আজঃ মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

'সমস্যা সৃষ্টির মূল কারণ যোগ্য নেতৃত্বের অভাব'

প্রকাশিত:শনিবার ২৮ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ২৮ জানুয়ারী ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
Image

নবাবগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি:

প্রতিনিয়ত আমাদের সমাজ, রাষ্ট্র এবং ব্যক্তিগত জীবনে নানা সময়ে দীর্ঘস্থায়ী ও অস্থায়ী সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে। আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি, এই সমস্যা সৃষ্টির মূল কারণ হচ্ছে যোগ্য নেতৃত্বের অভাব। কোনো সমাজে যদি যোগ্য নেতৃত্বের অভাব থাকে তাহলে ওই সমাজ থেকে শান্তি চলে যায়। চালু হয় খুন, রাহাজানি, ডাকাতিসহ নানা ধরের অবৈধ কর্মকান্ড।

শুক্রবার (২৭ জানুয়ারি) ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলার কামার খোলায় নিজ বাড়িতে দিনব্যাপী বায়রার ও গুলশান জগার্স সোসাইটির সদস্যদের নিয়ে আয়োজিত মিলন মেলা অনুষ্ঠানে নিজ বক্তব্যে নানা সমস্যা সৃষ্টি হওয়া নিয়ে ইউনিক গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহা. নূর আলী এসব কথা বলেন।

নূর আলী বলেন, আমরা একে অন্যকে দোষারোপ করতে গিয়ে দেশের স্বার্থকে ভুলে যাই। বিশ্বের বহু দেশ রয়েছে যেখানে তারা দেশের স্বার্থ রক্ষায় কেউ কাউকে বিন্দুমাত্র ছাড় দেয় না। আমি সকলকে জেলাসি বাদ দিয়ে দেশের স্বার্থের জন্য কাজ করার আহবান জানাচ্ছি।

দিনব্যাপী নূর আলী বায়রার ও গুলশান জগার্স সোসাইটির সদস্য নিয়ে নানা অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে দিনটি মহা আনন্দে উদযাপন করেন।

নূর আলী সকাল নয়টার দিকে দুই সংগঠনের সদস্যদের নিয়ে গাড়ি যোগে কামার খোলা গ্রামের বাড়িতে আসেন। পরে বেলা সাড়ে এগারোটার  দিকে একটি আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভা শেষে কামারখোলা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে জুম্মার নামাজ আদায় করেন। নামাজ শেষে নূর আলীর গ্রামের বাড়ি আড়িয়াল ভিউতে দুপুরের খাবারের আয়োজন করা হয়।

নূর আলী বলেন, আমার বাবা যখন মারা যায় আমি তখন অনেক ছোট ছিলাম। দিন রাত পরিশ্রম করেছি। কিন্তু কারো কাছে স্যালেন্ডার করিনি।

দেশ বরেণ্য শিল্পপতি বলেন, আপনাদের সন্তানদের শিক্ষা দিবেন তারা যেনো কখনো পিছনে ফিরে না তাকায়। কারণ পিছনে ফিরে তাকানো মানেই লস। কে কি বললো তা দেখার বিষয় নয়, সামনে এগিয়ে যেতে হবে। অতীত মনে রেখে কখনো সামনে আগানো যায় না। অতীত থেকে শুধু শিক্ষা নিতে হবে কিন্তু অতীত মনে রেখে জীবন চালানো যাবে না।

নবনির্বাচিত বায়রার প্রধান উপদেষ্টা মোহা. নূর আলী তার বাল্যকালের স্মৃতি মনে করে বলেন, আমরা যখন ছোট ছিলাম আমার মায়ের কাছে এলাকার শত শত মহিলারা এসে চিঠি লিখিয়ে নিতেন। আমার মা অনেক মহিলার মনের কথা, পরিবারের কথা জানতেন। এর মূল কারণ আমার মায়ের ভিতরে শিক্ষার আলো ছিলো। আমার মা ছিলেন একজন আদর্শ নারী। আমি এই আড়িয়াল বিলে বেড়ে উঠেছি। এই বিলের সাথে জীবন সংগ্রামের মধ্য দিয়ে বড় হয়েছি। এই বিল ৬ মাস পানির নীচে থাকতো। আমার সামর্থ্য অনুযায়ী উন্নয়নের কাজ করে এই বিলকে বদলে দিতে চেষ্টা করে যাচ্ছি।

