আজঃ মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

সর্বত্র উন্নয়নের ছোঁয়া, অভাবনীয় পরিবর্তন

প্রকাশিত:বুধবার ০৯ আগস্ট ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ০৯ আগস্ট ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
ফিরোজ মাহমুদ

Image

উন্নয়নের ছোঁয়ায় বদলে গেছে দখিণের জেলা পিরোজপুর। প্রতিটি এলাকা পেয়েছে উন্নয়নের স্বাদ। শিক্ষা, চিকিৎসা, কর্মসংস্থান, আন্তর্জাতিক ব্যবসা-বাণিজ্য- সব কিছুতেই এসেছে আমূল পরিবর্তন। কমেছে হয়রানি, জনভোগান্তি ও দুর্নীতি। ৫ বছর আগেও অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে ছিল জেলাটি। এখন সেটি উন্নয়নের রোল মডেল। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম পিরোজপুর-১ (পিরোজপুর-নাজিরপুর-নেছারাবাদ) আসনের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর তার ছোঁয়ায় বদলে গেছে এ জেলার চিত্র। এমনটাই দাবি করছে স্থানীয়রা।

উন্নয়নের চিত্র নিয়ে সরেজমিন ঘুরে প্রতিবেদন তৈরি করেছেন আমাদের সিনিয়র রিপোর্টার ফিরোজ মাহমুদ-

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রথমবার এমপি নির্বাচিত হয়েছেন শ ম রেজাউল করিম। আর প্রথমবার এমপি হয়েই কেবিনেট মন্ত্রী। এটা ছিলো পিরোজপুরবাসীর জন্য বড় চমক।

মন্ত্রী হিসেবে শপথ নেয়ার পর থেকে অবহেলিত জনপদে উন্নয়নের মাধ্যমে তিনি দেখিয়ে যাচ্ছেন একের পর এক চমক। যার মধ্যে সবচেয়ে আলোচিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, পিরোজপুর যা পিরোজপুরের মানুষ কখনো স্বপ্নেও ভাবেনি।

তাছাড়া সরকারের গ্রাম হবে শহর প্রকল্প এখনো চালু না হলেও বিলাঞ্চল খ্যাত আমার এলাকার মানুষ ইতোমধ্যে শহরের অনেক সুবিধা ভোগ করছেন। একজন ভিন্ন মতাদর্শের মানুষ হয়েও এ কথা বলতে আমার দ্বিধা নেই।

কথাগুলো বলছিলেন স্থানীয় বিএনপি নেতা পিরোজপুরের নাজিরপুর উপজেলার ৯ নং কলারদোয়ানিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাসনাত ডালিম।

আলাপকালে তিনি গত সাড়ে চার বছরে তার ইউনিয়নের উল্লেখযোগ্য নিম্নোক্ত উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরেন-কার্পেটিং সড়ক-২০ কিলোমিটার, এইচবিবি রাস্তা ইট সলিং-৩ কিলোমিটার, ইট সলিং রাস্তা ৫ কিলোমিটার, কাঁচা রাস্তা মেরামত ৩০ কিলোমিটার। ৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বহুতল ভবন। ত্রাণের ব্রিজ ৪টি। আয়রণ ব্রিজ ১০০টি। ১৮টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নতুন ভবন। ৩টি কমিউনিটি ক্লিনিক। ইউনিয়ন পরিষদের মডেল ভবন টেন্ডার প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

পার্শ্ববর্তী ইউনিয়ন দেউলবাড়ী দোবড়া। ওই ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মাষ্টার ওয়ালি উল্লাহ বলেন, পিরোজপুর-১ আসনের তিনটি উপজেলায় নিরবিচ্ছিন্ন বহুমাত্রিক উন্নয়নে বদলে গেছে অবহেলিত এ জনপদ। এক সময় পিছিয়ে থাকা এই জনপদের যোগাযোগ ব্যবস্থায় এসেছে বৈপ্লবিক পরিবর্তন। সরকারের পরিকল্পিত উন্নয়নের ফলে কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, শিল্প ও অবকাঠামো খাতে অভূতপূর্ব অগ্রগতি হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, নাজিরপুর উপজেলার দেউলবাড়ি দোবড়া ইউনিয়নের ৮০ ভাগ এলাকায় বছরের ১২ মাসই যাতায়াতের একমাত্র মাধ্যম ছিলো নৌকা। শ ম রেজাউল করিম মহোদয় নির্বাচিত হয়ে মন্ত্রী হওয়ার পর বিগত সাড়ে চার বছরে পাল্টে গেছে সে চিত্র। ওই সব এলাকার অধিকাংশ জায়গায় এখন রিকসা, ভ্যান বা মোটর সাইকেল যোগে চলাচল করছে মানুষ। আর বিদ্যুতের কথা যারা কখনো স্বপ্নেও ভাবেনি, তাদের ঘরও এখন বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত।

