আজঃ বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১
শিরোনাম

সিলেটে দফায় দফায় ভূমিকম্প

প্রকাশিত:শনিবার ২৯ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২৯ মে ২০২১ | ১২৭জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সিলেট ও এর পার্শ্ববর্তী এলাকায় দফায় দফায় মৃদু ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে। শনিবার সকাল ১০টা ৩২ মিনিটে, ১০টা ৪৭ মিনিটে, বেলা ১১টা ৩০ মিনিটে ও ১টা ৩৪ মিনিটে এবং দুপুর ২টায় এসব ভূমিকম্প অনুভূত হয়।

এসব ভূমিকম্পনে প্রাথমিকভাবে কোথাও কোনো ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি বলে জানান সিলেট ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের স্টেশন কর্মকর্তা যীশু তালুকদার।

এর আগে ২৮ এপ্রিল সকাল ৮টা ২২ মিনিটে ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছিল। যার উৎপত্তি স্থল ছিল ভারতের আসামে এবং রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৬।

নিউজ ট্যাগ: ভূমিকম্প সিলেট

আরও খবর



রাজশাহীতে আরও ৮ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:শনিবার ০৫ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০৫ জুন ২০২১ | ৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ও করোনা উপসর্গ নিয়ে ৮ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। এদের মধ্যে করোনা পজিটিভ হয়ে চারজন ও উপসর্গ নিয়ে চারজনের মৃত্যু হয়। মারা যাওয়া তিনজন রাজশাহীর ও পাঁচজন চাঁপাইনবাবগঞ্জের বাসিন্দা।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের মৃতদের মধ্যে তিনজন করোনা পজিটিভ, রাজশাহীর মৃত তিনজনের মধ্যে দুজনের করোনা পজিটিভ ছিল।

শনিবার (৫ জুন) সকাল পর্যন্ত রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি আছেন ২২৪ জন রোগী। এদের মধ্যে ১১১ জন পজিটিভ এবং বাকিরা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছেন।

গেল ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১৬ জন। নতুন ভর্তি হওয়া রোগীদের মধ্যে রাজশাহীর দশজন, চাঁপাই এর পাঁচজন ও নওগাঁর একজন। বর্তমানে আইসিইউতে আছে ১৬ জন রোগী।

হাসপাতালে ২৪ ঘণ্টায় ৯৪ জনের করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ৩৮ জনের করোনা পজিটিভ হয়েছে। 

তবে হাসপাতালে করোনা ওয়ার্ডে শয্যা সংকটের কারণে হাসপাতালে অনেক রোগীকে ট্রলির ওপরে শুয়ে দেখা গেছে। শয্যা না থাকায় ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে তাদের। এতে রোগীর স্বজনদের মধ্যে আতঙ্ক ও উদ্বেগ বাড়ছে।

আর হাসপাতাল পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী বলছেন, করোনা রোগীদের চিকিৎসায় ওয়ার্ড সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে। এ ছাড়া জরুরি ছাড়া অন্য রোগী ভর্তি না হলেও চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।


আরও খবর



কমলা হ্যারিসের হুঁশিয়ারি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৮ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৮ জুন ২০২১ | ১০৬জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

অবৈধভাবে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ না করার আহ্বান জানিয়েছেন দেশটির ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস। মার্কিন গণমাধ্যম সিএনএন জানায়, তিনি মূলত অভিবাসনে ইচ্ছুক গুয়েতেমালার মানুষকে এ আহ্বান জানিয়েছেন।

দায়িত্ব নেওয়ার পর প্রথমবারের মতো বিদেশ সফরে গুয়েতেমালায় গিয়ে সোমবার (৭ জুন) এ আহ্বান জানান কমলা।

গুয়েতেমালার প্রেসিডেন্ট আলেজান্দ্রো গিয়াম্মাত্তেই-এর সঙ্গে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে কমলা হ্যারিস হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, অবৈধ পথে আসবেন না। কেউই আসবেন না। কেউ অবৈধ পথে প্রবেশ করলে যুক্তরাষ্ট্র আইন প্রয়োগ অব্যাহত রাখার পাশাপাশি সীমান্তে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হবে।

