আজঃ মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০21
শিরোনাম

যদি করোনা হয়েই যায়

প্রকাশিত:শনিবার ০৩ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০৩ এপ্রিল ২০২১ | ৯৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
করোনা আক্রান্ত হলে সাধারণত আইসোলেশনে ১৪ দিন থাকতে হবে। এ সময়ে বাড়ির অন্য সদস্যদের অনেক বেশি সাবধান থাকতে হবে। এক্ষেত্রে প্রত্যেকেরই যথাযথ মাস্ক পরে থাকা দরকার।

চারদিকে বাড়ছে করোনা আক্রান্ত। বন্ধু, সহকর্মী ও আত্মীয় হয়ে এবার নিজেই যদি আক্রান্ত হয়ে যান, তাহলেও অবাক হওয়ার কিছুই নেই। আর করোনা হওয়ার পরে দেখা যাচ্ছে অনেকে খুব দ্রুত পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠছেন। আবার কেউ কেউ লম্বা সময় নিচ্ছেন। এজন্য প্রথম থেকেই সচেতন হতে হবে। যদি কোনো উপসর্গ থেকে মনে হয় করোনা হতে পারে, তবে যা করবেন:

    সামান্য জ্বর আর গলা ব্যথা হলেও ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে সোয়াব টেস্ট করাতে হবে

    কোভিড-১৯ পজিটিভ এলে বাড়িতে, একটা বাথরুমসহ রুমে একা থাকবেন

    বাড়ির অন্যান্য সদস্যদের থেকে সম্পূর্ণ আলাদা থাকতে হবে

    তবে বাইরের দিকে জানলা থাকলে তা খুলে রাখতে হবে

    পালস অক্সিমিটার রাখতে হবে সঙ্গে যদি শ্বাস নিতে কষ্ট হয় সঙ্গে সঙ্গে শরীরের অক্সিজেনের পরিমাণ দেখে নেওয়া যাবে

    শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা ৯৪ এর থেকে কম হলে অক্সিজেন দেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে

    এসময় উপুড় হয়ে শোয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা। কারণ এতে শ্বাস-প্রশ্বাস বাড়ে ও ইনফেকশনের প্রবণতাও কমে

    ফুসফুসের কার্যকারিতা বাড়াতে নিশ্বাসের ব্যায়াম করতে হবে

    চিকিৎসকের পরামর্শমতো নিয়ম করে ওষুধ খেতে হবে

    ফল ও বাড়িতে রান্না করা খাবার খেতে হবে। 

 

রোনা আক্রান্ত হলে সাধারণত আইসোলেশনে ১৪ দিন থাকতে হবে। এ সময়ে বাড়ির অন্য সদস্যদের অনেক বেশি সাবধান থাকতে হবে। এক্ষেত্রে প্রত্যেকেরই যথাযথ মাস্ক পরে থাকা দরকার।

 

বিশেষজ্ঞরা বলেন, কোভিড-১৯ বা করোনায় আক্রান্তের বয়স, শারীরিক সুস্থতা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। করোনায় আক্রান্ত হলে ভয় পাওয়ার কিছু নেই, যাদের সংক্রমণ কম হয়, তারা মাত্র এক সপ্তাহেরও কম সময়ে সুস্থ হয়ে ওঠেন। পর্যাপ্ত বিশ্রাম, বেশি করে তরল পান এবং খুব সাধারণ কিছু ওষুধ দিয়ে বাড়িতেই আলাদা রেখে চিকিৎসার মাধ্যমে এদের সুস্থ করা সম্ভব।


আরও খবর



সাফারি পার্কে সফল প্রজননে আফ্রিকান জেব্রা এগিয়ে

প্রকাশিত:শনিবার ১০ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১০ এপ্রিল ২০২১ | ৭৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

শ্রীপুর ( গাজীপুর ) প্রতিনিধি :

গাজীপুরের শ্রীপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে জেব্রা পালে নতুন অতিথি। গত বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) জেব্রা পালে নতুন অতিথির আগম ঘটে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে সফল প্রজননে এগিয়ে রয়েছে আফ্রিকান প্রাণি জেব্রা। ভবিষ্যতে এ ধারা অব্যাহত থাকলে পার্কের আফ্রিকান সাফারির আয়তন বাড়ানোর প্রয়োজন হতে পারে।

গেল বছরের সিংহভাগ সময় পার্ক লকডাউনের আওতায় ছিল। করোনা সংক্রমণের কারণে এবারও চলছে লকডাউন। এ সময়টাতে পার্কে দর্শণার্থী নিষিদ্ধ থাকে। অনেকটা ফাঁকা থাকে পার্ক এলাকা। এ সুযোগে গত দু বছরে জেব্রা পালে ১১টি বাচ্চা জন্ম নিয়েছে। আগামী কয়েক মাসে আরও বাচ্চা জন্মবে। প্রায় আটটির মতো জেব্রা গর্ভধারণ অবস্থায় রয়েছে।

পার্কের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও সহকারী বন সংরক্ষক তবিবুর রহমান এসব তথ্য জানিয়ে বলেন, সবশেষ জেব্রা পালে একটি নতুন শাবকসহ মোট সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৫টিতে।

বৃহস্পতিবার নতুন শাবক জন্মের পর পালের সাথে মিশে গেছে। পার্কে জেব্রাগুলোর সফল প্রজনন ঘটছে। জন্মের পর শাবকগুলো অনেকটা সুস্থতার সাথেই বেড়ে উঠে। আগে ১৪টি জেব্রা ছিল। পরে নতুন শাবকসহ ১১টি জেব্রা আসে। এর মধ্যে ১২টি পুরুষ ও ১৩টি মাদী। ভবিষ্যতে এ ধারা অব্যাহত থাকলে অচিরেই পার্কের আফ্রিকান সাফারির আয়তন বাড়ানোর প্রয়োজন হবে। আফ্রিকান সাফারিতেই জেব্রার আনাগোনা। পার্কে দর্শনার্থীদের বিনোদনের অন্যতম আকর্ষণ জেব্রা। জেব্রা সাধারণত পাল তৈরি করে ঘুরে বেড়ায়। পার্কের প্রাণি প্রজন্ম স্বাভাবিক বৃদ্ধি পেতে থাকলে ভবিষ্যতে প্রাণি আমদানি নির্ভরতা কমে আসবে।

পার্ক কর্মকর্তা জানান, জেব্রা পালে নতুন অতিথি আগমনের পরই খাদ্যের পুষ্টিমান বিবেচনায় রাখা হয়। এর জন্য মা জেব্রাকে ছোলা, গাজর ও ভূষি দেওয়া হয়। পার্কের জেব্রাগুলো আফ্রিকান এবং উর্বর জাতের। ফলে নানা পারিপার্শ্বিকতার সমন্বয়ে সফল প্রজনন ঘটছে।


আরও খবর



১২-১৩ এপ্রিল দূরপাল্লার বাস চলবে না : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত:রবিবার ১১ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১১ এপ্রিল ২০২১ | ১২১জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
দূরপাল্লার বাস চলার সুযোগ দিলে সংক্রমণ আরও বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা তৈরি হতে পারে। সুতরাং দূরপাল্লার বাস চলবে বলে আমার মনে হয় না

করোনাভাইরাসের প্রকোপ কমাতে চলছে সরকারের দেওয়া দেশব্যাপী কঠোর বিধিনিষেধ। এই বিধিনিষেধ শেষ হচ্ছে রবিবার। আগামী সোম ও মