আজঃ মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

ভিন্ন রকম ছয় গল্পে বাণী কাপুর

প্রকাশিত:শনিবার ০৯ ডিসেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ০৯ ডিসেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

একটি-দুটি নয়, একসঙ্গে ছয়টি ছবির কাজ নিয়ে ব্যস্ত বলিউড অভিনেত্রী বাণী কাপুর, যা সমসাময়িক অন্যান্য অভিনেত্রীকে চমকে দেওয়ার মতোই ঘটনা। কারণ একটাই, বাণী কাপুরকে নিয়ে খুব একটা আলোচনা হয় না। তার মানে এই নয় যে, অন্যান্য বলিউড অভিনেত্রী থেকে তিনি পিছিয়ে আছেন। বরং এ পর্যন্ত যে কটি ছবিতে তিনি অভিনয় করেছেন, তার মধ্য দিয়ে কুড়িয়ে নিয়েছেন দর্শক প্রশংসা।

অনিন্দ্য অভিনয়ের জন্য পুরস্কার উঠেছে এ অভিনেত্রীর ঝুলিতে; যার সুবাদে নির্মাতাদের নজর কাড়তেও সময় লাগেনি। এ সময়ের অনেক নির্মাতাই তাদের ছবির জন্য বাণীকেই প্রথম পছন্দের তালিকায় রাখছেন। শুধু তাই নয়, যশরাজ ব্যানারেও কাজ করার সুযোগ হয়েছে তাঁর। বিখ্যাত এ প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের মান্ডালা মার্ডার্স ছবিতে দেখা মিলবে বাণীর।

এছাড়া দীনেশ বিজনের সর্বগুণ সম্পন্ন ছবিতে তিনি থাকছেন প্রধান চরিত্রে। একইভাবে অভিনেতা রাজকুমার রাও-এর সঙ্গে বাচপান কা পেয়ার ছবিতেও মুখ্য চরিত্রে দেখা যাবে এ অভিনেত্রীকে। অদ্ভুত একটি প্রেমের গল্প এ ছবিটি পরিচালনা করছেন অপূর্ব ধর বাদগাইয়ান; যিনি এর আগে জিতেন্দ্র কুমার অভিনীত রোমান্টিক কমেডি ছবি চমন বাহার নির্মাণ করেছিলেন। সে হিসেবে বাচপান কা পেয়ার ছবিতে অভিনয় মানেই বাণীর ক্যারিয়ারকে শক্তিশালী করে নেওয়ার সুযোগ।

অভিনেত্রী নিজেও চেষ্টা করে যাচ্ছেন নিজের সেরা অভিনয় দিয়ে প্রতিটি ছবির চরিত্রগুলো দর্শকের কাছে বিশ্বাসযোগ্য করে তোলার। সে কথা ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে তিনি স্বীকারও করেছেন। এর বাইরে আরও যে তিনটি ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন, তার চরিত্রগুলো আত্মস্থ করার জন্য নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন।

বাণীর কথায়, কাছাকাছি সময়ে ছয়টি ভিন্ন রকম গল্প ও চরিত্রে কাজ করার সুযোগ পাওয়া সৌভাগ্যের। অনেকেই এমন সুযোগ পান না। তাই মনপ্রাণ উজাড় করে নিজের সেরা অভিনয়টা তুলে ধরার চেষ্টা করে যাচ্ছি। সেই সাহস ও প্রেরণা জোগাচ্ছেন প্রতিটি ছবির নির্মাতা ও সহশিল্পীরা। আমার প্রতি তাদের যে বিশ্বাস, সেটি যেন ভেঙে না যায়, তার জন্য প্রতিটি কাজই চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছি। কারণ আমি নিজেও চাই, ভালো কাজের মধ্য দিয়েই দর্শক হৃদয়ে জায়গা করে নিতে।

নিউজ ট্যাগ: বাণী কাপুর

আরও খবর
আস্থার জায়গা খুঁজছেন মাহি

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




আবারও সেঞ্চুরি হাঁকালো পেঁয়াজ!

