আজঃ শুক্রবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩
শিরোনাম

ভূখণ্ড পুনরুদ্ধারে কয়েকশ’ ট্যাংক প্রয়োজন: ইউক্রেন

প্রকাশিত:বুধবার ২৫ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২৫ জানুয়ারী ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

রুশ দখলদারিত্ব থেকে ভূখণ্ড পুনরুদ্ধারে পশ্চিমা মিত্রদের কাছ থেকে কয়েকশ ট্যাংক প্রয়োজন ইউক্রেনের। মেসেজিং অ্যাপ টেলিগ্রামে দেওয়া পোস্টে এমন মন্তব্য করেছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির চিফ অব স্টাফ আন্দ্রি ইয়ারমাক। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা।

আন্দ্রি ইয়ারমাক বলেন, আমাদের ট্যাঙ্ক দরকার। ১০-২০টি নয়, বরং কয়েকশ। তার দেশের লক্ষ্য হলো ১৯৯১ সালের সীমান্ত পুনরুদ্ধার করা। শত্রুদের তাদের অপরাধের জন্য মূল্য দিতে হবে।  ইউক্রেনের সীমানা বলতে ১৯৯১ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পর দেশটির যে ভূখণ্ড ছিল সেটির প্রতি ইঙ্গিত করেছেন তিনি।

এদিকে মিত্রদের চাপের মুখে ইউক্রেনকে নিজদের উন্নতপ্রযুক্তির লেপার্ড ট্যাংক সরবরাহে রাজি হয়েছে জার্মানি। তবে এই ট্যাংক সরবরাহ করলে কিয়েভকে পরিণতি ভোগ করতে হবে হুঁশিয়ারি দিয়েছে মস্কো। সোমবার রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের দফতর ক্রেমলিনের মুখপাত্র মিদিত্রি পেসকভ বলেছেন, জার্মানির তৈরি লেপার্ড-২ ট্যাংক পাঠানো নিয়ে জোটের সদস্যদের মধ্যে স্নায়ুচাপ ক্রমাগত বাড়ছে। ইউক্রেনকে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে যেসব দেশ অস্ত্র পাঠানোর চেষ্টা চালাচ্ছে, তারা সবাই এর জন্য দায়ী। কারণ ইউক্রেনের জনগণকে এর জন্য মূল্য দিতে হবে।

এর আগে রুশ আগ্রাসন মোকাবিলায় ইউক্রেনে লেপার্ড ট্যাংক পাঠাতে পোল্যান্ডকে বাধা দেবে না বলে ঘোষণা দেয় জার্মানি। জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে প্রশ্ন ছিল, পোল্যান্ডের কাছে থাকা তার দেশের তৈরি লেপার্ড ২ ব্যাটল ট্যাংক ইউক্রেনে পাঠাতে চাইলে বার্লিন বাধা দেবে কিনা? উত্তরে আনালেনা বেয়ারবক বলেন, এখনও পর্যন্ত এমন কোনও প্রশ্ন করা হয়নি। তবে যদি জানতে চাওয়া হয় তাহলে বার্লিন এক্ষেত্রে কোনও বাধা হয়ে দাঁড়াবে না।


আরও খবর



মেহেরপুরে ভেজাল বীজে কপাল পুড়লো বাঁধাকপি চাষিদের

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
মেহেরপুর প্রতিনিধি

Image

মেহেরপুর সদর উপজেলার চকশ্যামনগর-বন্দর মাঠে ভেজাল বীজে ফলন বিপর্যয় ঘটেছে বাঁধাকপিতে। নিম্নমানের বীজ সরবরাহ করায় প্রায় একশ বিঘা জমির বাঁধাকপির পাতা না বাঁধায় মাথায় হাত চাষিদের। এতে অন্তত প্রায় অর্ধ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করেছেন কৃষকরা। জেবিটি সিডসের রাজাসান বাঁধাকপির বীজ কিনে এধরণের ক্ষতির মুখে পড়েছেন চাষিরা।

সরেজমিনে চকশ্যামনগর-বন্দর মাঠে দেখা যায়, নিম্নমানের বীজ সরবরাহ করায় মাঠের পর মাঠ বাঁধাকপির আবাদ হলেও কপির পাতা বাঁধেনি। কপির পাতা কুকড়িয়ে ও পঁচে যাচ্ছে। জেবিটি সিডসের রাজাসান কপির বীজ কিনে চাষিরা বেশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হলেও কপির পাতা না বাঁধার কারণে অনেকে কপি নষ্ট করে জমি চাষ দিচ্ছেন অন্য ফসল আবাদ করার জন্য।

