আজঃ সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

টেসলাকে ছাড়িয়ে বিশ্ববাজারে চীনের বিওয়াইডি’র বাজিমাত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৭ ডিসেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৭ ডিসেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

বিদ্যুৎচালিত গাড়ির ক্ষেত্রে বিশ্বে সবচেয়ে পরিচিত নাম টেসলা, তবে তাদের চীনা এক প্রতিদ্বন্দ্বী রয়েছে। এটি বিওয়াইডি বা বিল্ড ইওর ড্রিম। উৎপাদনের প্রান্তিক ভিত্তিতে হিসাব করলে, এটি ইতিমধ্যেই টেসলাকে ছাড়িয়ে গেছে। আর বিশ্বজুড়ে এ ধরনের গাড়ি বিক্রির ক্ষেত্রে তাদের অবস্থান দ্বিতীয়। তবে বিওয়াইডির মূল সাফল্য অন্য জায়গায়এটি দেখাচ্ছে চীনা গাড়িশিল্প কতটা এগিয়েছে।

বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গাড়ি রপ্তানিতে চীন এরই মধ্যে জাপানকে ছাড়িয়ে গেছে। অর্থাৎ এখন বিশ্বের সবচেয়ে বড় গাড়ি রপ্তানিকারক দেশ চীন। বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহৎ অর্থনীতির এই দেশ এখন নানা সমস্যায় জর্জরিত। তবে গাড়িশিল্পই এখন তাদের সবচেয়ে উজ্জ্বল দিক।

তবে অনুজ্জ্বল একটি দিকও আছে, আর তাহলো যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের সঙ্গে বেইজিংয়ের চলমান উত্তেজনা। চীনের বিদ্যুৎচালিত গাড়ি বা ইলেকট্রিক ভেহিকেলের সবচেয়ে বড় বাজার এসব দেশই। তবে বিশ্ব যেহেতু আধুনিক ও পরিবেশসম্মত প্রযুক্তির দিকে যাচ্ছে, তাই এটাও ঠিক যে চীনা পণ্য থেকে সরে যাওয়াও পশ্চিমা দেশগুলোর জন্য খুব সহজ হবে না।

বিওয়াইডির স্বপ্নের বাস্তবায়ন

বিদ্যুৎচালিত গাড়ির বেশির ভাগ এসেছে প্রচলিত কোম্পানির হাত ধরে। তারা আগেই গাড়ি বানাত, পরে ইলেকট্রিক গাড়ি বানাতে শুরু করে। বিওয়াইডির বিষয়টি ভিন্ন। তারা আগে ব্যাটারি বানাত, পরে গাড়ি বানাতে শুরু করে। সুতরাং শুরু থেকেই তাদের একটি সুবিধাজনক অবস্থান ছিল।

কোম্পানির প্রধান নির্বাহী ওয়াং চুয়ানফু ১৯৬৬ সালে চীনের সবচেয়ে গরিব প্রদেশের একটিতে কৃষক পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। কিশোর বয়সে তিনি এতিম হন। তাঁকে বড় করেন এক ভাই ও বোন। আজ তিনি ১ হাজার ৮৭০ কোটি ডলার মূল্যের সম্পদের মালিক। ১৯৯৫ সালে তিনি এক ভাইকে নিয়ে শেনজেনে বিওয়াইডি প্রতিষ্ঠা করেন।

বিওয়াইডি তখন এমন ব্যাটারি বানাত, যা রিচার্জ করা যায়। জাপানো বানানো ব্যাটারির চেয়ে সস্তায় তারা পণ্য দিতেন। ২০০২ সালে এটি শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। এরপর তারা কিনে নেয় ধুকতে থাকা রাষ্ট্রমালিকানার কিনচুয়ান অটোমোবাইল কোম্পানিকে। আর এর মাধ্যমে তারা তাদের ব্যবসা অন্য খাতে সম্প্রসারণ করে।

