আজঃ শুক্রবার ০৫ মার্চ ২০২১
শিরোনাম

শিকল খুলে হলে প্রবেশ করলেন ঢাবি শিক্ষার্থীরা

প্রকাশিত:সোমবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৯৮জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
হলে উঠতে আমাদের তেমন কোনো বেগ পেতে হয়নি। হল গেইটের তালা আগেই খোলা ছিল। আমরা শুধু বড় গেইটের তালা ছাড়া আটকানো শিকল খুলে ভেতরে প্রবেশ করি। প্রায় এক বছর ধরে বিশ্ববিদ্যালয় বন্

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের পর এবার জোরপূর্বক হলে প্রবেশ করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও। ইতোমধ্যে ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্ হল এবং অমর একুশে হলের ভেতরে অবস্থান নিয়েছেন ঢাবি শিক্ষার্থীরা। সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী শহীদুল্লাহ্ হলের মূল ভবনের ফলকে তালা ছাড়া আটকানো শিকল খুলে ভেতরে প্রবেশ করেন তারা। এসময় প্রশাসন কর্তৃক কোনো বাধার সম্মুখীন হতে হয়নি শিক্ষার্থীদের।

শহীদুল্লাহ্ হলের শিক্ষার্থীরা জানান, হলে উঠতে আমাদের তেমন কোনো বেগ পেতে হয়নি। হল গেইটের তালা আগেই খোলা ছিল। আমরা শুধু বড় গেইটের তালা ছাড়া আটকানো শিকল খুলে ভেতরে প্রবেশ করি। প্রায় এক বছর ধরে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ। আমরা বাড়িতে থেকে থেকে বিরক্ত হয়ে গেছি। তাই জোর করে হলে উঠে গেছি। এখন হলেই অবস্থান করবো।

শহীদুল্লাহ্ হলের নিরাপত্তা কর্মী কামাল হোসেন বলেন, প্রথমে একজন শিক্ষার্থী হলের ভেতর থেকে মালামাল নেবে বলে প্রবেশ করে। পরবর্তীতে ৪০-৫০ জন জড়ো হয়ে হলে ঢোকার জন্য জোর করলে আমি তালা খুলে দেই।

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্ হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক সৈয়দ হুমায়ুন আখতার বলেন, এরকম একটি ঘটনা ঘটেছে। আমরা দেখছি কী করা যায়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী বলেন, আমরা এ বিষয়ে অবগত। ইতোমধ্যে হল প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলেছি। শিক্ষার্থীদের সাথে আলোচনা করার জন্য সহকারী প্রক্টররা হলের দিকে যাচ্ছেন।

Share

আরও খবর



দেশে করোনায় ৫ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:বুধবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৯২জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ৪২৮ জন। এদের নিয়ে সরকারি হিসাবে এখন পর্যন্ত করোনা শনাক্ত হলেন পাঁচ লাখ ৪৪ হাজার ৫৪৪ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যুবরণ করেছেন পাঁচ জন, তাদের নিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত সরকারি হিসাবে মারা গেলেন আট হাজার ৩৭৯ জন। একই সময়ে করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ৯১১ জন। তাদের নিয়ে এখন পর্যন্ত করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন চার লাখ ৯৩ হাজার ৭৯৮ জন।

আজ বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) স্বাস্থ্য অধিদফতর করোনা বিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায়।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার নমুনা সংগৃহীত হয়েছে ১৬ হাজার ৪৩৫টি। নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১৬ হাজার ১৫২টি। দেশে এখন পর্যন্ত মোট করোনার নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৩৯ লাখ ৮৭ হাজার ৬৭৬টি। তার মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা হয়েছে ৩০ লাখ ৭৯ হাজার ৩৮৫টি, আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা হয়েছে ৯ লাখ আট হাজার ২৯১টি।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্তে শনাক্তের হার দুই দশমিক ৬৫ শতাংশ। আর এখন পর্যন্ত শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৬৬ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯০ দশমিক ৬৮ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুর হার এক দশমিক ৫৪ শতাংশ।

