আজঃ শুক্রবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২৩
শিরোনাম

সপ্তম বিয়ে করায় চতুর্থ স্ত্রীর আত্মহত্যা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৪ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৪ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
Image

নালিতাবাড়ী(শেরপুরে) প্রতিনিধি:

শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে সাবিনা ইয়াসমিন (৩৫) নামে তালাকপ্রাপ্ত এক নারীকে সপ্তম বিয়ে করায় স্বামীর সাথে বাকবিতন্ডায় প্রকাশ্যে বিষপানে আত্মহত্যা করেছে চতুর্থ স্ত্রী তিন সন্তানের জননী আছমা খাতুন (৪৫)।

ঘটনাটি নিয়ে মঙ্গলবার (১৪ নভেম্বর) থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

জানা গেছে, নালিতাবাড়ীর সাব রেজিস্ট্রি অফিসের দলিল লেখক নূর হোসেন সরকার (৭৮) উপজেলার নয়াবিল ইউনিয়নের মৌয়াকুড়া গ্রামের বাসিন্দা। সে এ পর্যন্ত বিয়ের করেছেন ছয়টি।  সম্প্রতি পার্শ্ববর্তী বনকুড়া গ্রামের মৃত আব্দুল করিমের তালাকপ্রাপ্ত মেয়ে সাবিনা ইয়াসমিন (৩৫) কে গত ১১ নভেম্বর রাতে রেজিস্ট্রি বিহীন বিয়ে করেন। সপ্তম বিয়ে করায় চতুর্থ স্ত্রী আছমা খাতুনের সাথে তাঁর বাক বিতন্ডায় হয়। ওই অভিমানে তিন সন্তানের জননী আছমা খাতুন সোমবার সকালে  (১৩ নভেম্বর) স্বামীর সামনে বিষপান করে।  পরে বাড়ির লোকজন তাকে উপজেলা সদর হাসপাতালে নেন।

স্থানীয় বাসিন্দা হাসমত আলী ও মনিরুল ইসলাম বাবুসহ আশপাশের লোকজন জানান, তার অবস্থার অবনতি হলে নালিতাবাড়ী হাসপাতাল থেকে শেরপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ সময় দায়িত্বরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।  পরে তার লাশ সিধুলী গ্রামে বাবার বাড়ি নেয়া হয়। এ ঘটনায় গা ঢাকা দেন নুর হোসেন। 

স্থানীয় হাসমত আলী বলেন, টাকার গরমে সে একাধিক বিয়ে করে। চরিত্রহীন এই লোকটি ছেলের শ্বাশুড়িসহ ৬ থেকে ৭টি বিয়ে করেছে। সম্প্রতি তার দূর সম্পর্কের ভাতিজীকে বিয়ে করে। এর প্রতিবাদ করে না পেয়ে সে আত্মহত্যা করেছে। 

নালিতাবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ এমদাদুল হক এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।


আরও খবর
ভালুকা মুক্ত দিবস আজ

শুক্রবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২৩




ইনশাআল্লাহ জয় আমাদের নিশ্চিত: ফেরদৌস

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে ঢাকা-১০ আসন থেকে নৌকার টিকিট পেয়েছেন চিত্রনায়ক ফেরদৌস আহমেদ। আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে এবার নির্বাচন করছেন তিনি। বৃহস্পতিবার (৩০ নভেম্বর) সকালে ঢাকা বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে মনোনয়ন ফরম জমা দেওয়া শেষে গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন তিনি।

ফেরদৌস বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমার ওপর আস্থা রেখে, বিশ্বাস করে ঢাকা-১০ আসনে নৌকার টিকিট দিয়েছেন। আমি একজন আওয়ামী লীগের নিবেদিতপ্রাণ কর্মী। দীর্ঘদিন ধরেই আওয়ামী লীগের সঙ্গে আছি। আওয়ামী লীগের পুরো পরিবার আমার সঙ্গে আছে। ইনশাআল্লাহ, জয় আমাদের নিশ্চিত। আমরা জয় নিয়ে আসব, সেভাবে আমরা কাজ শুরু করেছি।

