আজঃ বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১
শিরোনাম
মহাকাশে ভেসে খাবার খাচ্ছেন চীনা নভোচারীরা কলম্বিয়াকে ২-১ গোলে হারাল ব্রাজিল স্পেনের কারাগারে ম্যাকাফি অ্যান্টিভাইরাস আবিষ্কারকের ‘আত্মহত্যা’ আগস্টে মুক্তি পাচ্ছে চলচ্চিত্র ‘চিরঞ্জীব মুজিব’ গত ২৪ ঘণ্টায় রাজশাহীতে আরও ১৮ জনের মৃত্যু ‘আ.লীগ হীরার টুকরা, যতবার কেটেছে নতুন করে জ্যোতি ছড়িয়েছে’ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার নামে মিথ্যাচারের প্রতিবাদে মানববন্ধন স্বাক্ষর জালিয়াতি ও তথ্য গোপন করায় ছাত্র ইউনিয়নের দুই শীর্ষ নেতা বহিষ্কার ইতিহাসে আওয়ামী লীগ, বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ ও শেখ হাসিনা সমার্থক হয়ে থাকবে: : মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী পরীমনির মামলায় সেই নাসির-অমি ৫ দিনের রিমান্ডে

টার্গেটের মেয়ের ধর্মকে নিজের ধর্ম পরিচয় দিতেন অভিজিৎ

প্রকাশিত:বুধবার ০২ জুন 2০২1 | হালনাগাদ:বুধবার ০২ জুন 2০২1 | ৭৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

যে ধর্মের মেয়েকে টার্গেট করতেন, সেই ধর্মের পরিচয় দিতেন অভিজিৎ ঘোষ। মুসলিম মেয়ে হলে আস্থা অর্জনের জন্য পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করতেন। আর হিন্দু হলে মুখস্ত শ্লোক বলতেন। কোনো বাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তার সন্তান আর নিজে লেফটেন্যান্ট কমান্ডার অথবা ম্যাজিস্ট্রেট বলে পরিচয় দিতেন। এভাবে একের পর এক ফাঁদ পেতে বিয়ে করে অথবা বিয়ের আশ্বাস দিয়ে ধর্ষণ করতেন মেয়েদের।

কাজির উপস্থিতিতে মুসলিম রীতি অনুযায়ী বিয়ে শেষে মোনাজাতে অংশ নিচ্ছে আসাদ মাহমুদ পরিচয়ের অভিজিৎ ঘোষ। অবশ্য বিয়ের আগে নিজেকে নৌবাহিনীর লেফটেনেন্ট কমান্ডার পরিচয় দিয়ে বাহিনীর পোশাক পরে ওই তরুণীর বাসায় বেড়াতে গিয়েছিল সে। আস্থা অর্জনের জন্য ওই নারীর বাসায় নিয়মিত নামাজ আদায় করত। এভাবে প্রতারণার ফাঁদ পেতে ওই তরুণীকে অভিজিৎ বিয়ে করেছিল বলে অভিযোগ।

ভুক্তভোগী নারী বলেন, আমাকে বলেছিল ওর বাবা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ও মা কুমিল্লা কোর্টের জজ ছিল। বাবা-মা দুজনই মারা গেছে। ওর সহযোগী বলত, আমাকে না পেলে আসাদ নাকি আত্মহত্যা করবে, মারা যাবে। তাই আমি ওকে বিয়ে করতে রাজি হয়েছিলাম। 

শিক্ষানবিশ আইনজীবী হিসেবে কর্মরত ভুক্তভোগী এই নারী মায়ের চিকিৎসার জন্য ভারতে গেলে নিজেকে ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয় দিয়ে আরেক হিন্দু তরুণীকে বিয়ের আশ্বাস দিয়ে দৈহিক সম্পর্ক স্থাপন করে অভিজিৎ ঘোষ নামের এই প্রতারক। পরবর্তীতে ওই হিন্দু তরুণীর অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ গত ২৪ এপ্রিল এক সহযোগীসহ অভিজিৎকে গ্রেপ্তার করে। সময় টেলিভিশনে এ নিয়ে সংবাদ প্রচার হলে ওই নারী বুঝতে পারেন প্রতারক অভিজিৎ ঘোষ হলো তার স্বামী আসাদ মাহমুদ।

