আজঃ শনিবার ০২ মার্চ 2০২4
শিরোনাম

স্ত্রীসহ তিনজনকে গুলি করে হত্যা : পুলিশ কর্মকর্তার মৃত্যুদণ্ড

প্রকাশিত:রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
রফিকুল ইসলাম, কুষ্টিয়া

Image

পরকীয়ার জেরে নিজের স্ত্রী ও সন্তান এবং এক যুবককে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যার অপরাধে পুলিশের সাবেক সহকারী উপপরিদর্শক (বরখাস্ত) সৌমেন রায়কে (৩৪) মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন কুষ্টিয়ার একটি আদালত। একই সঙ্গে তাকে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

রোববার (১১ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে কুষ্টিয়া জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. রুহুল আমীন এ রায় দেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) অনুপ কুমার নন্দী।

সৌমেন রায় মাগুরা সদর উপজেলার কুচিয়ামোড়া ইউনিয়নের তিন নম্বর ওয়ার্ডের আসবা গ্রামের সুনীল রায়ের ছেলে। তিনি সর্বশেষ খুলনার ফুলতলা থানায় এএসআই হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

মামলা ও আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০২১ সালের ১৩ জুন বেলা ১১টা ১৫ মিনিটে কুষ্টিয়া শহরের কাস্টমস মোড় এলাকার নাজ ম্যানশন মার্কেটের বিকাশের দোকানের সামনে স্ত্রী আসমা খাতুন (২৫), আসমার ছেলে রবিন (৫) এবং আসমার পরকীয়া প্রেমিক শাকিলকে (২৮) সরকারি অস্ত্র দিয়ে গুলি করে হত্যা করেন এএসআই সৌমেন রায়। এ ঘটনায় পুলিশ তাকে ঘটনাস্থল থেকে সার্ভিস রিভলভার, গুলি ও ম্যাগাজিনসহ আটক করে।

পরে সেদিন বিকেলে তাকে বরখাস্ত করা হয়। একইদিন রাতে এএসআই সৌমেন রায়কে একমাত্র আসামি করে হত্যা মামলা করেন নিহত আসমা খাতুনের মা হাসিনা বেগম। পরদিন ১৪ জুন বিকেলে কুষ্টিয়া সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. এনামুল হকের আদালতে হত্যার দায় স্বীকার করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন সৌমেন। মামলার তদন্ত শেষে তদন্তকারী কর্মকর্তা নিশিকান্ত সরকার আসামি সৌমেনের বিরুদ্ধে ২০২১ সালের ৩১ আগস্ট আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন।

২০২২ সালের ৬ নভেম্বর হাইকোর্ট থেকে জামিন নেন সৌমেন রায়। এরপর কুষ্টিয়া আদালতে বারবার আত্মসমর্পণের দিন ধার্য থাকলেও তিনি আত্মসমর্পণ করেননি। আদালতে আত্মসমর্পণ না করায় ২০২৩ সালের ২ ফেব্রুয়ারি তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত। গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির এক বছর পেরিয়ে গেলেও এখনো পলাতক সৌমেন।

মামলার বাদী হাসিনা বেগম বলেন, আমার মেয়ে, তার ছেলে রবিন ও শাকিল নামের এক যুবককে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা করেছে সৌমেন। বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ নিয়ে জেনেছি সে হাইকোর্ট থেকে জামিনে বেরিয়ে ভারতে পালিয়েছে। এমন নির্মম হত্যাকাণ্ডের একমাত্র আসামিকে জামিন দেওয়ায় আমি হতাশ। আদালত সৌমেনকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়ায় আমি খুশি। তাকে দ্রুত গ্রেপ্তার করে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হোক।

প্রসঙ্গত, কুমারখালী থানায় দায়িত্বে থাকার সময় এএসআই সৌমেনের সঙ্গে একটি মামলাকে কেন্দ্র করে আসমার পরিচয় হয়। পরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সে সময় সৌমেন তার নাম মো. সুমন হোসেন রাখেন এবং সুমন নামেই মুসলিম বিধানমতে আসমাকে বিয়ে করেন। সৌমেন আসমার তৃতীয় স্বামী ছিলেন। বিয়ের পর থেকেই কুষ্টিয়ার আড়ুয়াপাড়ায় একটি ভাড়া বাসায় তারা বাস করছিলেন।

