আজঃ বৃহস্পতিবার ১৩ মে ২০২১
শিরোনাম

সরকারের পতন ঘটাতে জামায়াত নেতাদের সঙ্গে সখ্য ছিল মামুনুলের

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০21 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০21 | ৮৮৭জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
ইসলামি রাষ্ট্র কায়েম করতে হবে এই সরকারের পতন ঘটাতেই হতো। আর এই সরকার পড়ে গেলে হেফাজতের অনুগ্রহ ছাড়া কেউ রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসতে পারবে না। এই কারণে তিনি রাজধানীর যেকোনো কর্মসূচিতে সহিংসতার

হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক বর্তমান সরকারের পতনের মাধ্যমে ইসলামী রাষ্ট্র কায়েমের জন্য হেফাজত নেতাকর্মীদের উদ্বুদ্ধ করতেন। তিনি বিশ্বাস করেন, বর্তমান সরকারের পতন হলে কাউকে রাষ্ট্র ক্ষমতায় যেতে হলে হেফাজতের সমর্থন লাগবে। এই মিশনে তিনি আফগান ফেরত মুজাহিদ ও জামায়াত নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতেন। গোয়েন্দা পুলিশ কর্মকর্তাদের জিজ্ঞাসাবাদে তিনি এ সব কথা বলেছেন।

এদিকে রাজধানীর মোহাম্মদপুর থানায় করা মোবাইল চুরির মামলায় গ্রেফতার মামুনুল হককে সাতদিন রিমান্ডে নেওয়ার অনুমতি দিয়েছে আদালত। গোয়েন্দা পুলিশের একজন কর্মকর্তা বলেন, হেফাজতের মধ্যে অন্যতম উগ্রপন্থীনেতা মামুনুল হক। তিনি যেকোনো মূল্যে এই সরকারের পতন ঘটাতে চেয়েছেন। পরের দুই স্ত্রীর বিষয়ে জানতে চাইলে গোয়েন্দাদের জিজ্ঞাসাবাদে মামুনুল হক বলেছেন, তিনি পরের দুইজনকে বিয়ে করেননি। তবে দুইজন সাক্ষীর উপস্থিতিতে তাদের সঙ্গে পৃথকভাবে মামুনুলের চুক্তি হয়েছিল। এই চুক্তির কপিও উদ্ধার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। চুক্তিতে বলা হয়েছে, মামুনুল হক তাদের বিয়ে করবেন না। স্ত্রীর মর্যাদাও দেবেন না। তবে তাদের ভরণপোষণ দেবেন। এই শর্তে যে, তিনি স্ত্রীর মতো করে তাদের সঙ্গে মিশবেন। যেখানে যেতে বলবেন, সেখানে যেতে হবে এবং তার সঙ্গে রাত্রিযাপন করতে হবে।

গোয়েন্দা পুলিশের ওই কর্মকর্তা বলেন, মামুনুল হকের কাছে তারা জানতে চেয়েছিলেন, বিয়ে না করে কারো সঙ্গে চুক্তি করে থাকা যায় কি-না? জবাবে মামুনুল হক তাদের বলেছেন, এই শরীয়ত সম্মত। তিনি স্ত্রীর মর্যাদা না দিলেও তাদের ভরণপোষণ দিচ্ছেন। তার বিনিময়ে তারা তাকে সঙ্গ দিচ্ছেন। এটা ইসলামের বিধিবিধানের মধ্যেই তিনি করেছেন বলে দাবি করেছেন। তবে এই পরিস্থিতিতে সোনারগাঁওয়ের রিসোর্টে যাওয়া তার ঠিক হয়নি। আর গেলেও আগে থেকে প্রস্তুতি নিয়ে নেতাকর্মীদের জানিয়ে যাওয়া উচিৎ ছিল।

সরকারের পতনের বিষয়ে তাদের পরিকল্পনার বিষয়ে জানতে চাইলে গোয়েন্দাদের এই হেফাজত নেতা বলেন, ইসলামি রাষ্ট্র কায়েম করতে হবে এই সরকারের পতন ঘটাতেই হতো। আর এই সরকার পড়ে গেলে হেফাজতের অনুগ্রহ ছাড়া কেউ রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসতে পারবে না। এই কারণে তিনি রাজধানীর যেকোনো কর্মসূচিতে সহিংসতার উস্কানি দিতেন। তার মতে, হেফাজতের আমীর জুনায়েদ বাবুনগরীর চেয়েও বেশি উগ্রপন্থীতিনি। অন্য নেতাদের দিয়ে বিপ্লব হবে না। এই কারণে তিনি নিজেই দায়িত্ব নিয়ে নানা আন্দোলন সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়েছেন।

