আজঃ সোমবার ০৮ মার্চ ২০২১
শিরোনাম

‘স্বাধীনতা অর্জনের শেকড় নিহিত ছিল ভাষা আন্দোলনে’

প্রকাশিত:সোমবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৯২জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

স্বাধীনতা অর্জনের শেকড় নিহিত ছিল ভাষা আন্দোলনে। ভাষা আন্দোলনের ঐতিহ্য ধরে রেখেই সামনে এগিয়ে যেতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

স্বাধীনতাকে অর্থবহ করতে হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, শহীদের রক্ত বৃথা যায়নি, যেতে পারে না।

সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে আওয়ামী লীগের আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হন শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, টিকা নিলেও মাস্ক পরা, হাত ধোয়াসহ স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিধি মেনে চলতে হবে। অন্তত নিজেকে সুরক্ষিত রাখতে হবে। কারণ দ্বিতীয় ডোজ রয়েছে। আবার করোনা টিকার কার্যকারিতা কতটুকু বা কী, এটিও গবেষণার পর্যায়ে আছে।

শেখ হাসিনা বলেন, করোনার টিকা সবাই নেবেন। টিকা সংগ্রহ আমরা আগাম করেছিলাম, অনেক দেশ করতে পারেনি। কিন্তু টিকা নিলেও সুরক্ষা বিধি মেনে চলতে হবে।

আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন- আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মতিয়া চৌধুরী, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক সিরাজুল মোস্তফা, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মেহের আফরোজ চুমকি, সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফি প্রমুখ।

Share

আরও খবর
ঢাবিতে ভর্তির আবেদন শুরু

সোমবার ০৮ মার্চ ২০২১




ঢাকায় নেমেই গ্রেপ্তার রন হক সিকদার

প্রকাশিত:শুক্রবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ১৫৩জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঢাকায় নেমেই গ্রেপ্তার হলেন সিকদার গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) রন হক সিকদার। শুক্রবার (১২ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টার দিকে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করে ডিবি পুলিশ।

রন হক সিকদার তার বাবার মৃত্যুর কারণে ঢাকায় আসেন। তিনি একটি হত্যাচেষ্টার মামলার আসামি হওয়ার পর থেকে পলাতক ছিলেন।

ডিবির অতিরিক্ত উপ কমিশনার গোলাম সাকলায়েন বলেন, এক্সিম ব্যাংকের করা একটি মামলায় তাঁকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। এই মামলার অপর আসামি রন হক সিকদারের ভাই দিপু হক সিকদার দেশে ফেরেননি। এ কারণে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়নি।

এক্সিম ব্যাংকের দুই কর্মকর্তাকে নির্যাতন ও গুলি করে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে সিকদার গ্রুপ অব কোম্পানিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) রন হক সিকদার ও তার ভাই দিপু হক সিকদারের বিরুদ্ধে গত ১৯ মে রাজধানীর গুলশান থানায় মামলা করে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ।

মামলার বিবরণীতে বলা হয়, গত ৭ মে রন ও দিপু এক্সিম ব্যাংকের এমডি মুহাম্মদ হায়দার আলী মিয়া ও অতিরিক্ত এমডি মুহাম্মদ ফিরোজ হোসনেকে একটি অ্যাপার্টমেন্টে বন্দি করে রাখেন। পরে তাঁদেরকে গুলি করে হত্যা করার চেষ্টা করা হয়।

এক্সিম ব্যাংকের কর্মকর্তাদের নির্যাতন করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি আরও জানান, পরে সাদা কাগজে সই নিয়ে তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়। সিকদার গ্রুপ ব্যাংকটির কাছে ৫০০ কোটি টাকা ঋণ প্রস্তাব দিলে এর বিপরীতে গ্রুপের বন্ধকি সম্পত্তি পরিদর্শনে যান ব্যাংকের দুই কর্মকর্তা। সেসময় এ ঘটনা ঘটে।

Share

আরও খবর



নরসিংদীতে পৌর নির্বাচন: ত্রিমুখী লড়াইয়ের সম্ভাবনা

প্রকাশিত:শনিবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ১৮৭জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
মেয়র পদে আওয়ামী লীগ-বিএনপি ও বিদ্রোহী প্রার্থী নিয়ে ত্রিমুখী লড়াইয়ে জমে উঠেছিল এবারের পৌর নির্বাচন। পুরো পৌরসভা জুড়ে ব্যানার