এএসআই সৌমেন খুলনার ফুলতলা থানায় বদলি হওয়ার পর থেকেই বিকাশকর্মী শাকিলের সঙ্গে সম্পর্কে জড়ান আসমা। এ সম্পর্ক মেনে নিতে পারেননি সৌমেন। সেই ক্ষোভ থেকেই প্রকাশ্যে স্ত্রী আসমা, আসমার দ্বিতীয় স্বামীর ছেলে রবিন এবং পরকীয়া প্রেমিক শাকিলকে গুলি করে হত্যা করেন সৌমেন।

সৌমেন রায় ২০১৫ সালে কনস্টেবল থেকে এএসআই পদে উন্নীত হন। পরে ২০১৬ সালে কুষ্টিয়ার কুমারখালী থানায় যোগ দেন। সেখান থেকে মিরপুর থানার হালসা ক্যাম্প, বাগেরহাট থানাসহ বিভিন্ন জায়গায় কর্মরত ছিলেন। সর্বশেষ খুলনার ফুলতলা থানায় কর্মরত ছিলেন সৌমেন রায়।

নিউজ ট্যাগ: কুষ্টিয়া

আরও খবর



স্ত্রীর ফোনে আড়ি পেতে স্বামীর ১৯ কোটি টাকা আয়

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

বাড়ি থেকে অফিস করতেন স্ত্রী, প্রয়োজনে সহকর্মীদের সঙ্গে অনেক অফিসিয়াল বিষয়ে আলাপ-আলোচনা করতেন। সেই স্ত্রীর ফোনে আড়ি পেতেই প্রায় ১৯ কোটি ৩২ লাখ টাকা আয় করেছেন স্বামী। চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসে। মার্কিন সিকিয়োরিটিস অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (এসইসি) রিপোর্টে উঠে এসেছে এই ঘটনার বিবরণ।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, এমন কাণ্ড ঘটানো ওই স্বামীর নাম টেইলার লুডন। তার স্ত্রী ব্রিটিশ সংস্থা বিপি পিলসিতে চাকরি করেন। কোভিড মহামারীর সময় থেকে বাড়িতে বসেই কাজ করতেন টেইলারের স্ত্রী।

গত বছর ফেব্রুয়ারি মাসে ব্রিটিশ সংস্থাটি ঘোষণা করে, মার্কিন সংস্থা ট্রাভেল সেন্টারস কিনতে চলেছে তারা। এই লেনদেন সংক্রান্ত পুরো প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন টেইলারের স্ত্রী। অফিসের অন্য কর্মীদের সঙ্গে তিনি যখন আলোচনা করতেন, সেই ফোনগুলোতে আড়ি পাততেন টেইলার।

সিকিয়োরিটিস অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন জানিয়েছে, স্ত্রীর ফোনে আড়ি পেতে জানতে পারেন বিপি পিএলসি ৭৪ শতাংশ পিমিয়াম দামে আমেরিকার ট্রাভেল সেন্টারস কিনতে যাচ্ছে। এই তথ্য কাজে লাগিয়ে ট্রাভেল সেন্টারসের একের পর এক শেয়ার কেনা শুরু করেন টেইলার। পুরাতন পড়ে থাকা অ্যাকাউন্টও সচল করেন।

এভাবে ১ দশমিক ৭৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করেন। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা প্রায় ১৯ কোটি ৩২ লাখ টাকা। তবে শেষ পর্যন্ত কয়েকদিন আগে নিজের সমস্ত কীর্তি স্ত্রীর কাছে স্বীকার করেন টেইলার। সমস্ত ঘটনা শুনে ক্ষোভে ফেটে পড়েন টেইলারের স্ত্রী। সঙ্গে সঙ্গে বাড়ি ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেন। দিনকয়েকের মধ্যেই ডিভোর্সেরও আবেদন করেন তিনি।

