আজঃ বৃহস্পতিবার ১৩ মে ২০২১
শিরোনাম

সকালে সড়কে ঝরে গেল পাঁচ প্রাণ

প্রকাশিত:রবিবার ০২ মে 2০২1 | হালনাগাদ:রবিবার ০২ মে 2০২1 | ১৩৬জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
আজ রবিবার সকালে সিএনজিচালিত অটোরিকশা আচমকা মহাসড়কে উঠলে দ্রুতগামী একটি ট্রাক অটোরিকশাটিকে চাপা দেয়। এ সময় ঘটনাস্থলে চারজন নিহত হয়। এ ছাড়া হাসপাতালে নেওয়ার পথে আরও একজনের

সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলায় ট্রাকচাপায় দুই শিশুসহ অটোরিকশার পাঁচ আরোহী নিহত হয়েছে। নিহতদের মধ্যে চারজন একই পরিবারের সদস্য বলে জানা গেছে। এ সময় আহত হয়েছে আরও দুজন। উপজেলার ফেরিঘাট এলাকায় সিলেট-তামাবিল মহাসড়কে আজ রবিবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলো জৈন্তাপুর উপজেলার নিজপাট ইউনিয়নের রুপচেন গ্রামের জামাল উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া বেগম (৪০), তাঁর মেয়ে সাকিয়া বেগম (৪), ছেলে তাহমিদ হোসেন (৩ মাস), বোন হাবিবুন নেছা (৩৮) ও এক‌ই গ্রামের অটোরিকশাচালক হোসেন আহমদ (৩৫)।

পুলিশ জানায়, আজ রবিবার সকালে সিএনজিচালিত অটোরিকশা আচমকা মহাসড়কে উঠলে দ্রুতগামী একটি ট্রাক অটোরিকশাটিকে চাপা দেয়। এ সময় ঘটনাস্থলে চারজন নিহত হয়।  এ ছাড়া হাসপাতালে নেওয়ার পথে আরও একজনের মৃত্যু হয়। নিহতদের মধ্যে দুই শিশু রয়েছে। এ ছাড়া আহত দুজনকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

জৈন্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দস্তগীর আহমেদ দুর্ঘটনার তথ্য নিশ্চিত করে জানান, ঘটনাস্থলে উদ্ধারকাজ চালানো হচ্ছে।


আরও খবর
সিলেটে শিশুর খন্ডিত দুই পা উদ্ধার

মঙ্গলবার ১৩ এপ্রিল ২০২১




পানি আনতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার কিশোরী

প্রকাশিত:রবিবার ০২ মে 2০২1 | হালনাগাদ:রবিবার ০২ মে 2০২1 | ১২১জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সিরাজগঞ্জ পৌর এলাকায় এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় দুই তরুণকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গতকাল শনিবার রাতে নিজ নিজ এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, পৌর এলাকার চককোবদাসপাড়া এলাকার একরাম হোসেন (১৯) ও আমলাপাড়া এলাকার স্বাধীন (২০)।

সিরাজগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বাহাউদ্দিন ফারুকী বলেন, গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ওই কিশোরী টিউবওয়েলের পানি আনতে যায়। পানি নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে আমলাপাড়া প্রতিশ্রুতি ক্লাবের সামনে পৌঁছলে একরাম তাঁর মুখ চেপে ধরে পাশের ক্লাবের ভেতর নিয়ে ধর্ষণ করে। এ সময় স্বাধীনসহ দুই তরুণ এ কাজে একরামকে সহযোগিতা করে।

ওসি বাহাউদ্দিন ফারুকী আরও বলেন, কিশোরী বাড়ি ফিরে ঘটনাটি পরিবারকে জানালে ইকরামসহ তিনজনকে আসামি করে সদর থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করা হয়। এই মামলায় একরাম ও স্বাধীনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এ ছাড়া অবৈধভাবে গড়ে ওঠা ওই ক্লাবটি শনিবার সন্ধ্যায় ভেঙে দেওয়া হয়েছে।