তিনি বলেন, সবাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আজকে আমার জীবনের শ্রেষ্ঠ একটি দিন। আজকে সেই কাঙ্ক্ষিত মনোনয়ন ফরম আমি জমা দিয়েছি। আওয়ামী লীগের সব নেতাকর্মীকে সঙ্গে নিয়ে মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছি।

তিনি আরও বলেন, নবীন-প্রবীণ সব নেতাকর্মীকে সঙ্গে নিয়ে, সবাইকে পাশে নিয়ে আমি কাজ করছি। মানুষকে নিয়েই আমার কাজটা ছিল। আমি দীর্ঘদিন ধরে টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া পর্যন্ত যে শুটিং করেছি তা মানুষের সঙ্গেই। দেশের প্রান্তিক মানুষ থেকে শুরু করে সব ধরনের মানুষের সঙ্গে আমার দারুণ যোগাযোগ ছিল। মানুষের সঙ্গে থাকতে, মানুষকে নিয়ে থাকতে আমার খুব ভালো লাগে।

ফেরদৌস বলেন, শৃঙ্খলা, সততা, যে ব্যাপারগুলো একজন মানুষকে নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলে, সেভাবে নিজেকে প্রমাণ করব।

তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এ আসন থেকে স্বাধীনতা ঘোষণা করেছেন। এই আসন থেকেই ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের প্রিপারেশন শুরু করেছিলেন। এখানে বেড়ে উঠেছে আমাদের প্রধানমন্ত্রীর পুরো পরিবার। আবার এখানেই ঘাতক দালালদের নির্মম বুলেটে বঙ্গবন্ধুসহ তার পুরো পরিবারকে হত্যা করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর তাজা রক্ত এখনো ধানমন্ডির ৩২ নম্বর বাড়িতে আছে। এটাই এখন আমাদের যাদুঘর। এই ৩২ নম্বরকে, ধানমন্ডিকে, এই ঐতিহাসিক জায়গার ঐতিহ্য বজায় রাখার জন্য আমরা শিল্প, সংস্কৃতি, শিক্ষা সবকিছুকে পাশে নিয়ে সুন্দর করে কাজ করব।


আরও খবর
রবিবার হরতাল-অবরোধ দিচ্ছে না বিএনপি

বৃহস্পতিবার ০৭ ডিসেম্বর ২০২৩




আরাফাতের হাতে কোনো নগদ টাকা নেই

প্রকাশিত:বুধবার ০৬ ডিসেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ০৬ ডিসেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

ঢাকা-১৭ আসনের উপনির্বাচনে অংশগ্রহণের সময় গত জুন মাসে দাখিল করা হলফনামায় মোহাম্মদ আলী আরাফাতের হাতে নগদ (ব্যাংক স্থিতিসহ) ছিল ৩ কোটি ৪৩ লাখ ৯৯ হাজার ৬০৬ টাকা। দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য নতুন যে হলফনামা দিয়েছেন তিনি, সেখানে তার কোনো নগদ টাকা নেই।

অপরদিকে তার স্ত্রীর আগের নগদ অর্থ এক কোটি ১০ লাখ থেকে বেড়ে এক কোটি ২৩ লাখ ৭১ হাজার টাকায় দাঁড়িয়েছে। তবে উপনির্বাচনের হলফনামায় তার ওপর নির্ভরশীলদের আয় ৩৮ লাখ ৭৮ হাজার টাকা দেখানো হলেও, নতুন হলফনামায় কোনো আয় দেখানো হয়নি।

মোহাম্মদ আলী আরাফাতের একাদশ জাতীয় সংসদের উপনির্বাচন ও দ্বাদশের হলফনামা তুলনামূলক পর্যালোচনা করে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

এতে দেখা গেছে, মোহাম্মদ এ আরাফাতের আগের তুলনায় তার বার্ষিক আয় কিছুটা বেড়েছে। বর্তমানে তার বার্ষিক আয় এক কোটি ৩২ লাখ ৭৮ হাজার ৬০০ টাকা। এর আগে আয় দেখিয়েছিলেন ১ কোটি ২৭ লাখ ৮৭ হাজার ৬০৫ টাকা। তার আয়ের খাতগুলো হচ্ছে শেয়ার ও ব্যাংক আমানত ৪৯ হাজার ২৬০ টাকা, চাকরি এক কেটি ২৫ লাখ ৫০ হাজার এবং অন্যান্য খাত থেকে ৬ লাখ ৭৯ হাজার ৩৪০ টাকা।