শুধু তাই নয়, নিজের সংস্থার আধিকারিকদের গিয়ে গোটা বিষয়টি জানিয়ে দেন। তাতে উলটে নিজের বিপদ ডেকে আনেন। স্বামীর কুকর্মের সঙ্গী ছিলেন, এই অভিযোগ এনে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয় টেইলারের স্ত্রীকে।

তবে একের পর এক অভিযোগের মুখে পড়ে আড়ি পেতে কামানো অর্থ ফিরিয়ে দিতে রাজি হয়েছেন টেইলার। তার আইনজিবী পিটার জিডেনবার্গ এ বিষয়ে তাৎক্ষণিক কোনো মন্তব্য করেননি। অপরদিকে বিপি এ বিষয়ে মন্তব্য করতে অস্বীকার করেছে।

কোভিড-১৯ মহামারীর শুরুতে বাড়ি থেকে অফিস করার চল শুরু হওয়ার পর থেকে এসইসি একাধিক ইনসাইডার-ট্রেডিং কেস পেয়েছে। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য বাড়ি থেকে কাজ করার সময় আড়ি পাতা বা তথ্য দেখে ফেলা। এতে ওয়ার্ক ফর্ম হোম রীতি ঝুঁকির মুখে পড়েছে।


আরও খবর



শনিবার থেকে আট মিনিট পরপর চলবে মেট্রোরেল

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

ঢাকা মাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এন ছিদ্দিক বলেছেন, যাত্রীদের চাহিদার বিবেচনায় মেট্রোরেলের যাতায়াতের সময় ১০ মিনিট থেকে কমিয়ে ৮ মিনিটে নির্ধারণ করা হয়েছে। আগামী শনিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) থেকে তা কার্যকর হবে।

বৃহস্পতিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে প্রবাসী কল্যাণ ভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

এদিকে ‌সিগন্যাল সিস্টেমে ত্রুটি দেখা দেওয়ায় বৃহস্পতিবার সকালে ট্রেন চলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি হয়। সকালে ট্রেন চলাচল শুরুর পর চারটি ট্রিপ শেষে এই সমস্যা দেখা দেয়। তবে এ সমস্যার কারণে ট্রেন চলাচল স্থগিত করা হয়নি, যাত্রা বিলম্ব হয়।

ঢাকা মাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এন ছিদ্দিক বলেন, আর কিছুদিন পরেই রমজান শুরু হবে। যে মাসে আমরা কিছু কর্মসূচি দেব। কারণ তখন অফিস টাইম চেঞ্জ হয়ে যাবে।

তিনি বলেন, আমাদের এখন ১৫২ বার ট্রেন যাতায়াত করছে। যাত্রীদের চাহিদার বিবেচনায় আমরা আরো ২৬ বার যাতায়াত বৃদ্ধি করে দিচ্ছি। যে সময়টায় পিক আওয়ার হয়, সে পিক আওয়ারে হেডওয়ের সময়টা ১০ মিনিট থেকে ৮ মিনিটে নিয়ে এসেছি, যা আগামী শনিবার থেকে কার্যকর হবে।

এম এন এ ছিদ্দিক বলেন, বর্তমানে মেট্রোরেলে গড়ে ২ লাখ ৭০ হাজার যাত্রী চলাচল করছে। সবার ভেতরে একটা কনফিউশন থাকে যে, কোন ট্রেন কখন উত্তরা বা মতিঝিল থেকে ছাড়ে। আমরা এ ব্যাপারটা পৃথক করে দিয়েছি। উত্তরা থেকে মতিঝিলের দিকে যে ট্রেন যাওয়া আসা করে, সেখানে আগে ১০ মিনিট পরপর ২টি ট্রেন যাতায়াত করত, এখন তিনটি ট্রেন যাতায়াত করবে। আর মতিঝিল থেকে উত্তরার দিকে সকাল ৭টা ৩০ মিনিট থেকে ৮ পর্যন্ত ১০ মিনিট পরপর ট্রেন পাওয়া যাবে, এটা স্পেশাল অফ পিক। তারপর সকাল ৮ থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত ৮ মিনিট পরপর ট্রেন চলবে।


আরও খবর
শপথ নিলেন নতুন ৭ প্রতিমন্ত্রী

শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪




উইন্ডোজ ১০ বন্ধ করে দিচ্ছে মাইক্রোসফট!