মারা যাওয়া পাঁচ জনের মধ্যে পুরুষ চার জন এবং নারী একজন। এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে পুরুষ মারা গেলেন ছয় হাজার ৩৩৯ জন। আর নারী মারা গেলেন দুই হাজার ৪০ জন, যা শতকরা হিসেবে পুরুষ ৭৫ দশমিক ৬৫ শতাংশ এবং নারী ২৪ দশমিক ৩৫ শতাংশ।

বয়সভিত্তিক বিশ্লেষণে দেখা যায়, তাদের মধ্যে ষাটোর্ধ্ব চার জন, আর ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে আছেন একজন।

Share

আরও খবর



শীত শেষ হতেই ৩৪ ডিগ্রি ছাড়াল তাপমাত্রা

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৮৪জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মাঝে এক সপ্তাহ বিরতি দিয়ে আবারও ব্যারোমিটারের পারদ ঊর্ধ্বমুখী। তরতর করে বাড়ছে তাপমাত্রা।

বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে মোংলায়, ৩৪ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গত ১৮ ফেব্রুয়ারির পর ব্যারোমিটারের পারদ আর ৩৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ঘর ছোঁয়নি।

আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার ঢাকার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সর্বনিম্ন তাপমাত্রাও বেড়েছে, যা ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে ওঠে এসেছে। ফলে রাতেও গরম অনুভূত হচ্ছে বেশ।

সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে রাজারহাটে, ১৫ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যেখানে চলতি বছর সবচেয়ে বেশি শৈত্য প্রবাহ বয়ে গেছে।

আবহাওয়া অধিদফতর বৃহস্পতিবার রাতে এক পূর্বাভাসে জানিয়েছে, পশ্চিমা লঘুচাপের বর্ধিতাংশ হিমালয়ের পাদদেশীয় পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। আর মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ অবস্থান করছে দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে।

এই অবস্থায় শুক্রবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) সারাদেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারে। ভোরের দিকে দেশের নদী অববাহিকার কোথাও কোথাও হালকা কুয়াশা পড়বে।

সারাদেশে রাত এবং দিনের তাপমাত্রা সামান্য বৃদ্ধি পেতে পারে। এসময় ঢাকায় পশ্চিম অথবা উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে বাতাসের গতিবেগ থাকবে ঘণ্টায় ৮ থেকে ১২ কিলোমিটার।

শনিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) নাগাদ তাপমাত্রা আরও বৃদ্ধি পাবে। আর বর্ধিত পাঁচদিনে আবহাওয়ার সামান্য পরিবর্তন হতে পারে।

Share

আরও খবর



ভোজ্যতেলের সর্বোচ্চ দাম নির্ধারণ

প্রকাশিত:বুধবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ১০০জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

অপরিশোধিত সয়াবিন ও পামওয়েল তেলের দাম স্থিতিশীল রাখতে অভিন্ন মূল্য নির্ধারণ পদ্ধতি অনুযায়ী প্রতি লিটার ভোজ্যতেলের সর্বোচ্চ সীমা নির্ধারণ করে দিয়েছে সরকার।

বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) সচিবালয়ে অত্যাবশ্যকীয় পণ্য বিপণন ও পরিবেশক বিষয়ক জাতীয় কমিটির সভা শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি এ ঘোষণা দেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ভোজ্যতেলের আমদানিকারক ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আলোচনা করে এ দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। সামনে রমজান মাস, বর্তমানে যথেষ্ট মজুদ আছে। সব হিসেব-নিকেশ করে এ দাম নির্ধারণ করা হয়।

শক্ত হাতে দাম নিয়ন্ত্রণ করা হবে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, দাম কমে গেলে বিবেচনা করা হবে, বেড়ে গেলেও বিবেচনা করা হবে। আমরা যে তেল ব্যবহার করি তার ৯০ শতাংশ আমদানি করতে হয়।