চাষিরা জানায়, স্থানীয় চকশ্যামনগর-বন্দর এলাকার সার ব্যবসায়ী আনারুলের কাছে থেকে জেবিটি সিডসের সরবরাহকৃত রাজাসান বীজ ব্যবহার করা হয়। বীজ থেকে গাছ জন্মালেও এখন পাতা বাঁধছে না। অন্যরা অন্যান্য কোম্পানির দেওয়া বীজ রোপন করে তারা বাঁধাকপি বাজারে তুলেছেন। অথচ জেবিটি কোম্পানির রাজাসান কপি আজও পাতা বাঁধেনি।

চাষিরা আরও জানান, একেকটি গাছের ৩-৪টি ডগা গজিয়েছে। আবার অনেকটা পাতা কোকড়ানো। পাতা পচে যাচ্ছে। সার বীজ দিয়েও কোনো লাভ হচ্ছে না। বিঘাপ্রতি ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে এ কপি চাষে। চাষিদের দাবি বীজ ব্যবসায়ীরা এগিয়ে আসলে তাদের ক্ষতি কিছুটা হলেও পুষিয়ে আসবে।

ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক কালু মন্ডল বলেন, স্থানীয় বীজ ডিলার আনারুলের কাছে রাজাসান জাতের  বীজ কিনে এক বিঘা জমিতে কপি রোপন করি। এতে আমার ১২ হাজার টাকা খরচ হয়ে গেছে। অন্যরা কপি বিক্রি করলেও আমার কপি এখনও পাতা বাঁধেনি। উপায় না পেয়ে সমস্ত চারা ভেঙ্গে জমি চাষ দিয়েছি। এখন অন্য জাতের বাঁধাকপি বা অন্য ফসল করতে হবে।

ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক মিলন বলেন, ১৫ হাজার টাকায় জমি লীজ নিয়ে আনারুলের কাছ থেকে রাজাসান জাতের বীজ নিয়ে কপি আবাদ করেছিলাম। কপিতেও ১৫ হাজার টাকা খরচ হয়ে গেছে। এখন কপির পাতা বাঁধছেনা। কপির পাতা কুকড়ে যাচ্ছে, পচে যাচ্ছে। আনারুল আমাদের আসল রাজাসান বীজের কথা বললেও এখন দেখছি এগুলো ভেজাল বীজ। এমন অবস্থায় আমরা প্রতিকার চাই।

ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক আনিছদ্দিন বলেন, আমি দীর্ঘদিন ধরে কপি চাষ করে আসছি। অন্যান্য জাতের কপি চাষ করি। এ বছরে আনারুল রাজাসান কপি ভালো বলে প্রচার প্রচারণা চালালে আমি আনারুলের কাছ থেকে বীজ সংগ্রহ করি। ১ মাস ৫ দিন পেরিয়ে গেলেও এখনও কপির পাতা বাঁধেনি। এবিষয়ে আনারুলকে অবগত করলেও কোন ব্যবস্থা হচ্ছে না। মাঠে অন্য জাতের কপি বেচাকেনা চলছে। কিন্তু আমাদের কপি এখনও পাতাই বাঁধেনি। আমরা বড় ক্ষতির মধ্যে পড়েছি। কি করবো আমরা। এ অবস্থায় ক্ষতি পুরুন দাবী করেন ক্ষতিগ্রস্থ আবাদিরা।

আরেক ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক নাজের আলী বলেন, আমি গত চার বছর যাবৎ রাজাসান কপি চাষ করছি। গত বছরে ভালো ফলন পেয়েছিলাম। এবছরে মেহেরপুর বড়বাজারের সুমনা বীজ ভান্ডার থেকে বীজ সংগ্রহ করেছি। সুমন বলেছিল বীজের দাম একটু বেশি লাগবে কিন্তু বীজ ১ নম্বর হবে। তার কথামতো বীজ নিয়ে চারা দিই কিন্তু আজ ৩৭ দিন পার হলেও কপির পাতা বাঁধার কোন আকার দেখতে পাচ্ছি না। এই কপি চাষে আমি ৬০ হাজারের উপরে খরচ করেছি। আমি ধারদেনা করে কপিতে খরচ করেছি।

এ বিষয়ে আনারুল ইসলাম বলেন, মূলত সার ও বিষের ব্যবসা। মেহেরপুর বড় বাজারের সুমনা বীজ ভান্ডার থেকে বীজ এনে চাষীদের দিয়েছিলাম। কপির পাতা বাঁধেনি বিষয়টি শুনেছি। এবিষয়ে সুমনের সাথে যোগাযোগ করা হয়েছে কিন্তু তার কোন সাড়া মিলছে না। বিভিন্ন ভাবে সে সময় ক্ষেপন করছে।

