আজঃ শনিবার ১৫ জুন ২০২৪
শিরোনাম

যারা বলে বিমান লাভে নাই, আল্লাহ তাদের হেদায়েত দান করুক: বিমানের এমডি

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের এমডি শফিউল আজিম বলেছেন, যারা বলে বিমান লাভে নাই, আল্লাহ তাদেরকে হেদায়েত দান করুক। বিমানে গত ১০ বছরে ৮ বছরই লাভ ছিল। তবে দুই বছর লস হয়েছে। বুধবার (২৯ মে) এক এভিয়েশন ও ট্যুরিজম জার্নালিস্ট ফোরামের (এটিজেএফবি) সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন।

এমডি শফিউল আজিম বলেন, ওই দুই বছরের এক বছর করোনা ভাইরাসের আধিক্য ছিল, আরেকবার আমাদের মোটা অঙ্কের পেমেন্ট পরিশোধ করতে হয়েছিল। তাছাড়া গত বছর ডলারের সমস্যা ছিল, বিশ্বে দুইটি যুদ্ধ চলমান, এর মধ্যেও আমরা লাভ করেছি। বিশ্বমানের প্রতিষ্ঠান দিয়ে অডিট করা হয়েছে আমাদের লাভের বিষয়ে। আমরা বিমানে নিয়মিত নিয়োগ দিচ্ছি, বেতন দিচ্ছি, বোনাস দিচ্ছি, প্রোফিট বোনাস দিচ্ছি। লাভ না হলে এসব টাকা কোথা থেকে আসছে?

তিনি বলেন, এয়ারবাস ফ্লাইট কেনার জন্য দুইটা প্রস্তাব দিয়েছিল। প্রথম প্রস্তাবে দুইটা কার্গো ফ্লাইট বিক্রির কথা বলা হয়েছিল। তবে আমাদের মনে হয়েছে, আপাতত আমাদের কার্গো বিমান কেনার দরকার নাই। পরে আমরা যাত্রীবাহী বিমান বহর বাড়ানোর ইচ্ছার কথা জানাই। তখন এয়ারবাস আমাদের ৪টি যাত্রীবাহী ফ্লাইট বিক্রির দ্বিতীয় প্রস্তাব পাঠায়। এই প্রস্তাব আগের প্রস্তাবের চেয়ে ভালো ছিল। সেই প্রস্তাব ইভ্যালুয়েশন কমিটি থেকে বিমানের বোর্ডে যায়। বোর্ড এ বিষয়ে আগানোর নির্দেশনা দিয়ে নেগোসিয়েশন কমিটিতে পাঠিয়েছে।

এমডি শফিউল আজিম বলেন, বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ এয়ারক্রাফট তৈরির প্রতিষ্ঠান এয়ারবাস থেকে যাত্রীবাহী এয়ারক্রাফট কেনা হবে। আমরা এখন এয়ারবাসের অফারগুলোকে গুরুত্ব দিচ্ছি। আমাদের বহরের সব বড় এয়ারক্রাফট বোয়িংয়ের (২১ টির মধ্যে ১৬ টি বোয়িং)। কিছু ডাইভার্সিটি, নতুন এয়ারক্রাফট থাকলে যাত্রীরাও পছন্দ করবে।

এমডি বলেন, যেকোনো সময় যেকোনো কোম্পানির এয়ারক্রাফট খারাপ পারফর্ম করতে পারে, তখন যেন রিস্কে না পড়ি সে কারণে আমরা ডাইভার্সিফাইয়ের কথা ভাবছি।

বোয়িংয়ের প্লেন বিক্রির প্রস্তাব নিয়ে তিনি বলেন, বোয়িংও আমাদের প্রস্তাব দিয়েছে। আমরা সেটাও ইভ্যালুয়েট করব। বোয়িংয়ের সঙ্গে আমাদের দীর্ঘদিনের ভালো সম্পর্ক। শুধু প্লেন কেনা-বেচা সম্পর্ক না, তাদের টেকনিক্যাল সাপোর্ট ভালো, ক্রেডিট ফ্যাসিলিটি ভালো। সবমিলিয়ে আমরা একসঙ্গে ভালোভাবে কাজ করে যাচ্ছি। তবে যে এয়ারক্রাফটই কিনি না কেন দুই প্রতিষ্ঠানের প্রতিযোগিতামূলক প্রস্তাবে ক্রেতা হিসেবে সুবিধাজনক অবস্থানে আছি।

