আজঃ বৃহস্পতিবার ১৩ মে ২০২১
শিরোনাম

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সেবাকে জরুরি সেবা হিসেবে চান উদ্যোক্তরা

প্রকাশিত:শনিবার ১০ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১০ এপ্রিল ২০২১ | ১৪১জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) এবং আউটসোর্সিং সেবাসহ সফটওয়্যার ও সফটওয়্যার পরিষেবাকে (আইটিইএস) জরুরি সেবাখাতে অন্তর্ভুক্তি করার দাবি জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট উদ্যোক্তা-ব্যবসায়ী ও কর্মীরা। 

বর্তমান সময়ের লাইফলাইন এই খাতকে জরুরি সেবার আওতায় না এনে এটিকে বন্ধ করে রাখলে ভোগান্তিতে পড়বে সাধারণ জনগণ। দেশ হারাবে আন্তর্জাতিক বাজার, এমনটাই বলছেন খাত সংশ্লিষ্টরা।

দেশের সফটওয়্যার ও আইসিটি খাতের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন বেসিসের সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবীর বলেন, গত বছরের লকডাউনের সময় থেকে এখন পর্যন্ত দেখেন আইসিটি খাত কী অবদান রাখছে। আমরা বিভিন্ন সভা-সেমিনারে সেগুলো বলছিও। তাহলে যে লাইফলাইন এর ওপর পুরো দেশ-অর্থনীতি সচল হয়ে আছে সেটিকে জরুরি সেবার অন্তর্ভুক্ত হবে না কেন? আমরা এটিকে জরুরি সেবার আওতাভুক্ত করার দাবি জানাচ্ছি।

আইটি-আইসিটি খাতকে জরুরি সেবার অন্তর্ভুক্ত না করার ক্ষতিকর দিক কী এমন প্রশ্নের জবাবে আলমাস বলেন, এখন দেখেন সবকিছু প্রযুক্তি নির্ভর হচ্ছে। সবকিছুই প্রায় সফটওয়্যারে চলছে। এই সফটওয়্যারকে সচল রাখতে ব্যাক অ্যান্ড সাপোর্ট দিতে হয়। ধরেন একটা হাসপাতাল এখন পুরোপুরি সফটওয়্যার কেন্দ্রিক। সেই সফটওয়্যারকে সাপোর্ট দিতে হয়। এখন যদি এই খাত জরুরি সেবার আওতাভুক্ত না হয় তখন এই কাজগুলো বন্ধ হয়ে যাবে। এতে করে সাধারণ মানুষই সব থেকে ভোগান্তিতে পড়বে। এই খাতের সঙ্গে যারা সংশ্লিষ্ট তাদের সহজ চলাচল নিশ্চিত করতে হবে।

ফ্রিল্যান্সিং এবং আউটসোর্সিং খাতের গুরুত্ব তুলে ধরে আলমাস বলেন, ইউরোপ-আমেরিকা কিন্তু তাদের ব্যবসায়িক কার্যক্রম খুলে দিয়েছে। এদের আউটসোর্সিং কাজের বড় অংশ হয় বাংলাদেশ থেকে। আউটসোর্সিং প্রতিষ্ঠানগুলো কলসেন্টার, সিকিউরিটি সেটআপ তৈরি করে রেখেছে যেখানে একসাথে কর্মীরা সমন্বিতভাবে তাদের গ্রাহকদের জন্য কাজ করেন। এখন যদি আমাদের দেশে এই সেবা বন্ধ থাকে, কর্মীরা যদি অফিসে আসতে না পারে তাহলে আমরা আন্তর্জাতিক এই গ্রাহকদের হারাবো। কারণ আমরা বন্ধ থাকলেও ভিয়েতনামের মতো দেশ কিন্তু বন্ধ নেই। গ্রাহকেরা সেখানে চলে যাবে। ফলে বিদেশে আমাদের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হবে এবং আমরা আন্তর্জাতিক বাজার হারাবো।

বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব কল সেন্টার অ্যান্ড আউটসোর্সিংয়ের (বাক্য) সাধারণ সম্পাদক তৌহিদ হোসেন বলেন, আমরা যারা কল সেন্টারে আছি তারা বিটিআরটর (বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন) কাছ থেকে একটি চিঠি পেয়েছি। এই চিঠিতে আমরা এবং মোবাইল অপারেটরসহ এই খাতের সবাইকে একসঙ্গে একটি অস্থায়ী অনুমতি দেওয়া হয়েছে আমাদের কার্যক্রম অব্যাহত রাখার ও কর্মীদের চলাচলের জন্য। কিন্তু এটা সাময়িক এবং অস্থায়ী একটা বিষয়। আমরা এই খাতকে স্থায়ীভাবে জরুরি সেবার আওতাভুক্ত করার দাবি জানাচ্ছি।

তৌহিদ হোসেন আরও বলেন, মনে করেন একজন বেসিস বা বাক্যের সদস্য না কিন্তু তিনি এই খাতের উদ্যোক্তা বা ব্যবসায়ী। এখন অস্থায়ী চিঠি তো আমাদের মতো সংগঠনগুলোর সদস্যদের দিয়েছে। তাহলে তার কী হবে? আমাদের সেবা যদি এবার বন্ধ রাখতে হয় তাহলে সব কোম্পানি স্রেফ বন্ধ হয়ে যাবে। ভারত, ফিলিপাইন, ভিয়েতনাম খোলা আছে। সব ক্লায়েন্ট ওখানে চলে যাবে। গত লকডাউনে আমার প্রতিষ্ঠানে ৫৬ জন কর্মীকে ছয় মাস অফিসে রেখে কাজ চালু রেখেছি। এটা তো প্রতিবার আর সবাই করতে পারবে না।


আরও খবর



আজ বৃষ্টি হতে পারে

প্রকাশিত:শনিবার ০১ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০১ মে ২০২১ | ১১৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
সারাদেশের দিনের তাপমাত্রা কিছুটা হ্রাস পেতে পারে। গত ২৪ ঘণ্টায় ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এছাড়া রাজশাহী, গোপালগঞ্জ, মাদারীপুরসহ একাধিক এলাকায় ৩৭ ডিগ্রির ওপরে তাপমাত্রা বয়ে

দেশের বেশ কিছু অঞ্চলে অস্থায়ীভাবে দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, শনিবার অস্থায়ীভাবে আকাশ আংশিক মেঘলা এবং আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকার সম্ভাবনা রয়েছে।

শুক্রবার (৩০ এপ্রিল) রাতে দেশের বেশকিছু অঞ্চলে বৃষ্টি হওয়ার জন্য তাপমাত্রা কমতে শুরু করেছে। এছাড়া শনিবার সকল থেকে আরও কিছু এলাকায় বৃষ্টি হতে পারে। কুষ্টিয়া ও কুমিল্লা অঞ্চলসহ রংপুর, রাজশাহী, ময়মনসিংহ, ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কিছু জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

তাপমাত্রার কথা বলা হয়েছে, সারাদেশের দিনের তাপমাত্রা কিছুটা হ্রাস পেতে পারে। গত ২৪ ঘণ্টায় ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এছাড়া রাজশাহী, গোপালগঞ্জ, মাদারীপুরসহ একাধিক এলাকায় ৩৭ ডিগ্রির ওপরে তাপমাত্রা বয়ে গেছে। পাশাপাশি একাধিক এলাকায় ৩৬ ডিগ্রি তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়।


আরও খবর



২৪ ঘণ্টায় করোনায় আরও ৮৮ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৯ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৯ এপ্রিল ২০২১ | ১১৬জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ৮৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে ১১ হাজার ৩৯৩ জনের।

করোনাভাইরাস নিয়ে বৃহস্পতিবার (২৯ এপ্রিল) বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদফতরের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এতে আরও উল্লেখ করা হয়, এ ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন আরও ৪ হাজার ৭৮২ জন। এখন পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ৬ লাখ ৭৭ হাজার ১০১ জন।

করোনাভাইরাস নিয়ে বৃহস্পতিবার (২৯ এপ্রিল) বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদফতরের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

আক্রান্তে দ্বিতীয় ও মৃত্যুতে তৃতীয় অবস্থানে থাকা ভারতে এখন পর্যন্ত সংক্রমিত হয়েছেন এক কোটি ৮৩ লাখ ৬৮ হাজার ৯৬ জন এবং মারা গেছেন ২ লাখ ৪ হাজার ৮১২ জন।

আক্রান্তে তৃতীয় এবং মৃত্যুতে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ব্রাজিল এখন পর্যন্ত করোনায় এক কোটি ৪৫ লাখ ২৩ হাজার ৮০৭ জন সংক্রমিত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ৩ লাখ ৯৮ হাজার ৩৪৩ জনের।

