আজঃ বৃহস্পতিবার ০৯ ডিসেম্বর ২০২১
শিরোনাম

তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে গোপালগঞ্জে দফায় দফায় সংঘর্ষ

প্রকাশিত:সোমবার ২২ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২২ নভেম্বর ২০২১ | ৪৫৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

গোপালগঞ্জে ইভটিজিংয়ের ঘটনাকে কেন্দ্র করে শেখ সায়েরা খাতুন মেডিক্যাল কলেজের শিক্ষার্থী ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়েছে। সংঘর্ষে ইটের আঘাতে পুলিশ ও সংবাদকর্মীসহ আহত হয়েছেন অন্ততঃ ১০ জন।

আহতদের মধ্যে ৪ জনকে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

রবিবার (২১ নভেম্বর) রাত ৯টা থেকে থেমে থেমে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘ‌র্ষের ঘটনা ঘটে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে বেশ কয়েক রাউন্ড টিয়ার সেল নিক্ষেপ করে। রাত সা‌ড়ে ১১টার দি‌কে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হয়।

গুরুতর আহত বিশ্ব‌বিদ্যাল‌য়ের ছাত্র সা‌য়েম (২২), স‌রোয়ার জয় (২৩), মেডি‌ক্যাল ক‌লে‌জের ছাত্র সা‌কিব (২০) ও সাখাওয়াত হো‌সেনকে (২০) গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা বি‌শিষ্ট জেনা‌রেল হাসপাতা‌লে ভ‌র্তি করা হ‌য়ে‌ছে। বাকি আহতরা প্রাথ‌মিক চি‌কিৎসা নি‌য়ে‌ছেন।

শিক্ষার্থীরা জা‌নি‌য়ে‌ছেন, বিশ্ব‌বিদ্যাল‌য়ের শিক্ষার্থীরা মে‌ডি‌ক্যাল ক‌লে‌জের মস‌জি‌দের সাম‌নের রাস্তার ওপর ক্রি‌কেট খে‌লেন। প্র‌তি‌দি‌নের ন্যায় রোববার তারা রাস্তার ওপর  ক্রিকেট খেল‌ছি‌লেন। তখন মে‌ডি‌ক্যালের ছাত্ররা তা‌দের খেল‌তে নি‌ষেধ ক‌রেন। একই সঙ্গে সন্ধ্যায় মে‌ডি‌ক্যালের ম‌ধ্যে ঢুক‌তে বারন ক‌রেন। তখন উভয় প্র‌তিষ্ঠা‌নের ছাত্র‌দের ম‌ধ্যে তর্ক বিত‌র্ক ও হাতাহা‌তির ঘটনা ঘ‌টে। প‌রে উভয় প্র‌তিষ্ঠা‌নের ছাত্ররা সংঘ‌টিত হ‌য়ে দফায় দফায় সংঘ‌র্ষে লিপ্ত হন। প্রায় আড়াই ঘণ্টা মে‌ডি‌ক্যাল ক্যাম্পাস রণ‌ক্ষে‌ত্রে রূপ নেয়। এতে বিশ্ব‌বিদ্যাল‌য়ের প্রক্টর ড. রা‌জিউর রহমানসহ অন্তত ২৫ ছাত্র, পু‌লিশ ও সাংবা‌দিক আহত হন। গুরুতর আহত ৪ ছাত্র‌কে হাসপাতা‌লে ভ‌র্তি করা হ‌য়ে‌ছে।

শেখ সায়েরা খাতুন মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. জাকির হোসেন বলেন, বিশ্ব‌বিদ্যাল‌য়ের ক‌য়েকজন ছাত্ররা রা‌তে মে‌ডি‌ক্যাল ক‌লে‌জের রাস্তার ওপর ক্রি‌কেট খে‌লে। এছাড়া বেশ কিছু ছাত্র মে‌ডি‌ক্যালের ভেতর আড্ডা দেয়। তারা মে‌ডি‌ক্যালের ছাত্রীদের বি‌ভিন্ন সময় ইভটিজিং  ক‌রে। এ কার‌ণে তা‌দের সন্ধ্যার পর মে‌ডি‌ক্যালের ম‌ধ্যে ঢুক‌তে নি‌ষেধ ও রাস্তায় ক্রি‌কেট খেল‌তে বারন করা হয়। এ‌তে তারা ক্ষিপ্ত হ‌য়ে শত শত ছাত্র সংঘঠিত হ‌য়ে মেডিক্যালের ছাত্র‌দের ওপর হামলা ও ভাংচুর চালি‌য়ে‌ছে।