উপনির্বাচনের সময় তার ওপর নির্ভরশীলের আয় দেখিয়েছিলেন ৩৮ লাখ ৭৮ হাজার টাকা। কিন্তু এবার কোনো আয় দেখাননি।

এবার মোহাম্মদ এ আরাফাতের হাতে নগদ শূন্য হলেও, স্ত্রীর হাতে নগদ এক কোটি ২৩ লাখ ৭১ হাজার ৯৩ টাকা। আগে ছিল এক কোটি ১০ লাখ টাকা।

মোহাম্মদ এ আরাফাতের বর্তমানে এক কোটি ৪৪ লাখ ৭১ হাজার ৪৬৩ টাকার শেয়ার রয়েছে। আগে এর পরিমাণ ছিল ১ কোটি ২৯ লাখ টাকার। স্ত্রীর ১ কোটি ৯৯ লাখ টাকার শেযার বিনিয়োগ থেকে বেড়ে দুই কোটি ২ লাখ ৪০ হাজার টাকায় দাঁড়িয়েছে।

আরাফাতের নিজের নামে সঞ্চয়পত্রে স্থায়ী আমানত আগের ৩০ লাখ টাকা থেকে বেড়ে ৩৪ লাখ টাকা হয়েছে। এছাড়া তার আগের মতোই ১৭ লাখ ২০ হাজার টাকার গাড়ি, ছয় লাখ টাকার ইলেকট্রনিক সামগ্রী ও আসবাবপত্র রয়েছে এবং ২ কোটি ৭০ লাখ টাকার অ্যাপার্টমেন্ট রয়েছে।

আগের মতোই তার নিজের ও স্ত্রীর স্বর্ণ, পাথরনির্মিত অলংকার বা অন্য কোনো মূল্যবান অলংকার নেই।

আরাফাত স্ট্র্যাটেজিক ফিন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড (এসএফআইএল) থেকে নিজ নামে আগে এক কোটি ১৭ লাখ ৬১ হাজার ৩৮৬ টাকা গৃহঋণ ছিল। এবার তা কিছুটা কমে এক কোটি ১০ লাখ ২৩ হাজার ৯১৩ টাকায় দাঁড়িয়েছে। তবে স্ত্রীর ঋণ আগের মতো ৮ লাখ টাকাই রয়েছে।


আরও খবর
রবিবার হরতাল-অবরোধ দিচ্ছে না বিএনপি

বৃহস্পতিবার ০৭ ডিসেম্বর ২০২৩




যুদ্ধবিরতির মধ্যে ইসরায়েলি হামলায় ৮ ফিলিস্তিনি নিহত

প্রকাশিত:সোমবার ২৭ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ২৭ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

গাজায় যুদ্ধবিরতির মধ্যেই অধিকৃত পশ্চিম তীরে ইসরায়েলি বাহিনী আটজন ফিলিস্তিনিকে হত্যা করেছে। এর মধ্যে একজন শিশুও আছে। ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এ তথ্য জানিয়েছে। এ নিয়ে গত ৭ অক্টোবরের পর পশ্চিম তীরে নিহতের সংখ্যা ২৩৯ জনে দাঁড়ালো। খবর আল জাজিরার।

ফিলিস্তিনের মন্ত্রণালয় গতকাল রবিবার জানিয়েছে, শনিবার শেষ নাগাদ এবং গতকাল রবিবার ভোরে ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে পাঁচজন ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে। আরও তিনজন নিহত হয়েছে পশ্চিম তীরের বিভিন্ন জায়গায়। এ ছাড়া জেনিনে ইসরায়েলি বাহিনীর অভিযানে ছয়জন ফিলিস্তিনি আহত হয়েছে।

আরও পড়ুন>> যুদ্ধবিরতির মধ্যে পশ্চিম তীরে ছয় ফিলিস্তিনিকে হত্যা

ফিলিস্তিনের সংবাদ সংস্থা ওয়াফা বলছে, বিভিন্ন দিক থেকে ইসরায়েলি বাহিনী জেনিনে তাণ্ডব চালিয়েছে। তারা বুলেট ছুড়েছে এবং সরকারি হাসপাতাল এবং রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির হেড কোয়ার্টার ঘিরে রেখেছে।

