আজঃ বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২
শিরোনাম

ভারতের হাসপাতালে বাংলাদেশের সরকারি ওষুধ

প্রকাশিত:বুধবার ০৬ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ০৬ এপ্রিল ২০২২ | ১২৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলাদেশে যে ওষুধ ক্রয় ও বিক্রয় আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ, সেই ওষুধ দেওয়ার অভিযোগ উঠলো ভারতের পশ্চিমবঙ্গের এক সরকারি হাসপাতালে।

হাসপাতালের বহিঃবিভাগ থেকে রোগীদের এমন ওষুধ দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে রাজ্যটির পূর্ব মেদিনীপুর জেলার কাঁথি মহকুমা হাসপাতালের বিরুদ্ধে।

হাসপাতালের চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তারাই নাকি দিনের পর দিন, মাসের পর মাস ধরে এভাবেই বাংলাদেশের ওষুধ রোগীদের প্রেসক্রাইব করে দিচ্ছেন। ডক্সিসাইক্লিন নামে ওই ক্যাপসুলের পাতার ওপরই লেখা রয়েছে-গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সম্পদ, ক্রয়-বিক্রয় আইনত দণ্ডনীয়। ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থাটি হল বগুড়ার এসেনসিয়াল ড্রাগস কোং লি.। এই ওষুধটি মূলত ব্যাকটেরিয়াল ইনফেকশনের চিকিৎসা করতে ব্যবহৃত হয়ে থাকে।

গতকাল মঙ্গলবার বিষয়টি সামনে আসতেই শোরগোল পরে গেছে পশ্চিমবঙ্গের স্বাস্থ্যক্ষেত্রে। কিভাবে বাংলাদেশ সরকারি ওষুধ অন্য রাষ্ট্রের একটি অঙ্গরাজ্যের হাসপাতাল থেকে দেওয়া হচ্ছে। তা অবিলম্বে খতিয়ে দেখার নির্দেশ দিয়েছে রাজ্য স্বাস্থ্য ভবন।

রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিকে প্রায়শই বলতে শোনা যায় যে পশ্চিমবঙ্গের প্রতিবেশী রাজ্য ত্রিপুরা, ওড়িষ্যা, ঝাড়খন্ড থেকে সেখানকার বাসিন্দারা এ রাজ্যের সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা করাতে আসেন। এমনকি বাংলাদেশ থেকেও রোগীরা কলকাতায় এসে সরকারি চিকিৎসা গ্রহণ করেন বলেও জানিয়েছিলেন মমতা। সেখানে কিভাবে বাংলাদেশ সরকারের অবিক্রয় যোগ্য ওষুধ পশ্চিমবঙ্গের সরকারি হাসপাতালে বিতরণ করা হচ্ছে? সেই প্রশ্নটিই এখন বড় হয়ে উঠেছে।

অভিযোগ সামনে আসার পরই নড়েচড়ে বসেছে রাজ্যের স্বাস্থ্য ভবন। এ ব্যাপারে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার জেলা প্রশাসক পূর্ণেন্দু মাঝি জানান, বিষয়টি সামনে এসেছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখতে জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর এবং জেলা প্রশাসনের তরফে একটি যৌথ তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। কিভাবে ওই ওষুধ এখানকার হাসপাতালের স্টোরে এসে পৌঁছালো তা দেখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

যদিও সূত্রে খবর, সরকারিভাবেই কলকাতার স্টোর থেকে নাকি ওই ওষুধ জেলা হাসপাতালের পাঠানো হয়েছে। এদিকে, বিষয়টি সামনে আসতেই রাজনৈতিক ভাবেও একে কাজে লাগাতে মরিয়া ভারতের পশ্চিমবঙ্গের প্রধান বিরোধী দল বিজেপি।

রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী জানান, এ ঘটনা অতীতে কখনও ঘটেনি। ভারত যেখানে সারা বিশ্বে ওষুধ রপ্তানি করে, সেখানে কী ভাবে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের সরকারি স্টোরে বাংলাদেশি ওষুধ আসলো, তার প্রকৃত কারণ জানতে উচ্চ পর্যায়ের তদন্তেরও দাবি করেছেন তিনি। ওই ওষুধ বাংলাদেশ থেকে বৈধভাবে এসেছে নাকি অবৈধভাবে তা জানা প্রয়োজন বলে মনে করেন শুভেন্দু।