ইউনিক গ্রুপের এমডি আরো বলেন, যখন যে কাজটি করবে সৎ ও আন্তরিকতার সাথে করার চেষ্টা করবে। যদি কোনো কাজে আন্তরিকতা না থাকে তাহলে সেই কাজটি সুষ্ঠভাবে সম্পূর্ণ করা যায় না। তাই যে, যেই কাজটি করো না কেনো সবসময় আন্তরিকতার কমতি রাখবে না।

দিন ব্যাপী আয়োজনে বায়রার সভাপতি মো. আবুল বাশার, ইউনিক গ্রুপের সিইও ও দৈনিক আমাদের সময় পত্রিকার সম্পাদক মোহাম্মদ গোলাম সারওয়ার, ব্রাদার্স ফার্নিচার চেয়ারম্যান মো. হাবিবুর রহমান সরকার, হায়দারি গ্রুপের এমডি সৈয়দ গোলাম সারওয়ার, নবাবগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন আহমেদ ঝিলু, কেন্দ্রীয় যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন, সিনিয়র এডভোকেট শেখ আওসাফুর রহমান, ঢাকা ড্রামসের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহাদাত হোসেন, গুলশান জগার্স সোশাইটির সহ সভাপতি এম এ কামাল, রানার্স ক্লাব লিমিটেড সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট  এড.শাহজাহান তালুকদার, সাবেক জনতা ব্যাংকের অ্যাসিস্ট্যান্ট জেনারেল ম্যানেজার এস.এম জাহাঙ্গীর আলম, এম টিপু সুলতান, মো. কামাল উদ্দিন দেলু, দি ফাতিহা ইন্টার ন্যাশনালের প্রোপাইটর জাহাঙ্গীর আলম রাজ, কানাডা প্রবাসী বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল রশিদ, ল্যাব এইডের চিকিৎসক ডা. মো. লোকমান হোসেন, খাহ্রা আদর্শ কলেজের অধ্যক্ষ আজিজুল ইসলাম, ঢাকা জেলা তাতীলীগের সাধারণ সম্পাদক মুসফিকুর রহমান পলাশ, জগার্স গনতান্ত্রিক ঐক্য ফ্রন্ট সভাপতি মুজিবুর রহমান মজিদ, গুলশান জগার্স স্পোর্টস সেক্রেটারি আমির হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



ফেসবুকে পোষ্ট দিয়ে রামগঞ্জে ছাত্রলীগ নেতার পদত্যাগ

প্রকাশিত:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
Image

রামগঞ্জ(লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি:

চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলন ঘিরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পোষ্ট দিয়ে ছাত্রলীগ থেকে পদত্যাগ করেছেন রামগঞ্জ উপজেলার নোয়াগাঁও ইউনিয়ন ছাত্রলীগ নেতা মো: হেমায়েত।

বুধবার দিবাগত রাত ১০টায় তার ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডি থেকে আমি মো: হেমায়েত, ২ নম্বর নোয়াগাঁও ইউনিয়ন, ৪ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি পদ থেকে পদত্যাগ করলাম পোষ্ট করার পর আলোচনা সমালোচনার ঝড় ওঠে।

পদত্যাগের পোষ্ট দেয়ার কয়েক ঘণ্টা আগে তিনি কোটা সংষ্কার আন্দোলনে অংশগ্রহণকারী এক শিক্ষার্থীকে মারধরের প্রতিবাদ করেও একটি পোষ্ট ফেসবুকে প্রকাশ করেন। সেখানে তিনি কাহারো আদরের সন্তান এবং কোন ভাইয়ের আদরের বোন শীর্ষক পোষ্ট করেন।

পদত্যাগের ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে লেখালেখি এবং বেশ কয়েকজন শুভাকাঙ্খী ছাত্রলীগ নেতা মো: হেমায়েতকে সাধুবাদ জানান। সমালোচনা করতেও ছাড়েননি ফেসবুক ব্যবহারকারীদের কেউ কেউ। ৪ এ ঘটনায় পদত্যাগকারী ছাত্রলীগ নেতা মো: হেমায়েত ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারে জানান, যে সিদ্ধান্ত নিয়েছি-স্বেচ্ছায় নিয়েছি। ভাই আমি ব্যস্ত আছি, পরে কথা বলবো।

ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি শাকিল পাটোয়ারী জানান, আমি এ বিষয়ে কিছু জানি না।

উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউজ্জামান অপু মাল জানান, নিয়মতান্ত্রিকভাবে সে পদত্যাগ করেনি। ফেসবুকে পোষ্ট দিয়ে পদ থেকে অব্যাহতি নেয়ার বিষয়টি আমি শুনেছি।


আরও খবর
ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট হ্যাক

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪




পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে রেসিডেনসিয়াল কলেজের শিক্ষার্থী নিহত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