গত ৭ অক্টোবর গাজা থেকে ইসরায়েল অভিমুখে হাজার হাজার রকেট ছুড়ে ইসরায়েলি বাহিনী। সেইসঙ্গে হামাসের যোদ্ধারা ইসরায়েলের সীমান্ত ভেদ করে দেশটিতে তাণ্ডব চালায়। এতে ইসরায়েলে নিহত হয়েছে ১২০০। আহত তিন হাজারের বেশি। এরপরেই গাজায় পাল্টা আক্রমণ শুরু করে ইসরায়েলি বাহিনী। ইসরায়েলি বাহিনীর হামলায় গাজায় নিহত হয়েছে ১৫ হাজারের বেশি। আহত অন্তত ৩০ হাজার।


আরও খবর
গাজায় ইসরায়েলের মন্ত্রীর ছেলে নিহত

শুক্রবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২৩




দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

অপরাধ দমনে মাঠে থাকবে ৬৫৩ বিচারিক হাকিম

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ২৫ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিভিন্ন অপরাধের বিচার করার জন্য মাঠে থাকবে ৬৫৩ জন বিচারিক হাকিম। এরই মধ্যে সাংবিধানিক এ সংস্থাটি আইন মন্ত্রণালয়ে এ বিষয়ে রিকুইজিশন দিয়েছে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনের (ইসি) আইন শাখার যুগ্মসচিব মো. মাহবুবার রহমান সরকার।

শনিবার (২৫ নভেম্বর) সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান তিনি। মাহবুবার রহমান সরকার বলেন, বিচারিক হাকিম থাকবে ৬৫৩ জন। আমরা রিকুইজিশন দিয়েছি। উনারা কাজ করবেন পাঁচদিন। ভোটের আগে দুদিন, ভোটের দিন এবং ভোটের পরে দুদিন কাজ করবেন।

তিনি বলেন, জুডিসিয়াল অফিসার নিয়োগ হয়েছে নির্বাচনী তদন্ত কমিটিতে। গত সপ্তাহে আইন মন্ত্রণালয় সুপ্রিম কোর্টের অনুমোদন নিয়ে উনারা নিয়োগপ্রাপ্ত হয়েছেন। আচরণবিধি লঙ্ঘন হলে তারা তদন্ত করতে পারবেন। তারা শুধু রিপোর্ট দিতে পারবেন। স্ব উদ্যোগে তদন্ত করতে পারবেন। কমিশন যদি বলে একটা অভিযোগ পাওয়া গেছে, আপনারা রিপোর্ট দেবেন। তিনদিনের মধ্যে রিপোর্ট দেবেন। কমিশন তা পর্যালোচনা করে প্রার্থী, ব্যক্তি বা দলকে দণ্ড দিতে পারেন। এ কমিটির ফলে আচরণবিধি লঙ্ঘন কমবে।

তিনি আরও বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কমিটি ছিল ১২২টা। এবার ৩০০ আসনে ৩০০টি কমিটি থাকবে। আগে বিচারিক কর্মকর্তারা যারা আসতেন তারা বিচারিক অফিসও করতেন। এবার কমিশনের অনুরোধে সুপ্রিম কোর্ট তাদের ফুলটাইমের জন্য নিয়োগ দিয়েছেন। সবসময় এ কাজই করবেন তারা। আশাকরি বিধি লঙ্ঘন হলে উনারা দৃশ্যমান কার্যকর ব্যবস্থা নিতে পারবেন। তারা অলরেডি মাঠে আছেন। রোববার (২৬ নভেম্বর) থেকে পুরোদমে কাজ করবেন।

এবার বাড়তি নিয়োগের কারণ কী এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মাঠে সবসময় পাওয়া যায় না, তারা আদালতের কাজ শেষ করে এটার জন্য অতিরিক্ত কাজ করেন। তাই এবার বেশি নিয়োগ করা হয়েছে। আগামী সোমবার থেকে তিনদিন তাদের ট্রেনিং হবে। প্রতিদিন ১০০ জন করে ট্রেনিং নেবেন।