যদিও একটি সূত্র বলছে, ভারতে করোনার দ্বিতীয় আছড়ে পড়ার সময় বাংলাদেশ সরকারের তরফে একটা বিশাল পরিমাণ ওষুধ সরবরাহ করা হয়েছিল। সেই ওষুধের একটা বড় অংশ ছিল রাজ্যের মেডিসিন স্টোরে। ভুলক্রমে সেই ওষুধও পাঠানো হতে পারে ওই হাসপাতালে।

 


আরও খবর



পেট্রলশূন্য ফিলিং স্টেশন, খোলা বাজারে প্রতি লিটার ১৪০ টাকা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | ৫৫৫জন দেখেছেন

Image

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি:

ঠাকুরগাঁওয়ে ফিলিং স্টেশনগুলোতে পেট্রল ও অকটেন পাওয়া যাচ্ছে না। এ নিয়ে বিশেষ করে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন মোটরসাইকেল চালকরা। কয়েকটি ফিলিং স্টেশনে অকটেন পাওয়া গেলেও ১০০ টাকার বেশী দেওয়া হচ্ছে না। এক ফিলিং স্টেশন থেকে আরেক ফিলিং স্টেশনে গেলেও পাওয়া যাচ্ছে না তেল। ফিলিং স্টেশন গুলোতে পেট্রল অকটেন না থাকলেও খোলা বাজারে পাওয়া যাচ্ছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সদর উপজেলার বকসের হাট, রাজাগাঁও ঢোলারহাট ও ভগদগাজী বাজারে বোতলে করে বিক্রি করা হচ্ছে পেট্রল ও অকটেন। দুদিন আগেও যে তেলের বোতলটি বিক্রি হতো ১০০ টাকায় একই বোতলের দাম এখন ১৪০ টাকা। প্রতি লিটারে খোলা বাজারে ৪০ টাকা অতিরিক্ত মূল্যে বিক্রি করা হচ্ছে।

একদিকে ভোজ্যতেলের দাম বৃদ্ধি, অপরদিকে জ্বালানি তেলের অতিরিক্ত মূল্য। উপায় না পেয়ে চড়া দামে পেট্রল ও অকটেন কিনতে হচ্ছে যানবাহন চালকদের।

খোলা বাজারে তেল কিনতে আসা মোটরসাইকেল চালক আরিফ হোসেন বলেন, শহরের ফিলিং স্টেশনগুলোতে তেল পেলাম না। গাড়িতে তেল প্রায় শেষ। আরও ত্রিশ কিলোমিটার গাড়ি চালাতে হবে৷ খোলা বাজারে কিনলাম এক বোতল ১৪০ টাকা দামে৷ এক লিটার তেলে চল্লিশ টাকা বাড়তি দিয়ে কিনতে হলো। উপায় না পেয়েই কিনেছি৷ বাসায় যেতে হবে এজন্য। আরেক ক্রেতা আনোয়ার বলেন, সয়াবিন তেলের দাম বাড়লো, এবার পেট্রল অকটেন এর বাড়ানোর জন্য মিলছেনা। পাম্পে পেট্রল আর অকটেন নেই। তাহলে খোলা বাজারের দোকানদারেরা কোথা থেকে পাই? বোতলে করে বিক্রি করে তাও আবার ত্রিশ থেকে চল্লিশ টাকা বেশীতে। আমি বিষয়টি প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি৷

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক তেল বিক্রেতা জানান, আমার কাছে ৫০ লিটার পেট্রল রয়েছে। আমি একজনের কাছে প্রতি লিটার একশো বিশ টাকা করে কিনেছি। আমার যাতায়াত খরচ ও লাভসহ আমি প্রতি লিটার একশো চল্লিশ টাকা করে বিক্রি করছি। যারা বোতলে করে বিক্রি করছে তারা সবাই এইরকম দামে বিক্রি করছে পেট্রল ও অকটেন৷