তিনি আরও বলেন, অবৈধভাবে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের চেষ্টা বিপজ্জনক এবং এর মাধ্যমে মূলত পাচারকারীরাই লাভবান হয়ে থাকে।

এদিকে বিবিসি জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ সীমান্ত দিয়ে অবৈধ অভিবাসীদের ঢল নিয়ন্ত্রণ করতে ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিসকে দায়িত্ব দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। আর এ দায়িত্ব পালনেই মূলত প্রথমবারের মতো গুয়েতামালা সফরে যান কমলা।


নিউজ ট্যাগ: কমলা হ্যারিস

আরও খবর
করোনার ডেল্টা প্লাসে প্রথম মৃত্যু

বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১




পদ্মায় চীনা প্রকৌশলী নিখোঁজ

প্রকাশিত:বুধবার ২৩ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২৩ জুন ২০২১ | ৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পদ্মা সেতু প্রকল্পে কর্মরত এক চীনা প্রকৌশলী পদ্মা নদীতে পড়ে নিখোঁজ হয়েছেন। মঙ্গলবার (২২ জুন) রাত ৮টা থেকে ঝাও (২৫) নামে ওই ব্যক্তি নিখোঁজ রয়েছেন। মাওয়া নৌপুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সিরাজুল কবীর এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সহকর্মী ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ধারণা করছেন, তিনি কোনোভাবে পদ্মায় পড়ে তলিয়ে গেছেন।

সিরাজুল কবীর বলেন, লৌহজং উপজেলার শিমুলিয়া তিন নম্বর ফেরিঘাট বরাবর মাঝ নদীতে পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের আওতায় জাতীয় গ্রীডের বৈদ্যুতিক টাওয়ার নির্মাণ কজে ঝাও (২৫) নিয়োজিত ছিলেন। টাওয়ারের বিশাল জায়গায় শেট তৈরি করেই কর্মীরা থাকতেন। এখান থেকেই কাজে অংশ নিতেন। জরুরি প্রয়োজনে বোটে করে তীরে আসতেন। কাজ করার সময় তিনি নিখোঁজ হন।

সহকর্মীরা ঝাওকে খুঁজে পাচ্ছিলেন না। অনেক খোঁজাখুঁজির পর দায়িত্বশীলরা বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করেন বলে জানিয়েছে মাওয়া নৌপুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ।


আরও খবর



নাজিরপুরে সরকারি জমি দখল করে আ.লীগ নেতার মার্কেট!

প্রকাশিত:শনিবার ২৯ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২৯ মে ২০২১ | ১৪৪৯জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে সরকারি এ সম্পত্তির উপর পাকা ও আধাপাকা প্রায় শতাধিক দোকান রয়েছে। দোকান গুলো ওই আ.লীগ নেতার কাছে ভাড়া নিয়ে বছরের পর বছর ব্যবসা করে আসছেন ব্যবসায়ীরা

পিরোজপুর জেলার নাজিরপুর উপজেলায় সরকারি খাস জমি দখল করে সেখানে অবৈধভাবে মার্কেট নির্মাণ করেছেন মোশারেফ হোসেন খান নামে এক প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতা। তিনি নাজিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান। তার দখল করা সরকারি ওই খাস জমিতে তিনি প্রায় শতাধিক পাকা, আধাপাকা দোকান ঘরসহ বাসাবাড়ি করে বছরের পর বছর ভাড়া দিয়ে আসছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা যায়, নাজিরপুর উপজেলাকে মডেল উপজেলা হিসেবে গড়ে তোলার জন্য সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা অনুযায়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সম্মুখভাগ থেকে নাজিরপুর কলেজ পর্যন্ত পাকা সড়ক, ওয়াক ওয়ে, ড্রেন নির্মাণের কাজ চলমান রয়েছে। কিন্তু এই সড়কটির শুরুর স্থান নাজিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সম্মুখভাগ থেকে নদীর পাড় পর্যন্ত প্রায় ৩ শ মিটার লম্বা এবং ১শ মিটার চওড়া সরকারি খাস জমিতে ওই আ.লীগ নেতার শতাধিক অবৈধ স্থাপনা থাকায় চলমান এ উন্নয়ন প্রকল্পটি থমকে আছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে সরকারি এ সম্পত্তির উপর পাকা ও আধাপাকা প্রায় শতাধিক দোকান রয়েছে। দোকান গুলো ওই আ.লীগ নেতার কাছে ভাড়া নিয়ে বছরের পর বছর ব্যবসা করে আসছেন ব্যবসায়ীরা। একাধিক ব্যবসায়ীর সাথে কথা হলে তারা নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই আ.লীগ নেতার নিকট দোকান ভাড়া নিয়ে ব্যবসা করে আসছেন বলে স্বীকার করেন। অনেকে এটা চেয়ারম্যান মার্কেট হিসেবে পরিচিত বলেও জানান।