আক্রান্তের দিক থেকে চতুর্থ স্থানে রয়েছে ফ্রান্স। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫৫ লাখ ৬৫ হাজার ৮৫২ জন। মারা গেছেন এক লাখ ৩ হাজার ৯১৮ জন।

আক্রান্তের দিক থেকে রাশিয়া রয়েছে পঞ্চম স্থানে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ৪৭ লাখ ৮৭ হাজার ২৭৩ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন এক লাখ ৯ হাজার ৩৬৭ জন।

এদিকে আক্রান্তের তালিকায় তুরস্ক ষষ্ঠ, যুক্তরাজ্য সপ্তম, ইতালি অষ্টম, স্পেন নবম এবং জার্মানি দশম স্থানে রয়েছে। এই তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান ৩৩তম।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরের শেষ দিকে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান থেকে করোনাভাইরাস সংক্রমণ শুরু হয়। এখন পর্যন্ত বাংলাদেশসহ বিশ্বের ২১৮টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস।


আরও খবর



সর্বাত্মক লকডাউনের দ্বিতীয় ধাপ শুরু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ এপ্রিল ২০২১ | ১১১জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনার সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি বিবেচনায় চলমান বিধিনিষেধের মেয়াদ বা সর্বাত্মক লকডাউনের দ্বিতীয় ধাপের প্রথম দিন আজ বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) থেকে শুরু হয়েছে। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী আগামী বুধবার (২৮ এপ্রিল) মধ্যরাত পর্যন্ত এ বিধিনিষেধ বা লকডাউন বহাল থাকবে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাসের সংক্রমণের বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় আন্তর্জাতিক বিশেষ ফ্লাইট চলাচল ও ব্যাংকিং কার্যক্রম অব্যাহত রাখাসহ পূর্বের সব বিধি-নিষেধ আরোপের সময়সীমা আগামী ২১ এপ্রিল মধ্যরাত থেকে ২৮ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত বাড়ানো হলো।

গত ১২ এপ্রিল মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে লকডাউনের মধ্যে পালনের জন্য ১৩টি নির্দেশনা দেওয়া হয়। ১৪ থেকে শুরু হয়ে ২১ এপ্রিল সেই লকডাউন শেষ হয়। নতুন প্রজ্ঞাপনে আগের বিধি-নিষেধগুলো পালন করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

বিধি-নিষেধগুলো নিম্নরূপ:

১. সব সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি অফিস, আর্থিক প্রতিষ্ঠান (পরে ব্যাংক খুলে দেওয়া হয়) বন্ধ থাকবে। প্রতিষ্ঠানের সব কর্মকর্তা-কর্মচারী নিজ নিজ কর্মস্থলে অবস্থান করবেন। তবে প্লেন, সমুদ্র, নৌ ও স্থল বন্দর এবং তৎসংশ্লিষ্ট অফিসগুলো এ নিষেধাজ্ঞার আওতামুক্ত থাকবে।

২. বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট আদালতগুলোর জন্য প্রয়োজনীয় নির্দেশনা জারি করবে।

৩. সব ধরনের পরিবহন (সড়ক, নৌ, অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইট) বন্ধ থাকবে (নতুন প্রজ্ঞাপনে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালুর অনুমতি দেওয়া হয়েছে)। তবে পণ্য পরিবহন, উৎপাদন ব্যবস্থা ও জরুরি সেবাদানের ক্ষেত্রে এ আদেশ প্রযোজ্য হবে না।

৪. শিল্প-কারখানাগুলো স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় চালু থাকবে। তবে শ্রমিকদের নিজ নিজ প্রতিষ্ঠান থেকে নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থাপনায় আনা-নেওয়া নিশ্চিত করতে হবে।

৫. আইন-শৃঙ্খলা এবং জরুরি পরিষেবা, যেমন- কৃষি উপকরণ (সার, বীজ, কীটনাশক, কৃষি যন্ত্রপাতি ইত্যাদি), খাদ্যশস্য ও খাদ্যদ্রব্য পরিবহন, ত্রাণ বিতরণ, স্বাস্থ্যসেবা, কোভিড-১৯ টিকা দেওয়া, বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস/জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, বন্দরগুলোর (স্থল, নদী ও সমুদ্রবন্দর) কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট (সরকারি-বেসরকারি), গণমাধ্যম (প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া), বেসরকারি নিরাপত্তা ব্যবস্থা, ডাক সেবাসহ অন্য জরুরি ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ও সেবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অফিস, তাদের কর্মচারী ও যানবাহন এ নিষেধাজ্ঞার আওতা বর্হিভূত থাকবে।