এমডি থাকা অবস্থায় নিজের কার্যক্রম তুলে ধরে তিনি বলেন, বিমানে চাকরি করা অবস্থায় আমি কোনো কর্মীকে মূল্যায়ন করতে কার্পণ্য করিনি, শাস্তি দিতেও কার্পণ্য নয়। আমি খুব ভাগ্যবান, বিমানবন্দরে কাজ করার সময় কোনো পর্যায় থেকে চাপ আসেনি। আমি আমার অথরিটিকে শতভাগ ব্যবহার করতে পেরেছি। চেষ্টা করলে বিমানকে পৃথিবীর বড় বড় এয়ারলাইন্সের কাতারে নিয়ে যাওয়া সম্ভব।

বিমানে অল্প সময়ের মধ্যে এমডি ও সিইও পরিবর্তন হয়। বিমানের জন্য দীর্ঘমেয়াদি এমডির প্রয়োজনীয়তা রয়েছে কি না জানতে চাইলে এমডি বলেন, বিমানের হিউম্যান রিসোর্স ও টেকনিক্যাল রিসোর্স মানসম্মত। যেকোনো প্রতিষ্ঠানে সিস্টেম ও স্ট্রাকচার দাড় করানোর গেলে এমনিতেই কাজ হবে। আমি এসব সিস্টেম ও স্ট্রাকচার দাড় করানোর চেষ্টা করেছি। সিস্টেম ঠিক থাকলে কোন নির্দিষ্ট ব্যক্তির ওপর প্রতিষ্ঠান নির্ভর করবে না।

তিনি বলেন, আমার সুপারিশ থাকবে যারা বিভিন্ন টেকনিক্যাল বিভাগে কাজ করছে সেখানে যেন বয়স বিবেচনা না করা হয়। কারণ টেকনিক্যাল ফিল্ডে বয়স যত বাড়ে অভিজ্ঞতা তত বাড়ে। অভিজ্ঞদের বয়স বিবেচনা না করে অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে বিমানে রেখে দিতে হবে। বিমানকে সরকারি অফিসের মনমানসিকতা প্র‍্যাক্টিস করলে বিমান কাজ করবে না। এটা বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান। সব কিছু বাণিজ্যিকভাবে চিন্তা করতে হবে।

আপনার কোনো আক্ষেপ আছে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমার দায়িত্বপালনের সময়ের মধ্যে যদি বিমানের বহরে ৪ টা এয়ারক্রাফট অ্যাড হতো, তাহলে খুবই খুশি হতাম। আমি চাইতাম ৫০টা এয়ারলাইন্সের মালিক হোক।

মতবিনিময় সভায় এটিজেএফবির সভাপতি তানজিম আনোয়ার, সহ-সভাপতি রাজীব ঘোষ, সাধারণ সম্পাদক বাতেন বিপ্লব, সাংগঠনিক সম্পাদক ইমরুল কাউসার ইমনসহ এটিজেএফবির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে রোববার (২৬ মে) জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের নতুন ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার (সিইও) দায়িত্ব দেয়া হয় মো. জাহিদুল ইসলাম ভূঞাকে। পৃথক এক প্রজ্ঞাপনে শফিউল আজিম পদোন্নতি পেয়ে ইসির নতুন সচিব হয়েছেন।


আরও খবর



রোববার ভোরে পর্দা উঠছে নবম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

দিনের আলো ফুটতেই আগামীকাল (রোববার) টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের নবম আসর শুরু হবে। ডালাসের গ্র্যান্ড প্রেইরি স্টেডিয়ামে উদ্বোধনী ম্যাচে বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে ৬টায় মুখোমুখি হবে স্বাগতিক যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডা। বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম মুখোমুখি দেখায় সিরিজ জয়ের মাধ্যমে আমেরিকানরা বেশ আত্মবিশ্বাস সঞ্চয় করেছে। ১৮৪৪ সালে তিনদিনের ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল দল দুটি, যেখানে কানাডা জিতে ২৩ রানে। এই বিশ্বকাপের প্রস্তুতি ম্যাচেও তারা নেপালকে হারিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রকানাডা দুই দলই এবার প্রথম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলতে নামছে। আয়োজক হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রকে কোনো বাছাই খেলতে হয়নি, আর আমেরিকান বাছাই জিতে টিকিট পেয়েছে কানাডা। ডালাসে বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচ হতে চললেও, সেখানে সেভাবে কোনো উত্তেজনা নেই। বাংলাদেশসহ সাম্প্রতিক সময়ে বেশ কয়েকটি প্রস্তুতি ম্যাচই এখানে বৃষ্টিতে ভেসে গেছে। ফলে ৭ হাজার ধারণক্ষমতার ডালাসের গ্যালারি পুরোপুরি ভরা নিয়েও শঙ্কা রয়েছে। এ ছাড়া উদ্বোধনী অনুষ্ঠান আয়োজন নিয়েও আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানায়নি আইসিসি।