আরও খবর



প্রধানমন্ত্রীর কাছে ডা. জাফরুল্লাহর ১১ বার্তা সংযুক্ত খোলা চিঠি

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৯ এপ্রিল ২০২১ | ৯১জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী জনস্বার্থে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে খোলা চিঠি দিয়েছেন। চিঠির সঙ্গে কোভিড-১৯-এ আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার বিষয়ে ১১টি বার্তা সংযুক্ত করে দেন। আজ সোমবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এ চিঠি পাঠানো হয়েছে।

সরকারের জরুরি কর্তব্য উল্লেখ করে ১১টি দাবি উত্থাপন করেন ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

১. অক্সিজেন, ওষুধ, মেডিকেল যন্ত্রপাতি ও সামগ্রী থেকে বিশেষ এসআরওর মাধ্যমে সব ধরনের শুল্ক, অগ্রিম আয়কর, মূসক প্রভৃতি প্রত্যাহার করা।

২. আইসিইউ পরিচালনার জন্য জরুরি ভিত্তিতে চিকিৎসক ও নার্স প্যারামেডিকদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা (২০০ জন চিকিৎসক ও 500 জন নার্স-টেকনিশিয়ানকে), আইসিইউতে দ্রুত অক্সিজেন প্রদান (হাই ফ্লো ন্যাসাল ক্যানোলা), নন-ইনভেসিভ

শ্বাসপ্রশ্বাস প্রক্রিয়া, শ্বাসতন্ত্রে টিউব মারফত অক্সিজেন সরবরাহ, অন্যান্য নিয়ন্ত্রিত শ্বাসপ্রশ্বাস

ব্যবস্থাপনা প্রক্রিয়া এবং শ্বাসনালী ট্যাকিয়া ছিদ্র করে দ্রুত অক্সিজেন সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্য এক মাসের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা।

৩. সব ওষুধের মূল্য এবং রোগ পরীক্ষার পদ্ধতিগুলোর চার্জ সরকার কর্তৃক নির্ধারণ করে দেওয়া।

৪. কারাগারে আবদ্ধ সব ব্যক্তিকে দ্রুত টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা নেওয়া এবং খুনের দায়ে এবং দুর্নীতির কারণে দণ্ডিত অভিযুক্ত ছাড়া অন্য সবাইকে জামিনে মুক্তি দেওয়া।

৫. সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজগুলোতে প্রতি বছর ২০ হাজার শিক্ষার্থী ভর্তি করা এবং এমবিবিএস পাসের পর ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার

কল্যাণকেন্দ্রে এক বছর বাধ্যতামূলক ইন্টার্নশিপ করা। অতীতে এই নিয়ম চালু করে দুই সপ্তাহ পর প্রত্যাহার করে ভুল করেছিলেন।

৬. আগামী বাজেটে সব ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের নিরাপত্তা বেষ্টনী সংস্কার, গভীর নলকূপ ও বিদ্যুতায়ন ব্যবস্থার উন্নয়ন, মেডিকেল, নার্সিং, ফিজিওথেরাপি ও টেকনিশিয়ানদের জন্য ডরমেটরি, ক্লাসরুম, লাইব্রেরি, ডাইনিং রুম এবং পাঁচজন চিকিৎসক ও ১০ জন নার্সিং, ফিজিওথেরাপি ও টেকনিশিয়ান প্রধানদের জন্য ছয়শ-সাতশ বর্গফুটের বাসস্থান, বহির্বিভাগসহ ৩০ শয্যার হাসপাতাল, ল্যাবরেটরি ও অপারেশন থিয়েটার নির্মাণের জন্য ছয় কোটি টাকা এবং অপারেশন থিয়েটার, এক্সরে আলট্রাসনোলজি, চক্ষু ও বিভিন্ন

ল্যাবরেটরির যন্ত্রপাতির জন্য অন্যূন চার কোটি টাকা বরাদ্দের ব্যবস্থা নিন। এরূপ উন্নয়নে ইউনিয়নের প্রায় এক লাখ জনগণের জন্য আধুনিক স্বাস্থ্য ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠিত হবে।

