা‌য়ে আলোচনায় এই সিদ্ধান্ত হ‌য়ে‌ছে।

মঙ্গলবার (১১ জানুয়া‌রি) দুপুর ১টায় র‍্যাব-১৩ রংপুর, কর্তৃক আ‌য়ো‌জিত কু‌ড়িগ্রা‌মের ধরলা নদীর পূর্ব প্রা‌ন্তে শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠা‌নে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ কথা জানান।

আসাদুজ্জামান খান ব‌লেন, বাংলা‌দেশ-ভারত ভ্রাতৃপ্রতীম দেশ। সীমা‌ন্তের ওপা‌রে যারা থা‌কেন তা‌দের সঙ্গে এপা‌রের সীমান্তবর্তী বা‌সিন্দা‌দের নানা কা‌জে সুসম্পর্ক থা‌কে। হয়‌তো ম‌নের টা‌নে নি‌জের অজা‌ন্তে অনে‌কে সীমানা অতিক্রম ক‌রে ফে‌লেন। হয়‌তো অনেকে যেটা করা উচিত নয় সেটাও ক‌রে ফে‌লেন। এ জন্য মা‌ঝে মা‌ঝে দুই-এক‌টি ঘটনা ঘ‌টে যায়।

সীমা‌ন্তে হত্যা ব‌ন্ধে গৃহীত উদ্যোগ প্রস‌ঙ্গে মন্ত্রী ব‌লেন, ‌দুই দে‌শের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যা‌য়ে এবং বি‌জি‌বি-বিএসএফ পর্যা‌য়ে আলোচনা হ‌য়ে‌ছে। সিদ্ধান্তটা হয়েছে, সীমান্ত হত্যা বন্ধ হ‌বে এবং লেথাল আর্মস ব্যবহার করা হ‌বে না। তারপরও মা‌ঝে মা‌ঝে কিছু ঘটনা ঘ‌টে যায়। এই ঘটনা যাতে না ঘটে, সে ব্যাপারে সবাই আন্তরিক।’

বিএন‌পি নেতাকর্মী‌দের বিরু‌দ্ধে অনাহুত কার‌ণে মামলা দেওয়া হ‌চ্ছে—এমন অভি‌যোগ প্রস‌ঙ্গে মন্ত্রী ব‌লেন, অনাহুত কারণ কা‌কে ব‌লে আমি সেটা জা‌নি না। যখন ভাঙচুর হয়, জীবননাশ হয়, অগ্নি সং‌যো‌গের ঘটনা ঘ‌টে, তখন এসব মামলা হয়।’

প‌রে এক হাজারেরও বেশি দুস্থ মানু‌ষের মা‌ঝে শীতবস্ত্র বিতরণ ক‌রেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন কুড়িগ্রাম-৪ আসনের সংসদ সদস্য প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন, কুড়িগ্রাম-১ আসনের সংসদ সদস্য আসলাম হোসেন সওদাগর, কুড়িগ্রাম-২ আসনের এমপি পনির উদ্দিন আহমেদ,  কুড়িগ্রাম-৩ আসনের এমপি এম এ মতিন, র‌্যাবের মহাপরিচালক (ডিজি) আবদুল্লাহ আল-মামুন প্রমুখ।


আরও খবর



মূল্যস্ফীতি সহনীয় পর্যায়ে রয়েছে: অর্থমন্ত্রী

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০১ জানুয়ারী ২০২২ | ২৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আমাদের দেশে মূল্যস্ফীতি সহনীয় পর্যায়ে রয়েছে, কিন্তু জিনিসপত্রের দাম বাড়ছে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। শনিবার (০১ জানুয়ারি) জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ কর্তৃক বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উত্তরণ সম্পর্কীত চূড়ান্ত সুপারিশের প্রেক্ষিতে ঢাকায় স্মারক অনুষ্ঠান সম্পর্কিত ভার্চ্যুয়াল প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, সারাবিশ্বেই মূল্যস্ফীতি আছে। আমাদের দেশে মূল্যস্ফীতি নাই, আমাদের এখানে ইনফ্লাশন নাই। কিন্তু জিনিসের দাম বাড়ছে। কম বাড়ছে, সহনীয় পর্যায়ে আছে। আপনারা যদি অন্য যে কোনো দেশের সঙ্গে মেলান।