পলাশ থেকে নাসিম আজাদ

নরসিংদীতে পৌর নির্বাচনের গতকাল শুক্রবার রাত ৮ টায় শেষ হলো প্রার্থীদের প্রচার প্রচারণা রবিবার অনুষ্ঠিত হবে ভোট গ্রহণ। উৎসব মুখর এ নির্বাচন নিয়ে যেমনি রয়েছে উত্তেজনা তেমনি ভোটার ও প্রার্থীদের মধ্যেও রয়েছে শংকা ও আতংক। চতুর্থ ধাপে নরসিংদীতে ২টি পৌরসভায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এর মধ্যে নরসিংদী সদর ও মাধবদী পৌরসভা রয়েছে। দুটি পৌরসভার মধ্যে নরসিংদী পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে ত্রিমুখী লড়াইয়ের সম্ভাবনা রয়েছে।

মেয়র পদে আওয়ামী লীগ-বিএনপি ও বিদ্রোহী প্রার্থী নিয়ে ত্রিমুখী লড়াইয়ে জমে উঠেছিল এবারের পৌর নির্বাচন। পুরো পৌরসভা জুড়ে ব্যানার, পোস্টার ও লিফলেটের সমারোহ। করোনার প্রভাবকে পেছনে ফেলে মেয়র কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর প্রার্থীরা চষে বেড়িয়েছেন ভোটারদের বাড়ি বাড়ি। আর পাড়া-মহল্লা ও চায়ের স্টলে আড্ডাসহ সবখানে শুধু  নির্বাচনী আলোচনা।

প্রার্থীরা ভোটারদের সঙ্গে করছেন কুশল বিনিময়, উঠান বৈঠক ও বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষদের সঙ্গে চলছে আলোচনা। পাশাপাশি ভোটারদের দিচ্ছেন নানা প্রতিশ্রুতি। এছাড়া সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে নিজেদের জানান দিচ্ছেন প্রার্থীরা।

নরসিংদী পৌরসভায় এবার মেয়র পদে লড়ছেন চারজন প্রার্থী। এর মধ্যে আওয়ামী লীগ থেকে নৌকা প্রতীকে লড়ছেন শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আমজাদ হোসেন বাচ্চু। বিএনপি থেকে ধানের শীষ প্রতীকে লড়ছেন জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হারন অর রশিদ। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ হাত পাখায় লড়ছেন মো. আসাদুল হক। এছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থী (বিদ্রোহী) হিসেবে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা এস এম কাইয়ুম মোবাইল প্রতীক নিয়ে লড়ছেন। যদিও মেয়র পদের চার জন প্রার্থীই ছুটছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। তবুও ভোটের মাঠে মূল আলোচনায় রয়েছেন আওয়ামী লীগের আমজাদ হোসেন বাচ্চু (নৌকা), বিএনপির হারুন অর রশিদ (ধানের শীষ) এবং আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী এস এম কাইয়ুম (মোবাইল)।

এ দিকে  শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আমজাদ হোসেন বাচ্চু এই বার প্রথম নির্বাচন অংশ গ্রহন করে। ভোটারদের বেশ সাড়া জাগাতে সক্ষম হন সাদা মনের মানুষ এই প্রার্থীর রয়েছে বেশ গ্রহন যোগ্যতা। তিনি সামাজিক কর্মকাণ্ড ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সহিত জড়িত। অপর দিকে জেলা বিএনপির যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশিদ হারুন ধানের শীষ মার্কা নিয়ে লড়ে যাচ্ছেন। তিনি এর আগে বিএনপি সরকারের আমলে নির্বাচনে অংশ গ্রহন করে সফল হতে পারেনি।

নরসিংদী পৌরসভা নির্বাচনে এবার মোট ভোটার সংখ্যা ৯৯ হাজার ৪৫৪। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৪৯ হাজার ১৫৭ এবং মহিলা ভোটার ৫০ হাজার ২৯৭ জন।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মেজবাহ উদ্দিন জানান, নির্বাচনে ৪ জন মেয়র প্রার্থীর পাশাপাশি ৯ টি ওয়ার্ডে ৩৩ জন সাধারণ পুরুষ কাউন্সিলর ও ১১ জন সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করবেন। আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারী ৪০ টি কেন্দ্রে ২৭৮ টি বুথে ব্যালটের মাধ্যমে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