ইলেকট্রিক ভেহিকেল বা ইভি তখনো একেবারে প্রাথমিক পর্যায়ে, তবে বেইজিংয়ের কর্মকর্তারা সুযোগ খুঁজছিলেন কীভাবে শূন্যস্থান পূরণ করা যায়। ২০০০-এর দশকের গোড়ার দিকে সরকার এ খাতে ভর্তুকি ও কর সুবিধা দেয়। ওই সময়ে নবায়নযোগ্য জ্বালানি উৎপাদনে সরকার অগ্রাধিকার দেওয়া শুরু করে।

বিওয়াইডির জন্য এটা ছিল একবারে মোক্ষম সময়। যে ব্যাটারি তারা তৈরি করছিল, সেই ব্যাটারিই এবার ব্যবহার হবে ইভির জন্য। ২০০৮ সালে মার্কিন বিলিয়নিয়ার বিনিয়োগকারী ওয়ারেন বাফেট বিওয়াইডির ১০ শতাংশ শেয়ার কেনেন। তখন তিনি বলেছিলেন, অবশ্যম্ভাবীভাবে বৈশ্বিক বাজারে ইলেকট্রিক গাড়ি প্রাধান্য বিস্তার করবে এবং একদিন বিওয়াইডি হবে সেই বাজারের সবচেয়ে বড় খেলোয়াড়

তাঁর আন্দাজ একেবারে ঠিকঠাক ছিল। আজ চীন যে বৈদ্যুতিক গাড়ির বাজার নিয়ন্ত্রণ করছে, তার অন্যতম কারণ বিওয়াইডি। বেইজিং এই অবস্থান ধরে রাখতে চায়। গত জুনে তারা ইভি খাতে আগামী ৪ বছরের জন্য ৭ হাজার ২৩০ কোটি ডলারের কর অব্যাহতির প্রস্তাব করেছে। গাড়ির বিক্রি যখন ধীর হয়ে পড়েছিল, তখন এই বিশাল সুবিধা দেওয়া হয়।

বিশ্লেষকেরা বলছেন, বিওয়াইডির এই বেড়ে ওঠার পেছনে সবচেয়ে বড় অবদান তাদের পুরোনো ব্যবসাব্যাটারি তৈরি। বৈদ্যুতিক গাড়ি বানাতে বেশি খরচ হয় ব্যাটারির পেছনেই। তাই কোনো কোম্পানি যদি নিজেরাই তা বানাতে পারে, তাহলে খরচ অনেক বাঁচে। টেসলার মতো প্রতিযোগীরা তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে ব্যাটারি তৈরি করে।

বিওয়াইডির কম দামের গাড়ি বিক্রি হয় ১১ হাজার ডলারে। অন্যদিকে, চীনে টেসলার মডেল ৩ সেডান গাড়ির দামই শুরু হয় ৩৬ হাজার ডলার থেকে। ইভি বাজারের বাইরেও বিওয়াইডি সফল। জার্মানির ফক্সওয়াগন এত দিন ছিল চীনে সবচেয়ে বেশি বিক্রি হওয়া গাড়ি। বিওয়াইডি এ বছরের শুরুতে তাদেরকেও স্থানচ্যুত করেছে।

বিওয়াইডি বনাম টেসলা

ইলন মাস্ককে ২০১১ সালে এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে বিওয়াইডি ও চীনা প্রতিযোগীদের সম্পর্কে প্রশ্ন করা হয়েছিল। চীনাদের বিষয়টি তিনি হেসে উড়িয়ে দিয়েছিলেন। সেই সময় টেসলা ছিল ছোট একটি কোম্পানি, যারা তাদের ভবিষ্যৎ গাড়ি মডেল এস-এর একটি প্রোটোটাইপ বা প্রতিরূপ মাত্র জনসমক্ষে নিয়ে এসেছে।

