আজঃ সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

শরিকদের মনোনয়নের বিষয়ে এখনও সিদ্ধান্ত হয়নি: কাদের

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ২৫ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

আওয়ামী লীগের শরিকদের মনোনয়ন সংক্রান্ত বিষয়ে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

আজ শনিবার রাজধানীর ধানমন্ডির কার্যালয় থেকে বের হওয়ার সময় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান। 

নতুনদের মনোনয়ন দেওয়া নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, নতুন পুরাতন মিলিয়েই আমরা মনোনয়ন দিচ্ছি। যেখানে পুরাতনরা জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্যতা হারিয়েছে, সেখানে তো আমাদের নতুন করে ভাবতে হবে। যাতে আমরা ইলেকটেবল ক্যান্ডিডেট পাই। আমরা দেখব কাকে মনোনয়ন দিলে জনগণের কাছে অধিকতর গ্রহণযোগ্য হবে। তাকেই মনোনয়ন দেব।

আরও পড়ুন>> দলের টিকিট পাওয়ার আগেই মনোনয়নপত্র কিনছেন প্রার্থীরা

জোটের বিষয়ে তিনি বলেন, জোটের বিষয়ে আমাদের এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি। জোটের বিষয়টি তখনই আসে যখন আমাদের বিপরীতে বড় জোট হয়। তা ছাড়া আমরা অহেতুক কেন জোট করব? প্রয়োজন না থাকলে তো জোট করার দরকার নেই। আর যাদের নিয়ে জোট করব- তাদের তো মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্যতা থাকবে হবে।


আরও খবর



ইসরায়েলের বর্বরতা : খাবারের জন্য অপেক্ষারত ফিলিস্তিনিদের ওপর গুলি বর্ষণ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | অনলাইন সংস্করণ
Image

খাবারের জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা ফিলিস্তিনিদের ওপর এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়েছে ইসরায়েল। এই ঘটনায় এক ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে। এছাড়া আরও বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে। গাজার উত্তরাঞ্চলে ইসরায়েলি বাহিনী খাবারের অপেক্ষায় থাকা ক্ষুধার্ত ফিলিস্তিনিদের ওপর গুলি চালিয়েছে বলে বেশ কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী নিশ্চিত করেছেন। এই ঘটনার বেশ কিছু ভিডিওতেও ঘটনার সত্যতা প্রকাশ পেয়েছে।

আল জাজিরার যাচাই করা এসব ফুটেজে দেখা গেছে, সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) উত্তর গাজার একটি ধ্বংসপ্রাপ্ত উপকূলীয় রাস্তা ধরে পালানোর চেষ্টা করছেন ফিলিস্তিনিরা। সে সময় তীব্র গোলাগুলি চলছিল। সেখানে ইসরায়েলি বাহিনীর তাণ্ডবের কারণে কোনো ধরনের সহায়তা পৌঁছানো সম্ভব হচ্ছে না।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে একজন নিহত হয়েছেন। তিনি মাথায় গুলিবিদ্ধ হয়ে মাটিতে ছিটকে পড়েন। ফিলিস্তিনি বার্তা সংস্থা ওয়াফা নিউজ এজেন্সি জানিয়েছে, ওই হামলায় কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছে।

ভুক্তভোগী ও প্রত্যক্ষদর্শীরা আল জাজিরাকে জানিয়েছেন, বিনা প্ররোচনায় ইসরায়েলি বাহিনী সেখানে হামলা চালিয়েছে। এই ঘটনায় আহত এক ব্যক্তি বলেন, আমি গোলাগুলির শব্দ শুনতে পাই। এরপর কি ঘটেছে আমি জানি না।

অপর এক ব্যক্তি জানান, তিনি সেখানে ময়দা নেওয়ার জন্য গিয়েছিলেন। তিনি বলেন, আমরা আমাদের সন্তানদের খাবার দিতে চাই যেভাবে অন্যরা দিচ্ছে। আমরা সামান্য কিছু ময়দা পাওয়ার আশায় সেখানে গিয়েছিলাম। কিন্তু তারা আমাদের ওপর গুলি চালিয়েছে। তারা ট্যাঙ্ক নিয়ে আমাদের ওপর হামলার জন্য অগ্রসর হচ্ছে।