Share

আরও খবর
ঘোড়াশাল সার কারখানার আগুন নিয়ন্ত্রণে

শুক্রবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২১




বসুরহাট পৌরসভায় ১৪৪ ধারা জারি

প্রকাশিত:সোমবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ১০২জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বসুরহাট পৌরসভায় ১৪৪ ধারা জারি করেছে উপজেলা প্রশাসন। পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদলের পাল্টাপাল্টি কর্মসূচির কারণে উপজেলা প্রশাসন এ সিদ্ধান্ত নেয়।

রোববার (২১ ফেব্রুয়ারি) রাত ১১টার দিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জিয়াউল হক মীর বসুরহাট পৌরসভায় সোমবার ভোর ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ১৪৪ ধারার এ আদেশ জারি করেন। রাতেই বসুরহাট বাজারসহ বিভিন্ন স্থানে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

মুজাক্কির হত্যাকাণ্ডের পর কাদের মির্জা-বাদল গ্রুপের পক্ষ থেকে একই দিন একই স্থানে পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি দেয়ায় জনমনে চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে।

কাদের মির্জার অনুসারীরা সাংবাদিক মুজাক্কিরের মৃত্যু সংবাদ পেয়ে তাকে তাদের কর্মী দাবি করে শনিবার রাতে এ হত্যাকাণ্ডের জন্য প্রতিপক্ষকে দায়ী করে তাদের গ্রেপ্তার দাবিতে বসুরহাটে বিক্ষোভ মিছিল করে। পরে সোমবার দুপুরে বসুরহাট রূপালী চত্বরে শোক ও প্রতিবাদ সভার কর্মসূচির ঘোষণা করে।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি মীর জাহেদুল হক রনি জানান, দুই পক্ষের পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি দেয়ার কারণে কোনো স্থানে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি যেন অবনতি না ঘটে সেজন্য অতিরিক্ত পুলিশ ও ডিবি পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জিয়াউল হক মীর বলেন, দুই পক্ষ বসুরহাটে একই স্থানে পাল্টাপাল্টি সমাবেশ ডাকায় সমগ্র বসুরহাট পৌর এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। এ সময় সব ধরনের সভা সমাবেশ ও মিছিল নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: ১৪৪ ধারা
Share

আরও খবর



যারা বিয়ে করতে ভয় পায় তারা এক ধরনের মানসিক রোগী

প্রকাশিত:শনিবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০21 | হালনাগাদ:শনিবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০21 | ৩১৬জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বিয়ে নামক শব্দটার সঙ্গে ছোট থেকেই আমাদের পরিচিতি রয়েছে বেশ। ছোট থেকে বড় হতে হতে আমরা পরিবারের বন্ধন দেখতে পাই বিয়ের মাধ্যমেই। কিন্তু বড় হতে হতে অনেকেরই পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতির কারণে বিয়ে নামক বস্তুটায় আপত্তি চলে আসে।

আমাদের সমাজের এরকম অনেক মানুষ আছে যাদের বিয়ের নামেই অ্যালার্জি রয়েছে। তারা মনে করেন বিয়ে মানেই একটি সম্পর্কে আবদ্ধ হয়ে যাওয়া, আর সেখান থেকে বের না হতে পারার একটি ভয়ও কাজ করে। তবে এই বিয়ে ভীতি বা অনীহা এক ধরনের মানসিক রোগ- যাকে আমরা গ্যামোফোবিয়া নামে চিনে থাকি।

গ্যামোফোবিয়া হলো, বিয়ে কিংবা কোনও ধরনের স্থায়ী সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ার ভয়। যারা মানসিকভাবে এই ফোবিয়ায় আক্রান্ত তারা আসলে নতুন সম্পর্ক নিয়ে আতঙ্কে থাকেন, বিবাহিত জীবন নিয়ে একটা ভয় কাজ করে, নিজের ব্যক্তি স্বাধীনতার জায়গাটুকু খর্ব হতে পারে কিংবা মানিয়ে চলা যাবে কি না এধরনের একটা চিন্তায় থাকেন এই ফোবিয়ায় আক্রান্ত মানুষরা।