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৯ জানুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

ভারত রপ্তানি বন্ধের ঘোষণা দেওয়ার পর গত নভেম্বর-ডিসেম্বরে দেশের বাজারে হু হু করে বেড়ে যায় পেঁয়াজের দাম। নতুন বছরে জানুয়ারির শুরুতে মুড়ি কাটা পেঁয়াজের সরবরাহ বাড়ায় দামও কেজিপ্রতি নেমে আসে ৮০ টাকায়। তবে আবারও নতুন করে বাজারে পেঁয়াজের দামে ঊর্ধ্বগতি দেখা গেছে। খুচরা বাজারে দাম বাড়তে বাড়তে আবারও শতক হাঁকিয়েছে পেঁয়াজের কেজি।

সোমবার (২৯ জানুয়ারি) রাজধানীর বিভিন্ন খুচরা বাজার ঘুরে দামবৃদ্ধির এ চিত্র দেখা গেছে। এসব বাজারের বেশিরভাগ দোকানেই নতুন পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকা কেজি দরে। পুরনো পেঁয়াজের কেজি ৯০ টাকা।

দাম বাড়ার কারণ জানতে চাইলে রামপুরা বাজারে বিক্রেতা এনামূল হোসেন বলেন, মুড়ি কাটা শেষ, নতুন হালি পেঁয়াজের সরবরাহ বাড়তে কিছুদিন সময় লাগবে। মোকামে দাম বেড়েছে। পাবনায় প্রতি মণ পেঁয়াজ ৩২০০ থেকে ৩৪০০ টাকা কেনা পড়ছে। যা আগের থেকে ৪০০ টাকা বেশি। মূলত গতকাল থেকেই এমন দাম বেড়েছে।

এদিকে, পাবনায় স্থানীয় বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সেখানকার মোকামগুলোতে পেঁয়াজের দাম বাড়তে শুরু করেছে। কয়েকদিন আগে সেখানে বিভিন্ন হাটে পাইকারিতে প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হতো ৬০-৭০ টাকায়। সাঁথিয়া উপজেলার করমজা চতুর হাটসহ বিভিন্ন হাটে একই পেঁয়াজ এখন ৭৫-৮৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

আগাম পেঁয়াজের উৎপাদন শেষ হয়ে আসার কারণে গত তিনদিনে পাবনার বিভিন্ন উৎপাদন সংশ্লিষ্ট এলাকায় পেঁয়াজের দাম কেজিপ্রতি ১৫ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে।

কৃষক ও পেঁয়াজ ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বাজারে এখন আগাম বা মুড়ি কাটা জাতের পেঁয়াজ পাওয়া যাচ্ছে। মাস দেড়েক আগে এই পেঁয়াজ হাটে উঠেছে। সুজানগর ও সাঁথিয়া উপজেলার কৃষকেরা যে মুড়ি কাটা জাতের পেঁয়াজের আবাদ করেছিলেন, তার বেশিরভাগই এরই মধ্যে তোলা হয়ে গেছে। ফলে বাজারে এই জাতের পেঁয়াজের সরবরাহ কমতে শুরু করেছে। এ কারণে মুড়ি কাটা পেঁয়াজের দাম বাড়ছে।

কৃষকেরা জানিয়েছেন, মাসখানেকের মধ্যেই প্রধান জাত হালি কাটা পেঁয়াজ বাজারে উঠতে শুরু করবে। তখন দাম আবার কমে আসবে।


আরও খবর
২৪ দিনে প্রবাসী আয় ১৮ হাজার কোটি টাকা

রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




মেডিকেল ভর্তিতে ৫ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটা: হাইকোর্ট

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আদালত প্রতিবেদক

Image

মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজে এমবিবিএস এবং বিডিএস কোর্সে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি নীতিমালায় মুক্তিযোদ্ধা কোটায় পাঁচ শতাংশ আসন সংরক্ষণ করতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। আগামী ৯ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য ভর্তি পরীক্ষায় এটি কঠোরভাবে মানার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলামের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