তিনি বলেন, প্রতি লিটার সয়াবিন (খোলা) মিল গেটে ১০৭ টাকা, পরিবেশক মূল্য ১১০ টাকা এবং খুচরা মূল্য ১১৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রতি লিটার বোতলজাত সয়াবিন মিল গেট মূল্য ১২৩ টাকা, পরিবেশক মূল্য ১২৭ টাকা এবং খুচরা মূল্য ১৩৫ টাকা। ৫ লিটার বোতলজাত সয়াবিন মিল গেট মূল্য ৫৮৫ টাকা, পরিবেশক মূল্য ৬০০ টাকা এবং খুচরা মূল্য ৬২৫ টাকা। আমাদের দেশে যে তেল ব্যবহার করি তার ৭০ শতাংশ পাম সুপার, যার প্রতি লিটার মিল গেট মূল্য (খোলা) ৯৫ টাকা, পরিবেশক মূল্য ৯৮ টাকা এবং খুচরা বাজারে ১০৪ টাকা মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে।

সম্প্রতি আন্তর্জাতিক বাজারে গত ৬ মাসে ৬৫ শতাংশ তেলের দাম বেড়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, শিপিং কস্টও বেড়েছে এছাড়া জাহাজের তেলের দাম বাড়ায় পরিবহন খরচও বেড়েছে। অপরিশোধিত সয়াবিন ও পামতেলের আমদানিতে আরোপিত ভ্যাট ভোক্তার স্বার্থ বিবেচনা আরও বেশি যৌক্তিকহারে নির্ধারণের জন্য ইতিমধ্যে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে রাজস্ব বোর্ডকে অনুরোধ করা হয়েছে।

ভোজ্য তেলের মূল্য অস্থিতিশীল থাকায় অত্যাবশ্যকীয় পণ্য বিপণন ও পরিবেশক বিষয়ক জাতীয় কমিটির সভা প্রতি মাসেই আয়োজন করা হবে বলে জানান মন্ত্রী।

নিউজ ট্যাগ: ভোজ্যতেলের দাম
Share

আরও খবর



জি কে শামীম ও তার মায়ের বিরুদ্ধে চার্জশিট

প্রকাশিত:শনিবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৯৯জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

অবৈধভাবে সম্পদ অর্জনের অভিযোগে হওয়া মামলায় জি কে বিল্ডার্সের স্বত্বাধিকারী ও কথিত যুবলীগ নেতা এস এম গোলাম কিবরিয়া (জি কে) শামীম ও তাঁর মা আয়েশা আক্তারের বিরুদ্ধে চার্জশিট (অভিযোগপত্র) দাখিল করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

ঢাকা মহানগর আদালতের দুদকের সাধারণ নিবন্ধন শাখার কর্মকর্তা জুলফিকার হোসেন আজ শনিবার (৬ ফেব্রুয়ারি)  বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

২০১৯ সালের ২১ অক্টোবর জি কে শামীম ও তাঁর মা আয়েশা আক্তারের বিরুদ্ধে মামলা করেন দুদকের উপপরিচালক মো. সালাহউদ্দিন। মামলায় তাঁদের বিরুদ্ধে অবৈধভাবে ২৯৭ কোটি আট লাখ ৯৯ হাজার টাকার সম্পদ অর্জনের অভিযোগ আনা হয়। অনুমোদিত চার্জশিটে তাঁদের বিরুদ্ধে ২৯৭ কোটি ৩৯ লাখ টাকা অবৈধভাবে অর্জনের অভিযোগ আনা হয়েছে।