ভুক্তভোগী নারী আরও বলেন, ওর এই ঘটনা আমি খবরে দেখি। তারপর আমি বুঝতে পারি, এই অভিজিৎ হচ্ছে আমার স্বামী আসাদ মাহমুদ।

মায়ের চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরে কোতোয়ালি থানায় প্রতারক অভিজিৎ ঘোষ এবং তার সহযোগী সত্যজিত দাশ শুভকে আসামি করে নতুন আরও একটি মামলা করেছেন প্রতারণার শিকার ভুক্তভোগী নারী। চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে থাকা দুজনকে আদালতের মাধ্যমে মামলায় শ্যোন অ্যারেস্ট দেখিয়েছে পুলিশ।

এ বিষয়ে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ নেজাম উদ্দিন বলেন, তার বিরুদ্ধে আমরা নিয়মিত মামলা নিচ্ছি ও আইনগত ব্যবস্থা নিচ্ছি।

সরকারি বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার সদস্য পরিচয়ে যেমন বিভিন্ন নারীদের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন নিয়ে পুলিশের কাছে একাধিক নারী অভিযোগ জানিয়েছেন, তেমনি ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয়ে পুলিশকেও অভিজিৎ ঘোষ ধোঁকা দিয়েছিল।



আরও খবর



বাবুনগরীর হেফাজতকে অবৈধ আখ্যা দিয়ে মধুপুরী পীরের বিশেষ ঘোষণা

প্রকাশিত:সোমবার ৩১ মে ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ৩১ মে ২০২১ | ১৬৯জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী ও নুরুল ইসলাম জিহাদীর নেতৃত্বাধীন হেফাজতে ইসলামের সদ্য বিলুপ্ত কমিটি ও বর্তমান আহ্বায়ক কমিটিকে অবৈধ বলে ঘোষণা দিয়েছেন বিলুপ্ত কমিটির নায়েবে আমীর ও মধুপুরের পীর মাওলানা আবদুল হামিদ। 

রবিবার রাতে গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিশেষ ঘোষণায় মধুপুরের পীর তার এ সিদ্ধান্তের কথা জানান।

২৮ মে লেখা ওই ঘোষণাপত্রে হেফাজতের প্রয়াত আমীর আল্লামা আহমদ শফীর নীতি আদর্শে অবিচল থাকারও ঘোষণা দেন তিনি। সোমবার বিকালে মধুপুরের পীর মাওলানা আবদুল হামিদ বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

ঘোষণাপত্রে তিনি বলেন, আমি মাওলানা আবদুল হামিদ (পীর সাহেব, মধুপুর) শাইখুল ইসলাম আল্লামা আহমদ শফীর নীতি ও আদর্শের ওপর অবিচল আছি এবং আজীবন থাকব ইনশাআল্লাহ।

আমি দ্ব্যর্থহীনভাবে ঘোষণা করছি, হেফাজতে ইসলামের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির সঙ্গে আমার কোনো  সম্পর্ক নেই এবং নবগঠিত আহ্বায়ক কমিটির প্রতিও আমার কোনো সমর্থন নেই। এই কমিটিকে আমি বৈধ মনে করি না।

মাওলানা আবদুল হামিদ আরও বলেন, আমি হেফাজতে ইসলামের মোদি বিরোধী কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে মুন্সীগঞ্জের মধুপুরে অপ্রত্যাশিত ঘটনাবলীর জন্য আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করছি। বিশেষ করে আমার অত্যন্ত স্নেহভাজন মেজর জেনারেল আবুল কালাম হুমায়ুনের আম্মার আহত হওয়ার খবর শুনে অত্যন্ত দুঃখিত ও ব্যথিত হয়েছি। বিশেষ করে মেজর জেনারেল সাহেবের বাড়িঘরসহ অন্যান্যদের বাড়িঘরে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। 