সুমনা বীজ ভান্ডারের স্বত্বাধিকারী মোহাম্মদ সুমন বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, কোন বীজ বিক্রিই করিনি। যে চাষী এ সব কথা বলেছে তাকে চিনি না।

মেহেরপুর সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন জানান, চাষিদের কাছ থেকে বিষয়টি শুনেছি। চাষিদের লিখিত অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরও খবর



বিএসএমএমইউ’তে বিশ্ব ফুসফুস দিবস-২০২৩ পালিত

রোগ প্রতিরোধ ও জীবন রক্ষায় ফুসফুসকে সুস্থ রাখতে হবে: শারফুদ্দিন আহমেদ

প্রকাশিত:সোমবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
প্রেস বিজ্ঞপ্তি

Image

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) নানা আয়োজনে বিশ্ব ফুসফুস দিবস-২০২৩ পালিত হয়েছে। সোমবার সকাল ৯টায় (২৫ সেপ্টেম্বর) দিবসটি উপলক্ষে বার্ণঢ্য শোভাযাত্রা ও সেমিনারের আয়োজন করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের রেসপিরেটরি মেডিসিন বিভাগ। সকাল ৯টায় বি ব্লকের সামনে থেকে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা শুরু হয়ে ডি-ব্লকে গিয়ে শেষ হয়। পরে ডি ব্লকের ১৬ তলায় রেসপিরেটরি মেডিসিন বিভাগে একটি বৈজ্ঞানিক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

এসব কর্মসূচিতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, ধূমপানের কারণে ফুসফুসের ক্যান্সারসহ নানা ধরণের রোগের সৃষ্টি হয়। ধূমপান বন্ধে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন পুরোপুরি বাস্তবায়ন ও জোরদার করতে হবে। সুস্থ ফুসফুসের জন্য প্রয়োজন বিশুদ্ধ অক্সিজেন। তাই পর্যাপ্ত বিশুদ্ধ অক্সিজেন নিশ্চিত করতে বেশি করে গাছ লাগাতে হবে। ফুসফুসের রোগ বিষয়ে গবেষণা কার্যক্রমও জোরদার করতে হবে। রোগ প্রতিরোধ ও জীবন রক্ষায় ফুসফুসকে সুস্থ রাখতে হবে।

সভাপতির বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানিত উপ-উপাচার্য (একাডেমিক) ও রেসপিরেটরি মেডিসিন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. একেএম মোশাররফ হোসেন বলেন, সারা পৃথিবীতে প্রতি বছর ৪৫ কোটি লোক ফুসফুসের রোগে ভোগে। ৪ কোটি লোক মারা যায়। ফুসফুসের রোগ এখন মৃত্যুর তৃতীয় কারণ। বিশ্ব ফুসফুস দিবস পালনের উদ্দেশ্য হল ফুসফুস কে ভালো রাখা। ফুসফুস আমাদের শরীরের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। তাই ফুসফুসকে ভালো রাখার জন্য জনসচেতনতা তৈরী এই বিশেষ দিবসের মূল উদ্দেশ্য। পরিবেশগত বিভিন্ন কারণে এবং বিভিন্ন জীবাণু দ্বারা ফুসফুস আক্রান্ত হয়ে আমাদের স্বাস্থ্য মারাত্মক ঝুঁকির মুখে পড়তে পারে। যেমন কোভিড-১৯ এর একটি অন্যতম উদাহরণ। এছাড়া আবহাওয়া গত কারণে হাঁপানী, সিওপিডি এসব রোগের প্রাদুর্ভাব বর্তমানে উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। পরিবেশগত দূষণ, ধুমপান এই হার আরও বৃদ্ধি করছে। চিকিৎসার চেয়ে প্রতিকার গুরুত্বপূর্ণ তাই জনসচেতনতার কোন বিকল্প নাই। বর্তমানে যক্ষ্মা, সিওপিডি, হাঁপানী, ডিপিএলডি রোগের রোগীর সংখ্যাও বৃদ্ধি পাচ্ছে, যা হাসপাতালের সক্ষমতার উপর চাপ সৃষ্টি করছে। এই দিন উৎযাপনের মাধ্যমে আমরা জনসচেনতা সৃষ্টি করতে চাই। যাতে সমাজের সর্বস্তরের মানুষ স্বাস্থ্য সুবিধা গ্রহণ করতে পারে। যেমন কোভিড-১৯ প্রাদুর্ভাবের সময় আমরা সকলের জন্য অক্সিজেন, ঔষধ এবং আইসিইউ নিশ্চিত করার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি। এভাবেই বিশ্ব ফুসফুস দিবস সমাজের সর্বস্তরে মানুষের মাঝে আমরা প্রচার করতে চাই যে সকলের জন্য বক্ষব্যাধি সমূহের স্বাস্থ্য সেবা, বাদ যাবে না একজনও

