আজঃ শনিবার ২৩ অক্টোবর ২০২১
শিরোনাম

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের থিম সং প্রকাশ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৫৭৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ভারতে অনুষ্ঠিত হবার কথা ছিল এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। তবে কোভিড জটিলতায় ভেন্যু বদলে আরব আমিরাতে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ৭ম আসর।

আগামী ১৭ অক্টোবর থেকে শুরু হবে ১৬ দলের বিশ্বকাপ আসর। এরজন্য থিম সং প্রকাশ করেছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট সংস্থা আইসিসি। আইসিসির ওয়েবসাইট ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোতে বৃহস্পতিবার একযোগে প্রকাশ করা হয় লাইভ দ্য গেম নামের টিটোয়েন্টি বিশ্বকাপের থিম সংটি।

লাইভ দ্য গেম গানটি কম্পোজ করেছেন ভারতের অমিত ত্রিবেদী। ১ মিনিট ৩০ সেলেন্ডের গানটির পুরোটাই এনিমেশনে তৈরি। মাঝে মাঝে কয়েক সেকেন্ড মানুষের উপস্থিতি দেখা যায়।

এমিনেশন এই গানটিতে রয়েছেন ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি, ওয়েস্ট ইন্ডিজের অধিনায়ক কাইরন পোলার্ড, আফগানিস্তানের স্পিনার রশিদ খান ও অস্ট্রেলিয়ার অলরাউন্ডার গ্লেম ম্যাক্সওয়েলের এনিমেটেড চিত্র।


আরও খবর



ডেঙ্গু আক্রান্ত আরও ১৮৯ জন হাসপাতালে ভর্তি

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৪৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে আরও ১৮৯ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকার বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ১৬৪ জন এবং ঢাকার বাইরের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ২৫ জন।

আজ শুক্রবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের নিয়মিত ডেঙ্গুবিষয়ক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে নতুন ১৮৯ জন ভর্তি হয়েছে। এ নিয়ে বর্তমানে দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে সর্বমোট ভর্তি থাকা রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৪৮ জন।

এর মধ্যে ঢাকার ৪৫টি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি আছে ৮২৭ জন এবং অন্যান্য বিভাগের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি আছে ২২১ জন।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, গত ১ জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ১৬ হাজার ৮৯৪ জন। তাদের মধ্যে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছে ১৫ হাজার ৭৮৭ জন রোগী। ডেঙ্গুতে এ সময়ে ৫৯ জনের মৃত্যু হয়েছে।


আরও খবর
২৪ ঘণ্টায় করোনায় ৪ জনের মৃত‌্যু

শুক্রবার ২২ অক্টোবর ২০২১

ডেঙ্গু: আরও ১২৩ জন হাসপাতালে

শুক্রবার ২২ অক্টোবর ২০২১




পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল পেলেন তিন বিজ্ঞানী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৫ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৫ অক্টোবর ২০২১ | ৪৫৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল পেয়েছেন সাইকুরো মানাবে, ক্লাউস হাসেলম্যান এবং জর্জিও পারিসি। মঙ্গলবার নোবেল কমিটি বিকাল ৩টা ৪৫ মিনিটের পর ২০২১-এ বিজয়ী হিসেবে তাদের নাম ঘোষণা করে।

সাইকুরো মানাবে ১৯৩১ সালের ২১ সেপ্টেম্বর জাপানে, ক্লাউস হাসেলম্যান ১৯৩১ সালের ২৫ অক্টোবর জার্মানির হামবুর্গে ও জর্জিও প্যারিস ১৯৪৮ সালের ৪ আগস্ট ইতালি রোমে জন্ম নেন।