স্থানীরা জানান, প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য উপজেলা প্রশাসন ওই আ.লীগ নেতাকে তার অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নেওয়ার জন্য বারবার তাগাদা দিলেও এখন পর্যন্ত তিনি অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নেয়ার কোনো উদ্যোগ নেননি। এ ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রতিবাদের ঝড় বইছে। একাধিক ব্যক্তি নানা মন্তব্য করে ফেসবুকে পোস্ট করছে। অনেকে লিখছেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারের অগ্রাধিকার ভিত্তিক প্রকল্পের কাজে এমন প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি প্রকারান্তরে সরকারের বিরোধিতার শামিল। নাজিরপুর উপজেলার সাধারণ জনগণের কাঙ্খিত এই প্রকল্প নির্বিঘ্নে বাস্তবায়নের জন্য নাজিরপুর উপজেলা ও পিরোজপুর জেলা প্রশাসন এবং উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

পারভেজ খান নামে একজন তার ফেসবুক ওয়ালে লিখেছেন, নাজিরপুর উপজেলাকে মডেল উপজেলা হিসেবে গড়ে তোলার জন্য সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা মাফিক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সম্মুখভাগ থেকে নাজিরপুর কলেজ পর্যন্ত পাকা সড়ক, ওয়াক ওয়ে, ড্রেন নির্মাণের কাজ চলমান। নাজিরপুরের সাধারণ জনগণের দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা পূরন হবে এই কাজ সমাপ্ত হলে। কিন্ত অত্যন্ত দুঃখের বিষয় হচ্ছে এই সড়কটির শুরুর স্থান, অর্থাৎ নাজিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সম্মুখভাগ থেকে নদীর পাড় পর্যন্ত প্রায় ৩ শত মিটার লম্বা এবং ১ শত মিটার চওড়া সরকারি খাস জমি দখল করে স্থানীয় একজন জনপ্রতিনিধি পাকা ভবন ও আধাপাকা ঘর নির্মাণ করে ভাড়া দিয়ে আসছেন। ওই জনপ্রতিনিধির অবৈধ স্থাপনা থাকার কারণে সড়কটির নির্মাণ কাজ ব্যাহত হচ্ছে। সড়ক নির্মাণ কাজ চলমান রাখার জন্য উপজেলা প্রশাসন ওই জনপ্রতিনিধিকে তার অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নেওয়ার জন্য বারবার তাগাদা দিলেও এখন পর্যন্ত সেসব অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নেয়ার কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি। অনেকে লিখছেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারের অগ্রাধিকারভিত্তিক প্রকল্পের কাজে এমন প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি প্রকারান্তরে সরকারের বিরোধিতার শামিল। নাজিরপুর উপজেলার সাধারণ জনগণের কাক্সিক্ষত এই প্রকল্প নির্বিঘ্নে বাস্তবায়নের জন্য নাজিরপুর উপজেলা ও পিরোজপুর জেলা প্রশাসন এবং উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

আরেকজন লিখেছেন উপজেলায় প্রবেশদ্বারের মুখে অবৈধ স্থাপনার কারণে ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স, পুলিশের গাড়ি ঢুকতে পারে না।