তদন্ত প্রতিবেদন সূত্রে জানা যায়, জি কে শামীম ২০১৮-১৯ করবর্ষ পর্যন্ত ৫০ কোটি টাকার স্থাবর সম্পদের মালিক হয়েছেন। এর মধ্যে আয়কর নথিতে ৪০ কোটি ২১ লাখ ৪০ হাজার ৭৪৪ টাকার তথ্য উল্লেখ করলেও মোট অর্থের বৈধ উৎস পায়নি দুদক। এ ছাড়া জি কে শামীমের বাসা থেকে উদ্ধারকৃত নগদ এক কোটি ৮১ লাখ ২৮ হাজার টাকা, সাত লাখ ৪৭ হাজার টাকার বিদেশি মুদ্রা, শামীম ও তাঁর মায়ের নামে ১৬৫ কোটি ২৭ লাখ ৬৫ হাজার টাকার এফডিআর, মায়ের নামে আরো ৪৩ কোটি ৫৭ লাখ ৪০ হাজার টাকার ব্যবসার অংশীদার এবং জিকেবি অ্যান্ড কম্পানির শেয়ার, গাড়ি ও এফডিআর বাবদ ৩৬ কোটি ৩৫ লাখ ১৮ হাজার ৭১৯ টাকার অস্থাবর সম্পদের বৈধ উৎস পাওয়া যায়নি।

দুদকের তদন্তে আয়েশা আক্তারের কোনো বৈধ আয়ের উৎস খুঁজে পাওয়া যায়নি বলে দুদক আইনের ২৭(১) ধারা ও দণ্ডবিধির ১০৯ ধারা এবং মানি লন্ডারিং আইনে তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে।

Share

আরও খবর
অবশেষে জামিন পেলেন কার্টুনিস্ট কিশোর

বৃহস্পতিবার ০৪ মার্চ ২০২১




১৩০ দেশ এখনও করোনার টিকা পায়নি : জাতিসংঘ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৬৩জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মাত্র ১০টি দেশ সব টিকার ৭৫ শতাংশ দখল করেছে বলে সমালোচনা করেছেন জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস। দেশগুলোর প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে গুতেরেস বলেন, ১৩০টি দেশ এখনও টিকার একটি ডোজও হাতে পায়নি।

জাতিসংঘের সেক্রেটারি কাউন্সিলের শীর্ষ পর্যায়ের একটি বৈঠকে বুধবার গুতেরেস এসব কথা বলেন। খবর আল জাজিরার।

টিকা বণ্টনের এমন ঘটনাকে জাতিসংঘ মহাসচিব বন্যভাবে অসম ও অনৈতিক বলে মন্তব্য করে বলেন, কঠিন এই সময়ে বিশ্ববাসীর সামনে ভ্যাকসিন সমতাই সবচেয়ে বড় নৈতিক পরীক্ষা।সমানভাবে ভ্যাকসিন সরবরাহ করতে জরুরিভাবে বৈশ্বিক টিকা সরবরাহ কর্মসূচি গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

জাতিসংঘের বৈঠকে অসমভাবে ভ্যাকসিন বণ্টনের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়ারও আলোচনা হয়েছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

করোনাকে বৈশ্বিক মহামারি ঘোষণার পর ভ্যাকসিন পেতে উঠেপড়ে লাগে কয়েকটি দেশ। যুক্তরাষ্ট্রের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পই অধিকাংশ ভ্যাকসিন নিজের দেশের জন্য অগ্রিম কিনে নেওয়ার চেষ্টা করেন। এরপর ব্রিটেন, ইতালি, স্পেন, ব্রাজিলও একই ধরনের পদক্ষেপ নেয়।

এশিয়ায় অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন সরবরাহ করছে ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট। তাদের সঙ্গে আগেভাগে যোগাযোগ করায় ভ্যাকসিন পেয়েছে বাংলাদেশ।

Share

আরও খবর
নেপালি পুলিশের গুলিতে যুবক নিহত

শুক্রবার ০৫ মার্চ ২০২১

কুয়েতে মাসজুড়ে কারফিউ ঘোষণা

শুক্রবার ০৫ মার্চ ২০২১