 

নিউজ ট্যাগ: হেফাজতে ইসলাম

আরও খবর



খুলনা বিভাগের ১২৬ ইউপি নির্বাচন স্থগিত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১০ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১০ জুন ২০২১ | ১২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
খুলনা বিভাগীয় কমিশনার সাতক্ষীরা-খুলনা বাগেরহাট এলাকার ১২৩ ইউনিয়নে করোনা সংক্রমণ বাড়তে থাকায় ভোট বন্ধের অনুরোধ জানিয়েছিলেন

করোনার সংক্রমণ বাড়ায় খুলনা বিভাগের ১২৬ ইউপি নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে। তবে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা থাকায় লক্ষ্মীপুর-২ আসনের উপ-নির্বাচন আগামী ২১ জুলাই অনুষ্ঠিত হবে বলে জানা গেছে।

আজ বৃহস্পতিবার (১০ জুন) আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কমিশনের সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এর আগে খুলনা বিভাগীয় কমিশনার সাতক্ষীরা-খুলনা বাগেরহাট এলাকার ১২৩ ইউনিয়নে করোনা সংক্রমণ বাড়তে থাকায় ভোট বন্ধের অনুরোধ জানিয়েছিলেন।

খুলনা বিভাগে করোনার সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী। প্রতিদিনই বাড়ছে শনাক্তের সংখ্যা। গেল ২৪ ঘণ্টায় বিভাগে করোনা আক্রান্ত হয়ে ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় করোনা শনাক্ত হয়েছে ৫৭৮ জনের, যা সংক্রমণের শুরু থেকে এ পর্যন্ত বিভাগে সর্বোচ্চ শনাক্ত। এনিয়ে খুলনা বিভাগে করোনা শনাক্তের সংখ্যা ৩৮ হাজার ছাড়িয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ৬৯৫ জনের।


আরও খবর



বুরকিনা ফাসোতে সন্ত্রাসী হামলায় ১৩২ জনের বেশি নিহত

প্রকাশিত:রবিবার ০৬ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ০৬ জুন ২০২১ | ৯৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পশ্চিম আফ্রিকার দেশ বুর্কিনা ফাসোর উত্তরে একটি গ্রামে সন্ত্রাসীদের হামলায় ১৩২ জনের বেশি মানুষ নিহত হয়েছেন। দেশটির প্রেসিডেন্ট রোচে কাবোর এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছেন। বিবিসির এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানা যায়।

সরকারের এক বিবৃতির বরাত দিয়ে বার্তাসংস্থা রয়টার্স জানায়, সোলহান নামের ওই গ্রামে সন্ত্রাসীরা সারারাত হামলা চালিয়ে সেখানকার মানুষদের হত্যা করে। সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়, হামলার সময় তাদের ঘরবাড়ি এবং মার্কেটও পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে।

এই ঘটনায় এখনও কেউ বা কোনও জঙ্গিগোষ্ঠী দায় স্বীকার করেনি। তবে দেশটিতে বিশেষ করে নাইজার ও মালি সীমান্তবর্তী এলাকায় জঙ্গিদের এই ধরনের হামলা প্রায়শ দেখা যায়। প্রেসিডেন্ট কাবোরে এক টুইট বার্তায় এই ঘটনায় তিন দিনের জাতীয় শোক ঘোষণা করেছেন।

তিনি বলেন, আমাদের অবশ্যই অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।’ তিনি আরও বলেন, নিরাপত্তা বাহিনী বর্তমানে সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার করতে অভিযান চালাচ্ছে

নিউজ ট্যাগ: পশ্চিম আফ্রিকা

আরও খবর



হেফাজতর সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক গ্রেফতার

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৫ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৫ জুন ২০২১ | ৯১জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঢাকা মহানগর হেফাজতে ইসলামের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আজহারুল ইসলামকে গ্রেফতার করা হয়েছে। যাত্রাবাড়ী থানা এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করেছে মহানগর গোয়েন্দা বিভাগ।

