আজঃ বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১
শিরোনাম

শরীয়তপুরে প্রাথমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের জন্য নেই পর্যাপ্ত শিক্ষক

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৮ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৮ জুন ২০২১ | ১৯৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

শরীয়তপুর প্রতিনিধি:

শরীয়তপুর জেলায় করোনার প্রভাবে টানা ছুটিতে প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থা মারাত্বক হুমকির মুখে রয়েছে। পড়াশুনা বাদ দিয়ে ছাত্র-ছাত্রীরা মোবাইল গেমসে আসক্ত হয়ে পড়েছে। অভিভাবক মহল শঙ্কার কথা জানালেও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বলছেন শিক্ষা কার্যক্রম চলছে ও প্রতিষ্ঠান খুলে দিতে পুরোপুরি প্রস্তত রয়েছে তারা।

শরীয়তপুর জেলায় ৬৯৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে এবং এতে পড়াশুনা করছে জেলার প্রায় ২ লক্ষাধিক কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রী। যাদের আবার অধিকাংশই দরিদ্র পরিবারের সন্তান। করোনার কারণে বিদ্যালয়গুলো বন্ধ থাকাতে শিক্ষা ব্যবস্থা পড়েছে মহাসংকটে। শিশুরা আর আগের মত পড়াশোনায় মনোযোগী হতে পারছেনা। তারা এখন পড়াশুনা রেখে মোবাইল গেমসে আসক্ত হয়ে পড়েছে। যা শিশুদের দৈহিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। অভিভাবকরা অভিযোগ করে জানান,স্কুল বন্ধ থাকার কারণে ছেলে-মেয়েদের পড়াশুনার যে ক্ষতি হচ্ছে তা পূরণ করা সম্ভব না। সব কিছু খুলে দেওয়া হলেও স্কুলগুলো কেন খুলে দেওয়া হচ্ছে না?

স্কুল বন্ধ থাকার কারণে বেহাল দশা স্কুলগুলোর। এমনই কিছু স্কুলের চিত্র এসেছে হাতে। এতে দেখা যায় স্কুলগুলোতে গবাদি পশু পালন করা হচ্ছে, রাখা হচ্ছে গবাদি পশুর খাবার। ফসল কেটে রাখা হচ্ছে স্কুলের আঙিনা ও ক্লাসরুমে।


অন্যদিকে জেলায় মোট কিন্ডারগার্টেন রয়েছে ১৮৫টি। প্রায় ৩৫ হাজার ছাত্র-ছাত্রী এই কিন্ডারগার্টেন গুলোতে পড়াশুনা করে। অভিভাবকদের অর্থনৈতিক সংকটের কারণে যাদের একটি বড় অংশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দিকে ঝুঁকে যাবে বলে ধারণা করছেন বিশেষজ্ঞরা। এতে করে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে চাপ বাড়বে। কিন্তু এই চাপ সামলাতে নেই পর্যাপ্ত শিক্ষক।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের দেওয়া তথ্যমতে, সহকারি শিক্ষকের পদ শূন্য রয়েছে  ৩৩২টি, প্রধান শিক্ষকের ২১৪ টি এবং বছরে গড়ে প্রায় ৬৫ জন শিক্ষিকা মাতৃত্বকালীন ছুটিতে থাকেন। এতে করে সারা বছর ধরে শিক্ষক সংকট লেগেই থাকে। এর উপর স্কুল খুলে দেওয়া হলে বাড়তি শিক্ষার্থীদের চাপ সামলাতে কতটা প্রস্তুত প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন জেলার শিক্ষাবিদরা। শরীয়তপুর জেলায় মাত্র ২ জন শিক্ষক দিয়ে চলে এমন বিদ্যালয় রয়েছে ১১টি। এছাড়াও ৩ জন শিক্ষক দিয়ে চলে এমন বিদ্যালয় রয়েছে অসংখ্য। অথচ শিক্ষা অধিদপ্তরের নির্দেশনা মেনে পাঠ্য কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন বলে দাবী করেছেন জেলার শিক্ষকবৃন্দ।


শরীয়তপুর সদর উপজেলার ৬৫ নং কীর্তিনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা গেল শিক্ষার্থীদের বাড়ি বাড়ি যাওয়ার জন্য সহকারি শিক্ষিকা নাসরিন আক্তার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। কিভাবে শিক্ষার্থীদের পাঠদান করেন? এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, আমরা প্রতিদিন ছাত্র-ছাত্রীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে পড়া দেই, সীটে করে লেখা জমা নেই এবং তা মূল্যায়ন করি।