৭. লকডাউন কার্যকর করার জন্য দরিদ্র ও নিম্নবিত্ত পরিবারদের সরাসরি আর্থিক প্রণোদনার পরিবর্তে বিনামূল্যে মাসিক রেশনে চাল, ডাল, আটা, আলু, তেল, চিনি, পেঁয়াজ, রসুন প্রভৃতি দিতে হবে। রেশন বিতরণের জন্য সামরিক বাহিনী, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এবং এনজিও কর্মীদের ব্যবহার সুফল দেবে।

৮. ট্রিপসের বাধ্যতামূলক লাইসেন্সের মাধ্যমে ভ্যাকসিন উৎপাদন সুবিধা সৃষ্টির জন্য নোবেল লরিয়েট ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে আপনার বিশেষ দূত করে ইউরোপে পাঠান।

৯. ভ্যাকসিন উৎপাদনের জন্য শূন্য দশমিক পাঁচ  বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করুন, সুফল পাবেন।

১০. গত বছর দ্রুত সিনোজাকের ট্রায়াল অনুমোদন না দিয়ে যে ভুল করা হয়েছিল, তার পুনরাবৃত্তি কাম্য নয়।

১১. গণস্বাস্থ্য উদ্ভাবিত এন্টিবডি এন্টিজেন অনুমোদন এক বছরে হয়নি। ড. বিজন কুমার শীলের ভিসা না হওয়ায় বাংলাদেশে ফিরতে পারছেন না। ছয় মাস আগে চার বিজ্ঞানীর তত্ত্বাবধানে রিয়েল টাইম পিসিআর ল্যাবরেটরি স্থাপিত হলেও ব্যবহার শুরু করার জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তর অদ্যাপি অনুমতি দেয়নি।

ক্ষতি হচ্ছে দেশের, বিষয়টি আপনাকে পুনরায় অবগত করলাম। দ্রুত সিদ্ধান্ত গ্রহণে জাতির কঠিন সমস্যা থেকে মুক্তির সম্ভাবনা সমধিক। আপনার সুস্বাস্থ্য ও নববর্ষের শুভ কামনায় বলে চিঠি শেষ করেন ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।


আরও খবর



স্বরূপকাঠিতে ৩৩৩ নম্বরে কল করে প্রধানমন্ত্রীর উপহার পেল তারা

প্রকাশিত:শুক্রবার ৩০ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ৩০ এপ্রিল ২০২১ | ২০৫জন দেখেছেন
হযরত আলী হিরু, স্বরূপকাঠি

Image

পিরোজপুরের স্বরূপকাঠিতে ৩৩৩ নম্বরে কল করে প্রধানমন্ত্রীর উপহার খাদ্য সামগ্রী পেল ৫ গরীব ও অসহায় পরিবার। বৃহস্পতিবার বিকেলে বিভিন্ন স্থানে লকডাউনে কর্মহীন গরীব ও অসহায় ওই পরিবারের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর উপহার সামগ্রী বিতরণ করেন উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল হক।

এ সময় সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. বশির গাজী উপস্থিত ছিলেন। উপহার সামগ্রীর মধ্যে চাল, ডাল, তেল, আলু, লবন, চিড়া ও মুড়ি রয়েছে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মানষ কুমার দাস বলেন, করোনাকালীন লকডাউনে কর্মহীন গরীব ও অসহায় যে কোন ব্যাক্তি প্রধানমন্ত্রীর উপহার সামগ্রী পাওয়ার জন্য ৩৩৩ নম্বরে কল করতে পারেন। তবে প্রাপ্যতা যাচাই বাছাই শেষে প্রধানমন্ত্রীর উপহার সামগ্রী বিতরণ করা হয়।