মঙ্গলবার (১৫ জুন) জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) ইফতেখায়রুল ইসলাম।

তিনি বলেন, হেফাজতে ইসলামের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আজহারুল ইসলামকে যাত্রাবাড়ী থানা এলাকা থেকে গ্রেফতার করেছে মহানগর গোয়েন্দা বিভাগ। তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে।


আরও খবর



ঘোষিত বাজেটে প্রবৃদ্ধি অর্জনযোগ্য: জিপেক ওয়েবিনারে বক্তারা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১০ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১০ জুন ২০২১ | ১১১জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
বাংলাদেশে করোনার মধ্যে অর্থনীতি সবল রাখতে বাজেট ঘাটতি ধরা হয়েছে জিডিপির ৬.২%। তবে এ ঘাটতি পূরণ করা সম্ভব। বাংলাদেশকে বৈদেশিক ঋণ দিতে অনেক দেশই আগ্রহী

এবারের বাজেটে কর হ্রাসের মাধ্যমে বিনিয়োগ উৎসাহিতকরণ ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির পদক্ষপে গ্রহণ করা হয়েছে। যা বাস্তবায়ন হলে অর্থনীতিতে আয় বাড়বে। ফলে ভোগ ও চাহিদা বাড়বে, অর্থনীতি সবল হবে এবং কাঙ্ক্ষিত প্রবৃদ্ধি অর্জিত হবে। তাই এ বাজেট প্রবৃদ্ধি অর্জনযোগ্য বাজেট। বৃহস্পতিবার (১০ জুন) বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান গভর্নেন্স পলিসি এক্সপ্লোর সেন্টার (জিপেক) আয়োজিত সদ্য ঘোষিত বাজেট নিয়ে ভার্চুয়াল পর্যালোচনা সভায় আলোচকরা এ অভিমত ব্যাক্ত করেন।

বক্তারা আরও বলেন, কিছু বিষয় বাদ দিলে এ বাজেট অর্থনীতির জন্য সুফল বয়ে আনবে। তবে করোনার অভিঘাতে গ্রামীণ ও শহুরে নতুন দরিদ্রদের সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতাভুক্ত করতে হবে। বাংলাদেশে সঠিকভাবে দরিদ্রের তথ্যভান্ডার বা ডাটাবেজ গড়ে তোলা জরুরী। বাজেটের অর্ন্তবর্তী মূল্যায়ণ ও সঠিক সময়ে এবং সঠিক গুণে ও মানে প্রকল্প সমাপ্তকারীকে পুরস্কার এবং ব্যর্থ হলে শাস্তির ব্যবস্থা করার সুপারিশ করা হয়েছে।

জিপেক বাজেট পর্যালোচনা ২০২১-২২ শীর্ষক ওয়েবিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জিপেক এর সিনিয়র রিসার্চ ফেলো (অনারারি) ও বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. মোরশেদ হোসেন। সভায় স্বাগত বক্তব্য দেন আয়োজক প্রতিষ্ঠান জিপেক এর নির্বাহী পরিচালক ড. মিজানুর রহমান। ওয়েবিনারটি সঞ্চালনা করেন বেসিক ব্যাংকের পরিচালক ও জিপেক চেয়ারপার্সন রাজীব পারভেজ।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের সাবেক অতিরিক্ত সচিব ও জিপেক এর উপদেষ্টা মো. আবদুল কাইয়ুম এর সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ নেন দৈনিক ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত, এফবিসিসিআই এর সহ-সভাপতি আমিন হেলালি, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের ডেপুটি এটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার আবদুল্লাহ মাহমুদ বাশার, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. আবদুর রশিদ সরকার, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের দপ্তর সম্পাদক্ অধ্যাপক ডা. মোহা. শেখ শহীদউল্লাহ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাসন বিভাগের অধ্যাপক ড. জেবউননেছা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্যুরিজম এন্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. সন্তোষ কুমার দেব, ফৌজিয়া হক এফসিএ, টেকওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ এর সম্পাদক নাজনীন নাহার, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাসন বিভাগের সহকারি অধ্যাপক হালিমা হক প্রমুখ।