বিশ্বকাপের উদ্বোধনী দিন গায়ানায় বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ৮টায় দ্বিতীয় ম্যাচে মুখোমুখি হবে আরেক আয়োজক ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও পাপুয়া নিউগিনি। ওই ম্যাচের আগে একটি অনুষ্ঠান আয়োজনের কথা জানিয়েছে উইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ড। যুক্তরাষ্ট্রে বিশ্বকাপের আয়োজন নিয়ে সেভাবে কিছু দৃষ্টি আকৃষ্ট না হলেও, ক্যারিবীয় দ্বীপটি ব্যতিক্রম। যেখানে পা রাখা দেশগুলোর অধিনায়কদের তারা বরণ করে নিয়েছে।

প্রথমবারের মতো ২০ দলের অংশগ্রহণে হবে মেগা ইভেন্টটি। রিজার্ভ ডে থাকছে প্রথম সেমিফাইনাল ও ফাইনালে। আয়োজক দেশ দুটির টাইম জোনের সাথে ভারতীয় উপমহাদেশের সময়ের বেশ বড় পার্থক্য রয়েছে। ফলে যুক্তরাষ্ট্রে ১ জুন বিশ্বকাপের পর্দা উঠলেও, বাংলাদেশে সেটি হয়ে যাচ্ছে ২ জুন। দেশটির সঙ্গে বাংলাদেশের রয়েছে ১১ ঘণ্টার ব্যবধান। একইভাবে ক্যারিবীয় দ্বীপের সঙ্গেও ১০ ঘণ্টার ব্যবধান রয়েছে। ফলে বিশ্বকাপের কিছু কিছু ম্যাচ বাংলাদেশ সময় রাত এমনকি মধ্যরাতেও অনুষ্ঠিত হতে দেখা যাবে।

এবারের বিশ্বকাপে গ্রুপ অব ডেথখ্যাত ডি-তে পড়েছে বাংলাদেশ, দক্ষিণ আফ্রিকা, শ্রীলঙ্কা, নেদারল্যান্ডস ও নেপাল। এ ছাড়া দুই প্রতিদ্বন্দ্বী দেশ ভারত পাকিস্তান পড়েছে একই গ্রুপ । গ্রুপটিতে তাদের বাকি তিন সঙ্গী আয়ারল্যান্ড, স্বাগতিক যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডা। বি গ্রুপে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, নামিবিয়া, স্কটল্যান্ড ও ওমান খেলবে। আর সি গ্রুপে আছে নিউজিল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, আফগানিস্তান, উগান্ডা ও পাপুয়া নিউগিনি। সবমিলিয়ে ৯টি (যুক্তরাষ্ট্রের তিনটি এবং উইন্ডিজ মাটিতে ছয়টি) ভেন্যুতে হবে এবারের বিশ্বকাপ আসর। ২৯ দিনব্যাপী এই টুর্নামেন্টের ফাইনাল হবে আগামী ২৯ জুন, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বার্বাডোজে।

টুর্নামেন্টের ফরম্যাট : এবারের বিশ্বকাপে অংশগ্রহণকারী ২০টি দলকে চারটি গ্রুপে ভাগ করে প্রথমে হবে গ্রুপপর্বের খেলা। প্রতি গ্রুপে ৫টি করে দল থাকছে। গ্রুপপর্বে প্রত্যেক দল খেলবে ৪টি করে ম্যাচ। সেখান থেকে গ্রুপের শীর্ষ দুই দল যাবে সুপার এইট পর্বে। এই পর্ব থেকে বিশ্বকাপ পুরোপুরি ওয়েস্ট ইন্ডিজে অনুষ্ঠিত হবে। সুপার এইটেও চারটি করে দল নিয়ে দুটো আলাদা গ্রুপ করা হবে।