অনেকেই সম্পর্ক জড়ান ঠিকই তবে বিয়ের বিষয় আসলেই তারা ভড়কে যান। তাদের এরকম ফোবিয়া থাকলে বুঝতে হবে তিনি গ্যামোফোবিয়ায় ভুগছেন।

গ্যামোফোবিয়া বিভিন্ন কারণে হতে পারে। বাবা-মায়ের বিচ্ছেদ, পরিবারের মধ্যে ঝগড়া-বিবাদ বা সত্যিকারের প্রেম ভেঙ্গে যাওয়ার পর অনেকেই মানসিকভাবে এতোটাই ভেঙ্গে পড়েন যে, কাউকে আর তার আপন মনে হয় না। এরকম যাদের পরিবারে রয়েছে তারাই বেশিরভাগ এই রোগে ভোগেন।

এই রোগ থেকে উত্তরণের জন্য অবশ্যই সাইকোলজিস্টদের কাউন্সেলিং এর প্রয়োজন। এরকম লক্ষণ যাদের মাঝে থাকবে তাদের সঙ্গে অবশ্যই ধীরস্থিরভাবে চলতে হবে। কোন কিছু নিয়ে প্রেশার না দিয়ে সম্পর্কের মহত্ব ও গভীরতাকে সামনে নিয়ে আসতে হবে। তাহলেই এক সময় সে মানুষটাও বিয়ের মত সুন্দর সম্পর্কের বিষয়টা বুঝতে পারবে।

 

নিউজ ট্যাগ: বিয়ে
Share

আরও খবর



ব্যক্তিস্বার্থে ইসিকে অপদস্ত করছেন মাহবুব তালুকদার : নূরুল হুদা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০২ মার্চ 2০২1 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০২ মার্চ 2০২1 | ৮৭জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নির্বাচন কমিশনকে প্রতি মুহূর্তে অপদস্ত করছেন নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার - এমন মন্তব্য করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা।

মঙ্গলবার (২ মার্চ) সকালে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে জাতীয় ভোটার দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

কে এম নূরুল হুদা বলেন, অভ্যাসগত ভাবেই নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার প্রত্যেকটি সভা সেমিনারে রাজনৈতিক বক্তব্য দেন। ইভিএমে ৮৫ শতাংশ ভোট হয় তা তিনি দেখেননি।

তিনি বলেন, ব্যক্তিস্বার্থে এবং একটি বিশেষ গোষ্ঠীর উদ্দেশ্য সাধনের জন্য নির্বাচন কমিশনকে প্রতি মুহূর্তে অপদস্ত করছেন নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার।

এসময় একই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকা নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার চট্টগ্রামের রাউজানে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় মেয়র, কাউন্সিলরা নির্বাচিত হওয়ার সমালোচনা করেন। তিনি বলেন, নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু না হলে ক্ষমতা হস্তান্তর স্বাভাবিক হয় না। বহুদলীয় নির্বাচনের জন্য লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড কার্যকর হচ্ছে না।

সারাদেশে বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় প্রার্থী নির্বাচিত হলে নির্বাচন কমিশনের অর্থ সাশ্রয় হয় বলে মন্তব্য করে মাহবুব তালুকদার বলেন, নির্বাচন প্রক্রিয়ার সংস্কার না হলে সুষ্ঠু অবাধ নির্বাচন সম্ভব নয়। মনোনয়নই বড় কথা। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়া গেলে নির্বাচন কমিশনের প্রয়োজন হবে কিনা সেটাও একটি প্রশ্ন।

বহুদলীয় নির্বাচনের জন্য লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড কার্যকর হচ্ছে না মন্তব্য করে নির্বাচন কমিশনার বলেন, ভোটার তালিকা নির্ভুল না হলে গণতন্ত্রকে সামনের দিকে এগিয়ে নেয়া যায় না।

নির্বাচন কমিশনার বেগম কবিতা খানম বলেন, সুষ্ঠু ভোট স্বীকৃতিতে আসা উচিত, না হলে জাতির কাছে ভুল মেসেজ যায়। সুষ্ঠু নির্বাচনের পূর্বশর্ত নির্ভুল ভোটার তালিকা। নির্বাচনের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের নির্ভুল ভোটার তালিকা করতে সহযোগিতা করার আহ্বানও জানান তিনি।

নিউজ ট্যাগ: কে এম নূরুল হুদা
Share

আরও খবর