ওয়েবিনারে উপস্থাপিত প্রবন্ধে বলা হয়, বাংলাদেশে করোনার মধ্যে অর্থনীতি সবল রাখতে বাজেট ঘাটতি ধরা হয়েছে জিডিপির ৬.২%। তবে এ ঘাটতি পূরণ করা সম্ভব। বাংলাদেশকে বৈদেশিক ঋণ দিতে অনেক দেশই আগ্রহী হওয়ায় বাংলাদেশ সহজে বৈদেশিক ঋণ গ্রহন করতে পারবে। আবার বাংলাদেশে অভ্যন্তরীণ উৎস হতে অর্থ প্রাপ্তি সম্ভব। কোভিড-১৯ অতিমারির পরেও স্বাস্থ্যখাতে বরাদ্দ প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সুপারিশ অনুযায়ী স্বাস্থ্যখাতে জিডিপির ৫ শতাংশ ও মোট বাজেটের ১৫ শতাংশ ব্যয় বরাদ্দ করতে হবে। ভূমিহীন ও প্রান্তিক কৃষকদের জন্য শস্য বীমা বা কৃষি বীমা, গবাদি পশু বীমা চালু করতে হবে। সার্বজনীন পেনশন স্কীম (কৃষকদের অন্তর্ভুক্ত করে) চালু করা যেতে পারে। বিনিয়োগবৃদ্ধির মাধ্যমে কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে সারা দেশে চলমান ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের উন্নয়ন কার্যক্রম দ্রুত শেষ করতে হবে। শিল্প প্রতিষ্ঠানের মূলধনী যন্ত্রাংশের উপর আরোপিত ১ শতাংশের অতিরিক্ত সব ধরনের শুল্ক-কর প্রত্যাহার করতে হবে। ই- কমার্স খাতের বিকাশের জন্য কর আরোপের পরিবর্তে প্রণোদনা, প্রযুক্তিগত সহায়তা, কর মওকুফ ও ইন্টারনেট খরচ কমানোর সুপারিশ করা হয়ছে। স্টার্টআপদের জন্য ট্যাক্স হলিডে বাড়াতে হবে। একটি টেকসই স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম গড়ে তুলতে স্টার্টআপ বাংলাদেশ লিমিটেডের মূলধন বৃদ্ধি করা ও সম্ভাবনাময় স্টার্টআপগুলোতে সরকারের বিনিয়োগ বৃদ্ধি করা এবং রেজিস্টার্ড আউটসোর্সারদের জন্য ঋণসুবিধার ব্যবস্থা করা। উন্নয়নে পিছিয়ে থাকা অঞ্চলগুলোর উন্নয়নের জন্য নিয়মিত এডিপির অতিরিক্ত একটি নির্দিষ্ট শতাংশিক হারে গ্রহণযোগ্য এডিপির বরাদ্দ দেয়া প্রয়োজন। বাজেটে অন্যান্য দেশের মতো ইনোভেশন, রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট খাত তৈরি করে বাজেট বরাদ্দ দেয়ার সুপারশি করা হয়েছে।

মোবাইল আর্থিক সেবার উপর কর্পোরেট কর বাড়ানোয় দরিদ্র লোকদের আর্থিক অর্ন্তভুক্তি অনিশ্চিত হবে। দীর্ঘমেয়াদে এ খাতে বিনিয়োগ সংকুচিত হতে পারে। তাই এ খাতে বর্ধিত কর প্রত্যাহার করে ৩০ শতাংশে নামিয়ে আনা প্রয়োজন। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও অন্যান্য বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের উদ্ভুত আয়ের উপর ১৫ শতাংশ কর বসালে তা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের উপর পড়বে। এ কর প্রত্যাহারের সুপারিশ করা হয়েছে। বর্তমানে করোনার সময়ে ব্যবসায়, উৎপাদনে মন্দা, কর্মহীন হয়ে যাওয়া ও জনগণের আয় কমে যাওয়ায় এই আয়সীমা ৪ লক্ষ টাকা করার প্রস্তাব করা হয়ছে।