এই মুর্হুতে মূল্যস্ফীতির আন্তর্জাতিক গ্রহণযোগ্যতার সঙ্গে তুলনা করলে বাংলাদেশ সবচেয়ে সেরা জায়গা। আপনাদের সেটা বিবেচনা করতে হবে।  এগুলো (মূল্যস্ফীতি) আমাদের এখানে নাই। গত ১৫ বছর ধরে আমাদের মূল্যস্ফীতি ৪-৫ শতাংশের নিচে। পৃথিবীতে এমন কোনো দেশে খুঁজে পাওয়া যাবে না।  

অর্থমন্ত্রী রেমিটেন্সে প্রণোদনা বাড়ানোর বিষয়ে বলেন, চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের মধ্যে আমাদের ২৬ বিলিয়ন ডলারে রেমিটেন্স সংগ্রহের লক্ষ্য রয়েছে। এজন্য প্রণোদনা ২শতাংশ থেকে বৃদ্ধি করে ২দশমিক ৫শতাংশ করা হয়েছে। প্রণোদনা দেওয়ার আগে বৈধপথে মাত্র ৪৯শতাংশ রেমিটেন্স দেশে আসতো। আমরা চেষ্টা করছি প্রবাসীরা যত টাকা আয় করে তার পুরোটাই বৈধপথে দেশে আনার। এতে আমাদের কাছে প্রবাসী আয়ের একটা হিসাব থাকবে।


আরও খবর
অর্ধেক জনবলে চলবে ব্যাংক

সোমবার ২৪ জানুয়ারী ২০২২

শেয়ারবাজারে বড় দরপতন

সোমবার ২৪ জানুয়ারী ২০২২




ঢাবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচন আজ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ ডিসেম্বর ২০২১ | ৪৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
নির্বাচনে অংশ নিতে এরই মধ্যে দলীয় প্যানেল চূড়ান্ত করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের আওয়ামী লীগপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন নীল দল ও বিএনপিপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন সাদা দল

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির কার্যকরী পরিষদ ২০২২-এর নির্বাচন আজ (বৃহস্পতিবার)। সকাল ১০টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাবে এ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

গঠনতন্ত্র অনুযায়ী, শিক্ষক সমিতির ১৫টি পদে নির্বাচন হবে। নির্বাচনে অংশ নিতে এরই মধ্যে দলীয় প্যানেল চূড়ান্ত করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের আওয়ামী লীগপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন নীল দল ও বিএনপিপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন সাদা দল। এবারের নির্বাচনে মোট ভোটার ১ হাজার ৯৫০ জন।

করোনার কারণে গত নির্বাচনে বিএনপিপন্থী সংগঠন সাদা দল অংশগ্রহণ না করায় বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় সব পদে জয় লাভ করে নীল দল। এছাড়াও গত কয়েক বছর ধরে এই শিক্ষক সমিতিতে আওয়ামী লীগ সমর্থক প্যানেল জয়ী হয়ে আসছে। তার আগে টানা কয়েকবার বিএনপি সমর্থকরা সমিতির নিয়ন্ত্রণে ছিলেন।

নীল দল থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন যারা

নীল দলের প্যানেল থেকে এবারও সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আইন বিভাগের ভারপ্রাপ্ত ডিন অধ্যাপক ড. মো রহমত উল্লাহ এবং সাধারণ সম্পাদক পদে পুষ্টি ও খাদ্য ইন্সটিটিউটের অধ্যাপক ড. মো. নিজামুল হক ভূইয়া। সহ-সভাপতি পদে অনুজীব বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. সাবিতা রিজওয়ানা রহমান, কোষাধ্যক্ষ পদে ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেম বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. আকরাম হোসেন, যুগ্ম-সম্পাদক পদে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. আবদুর রহিম প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এছাড়া ১০টি সাধারণ সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন- বিজনেস অনুষদের ভারপ্রাপ্ত ডিন অধ্যাপক ড. মঈন, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ভারপ্রাপ্ত ডিন অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম, সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. জিনাত হুদা, টেলিভিশন, ফিল্ম অ্যান্ড ফটোগ্রাফি বিভাগের অধ্যাপক ড. এ জেএম শফিউল আলম ভূইয়া, ভাষা বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. ফিরোজা ইয়াসমীন, তথ্য বিজ্ঞান ও গ্রন্থাগার ব্যবস্থাপনা বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. নাসিরুদ্দিন মুন্সি, ফার্মেসি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. ফিরোজ আহমেদ, রোবটিক্স অ্যান্ড মেকাট্রনিক্স ইঞ্জিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. লাফিফা জামাল, অধ্যাপক চন্দ্রনাথ পোদ্দার ও পদার্থ বিভাগের অধ্যাপক ড. ইসতিয়াক এম সৈয়দ।