জেলা প্রাথমিক অফিসার মো: আবুল কালাম আজাদ বলেন, আমাদের পাঠদান থেমে নেই। ফিল্ড পর্যায়ে বাড়ি বাড়ি গিয়ে আমাদের সকল শিক্ষক স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। স্কুল খোলার জন্য আমরা প্রস্তত। সরকারি নির্দেশনা পেলেই আমরা যথাযথ নিয়ম মেনে স্কুল খুলে দিবো


আরও খবর



রাজাকারের বংশধরদের সরকারি চাকরি: নীতিমালা অনুসরণের সুপারিশ

প্রকাশিত:রবিবার ১৩ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৩ জুন ২০২১ | ১৮৭জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

চিহ্নিত রাজাকারের পরবর্তী প্রজন্মকে সরকারি চাকরি দেওয়ার ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক নীতিমালা অনুসরণের সুপারিশ করেছে সংসদীয় কমিটি। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংজ্ঞা সংগ্রহ করারও সুপারিশ করা হয়েছে।

রবিবার (১৩ জুন) জাতীয় সংসদের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এ সুপারিশ করা হয়। কমিটির সভাপতি শাজাহান খানের সভাপতিত্বে সংসদ ভবনে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

কমিটির সদস্য মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, রাজি উদ্দিন আহমেদ, মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম, বীর উত্তম, কাজী ফিরোজ রশীদ, ওয়ারেসাত হোসেন বেলাল এবং মোছলেম উদ্দিন আহমদ বৈঠকে অংশ নেন।

বৈঠকে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্টের বোর্ড সভায় প্রধানমন্ত্রীর দিক-নির্দেশনা অবহিতকরণ, মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের গৃহীত কর্মসূচি, পরিকল্পনা এবং মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্টের চট্টগ্রামে অবস্থিত টাওয়ার ৭১জয়বাংলা বাণিজ্যিক ভবন এর কাজের সবশেষ অগ্রগতি বিষয়ক আলোচনা করা হয়।

যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধোদের পুনর্বাসন ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা বাড়ানোর লক্ষ্যে গঠিত মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ফান্ড এর তহবিল গঠনে কোন কোন উৎসকে প্রতিষ্ঠার সময়ে নির্ধারণ করা হয়েছিল মন্ত্রণালয়কে তার বিবরণী আগামী বৈঠকে উপস্থাপনের সুপারিশ করা হয়। 

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নির্ধারিত হাসপাতালের মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসা করানো হলে চিকিৎসা সম্পূর্ণ বিনামূল্যে করাসহ ওষুধ খরচ বাবদ নির্ধারিত ৫০ হাজার টাকা থেকে উন্নীত করে ৭৫ হাজার টাকায় নির্ধারণ এবং বিশেষায়িত সরকারি হাসপাতালগুলোতে শতভাগ পরীক্ষা-নিরীক্ষা বিনামূল্যে করা বিষয়ক সংশোধিত নীতিমালাটি আগামী বৈঠকে উপস্থাপনের সুপারিশ করা হয়।

বৈঠকে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, বিভিন্ন সংস্থা প্রধানসহ মন্ত্রণালয় এবং জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। 


আরও খবর



রাজশাহীতে ৭ দিনের সর্বোচ্চ ‘লকডাউন’ শুরু

প্রকাশিত:শুক্রবার ১১ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১১ জুন ২০২১ | ৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনাভাইরাসের ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণ ঠেকাতে উত্তরের সীমান্তবর্তী জেলা রাজশাহীতে এবার সাত দিনের সর্বোচ্চ লকডাউন শুরু হয়েছে। পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী আজ শুক্রবার (১১ জুন) বিকেল ৫টা থেকে এই বিশেষ লকডাউন কার্যকর করা হয়।

লকডাউন কার্যকরের পর বিকেলে রাজশাহী মহানগর পুলিশ কমিশনার মো. আবু কালাম সিদ্দিক নিজেই পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করেন।

এসময় রাজশাহী মহানগরীর সাহেব বাজার জিরোপয়েন্টসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করেন। রাজশাহী মহানগর পুলিশের বিভিন্ন জোনের উপ-কমিশনার, অতিরিক্ত উপ-কমিশনার এবং সহকারী কমিশনারসহ সংশ্লিষ্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা তার সাথে উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে, প্রথম দিন বিশেষ লকডাউন কার্যকরের পর পুরো মহানগর এলাকায় সুনশান নিরবতা নেমে এসেছে। রাজশাহী মহানগরীর তিনটি প্রবেশ মুখ এরইমধ্যে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে চেকপোস্ট স্থাপন করেছে পুলিশ। পুলিশের পাশাপাশি প্রথম দিন র‌্যাব সদস্যরাও বিভিন্ন সড়কে টহল দিচ্ছে। এর পাশাপাশি মাঠে রয়েছে রাজশাহী জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালতও। আর উপজেলা পর্যায়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তারা লকডাউন পরিস্থিতি মনিটরিং করছেন। সার্বিক পরিস্থিতি দেখভাল করছেন রাজশাহী জেলা প্রশাসক মো. আব্দুল জলিল।