ফিলিং স্টেশনগুলোতে কবে নাগাত পেট্রল ও অকটেন পাওয়া যাবে এ প্রশ্নের জবাবে ঠাকুরগাঁও পেট্রল পাম্প অনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এনামুল হক জানান, ডিপোতে গাড়ি পাঠানো হয়েছে। স্বল্প সময়ের মধ্যে এ ভোগান্তি দূর হবে বলে আমরা আশা করছি৷

এবিষয়ে জানতে চাইলে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর ঠাকুরগাঁওয়ের সহকারী পরিচালক শেখ সাদী জানান, আমরা অভিযান চালিয়ে যাচ্ছি। যারা অতিরিক্ত দামে বিক্রি করছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে৷


আরও খবর



চার লাখ টন শস্য চুরি করেছে রাশিয়া: ইউক্রেন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৫ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৫ মে ২০২২ | ৪৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাশিয়ার দখলদার বাহিনী দক্ষিণ ইউক্রেন থেকে ৪ লাখ টন শস্য চুরি করেছে। ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এই তথ্য জানিয়েছে। বৃহস্পতিবার (৫ মে) আল জাজিরার লাইভ প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে। এক টুইট বার্তায় ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, 'দখলকৃত দক্ষিণ ইউক্রেনে রাশিয়া অন্তত ৪ লাখ টন শস্য চুরি করেছে। রুশ চোররা বিশ্বে মৃত্যু এবং দুর্ভিক্ষ নিয়ে আসছে।'

তবে ইউক্রেনের এই অভিযোগ নিয়ে রাশিয়ার পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি। এর আগে বৃহস্পতিবার রাশিয়ার  প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানায়, ইউক্রেনের বিভিন্ন স্থাপনা এবং দূর্গে রাতভর আর্টিলারি হামলা চালানো হয়েছে। এতে ইউক্রেনের ৬ শতাধিক যোদ্ধা নিহত হয়েছে।

রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, 'রাশিয়ান ফেডারেশনের সশস্ত্র বাহিনী ইউক্রেনে বিশেষ সামরিক অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে। ৬ শতাধিক ইউক্রেনীয় এবং ৬১ টি ইউনিট অস্ত্র ও সামরিক সরঞ্জাম ধ্বংস করা হয়েছে।'  

 

 

 


আরও খবর



বৃদ্ধাশ্রম নিয়ে কথা বলে বিতর্কে সুদীপ্তা

প্রকাশিত:সোমবার ০৯ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৯ মে ২০২২ | ৩২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাবা-মাকে বৃদ্ধাশ্রমে রাখার পক্ষে যুক্তি দিয়ে বিতর্কে জড়ালেন ভারতীয় বাংলা সিনেমার অভিনেত্রী সুদীপ্তা চক্রবর্তী। রবিবার (৮ মে) ছিল বিশ্ব মা দিবস। এদিন কলকাতার অভিনেতা-পরিচালক সপ্তর্ষি রায় ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেন—‘সবাই যদি মাকে এত ভালোবাসেন তাহলে বৃদ্ধাবাসগুলোতে কারা থাকেন? তাদের ছেলেমেয়েরা বোধহয় কেউই এই ফেবুপাড়ায় নেই! এ পোস্টের কমেন্ট বক্সে সপ্তর্ষিকে সমর্থন করে অধিকাংশ নেটিজেন মন্তব্য করেন। কিন্তু সুদীপ্তার মন্তব্য নিয়ে তৈরি হয় বিতর্ক।

বাবা-মাকে বৃদ্ধাশ্রমে রাখার পক্ষে যুক্তি দিয়ে সুদীপ্তা চক্রবর্তী কমেন্ট বক্সে লিখেন—‘বৃদ্ধাবাসের সঙ্গে মা-বাবাকে না ভালোবাসার কোনো সম্পর্ক কিন্তু নেই। আজকের নিউক্লিয়ার ফ্যামিলির দায়িত্ববান ছেলে-মেয়েরা বাবা-মাকে বৃদ্ধাবাসে রাখেন তাদের সুবিধার জন্যই। আমরা সারাদিন কাজের পেছনে ছুটবো, টাকা রোজগার করবো, বাচ্চা মানুষ করবো, নানা দায়িত্ব পালন করবো আর সারাদিন মা-বাবা একা একা বাড়িতে বসে টিভি সিরিয়াল দেখে একাকিত্ব কাটানোর ব্যর্থ চেষ্টা করবেন।