নীতিমালায় উল্লেখ রয়েছে, ‌‍মুক্তিযোদ্ধা সন্তান এবং সন্তানদের সন্তানাদির জন্য মোট আসনের ২ শতাংশ আসন সংরক্ষিত থাকবে। তবে এই কোটার আসন শূন্য থাকলে সাধারণ কোটা থেকে মেধাক্রমের ভিত্তিতে শিক্ষার্থী ভর্তির মাধ্যমে এই আসন পূরণ করা যাবে।

এই নীতিমালায় থাকা ২ শতাংশ কোটা রাখার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে এক রিট আবেদন আদালতে দায়ের করেন অহিদুল ইসলাম নামের এক মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও প্রজন্ম কাউন্সিলের এক নেতা। রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মুনতাসীর উদ্দিন আহমেদ।

রিটকারীর বক্তব্য হচ্ছে, মুক্তিযোদ্ধা কোটা ৫ শতাংশ রাখার গাইডলাইন সুপ্রিম কোর্টের রায় রয়েছে। তা লঙ্ঘন করে ভর্তি নীতিমালায় দুই শতাংশ রাখা হয়েছে। আদালত নির্দেশনা দিয়েছেন ৫ শতাংশ কোটা সংরক্ষণ করে যেন ফলাফল দেওয়া হয়।

আগামী ৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩-২৪ শিক্ষাবর্ষের এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এর এক মাস পর ৮ মার্চ ডেন্টালের ভর্তি পরীক্ষা হবে।


আরও খবর



নালিশ করার রাজনীতি বিএনপি’র পুরোন অভ্যাস: ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জেলা প্রতিনিধি

Image

আন্দোলনে ব্যর্থতা, নির্বাচনে না আসা বিএনপিকে অনেক খেসারত দিতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। সোমবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে দাগনভূঞা-বুসর হাট সড়ক প্রশস্তকরণ কাজের পরিদর্শনের সময় সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এ মন্তব্য করেন।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সমালোচনা করে মন্ত্রী বলেন, আমার কাছে অবাক লাগে মির্জা ফখরুল জেল থেকে বের হয়ে, অসুস্থতার অজুহাতে তিনি জনগণের কাছে যাননি। অথচ যেই মার্কিনীরা, যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি দল আসলেন তখন হাতে লাঠি নিয়ে তাদের কাছে নালিশ করতে গেলেন। নালিশ করা তাদের রাজনীতি। পুরোন অভ্যাস। জনগণের কাছে নালিশ করার চেয়ে তারা বিদেশিদের কাছে নালিশ করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে। তারা নালিশ করবে আর আমরা চুপচাপ বসে থাকব তা তো হতে পারে না।

ওবায়দুল কাদের বলেন, সারা দুনিয়ায় তথ্যপ্রবাহের যে গতি কোন সত্যই কেউ লুকিয়ে রাখতে পারেনা। বিএনপির ৪০ হাজার, ৫০ হাজার নেতা-কর্মী জেলে আছে, এ উদ্ভট দাবিও তারা করেছে। এই দাবি করার পর হঠাৎ করে দেখলাম মুক্তি পেল কয়েকজন। সেই সংখ্যা ৪০ হাজার থেকে চার হাজারে নেমে এসেছে।

সড়ক, পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী আরও বলেন, অচিরেই ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে সার্ভিস লেন করা হবে। মহাসড়কটি অচিরেই ছয় লেনে উন্নীত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ভবিষ্যতে মহাসড়কটিকে এলিভেটেড এক্সপ্রেসে রুপান্তর করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে।

এ সময় সেতুমন্ত্রী বলেন, সামনে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। এটিকে উম্মুক্ত করা হয়েছে। দল এবার কাউকে দলীয় মনোনয়ন দেবে না। নিজের যোগ্যতা প্রমাণের মাধ্যমে বিজয়ী হয়ে আসতে হবে। এবার নিজের যোগ্যতা প্রমাণ করার সুযোগ এসেছে।