বেশ কিছু ফুটেজে দেখা গেছে, বস্তা থেকে মাটিতে পড়ে থাকা ময়দা তুলে নিচ্ছে ফিলিস্তিনি শিশুরা। সম্প্রতি গাজায় দুর্ভিক্ষের মতো পরিস্থিতি হতে পারে বলে সতর্ক করেছে জাতিসংঘ। সেখানে ইসরায়েলি বাহিনীর তাণ্ডবের কারণে তীব্র মানবিক সংকট তৈরি হয়েছে।

এমন ভয়াবহ পরিস্থিতির পরেও ইসরায়েলি বাহিনী গাজায় কোনো ধরনের মানবিক সহায়তা প্রবেশের অনুমতি দিচ্ছে না। সোমবার জাতিসংঘের বেশ কয়েকটি সংস্থা সতর্ক করেছে যে, খাদ্য ও পানির অভাব এবং এর পাশাপাশি রোগের বিস্তারের কারণে গাজায় শিশু মৃত্যুর হার উদ্বেগজনক ভাবে বাড়তে পারে।

এদিকে গাজার হামাস-নিয়ন্ত্রিত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, সেখানে কমপক্ষে ২৯ হাজার ৯২ জন ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে। এর মধ্যে অধিকাংশই নারী এবং শিশু। এছাড়া আহত হয়েছে আরও ৬৯ হাজার ২৮ জন।

এর আগে ইসরায়েলি সেনাবাহিনী এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, গাজার দক্ষিণাঞ্চলে আরও এক সেনা সদস্য নিহত হয়েছেন। তার পরিচয় প্রকাশ করা হয়েছে। ওই সেনার নাম সার্জেন্ট সিমোন স্লোমোভ, বয়স ২০ বছর। গাজায় ইসরায়েলি বাহিনীর অভিযানে এ নিয়ে এখন পর্যন্ত ২৩৫ জন সেনা সদস্য নিহত হয়েছেন।

গত ৭ অক্টোবর ইসরায়েলের সীমান্তে প্রবেশ করে আকস্মিক হামলা চালায় ফিলিস্তিনি স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাস। এরপর থেকেই গাজায় অভিযানের নামে নিরীহ ফিলিস্তিনিদের ওপর আগ্রাসন চালিয়ে যাচ্ছে ইসরায়েলি বাহিনী।

চলতি বছরের ১০ মার্চ গাজায় রমজান শুরু হচ্ছে। ইসরায়েলের যুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রিসভা দেশটির শীর্ষ নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের নিয়ে গঠিত। গত ৭ অক্টোবর ইসরায়েলের সীমান্তে প্রবেশ করে আকস্মিক হামলা চালায় হামাস। এতে কমপক্ষে ১২০০ জন নিহত এবং ২৫৩ জনকে জিম্মি হিসেবে অপহরণ করা হয়। হামাসের হাতে এখনও প্রায় ১৩০ জন জিম্মি বন্দি রয়েছে বলে জানিয়েছে ইসরায়েল।


আরও খবর



বিদ্রোহীদের গুলিতে জান্তার হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত, নিহত ৫

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৯ জানুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

মিয়ানমারের কারেন রাজ্যে বিদ্রোহীদের গুলিতে সামরিক হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়ে পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতদের মধ্যে একজন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ও বাকিরা নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য। সোমবার (২৯ জানুয়ারি) দেশটির থিনগান নাইনাং শহরে এ ঘটনা ঘটে।

থাইল্যান্ডভিত্তিক মিয়ানমারের ইংরেজি দৈনিক ইরাবতির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এ নিয়ে এক মাসে জান্তার তিনটি হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত করেছে বিদ্রোহী গোষ্ঠীরা।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, জান্তার হেলিকপ্টারটি বিকালে থিনগান নাইনাং শহরে কারেন ন্যাশনাল লিবারেশন আর্মি (কেএনএলএ) ও তাদের সহযোগী পিপলস ডিফেন্স ফোর্সের যোদ্ধাদের হামলার মুখে পড়ে।