আরও খবর



ভুল তথ্যে হিন্দু ধর্মাবলম্বী ব্যক্তিকে মুসলমান হিসেবে দাফন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০21 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০21 | ১০৭জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের ভুল তথ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া বাবুল চন্দ্র দাস (৫০) নামে হিন্দু ধর্মাবলম্বী এক ব্যক্তিকে মুসলমান হিসেবে দাফন করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। যোগাযোগ না করেই করোনা সংক্রমণের ভয়ে মৃতের স্বজনরা মরদেহ নিতে আসছে না বলে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের (নাসিক) এক কাউন্সিলরকে জানায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

জানাজা ও দাফনের খবরে হিন্দু ধর্মাবলম্বী বাবুল চন্দ্র দাসের পরিবার ও তার কর্মস্থল সৈয়দপুর এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়। এ নিয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে দোষারোপ করছে তারা।

নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যা হাসপাতালকে বর্তমানে করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে রূপান্তর করা হয়েছে। ১৫ এপ্রিল হাসপাতালের আইসোলেশনে বাবুল চন্দ্র দাসকে ভর্তি করে আসেন গোগনগর ইউনিয়ন পরিষদের ৪ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য সৈকত হোসেন। ১৭ এপ্রিল সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

হাসপাতালের সুপারইনটেনডেন্ট ডা. এম এ বাশার জানান, হাসপাতালের এন্ট্রি খাতার তথ্য অনুযায়ী মৃত রোগীর নাম বাবুল। বয়স পঞ্চাশ। সৈকত নামের একজন তাকে হাসপাতালে নিয়ে এসেছেন। নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার সৈয়দপুর এলাকায় তার বাড়ি।

তিনি আরও জানান, হাসপাতালে ভর্তির পর থেকে তার আত্মীয়রা কেউ খোঁজ নেয়নি। মৃত্যুর পর তার পরিবারকে জানানো হলেও করোনা রোগী হওয়ায় তারা মরদেহ নিতে চাচ্ছে না। তাই মরদহে দাফনের জন্য নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১২ নম্বর কাউন্সিলর শওকত হাশেম শকুকে জানানো হয়েছে।

খবর পয়ে কাউন্সিলর শওকত হাশেম শকুসহ নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের দাফন টিম এসে মরদেহ দাফনের ব্যবস্থা করে। এ বিষয়ে কাউন্সিলর বলেন, যেহেতু হাসপাতালের রেকর্ডে মৃতকে মুসলমান হিসেবে উল্লেখ করা হয়, তাই আমরা মরদেহ দাফনের ব্যবস্থা করি। এছাড়া গোসলের সময় মৃতকে খৎনা করা দেখতে পাই।

তবে মৃত বাবুল দাসকে হাসপাতালে নিয়ে আসা নারায়ণগঞ্জের গোগনগর ইউনিয়ন পরিষদের ৪ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য সৈকত হোসেন বলেন, বাবুল চন্দ্র দাস ছয় বছর ধরে আমাদের এলাকার খোকন মন্ডল খোকার দোকানে দর্জি হিসেবে কাজ করতো। নিজ পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ নেই বললেই চলে। তাই সে দোকানেই ঘুমাতো। হোটেলে খেতো। ১৪ এপ্রিল সে অসুস্থ হয়ে পড়লে আমরা তাকে মহাখালী নিয়ে যাই চিকিৎসা করাতে। সেখানে তাকে পরীক্ষা করে দেখে যে তার করোনা পজিটিভ।

তিনি আরও বলেন, পরদিন তাকে নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যা হাসপাতালে এনে ভর্তি করি। ভর্তির সময়ই আমরা তার নাম বাবুল চন্দ্র দাস বললেও তার পুরো নাম এন্ট্রি খাতায় না লিখে শুধু বাবুল লেখা হয়। ১৮ এপ্রিল সাংবাদিকদের মাধ্যমে প্রথম আমরা তার মৃত্যুর খবর পাই। পরে যখন হাসপাতাল থেকে আমাকে ফোন দেয়া হয় তখন মরদেহ দাফনের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তার মৃত্যুর পরপর যদি আমাদের ফোন দিতো তাহলে আমরা হাসপাতালে গেলে মরদেহ হিন্দু না মুসলিম তা শনাক্ত হতো। আর তার মরদেহ সৎকারের ব্যবস্থা আমরাই করতাম।