ত‌বে বিশ্ব‌বিদ্যাল‌য়ের ক‌য়েকজন শিক্ষার্থী ইভ‌টি‌জিং‌য়ের কথা অস্বীকার ক‌রে ব‌লে‌ছেন, মে‌ডি‌ক্যালের শিক্ষার্থীরা আমা‌দের গা‌লিগালাজ ক‌রার এক পর্যা‌য়ে লা‌ঠি‌সোটা নি‌য়ে আমা‌দের ওপর হামলা চালায়। এতে আমা‌দের বেশ ক‌য়েকজন শিক্ষার্থী আহত হ‌য়ে‌ছে। খবর শু‌নে আমা‌দের প্রক্টর মে‌ডি‌ক্যালে আস‌লে তি‌নিও ই‌টের আঘা‌তে আহত হ‌য়ে‌ছেন।

গোপালগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ও‌সি) ব‌লে‌ন, প‌রি‌স্থি‌তি নিয়ন্ত্র‌ণে আন‌তে ক‌য়েক রাউন্ড টিয়ার‌সেল নি‌ক্ষেপ করা হ‌য়ে‌ছে। এখন প‌রি‌স্থি‌তি পু‌লি‌শের নিয়ন্ত্র‌ণে র‌য়ে‌ছে।

 


আরও খবর
গোপালগঞ্জে এসআইর মরদেহ উদ্ধার

মঙ্গলবার ১৩ এপ্রিল ২০২১




আ.লীগের স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের সভা আজ

প্রকাশিত:শনিবার ২০ নভেম্বর ২০21 | হালনাগাদ:শনিবার ২০ নভেম্বর ২০21 | ৯৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের যৌথসভা আজ শনিবার অনুষ্ঠিত হবে। দলের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, আজ সকাল সাড়ে ১০টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারি বাসভবন গণভবনে স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের যৌথসভা অনুষ্ঠিত হবে।

এতে সভাপতিত্ব করবেন আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সংশ্লিষ্ট সবাইকে স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিধি মেনে যথাসময়ে স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের যৌথসভায় উপস্থিত থাকার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।


আরও খবর



‘বিনা প্রয়োজনে ঢাবিতে বহিরাগতরা অবস্থান করতে পারবেন না’

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ নভেম্বর ২০২১ | ৪৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বিনা প্রয়োজনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) এলাকায় বহিরাগতরা অবস্থান করতে পারবেন না বলে জানিয়েছেন ঢাবি প্রক্টর এ কে এম গোলাম রব্বানী। আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গণমাধ্যমকে এ কথা জানান তিনি।

ঢাবি প্রক্টর বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় বহিরাগতরা যেন অবস্থান করতে না পারেন সেজন্য গত রবিবার রাত থেকে অভিযান চালানো হচ্ছে। আমাদের ক্যাম্পাস অনেক ছোট। বহিরাগতদের অনুরোধ করছি, প্রয়োজন ছাড়া কেউ যেন ক্যাম্পাসে অবস্থান না করেন। শিক্ষার্থীবান্ধব ক্যাম্পাস বজায় রাখতে এ অভিযান চালানো হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন,কারো প্রয়োজন থাকলে একাধিকবার ক্যাম্পাসে আসতে পারবেন। সাবেক শিক্ষার্থীরাও ছুটির দিনে বা প্রয়োজনে আসবেন। ক্যাম্পাসকে পার্ক বা বিনোদনকেন্দ্রের মতো ব্যবহার করা যাবে না। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস আড্ডার জায়গা নয়।

এ বিষয়ে তিনি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট সবার সহযোগিতা কামনা করেছেন।


আরও খবর



৩ ব্যাংক কর্মকর্তার ৩১ বছরের সাজা

প্রকাশিত:সোমবার ১৫ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ নভেম্বর ২০২১ | ৮৩০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
দণ্ডবিধির ৪০৯/৪২০/৪৬৮/৪৭১/১০৯ ধারা এবং ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫ (২) ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ

অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে সোনালী ব্যাংকের তিন কর্মকর্তাকে ৩১ বছরের কারাদণ্ড এবং প্রত্যেককে ২৫ লাখ করে মোট ৭৫ লাখ টাকার অর্থদণ্ড দিয়েছেন আদালত। সোমবার নোয়াখালীর স্পেশাল জজ (জেলা জজ) আদালত এ রায় দেন।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, সোনালী ব্যাংকের ফেনীর সোনাগাজী শাখার ম্যানেজার মো. রহিম উল্যাহ খন্দকার, দ্বিতীয় কর্মকর্তা (সেকেন্ড ম্যান) মো. আবুল কালাম ও সহকারী অফিসার মো. মিজানুর রহমান ক্ষমতার অপব্যবহার করে প্রতারণা ও জালিয়াতির মাধ্যমে ২০১১ সালের ২ অক্টোবর থেকে ২০১২ সালের ১৩ আগস্ট পর্যন্ত দলিলের কাজে ব্যবহৃত ১৬৬টি পে-অর্ডারের ১৯ লাখ ৩৬ হাজার ১৬৫ টাকা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেন।

মামলায় উল্লেখ করা হয়, ২০১১ সালের ২ অক্টোবর থেকে ২০১২ সালের ১৩ আগস্ট পর্যন্ত ফেনী জেলার সোনাগাজীর মতিগঞ্জ সাব রেজিস্ট্রার অফিসে দলিল রেজিস্ট্রির কাজে ব্যবহৃত ও সরকারি খাতে জমা করার জন্য ওই অফিস থেকে ২০ থেকে ২৫ বান্ডিল চালানে পে-অর্ডার নম্বর, টাকা ও তারিখ উল্লেখ করে ব্যাংকে দাখিল করা হয়। এর মধ্যে ২-১টি সরিয়ে রেখে পরবর্তীতে নগদে উত্তোলন, পে-অর্ডারের টাকার অঙ্ক বাড়িয়ে নগদে উত্তোলন এবং সরকারি খাতে জমার জন্য চালানের সঙ্গে ফেরত আসা পে-অর্ডারসমূহ কিছু গায়েব করে সরকারি খাতে জমা না করে আত্মসাৎ করা হয়। এভাবে ১৬৬টি পে-অর্ডারের মোট ১৯ লাখ ৩৬ হাজার ১৬৫ টাকা নগদে উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেন আসামিরা।

এটি দণ্ডবিধির ৪০৯/৪২০/৪৬৮/৪৭১/১০৯ ধারা এবং ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫ (২) ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

২০১৪ সালের ৮ সেপ্টেম্বর সোনাগাজী থানায় এ বিষয়ে মামলা দায়ের করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ছিলেন দুদক উপপরিচালক মো. মশিউর রহমান।

এ প্রসঙ্গে দুদকের আইনজীবী আবুল কাশেম বলেন, আসামিরা দীর্ঘদিন ধরে সাব রেজিস্ট্রার অফিস থেকে আসা পে-অর্ডার কৌশলে রেজিস্ট্রার কাজে ব্যবহৃত হয়নি’— এমন তথ্য দিয়ে সোনালী ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলন ও আত্মসাৎ করেন। বিষয়টি ফাঁস হওয়ার পর ব্যাংকের ডিজিএম অফিস ও ঢাকার মতিঝিল অফিস থেকেও দুই দফা তদন্ত করা হয়। তদন্ত কমিটির রিপোর্টেও অভিযোগের সত্যতা মেলে। এরপর সোনালী ব্যাংকের ওই তিন কর্মকর্তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

ওই রিপোর্ট ও দুদকের অনুসন্ধানের পরিপ্রেক্ষিতে মামলা দায়ের এবং পরবর্তীতে চার্জশিট হয়। সাক্ষ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে আজ আদালত রায় দিয়েছেন বলেন ওই কর্মকর্তা।

নিউজ ট্যাগ: সোনালী ব্যাংক

আরও খবর
আবরার হত্যায় ২০ আসামির মৃত্যুদণ্ড

বুধবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২১




নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের ১১ দফা

প্রকাশিত:বুধবার ০১ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০১ ডিসেম্বর ২০২১ | ৩১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নিরাপদ সড়ক চেয়ে ১১ দফা দাবি ও প্রস্তাব উত্থাপন করেছেন শিক্ষার্থীরা। দ্রুত এই দাবি বাস্তবায়ন না হলে ছাত্রসমাজ কোনও অন্যায় সহ্য করবে না বলেও হুঁশিয়ার করেছেন শিক্ষার্থীরা।

বুধবার ১২টার পর রাজধানীর রামপুরায় শিক্ষার্থীরা এই ১১ দফা দাবি, প্রস্তাবনা ও সড়ক নীতিমালা উত্থাপন করেন। শিক্ষার্থীদের পক্ষে সোহাগী সায়মা নামে একজন এই দাবি উত্থাপন করেন।