ঢাকা রেসিডেন্সিয়াল কলেজের শিক্ষার্থী ফারহান নিহত হয়েছে। আন্দোলনরত অবস্থায় ফারহানের মুখে গুলি লাগে। গুলিবিদ্ধ হলে সহপাঠীরা তাকে সিটি হাসপাতলে নেওয়া হয়। কিন্তু ফারহানকে বাঁচানো যায়নি। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিটি হাসপাতালের সহকারী ব্যবস্থাপক ওসমান গণি।

এদিকে ছেলে হত্যার বিচার চেয়েছেন ফারহানের মা নাজিয়া খান। ফেসবুকে ছেলের হত্যার বিচার চেয়ে বলেন,তারা আমার ছেলে ফারহান ফাইয়াজকে মেরে ফেলেছ। অথচ তার বয়স ১৮ হয়নি। আমি ফারহান ফাইয়াজ হত্যার বিচার চাই।

তিনি বিচারের জন্য তীব্র আকুতি জানিয়েছেন। ফেসবুকে ফারহানের বেশকিছু ছবি পোস্ট করেছেন। নাজিয়া খান বলেন, ফারহানের জন্ম ২০০৬ সালের ১২ সেপ্টেম্বর। আমি চাই আপনারা ফসুফুসের সমস্ত বাতাস একসঙ্গে করে চিৎকার করুন, এই পোস্ট শেয়ার করুন। আমরা ফারহান হত্যার বিচার চাই।

এদিকে, রাজধানী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীসহ একাধিক জোনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালে চারজন মারা গেছে বলে খবর পাওয়া গেছে। এদের মধ্যে নর্দার্ন ইউনিভার্সিটির আসিফ ও ইসলামিক ইনিভার্সিটি অফ টেকনলোজির তানভিনের নাম জানা গেছে।

এছাড়াও উত্তরাসহ রাজধানীর বাড্ডায় আরো নিহতের খবর পাওয়া গেছে। এদের মধ্যে একজন গাড়িচালকও রয়েছেন।


আরও খবর
রাজধানীর উত্তরা পূর্ব থানায় আগুন

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪




কোটা আন্দোলন নিয়ে সমন্বয়কদের নতুন দিকনির্দেশনা

প্রকাশিত:শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে অনড় আন্দোলনকারীরা। সারাদেশে চলছে তাদের কর্মসূচি। এর মধ্যেই আন্দোলনকে আরও বেগবান করতে এলো নতুন ১০ নির্দেশনা। বৈষম্যবিরোধী আন্দোলনের সমন্বয়ক প্যানেলের পক্ষ থেকে এই নির্দেশনাগুলো দেওয়া হয়েছে।

আন্দোলনের সমন্বয়ক নাহিদ ইসলাম ফেসবুকে একটি খোলা বার্তার মাধ্যমে বিষয়টি সবাইকে জানিয়েছেন।

ওই বার্তায় তিনি উল্লেখ করেন-

১. বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ, জেলা ও মহানগরে যারা আন্দোলন সমন্বয় করছেন সবাই সংগঠিত হওয়ার জন্য আলাদা করে সমন্বয়ক কমিটি তৈরি করুন। দল, মত নির্বিশেষে সকলের অংশগ্রহণের সুযোগ রাখুন৷ সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য নেতৃত্ব তৈরি করুন এবং সবার সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করুন। তবে আন্দোলনের স্বার্থে বিতর্কিত বা রাজনৈতিকভাবে প্রশ্ন উঠতে পারে এরকম কাউকে নেতৃত্ব পর্যায়ে রাখবেন না।

২. আন্দোলনকে কোনো একক বা মূল নেতৃত্বের উপর নির্ভরশীল করবেন না। সবসময় বিকল্প নেতৃত্ব প্রস্তুত রাখুন। প্রথম দিকের নেতৃত্বে ওপর ঝামেলা হলেও তাহলে আন্দোলন স্তিমিত হবে না। নেতৃত্বে নতুন চেহারা আনার চেষ্টা করুন।

৩. ইন্টার্নালি সংগঠিত থাকুন কিন্তু আন্দোলনকে কোনো সাংগঠনিক রুপ দিবেন না। কমিটিটা শুধু শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য। আন্দোলনের স্বতঃস্ফূর্ত চরিত্র যাতে বজায় থাকে৷ তবে কোনো পক্ষ অনুপ্রবেশ করে যাতে স্যাবোটেজ করতে না পারে এ বিষয়ে সতর্ক থাকবেন৷ আন্দোলন সব সময় শান্তিপূর্ণ ও অহিংস হবে।