বিচারিক হাকিমের বিষয়ে তিনি বলেন, বিচারিক হাকিম থাকবে ৬৫৩ জন। আমরা রিকুইজিশন দিয়েছি। উনারা কাজ করবেন পাঁচদিন। ভোটের আগে দুদিন, ভোটের দিন এবং ভোটের পরে দুদিন কাজ করবেন তারা। তারা ৮৯ (এ) অনুযায়ী অপরাধ আমলে নিয়ে ব্যালট পেপার ছিনতাই, ব্যালট পেপার ধ্বংস করা, ব্যালট বক্স ছিনতাই, ভোটদানে বাধা দেওয়া বা বাধ্য করা, ভোটকেন্দ্রের পরিবেশকে ভোটের উপযোগী না রাখা এ সব অপরাধের সংক্ষিপ্ত বিচার করতে পারবেন।

তফসিল অনুযায়ী, দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় ৩০ নভেম্বর, মনোনয়নপত্র বাছাই ১ থেকে ৪ ডিসেম্বর, রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে কমিশনে আপিল দায়ের ও নিষ্পত্তি ৫ থেকে ১৫ ডিসেম্বর, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় ১৭ ডিসেম্বর। রিটার্নিং কর্মকর্তারা প্রতীক বরাদ্দ করবেন ১৮ ডিসেম্বর। নির্বাচনী প্রচার চলবে ৫ জানুয়ারি সকাল ৮টা পর্যন্ত। আর ভোটগ্রহণ হবে ৭ জানুয়ারি (রোববার)।


আরও খবর
তৃতীয় দিনে ১৫৫ প্রার্থীর আপিল ইসিতে

শুক্রবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২৩




‘দ্য হেগ অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন বুয়েটের অধ্যাপক সুলতানা রাজিয়া

প্রকাশিত:শনিবার ০২ ডিসেম্বর 2০২3 | হালনাগাদ:শনিবার ০২ ডিসেম্বর 2০২3 | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

আন্তর্জাতিক রাসায়নিক অস্ত্র নিরস্ত্রীকরণ সংস্থার (ওপিসিডব্লিউ) দ্য হেগ অ্যাওয়ার্ড-২০২৩ পেয়েছেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. সৈয়দা সুলতানা রাজিয়া।

রাসায়নিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ সংস্থার ওপিসিডব্লুউি মহাপরিচালক, রাষ্ট্রদূত ফার্নান্দো আরিয়াস এবং ডাচ সরকারের পক্ষে রাষ্ট্রদূত হেঙ্ক ভ্যান ডার কোয়াস্ট, ওপিসিডব্লুউির ২৮তম বার্ষিক সম্মেলনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে যৌথভাবে তার হাতে এ পুরস্কার তুলে দেন।

এ বছর দ্য হেগ এওয়ার্ডর সহ-প্রাপক হচ্ছেন আফ্রিকান সেন্টার ফর সায়েন্স অ্যান্ড ইন্টারন্যাশনাল সিকিউরিটির পরিচালক হুবার্ট কে ফয় এবং সুইজারল্যান্ডের স্পিজ ল্যাবরেটরি। ড. রাজিয়াকে বাংলাদেশে রাসায়ানিক সুরক্ষা এবং সুরক্ষার উন্নয়নে অবদান এবং এর বৈজ্ঞানিক উপদেষ্টা বোর্ডের সদস্য হিসেবে তার ভূমিকার জন্য এ স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে।

তিনি ওপিসিডব্লুউির বৈজ্ঞানিক উপদেষ্টা বোর্ডে ২০১৮ থেকে ২০২৩ সাল পর্যন্ত সদস্য হিসেবে কাজ করেছেন এবং রাসায়নিক অস্ত্রমুক্ত বিশ্ব সুরক্ষিত করার জন্য নতুন জ্ঞান সৃজনে অবদান রেখেছেন।

২০১৩ সালে নোবেল শান্তি পুরস্কার পাওয়ার পর থেকে ওপিসিডব্লুউি কনভেনশনের উদ্দেশ্যগুলোর সাথে সম্পর্কিত বিশ্বজুড়ে ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে তাদের স্বতন্ত্র কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ এ পুরস্কার দিয়ে আসছে। প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে ড. সৈয়দা সুলতানা রাজিয়া এ পুরস্কার অর্জন করেন।


আরও খবর
তৃতীয় দিনে ১৫৫ প্রার্থীর আপিল ইসিতে

শুক্রবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২৩