হামলায় জড়িত কেএনএলএর মিত্র প্রতিরোধ শক্তি কোবরা কলামের একটি সূত্র বলেছে, তারা মেশিনগান, স্নাইপার রাইফেল এবং অন্য অস্ত্র থেকে জান্তার হেলিকপ্টারে গুলি ছোড়ে। এতে জান্তার একটি পদাতিক ডিভিশনের প্রধান, হেলিকপ্টারের পাইলট এবং নিরাপত্তা বাহিনীর অন্য সদস্যরা নিহত হয়েছে।

জান্তাপন্থী গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় দুই ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নিহত হয়েছে এবং আরও তিনজন গুরুতর আহত হয়েছে। তবে আহত কর্মকর্তাদের পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি।


আরও খবর



শিশুদের লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্টেশনের সব ধরণের ব্যবস্থা নেয়া হবে : উপাচার্য

প্রকাশিত:শনিবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
প্রেস বিজ্ঞপ্তি

Image

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ বলেছেন, শিশুদের লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্টেশনের সব ধরণের ব্যবস্থা নেয়া হবে। এটা নিশ্চিত করতে পারলে বিদেশে যাওয়ার রোগীর প্রবণতা আরো কমে আসবে এবং বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান প্রশাসন একাধিক ক্যাডাভেরিক ট্রান্সপ্ল্যান্ট, বড়দের লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্ট, নিয়মিত চোখের কর্ণিয়া প্রতিস্থাপন, বোনম্যারো ট্রান্সপ্ল্যান্টেশন, টেস্টটিউব বেবীর জন্মদান, স্টেম সেল থেরাপি, নিয়মিত কিডনী প্রতিস্থাপনসহ জটিল জটিল রোগের চিকিৎসাসেবা প্রদান অব্যাহত রেখেছে। স্বল্পমূল্যে এই সকল চিকিৎসাসেবা দেয়া হচ্ছে। এতে করে চিকিৎসা ব্যয়ের জন্য ডলারের উপর চাপ কমছে।

আজ শনিবার শহীদ ডা. মিলন হলে আয়োজিত শিশুদের লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্টেশন ও নতুন জীবনের প্রত্যাশা ( হোপ ফর নিউ লাইফ, বিলিয়ারি এট্রেসিয়া সারভাইভরস এন্ড স্কপ অফ পেডিয়াট্রিক লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্টেশন ইন বাংলাদেশ) নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে  উপাচার্য মহোদয় এসব কথা বলেন। এতে সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের পেডিয়াট্রিক সার্জারি (শিশু সার্জারি) বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. একেএম জাহিদ হোসেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন শিশু সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ডা. সুশংকর কুমার মন্ডল ও সহকারী অধ্যাপক ডা. এস এম সাইফুল ইসলাম।

সেমিনারে জানানো হয়, বাংলাদেশের জনসংখ্যার প্রায় তিন ভাগের এক ভাগ শিশু, এই শিশুদের মধ্যে যারা নবজাতক তাদের মধ্যে একটা বৃহৎ অংশ জন্ডিসে ভোগে। পিত্ত নালীর জন্মগত ত্রুটির কারণে যে জন্ডিস হয় তার একটা বড় অংশ হয় বিলিয়ারি এট্রেসিয়ার কারণে। বিলিয়ারি এট্রেসিয়া নাম একটি জন্মগত রোগ। বিপিয়ারি অ্যাট্রেসিয়া পিত্তনালীর একটি জন্মগত রোগ যা লিভারের ভেতর এবং বাইরে বিস্তৃত থাকতে পারে।