৪. যে স্থানে কর্মসূচি করবেন সেখানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যোগাযোগ করতে চাইলে তাদের সঙ্গে কোঅপারেট করুন। কিন্তু সকল সিদ্ধান্ত আপনারাই নেবেন। কোনো ধরনের আপস করা যাবে না।

৫. সম্মিলিতভাবে আন্দোলন করার চেষ্টা করুন। জেলা বা মহানগরের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা নিজেদের মধ্যে সমন্বয় তৈরি করুন এবং একসঙ্গে বড় জমায়েত করার চেষ্টা করুন।

৬. কারও ওপর কোনো আঘাত বা হুমকি আসলে সম্মিলিতভাবে প্রতিরোধ করুন। ভয় পাবেন না। পিছিয়ে যাবেন না। সামনে এসে কথা বলুন। এখানে গোপনীয়তার কিছু নাই। আমাদের দাবি ও বক্তব্য সুস্পষ্ট ও যৌক্তিক।

৭. বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজের সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনকে যুক্ত করুন। কর্মসূচিতে সাংস্কৃতিক আয়োজন রাখুন। জেলা ও মহানগরের নাগরিক সংগঠনগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ করুন। কর্মসূচির আগে মাইকিং ও লিফলেটের মাধ্যমে ব্যাপক গণসংযোগ করুন। হলের রুমে রুমে, লাইব্রেরিতে প্রচার করুন।

৮. মিডিয়া ও সংবাদকর্মীদের সঙ্গে সুসম্পর্ক রাখুন। মিডিয়ার সামনে বুঝেশুনে কথা বলুন যাতে মূল বক্তব্যের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ থাকে। প্রোগ্রামে ও মিডিয়ায় আন্দোলনের সঙ্গে সম্পর্ক নেই এ রকম বক্তব্য বা স্লোগান দিবেন না।

৯. ঢাকার সঙ্গে সমন্বয় করে কর্মসূচি রাখার চেষ্টা করুন। বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন ব্যানার যারা ব্যবহার করবেন, তারা অবশ্যই ঢাকার সঙ্গে আলোচনা করে নেবেন।

১০. অর্থ সংগ্রহের জন্য সরাসরি ক্রাউড ফান্ডিং করুন। কোনো অনলাইন মাধ্যম ব্যবহার করবেন না। অর্থের নিয়মিত হিসাব রাখুন এবং সমন্বয়ক টিমের কাছে হিসাব ক্লিয়ার রাখুন। কোনো প্রতিষ্ঠান থেকে অর্থ নেবেন না। কারও কাছ থেকে বেশি অঙ্কের টাকা নেবেন না। রাজনৈতিক স্বার্থ আছে এ রকম কারও কাছ থেকে কোনো আর্থিক সহযোগিতা নেবেন না।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশে সরকারি চাকরিতে ৫৬ শতাংশ কোটা প্রচলিত ছিল। এর মধ্যে ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটা, ১০ শতাংশ নারী কোটা, অনগ্রসর জেলার বাসিন্দাদের জন্য ১০ শতাংশ কোটা, ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর মানুষদের জন্য ৫ শতাংশ এবং প্রতিবন্ধীদের জন্য ১ শতাংশ আসন সংরক্ষিত ছিল।

ওই বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কোটা সংস্কারের দাবিতে বড় বিক্ষোভ হয়। কোটাব্যবস্থার সংস্কার করে ৫৬ শতাংশ কোটা থেকে ১০ শতাংশে নামিয়ে আনার দাবি জানিয়েছিলেন আন্দোলনকারীরা। পরে ওই বছরের ৪ অক্টোবর কোটাপদ্ধতি বাতিলবিষয়ক পরিপত্র জারি করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

এর মাধ্যমে ৪৬ বছর ধরে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে যে কোটাব্যবস্থা ছিল, তা বাতিল হয়ে যায়। পরে ২০২১ সালে সেই পরিপত্রের মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিলের অংশটিকে চ্যালেঞ্জ করে কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান উচ্চ আদালতে রিট করেন। সেই রিটের রায়ে চলতি বছরের ৫ জুন পরিপত্রের ওই অংশ অবৈধ ঘোষণা করা হয়। এরপর চাকরিপ্রত্যাশী সাধারণ শিক্ষার্থীরা মাঠে নামেন।