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ডেস্ক

Image

উইন্ডোজ ১০ সংক্রান্ত সব ধরনের সেবা বন্ধ করে দিচ্ছে মাইক্রোসফট। ইতোমধ্যে তারিখও ঘোষণা করে দেওয়া হয়েছে। ২০২৫ সালের ১০ অক্টোবর। এর বদলে আসবে নিউ জেনারেশন উইন্ডোজ। তাহলে ক্রোম আর ব্যবহার করা যাবে না? আপাতত যাবে।

গুগলের পেরেন্ট কোম্পানি অ্যালফাবেট জানিয়েছে, ক্রোমের অটো আপডেটিং ভার্সন ইনস্টল করতে পারবেন ইউজাররা। কোম্পানি জানিয়েছে, ক্রোম ওএস ফ্লেক্স-এ নিয়মিত সিকিউরিটি আপডেট, ডেটা এনক্রিপশনের মতো ফিচার থাকবে। ফলে আপাতত ইউজাররা উইন্ডোজ ১০ সিস্টেম ব্যবহার চালিয়ে যেতে পারবেন।

কিন্তু ২০২৫ সালের ১৪ অক্টোবর থেকে আর উইন্ডোজের এই ভার্সনটি সাপোর্ট করবে না মাইক্রোসফট। সিকিউরিটি আপডেট, বাগ ফিক্স বা অন্যান্য প্রযুক্তিগত সহায়তা প্রদানও বন্ধ করে দেওয়া হবে। ইউজারদের তাই উইন্ডোজ ১১ অপারেটিং সিস্টেম বা অন্য বিকল্প ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছে মাইক্রোসফট।

অবশ্য নির্ধারিত সময়ের পরেও ইউজার চাইলে উইন্ডোজ ১০ ব্যবহার করতে পারবেন। তবে কোনও সিকিউরিটি আপডেট মিলবে না। ফলে সিস্টেমের নিরাপত্তা প্রশ্নের মুখে পড়তে পারে।

ক্যানালিসিস রিসার্চের একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, উইন্ডোজ ১০-এর সমাপ্তিতে প্রায় ২৪০ মিলিয়ন কম্পিউটার ল্যান্ডফিলে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে। কারণ সিকিউরিটি আপডেট ছাড়া ডিভাইসের চাহিদা কম হতে পারে। তবে ওএস সাপোর্ট শেষ হওয়ার পরেও কয়েক বছর উইন্ডোজ ১০ সম্বলিত কম্পিউটার ব্যবহার করা যাবে।

অন্যান্য অপারেটিং সিস্টেমের তুলনায় ক্রোম ওএস-এর জনপ্রিয়তা অনেক কম। চলতি বছরের জানুয়ারিতে গবেষণা সংস্থা স্টেটকাউন্টারের রিপোর্ট অনুযায়ী, সারা বিশ্বের ডেস্কটপ ওএস বাজারের ১.৮ শতাংশ শেয়ার রয়েছে এদের দখলে। উইন্ডোজের প্রায় ৭৩ শতাংশ শেয়ারের তুলনায় অনেক পিছিয়ে এটি। ব্যক্তিগত হোক বা ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে উইন্ডোজের তুলনায় ক্রোম ওএস-এর ব্যবহার কম। লিগ্যাসি উইন্ডোজ এবং প্রোডাক্টিভিটি অ্যাপ্লিকেশন এর প্রধান কারণ। যদিও গুগল বলেছে, ক্রোম ওএস লিগ্যাসি উইন্ডোজ এবং প্রোডাক্টিভিটি অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহারের অনুমতি দেবে, যা ডেটা সেন্টার অ্যাপগুলো ডিভাইসে চালাতে সাহায্য করবে।