পুরো টুর্নামেন্টে ম্যাচ জয়ের জন্য থাকছে ২ পয়েন্ট করে, ফলাফল না হলে ১ পয়েন্ট এবং হেরে গেলে কোনো পয়েন্ট যোগ হবে না। টি-টোয়েন্টিতে ম্যাচ টাইয়ের কোনো সুযোগ নেই, এরকম হলে সুপার ওভারে নিষ্পত্তি হবে ম্যাচ। সুপার ওভারেও ড্র হলে, খেলার ফল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত সুপার ওভার চলবে।

রিজার্ভ ডে : এবারের বিশ্বকাপে প্লেয়িং কন্ডিশন অনুযায়ী, শুধুমাত্র প্রথম সেমিফাইনাল ও ফাইনালের জন্য একদিন করে রিজার্ভ ডে বরাদ্দ আছে। আর দ্বিতীয় সেমিফাইনালের (২৭ জুন) জন্য অতিরিক্ত ২৫০ মিনিট রাখা হয়েছে। দ্বিতীয় সেমিফাইনালেও যদি রিজার্ভ ডে রাখা হতো, তাহলে সেটি গড়াবে ২৮ জুন রাত ৮টা ৩০ মিনিটে। রিজার্ভ ডে-তে গড়ালে এই ম্যাচে যে দল জিতবে, তাদের ২৯ তারিখ ব্রিজটাউনে পৌঁছেই ফাইনালে মাঠে নেমে পড়তে হবে। কিন্তু আইসিসি চাচ্ছে ২৮ জুন ট্রাভেল ডে হিসেবে চিহ্নিত হোক এবং ২৯ জুন ফাইনাল আয়োজিত হোক।


আরও খবর



হুটার-হাইড্রোলিক হর্ন নিয়ে নতুন সিদ্ধান্ত

প্রকাশিত:শনিবার ১৮ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

মোটরযানে হুটার, হাইড্রোলিক হর্ন ও অন্যান্য অননুমোদিত হর্ন ব্যবহার না করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ)। অন্যথায় আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। গত বৃহস্পতিবার (১৬ মে) বিআরটিএর চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মজুমদারের সই করা পরিপত্রে এ কথা জানানো হয়।

পরিপত্রে বলা হয়, সড়ক পরিবহন বিধিমালা, ২০২২-এর বিধি-৮১ অনুযায়ী অ্যাম্বুলেন্স, অগ্নিনির্বাপণ বা উদ্ধারকাজে ব্যবহৃত মোটরযান অথবা রাষ্ট্রীয় জরুরি কাজে ব্যবহৃত মোটরযান ছাড়া অন্য যে কোনো মোটরযানে বহুমুখী হর্ন অথবা তীব্র, কর্কশ, আকস্মিক, বিকট বা ভীতিকর শব্দের হর্ন বা যন্ত্র সংযোজন বা ব্যবহার করা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।

এতে আরও বলা হয়, এ ধরনের অননুমোদিত হর্ন স্বাস্থ্যঝুঁকি বাড়ানো ছাড়াও চালকদের বেপরোয়া ও দ্রুতগতিতে মোটরযান চালাতে উৎসাহিত করে। ফলে সড়ক দুর্ঘটনার আশঙ্কা বেড়ে যায়। কিছু কিছু মোটরযানে হুটার, হাইড্রোলিক হর্ন ও অন্যান্য অননুমোদিত হর্ন সংযোজন করে ব্যবহার করার ফলে গণউদ্বেগের সৃষ্টি হচ্ছে, যা দণ্ডনীয় অপরাধ।

এ অবস্থায় অ্যাম্বুলেন্স, অগ্নিনির্বাপণ বা উদ্ধারকাজে ব্যবহৃত মোটরযান অথবা রাষ্ট্রীয় জরুরি কাজে ব্যবহৃত মোটরযান ছাড়া অন্য যে কোনো মোটরযানে এ ধরনের হর্ন ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে অনুরোধ করা হলো। অন্যথায় এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও পরিপত্রে বলা হয়।


আরও খবর



গলায় জুতার মালার ছবি ব্যবহার করে এফডিসিতে নিপুণবিরোধী মিছিল

প্রকাশিত:বুধবার ২২ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২২ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন নিয়ে উত্তাপ বাড়ছেই। এর কারণ চিত্রনায়িকা নিপুণ আক্তার। যিনি শিল্পী সমিতির নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদে লড়াই করেছিলেন। নির্বাচনে পরাজয়ের পর জয়ী প্রার্থীদের ফুলের মালা দিয়ে বরণ করেছিলেন। কিন্তু একমাস পরেই এই নায়িকা দাবি করেন, নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি।