বাবুলের খৎনা করার প্রসঙ্গে সৈকত বলেন, তিনি হিন্দু হলেও তার খতনা করা ছিল।

মৃত বাবুল দাসের সঙ্গে তার স্ত্রীর ১০-১৫ বছর ধরে সম্পর্ক নেই বলে জানান তার মেয়ে কৃষ্ণা রানী দাস। তিনি কুমিল্লার মতলব উপজেলার লবারকান্দিতে থাকেন। মোবাইল ফোনে তিনি জানান, অন্তর নামে তার এক ভাই রয়েছে। তার বাবা যার দোকানে কাজ করতেন সেই খোকন মন্ডলের কাছ থেকেই তিনি বাবুলের মৃত্যুর খবর পান। হাসপাতালের কেউ তাকে তার বাবার মৃত্যুর খবর জানায়নি।

তিনি জানান, লকডাউনের কারণে তার পক্ষে নারায়ণগঞ্জ আসা সম্ভব না। তার বাবা যে এলাকায় থাকতেন তিনিও সেখানকার সবার সহায়তা নিয়েই সৎকারের ব্যবস্থা করতেন।

সোমবার (১৯ এপ্রিল) বিকেলে হাসপাতাল সুপার ডা. বাশার বলেন, বাবুল করোনা পজিটিভ এটি জানার পর থেকেই তার পরিবার যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। যেদিন বাবুল মারা যান সেদিন বারবার তার পরিবারকে ফোন দেয়া হয়। কিন্তু তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি।

তিনি আরও বলেন, লোকটি মুসলমান। পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে না পারায় সিটি করপোরেশনের মাধ্যমে তার দাফন করা হয়।

হাসপাতাল থেকে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়নি এমন অভিযোগের ব্যাপারে তিনি বলেন, আমাদের নার্স ডাক্তাররা তার পরিবারের সঙ্গে বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করেছে। সম্ভব হয়নি বলেই এ কনফিউশন তৈরি হয়েছে।


আরও খবর



ভারতকে রেমডেসিভির দিচ্ছে বাংলাদেশ

প্রকাশিত:শুক্রবার ৩০ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ৩০ এপ্রিল ২০২১ | ৫৭জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনা মহামারি মোকাবিলায় ভারতে জরুরি ওষুধ ও চিকিৎসা সামগ্রীর অংশ হিসেবে রেমডিসিভিরও পাঠাচ্ছে বাংলাদেশ। এদিকে বাংলাদেশের ওষুধ ও চিকিৎসা সামগ্রী পাঠানোর ঘোষণায় ধন্যবাদ জানিয়েছে ভারত।

সূত্র জানায়, ভারতে করোনার পরিস্থিতি দ্রুত অবনতি হওয়ায় বাংলাদেশ সরকার সে দেশের মানুষের জন্য জরুরি ভিত্তিতে ওষুধ ও চিকিৎসা সরঞ্জাম পাঠানোর প্রস্তাব দিয়েছে। যার মধ্যে রেমডেসিভিরও রয়েছে। ভারতে এখন প্রচুর রেমডেসিভিরের সংকট রয়েছে। সে কারণে এ ওষুধ পাঠানো হচ্ছে।

এদিকে জরুরি ওষুধ পাঠানোর ঘোষণায় ঢাকার ভারতীয় হাইকমিশন বাংলাদেশকে ধন্যবাদ জানিয়েছে। ঢাকার ভারতীয় হাইকমিশন টুইটারে জানিয়েছে, করোনার এ সংকটকালে ভারতের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করায় ও সহযোগিতার হাত বাড়ানোর জন্য বাংলাদেশকে ধন্যবাদ। বাংলাদেশ-ভারত একসঙ্গে এ মহামারি জয় করবে আশা প্রকাশ করা হয়েছে।

ভারতে করোনা অবনতি হওয়ায় বৃহস্পতিবার (২৯ এপ্রিল) বাংলাদেশ সরকার জরুরি সহায়তার ঘোষণা দেয়।


আরও খবর