এর আগে রাজশাহী জেলায় 'বিশেষ লকডাউন'র আদলে কঠোর বিধিনিষেধ জারি করে জেলা প্রশাসন। শুক্রবার (১১ জুন) বিকেল ৫টা থেকে ১৭ জুন মধ্যরাত (১২টা পর্যন্ত) এক সপ্তাহের জন্য এ বিশেষ লকডাউন কার্যকর থাকবে। বৃহস্পতিবার (১০ জুন) রাতে রাজশাহী সার্কিট হাউজে এক বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় জেলায় করোনা পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ও  মৃত্যু হার বিশ্লেষণ শেষে বিভাগীয় কমিশনার ড. হুমায়ুন কবীর সাংবাদিকদের এ সিদ্ধান্তের কথা জানান।

রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার ড. হুমায়ুন কবীর বলেন, রাজশাহীতে ফের সংক্রমণের হার বেড়েছে। তাই সীমান্ত জেলা চাঁপাইনবাবগঞ্জের পর এবার রাজশাহী জেলায়ও বিশেষ লকডাউন জারি করা হলো। আর করোনায় মৃত্যু ও সংক্রমণ বিবেচনায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

পরে জেলা প্রশাসক মো. আব্দুল জলিল এ বিশেষ লকডাউনের ঘোষণা দেন। তিনি বলেন, রাজশাহীতে প্রথমে সন্ধ্যা ৭টা থেকে পরদিন সকাল পর্যন্ত বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়। তারপর গত ২ জুন আরও দুই ঘণ্টা এগিয়ে বিকেল ৫টা থেকেই বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়। এই ক'দিন আমরা পর্যবেক্ষণ করছিলাম। কোথাও করোনার নিম্নমুখী সংক্রমণ, কোথাও ঊর্দ্ধমুখী। কিন্তু ঊর্দ্ধমুখী সংক্রমণই বেশি। তাই শুক্রবার বিকেল ৫টা থেকে ১৭ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত রাজশাহীতে বিশেষ লকডাউন থাকবে।

তিনি জানান, লকডাউনের সময় সব ধরনের ব্যবসায়ীক দোকানপাট ও যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নাটোর ও নওগাঁসহ আশপাশের অন্য কোনো আন্তঃজেলা থেকে যানবাহন প্রবেশ করতে পারবে না। রাজশাহী থেকেও কোনো যানবাহন বাইরের জেলায়ও যেতে পারবে না। এছাড়া রাজশাহী থেকে ঢাকাসহ সব দূর পাল্লার রুটের বাস ও অন্যান্য যানবাহন এবং যাত্রীবাহী সকল আন্তঃনগর ও মেইল ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকবে। তবে রাজশাহীর আম পরিবহনকারী ম্যাংগো স্পেশাল এবং পণ্যবাহী ট্রেন আগের মতই চলবে। এছাড়া রোগী, খাদ্য, ওষুধ ও পণ্যবাহী পরিবহনসহ অন্য জরুরি সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান এবং জরুরি ওষুধ সরবরাহকারী পরিবহন ইত্যাদি ক্ষেত্রে এ বিশেষ নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না।

রাজশাহীতে আমের মৌসুম চলছে। তাই আমের বাজারগুলো এখন বড় পরিসরে ছড়িয়ে ছিটিয়ে বসবে। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাজার পরিচালনা করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: রাজশাহী লকডাউন

আরও খবর



সিনোফার্মের ৬ লাখ টিকা আসছে আজ বিকেলে

প্রকাশিত:রবিবার ১৩ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৩ জুন ২০২১ | ৬৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সিনোফার্মের ৬ লাখ উপহারের টিকার দ্বিতীয় চালানটি রবিবার (১৩ জুন) বিকেলে ঢাকায় পৌঁছাবে। বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর দুটি বিমান টিকা নিয়ে বেইজিং এয়ারপোর্ট থেকে ঢাকায় আসবে।