আরও খবর



হাত-পায়ের তালু ঘামলে যা করবেন

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জীবন ধারা ডেস্ক

Image

ঘাম হওয়া মানুষের জীবনে স্বাভাবিক ব্যাপার। এটি কোনো অসুখ নয়। তবে অতিরিক্ত ঘাম নিয়ে অনেকেই অস্বস্তিতে ভোগেন। দেহের স্বাভাবিক তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে গিয়ে অতিরিক্ত ও অপ্রয়োজনীয় ঘাম হওয়াকে চিকিৎসা-বিজ্ঞানে হাইপারহাইড্রোসিস বলা হয়।

শরীরের পাশাপাশি দেহের নির্দিষ্ট জায়গাতেও এরকম হতে পারে। যেমন- হাত ও পায়ের তালু। এতে করে প্রতিদিনের বিভিন্ন কাজ যেমন লেখালেখি, মোবাইল-কম্পিউটার চালানোতে অসুবিধা হয়। কেডস, বুট বা স্নিকার্স পরলে দুর্গন্ধ সৃষ্টি হয়। এই সমস্যাটি শীতকালে বেশি দেখা যায়। তবে গরমেও হতে পারে। এই ধরনের সমস্যা নিয়ন্ত্রণের কিছু ঘরোয়া উপায় আছে:

পানি

পানি শরীর ঠাণ্ডা রাখে। ফলে ঘাম নিয়ন্ত্রণে থাকে। তাই হাত ও পায়ের তালুর ঘাম রোধে প্রতিদিন পর্যাপ্ত পানি পান করুন। নিয়মিত বিরতিতে হাত ও পা ধোয়ার চেষ্টা করুন।

গোলাপজল

ঘাম প্রতিরোধে গোলাপজল অত্যন্ত কার্যকর। এ ক্ষেত্রে বাজার থেকে কেনা কিংবা ঘরে বানানো উভয় গোলাপজলই ব্যবহার করা যাবে। প্রতিদিন অন্তত তিনবার তুলা বা সুতি কাপড়ের সাহায্যে হাত ও পায়ের তালুতে গোলাপজল ম্যাসাজ করতে পারেন।

ব্ল্যাক টিতে হাত ও পা ভিজিয়ে রাখা

প্রতিদিন ২০ থেকে ৩০ মিনিট সময় নিয়ে ব্ল্যাক টিতে হাত ও পা ডুবিয়ে রাখা ঘাম কমাতে সহায়তা করে। গবেষণায় দেখা গেছে, এতে থাকা ট্যানিন প্রাকৃতিক অ্যাস্ট্রিজান্টয়ের প্রভাব রাখে যা ঘাম কমাতে সহায়তা করে।

বেকিং সোডা

হাত ও পায়ের তালুর অতিরিক্ত ঘাম প্রতিরোধে অন্যতম ঘরোয়া উপায় হলো বেকিং সোডা। প্রথমে এক বোল কুসুম গরম পানি নিন। এতে দুই থেকে তিন চামচ বেকিং সোডা মেশান। সোডা মিশ্রিত পানিতে অন্তত ৩০ মিনিট হাত ও পা ডুবিয়ে রাখুন। পরে শুকনা কাপড় দিয়ে মুছে ফেলুন। এতে ঘামের সমস্যায় উপকার পাওয়া যাবে।

লেবুর রস

অ্যাস্ট্রিজান্ট উপাদান সমৃদ্ধ যা অতিরিক্ত ঘাম কমাতে সহায়তা করে। তাজা লেবুর রস হাতের তালুতে ঘষে শুকানোর জন্য অপেক্ষা করতে হবে। তারপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। নিয়মিত ব্যবহারে ভালো ফলাফল পাওয়া যাবে।

কর্পূর

সামান্য গরম পানিতে কর্পূর গুলে হাত ও পা ১৫ থেকে ২০ মিনিট ডুবিয়ে রাখতে হবে। কর্পূর শীতলকারক উপাদান যা ঘাম কমাতে সহায়তা করে। এছাড়াও কর্পূরের গুঁড়ার সাথে ট্যালকম পাউডার বা নারিকেল তেল মিশিয়ে হাত ও পায়ের তালুতে ব্যবহার করা যায়। সপ্তাহে কয়েকবার ব্যবহারে ভালো ফলাফল আসে। ক্রমাগত হাত ও পা ঘামা খুবই বিরক্তিকর বিষয়। তবে সঠিকভাবে খেয়াল রাখলে আর সতর্ক হলে এর প্রকোপ অনেকটাই কমিয়ে আনা যায়।