আজ ইলন মাস্ক সম্ভবত তাঁর সেই জবাবের জন্য অনুতাপ করছেন। টেসলা সেপ্টেম্বরে চীনে তৈরি ৭৪ হাজার ৭৩টি ইভি বিক্রি করেছে। আগের বছরের তুলনায় তা প্রায় ১১ শতাংশ কম। অন্যদিকে, একই সময়ে বিওয়াইডির বিক্রি সংখ্যা ছিল ২ লাখ ৮৬ হাজার ৯০৩। ইভি ও হাইব্রিড মডেলের ক্ষেত্রে এই প্রবৃদ্ধি ৪৩ শতাংশ।

সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো, চীনে ইলেকট্রিক গাড়ির জনপ্রিয়তা যদি কেউ বাড়িয়ে থাকে, সেটি টেসলা। পরিবেশ সংরক্ষণের জন্য দেওয়া সুবিধা দেওয়া হলেও টেসলা না আসা পর্যন্ত চীনে ইভি বিক্রি বাড়েনি। এমনকি এখনো টেসলা একটি জনপ্রিয় ব্র্যান্ড, বিশেষ করে তরুণদের মধ্যে, এ কথা জানিয়েছেন কাউন্টারপয়েন্ট রিসার্চের গাড়িবিষয়ক বিশ্লেষক ইভান ল্যাম।

পৃথিবীতে সবচেয়ে বেশি গাড়ি বিক্রি হয় চীনে। কিন্তু আরও বেশি পরিমাণ ইলেকট্রিক গাড়ি দেশে আনার জন্য তারা নিয়মেও পরিবর্তন আনে। সম্পূর্ণ বিদেশি মালিকানায় গাড়ির কারখানা বা বিক্রয়কেন্দ্র খোলার অনুমতি দেয় বেইজিং। এর আগে কারখানা খুলতে জেনারেল মোটরস কিংবা টয়োটার মতো কোম্পানিকে স্থানীয় অংশীদার খুঁজতে হয়েছে।

নিয়মে পরিবর্তন আসার পরই সুযোগ কাজে লাগায় টেসলা। এমনকি এখনো তারাই চীনে তৈরি বিদ্যুৎচালিত গাড়ির সবচেয়ে বড় রপ্তানিকারক ও চীনে এ ধরনের গাড়ির দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বিক্রেতা। ইলন মাস্ক চীনে আরও অনেক কিছু করতে চান। তবে ওয়াশিংটন ও বেইজিংয়ের মধ্যে বৈরিতা শুরু হওয়ার পর তিনি এখন ভারতের দিকেও দৃষ্টি ফিরিয়েছেন।

ইলন মাস্ক বলেছেন, মানুষের পক্ষে যত দ্রুত সম্ভব, তত দ্রুত। তিনি টেসলাকে ভারতে নিয়ে যেতে চান।

দৌড়ে চীনা ইভি কতটা এগিয়ে

গতানুগতিক গাড়ি নির্মাতাদের জন্য রাস্তা দ্রুত সরু হয়ে যাচ্ছে। জীবাশ্মজ্বালানিনির্ভর এই প্রযুক্তি ২০৩০ সালে বড় পরিবর্তনের ভেতর দিয়ে যাবে। জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় যেসব সুবিধা দেওয়া হচ্ছে, সেসব কারণেই বৈদ্যুতিক গাড়ির ব্যবহার বাড়ছে, তবে ইউরোপ ও ব্রিটেনের গাড়ি নির্মাতারা প্রতিযোগিতা করে পারছে না। চীনের ব্যাপারে যেভাবে ইউরোপীয় দেশগুলো সতর্ক হয়ে উঠছে, তাতে এসব দেশে চীনা গাড়ি আমদানি করা কঠিন করতে আরও বেশি নিয়ন্ত্রণমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে।

ইউরোপীয় কমিশন চীন থেকে আমদানি করা সস্তার গাড়ি নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে। এই তদন্তের উদ্দেশ্য হলো, এটা দেখা যে স্থানীয় বৈদ্যুতিক গাড়ি উৎপাদকদের সুরক্ষা দিতে চীনা গাড়িতে শুল্ক বাড়ানো দরকার কি না। ইউরোপীয় কমিশন মনে করে, বেইজিংয়ের দেওয়া ভর্তুকির কারণে চীনা গাড়ি বিশেষ সুবিধা পাচ্ছে।

কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ফন ডার লেয়েন বলেছেন, চীনের অন্যায্য বাণিজ্য রীতি থেকে ইউরোপের সৌরবিদ্যুৎশিল্প কীভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, তা ইউরোপীয় ইউনিয়ন ভুলে যায়নি, তবে বাস্তবতা ভিন্ন। জার্মানির মতো দেশ উঁচু মূল্যস্ফীতি ও জ্বালানি খরচের কারণে সমস্যায় রয়েছে। সে কারণে বিওয়াইডির সাশ্রয়ী ও পরিবেশবান্ধব গাড়ি সেখানে ব্যাপক সংখ্যায় বিক্রি হচ্ছে। মার্সিডিস-বেঞ্জ, বিএমডব্লিউ আর ফক্সওয়াগনের দেশটি বিদ্যুৎচালিত গাড়ির বৈশ্বিক চাহিদা পূরণ করতে হিমশিম খাচ্ছে। সে কারণে সেপ্টেম্বরের মিউনিখ গাড়ির প্রদর্শনীতে চীনা ইভি ছিল আলোচনার কেন্দ্রে।

অটোমবিলিটির প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী বিল রুসো বলেন, চাহিদার বিষয়টি বিশ্বের সব জায়গায় নির্ভর করে সামর্থ্যের ওপর। এটা সর্বজনীন ব্যাপার। তাঁর মতে, পৃথিবীর একটি দেশই দুনিয়াকে এই সুবিধা দিতে পারে, সেই দেশটি হলো চীন।


আরও খবর
২৪ দিনে প্রবাসী আয় ১৮ হাজার কোটি টাকা

রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




দেশের তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি পর্যন্ত উঠতে পারে

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

তীব্র শীতের পর এখন সারা দেশে মিশ্র আবহাওয়া পরিস্থিতি বিরাজ করছে। তবে সামনে আসছে অসহনীয় গরম। আগামী তিন মাসের আবহাওয়া পরিস্থিতি নিয়ে দেওয়া আগাম বার্তায় এমনটাই পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। এতে বলা হয়েছে, শিলাবৃষ্টি, কালবৈশাখী ঝড়, মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ এবং বঙ্গোপসাগরের লঘুচাপ থেকে ঘূর্ণিঝড়ের আশঙ্কার বার্তা দিয়েছে সংস্থাটি।

আগামী তিন মাসের আবহাওয়া পূর্বাভাসে অধিদপ্তরের পরিচালক মো. আজিজুর রহমান এ তথ্য জানান।

সংস্থাটি জানায়, গত জানুয়ারি মাসে সার্বিকভাবে সারা দেশে স্বাভাবিক অপেক্ষা কম (১৫.৮%) বৃষ্টিপাত হয়েছে। তবে খুলনা বিভাগে স্বাভাবিক অপেক্ষা বেশি এবং ঢাকা, ময়মনসিংহ, সিলেট, রংপুর, রাজশাহী, চট্টগ্রাম ও বরিশাল বিভাগে স্বাভাবিক অপেক্ষা কম বৃষ্টিপাত হয়েছে।

পশ্চিমা লঘুচাপের সঙ্গে পূবালী বায়ুপ্রবাহের সংযোগ ঘটায় ১৭ থেকে ১৯, ২০ থেকে ২৫ ও ৩০ থেকে ৩১ জানুয়ারি ঢাকা, চট্টগ্রাম, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের অনেক স্থানে হালকা থেকে মাঝারি ধরনের ভারী বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়। এ সময় জানুয়ারি মাসে সাতক্ষীরায় সর্বোচ্চ ৩৪ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়।