টানা কয়েক দিন আন্দোলনের পর গত ৯ জুলাই কোটা পুনর্বহাল নিয়ে হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে আবেদন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থী। পরদিন হাইকোর্টের দেওয়া রায়ের ওপর এক মাসের স্থিতাবস্থা জারি করেন আপিল বিভাগ। এ আদেশের ফলে মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিল করে ২০১৮ সালে সরকারের জারি করা পরিপত্র বহাল থাকছে। তবে শিক্ষার্থীরা আপিল বিভাগের এই আদেশ প্রত্যাখ্যান করে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন। যা এখনও চলমান।


আরও খবর
মেট্রোরেল চলাচল পুরোপুরি বন্ধ

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪




রংপুরে সেপটিক ট্যাংকে পড়ে মা-ছেলেসহ ৩ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৪ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
রংপুর প্রতিনিধি

Image

রংপুরের মিঠাপুকুরে সেপটিক ট্যাংকে পড়ে মা-ছেলেসহ ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার দিকে উপজেলার উদয়পুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- ওই গ্রামের বাদশা মিয়ার স্ত্রী দেলোয়ারা বেগম (৫৫), তার ছেলে ইদা মিয়া (৩৫) ও প্রতিবেশী তবারক হোসেনের ছেলে ইবনুল মিয়া (৩৫)।

স্থানীয়রা জানান, দেলোয়ারা নামে এক নারী সেপটিক ট্যাংক ভেঙে পড়ে যায়। এ সময় তাকে উদ্ধার করতে গিয়ে ছেলে ইদা ও প্রতিবেশী ইবলুল মিয়াও ট্যাংকে পড়ে যায়। পরে ফায়ার সার্ভিসের দুইটি ইউনিট তাদের মরদেহ উদ্ধার করে।

রংপুর ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক বাদশা মাসুদ আলম বলেন, তিনজনের মরদেহ উদ্ধার করে পরিবারে কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

ওসি ফেনদৌস ওয়াহিদ জানান, সকাল ৬টার দিকে উদয়পুর গ্রামে নিজ বাড়ির সেফটিক ট্যাংকে পড়ে তারা নিহত হন। পরে ফায়ার সার্ভিসকে ফোন দিলে তারা মরদেহ উদ্ধার করে।


আরও খবর



টেন মিনিট স্কুলে ৫ কোটি টাকার বিনিয়োগ প্রস্তাব বাতিল

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অনলাইন শিক্ষাদান প্রতিষ্ঠান টেন মিনিট স্কুলে বড় অংকের বিনিয়োগ প্রস্তাব বাতিল করেছে সরকারি প্রতিষ্ঠান স্টার্টআপ বাংলাদেশ।

মঙ্গলবার সকালে স্টার্টআপ বাংলাদেশের ভেরিফায়েড ফেসবুকে এমনই একটি পোস্ট শেয়ার করা হয়। সেখানে লেখা হয়েছে, টেন মিনিট স্কুল- এর জন্য ৫ কোটি টাকার বিনিয়োগ প্রস্তাব স্টার্টআপ বাংলাদেশের পক্ষ থেকে বাতিল করা হলো।

এদিকে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকও তার ফেসবুকে এমনই একটি পোস্ট শেয়ার করেছেন।

তিনি লিখেছেন, টেন মিনিট স্কুল- এর জন্য ৫ কোটি টাকার বিনিয়োগ প্রস্তাব স্টার্টআপ বাংলাদেশের পক্ষ থেকে বাতিল করা হলো।

তবে কী কারণে বিনিয়োগ বাতিল করা হয়েছে- সেটা জানতে চাইলে গণমাধ্যমকে প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিনিয়োগ বাতিলের কারণ প্রকাশ্যে জানানো চুক্তির বরখেলাপ।

এর আগে গত ১৪ জুলাই রাজধানীর আগারগাঁওয়ের আইসিটি টাওয়ারে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল অডিটোরিয়ামে এ বিষয়ে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বাংলাদেশ স্টার্টআপ সামিট ২০২৪ এর উদ্বোধন ঘোষণা করেন।

প্রসঙ্গত, কোটা সংস্কারের দাবি নিয়ে টেন মিনিট স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী আয়মান সাদিক বেশ সরব রয়েছেন। তিনি বলেছেন, কোটা আন্দোলন ২০১৮ সালে শুরু হয়েছিল। তখনও আমি প্রোপারলি এ আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়েছি। মেধা হবে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় কোটা। এটাতে কোনো ডাউট থাকা উচিত না।

এমনকি তার নিজের ফেসবুক পেজের কভার ফটোতেও লেখা রয়েছে কোটা সংস্কার চাই, মেধা হোক সবচেয়ে বড় কোটা


আরও খবর
মেট্রোরেল চলাচল পুরোপুরি বন্ধ

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