আজঃ বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১
শিরোনাম

স্বরূপকাঠিতে বজ্রপাতে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু

প্রকাশিত:সোমবার ০৭ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ০৭ জুন ২০২১ | ৩১৩জন দেখেছেন
হযরত আলী হিরু, স্বরূপকাঠি

Image

পিরোজপুরের স্বরূপকাঠির পূর্ব গুয়ারেখা গ্রামে বজ্রপাতে আবুল কালাম (৫৫) ও জাহানারা বেগম (৫০) নামে এক দম্পত্তির মৃত্যু হয়েছে।

সোমবার দুপুরে ছাগল রাখার ঘরে পলিথিন টানাতে গিয়ে ওই দম্পত্তির মৃত্যু হয়েছে। মৃত ওই দম্পতি ৪ সন্তানের জনক-জননী।

গুয়ারেখা ইউপি চেয়ারম্যান সুব্রত কুমার ঠাকুর জানান, প্রচন্ড ঝড়ের মধ্যে বজ্রপাতে স্বামী ও স্ত্রী গুরুতর আহত হওয়ার পর প্রতিবেশীরা তাদের উদ্ধার করে কলাখালী বাজারের পল্লী চিকিৎসক সজলের কাছে নিয়ে গেলে ডাক্তার তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

মর্মান্তিক এ দুর্ঘটনায় এলাকায় শোকাবহ পরিবেশের সৃষ্টি হয়। আবুল কালাম ওই গ্রামের মৃত আঃ কাদেরের পুত্র।


আরও খবর



যশোরে করোনায় আরও ৮ মৃত্যু

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২২ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২২ জুন ২০২১ | ৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

যশোরে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ও উপসর্গ নিয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আটজনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে চারজনের করোনা শনাক্ত করা হয়েছে। অপর চারজন উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। যশোর স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে আজ মঙ্গলবার এ তথ্য জানানো হয়েছে।

স্বাস্থ্য বিভাগ আরও জানায়, মৃত আটজনের মধ্যে যশোর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটের ইয়েলো জোনে উপসর্গ নিয়ে চারজনের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া মৃত অপর চারজন যশোরের ঝিকরগাছা, চৌগাছা, অভয়নগর ও মনিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের করোনা ওয়ার্ডে মারা গেছেন। সবাই করোনা পজিটিভ ছিলেন।

এদিকে, জেলায় গত ২৪ ঘণ্টায় ৫২৮ জনের নমুনা পরীক্ষায় ২৫৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ৪৭ দশমিক ৯১ শতাংশ। আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে বর্তমানে যশোর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ৮৯ জন এবং আইসোলেশন ওয়ার্ডে ৬৫ জন ভর্তি রয়েছে।

যশোরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কাজী মো. সায়েমুজ্জামান জানান, করোনার সংক্রমণ কমাতে জেলার পাঁচটি পৌরসভাসহ আরও কয়েকটি এলাকায় কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। এরপরও সংক্রমণ বাড়তে থাকায় মানুষের চলাচল নিয়ন্ত্রণে বিধিনিষেধ আরও কঠোর করার চিন্তা করছে প্রশাসন।


আরও খবর
যশোরে ৭ দিনের বিধিনিষেধ শুরু

বৃহস্পতিবার ১০ জুন ২০২১




বিএনপি মুখোশের আড়ালে বহুরূপী দানব: ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১০ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১০ জুন ২০২১ | ৯৯জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বিএনপিকে মুখোশের আড়ালে বহুরূপী দানব সম্বোধন করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, গণতন্ত্রের বুলি মুখে নিয়ে সাম্প্রদায়িক অপশক্তির লালন-পালনকারী দল বিএনপি।

দেশে এখন অদৃশ্য ও দৃশ্যমান দুটি শত্রু বিরাজমান উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, অদৃশ্য শত্রু হচ্ছে করোনা আর দৃশ্যমান শত্রু বিএনপি।

বৃহস্পতিবার (১০ জুন) সকালে সরকারি বাসভবনে নিয়মিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি।

বিএনপির নেতিবাচক ও ষড়যন্ত্রের রাজনীতিকে অদৃশ্য শত্রু করোনার চেয়েও ভয়ংকর বলে মনে করেন ওবায়দুল কাদের।

রাজনীতির মাঠে প্রতিপক্ষ থাকবে, প্রতিদ্বন্দ্বী থাকবে, তাই বলে কেউ কাউকে শত্রু ভাবা ঠিক নয় উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, দায়িত্বশীল বিরোধীদল উন্নয়নের সহযাত্রী, কিন্তু বিএনপি নিজেরা তাদের কর্কট রূপ প্রমাণ করেছে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগকে বিএনপি শত্রু মনে করে বলেই পঁচাত্তরে জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যার নীলনকশায় জড়িত এবং বেনিফিশিয়ারি তারা।