নাজিরপুর উপজেলার মনোহরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নূরে আলম সিদ্দিকী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের দূরদর্শী নেতৃত্ব আর স্থানীয় সংসদ সদস্য মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিমের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় প্রতিটি ক্ষেত্রে জেলাটি অর্জন করেছে ঈর্ষনীয় সাফল্য। সরকারের উন্নয়নের সুফল প্রান্তিক পর্যায়ে পৌঁছে গেছে। গ্রামীণ জীবন ক্রমশ বদলে যাচ্ছে। গ্রামেই এখন মিলছে শহরের সুবিধা। অজপাড়াগাঁও শব্দটি আর নেই, পরিবর্তনের ছোঁয়ায় বদলে গেছে সবকিছুই। অবহেলিত এ জনপদের উন্নয়নে নজর দেয়ার জন্য বর্তমান শেখ হাসিনার সরকার ও স্থানীয় সংসদ সদস্য মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিমকে সাধুবাদ জানান তিনি।

নেছারাবাদ উপজেলার বিন্ন নেছারিয়া দাখিল মাদরাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি ইদ্রিস বাহাদুর বলেন, নেছারাবাদ উপজেলার সবচেয়ে অবহেলিত ইউনিয়ন বলদিয়া। আমি ওই ইউনিয়নের বাসিন্দা। এ ইউনিয়নে পাকা রাস্তা তো দূরের কথা, ইট সলিংয়ের রাস্তাও ছিলো না বললেই চলে। শ ম রেজাউল করিম মহোদয় এমপি নির্বাচিত হয়ে মন্ত্রী হওয়ার পর তার ছোঁয়ায় বদলে গেছে উন্নয়ন বঞ্চিত এ ইউনিয়নের চিত্র। প্রায় ১০ কিলোমিটার কাপেটিং রাস্তা রাস্তার কাজ চলমান। যা প্রায় ৬০ শতাংশ কাজ ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। ২ কিলোমিটার হেরিং বন্ড রাস্তার কাজ ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। ১০ থেকে ১২ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একাডেমিক ভবন, বহুতল ভবন, সাইক্লোন শেল্টারের কাজ চলমান। যার মধ্যে একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে চারতলা ভবনের কাজ শেষের পথে।

শুধু তিনটি ইউনিয়ন নয়, এ আসনের তিন উপজেলা, দুইটি পৌরসভা ও ২৬টি ইউনিয়নের সব অঞ্চলেই একইভাবে লেগেছে উন্নয়নের ছোঁয়া। এখনো চলছে উন্নয়নের কর্মযজ্ঞ।

সরেজমিন ঘুরে স্থানীয়দের সাথে কথা বলে এবং সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের টানা তৃতীয় মেয়াদে উন্নয়ন বঞ্চিত পিরোজপুরের অভাবনীয় পরিবর্তনে আনন্দে উচ্ছ্বসিত পিরোজপুরবাসী।

বর্তমান সরকার দুঃখ-বেদনার অবসান ঘটিয়ে একের এক উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করে চলছে। এত উন্নয়ন স্বাধীনতার পরবর্তীতে আর কখনও দেখা যায়নি। উন্নয়নের সুবিধাভোগীদের কাছে এখন শেখ হাসিনার প্রশংসা ছাড়া আর কোন কথা নেই।

একনেকে এ অঞ্চলের কোন প্রকল্প অনুমোদন হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বিভিন্ন মহল থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও মন্ত্রী শ ম রেজাউলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা ও অভিনন্দন জানানো হয়। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার আমলের উন্নয়ন বঞ্চনা ও বিপর্যস্ত অবস্থায় থাকা পিরোজপুরের বর্তমান পরিস্থিতি অবলোকনে বিস্ময়কর পরিবর্তন দৃশ্যমান।

যোগাযোগ ব্যবস্থায় প্রকৃতিক কারণেই বিচ্ছিন্ন জেলার বিভিন্ন উপজেলা। বিশেষ করে পিরোজপুর জেলা সদর থেকে নেছারাবাদ, ভাণ্ডারিয়া, কাউখালী ও মঠবাড়িয়া বিশাল নদী দ্বারা বিভাজিত। জেলা শহরে আসা-যাওয়ায় ভোগান্তির শেষ ছিল না।