সাদা দল থেকে যারা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন

এবার সাদা দল থেকে সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন প্রাণরসায়ন ও অণুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ও চেয়ারম্যান ড. ইয়ারুল কবীর এবং সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক ড. আব্দুস সালাম। সহ-সভাপতি পদে প্রাণরসায়ন ও অণুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মামুন আহমেদ, কোষাধ্যক্ষ পদে অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আল আমিন, যুগ্ম সম্পাদক পদে দর্শন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মো. দাউদ খাঁন।

এছাড়া ১০টি সাধারণ সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন- অধ্যাপক ড. আশেকুল আলম রানা, অধ্যাপক ড. এ এস এস আমানুল্লাহ, অধ্যাপক ড. এবিএম ওবায়দুল ইসলাম, অধ্যাপক ড. এবিএম শহিদুল ইসলাম, অধ্যাপক ড. এস এম মোস্তফা আল মামুন, অধ্যাপক ড. মো. জসীম উদ্দিন, অধ্যাপক ড. মো. আব্দুল মজিদ, অধ্যাপক ড. মো. মহিউদ্দিন, অধ্যাপক মো. লুৎফর রহমান ও সহযোগী অধ্যাপক সৈয়দ তানভীর রহমান।

সাদা দলের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী অধ্যাপক ড. আব্দুস সালাম বলেন, আমরা বিশ্বাস করি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা অত্যন্ত মেধাবী। তারা বর্তমান পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে রায় দেবেন। আর আশা করছি সেটা আমাদের পক্ষে আসবে।

নীল দলের প্যানেল থেকে সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী অধ্যাপক ড. মো. নিজামুল হক ভূঁইয়া বলেন, আশাকরি ভালো একটা নির্বাচন হবে এবং আমরা পূর্ণ প্যানেল জয়ী হতে পারব।

নির্বাচনের সার্বিক বিষয়ে নির্বাচন কমিশনার অধ্যাপক তোফায়েল আহমদ চৌধুরী বলেন, এবারের নির্বাচনে  সাদা এবং নীল দল উভয়ই অংশগ্রহণ করেছে। সকাল ১০টা থেকে শুরু হয়ে দুপুর ২.৩০টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ চলবে। সাড়ে তিনটা থেকে ভোট গণনা শুরু হবে। বিকেলেই আমরা ফলাফল ঘোষণা করতে পারব। আশা করছি ভালো একটা নির্বাচন উপহার দিতে পারব।


আরও খবর



ডিসিদের যে ২৪ দফা নির্দেশনা দিলেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৮ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৮ জানুয়ারী ২০২২ | ৩১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সেবা নিতে আসা মানুষের সন্তুষ্টি অর্জন, ধর্মীয় সম্প্রীতি বজায়, গুজব রোধে তৎপর থাকাসহ জেলা প্রশাসকদের ২৪ দফা নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ মঙ্গলবার সকালে জেলা প্রশাসকদের (ডিসি) বার্ষিক সম্মেলন আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ নির্দেশনা দেন।

দুই বছর পর আজ জেলা প্রশাসকদের (ডিসি) বার্ষিক সম্মেলন শুরু হয়েছে। করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় সম্মেলনের ব্যাপ্তি পাঁচ দিন থেকে কমিয়ে তিন দিন করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই সম্মেলনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী তাঁর সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হন।