রবিবার ঢাকার চীনা দূতাবাস এ তথ্য জানিয়েছেন। ঢাকার চীনা দূতাবাস জানায়, বাংলাদেশকে ৬ লাখ উপহারের টিকা বেইজিং এয়ারপোর্টে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর দুটি বিমানে উঠানো হয়েছে। বিমান দুটি এয়ারপোর্ট থেকে ঢাকায় রওনা দেবে। রবিবার বিকেল নাগাদ বিমান দুটি ঢাকায় পৌঁছাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

এর আগে গত ১২ মে চীন প্রথম দফায় ৫ লাখ টিকা উপহার দেয়। বাংলাদেশ ও বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা প্রথমে সিনোফার্মের টিকা অনুমোদন দিয়েছিল। এরপর চীনা টিকা সিনোভ্যাক জরুরি ব্যবহারের জন্য অনুমোদন দেওয়া হয়।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড এ কে আব্দুল মোমেন জানিয়েছেন, সিনোফার্ম ভ্যাকসিন ক্রয়সংক্রান্ত চুক্তি চূড়ান্ত প্রায়। আর এক সপ্তাহের মধ্যেই সিনোফার্ম কেনার চুক্তির আলোচনা শুরু হবে।


আরও খবর
করোনায় আরও ৭৬ জনের মৃত্যু

মঙ্গলবার ২২ জুন ২০২১




মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি পেলেন আরও ১৬ বীরাঙ্গনা

প্রকাশিত:শনিবার ১২ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১২ জুন ২০২১ | ৯৭জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ও তাদের সহযোগীদের দ্বারা নির্যাতনের শিকার আরও ১৬ বীরাঙ্গনা মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছেন। সম্প্রতি এসব বীরাঙ্গনাদের মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

এসব বীরাঙ্গনারা জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের (জামুকা) ৭৩তম সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতে পেলেন। এ নিয়ে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পাওয়া বীরাঙ্গনার সংখ্যা দাঁড়ালো ৪১৬ জনে।

নতুন করে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পেলেন সুনামগঞ্জের গুলবাহার বেগম, মাদারীপুরের অজুফা বেগম, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আনোয়ারা বেগম ও রুমিয়া খাতুন, পিরোজপুরের বিল্ল বাসিনী ও শেফালী সিকদার, চট্টগ্রামের হোসনে আরা বেগম, নরসিংদীর জাহেরা খাতুন। মৌলভীবাজারের মইরম নেছা, হাজেরা বেগম ও প্রীতি রানী দত্ত; রংপুরের মোছা. ফাতেমা বেগম, মোছা. বেগনা বেগম ও মোছা. মালেকা বেগম এবং নোয়াখালীর শোভা পারভীন ও বাগেরহাটের সেতারা বেগমও মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পেয়েছেন।


আরও খবর



মালয়েশিয়ায় ১০২ বাংলাদেশি আটক

প্রকাশিত:সোমবার ২১ জুন 20২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২১ জুন 20২১ | ৫১জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মালয়েশিয়ায় ১০২ জন বাংলাদেশিসহ ৩০৯ জনকে আটক করেছে সেদেশের অভিবাসন বিভাগ। আজ সোমবার (২১ জুন) ভোরে দেশটির রাজধানী কুয়ালালামপুরের ডেনকিলে নির্মাণকাজ চলছে এমন কয়েকটি এলাকা থেকে তাদেরকে আটক করা হয়। আটকদের মধ্যে বাংলাদেশ ছাড়াও ইন্দোনেশিয়া, ভিয়েতনাম, ভারত ও মিয়ানমারের নাগরিক রয়েছে।

দেশটির অভিবাসন বিভাগ জানিয়েছে, আটকরা ২০ থেকে ৫২ বছর বয়সী। তাদের বিরুদ্ধে অভিবাসী আইন লঙ্ঘনের অভিযোগ আনা হয়েছে। অভিযানে নেতৃত্ব দেন দেশটির ইমিগ্রেশনের ডিজি ইন্দিরা খাইরুল জাইমি দাউদ। ইমিগ্রেশনের ১৮৯ জন কর্মকর্তা এতে অংশ নেন।

অভিযান সম্পর্কে ইমিগ্রেশনের ডিজি বলেন, উল্লেখিত এলাকায় এমসিও লঙ্ঘন করে কাজ চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে এবং মোটেও স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না- এমন অভিযোগের ভিত্তিতে ওইসব এলাকায় অভিযান চালানো হয়। আটকদের সিমুনি ক্যাম্পে নিয়ে করোনা পরীক্ষা করা হবে এবং পরে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে জানান তিনি। 


আরও খবর