এছাড়া উপ-মহাদেশীয় উচ্চচাপ বলয়ের বর্ধিতাংশ বাংলাদেশের পশ্চিমাঞ্চল পর্যন্ত বিস্তার লাভ করায় ২ থেকে ৫, ১২ থেকে ১৫, ১৭ থেকে ১৮ ও ২০ থেকে ৩০ জানুয়ারি দেশের অনেক স্থানে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্য প্রবাহ বয়ে যায়। এ সময় গত ২৮ জানুয়ারি দেশের সর্বনিম্ন ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা তেঁতুলিয়ায় রেকর্ড করা হয়। এ মাসে মধ্যরাত থেকে দুপুর পর্যন্ত দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল, উত্তরাঞ্চল, মধ্যাঞ্চল, উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও নদী অববাহিকায় মাঝারি থেকে ঘন এবং অন্যত্র হালকা থেকে মাঝারি কুয়াশা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।

এ মাসে দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা স্বাভাবিক অপেক্ষা ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস কম ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা স্বাভাবিক ছিল এবং গড় তাপমাত্রা ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস কম ছিল। শৈত্য প্রবাহ, কৃষি আবহাওয়া এবং দেশের নদ-নদীর অবস্থা জানুয়ারি মাসের পূর্বাভাসের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ ছিল।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, আগামী তিন মাসে সামগ্রিকভাবে দেশে স্বাভাবিক বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে। বঙ্গোপসাগরে ২ থেকে ৩টি লঘুচাপ সৃষ্টি হতে পারে। যার মধ্যে একটি নিম্নচাপ ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে পারে। তবে আগামী তিন মাসে দিন ও রাতের তাপমাত্রা স্বাভাবিক থাকতে পারে। এছাড়া আগামী তিন মাসের মধ্যে দেশের পশ্চিম, উত্তর, উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল, উত্তরাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে ৪ থেকে ৮ দিন বজ্র ও শিলাবৃষ্টিসহ হালকা অথবা মাঝারি ধরনের কালবৈশাখী ঝড় হতে পারে।

এর বাইরেও এই সময়ের মধ্যে দেশে ৩ থেকে ৫টি মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আগামী তিন মাসের মধ্যে মৃদু তাপপ্রবাহ অর্থাৎ দেশের তাপমাত্রা ৩৬ থেকে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস হতে পারে। সেই সঙ্গে মাঝারি ধরনের অর্থাৎ ৩৮ থেকে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে প্রবাহ বয়ে য়েতে পারে বলেও জানায় আবহাওয়া অধিদপ্তর।


আরও খবর
সারা দেশে কমতে পারে রাতের তাপমাত্রা

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




মানবতাবিরোধী অপরাধ: নকলার ৩ জনের আমৃত্যু কারাদণ্ড

প্রকাশিত:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আদালত প্রতিবেদক

Image

একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় শেরপুরের নকলার আকরামসহ ৩ আসামির আমৃত্যু কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। সোমবার চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল এ রায় দেন।

কারাগারে থাকা তিন আসামি হলেন- আমিনুজ্জামান ফারুক, মোখলেসুর রহমান ও এ কে এম আকরাম হোসেন। আসামিদের বিরুদ্ধে হত্যা, নির্যাতন, অগ্নিসংযোগের চারটি অভিযোগের ওপর শুনানি হয়। তাদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষে ১৩ জন সাক্ষী সাক্ষ্য দেন। এর আগে ২৪ জানুয়ারি উভয়পক্ষের শুনানি শেষে মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমান (সিএভি) রেখেছিলেন ট্রাইব্যুনাল। পরে গতকাল রায়ের জন্য আজকের দিন নির্ধারণ করেন আদালত। 

আরও পড়ুন>> ‘সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ-মাদকের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করতে চাই’

নকলার চার রাজাকারের বিরুদ্ধে একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ তদন্ত করে ২০১৭ সালের ২৬ জুলাই প্রতিবেদন দাখিল করে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থা। একই বছরের ৩১ অক্টোবর ট্রাইব্যুনালে ফরমাল চার্জ দাখিল করা হয়।