দাবিগুলো হচ্ছে:-

১. সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত নাঈম হাসান ও মাইনুদ্দীন ইসলাম দুর্জয়ের পরিবারকে যথাযথ ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। গুলিস্তান ও রামপুরায় পথচারী পারাপারের জন্য ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণ করতে হবে।

২. সারাদেশের গণপরিবহনে শিক্ষার্থীদের হাফভাড়া নিশ্চিত করতে সরকারি প্রজ্ঞাপন জারি করতে হবে। এ জন্য দিন রাত বা ছুটির দিনসহ কোনও শর্ত জুড়ে দেয়া যাবে না। বর্ধিত বাসভাড়া প্রত্যাহার করতে হবে। সব রুটে বিআরটিসির বাস বাড়াতে হবে।

৩. সব ধরনের পরিবহনে নারীদের অবাধ যাত্রা নিশ্চিত করতে হবে। তাদের সঙ্গে সৌজন্য ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।

৪. লাইসেন্সবিহীন চালককে নিয়োগদানকারী প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তির বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে হবে। গাড়ির নিবন্ধন, ফিটনেস কার্যক্রম ও লাইসেন্স দানে বিআরটিএর দুর্নীতির বিরুদ্ধে কার্যকার ব্যবস্থা নিতে হবে।

৫. সব সড়কে পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা করতে হবে। ট্রাফিক পুলিশের সংখ্যা বৃদ্ধি করতে হবে। ট্রাফিক পুলিশের ঘুষ দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে।

৬. সব রুটে প্রতিযোগিতা বন্ধে এক গ্রুপ বা কোম্পানির মাধ্যমে সব বাস চালানোর ব্যবস্থা করতে হবে। বাস অনুযায়ী মালিকদের মধ্যে লাভের টাকা বন্টনের নিয়ম করতে হবে।

৭. শ্রমিকের নিয়োগপত্রে পরিচয় নিশ্চিত করতে হবে। বাস চালক ও হেলপারদের চুক্তির পরিবর্তে সব গণপরিবহন টিকিট পদ্ধতিতে চালানোর ব্যবস্থা করতে হবে। শ্রমিকদের জন্য বিশ্রামাগার ও টয়লেটের ব্যবস্থা করতে হবে।

৮. গাড়ি ও চালকের কর্মঘণ্টা এক নাগাড়ে ছয় ঘণ্টার বেশি হতে পারবে না। বাসে দুজন চালক ও দুজন সহকারী থাকতে হবে। পর্যাপ্ত বাস টার্মিনাল তৈরি করতে হবে। শ্রমিকদের জন্য যথাযথ প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে।

১০. যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকদের মতামত নিয়ে সড়ক পরিবহন আইন সংস্কার করতে হবে এবং এর বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে হবে। ট্রাক ও ময়লার গাড়ি চলাচলের জন্য রাত ১২টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত নির্ধারণ করতে হবে।

১১. মাদক প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। নিয়মিত ডোপ টেস্ট ও কাউন্সেলিংয়ের ব্যবস্থা করতে হবে।

এর আগে নিরাপদ সড়কের দাবি ও মাইনুদ্দিন হত্যার প্রতিবাদে টানা দ্বিতীয় দিনের মতো রাজধানীর রামপুরা ব্রিজের ওপর অবরোধ কর্মসূচি পালন করেন শিক্ষার্থীরা।


আরও খবর



প্রবাসী আয় দেড় বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন

প্রকাশিত:বুধবার ০১ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০১ ডিসেম্বর ২০২১ | ৩৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মহামারি করোনার মধ্যেও উল্লম্ফন থাকা প্রবাসী আয় কমছে টানা ছয় মাস ধরে। নভেম্বরে প্রবাসীরা যে পরিমাণ রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন তা গত দেড় বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন। বুধবার (১ ডিসেম্বর) বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রকাশিত প্রতিবেদনে তথ্য বলছে, সদ্য সমাপ্ত নভেম্বর মাসে ব্যাংকিং চ্যানেলে প্রবাসী বাংলাদেশিরা দেশে ১৫৫ কোটি ৩৭ লাখ (১.৫৫ বিলিয়ন) মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন। প্রবাসী আয়ের এ অঙ্ক গত বছরের নভেম্বরের চেয়ে ২৫ শতাংশ বা ৫২ কোটি ৫০ লাখ টাকা কম। গত বছরের নভেম্বরের রেমিট্যান্স এসেছিল ২০৭ কোটি ৮৭ লাখ ডলার। শুধু তাই নয়, নভেম্বরের রেমিট্যান্সের এ পরিমাণ গত ১৮ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন। এর আগে ২০২০ সালের মে মাসের দেশে সর্বনিম্ন ১৫০ কোটি ডলার রেমিট্যান্স আসে।