জেলা প্রশাসকদের উদ্দেশে সরকারপ্রধানের দেওয়া ২৪ দফা নির্দেশনা হচ্ছে

১) করোনাভাইরাসজনিত সংকট মোকাবিলায় সরকার কর্তৃক সময়ে সময়ে জারিকৃত নির্দেশনাসমূহ মাঠপর্যায়ে প্রতিপালন নিশ্চিত করতে হবে।

২) জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও মুজিববর্ষ উপলক্ষে গৃহীত উন্নয়ন ও সেবামূলক কার্যক্রমসমূহের যথাযথ বাস্তবায়ন এবং এর ধারাবাহিকতা নিশ্চিত করতে হবে।

৩) খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ এবং বাজারমূল্য স্থিতিশীল রাখার জন্য গৃহীত বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে হবে।

৪) সরকারি অফিসসমূহে সাধারণ মানুষ যেন নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নির্বিঘ্নে যথাযথ সেবা পায়, সেটি নিশ্চিত করতে হবে। সেবাপ্রত্যাশীদের সন্তুষ্টি অর্জনই যেন হয় সরকারি কর্মচারীদের ব্রত।

৫) এসডিজি স্থানীয়করণের আওতায় নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রাসমূহ অর্জনে তৎপরতা জোরদার করতে হবে।

৬) গৃহহীনদের জন্য গৃহনির্মাণ, ভূমিহীনদের কৃষির জন্য খাসজমির বন্দোবস্তসহ সব সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিতে যেন প্রকৃত অসহায়, দুস্থ ও সুবিধাবঞ্চিত প্রান্তিক শ্রেণির মানুষ সুযোগ পায় তা নিশ্চিত করতে হবে।

৭) শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহের পাঠদান কার্যক্রমের মানোন্নয়নে উদ্যোগী হতে হবে। কোভিড পরিস্থিতিতে বিকল্প ব্যবস্থায় অনলাইনে বা ডিজিটাল মাধ্যম ব্যবহার করে পাঠদান কার্যক্রম যেন অব্যাহত থাকে সেই ব্যবস্থা নিতে হবে। অপেক্ষাকৃত দুর্গম এলাকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতি বিশেষ মনোযোগ দিতে হবে।

৮) কমিউনিটি ক্লিনিক, ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রগুলো যেন কার্যকর থাকে, তা প্রতিনিয়ত তত্ত্বাবধান করতে হবে এবং নানাবিধ কর্মসূচির মাধ্যমে জনগণের মাঝে স্বাস্থ্যসচেতনতা বাড়াতে হবে।

৯) শিশু-কিশোরদের শারীরিক-মানসিক বিকাশের লক্ষ্যে তাদের জন্য প্রতি এলাকায় সৃজনশীলতার চর্চা, সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড ও ক্রীড়াসুবিধা নিশ্চিত করতে হবে।

১০) নাগরিকদের সুস্থ জীবনাচারের জন্য জেলা ও উপজেলায় পার্ক, খেলার মাঠ প্রভৃতির সংরক্ষণ এবং নতুন পার্ক ও খেলার মাঠ তৈরির উদ্যোগ নিতে হবে।

১১) পরিবর্তনশীল বিশ্বের সঙ্গে সংগতি রেখে চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের সর্বোচ্চ সুবিধা নিতে উচ্চ প্রযুক্তি জ্ঞানসম্পন্ন দক্ষ শ্রমশক্তি গড়ে তুলতে কাজ করতে হবে।

১২) জনসাধারণের মাঝে তথ্যপ্রযুক্তি ও ইন্টারনেটের নিরাপদ ব্যবহার নিশ্চিতকরণে কাজ করতে হবে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের অপব্যবহার, গুজব ইত্যাদি রোধে উদ্যোগ নিতে হবে।

১৩) বাংলাদেশের ধর্মীয় সম্প্রীতি ও অসাম্প্রদায়িক ঐতিহ্য অক্ষুণ্ন রাখার লক্ষ্যে ধর্মীয় উগ্রবাদ ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিতে হবে।

১৪) মাদকমুক্ত সমাজ গঠনের লক্ষ্যে মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি অব্যাহত রাখতে হবে। মাদকবিরোধী অভিযান নিয়মিত পরিচালনা করতে হবে।