বৈজ্ঞানিক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বক্ষব্যধি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. রাজাশিস চক্রবর্তী ও সহযোগী অধ্যাপক ডা. সম্প্রীতি ইসলাম। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ডা. ছন্দা সুলতানা ডোরা। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন এসিআই ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড এর পরিচালক (মার্কেটিং অপারেশন্স) মোঃ মুহসিন মিয়া। এসিআই ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড এর সহায়তায় অনুষ্ঠিত শোভাযাত্রা ও সেমিনারে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেন্টাল অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আলী আসগর মোড়ল, নার্সিং অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. দেবব্রত বনিক, প্রক্টর অধ্যাপক ডা. মোঃ হাবিবুর রহমান দুলাল, নিউরোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. আবু নাসার রিজভী, মেডিসিন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মোঃ আবুল কালাম আজাদ প্রমুখসহ রেসপিরেটরি মেডিসিন বিভাগের শিক্ষক, চিকিৎসক, রেসিডেন্ট শিক্ষার্থীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

নিউজ ট্যাগ: বিএসএমএমইউ

আরও খবর



উলিপুরে মামলার সঠিক তদন্ত ও অপরাধীর শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
উলিপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি

Image

কুড়িগ্রামের উলিপুরে বর্বরোচিত এসিড নিক্ষেপ ঘটনায় সুষ্ঠু তদন্ত না করে মামলার চুড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিলের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। গতকাল শুক্রবার দুপুরে উপজেলার হাতিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সামনে এ বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

প্রায় ঘন্টা ব্যাপী অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধনে এসিড সন্ত্রাসের শিকার স্বরশ্বতী রানী সহ স্থানীয়রা উপস্থিত ছিলেন।

জানা গেছে, জমি জমা সংক্রান্ত বিরোধে জের ধরে গত বছর ১০ সেপ্টেম্বর রাতের অন্ধকারে স্বরশ্বতী রাণীর উপর এসিড হামলা চালায় প্রতিপক্ষরা। তার আত্মচিৎকার শুনে এলাকাবাসীরা তাকে উদ্ধার করে কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করায়। এডিস সন্ত্রাসের শিকার স্বরশ্বতী রানী বাদী হয়ে উলিপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব পায় উলিপুর থানার এস আই আনিছুর রহমান। তদন্তকারী ওই কর্মকর্তা মামলাটির তদন্তভার পেয়ে ১ মাসের মধ্যেই চুড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন।

বিষয়টি জানতে পেরে বাদীসহ স্বাক্ষীদের জবানবন্দী না নিয়ে চুড়ান্ত প্রতিবেদন দেয়ার অভিযোগে আদালতে আপত্তি জানান বাদী। শুনানীর পর বিজ্ঞ আদালত মামলাটি অধিকতর তদন্তের জন্য সিআইডিকে নির্দেশ দেন। হতদরিদ্র গৃহবধু স্বরশ্বতী রানীর উপর বর্বরোচিত এসিড নিক্ষেপ মামলার সঠিক তদন্ত ও অপরাধীদের শাস্তির দাবীতে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

এতে বক্তব্য রাখেন, মামলার বাদী স্বরশ্বতী রানী, আফজাল হোসেনসহ আরো অনেকে।


আরও খবর



তিন বিভাগে অতিভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস

প্রকাশিত:সোমবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

রাজধানী ঢাকাসহ দেশের সব বিভাগে বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে বাংলাদেশ আবহাওয়া অফিস। এ ছাড়া দেশের ৩ বিভাগে ভারী থেকে অতিভারী বর্ষণ হতে পারে বলে আশঙ্কা রয়েছে। সোমবার (২৫ সেপ্টেম্বর) সকালে আবহাওয়া অধিদপ্তরের দেওয়া এক বিজ্ঞপ্তি থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

এতে বলা হয়েছে, সোমবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের অধিকাংশ জায়গায়, ময়মনসিংহ, ঢাকা, খুলনা ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায় এবং বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। 