অর্থনীতিবিদরা  বলছেন, মহামারির বিধিনিষেধ উঠে যাওয়ার পর অবৈধ চ্যানেলগুলোতে (হুন্ডি) ফের অর্থ লেনদেন বেড়েছে। এছাড়া মহামারিতে যে হারে প্রবাসীরা চাকরি হারিয়েছে সেভাবে বিদেশে নতুন শ্রমশক্তি নিয়োগ হয়নি। এসব কারণে প্রবাসীদের পাঠানো আয় কমছে।

প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, ২০২১-২২ অর্থবছরে প্রথম পাঁচ মাসে (জুলাই-নভেম্বর) দেশে রেমিট্যান্স আসে ৮৬০ কোটি ৮৮ লাখ ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ ৭৩ হাজার ৮৬৪ কোটি টাকা)। যা আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ২২৮ কোটি ৫২ লাখ বা প্রায় ২১ শতাংশ কম। ২০২০-২১ অর্থবছরে প্রথম পাঁচ মাসে রেমিট্যান্স আসে ১ হাজার ৮৯ কোটি ৪১ লাখ ডলার। দেশীয় মুদ্রায় যার অংক ছিল ৯২ হাজার ৬০০ কোটি টাকা।

২০২০-২১ অর্থবছরের পুরো সময়ে রেমিট্যান্সের উল্লম্ফন ছিল। ওই অর্থবছরে অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে ২ হাজার ৪৭৮ কোটি ডলার রেমিট্যান্স পাঠান প্রবাসীরা, যা তার আগের অর্থবছরের চেয়ে ৩৬ দশমিক ১০ শতাংশ বেশি ছিল। গত অর্থবছরের ১২ মাসের মধ্যে সাত মাসেই ২০০ কোটি ডলারের বেশি রেমিট্যান্স এসেছে দেশে।

তথ্য বিশ্লেষণে দেখা গেছে, গত ছয় মাস ধরে ধারাবাহিকভাবে রেমিট্যান্স কমছে। চলতি বছরের অক্টোবর মাসে দেশে ১৬৪ কোটি ৬৯ লাখ ডলার রেমিট্যান্স এসেছিল। সেপ্টেম্বরে এসেছিল ১৭২ কোটি ৬৭ লাখ ডলার, আগস্টে রেমিট্যান্স আসে ১৮১ কোটি ডলার। যা তার আগের মাস জুলাইয়ের চেয়ে ৬ কোটি ১৪ লাখ ডলার কম। চলতি অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে দেশে রেমিট্যান্স আসে ১৮৭ কোটি ১৪ লাখ ডলার, যা তার আগের মাস জুনের চেয়ে ৬ কোটি ৯৩ লাখ ডলার কম। জুনে প্রবাসীরা পাঠিয়েছিলেন ১৯৪ কোটি ডলার।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, নভেম্বরে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ৩০ কোটি ৯৪ লাখ ডলার। বিশেষায়িত দুটি  ব্যাংকের মধ্যে একটিতে এসেছে ৩ কোটি ডলার রেমিট্যান্স। এছাড়া বেসরকারি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে ১২০ কোটি ৬৫ লাখ ডলার এবং বিদেশি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে ৭৪ লাখ ডলার রেমিট্যান্স এসেছে।

বরাবরের মতোই বেসরকারি ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স এসেছে। নভেম্বরে ব্যাংকটির মাধ্যমে প্রবাসীরা রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন ৩৮ কোটি ২৬ লাখ মার্কিন ডলার। এছাড়া ডাচ বাংলা ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ১৮ কোটি ৯৬ লাখ ডলার। অগ্রণী ব্যাংকের মাধ্যমে ১২ কোটি ৬৯ লাখ ডলার, সোনালী ব্যাংকের মাধ্যমে ৯ কোটি ৮০ লাখ ডলার এবং ব্যাংক এশিয়ার মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ৬ কোটি ৯৮ ডলার।


আরও খবর
শেয়ারবাজারে মূল্যসূচকের বড় উত্থান

মঙ্গলবার ০৭ ডিসেম্বর ২০২১

সূচকের উত্থানে লেনদেন শেষ হয়েছে

সোমবার ০৬ ডিসেম্বর ২০২১