তিনি আরও বলেন, শেখ হাসিনাকে শত্রু মনে করে বলেই ২১ আগস্ট প্রকাশ্য দিবালোকে গ্রেনেড হামলা চালিয়েছিল দলটি।

বিএনপি নিরপরাধ মানুষকে আগুনে পুড়িয়ে মারে, সম্পদ নষ্ট করে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ক্ষমতায় গিয়ে আকণ্ঠ দুর্নীতিতে নিমজ্জিত হয়ে জনগণের সম্পদ লুণ্ঠন করে বিএনপি।

তিনি বলেন, বিএনপি ক্ষমতার হ্যালুসিনেশনে ভুগছে। তাই দেশের উন্নয়ন এবং উত্তরণ তাদের গায়ের জ্বালা বাড়ায়। ইতিহাস বলে, বিএনপি যাদের বন্ধু তাদের শত্রুর দরকার নেই।

এ দেশের সমৃদ্ধি নয়, ধ্বংসই বিএনপির মনোবাসনা উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, যাদের ক্ষমতা লিপ্সার কাছে দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব ভূলুণ্ঠিত হয়, যারা জনগণের কাছে যাওয়ার নৈতিক মনোবল হারিয়ে বিদেশি শক্তির দ্বারে ধরনা দেয়, তারা আওয়ামী লীগের ক্ষতিসাধনের জন্য দেশ ও জাতির যে কোনো ক্ষতি করতেও প্রস্তুত।

একটি ব্যর্থ রাজনৈতিক দল হিসেবে ইতোমধ্যে ইতিহাসের কাঠগড়ায় বিএনপির বিচার শুরু হয়ে গিয়েছে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের মনে করেন রাজপথ আর ভোটার বাক্স তার প্রমাণ।

মিথ্যাচার আর প্রতিহিংসার রাজনীতির কারণে বিএনপির জনপ্রিয়তা এখন তলানিতে ঠেকেছে মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বর্ষণ নয়, তর্জন-গর্জনেই ফখরুল ইসলাম আলমগীরদের অর্জন সীমাবদ্ধ।


আরও খবর



এ বছরের হজ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য পাইনি : ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ০৯ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৯ জুন ২০২১ | ১০২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান বলেছেন, চলতি বছর পবিত্র হজ পালন করতে বাংলাদেশ থেকে কোনো যাত্রী যাবে কি-না সে ব্যাপারে আমার কাছে কোনো মেসেজ (বার্তা) নেই। সৌদি বাদশাহর পক্ষ থেকে এ বিষয়ে কোনো মেসেজ বা চিঠিও আসেনি।

আজ বুধবার রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, এ ধরনের কোনো চিঠি বা মেসেজ পেলে গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে তা বিস্তারিত তুলে ধরা হবে। সুতরাং এ মুহূর্তে হজ নিয়ে কোনো চিন্তা করছি না।

তিনি বলেন, হজ নিয়ে অনেকেই অনেক কথা বলছেন কিন্তু সেগুলো মিথ্যা ও বানোয়াট। তবে কোনো সুযোগ এলে সেজন্য সর্বাত্মক প্রস্তুতি রয়েছে এবং সরকারপ্রধান ও ধর্ম মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক সহায়তা করা হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বুধবার ইসলামিক ফাউন্ডেশন কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন প্রতিটি জেলায় এবং উপজেলায় একটি করে মোট ৫৬০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র প্রকল্পের আওতায় প্রাথমিকভাবে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ৫০টি মডেল মসজিদ উদ্বোধন করতে যাচ্ছেন।

এ বিষয়ে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান বলেন, প্রতিটি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র ৪৩ শতাংশ জায়গার ওপর তিন ক্যাটাগরিতে নির্মাণ করা হবে। জেলা ও সিটি করপোরেশন পর্যায়ে চারতলা, উপজেলা পর্যায়ে তিনতলা, উপকূলীয় এলাকায় চারতলা (যার মধ্যে নিচতলা ফাঁকা) মডেল মসজিদ ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ করা হচ্ছে। 


আরও খবর



রাতারাতি গোঁফ গজালো শ্রীলেখার!