তিনি বলেন, নোয়াখালী ফেনী মহাসড়ক চার লেন হয়েছে। এটি কল্পনাও কেউ করেনি কেউ আগে। এলাকাটি অন্ধকার ছিল এখন সেটি প্রশস্ত। এ অঞ্চলের মানুষ এমন পরিবর্তনকে গ্রহণও করেছে।

তিনি আরও বলেন, দেশের সাধারণ নির্বাচন অনেক প্রতিকুলতা চক্রান্ত প্রতিহত করে সম্পূর্ণ হয়েছে। সংশয় ছিল নির্বাচন হবে কী হবে না। বঙ্গবন্ধু কন্যা নির্ভীক ছিলেন। তিনি দেশের জনগণও সংবিধানের কমিটমেন্ট পূরণ করেছেন। অনেক ষড়যন্ত্র, সন্ত্রাস হয়েছে। তিনি অকুতভয়ে লক্ষের পথে এগিয়ে গেছেন। জীবনের ঝুঁকি নিয়েও তিনি তার কর্তব্য সম্পাদন করেছেন।

এসময় ফেনী-২ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন হাজারী, ফেনী জেলা প্রশাসক মুছাম্মৎ শাহীনা আক্তার, ফেনী অতিরিক্ত পুলিশ সুপার দ্বীন মোহাম্মদ, দাগনভূঞা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান দিদারুল কবির রতন, সোনাগাজী উপজেলা চেয়ারম্যান জহির উদ্দিন মাহমুদ লিপটন, ফেনী সদর উপজেলা চেয়ারম্যান শুসেন চন্দ্র শীল, ফেনী পৌরসভার মেয়র নজরুল ইসলাম স্বপন মিয়াজী, দাগনভূঞা পৌর মেয়র ওমর ফারুক খান, দাগনভূঞা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নিবেদিতা চাকমা, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মেহরাজ শারবীন, দাগনভূঞা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল হাসিম, দাগনভূঞা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মাষ্টার কামাল উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন মামুন, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আবুল ফোরকান বুলবুল, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মামুন উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



ধানের গোলায় আগুন, মামলা করে বিপাকে বাদী

প্রকাশিত:শনিবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
মো. নাঈম, রাজাপুর (ঝালকাঠি) প্রতিনিধি

Image

ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার শুক্তাগড় গ্রামের ব্রিজের উপরে ছয় একর জমির ধানের গোলায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় মামলা দায়ের করে বিপাকে পড়েছেন বাদী কৃষক শহিদুল ইসলাম। আসামিরা বাদীকে বিভিন্ন ধরনের হুমকি দিচ্ছে। রবি মৌসুমে কৃষিতে ক্ষতিসাধন করে এলাকা ছাড়া করার হুমকি দিচ্ছে বলে বাদীর অভিযোগ করেন।

মামলায় সূত্রে জানা গেছে, প্রান্তিক কৃষক হিসেবে মো. শহিদুল ইসলামের নিজের চাষাবাদের জমি নেই। তাই নগদ টাকায় বার্ষিক চুক্তিতে ছয় একর জমিতে আমন আবাদ করেছিলেন। ধান পাকলে শ্রমিক নিয়ে কেটে শুক্তাগড় এলাকার একটি ব্রিজের উপরে ধান মাড়াইয়ের অপেক্ষায় স্তুপ করে রাখা হয়। আগে থেকেই স্থানীয় করেকজন তার ধান ক্ষতিগ্রস্ত করার হুমকি দেয়। এজন্য তাকে ধানের স্তুপে নিয়মিত পাহারা দিতে হতো। গত ২২ জানুয়ারি রাত সাড়ে ৩টায় পাহারা ছেড়ে বাড়িতে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে গেলে সেই সুযোগে পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী ওৎ পেতে থাকা হালিম, মনিরসহ আরও ২/৩ জন ধানের স্তুপে অগ্নিসংযোগ করে। আগুন জ্বলতে দেখে চিৎকার দিয়ে দৌড়ে এসে আগুন নিভানোর চেষ্টার ফাঁকে দুষ্কৃতিকারীরা পালিয়ে যায়। প্রতিবেশিরাও ছুটে এলে তাদের পালিয়ে যেতে দেখে। পরে ফায়ার সার্ভিসের দমকল বাহিনী এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এতে ২শ মণ ধান পুড়ে ৩ লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়। এ ঘটনায় গত ২৬ জানুয়ারি রাজাপুর থানায় মামলা দায়ের করেন।