২০১৮ সালের ৩০ আগস্ট আসামিদের বিরুদ্ধে চারটি অভিযোগে চার্জ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। চারজনের মধ্যে বিচার চলাকালে মারা যায় আসামি এমদাদুল হক খাজা।


আরও খবর



স্বরূপকাঠিতে ৪টি চোরাই ট্রলারসহ চোর চক্রের একজন গ্রেফতার

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
হযরত আলী হিরু, স্বরূপকাঠি

Image

পিরোজপুরের স্বরূপকাঠিতে চারটি চোরাই ট্রলারসহ চোর চক্রের একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতার সাইদুল রহমান (৪৫) উপজেলার সোহাগদল ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের আ. রশিদ বেপারীর ছেলে। উদ্ধার হওয়া ট্রলার চারটির আনুমানিক মূল্য তের লক্ষ টাকা বলে জানায় পুলিশ।

নেছারাবাদ থানায় নিয়মিত মামলা দায়ের শেষে বুধবার দুপুরে গ্রেফতারকৃত সাইদুলকে পিরোজপুর আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চোরাই ট্রলার বেচাকেনার খবর পেয়ে মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে পাটিকেলবাড়ি পুলিশ ফাঁড়ির এসআই ওয়ালিদ হোসেনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ উপজেলা দৈহারী ইউনিয়নের গনকপাড়া এলাকার রঙ্গলাল সুতারের বাড়ি সংলগ্ন ষ্টিল ব্রিজের কাছে অভিযান চালায়। এসময় পুলিশের উপস্থিতিটের পেয়ে অন্য আসামীরা পালিয়ে গেলেও ওই চোরচক্রের সদস্য সোহাগদল ইউনিয়নের সাইদুল রহমানকে আটক করে পুলিশ। এসময় পুলিশ চোরদের বিক্রির উদ্দেশ্যে আনা হানিফ ঘরামী নামের একটি স্টিলবডি ট্রলার জব্দ করে থানায় নিয়ে আসে। যার আনুমানিক মূল্য তিন লক্ষ টাকা। পরে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে আটক সাইদুল জানায় পাশ্ববর্তী বানারীপাড়া উপজেলার দান্ডয়াট গ্রামের আশ্রাব আলী সরদারের ছেলে আইউব সরদার (৩০) এ চক্রের মূল হোতা। এছাড়াও সাইদুলের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে পুলিশ সাইদুলের বাড়ির খাল থেকে চোরাইকৃত আল্লাহ ভরশা, সেতু প্লাস ও মার্জিয়া প্লাস নামের আরও তিনটি স্টিলবড়ি ট্রলার জব্দ করে থানায় নিয়ে আসে।

পরে পুলিশ বাদী হয়ে গ্রেফতার সাইদুল রহমান ও পালাতক আইউব সরদারকে আসামী করে নেছারাবাদ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

নেছারাবাদ থানার ওসি (তদন্ত) এইচ এম শাহিন বলেন, আসামীরা সংঘবদ্ধ চোরচক্রের সদস্য, তারা দীর্ঘদিন বিভিন্ন এলাকা থেকে ট্রলার চুরি করে বিক্রি করে আসছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতার আসামীর কাছ থেকে তাদের অন্য এক সহযোগীর নাম পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে আরও তথ্য সংগ্রহের জন্য আসামীর বিরুদ্ধে বিজ্ঞ আদালতে রিমান্ডের আবেদন করবে পুলিশ।


আরও খবর
ঝিনাইদহ জেলা কারাগারে কয়েদির মৃত্যু

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




এসএসসির প্রশ্ন ফাঁস রোধে কোচিং সেন্টার এক মাস বন্ধ

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৮ জানুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হতে যাওয়া এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা সুষ্ঠু, নকলমুক্ত, প্রশ্নফাঁসের গুজবমুক্ত ও ইতিবাচক পরিবেশে সম্পন্নের লক্ষ্যে গঠিত জাতীয় মনিটরিং এবং আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা হয়েছে। সভায় পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস রোধে কোচিং সেন্টারগুলো এক মাস বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