এদিকে সোমবার ঢাকা মহানগর হাকিম দেবদাস চন্দ্র অধিকারীর আদালতে হাজির করা হয় মামুনুল হককে। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদপুর থানার এসআই সাজেদুল হক আসামিকে সাতদিন রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করেন। এ সময় প্রথমে রাষ্ট্রপক্ষে ঢাকা মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল্লাহ আবু আসামিকে সাতদিন রিমান্ড মঞ্জুরের প্রার্থনা করেন। পরে আসামির পক্ষে জয়নুল আবেদীন মেজবা রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন আবেদন করেন। পরে বিচারক মামুনুল হকের কাছে জানতে চান তার কিছু বলার আছে কি না।

তখন মামুনুল হক আদালতে বলেন, স্যার, আমাকে গ্রেফতার করে গতকাল যেখানে রাখা হয়েছিল সেটি থাকার মতো জায়গা না। ওই রকম জায়গায় ইবাদত করা যায় না। অন্যান্য রমজানে আমি নিয়মিত কোরআন খতম করি। রিমান্ডে পাঠালে সুষ্ঠু পরিবেশ থাকবে না এবং আমার ইবাদত করা কঠিন হয়ে যাবে। গ্রেফতারের পর আমাকে অনেক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। আমাকে রিমান্ড দিয়েন না। এ মামলার বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। শুনানি শেষে মামুনুলের ইবাদতে যেন বিঘ্ন না হয় সেদিকে খেয়াল রাখার নির্দেশ দিয়ে আদালত ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

আদালতে দাখিল করা রিমান্ড আবেদনে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, মাওলানা মামুনুল হক এবং তার ভাইয়ের নির্দেশে অন্যান্য আসামিরা এ মামলার বাদির একটি স্যামসাং এ-৫০ মডেলের মোবাইল, নগদ ৭ হাজার টাকা, ২০০ ইউএস ডলার, ব্র্যাক ব্যাংকের একটি ডেবিট কার্ডসহ মানিব্যাগ চুরি করে নিয়ে যায়। গত বছরের ৬ মার্চ রাত সাড়ে ৮টার দিকে মোহাম্মদপুর সাত গম্বুজ মসজিদে আমল করাকালীন মামুনুল হক এবং তার ভাই মোহতামিম মাহফুজুল হকের নির্দেশে জামিয়া রহমানিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসার ছাত্র ওমর ও ওসমান এ মামলার বাদি জি এম আলমগীর শাহিনসহ অন্যদের আমল করতে বাঁধা দেয়।

আবেদনে আরও বলা হয়েছে, তাদের ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করে এবং মসজিদ থেকে বের হয়ে যেতে বলে। রাত ৮টা ৪০ মিনিটের দিকে আসামি ওমর, ওসমান, শাহিন, মাওলানা আনিস, জহির মসজিদে এসে বাদিসহ তার সঙ্গে থাকা অন্যদের কিল-ঘুষি মারে। মামুনুল হক এবং তার ভাইয়ের নির্দেশে মাদ্রাসার আরও প্রায় ৭০/৮০ জন এসে তাদের আবারও মারধর করে। বাদি জি এম আলমগীর শাহিনের একটি স্যামসাং মোবাইল, ৭ হাজার টাকা, ২০০ ইউএস ডলার, ব্র্যাক ব্যাংকের একটি ডেবিট কার্ডসহ বাদির মানিব্যাগ নিয়ে যায় আসামিরা।

তদন্ত কর্মকর্তা আদালতকে জানান, প্রাথমিকভাবে মামুনুল হকের বিরুদ্ধে এ মামলার ঘটনায় জড়িত থাকার সাক্ষ্য-প্রমাণ পাওয়া গেছে। এ আসামি ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করে রাষ্ট্রবিরোধী বিভিন্ন বক্তব্যের মাধ্যমে মুসলমান ও মাদরাসা ছাত্রদের উষ্কে দেয়। আসামির বিরুদ্ধে বাংলাদেশের বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। মামলার সুষ্ঠু তদন্ত, এজাহারনামীয় পলাতক অন্য আসামিদের গ্রেফতার, অজ্ঞাত আসামিদের নাম-ঠিকানা সংগ্রহ ও তাদের শনাক্তপূর্বক চোরাই যাওয়া মালামাল উদ্ধারের লক্ষ্যে তার ৭ দিনের রিমান্ড প্রয়োজন।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, আসামিরা বেআইনি সংঘবদ্ধ হয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে বাদিকে এলোপাথাড়ি মারধর করে গুরুতর আঘাত করে। এ ঘটনায় রাজধানীর মোহম্মদপুরের চাঁন মিয়া হাউজিংয়ের ৪১/৪০ নম্বর বাসার বি/১ ফ্লাটের বাসিন্দা জি এম আলমগীর শাহীন বাদি হয়ে ৬ মার্চ মামলা করেন।