শহিদুল ইসলাম অভিযোগ করে জানান, আসামিরা সাকরাইল হাটে প্রকাশ্যে ঘোরাফেরা করছে। ধান পোড়ার ঘটনায় থানায় মামলা দিলেও পুলিশ আসামিদের আটক করেনি। আমি প্রায় ৩ বিঘা জমিতে রবি মৌসুমে কৃষি আবাদ করেছি। তাতেও নাশকতা করে আমাকে সর্বশান্ত বানিয়ে এলাকা ছাড়া করার হুমকি দিচ্ছে। চরম নিরাপত্তাহীনতায় পরিবার নিয়ে দিনাতিপাত করছি।

হুমকির ব্যপারে আসামি মনিরের নাম্বারে একাধিক বার কলদিলেও বন্ধ পাওয়ায় যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে রাজাপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মু. আতাউর রহমান বলেন, মামলায় আসামিরা জামিনে আছে। বাদীকে হুমকি দিলে তিনি আইনি সহয়তা নিতে পারেন। এরপর তদন্ত করে পরবর্তী আইনিগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরও খবর



বিশ্ববাজারে আবারো কমেছে জ্বালানি তেলের দাম

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

আন্তর্জাতিক বাজারে আবারও কমেছে জ্বালানি তেলের দাম। সোমবার সকালে এশিয়ার বাজারে তেলের দাম কমেছে। গত সপ্তাহে তেলের দাম ২ থেকে ৩ শতাংশ কমেছিল। দাম কমার ধারাবাহিকতা বজায় রয়েছে এ সপ্তাহেও। অর্থাৎ, যুক্তরাষ্ট্রের নীতি সুদহার শিগগিরই কমছে না-বাজারে এই খবর চাউর হওয়ার প্রভাব পড়েছে তেলের বাজারে।

সোমবার সকালে এশিয়ার বাজারে ব্রেন্ট ক্রুড তেলের দাম ব্যারেলপ্রতি ৩৪ সেন্ট কমে ৮১ দশমিক ২৮ ডলারে নেমে এসেছে; অন্যদিকে ইউএস টেক্সাস ইন্টারমিডিয়েট বা ডব্লিউটিআই ক্রুডের দাম ৩৩ সেন্ট কমে ব্যারেলপ্রতি ৭৬ দশমিক ১৬ ডলারে নেমে এসেছে। রয়টার্স।

এদিকে আর্থিক প্রতিষ্ঠান এএনজেডের বিশ্লেষকেরা বলেছেন, তেলের দাম বাড়তে পারে এমন কোনো নতুন বাস্তবতা তৈরি হয়নি। একদিকে ওপেক ও সহযোগী সদস্যদেশগুলো তেলের উৎপাদন হ্রাস করছে; অন্যদিকে চীনের মতো দেশে চাহিদা কমে গেছে। বাস্তবতা হচ্ছে, তেলের বাজার এই দুই বিপরীতমুখী প্রবণতার মধ্যে আটকা পড়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের এনার্জি ইনফরমেশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশন গত সপ্তাহে বলেছে, ১৬ ফেব্রুয়ারি শেষ হওয়া সপ্তাহে জ্বালানি তেলের মজুত ৩৫ লাখ ব্যারেল বৃদ্ধি পেয়ে ৪৪ কোটি ২৯ লাখ ব্যারেলে উন্নীত হয়েছে। বার্তা সংস্থা রয়টার্স বিশ্লেষকদের নিয়ে যে জরিপ করেছিল, এই মজুত বৃদ্ধি তার সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ।


আরও খবর
পেট্রোল রপ্তানি নিষিদ্ধ করল রাশিয়া

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

বাড়িঘর পুড়িয়ে ছাই করে দিচ্ছে জান্তা সরকার

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