প্রকাশিত:রবিবার ৩০ মে ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ৩০ মে ২০২১ | ১২৯জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

টালিউডের আলোচিত অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র। রাতারাতি তার ইয়া বড় গোঁফ গজিয়েছে! এটি কীভাবে সম্ভব? শনিবার (২৯ মে) নেটমাধ্যমে কৌতুহলে ফেটে পড়েছে নেটাগরিকরা।

শ্রীলেখা জানিয়েছেন, লকডাউনে স্যালুনে যেতে পারছেন না। ফলে, ভ্রূ আর ঠোঁটের উপরে বাড়তি লোম গজিয়েছে। শনিবার সে দিকে চোখ যেতেই নিজেকে নিয়ে রসিকতা করার লোভ সামলাতে পারেননি। ছবিতে গোঁফের ইমোজি বসিয়ে নেটমাধ্যমে ভাগ করে নিতেই এই কাণ্ড। তার পরেই কটাক্ষ তাঁর, নিজের ফুটেজেই জনপ্রিয় হচ্ছি!

এই অভিনেত্রী আরও বলেন, 'আমায় কিছু বলতে হচ্ছে না। নেটাগরিকেরাই আমার হয়ে জবাব দিয়ে দিচ্ছেন।'

টালিগঞ্জের অভিনেত্রীদের বিরুদ্ধেও বিস্ফোরক শ্রীলেখা। তিনি বলেন, প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়-ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তের সম্পর্ক, স্বজনপোষণ নিয়ে যখন মুখ খুলেছিলাম, তখন জনৈক অভিনেত্রী আমার বিরুদ্ধে অনেক কথা বলেছিলেন। আমার শরীর নিয়ে যখন এত নোংরামি হল, আমাকে বাজারি বলা হয়েছিল, তখন তিনি কোথায়? এক বারের জন্যেও ইন্ডাস্ট্রির কেউ তো এ সবের প্রতিবাদ জানালেন না।'

সিনে দুনিয়ার বাইরের মানুষেরা বেশি ভাল। শ্রীলেখার উদাহরণ, দেখুন, ওরা কী সুন্দর গোঁফ এবং রসালো ঠোঁটের রেয়ার কম্বিনেশন খুঁজে নিয়েছেন।


নিউজ ট্যাগ: শ্রীলেখা মিত্র

আরও খবর



শেখ হাসিনার বহরে হামলা: ১৮ আসামির জামিন বিষয়ে আদেশ আজ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৫ মে ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৫ মে ২০২১ | ১৩৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সাতক্ষীরার কলারোয়ায় ২০০২ সালে তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলার মামলায় নিম্ন আদালতে সাজাপ্রাপ্ত সাতজনের জামিন মঞ্জুর করেছেন হাইকোর্ট।

জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুস সাত্তারসহ ১৮ জনের জামিন চেয়ে করা আবেদন শুনানি নিয়ে মঙ্গলবার (২৫ মে) হাইকোর্টের বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম ও বিচারপতি মো. ইকবাল কবিরের সমন্বয়ে গঠিত ভার্চুয়াল বেঞ্চে এ আদেশ দেন।

আদেশের বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেছেন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল এস এম মুনীর। বাকিদের বিষয়ে আগামী ৩০ মে আদেশ দেয়া হবে।

বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত চার দলীয় জোট সরকার ক্ষমতায় থাকাকালীন যশোর-সাতক্ষীরা সড়কে সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলা বিএনপি কার্যালয়ের সামনে ২০০২ সালের ৩০ আগস্ট শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় সাবেক সংসদ সদস্য মুজিবুর রহমানসহ বেশ কয়েকজন আহত হন। ওইদিন কলারোয়া উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোসলেম উদ্দিন বাদী হয়ে এ ঘটনায় মামলা করেন।

মামলা তদন্ত শেষে সাতক্ষীরা-১ (তালা-কলারোয়া) আসনের তৎকালীন সংসদ সদস্য বিএনপি নেতা হাবিবুল ইসলামসহ ৫০ জনের বিরুদ্ধে ২০১৫ সালে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ। আসামিদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগে বলা হয়, শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে এই হামলা হয়েছে। এরপর মামলার আসামি রাকিবের আবেদনে ২০১৭ সালের ২৩ আগস্ট হাইকোর্ট মামলার কার্যক্রমের ওপর স্থগিতাদেশ দেন। একই সঙ্গে রাকিবের ক্ষেত্রে মামলার কার্যক্রম কেন বাতিল করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করা হয়। পরে রাকিবকে জামিন দেয়া হয়।

রাকিবের আবেদন ছিল, যখন ঘটনার কথা বলা হয় তখন, অর্থাৎ ২০০২ সালে তার বয়স ছিল ১০ বছর। সুতরাং তার বিচার হতে হলে শিশু আইনে হবে। বড়দের সঙ্গে দায়রা জজ আদালতে করা যাবে না।


আরও খবর