আরও পড়ুন>> সমুদ্রের মাঝে ফ্রান্সের রহস্যে ভরা মঠ

আবহাওয়া অফিস বলছে, মৌসুমি বায়ুর অক্ষ ভারতের পাঞ্জাব, উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ, বিহার, পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চল হয়ে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। এর একটি বাড়তি অংশ উত্তর বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত। মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশে মোটামুটি সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে মাঝারি অবস্থায় রয়েছে।

এ ছাড়া আবহাওয়াবিদ মো. মনোয়ার হোসেনের স্বাক্ষর করা এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সক্রিয় মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে রংপুর, রাজশাহী এবং ময়মনসিংহ বিভাগের কোথাও কোথাও ভারী (৪৪-৮৮ মিলিমিটার) থেকে অতিভারী (৮৯ মিলিমিটার বা তারও বেশি) বর্ষণ হতে পারে।

এ সময় সারা দেশে তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে বলে ধারণা করছে আবহাওয়া অফিস।


আরও খবর
ঢাকাসহ ১৪ জেলায় ঝড়ের পূর্বাভাস

শুক্রবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩




আজ সূর্যের উদ্দেশে মহাকাশযান পাঠাবে ভারত

প্রকাশিত:শনিবার ০২ সেপ্টেম্বর 2০২3 | হালনাগাদ:শনিবার ০২ সেপ্টেম্বর 2০২3 | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

চাঁদের বুকে সফলভাবে অবতরণের পর আজ শনিবার সূর্যের উদ্দেশে মহাকাশযান পাঠাবে ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরো। চাদেঁর দক্ষিণ মেরুতে প্রথমবারের মতো চন্দ্রযান পাঠানোর কয়েক দিন পরই সূর্যের দিকে নজর দিয়েছে ভারত। খবর বিবিসি।

আদিত্য-এল ১ নামের মহাকাশযানটি আজ ভারতীয় সময় বেলা ১১টা ৫০ মিনিটে শ্রীহরিকোটার লঞ্চ প্যাড থেকে উৎক্ষেপণ করা হবে। এরপর এটিকে পৃথিবী ও সূর্যের মধ্যবর্তী এল-১ পয়েন্টে একটি কক্ষপথে স্থাপন করা হবে। এই পয়েন্টের দূরত্ব পৃথিবী থেকে ১৫ লাখ কিলোমিটার, যা পৃথিবী ও সূর্যের দূরত্বের এক ভাগ। আর এই দূরত্ব অতিক্রম করতে মহাকাশযানটির চার মাস সময় লাগবে।

ইসরো জানিয়েছে, একবার মহাকাশযানটি উড্ডয়ন করলে এল-১ পয়েন্টের দিকে উৎক্ষেপণের আগে বেশ কয়েকবার পৃথিবীর চারপাশে প্রদিক্ষণ করবে।

সংস্থাটি বলছে, এই কক্ষপথের সুবিধা হলো, সেখান থেকে কোনো প্রতিবন্ধকতা ছাড়াই সব সময় সূর্যের বিভিন্ন কার্যকলাপ পর্যবেক্ষণ করা যাবে। এ ছাড়া মহাকাশের পরিবেশের ওপর সূর্যের প্রভাব সম্পর্কেও জানতে পারবে মানুষ।

এবারের সূর্য অভিযানে কত টাকা খরচ হচ্ছে সে সম্পর্কে কিছু জানায়নি ভারতীয় মহাকাশ সংস্থা। তবে দেশটির গণমাধ্যমের খবরে বলা হচ্ছে, এবারের মিশনে ৪ কোটি ৬০ লাখ মার্কিন ডলার খরচ হবে।

গত ২৩ আগস্ট সন্ধ্যা ৬টা ৪ মিনিটে চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে মাটিতে সফলভাবে অবতরণ করে ভারতের চন্দ্রযান-৩। এর আগে এ অঞ্চলের বিষয়ে অজানা ছিল মানুষের। তবে এটি সেখানে সফলভাবে অবতরণ করায় গবেষণায় নতুন দ্বার খুলবে বলে আশা ভারতীয় বিজ্ঞানীদের।

এর আগে রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মহাকাশযান চাঁদের মাটি স্পর্শ করেছে। গত মাসে এ তালিকায় চতুর্থ দেশ হিসেবে নিজেদের নাম যোগ করেছে ভারত। আর এবার আদিত্য-এল ১ অভিযান সফল হলে সূর্যে মহাকাশযান পাঠানো জাপান, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে নিজেদের নাম যুক্ত করতে পারবে ভারত।

নিউজ ট্যাগ: ভারত ইসরো

আরও খবর