বিলিয়ারি অ্যাট্রেসিয়া রোগে জন্মগতভাবে পিত্তনালী তৈরী হয় না।এই রোগে লিভারে উৎপাদিত পিত্তরস পিত্তনালীতে আসতে পারে না। যার যলে উৎপাদিত পিত্ত লিভারে জমা হয়ে বিভিন্ন জটিলতা তৈরী করে। পরবর্তীতে সঠিক চিকিৎসা না হলে লিভার নষ্ট হয়ে মৃত্যু পর্যন্ত ঘটে। অতীতে বিলিয়ারি অ্যাট্রেসিয়াকে একটি দূরারোগ্য ও প্রাণঘাতি রোগ হিসাবে বিবেচনা করা হত।

কিন্তু জাপানি সার্জন ডা. মোরিও কাসাই কর্তৃক উদ্ভাবিত পদ্ধতি কাসাই পোর্টোয়েন্টরোস্টমি (Kasai Portoenterostomy ) ব্যবহার করে সারা পৃথিবীর লক্ষ লক্ষ বিলিয়ারি অ্যাট্রেসিয়া আক্রান্ত শিশুর জীবন বাঁচানো সম্ভব হয়েছে। বিলিয়ারি আট্রেসিয়া বেগের মূল চিকিৎসা লিভার প্রতিস্থাপন। এ রোগে আক্রান্ত শিশুদের জন্মের ৬০-৭০ দিনের মধ্যে কাসাই অপারেশন করতে পারলে লিভার নষ্ট হওয়ার প্রক্রিয়া দীর্ঘায়িত হয়। কাসাই অপারেশন পরবর্তী সময়ে শতকরা ৬০ ভাগ রোগীর ৬ মাসের মধ্যে জন্ডিস কমে যায়। যারা ২ মাসের মধ্যে চিকিৎসা নিতে পারে না অথবা অপারেশন পরবর্তী যাদের জন্ডিস কমে না তাদের দ্রুত লিভার ট্রান্সপ্লান্টেশন এর প্রয়োজন হয়।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে অতি অর খরচে দীর্ঘদিন যাবৎ কাসাই অপারেশন সম্পন্ন করে আসছে। যার ফলাফল আশাব্যঞ্জক। ভবিষ্যতে এই সকল শিশুসহ অন্যান্য বিলিয়ারি অ্যাট্রেসিয়ায় আক্রান্ত বাচ্চাদের লিভার প্রতিস্থাপন প্রয়োজন হবে। কিন্তু লিভার প্রতিস্থাপন একটি ব্যয়বহুল চিকিৎসা। ইউরোগে এর খরচ প্রায় ২ কোটি টাকা, ভারতে প্রায় ৬০-৭০ লক্ষ টাকা এবং বাংলাদেশে অনুমানিক ২০-৩০ লক্ষ টাকা খরচ হবে। এ কারণে শিশু যকৃত প্রতিস্থাপন আমাদের তথা শিশু সার্জারী বিভাগ এর বর্তমান স্বপ্ন। যা পুরণের জন্য আমাদের দরকার একটি উপযুক্ত অবকাঠামো, প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি, প্রশিক্ষন, দক্ষ জনশক্তি যা কিনা শিশু বাস্তব।

সেমিনারে আরো বলা হয়, বিএসএমএমইউ এর শিশু সার্জারী বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক এ কে এম জাহিদ হোসেন এর সহায়তায় কাসাই অপারেশন এর যাত্রা শুরু। বিশ্ববিদ্যালয়ের  উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ এর প্রত্যক্ষ নির্দেশনায় শিশুদের লিভার প্রতিস্থাপন শুরু করতে শিশু সার্জারি বিভাগ দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। আমাদের প্রিয় সন্তানদের হাসিমুখ চিরস্থায়ী হোক। আসুন শিশুদের এই দীর্ঘ ক্লান্তিকর যাত্রায় আমরা সহযাত্রী হই। বিনা চিকিৎসায় কোন শিশুর হাসি মুছে যেতে দেব না। এই আমরা প্রত্যাশা করি।