আরও খবর
২৯ ফেব্রুয়ারি: ইতিহাসের এই দিনে

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




হিংসায় জ্বলছে সন্দেশখালি, এক্স হ্যান্ডলে সরব নুসরাত

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

জমি, ভেড়ি দখল! নারী নির্যাতন! একের পর এক নালিশের পাহাড়! গত ৫২ দিন ধরে শিরোনামে সন্দেশখালি। গ্রামবাসীদের ক্ষোভের আগুনে জ্বলছে গ্রামের পর গ্রাম। অশান্তি নিয়ে ফের মুখ খুললেন তারকা সাংসদ নুসরাত জাহান।

এক্স হ্যান্ডলে নুসরাত লেখেন, একজন মহিলা এবং জনপ্রতিনিধি হিসাবে আমি সবসময় আমার দলের নির্দেশিকা মেনেই চলি। এবং জনসেবা করারই চেষ্টা করি। সন্দেশখালিতে ইতিমধ্যে মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। সাধারণ মানুষের স্বার্থে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাপনাও করা হয়েছে। আমরা কেউই আইনের ঊর্ধ্বে নই। সুসময় কিংবা দুঃসময়, আমি আমার সংসদীয় এলাকার মানুষদের সঙ্গে আছি। আমি বিশ্বাস করি রাজ্য সরকার এবং প্রশাসনের উপর সকলের বিশ্বাস রয়েছে। যেটা ভুল তার নিন্দা অবশ্যই করুন। তবে আমাদের একে অপরকে নিশানা করা ঠিক নয়। আসুন সকলে মিলে শান্তি ফেরানোর চেষ্টা করি। শান্তি ফেরানো এবং সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করাই আমাদের প্রধান লক্ষ্য। বাকি কে কি বলল কিছু যায় আসে না। আমি আগেও বলেছি, আবার বলছি রাজনীতি করবেন না।

প্রসঙ্গত, গত ৫ জানুয়ারি তৃণমূল নেতা শেখ শাহজাহানের খোঁজে সন্দেশখালিতে হানা দেয় ইডি। তৃণমূল নেতার দেখা মেলেনি। বাড়িতে তল্লাশিও করতে পারেননি আধিকারিকরা। হামলার শিকার হন তারা। অভিযোগ, শাহজাহানের নির্দেশেই হামলার শিকার হন কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার আধিকারিকরা। তার পর থেকেই ফাঁকা সাম্রাজ্য। ফেরার তৃণমূল নেতা। তৃণমূল নেতাকে গ্রেপ্তারের দাবিতে ফুঁসছেন গ্রামবাসীরা। ক্ষোভের আগুন দফায় দফায় জ্বলছে সন্দেশখালির একের পর এক গ্রাম। তা নিয়ে তোলপাড় রাজ্য রাজনীতি।

অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি সরেজমিনে খতিয়ে দেখতে সন্দেশখালিমুখী সিপিএম, কংগ্রেস, বিজেপি প্রতিনিধি দল। যদিও পুলিশি বাধায় কেউই গ্রামে ঢুকতে পারেননি। তবে বেড়মজুর গ্রামে ঘুরে বেড়াচ্ছেন রাজ্যের দুই মন্ত্রী পার্থ ভৌমিক এবং সুজিত বসুরা। তা সত্ত্বেও গ্রামে দেখা মেলেনি বসিরহাটের সাংসদ নুসরাত জাহানের। এত অশান্তির পরেও সাংসদ কোথায়, তা নিয়ে বিভিন্ন মহলে প্রশ্নও উঠতে শুরু করে। গত ১২ ফেব্রুয়ারি নীরবতা ভেঙে সন্দেশখালি কাণ্ডে মুখ খোলেন নুসরাত। তার ঠিক ১৩ দিনের মাথায় আবারও সন্দেশখালি ইস্যুতে এক্স হ্যান্ডলে পোস্ট তারকা সাংসদের।


আরও খবর
টেইলর সুইফট ইফেক্টে আক্রান্ত সিঙ্গাপুর

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