৬. অতি জরুরি প্রয়োজন ছাড়া (ওষুধ ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি কেনা, চিকিৎসাসেবা, মৃতদেহ দাফন/সৎকার ইত্যাদি) কোনোভাবেই বাড়ির বাইরে বের হওয়া যাবে না। তবে টিকা কার্ড প্রদর্শন সাপেক্ষে টিকা গ্রহণের জন্য যাতায়ত করা যাবে।

৭. খাবারের দোকান ও হোটেল-রেস্তোরাঁয় দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা এবং রাত ১২টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত কেবল খাদ্য বিক্রয়/সরবরাহ করা ঘাবে। শপিংমলসহ অন্য দোকান বন্ধ থাকবে।

৮. কাঁচাবাজার ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত উন্মুক্ত স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কেনাবেচা করা যাবে। বাজার কর্তৃপক্ষ স্থানীয় প্রশাসন বিষয়টি নিশ্চিত করবে।

৯. বোরো ধান কাটার জরুরি প্রয়োজনে কৃষি শ্রমিক পরিবহনের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসন সমন্বয় করবে‌।

১০. সারাদেশে জেলা ও মাঠ প্রশাসন উল্লেখিত নির্দেশনা বাস্তবায়নের কার্যকর পদক্ষেপ নেবে এবং আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী নিয়মিত টহল জোরদার করবে।

১১. স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক তার পক্ষে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ বিভাগকে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার প্রয়োজনীয় ক্ষমতা দেবেন।

১২. স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে জুমা ও তারাবি নামাজের জামায়াত বিষয়ে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় নির্দেশনা জারি করবে।

১৩. উপর্যুক্ত নির্দেশনাগুলো বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগ প্রয়োজনে সম্পূরক নির্দেশনা জারি করতে পারবে।

এর আগে, দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পুনরায় বাড়তে থাকায় গত ৫ এপ্রিল থেকে সারাদেশে এক সপ্তাহের জন্যে লকডাউন ঘোষণা করে সরকার। পরের দিন ঢাকা ও চট্টগ্রামসহ দেশের ১১টি সিটি করপোরেশন এলাকায় গণপরিবহন চলাচলের অনুমোদন দেওয়া হয়। এরপর ৯-১৩ এপ্রিল সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত দোকানপাট ও শপিংমল খোলা রাখার অনুমতি দেওয়া হয়। এরপর ১৪ এপ্রিল থেকে দ্বিতীয় দফয় কঠোর লকডাউন দেয় সরকার, যা ২১ এপ্রিল পর্যন্ত ছিল।


আরও খবর



শিবচরে পারিবারিক কলহের জেরে এক গৃহবধূর আত্মহত্যা, পরিবারের দাবি হত্যা

প্রকাশিত:বুধবার ২১ এপ্রিল 20২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২১ এপ্রিল 20২১ | ১২২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মাদারীপুর থেকে দেলোয়ার হোসাইন

শিবচরে পারিবারিক কলহের জেরে এক সাথী বেগম (২৭)নামের গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছেন। মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) দিবাগত ভোর রাতে উপজেলার বাশকান্দি ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের শেখপুর গ্রামে মামুন চৌকিদারের বাড়ি থেকে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে।

নিহত সাথী মামুন চৌকিদারে স্ত্রী ও একই ইউনিয়নের দক্ষিন বাশকান্দি গ্রামের আছু মদ্দিন কবিরাজের মেয়ে। তবে ঘটনার পর থেকে মামুন পলাতক রয়েছে।

পারিবারিক ও স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, গত ১০/১১ বছর আগে মামুনের সাথে পারিবারিকভাবে সাথির বিবাহ হয়। বিবাহের পর থেকেই সাথির সাথে বিভিন্ন সময় মনোমালিন্য দেখা যায়। মাঝে মাঝে সাথিকে তার বাবার বাড়ি থেকে টাকা পয়সা আনার জন্য চাপ দেয়। সাথি তার ভাইদের কাছে থেকে টাকা পয়সা না এনে দেওয়ার কারনে তাকে বেশ কয়েকবার মারধর করে। এর আগে এদের মধ্যে পারিবারিক কলহ হলে স্থানীয় সালিশির মাধ্যমে সমাধান করা হয়।