১৫) নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতা, নিপীড়ন ও বৈষম্যমূলক আচরণ বন্ধে যথাযথ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। বাল্যবিবাহ, ইভ টিজিং, খাদ্যে ভেজাল, নকল পণ্য তৈরি ইত্যাদি অপরাধ রোধে নিয়মিত মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করতে হবে।

১৬) বাজারে পণ্যের সরবরাহ মসৃণ রাখতে, কৃত্রিম সংকট রোধ ও দ্রব্যমূল্য স্বাভাবিক রাখতে বাজার মনিটরিং কার্যক্রম জোরদার করতে হবে।

১৭) সরকারি জমি, নদী, বনভূমি, পাহাড়, প্রাকৃতিক জলাশয় প্রভৃতি রক্ষায় কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে। ভূমির সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিতকরণের উদ্দেশ্যে নতুন সরকারি প্রতিষ্ঠান স্থাপনে ভবনের ঊর্ধ্বমুখী সম্প্রসারণকে প্রাধান্য দিতে হবে; পরিকল্পিত নগরায়ণ ও বনায়ন নিশ্চিত করতে হবে।

১৮) পর্যটনশিল্পের বিকাশ ও রক্ষণাবেক্ষণে বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। নতুন নতুন পর্যটন স্পট গড়ে তুলতে হবে।

১৯) জেলার নিজস্ব ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি রক্ষা এবং জেলাভিত্তিক বিখ্যাত পণ্যসমূহের প্রচার ও বিপণনে উদ্যোগী হতে হবে।

২০) জেলার সব সরকারি দপ্তরের কার্যক্রমসমূহ যথাযথভাবে সমন্বয় সাধনের মাধ্যমে ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশের কাতারে পৌঁছাতে আপনাদের ব্রতী হতে হবে।

২১) জেলা পরিষদ, উপজেলা পরিষদ, ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচিত প্রতিনিধি অর্থাৎ সংসদ সদস্য থেকে শুরু করে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের সঙ্গে সামঞ্জস্য রাখতে হবে। উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণে যথাযথ পরিকল্পনা গ্রহণ করা হচ্ছে কি না বা বাস্তবায়নও যথাযথভাবে হচ্ছে কি না, সেগুলোর সমন্বয় করতে হবে। উন্নয়ন প্রকল্প যত্রতত্র যেন না হয় সেদিকে বিশেষ দৃষ্টি দিতে হবে।

২২) সমাজের অনগ্রসর শ্রেণি—বেদে, জেলে, কৃষক, হিজড়া (ট্রান্সজেন্ডার), হরিজন, পরিচ্ছন্নতাকর্মীসহ যারা একেবারে সমাজের অনগ্রসর শ্রেণি, তাদের সার্বিক উন্নয়ন, তাদের বাসস্থান এবং তাদের সুযোগসুবিধা সৃষ্টি করতে হবে।

২৩) মুক্তিযুদ্ধে যেসব অঞ্চলে গণহত্যার শিকার পরিবারদের বর্তমান অবস্থা জানা এবং তাদের যথাযথ সম্মানজনক জীবনযাত্রার ব্যবস্থা করে দিতে হবে।

২৪) গণকবর সংরক্ষণ এবং যুদ্ধক্ষেত্রগুলো চিহ্নিত করে সংরক্ষণের ব্যবস্থা নিতে হবে। ইতিহাস জনসমক্ষে তুলে ধরতে হবে।


আরও খবর



প্রেমিকের সঙ্গে অবসর যাপন চাঙ্কি-কন্যা অনন্যার

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০১ জানুয়ারী ২০২২ | ৪৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মাদক-কাণ্ডে আচমকা নাম জড়িয়ে যাওয়া, বাড়িতে এনসিবি-র হানা, টানা জিজ্ঞাসাবাদ আর চারদিক থেকে ধেয়ে আসা কটাক্ষ ২০২১-এ ঝড় বয়ে গিয়েছে অনন্যা পাণ্ডের উপর দিয়ে। আপাতত বিতর্ক থেকে খানিক দূরে বলিউডের এই তারকা-সন্তান। মুম্বইয়ের কোলাহল পেরিয়ে প্রকৃতির কাছাকাছি তিনি। ছুটি কাটাচ্ছেন রণথম্বোরে।