রবিবার (২৮ জানুয়ারি) বিকালে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে শিক্ষামন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভা শেষে এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পরীক্ষা সুষ্ঠু, সুন্দর ও প্রশ্ন ফাঁসের গুজবমুক্ত পরিবেশে রক্ষায় আগামী ১৩ ফেব্রুয়ারি থেকে ১২ মার্চ পর্যন্ত দেশের সব কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে। কেন্দ্র সচিব ব্যতীত পরীক্ষা কেন্দ্রে অন্য কেউ মোবাইল ফোন বা অননুমোদিত ইলেকট্রনিক ডিভাইস ব্যবহার করতে পারবেন না।

এসএসসি ও সমমান-২০২৪ সালের পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে ২০ লাখ ২৪ হাজার ১৯২ জন শিক্ষার্থী। সাধারণ ৯টি শিক্ষা বোর্ড, মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড এবং কারিগরি শিক্ষা বোর্ড নিয়ে ১১টি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে সারা দেশ থেকে পরীক্ষার্থীরা এই পরীক্ষায় অংশ নেবে। এ বছর এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা শুরু হবে আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি।

উল্লেখ্য, সারা দেশের ২৯ হাজার ৭৩৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে তিন হাজার ৭০০টি কেন্দ্রে এসএসসি, দাখিল, এসএসসি ভোকেশনাল ও দাখিল ভোকেশনাল পরীক্ষার্থী অনুষ্ঠিত হবে।


আরও খবর



রমজানে পুলিশের ম্যাজিস্ট্রেট দিয়ে বাজার মনিটরিং হবে: ডিএমপি কমিশনার

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

আসন্ন রমজানে নিত্যপণ্যের দাম স্বাভাবিক রাখতে ডিএমপি নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের মাধ্যমে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে বাজার মনিটরিং করবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার হাবিবুর রহমান।

রোববার (১৮ ফেব্রুয়ারি) ডিএমপি হেডকোয়ার্টার্সে রমনা বিভাগের আইনশৃঙ্খলা সমন্বয় কমিটির (এলওসিসি) সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, আসন্ন রমজান সামনে রেখে কিছু সুযোগ সন্ধানী লোক গুজব ছড়িয়ে দ্রব্যমূল্যের দাম বৃদ্ধি করার চেষ্টা করবে। কেউ যেন এ ধরনের কাজ করতে না পারে সেজন্য সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। রমজানে ভোক্তা অধিদপ্তরের পাশাপাশি ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশও নিত্যপণ্যের দাম স্বাভাবিক রাখতে ম্যাজিস্ট্রেটের মাধ্যমে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে বাজার মনিটরিং করবে।

সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে ডিএমপি কমিশনার বলেন, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ জনগণকে সঙ্গে নিয়ে কাজ করবে। জনগণের জন্য কাজ করে প্রমাণ করতে চাই পুলিশই জনতা, জনতাই পুলিশ।

সভায় উপস্থিত বিভিন্ন স্টেকহোল্ডার তাদের গুরুত্বপূর্ণ মতামত বক্তব্যের মাধ্যমে ডিএমপি কমিশনারের কাছে উপস্থাপন করেন।

সভার সভাপতিত্ব করেন ডিএমপির রমনা বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (অতিরিক্ত ডিআইজি পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত) মুহাম্মদ আশরাফ হোসেন৷

সভায় উপস্থিত ছিলেন ডিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (অ্যাডমিন) এ কে এম হাফিজ আক্তার, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) মো. মুনিবুর রহমান, যুগ্ম পুলিশ কমিশনার, উপ-পুলিশ কমিশনার ও বিভিন্ন পদমর্যাদার পুলিশ কর্মকর্তারা।


আরও খবর