গত কয়েকদিন ধরে সাথিকে আবার টাকা পয়সার জন্য চাপ দেয় ও মারধর করে। এরই জের ভোর রাতে নিজ ঘরের আড়ার সাথে ওড়না দিয়ে ফাঁস দিয়ে ঝুলে থাকে। পরে সকালে মনির নামে মামুনের এক প্রদিবেশী মামুনকে বাজারে যাওয়ার জন্য ডাকতে এসে সাথিকে ঘরের মধ্য ঝুলে থাকতে দেখে। পরে লোকজন শিবচর থানায় খবর দিলে থানার উপ পরিদর্শক কামরুল ইসলামের নেতৃত্ব পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থল এসে মরদেহটি উদ্বার করে।

তবে সাথির পরিবার ও আত্মীয় স্বজনদের দাবী তার স্বামী তাকে মেরে ঘরের আড়ার সাথে ঝুলিয়ে রেখেছেন।

সাথীর ভাই আনোয়ার হোসেন বলেন, আমার বোনকে প্রায়ই টাকা পয়সার জন্য চাপ দিতো। মাঝে মাঝে অনেক মারধর করতো। এই নিয়ে কয়েকবার সালিশ বৈঠক ও হয়। গত কয়েকদিন আগে ওকে মারলে আমরা ফরিদপুর মেডিকেল ৩৬ হাজার টাকা ব্যয়ে ওর চিকিৎসা করাই। আজ আমার বোনকে মেরে ঘরে ঝুলিয়ে রাখছে। আমি ওর বিচার চাই।

শিবচর থানার পরিদর্শক তদন্ত আমির হোসেন সেরনিয়াবাত জানান, এটা হত্যা নাকি আত্মহত্যা কিছু বোঝা যাচ্ছে না। আমরা ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করি, ময়নাতদন্তের জন্য মাদারীপুর সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হবে। রিপোর্ট পাওয়ার পরে বোঝা যাবে। তবে এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা প্রক্রিয়াধীন।


আরও খবর



অটোরিকশাচালকের সারারাতের আয় কেড়ে নেওয়ার দায়ে ৩ পুলিশ বরখাস্ত

প্রকাশিত:শনিবার ০৮ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০৮ মে ২০২১ | ৮৭জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলায় শামীম নামে এক অটোরিকশাচালকের কাছ থেকে সারারাতের আয় ছয়শ টাকাসহ মোট সাতশ টাকা নেওয়ার অভিযোগে তিন পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

আজ শনিবার পুলিশ সদর দপ্তরের এআই‌জি (গণমাধ্যম ও জনসংযোগ) মো. সো‌হেল রানা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল একটি পোস্টের বিষয়ে বাংলাদেশ পুলিশের গণমাধ্যম ও জনসংযোগ শাখার দৃষ্টি আকর্ষণ করে সচেতন এক নাগরিক একটি বার্তা পাঠান।

ওই বার্তায় উল্লেখ করা হয়, এক অটোরিকশাচালকের সারারাতের আয় ৬০০ টাকা নিয়ে নিয়েছে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্য।

অভিযোগটি গুরুতর হওয়ায় গণমাধ্যম ও জনসংযোগ শাখা তাৎক্ষণিক বার্তাটি সংশ্লিষ্ট ইউনিট কমান্ডারদের কাছে পাঠিয়ে অভিযুক্তদের দ্রুত শনাক্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ করে। সং‌শ্লিষ্ট সবার সঙ্গে যোগা‌যোগ ক‌রে জানা যায়, উল্লিখিত ঘটনাস্থলে নিকটবর্তী হাইওয়ে ফাঁড়ির তিনজন সদস্য দায়িত্বরত ছিলেন। এই ঘটনা পরে একাধিক জাতীয় পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয়।

তিনি আরও বলেন, গণমাধ্যম ও জনসংযোগ শাখার বার্তার প্রেক্ষিতে গাজীপুর হাইওয়ে রিজিয়নের কমান্ডার আলী আহমদ খান বিষয়টি তদন্তের জন্য তাৎক্ষণিক একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। একইসঙ্গে অভিযুক্ত তিন সদস্যকে তাৎক্ষণিক এক অফিস আদেশে সাময়িক বরখাস্ত করে তাদেরকে হাইওয়ে পুলিশের মাঠ পর্যায়ের কার্যক্রম থেকে অব্যাহতি দিয়ে হাইওয়ে পুলিশ লাইনসে সংযুক্ত করা হয়।

নিউজ ট্যাগ: পুলিশ বরখাস্ত

আরও খবর