যে কারণে মিশা-ডিপজল পরিষদের বিরুদ্ধে আদালতে রিট করেন নিপুণ। যারই প্রেক্ষিতে সাধারণ সম্পাদক পদে ডিপজলকে চেয়ার না বসার আদেশ দিয়েছে আদালত। সোমবার (২০ মে) বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি কাজী জিনাত হকের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। একইসঙ্গে নির্বাচনে অনিয়ম ও কারচুপির ঘটনা তদন্তের জন্য সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

নিপুণের এমন কর্মকাণ্ডে ক্ষুব্ধ হয়েছেন চলচ্চিত্র শিল্পীরা। এই অভিনেত্রীর শাস্তির দাবিতে আজ (২২ মে) দুপুর থেকে এফডিসিতে কয়েক দফা হয়েছে মিছিল। এতে অংশ নিয়েছেন বেশ কয়েকজন সিনিয়র ও জুনিয়র শিল্পী। তাদের মূলকথা, শিল্প ও শিল্পীর সম্মান নষ্টকারী নির্লজ্জ বেহায়া নিপুণের শাস্তি দাবি

যারা নিপুণের শাস্তি চেয়ে মিছিল করেছেন তাদের হাতে থাকা ব্যানারে এই নায়িকার গলায় জুতার মালার ছবি ব্যবহার করা হয়েছে। একইসঙ্গে নিপুণকে নিয়ে বিভিন্ন আপত্তিকর স্লোগানও দিতে দেখা গেছে।

এদিকে গুঞ্জন উঠেছে, আজই বাতিল হতে পারে শিল্পী সমিতি থেকে নিপুণের সদস্য পদ। শিল্পী সমিতিতে নিপুণবিরোধী মিছিল প্রসঙ্গে এই নায়িকার সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। কারণ নিপুণ বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছেন।


আরও খবর



চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ৪৩৯ কোটি টাকার রাজস্ব বাজেট অনুমোদন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
রাহুল সরকার, চট্টগ্রাম ব্যুরো

Image

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ফাইন্যান্স কমিটি (এফসি) ও সিন্ডিকেটের ৬০ তম যৌথ সভায় ২০২৩-২৪ অর্থ বছরের সংশোধিত রাজস্ব বাজেট এবং ২০২৪-২৫ অর্থ বছরের প্রাক্কলিত ৪৩৯ কোটি ১৬ লক্ষ টাকার রাজস্ব বাজেট অনুমোদন করা হয়।

বৃহস্পতিবার সকালে চবি উপাচার্যের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ সভায় সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোঃ আবু তাহের।  চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সম্প্রতি জাতিসংঘ ঘোষিত টেক্সই উন্নয়ন লক্ষমাত্রা অর্জনে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকান্ড, গবেষণা, উদ্ভাবন ও সফলতার ভিত্তিতে টাইমস এবং কিউএস দুটি আন্তর্জাতিক র‌্যাঙ্কিং এ সেরাদের তালিকায় স্থান পাওয়ায় ফাইন্যান্স কমিটি, সিন্ডিকেট সদস্য ও র‌্যাঙ্কিং কমিটিসহ বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন জানানো হয়।

 চবি উপাচার্য বলেন, আমি দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম এবং ভৌত অবকাঠামো উন্নয়নকে গুরুত্ব দিয়ে কাজ শুরু করেছি। বিশ্ববিদ্যালয়ের মুল লক্ষ্য শিক্ষা-গবেষণা ও উদ্ভাবনকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে বিভিন্ন কর্ম-পরিকল্পনা গ্রহণ করেছি যার ফলে ইতোমধ্যে দৃশ্যমান ফলাফল আসতে শুরু করেছে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ঐতিহ্য ও গৌরব বৃদ্ধি করতে চেষ্টা করছি। এ লক্ষ্যে রাষ্ট্রপতি এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর এর সম্মতিক্রমে ৫ম সমাবর্তনের আগামভ ৮ ডিসেম্বর নির্ধারণ করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে দায়িত্ব নেবার পর সর্বোচ্চ স্বচ্ছতা ও জবাবদিহীতার মাধ্যমে অত্যন্ত আন্তরিকতার সাথে পালন করে যাব।

 এফসি ও সিন্ডিকেটের যৌথ সভায় সদস্যবৃন্দের সুচিন্তিত মতামত ও সুপারিশ বিশ্ববিদ্যালয়কে এগিয়ে নিতে অধিকতর সহায়ক ভূমিকা রাখবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