আরও খবর



আসছে স্মার্ট কানের দুল, থাকবে যেসব সুবিধা

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ডেস্ক

Image

স্মার্টফোনের যুগে প্রবেশের পর একে একে বাজারে এসেছে স্মার্ট ঘড়ি, চশমা ও আংটি। এবার প্রযুক্তি ব্যবহার করে বাজারে আসতে চলেছে স্মার্ট কানের দুলও। এর মাধ্যমে মানসিক চাপ, তাপমাত্রা, জ্বর, ব্যায়াম, খাদ্যাভাস ও নারী স্বাস্থ্যের নানা বিষয়ে ডেটা সংগ্রহ করা যাবে। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের এক দল গবেষক এই দুল তৈরি করছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়টি গত ৭ ফেব্রুয়ারি স্মার্ট দুল নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। তাতে বলা হয়েছে, থার্মাল প্রযুক্তি ব্যবহার করে কানের লতির মাধ্যমে সব সময় শরীরের তাপমাত্রা পরিমাপ করবে এই দুল। দুলটিতে থাকা স্কিন টেম্পারেচার সেন্সর ত্বকের তাপমাত্রা ও ড্যাংলিং সেন্সর আশপাশের তাপমাত্রা মাত্রা পরিমাপে সাহায্য করে।

গবেষণাপত্রের লেখক ও কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ডক্টরাল ছাত্র কিউইউয়ে জুই বলেন, কবজিতে পরা ঘড়ির চেয়ে কানের লতির মাধ্যমে ত্বকের তাপমাত্রা নির্ধারণের এই প্রযুক্তি অনেক বেশি নির্ভুল তথ্য দেবে। ছয়জন মানুষের উপর এই দুলের এর পরিধানযোগ্যতা পরীক্ষা করা হয়েছে। এতে দেখা যায়, সঠিকভাবে ত্বকের তাপমাত্রা নির্ণয়ে কানের দুল স্মার্টওয়াচকে ছাড়িয়ে যায়।

জানা গেছে, একবার চার্জ দিয়ে স্মার্ট কানের দুল ২৮ দিন পর্যন্ত ব্যবহার করা যাবে। এতে ডেটা আদান-প্রদানের জন্য কম শক্তি খরচ করে এমন ব্লুটুথ ব্যবহার করা হয়েছে। ভবিষ্যতে দুলটি সৌরশক্তি ও কাইনেটিক বা গতি শক্তি দিয়ে চার্জ দেয়া যাবে। তখন চার্জ দিতে কান থেকে দুল খুলতে হবে না।

যদিও এই দুল এখনো রয়েছে পরীক্ষানিরীক্ষামূলক পর্যায়ে। তাই দুল নিয়ে রয়েছে নানা প্রশ্ন। এত ছোট ডিভাইস কীভাবে চার্জ দেয়া হবে, ডান ও বাম কানের জন্য একই ধরনের দুল থাকবে কিনা, বাস্তবে দুটি দুলই কি ডেটা সংগ্রহ করবে নাকি একটি নকল হিসেবে ব্যবহার করা হবে- এসব প্রশ্নের উত্তরের জন্য অপেক্ষা করতে হবে আরও বেশ কিছু সময়।


আরও খবর



কানাডায় হকি খেলোয়াড়দের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

প্রাথমিক অভিযোগের ছয় বছর পর নতুন তদন্তের হাত ধরে যৌন হয়রানির অপরাধে অভিযুক্ত হলেন কানাডার পাঁচজন আইস হকি খেলোয়াড়। তদন্তে এত বেশি সময় লাগার জন্য অভিযোগকারীর কাছে ক্ষমা চায় কানাডার পুলিশ।

অভিযুক্ত পাঁচ খেলোয়াড়ের মধ্যে চারজন বর্তমানে দেশের জাতীয় হকি লিগ খেলেন। সোমবার কানাডিয়ান পুলিশ নিশ্চিত করে যে মোট পাঁচজন আইস হকি খেলোয়াড়দের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছে তারা। এই পাঁচ খেলোয়াড় ২০১৮ সালের জুনিয়র হকি দলের সদস্য ছিলেন।

২০১৮ সালের জুনে প্রথম এই অভিযোগের কথা প্রকাশ হয়। অভিযোগকারী নারী বলেন যে কানাডার ওন্টারিও রাজ্যের লন্ডন শহরের একটি হোটেলের কামরায় আইস হকি দলের সদস্যরা তাকে যৌন হেনস্থা করে। এই মামলাটি পুলিশ ২০১৯ সালে বাতিল করলেও ২০২২ সালে আবার সেই তদন্ত শুরু হয়। এই বিলম্বের জন্য পুলিশ সোমবার ক্ষমা চেয়েছে।