জরুরি প্রয়োজনে কাউকে পাশে পাওয়া যায় না। তা উল্লেখ করে সুদীপ্তা চক্রবর্তী বলেন, কোনো জরুরি কাজের সময়ে কাউকে তক্ষুণি আশেপাশে পাবেন না। এমন অবস্থায় রেখে দেওয়ার চেয়ে অনেক স্বাস্থ্যকর হলো সমবয়সী আরো অনেকগুলো মানুষের সঙ্গে অবসর জীবন কাটানো। দরকারে মেডিক্যাল এমারজেন্সিতে পাশে সঠিক প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত লোকজন পাওয়া অনেক বেশি জরুরি।

তবে অনেকেই সুদীপ্তার এই যুক্তির সঙ্গে সহমত পোষণ করেছেন। এ তালিকায় টলিউড অভিনেত্রী রুপাঞ্জনা মিত্রও রয়েছেন। বিষয়টি নিয়ে জোর সমালোচনা চললেও আর কোনো মন্তব্য করেননি সুদীপ্তা চক্রবর্তী।


আরও খবর



‘অপশক্তি দমনে শেখ হাসিনার বিকল্প নেই’

প্রকাশিত:শনিবার ১৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ১৪ মে ২০২২ | ২২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় এবং অপশক্তি দমনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিকল্প নেইবলেছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।

বৌদ্ধদের সবচেয়ে বড় উৎসব বুদ্ধপূর্ণিমা উপলক্ষ্যে আজ শনিবার সকালে রাজধানীর শাহবাগে বাংলাদেশ বৌদ্ধ সাংস্কৃতিক পরিষদ আয়োজিত জাতীয় সম্মিলিত শান্তি শোভাযাত্রা ও সম্প্রীতি উৎসবে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তথ্যমন্ত্রী এ কথা বলেন। মহামতি গৌতম বুদ্ধের জন্ম, বোধিলাভ ও মহাপ্রয়াণের স্মৃতিবিজড়িত বুদ্ধপূর্ণিমা উপলক্ষ্যে সবাইকে শুভেচ্ছা জানান অতিথিরা।

ড. হাছান এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অসাম্প্রদায়িকতার প্রতীক হিসেবে বর্ণনা করেন। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শুধু মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, গণতন্ত্র ও উন্নয়ন-অগ্রগতিরই প্রতীক নন, একই সঙ্গে তিনি অসাম্প্রদায়িক চেতনারও মূর্ত প্রতীক। তিনি কদিন আগে বক্তৃতায় বলেছেনসংস্কৃতিকে ধর্মের সঙ্গে মেলানো উচিত নয়।

তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ আরও বলেন, পাকিস্তানের সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্রব্যবস্থা থেকে বেরিয়ে এসে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে সব ধর্মের মানুষের মিলিত রক্তস্রোতে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ রাষ্ট্র রচিত হয়েছে। কিন্তু, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর রাষ্ট্রকে সাম্প্রদায়িক করার অপচেষ্টা করা হয়। ১৯৯৬ সালে বঙ্গবন্ধুকন্যা দেশ পরিচালনার দায়িত্বে আবার সেই অসাম্প্রদায়িক চেতনাকে ফিরিয়ে এনেছেন।

প্রতিটি ধর্মের উৎসব আজ দেশে সবার উৎসবে পরিণত হয়েছে উল্লেখ করে ড. হাছান বলেন, ঈদ, দুর্গাপূজা, বুদ্ধপূর্ণিমা, বড়দিন, প্রবারণা পূর্ণিমাসহ ধর্মীয় উৎসবগুলো এ দেশে সর্বজনীন আনন্দের। যে সাম্প্রদায়িক অপশক্তি এ সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে মাঝেমধ্যে মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে চায়, তাদের দমনে শেখ হাসিনার বিকল্প নেই।