এফসি ও সিন্ডিকেটের যৌথ সভায় চবি উপ-উপাচার্যবৃন্দ, এফসি ও সিন্ডিকেট সদস্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আবুল মনছুর, এফসি সদস্য প্রফেসর আবু মুহাম্মদ আতিকুর রহমান, প্রফেসর (অবসরপ্রাপ্ত) ড. সুলতান আহমেদ, প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আবদুল্লাহ মামুন এবং সিন্ডিকেট সদস্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ শামীম উদ্দিন খান, প্রফেসর ড. মোহাম্মদ খাইরুল ইসলাম, ড. নঈম উদ্দিন হাছান আওরঙ্গজেব চৌধুরী, মোহাম্মদ আলী, মোঃ মোয়াজ্জেম হোসাইন, এস এম ফজলুল হক এবং সিন্ডিকেট সচিব চবি রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) কে এম নুর আহমদ উপস্থিত ছিলেন। সভায় অনলাইনে অংশগ্রহণ করেন সিন্ডিকেট সদস্য ড. মোঃ ওমর ফারুক।

সভায় বাজেটের বিভিন্ন বিষয়ের ওপর স্বতঃস্ফূর্ত আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন এবং মতামত পেশ করেন। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা-গবেষণার চলমান উন্নয়নসহ প্রশাসনিক ও অবকাঠামো উন্নয়নে একটি সময়োপযোগী বাজেট পেশ করায় চবি উপাচার্যকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানানো হয়।

সভায় চবি হিসাব নিয়ামক (ভারপ্রাপ্ত) ও এফসি সচিব মোঃ আমিরুল ইসলাম বাজেট উপস্থাপন করেন এবং তা আগামী সিনেট সভায় পেশ করার জন্য অনুমোদন করা হয়।



আরও খবর



বাস-অটোরিকশার সংঘর্ষে জাবি শিক্ষার্থীসহ নিহত ৩

প্রকাশিত:শনিবার ০৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ০৮ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
রংপুর প্রতিনিধি

Image

রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলায় বাস ও সিএনজিচালিত অটোরিকশার সংঘর্ষে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) শিক্ষার্থীসহ তিনজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন পাঁচজন।

শনিবার (৮ জুন) দুপুর ২টার দিকে উপজেলার খলেয়া গঞ্জিপুর চেয়ারম্যান মোড় এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- জাবির ভূতাত্ত্বিক বিজ্ঞানবিভাগের স্নাতক দ্বিতীয় বর্ষ ও বেগম রোকেয়া হলের আবাসিক শিক্ষার্থী মোছা. আজমুদা আক্তার (রুমু)। তিনি উপজেলার পুটিমারী ইউনিয়নের ভেরভেরী গ্রামের বাসিন্দা।

অন্য দুজন হলেন- কিশোরগঞ্জ উপজেলার ইউএনও কার্যালয়ের আনসার সদস্য ও তারাগঞ্জ উপজেলার বসুনিয়া হাজীপাড়া গ্রামের মেহেরুল ইসলাম, কিশোরগঞ্জ সরকারি ডিগ্রি কলেজের প্রভাষক ও গাড়াগ্রাম ইউনিয়নের গণেশের বাজার এলাকার দিবা রানী সরকার। তারা সবাই অটোরিকশার যাত্রী ছিলেন।

গঙ্গাচড়া মডেল থানার ওসি মাসুমুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জানা গেছে, নীলফামারীর জলঢাকা থেকে রংপুরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসা একটি বাস এবং রংপুরের পাগলাপীর থেকে কিশোরগঞ্জের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসা একটি অটোরিকশা খলেয়া গঞ্জিপুরের চেয়ারম্যান মোড় এলাকায় আসলে দুটির মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে অটোরিকশায় থাকা মেহেরুল ইসলাম ঘটনাস্থলে নিহত হন। এ সময় বাসের হেলপারসহ কয়েকজন গুরুতর আহত হলে তাদের রংপুর মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালে পাঠায় স্থানীয়রা। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথেই দিবা রানী সরকার ও রিমু আক্তারের মৃত্যু হয়।

ওসি মাসুমুর রহমান বলেন, বাস ও অটোরিকশার সংঘর্ষে ঘটনাস্থলে একজনের মৃত্যু হয়। আমরা খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে আহতদের উদ্ধার করে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠাই। হাসপাতালে পাঠানোর পথে আরও দুজনের মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরও খবর