নিউজ ট্যাগ: হেফাজতে ইসলাম

আরও খবর



বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা সিরিজের নিয়ে জটিলতা

প্রকাশিত:বুধবার ০৫ মে ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৫ মে ২০২১ | ৭৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে কড়া নোটিশ- ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে যারাই বাংলাদেশে পা রাখবে, তাদের ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন বাধ্যতামূলক। সেই বাধ্যবোধকতায় সাকিব আল হাসান আর মোস্তাফিজুর রহমানের দেশে ফিরে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলা নিয়েও জটিলতা দেখা দিতে পারে।

দেশের আপামর জনসাধারণের স্বাস্থ্যসেবার কথা বিবেচনা করলে এই আইন মানাও বিশেষ কর্তব্য। তবে অতীতে সরকারের উর্ধ্বতন মহলের অনুমতি নিয়ে ঐ নির্দেশ শিথিল করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। বিশেষ করে জাতীয় দলের বিদেশি কোচিং স্টাফদের জন্য ১৪ দিনের বদলে সপ্তাহখানেকের কোয়ারেন্টাইনে থাকার বিশেষ অনুমতি নেয়া হয়েছে বারকয়েক।

তবে এবারের করোনা পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বেশ কঠোর। সাফ জানিয়ে দেয়া হয়েছে, ভারত থেকে আসা যে কোন যাত্রীর দুই সপ্তাহ বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে থাকতেই হবে। এই কড়াকড়ি বহাল থাকলে চরম বিপাকে পড়ে যাবে বিসিবি।

নাহ, সাকিব-মোস্তাফিজের শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজ খেলার কারণেই শুধু নয়। আরও একটি বিশেষ ও বাস্তবসম্মত কারণে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সেই কড়া নির্দেশ শিথিলের আবেদন করতে হবে বিসিবিকে। কী সেই কারণ?

বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক সিরিজ, আসরের টিভি সম্প্রচার যে চ্যানেলই করুক না কেন, সকল টিভি তথা মিডিয়া ক্রু হলো ভারতীয়। সেটা জিটিভি, মাছরাঙ্গা কিংবা টি স্পোর্টস; যারাই সম্প্রচার স্বত্ত্ব নিক।

ক্যামেরা ক্রু থেকে শুরু করে সব টেকনিক্যাল ক্রু হলেন ভারতীয়। বাংলাদেশে এখনও ঐ সেটআপ তৈরি হয়নি। তাই সবসময় ভারতীয় ক্রুদের দিয়েই টিভিতে খেলা দেখানোর সমুদয় কারিগর বিষয়গুলো পরিচালনা করা হয়। তাদের সংখ্যাও কম নয়, প্রায় অর্ধশতাধিক।

সাধারণত ঐ সব ক্রুরা খেলা শুরুর ৭২ ঘন্টা আগে এসে ক্যাবল বসানো থেকে শুরু করে সব কাজকর্ম সেরে ফেলেন। এবার যদি তারা আগের মতো তিন-চার দিন আগে আসেন, তাহলে কী করে হবে?

যেহেতু তাদের কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে দুই সপ্তাহ, তাই তাদের সিরিজ শুরুর অন্তত ১৭-১৮ দিন আগে এসে পৌঁছাতে হবে। আজ ৫ মে। ২৩ মে সিরিজের প্রথম ওয়ানডে। সেক্ষেত্রে ঐ ভারতীয় মিডিয়া ক্রুদের আজ-কালের ভেতর আসা ছাড়া পথ নেই।

কিন্তু এই ৫০ জনের বাংলাদেশে আসার ব্যবস্থাও তো নেই। বিমান চলাচল বন্ধ। তাহলে তাদের চার্টার্ড ফ্লাইটে করে আনতে হবে এবং অন্তত তিন তারকা হোটেলে রেখে কোয়ারেন্টাইনের ব্যবস্থা করতে হবে। আনুমানিক প্রায় কোটি টাকার ধাক্কা। বিসিবি কিংবা যে চ্যানেল বাংলাদেশ আর শ্রীলঙ্কার ওয়ানডে সিরিজ সরাসরি সম্প্রচার করবে, তারা কি ঐ বিপুল পরিমাণ অর্থ খরচ করবে?