সরকারি ওই খাস সম্পত্তি পুরোটাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোশারেফ হোসেন খান দখল করে দোকানসহ বাসাবাড়ি করে বছরের পর বছর ভাড়া দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে উপজেলা যুবলীগের সভাপতি এম খোকন কাজী বলেন, সরকারি খাস জমি যার দখলেই থাকুক, উন্নয়নের স্বার্থে সে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি।

নাজিরপুর উপজেলা প্রকৌশলী মো. জাকির হোসেন মিয়া বলেন, নাজিরপুর উপজেলা সদরের দৃশ্যমান সুন্দর্যবর্ধক প্রকল্প হিসেবে নাজিরপুর উপজেলা হেডকোয়াটার থেকে হুমায়ুন হাজরার বাড়ি পর্যন্ত সড়ক নির্মাণের কাজ চলমান রয়েছে। এ প্রকল্প বাস্তবায়নে ৪ কোটি টাকা ব্যয় হবে। তবে সড়কটি শুরু স্থান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে থেকে নদীর তীর পর্যন্ত প্রায় তিনশমিটার লম্বা ও ১শ মিটার চওড়া সরকারি খাস জমিটি সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দখল করে অবৈধ স্থাপনা করে রেখেছে। সেগুলো অপসারণ না করায় ডিজাইন অনুযায়ি প্রকল্পটি বাস্তবায়নে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে। এ ছাড়া প্রকল্পের অন্য অংশের কাজ দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে।

এ বিষয়ে সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাখাওয়াত জামিল সৈকত বলেন, যারা ওই জায়গা দখল করে আছে। তাদের ইতোমধ্যে নোটিশ করা হয়েছে এবং উচ্ছেদ মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। স্থানীয়রা বলছেন দখলকারী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর ইউপি চেয়ারম্যান সেই প্রভাবে তিনি নোটিশ পেয়ে তার অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নিচ্ছেন না। এ ব্যাপারে আপনার মন্তব্য কি? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সরকারি সম্পত্তি যেই অবৈধভাবে দখল করে রাখুক, আমরা যথাযথ আইনী প্রক্রিয়ায় তা উচ্ছেদের ব্যবস্থা করবো এবং তা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ ওবায়দুর রহমান বলেন, ওই জায়গাটি সরকারি খাস জমি। কে দখল করে মার্কেট করেছেন বা ভাড়া দিয়েছেন সেটা বড় বিষয় নয়। যারা বর্তমানে দখলে রয়েছেন তারাই অবৈধ দখলদার। ইতোমধ্যে অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ করা জন্য উচ্ছেদ মামলা করে অনুমোদনের জন্য ডিসি অফিসে পাঠানো হয়েছে। অনুমোদনের পর উচ্ছেদের জন্য ডিসি অফিস থেকেই ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হবে।

নাজিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোশারেফ হোসেন খান বলেন, ওই সম্পত্তিটা আমার ক্রয় করা সম্পত্তি ছিলো। একপর্যায়ে সরকার অধিগ্রহণ করে নিলে আমি সরকারের বিরুদ্ধে মামলা করি। কিন্তু আমি মামলায় হেরে যাই। পরে বাধ্য হয়ে সরকারের কাছে একসনা লিজ নিয়ে ভোগ দখলে আছি। তবে সরকার নতুন লিজ না দেয়ায় নাবায়ন করা সম্ভব হয়নি। উন্নয়নের জন্য কর্তৃপক্ষ আমাকে যতটুকু ছেড়ে দিতে বলবে আমি ছেড়ে দিবো।


আরও খবর



লকডাউনে সঙ্গীর সাথে হয়ে উঠুন রোমান্টিক

প্রকাশিত:রবিবার ৩০ মে ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ৩০ মে ২০২১ | ২৫৭জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
সারাদিন একসঙ্গে থাকার পরও কি দু’জনের একান্তে সময় কাটানো হচ্ছে না। সর্বক্ষণ হয় তো যার যার মতো বাসা-বাড়ি বা অফিসের কাজ করছেন। অবসরে অনলাইনে ড্রামা-সিরিয়াল ইত্যাদি নিয়ে ব্যস্ত