একটি সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ প্রধান থাই ট্রুয়োং বলেন, লন্ডন পুলিশ পরিষেবার তরফে তদন্তে এতটা সময় লাগার জন্য আমি ক্ষমা চাইছি নির্যাতিতার কাছে, তার পরিবারের কাছে। এত সময় লাগা উচিত হয়নি। আজকের পরিণতিতে পৌঁছাতে এত বছর কেটে যাওয়া ঠিক নয়। আমরা কথা দিচ্ছি, এবং আমি নিশ্চিত যে এমন আর হবে না।

যৌন হয়রানির অভিযোগ:

গত সপ্তাহে কর্তৃপক্ষের কাছে আত্মসমর্পণ করেন পাঁচ খেলোয়াড়কার্টার হার্ট, মাইকেল ম্যাকলয়েড, ক্যাল ফুট, ডিলন ডুব ও অ্যালেক্স ফর্মেন্টন। এদের মধ্যে চারজন বর্তমানে দেশটির জাতীয় হকি লিগের খেলোয়াড়, কিন্তু এখন ছুটিতে। ফর্মেন্টন খেলেন সুইজারল্যান্ডে।

তাদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির একটি অভিযোগ ছাড়াও ম্যাকলয়েডের বিরুদ্ধে রয়েছে অপরাধে সহযোগিতা করার আরেকটি অভিযোগ। পাঁচজনই সকল অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

লন্ডন শহরে সাংবাদিকদের সঙ্গে ৪৫মিনিট কথা বলেন পুলিশ প্রধান ট্রুয়োং। কেন প্রথমে বাতিল করার পর আবার তিন বছর পর তদন্ত শুরু করা হলো, সেবিষয়ে কোনো তথ্য দেননি তিনি।

ডিটেকটিভ সার্জেন্ট ক্যাথরিন ডান, যিনি যৌন হয়রানি ও শিশু নির্যাতন বিভাগে কর্মরত, তিনি ২০২২ সাল থেকে পুনরায় শুরু হওয়া তদন্তের ভার নেন। তার মতে, ২০১৯ সালে শেষ হওয়া তদন্তের সময় নতুন প্রামাণ্য তথ্য হাতে ছিল না।

এই তদন্তে অভিযোগ দায়ের করার জন্য যৌক্তিক ও সম্ভাব্য কারণ ছিল তাদের কাছে, যার ফলে দোষী সাব্যস্ত হলে অভিযুক্তদের কারাবাস করতে হতে পারে। সোমবার শুরু হয়ে এই মামলা চলবে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত।

জাতীয় ফেডারেশন হকি কানাডা একটি বিবৃতিতে জানায় যে তারা পুলিশের সঙ্গে সম্পূর্ণভাবে সহযোগিতা করছে। কিন্তু সাংবাদিক সম্মেলনে এক সাংবাদিক প্রশ্ন করেন যে প্রাথমিক তদন্তে কোনো ফেডারেশন নেতার সংযোগ পাওয়া গেছে কি না সেই প্রশ্নেরও উত্তর আসেনি।

হকি কানাডার প্রেসিডেন্ট ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ক্যাথরিন হেন্ডারসন বিবৃতিতে বলেন, হকি কানাডা স্বীকার করছে যে অতীতে কোনো পদক্ষেপ নিতে আমাদের দেরি হয়েছে।  কানাডার মানুষ আমাদের কাছে যে অর্থবহ পরিবর্তন আশা করেন, তার লক্ষ্যে আমাদের কাজ করতে হবে অবিলম্বে। যাতে করে, মানুষের আস্থা আমরা ফিরে পাই এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো খেলার সময়ে ও অন্যত্র অংশগ্রহণকারীদের একটি নিরাপদ আবহাওয়া নিশ্চিত করা।


আরও খবর