এ প্রশ্ন কিন্তু উঠেছে। তাই ধরেই নেয়া হচ্ছে, বিসিবির সামনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কাছ থেকে বিশেষ অনুমতি নিয়ে কোয়ারেন্টাইনে ছাড় আদায় করা ছাড়া পথ থাকবে না। এখন স্বাস্থ্য অধিদপ্তর কি সে অনুমতি দেবে? মানে দুই সপ্তাহের বদলে সপ্তাহখানেকের কোয়ারেন্টাইনের অনুমতি মিলবে? যদি না মেলে, তাহলে বাংলাদেশ আর শ্রীলঙ্কা ওয়ানডে সিরিজ সম্প্রচারে বড় ধরনের জটিলতা দেখা দিতে পারে।


আরও খবর



গণপরিবহন চালুর চিন্তা-ভাবনা আছে সরকারের

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ এপ্রিল ২০২১ | ১০২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জানিয়েছেন চলমান লকডাউনের পরে জনস্বার্থ বিবেচনায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে শর্তসাপেক্ষে সরকার গণপরিবহন চালুর সক্রিয় চিন্তা ভাবনা করছে। তিনি লকডাউন শিথিল হলেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানিয়ে বলেন, মাস্ক, হ্যান্ড সেনিটাইজার ব্যবহার বাধ্যতামূলক করতে হবে।

ওবায়দুল কাদের আজ সকালে বরিশাল সড়ক জোন, বিআরটিসি ও বিআরটিএ'র কর্মকর্তাদের সাথে মতবিনিময় সভায় এসব কথা জানান। তিনি তার সরকারি বাসভবন থেকে সভায় ভার্চুয়ালি যুক্ত হন।

গণপরিবহনে অর্ধেক আসন খালি রেখে যে ভাড়া নির্ধারণ ছিল, সেই ভাড়ার অতিরিক্ত নিলে তাদের শাস্তির আওতায় আনা হবে বলেও জানান ওবায়দুল কাদের।

দেশ-বিদেশে মিথ্যাচার চালানো হচ্ছে উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে দেশ-বিদেশে যে মিথ্যা প্রচার চালানো হচ্ছে, তার অর্থের যোগানদাতা ও পৃষ্ঠপোষকতা করছে দেশের একটি রাজনৈতিক দল।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, অপপ্রচার আর গুজবের জন্য যাদের শাস্তির আওতায় আনা হয়, তাদের ব্যাপারে বিরোধী পক্ষ ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের বিরূপ সমালোচনা করে থাকে। সাইবার ক্রাইম ও ডিজিটাল নিরাপত্তা সরকারের অ্যাকশনের বাইরে থাকবে, এটা মনে করার কোনো কারণ নেই। ডিজিটাল নিরাপত্তা জনগণকেই দিতে হবে। গুজব আর অপপ্রচার নিরাপত্তাকে মারাত্মকভাবে বিঘ্নিত করে।

তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন, প্রতিদিন বিরোধীরা সরকারের বিরুদ্ধে যা নয় তাই বলে, প্রধানমন্ত্রীকেও ছাড়ছেন না অশ্লিল ভাষায় গালিগালাজ করতে, কিন্তু সেখানে কারও বিরুদ্ধে কি এসব বক্তব্যের কোনো প্রকার হয়রানি বা গ্রেফতার করা হচ্ছে?


আরও খবর



বিপদের সময় ভারতের পাশে দাঁড়ালো সৌদি আরব

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ এপ্রিল ২০২১ | ৮১জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মহামারি করোনাভাইরাসে নাকাল ভারত। বিশ্বের সব রেকর্ড ভেঙে প্রতিদিন লাখ লাখ মানুষ সেখানে আক্রান্ত হচ্ছে। আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ায় তৈরি হয়েছে তীব্র অক্সিজেন সংকট। অক্সিজেনের জন্য দেশজুড়ে হাহাকার শুরু হয়েছে।

এমন সময় ৮০ মেট্রিক টন তরল অক্সিজেন নিয়ে ভারতের পাশে দাঁড়িয়েছে সৌদি আরব। খবর দ্য হিন্দু ও ইন্ডিয়া টিভির।