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের জন্য ২০২০ সালের মার্চ থেকে অফিস-আদালতসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান বন্ধ। তবে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি জারি করে সীমিত আকারে কিছু কিছু অফিস-আদালতসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠান খোলা রাখা হয়েছে। চরম সত্য যে, করোনা সংক্রমণ আসার পর মানুষজন এখন আগের মতো বেশি সময় বাইরে থাকছে না। অধিকাংশ সময়ই বাসা-বাড়িতে সময় কাটান। আর এই দীর্ঘ সময় সঙ্গীর সঙ্গে থাকতে থাকতে বিরক্ত হওয়া স্বাভাবিক। অনেকের ক্ষেত্রে আবার তর্ক-বিতর্ক থেকে ছোট ছোট ঝগড়াও হচ্ছে।

কোনো সম্পর্কই সহজ নয়। একটি সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার জন্য দুজনকেই ত্যাগ স্বীকার করতে হয়। লকডাউনের এই সময় সম্পর্ক মজবুত করতে দুজনকেই বেশ কিছু উপায় অবলম্বন করতে হবে। এতে করে সম্পর্ক যেমন মধুর হবে তেমনই দুজনের মধ্যে বাড়বে প্রেম-ভালোবাসা।

একান্তে সময় কাটানো : সারাদিন একসঙ্গে থাকার পরও কি দুজনের একান্তে সময় কাটানো হচ্ছে না। সর্বক্ষণ হয় তো যার যার মতো বাসা-বাড়ি বা অফিসের কাজ করছেন। অবসরে অনলাইনে ড্রামা-সিরিয়াল ইত্যাদি নিয়ে ব্যস্ত। আবার টেবিলে বসে খাওয়ার সময় হাতে ফোন। এসব সময় থেকে কিছু সময় বের করে দুজন একসঙ্গে কিছুক্ষণ সময় কাটান। দুজন একসঙ্গে চা বা কফি খাওয়া, হাতে হাত রেখে হাঁটা কিংবা বাসা-বাড়ির বাইরে একটু ঘুরে আসা। এতে পরস্পর ভালোবাসা বাড়বে।

চমক দেয়া : যেকোনো কিছুর শুরুতে অনেক চমক থাকে। নতুন সম্পর্কের শুরুতে সঙ্গীকে চেনা-জানা এসবই নতুন অভিজ্ঞতা। আর এসবের প্রতি খুবই আগ্রহ থাকে তখন। তবে সম্পর্ক যখন গভীর হয় তখন এসব ধীরে ধীরে হারিয়ে যায়। আর ঘরবন্দি সময়ে তো এটা আরও বেশি অনুভব হয়। তাই মাঝে মধ্যেই ক্যান্ডেলনাইট ডিনার, আয়নার সামনে চিরকুটে প্রেমের বার্তাসহ অন্যান্য পছন্দের কাজ করে চমকে দিন সঙ্গীকে।

একসঙ্গে নতুন কিছু করা : অবসর সময়ে দুজন আলাদা আলাদা না থেকে একসঙ্গে কিছু করার পরিকল্পনা করুন। হতে পারে সঙ্গীকে রান্নায় সহযোগিতা করা, দুজনে গল্প করা, অনলাইনে কোনো কিছু শেখা, বাগানের যত্ন নেয়া ও বাসা-বাড়ির দেয়াল একসঙ্গে সাজিয়ে তোলা। দেখবেন দুজনের মধ্যেই স্বস্তির হাসি ফুট উঠবে।

ডেট করা : ডেট করা বলা মানে এই নয় বাসা-বাড়ির বাইরে যেতে হবে। বারান্দা বা ছাদও হয়ে উঠতে পারে এই রোমাঞ্চের জায়গা। মোমবাতির হালকা আলোয় একজন অপরজনকে ঝাপটে ধরুন। কপালে চুমু দিন। এসময় সঙ্গীর সঙ্গে ফ্লার্ট করা একদম বন্ধ করা যাবে না। এতে মনের সকল ক্ষোভ দূর হয়ে যাবে।


আরও খবর
বাবার জন্য ভালোবাসা

রবিবার ২০ জুন ২০21