ছুটির ঠিকানাতেই প্রেমিক ঈশান খট্টরের সঙ্গে নতুন বছরকে স্বাগত জানাবেন অনন্যা। পাপারাৎজিদের ফাঁকি দিয়ে আপাতত ভালবাসার মানুষের সঙ্গে কাটবে আরামের অবসর। অনন্যা বা ঈশান যদিও একসঙ্গে ঘুরতে যাওয়ার কথা স্বীকার করেননি এক বারও। কিন্তু একটু গোয়েন্দাগিরি করলেই আর কিছু বুঝতে বাকি থাকে না। ছুটি কাটাতে গিয়ে তারায় ভরা খোলা আকাশের ছবি তুলেছেন অনন্যা। সেই ছবি ইনস্টাগ্রামে ভাগ করে নিয়েছেন অনুরাগীদের সঙ্গে। হুবহু সেই একই ছবি লেন্সবন্দি করেছেন ঈশান। অনন্যার মতো তিনিও নিজের অনুরাগীদের সঙ্গে ভাগ করে নিয়েছেন এক আকাশ তারা।

এর পর আর দুয়ে দুয়ে চার করে নিতে বাকি থাকে না। দুজনেই যে একই জায়গায় রয়েছেন এবং সেখান থেকেই ছবিগুলি পোস্ট করেছেন, তা যে সহজেই অনুমেয়!

গত বছর খালি পিলি ছবিতে একসঙ্গে অভিনয় করেছিলেন ঈশান এবং অনন্যা। সেখান থেকেই বন্ধুত্ব। বন্ধুত্ব পেরিয়ে ভাল লাগা। ভাল লাগা গড়াল ভালবাসায়। নিজেদের সম্পর্ক নিয়ে যদিও মুখে কুলুপ এঁটেছেন দুজনেই। মাদক-কাণ্ডে অনন্যার নাম জড়ানোর পরেও তাঁর পাশে ঈশান। ফুল নিয়ে দেখা করতে গিয়েছিলেন প্রেমিকার সঙ্গে। পাশে ছিলেন তাঁর। আপাতত দুঃসময় কেটেছে। শহর থেকে দূরে তাই নতুন বছরকে স্বাগত জানানোর অপেক্ষায় দুজনে।

নিউজ ট্যাগ: অনন্যা পাণ্ডে

আরও খবর



জালভোট দিতে এসে আটক দশম শ্রেণির ছাত্র

প্রকাশিত:রবিবার ২৬ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৬ ডিসেম্বর ২০২১ | ৮১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

চতুর্থ ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে জালভোট দিতে এসে পুলিশের হাতে ধরা পড়ল দশম শ্রেণির এক ছাত্র। স্থানীয় এক বড় ভাইয়ের নির্দেশে জালভোট দিতে এসেছিল বলে জানায় আটক শিক্ষার্থী।

আটক শিক্ষার্থী (১৫) রাজবাড়ীর সদর উপজেলার মিজানপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা এবং রাজবাড়ী সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী।

রোববার দুপুরে মিজানপুর ইউনিয়নের ১নং সূর্যনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা স্বপন কুমার সাহা, জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থা রাজবাড়ীর সহকারী পরিচালক গোলাম রব্বানী ও প্রিসাইডিং অফিসার অমর অধিকারী উপস্থিত ছিলেন।

সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা স্বপন কুমার সাহা জানান, ১নং সূর্যনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কেন্দ্র পরিদর্শনে এলে ৪নং বুথে ও ছেলেটিকে দেখে সন্দেহ হলে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। একপর্যায়ে সে জালভোট দিতে আসার কথা স্বীকার করলে তাকে কর্তব্যরত পুলিশ আটক করে প্রিসাইডিং অফিসারের কাছে হস্তান্তর করেন।

প্রিসাইডিং অফিসার অমর অধিকারী বলেন, ভ্রাম্যমাণ টিম এসে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

নিউজ ট্যাগ: জালভোট

আরও খবর