ভারতের অক্সিজেন সংকট কমাতে এই অক্সিজেন দ্রুতই পাঠাবে সৌদি আরব। আদানি গ্রুপ ও লিন্ডে কোম্পানির মাধ্যমে এই অক্সিজেন ভারতে আসবে। এমনটাই জানিয়েছে সৌদি আরবে অবস্থিত ভারতীয় দূতাবাস।

রবিবার (২৫ এপ্রিল) ভারতে একদিনে রেকর্ড ৩ লাখ ৪৯ হাজার ৬৯১ জন নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছে। তাতে দেশটির মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১ কোটি ৬৯ লাখ ৬০ হাজার ১৭২।

এদিন সেখানে মারা গেছে ২ হাজার ৭৬৭ জন। তাতে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১ লাখ ৯২ হাজার ৩১১ জন।


আরও খবর



‘পাকিস্তানি জঙ্গিদের সঙ্গে মামুনুলের সম্পৃক্ততা ছিল’

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ এপ্রিল ২০২১ | ৮৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পাকিস্তানের একটি গোষ্ঠীর সঙ্গে সম্পৃক্ততা ছিল মামুনুল হককের। ২০০৫ সালে মামুনুল হক পাকিস্তানে যায়। সেখান থেকে পরামর্শ ও প্রশিক্ষণ এনে দেশের বিভিন্ন স্থানে বোমা হামলা, অগ্নি সংযোগ ও সংহিতার ঘটনা ঘটায়। এছাড়া সরকার উৎখাতে মামুনুল সব ধরনের পরিকল্পনাও করে।

রবিবার (২৫ এপ্রিল) বিকেলে ডিএমপির তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মো. হারুন-অর-রশীদ রিমান্ডে থাকা মামুনুল হকের বিষয়ে সম্মেলনে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, পাকিস্তানের একটি গোষ্ঠীর সঙ্গে সম্পৃক্ততা ছিল মামুনুল হককের। ২০০৫ সালে মামুনুল হক পাকিস্তানে যায়।

সেখান থেকে পরামর্শ ও প্রশিক্ষণ এনে দেশের বিভিন্ন স্থানে বোমা হামলা, অগ্নি সংযোগ ও সংহিতার ঘটনা ঘটায়।

এছাড়া সরকার উৎখাতে মামুনুল সব ধরনের পরিকল্পনাও করে।পাকিস্তানে ৪০ দিন অবস্থান করে এবং সেখান থেকে জঙ্গি ও উগ্রবাদী মতাদর্শ নিয়ে দেশে ফেরে মামুনুল।


আরও খবর



সরকারি চাকরিতে বয়সে ছাড় দেবার পদক্ষেপ নিবে সরকার

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৪ মে ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৪ মে ২০২১ | ৯২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

লকডাউনে চাকরির পরীক্ষা নিতে না পারায় গতবছরের মতো এবছরও চাকরিপ্রার্থীদের বয়সে ছাড় দিতে যাচ্ছে সরকার।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় শিগগিরই বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোকে বয়সে ছাড় দিয়ে বিজ্ঞপ্তি দিতে নির্দেশনা দেবে বলে জানিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের কারণে গত ৫ এপ্রিল থেকে বিধিনিষেধ ঘোষণা করে সরকার। এরপর বিধিনিষেধ বাড়ানো হয় আগামী ১৬ মে পর্যন্ত। সংক্রমণ পরিস্থিতিতে চাকরির পরীক্ষা নেওয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। 

জানতে চাইলে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, করোনায় বিধিনিষেধের কারণে চাকরিপ্রার্থীরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। তাদের ক্ষতি পুষিয়ে দিতে চেষ্টা করবো। বয়সটা যাতে ছাড় দেওয়া হয় সেই পদক্ষেপ আমরা নেবো।

তিনি বলেন, যে সময়টা তাদের লস হয়েছে, যখন যে সময় বিজ্ঞপ্তি হওয়ার কথা ছিল, আগের সময় ধরেই পরবর্তীকালে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে। 

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোকে বয়সে ছাড় দিয়ে সেই সময়টা পুষিয়ে দেওয়ার নির্দেশনা দেব। পরিস্থিতি স্বাভবিক হলে আমরা এ বিষয়ে নির্দেশনা দেবো।

নিউজ ট্যাগ: সরকারি চাকরি

আরও খবর