পৃথিবীর জলবায়ু পরিস্থিতির ফিজিক্যাল বা ভৌত মডেল তৈরি, পরবর্তনশীলতা পরিমাপ এবং বৈশ্বিক উষ্ণতার বিষয়টি নির্ভরযোগ্যভাবে অনুমানের জন্য পুরষ্কার পেয়েছেন সাইকুরো মানাবে মানাবে এবং ক্লাউস ক্লাউস হাসেলম্যান। তারা দুজনে এ বছরের নোবেল পুরষ্কারের অর্ধেক পেয়েছেন।

নোবেল পুরষ্কারের বাকি অর্ধেক জর্জিও পারিসি পেয়েছেন পারমাণবিক ও গ্রহীয় পরিসরে ভৌত ব্যবস্থা বা ফিজিক্যাল সিস্টেমের বিশৃঙখলা ও ফ্লাকচুয়েশন পরষ্পরের ওপর কী প্রভাব ফেলে তা আবিষ্কারের জন্য।

১৮৯৫ সালে সুইডেনের বিজ্ঞানী আলফ্রেড নোবেল যে পাঁচটি ক্ষেত্রে পুরস্কার প্রদানের ব্যাপারে দলিলে উল্লেখ করে গিয়েছিলেন তার মধ্যে এটি অন্যতম। ১৯০১ সাল থেকে নিয়মিত এ পুরস্কারটি দেওয়া হচ্ছে।


আরও খবর



আন্তর্জাতিক ফ্লাইট ‍শুরু করতে চায় তালেবান

প্রকাশিত:রবিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৫২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আফগানিস্তানের তালেবান সরকার দেশটিতে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট শুরু করার আহ্বান জানিয়েছে। এয়ার লাইনসগুলোকে তারা সর্বাত্মক সহায়তা করতে প্রস্তুত বলেও অঙ্গীকার করেছে গোষ্ঠীটি। খবর রয়টার্সের।

খবরে বলা হয়েছে, অন্তর্বর্তী সরকার গঠন করার পর তালেবান দেশের অর্থনীতিসহ সব কিছু সচল করার উদ্যোগ নিয়েছে। এ ছাড়া তারা আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি অর্জনেরও চেষ্টা করছে।

রোববার তালেবান সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়, কাবুল বিমানবন্দরের সমস্যা সমাধান করা হয়েছে।

১৫ আগস্ট তালেবান কাবুল নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর রাজধানীতে অবস্থিত হামিদ কারজাই বিমানবন্দর থেকে আন্তর্জাতিক ও বাণিজ্যিক ফ্লাইট স্থগিত করা হয়।

এরপর গত ৩ সেপ্টেম্বর কাতার ও তুরস্কের সহায়তায় আফগানিস্তানে অভ্যন্তরীণ বিমান চলাচলের ঘোষণা দেয় রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন আরিয়ানা আফগান এয়ারলাইনস।

আফগানিস্তানে বর্তমান স্বল্প সংখ্যক আন্তর্জাতিক ফ্লাইট যাত্রী ও খাদ্যসহ অন্যান্য সহযোগিতা সামগ্রী বহন করছে। কিন্তু স্বাভাবিক বাণিজ্যিক ফ্লাইট এখনও শুরু হয়নি।

তালেবান সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আব্দুল কাহার বালখি বলেন, আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালু না থাকার কারণে আফগানিস্তানে বহু নাগরিক বিদেশে আটকা পড়েছে। তা ছাড়া মানুষজন পড়ালেখা ও চাকরির জন্যও বিদেশে যেতে পারছে না।

আব্দুল কাহার বালখি বলেন, কাবুল বিমানবন্দর এখন অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইটের জন্য পূর্ণ প্রস্তুত। সব এয়ারলাইনসকে ইসলামিক আমিরাত অব আফগানিস্তান সহায়তা করতে প্রস্তুত।


আরও খবর



অবশেষে কারামুক্ত হলেন ঝুমন দাশ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৬৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে (ডিএসএ) দায়ের করা মামলায় ৬ মাসেরও বেশি সময় ধরে কারাভোগের পর মুক্তি পেয়েছেন ঝুমন দাশ।

মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় সুনামগঞ্জ কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি পান ঝুমন দাশ। গত বৃহস্পতিবার হাইকোর্ট থেকে জামিনের আদেশ দেওয়া হয়।

আজ মঙ্গলবার বিকেলে সুনামগঞ্জ আদালতে জামিনের আদেশ আসে। এরপর সুনামগঞ্জ অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে জামিননামা দাখিল করলে আদালত জামিনে মুক্তির আদেশের কাগজ কারাগারে পাঠানো হয়। সন্ধ্যায় ঝুমন দাশের জামিনের আদেশ কারাগারে পৌঁছালে কারাগার থেকে মুক্তি পান।

এ সময় কারাগার থেকে বেরিয়ে সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন ঝুমন দাশ।

প্রসঙ্গত, গত ১৬ মার্চ শাল্লার নোয়াগাঁও গ্রামের ঝুমন দাশের ফেসবুক আইডি থেকে মামুনুল হকের সমালোচনা করে স্ট্যাটাস দেন। এর প্রতিক্রিয়ায় হেফাজত ইসলামের সমর্থকরা ১৭ মার্চ হিন্দু অধ্যুষিত নোয়াগাঁও গ্রামের ৮৮ বাড়িতে হামলা, লুটপাট ও ভাংচুর করে। গ্রামের ৫ টি মন্দিরও ভাংচুর করা হয়। তথ্যপ্রযুক্তি মামলায় ১৬ মার্চ ঝুমন দাশকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এ ঘটনায় তিনটি মামলা দায়ের হয়। মামলাগুলো তদন্ত করছে গোয়েন্দা পুলিশ। তিনটি মামলায় গ্রেপ্তার ও আদালতে স্বেচ্ছায় হাজির হওয়াসহ ১১৩জন আইনের আওতায় এসেছেন।

হামলা, লুটপাট ও ভাংচুরের মামলার প্রধান আসামি ইউপি সদস্য শহীদুল ইসলাম স্বাধীন মিয়াসহ অধিকাংশ আসামি আদালত থেকে জামিন পেয়েছেন। এর আগে, বিভিন্ন সংগঠন ঝুমন দাশের মুক্তি চেয়ে আন্দোলন করেন।


আরও খবর



সরকার কোনো চাপের কাছে নতি স্বীকার করবে না : তথ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত:রবিবার ০৩ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ অক্টোবর ২০২১ | ৪৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিদেশি চ্যানেলের বিজ্ঞাপনমুক্ত সম্প্রচার বা ক্লিন ফিড বাস্তবায়নে সরকার কোনো চাপের কাছে নতি স্বীকার করবে না। একই সঙ্গে কেব্‌ল অপারেটরেরা যদি আলোচনা করতে চায়, সে ক্ষেত্রে আইন মানা এবং দেশের স্বার্থ সংরক্ষণের ভিত্তিতে আলোচনা হতে পারে বলেও জানান তিনি।

সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে আজ রোববার এ কথা বলেন তথ্যমন্ত্রী।

তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বলেন, বিবিসি, সিএনএন, আল জাজিরা, ফ্রান্স টিভি, রাশান টিভি, ইউরো টিভি, এনিমেল্ট প্ল্যান্টেটসহ ১৭টি চ্যানেল বাংলাদেশে ক্লিনফিডে আসে। সেগুলো অপারেটরেরা চালাচ্ছেন না। তাঁরা কেব্‌ল অপারেটর লাইসেন্সের শর্ত ভঙ্গ করছেন। কেউ শর্ত ভঙ্গ করলে অপরাধে অভিযুক্ত হবেন।

তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, যেসব চ্যানেল ক্লিনফিড পাঠায় না, তাদের এজেন্ট আছে। এই দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট চ্যানেল ও এজেন্টের। এটি কেব্‌ল অপারেটরদের দায়িত্ব নয়। কিন্তু, কোনো কোনো কেব্‌ল অপারেটর এজেন্টেদের পাশ কাটিয়ে তারা সরাসরি স্যাটেলাইট থেকে পাইরেসি করে ডাউনলিঙ্ক করে। সেটি কিন্তু তারা করতে পারেন না। এটি আইন বহির্ভুত। আমরা তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেব।

তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী আরও বলেন, ৪ অক্টোবরের পর আন্দোলনের হুমকি দিয়েছে কোয়াব। তাদের এ ধরনের আন্দোলনের কথা বলা অযৌক্তিক। যেসব চ্যানেল দেশের আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করছে, সংস্কৃতিকে চোখ রাঙাচ্ছে, সেগুলো পক্ষে ওকালতি করা দেশের স্বার্থ ও আইনবিরোধী। আমি আশা করব, দেশের স্বার্থবিরোধী কার্যক্রমে লিপ্ত হবেন না। সরকার কোনো চাপের কাছে নতি স্বীকার করবে না। সরকার দেশের স্বার্থ ঊর্ধ্বে তুলে ধরার জন্য, আইন বাস্তবায়ন করার জন্য বদ্ধ পরিকর।

এক প্রশ্নের জবাবে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ  বলেন, আমরা কোনো চ্যানেল বন্ধ করিনি, বন্ধ করার জন্যও বলিনি। বাংলাদেশের আকাশ উন্মুক্ত। এখানে যেকোনো চ্যানেল সম্প্রচার করতে পারে, কিন্তু, দেশের আইন মেনে করতে হয়। আইন অনুযায়ী, বাংলাদেশে যেকোনো বিদেশি চ্যানেল বিজ্ঞাপনমুক্তভাবে সম্প্রচার করতে হয়। সব দেশে আইন মেনে চ্যানেলগুলো সম্প্রচার করে। শুধু আমাদের দেশে আইনকে বছরের পর বছর ধরে বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদশর্ন করা হচ্ছিল। আমরা আইন বাস্তবায়নের কথা দুই বছর আগে সংশ্লিষ্ট সবাইকে বলেছিলাম। বেশ কয়েক বার তাগাদা দেওয়া হয়েছে, নোটিশ দেওয়া হয়েছে।’

তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী আরও বলেন, তারা (কেব্‌ল অপারেটরেরা) যদি আলোচনা করতে চায়, আলোচনা হতেই পারে। তারা আমাদের সহযোগী, আলোচনা হতেই পারে। তবে, আলোচনার ভিত্তি হবে আইন মানা, দেশের স্বার্থ সংরক্ষণ।

তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, দেশের স্বার্থ জলাঞ্জলি দিয়ে, দেশের আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করে, দেশীয় মিডিয়ার স্বার্থকে জলাঞ্জলি দিয়ে আজকে আমরা যখন এই পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি, দেশের সব মিডিয়া এটিকে অভিনন্দন জানিয়েছে। আমরা এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছি দেশের স্বার্থে, দেশের জনগণের স্বার্থে, দেশের মিডিয়া ইন্ড্রাস্ট্রি, সাংবাদিক ও মিডিয়ার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট শিল্পী ও কলাকুশলীদের স্বার্থে। দেশের আইনকে যারা বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করে এবং সংশ্লিষ্ট স্বার্থকে জলাঞ্জলি দিয়ে কথা বলে, তারা তো দেশের পক্ষে কথা বলে না।’

‘সরকার কয়েকশ কোটি টাকার রাজস্ব হারায়। এই বিনিয়োগ বঞ্চিত হওয়ার কারণে মিডিয়া থেকে অনেকে ছাঁটাই হচ্ছেন। যখন এই বিনিয়োগটা দেশি মিডিয়ায় হবে, তখন মিডিয়া থেকে ছাঁটাই হওয়াটা বন্ধ হয়ে যাবে, বা সে অজুহাতে ছাঁটাই করা যাবে না। এভাবে পুরো দেশ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে’, যোগ করেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।


আরও খবর