উপস্থাপিত প্রবন্ধে তৃতীয় লিঙ্গের করদাতাদের করমুক্ত আয়সীমা বাড়ানো, ব্যক্তিশ্রেণির ব্যবসায়িক টার্নওভার ট্যাক্স হ্রাস, বিত্তবানদের সম্পদের উপর সারচার্জ বৃদ্ধি, করনেট সম্প্রসারণে টিআইএন- এর বাধ্যবাধকতা, তরুণ উদ্যোক্তা সৃষ্টির লক্ষে আইটি খাতে ১০ বছরের কর অব্যাহতির সুপারশি করা হয়। নারী উদ্যোক্তাদের ৭০ লক্ষ টাকা টার্নওভার সুবিধা, কৃষিভিত্তিক শিল্প স্থাপনে ১০ বছরের করমুক্ত সুবিধা, স্বাস্থ্যখাতে বেসরকারি বিনিয়োগ, বিদেশী পণ্যের নির্ভরশীলতা কমাতে দেশীয় শিল্পের ভ্যাট ও আগাম অব্যাহতি, কৃষি উপকরণে ও নারী স্বাস্থ্য সংরক্ষণে ভ্যাট অব্যহতি ও দেশীয় চাষীদের প্রতিরক্ষণের কথা বলা হয়েছে যা প্রশংসার দাবিদার।

ওয়েবিনারে আলোচকরা বলেন, একটি বাজেটের দর্শন হলো মূল নিয়ামক। তাই দর্শনকে ভিত্তি বাজেট প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন হওয়া উচিত। বাজেটে অধিক অর্থ বরাদ্দের আবেদনের চেয়ে এর সঠিক ব্যবহারের জোর তদারকি দরকার এখন বেশি। স্বাস্থ্য খাত এর জ্বলন্ত উদাহরণ। তাই আলোচকরা মনে করেন বাজেট বাস্তবায়নে মন্ত্রণালয়গুলোর দক্ষতা বৃদ্ধি বিশেষ প্রয়োজন। বক্তারা অভিমত ব্যক্ত করেন, বর্তমান বাজেটে জনপ্রশাসন খাতে বরাদ্দ অনেক বেশি, যা কমানো যেতে পারে, কৃষিক্ষেত্রে সুদের হার আরো কমানো, সামজিক নিরাপত্তা খাতে বরাদ্দ বাড়ানো, ব্যক্তি করসীমা বাড়ানো, তথ্য প্রযুক্তি খাতে ট্রেনিংকে উৎসাহিত করা, গার্মেন্টস এর মতো অন্য শিল্পকেও গুরুত্বারোপ, ব্যবসা বহুমুখীকরণ, বিচার বিভাগের জন্য পর্যাপ্ত অর্থ বরাদ্দ, বন্ধ হয়ে যাওয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য বিশেষ বরাদ্দ, তৃতীয় লিঙ্গের জন্য পর্যাপ্ত বরাদ্দ বিবেচনায় নেয়ার আহবান জানান।

কালো টাকা সাদা করার প্রসঙ্গে বলা হয়, ঢালাও সুযোগ না দিয়ে হাইটেক পার্ক ও অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগের সুযোগ, জরিমানা আদায় ও টাকার উৎস জানানো সাপেক্ষে নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত বর্ধিত করা যেতে পারে। তবে তা দীর্ঘমেয়াদে কার্যকরী না থাকাই ভালো। এতে সৎ করদাতারা নিরুৎসাহিত হয়।

নিউজ ট্যাগ: জিপেক

আরও খবর