সাম্প্রদায়িক অপশক্তি এবং যারা তাদের নিয়ে রাজনীতি করে, তারা বিভিন্ন সময়ে সাম্প্রদায়িক হানাহানি সৃষ্টির অপচেষ্টা চালায় উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, রামু, কুমিল্লা, নাসিরাবাদসহ বিভিন্ন জায়গার ঘটনা বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, তারাই এগুলো ঘটিয়েছে এবং তাদের রাজনৈতিক পৃষ্ঠপোষকেরা এর পেছনে ছিল। এদের দমন করতে বঙ্গবন্ধুকন্যার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।’ সমাবেশ শেষে সব ধর্মের মানুষের শান্তি শোভাযাত্রাটি শাহবাগ-সংলগ্ন এলাকা প্রদক্ষিণ করে।


আরও খবর



৩ ঘরোয়া টোটকা: গরমেও ঠোঁট থাকবে কোমল

প্রকাশিত:সোমবার ২৫ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৫ এপ্রিল ২০২২ | ৩৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

শীত বিদায় নিয়েছে বেশ কিছু দিন। বঙ্গে এখন গ্রীষ্মের দাপট। তবু শীতকালীন কিছু কিছু সমস্যা দেখা দিচ্ছে গরমেও। তার মধ্যে অন্যতম ঠোঁট ফাটা। আবহাওয়ার পরিবর্তনের কারণে শুধু শীতকাল নয়, গ্রীষ্মেও ত্বক ও ঠোঁট রুক্ষ হয়ে যাওয়ার মতো সমস্যায় ভুগছেন অনেকে। গরমে শরীরে জলের পরিমাণ কম থাকে। ফলে ঠোঁটের জলীয় ভাব ক্রমশ হ্রাস পায়। ঠোঁটের চামড়া খুব পাতলা হয়। ফলে তা অল্পেতেই রুক্ষ ও শুষ্ক হয়ে পড়ে। গরমে ঠোঁট ফাটার সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে বাড়িতেই বানিয়ে নিতে পারেন ঘরোয়া স্ক্রাবার।

১) ব্রাউন সুগার স্ক্রাবার : ত্বকের মৃত কোষ দূর করার অন্যতম একটি উপাদান হল ব্রাউন সুগার। শুষ্ক ত্বক কোমল ও মসৃণ করতে ব্রাউন সুগার ব্যবহার করতে পারেন। এক চামচ ব্রাউন সুগার, দু চামচ মধু ও কয়েক ফোঁটা এসেনশিয়াল অয়েল একসঙ্গে মিশিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করে নিন। আঙুল দিয়ে এই মিশ্রণটি আলতো করে ঠোঁটে ঘষে নিন। কিছু ক্ষণ রেখে দিয়ে জলে ভেজানো নরম কাপড় দিয়ে ঠোঁটে বুলিয়ে নিন।

২) স্ট্রবেরি স্ক্রাবার: স্ট্রবেরিতে রয়েছে ভিটামিন সি। ঠোঁটের রক্ষতা দূর করতে দারুণ কাজ করে এই ভিটামিন। গরমেও ঠোঁটের গোলাপি ভাব বজায় রাখতে ব্যবহার করতে পারেন স্ট্রবেরি। একটি পাত্রে এক চামচ অলিভ অয়েল, স্ট্রবেরির কুচি, মধু মিশিয়ে নিন। এ বার মিশ্রণটি ভাল করে ঠোঁটে বুলিয়ে কিছু ক্ষণ রেখে দিন। শুকিয়ে এলে ঠান্ডা জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ঠোঁট থাকবে কোমল ও মসৃণ।

৩) কফি স্ক্রাবার: ধোঁয়া ওঠা কফির চাইতে এই গরমে ক্রিম দেওয়া ঠান্ডা কফিতেই গলা ভেজাতে ভালবাসেন অনেকে। গলা ভেজানোর পাশাপাশি ঠোঁটের যত্নেও কাজে লাগাতে পারেন কফি। এক চামচ কফির গুঁড়ো ও দু'চামচ মধু একসঙ্গে মিশিয়ে ঠোঁটে মেখে নিন। চাইলে এই মিশ্রণটি বানিয়েও রেখে দিতে পারেন। সপ্তাহে তিন-চার দিন মাখতে পারেন। উপকার পাবেন।

 

নিউজ ট্যাগ: কোমল ঠোঁট

আরও খবর
‘আম’ চিনুন তারপর কিনুন

বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২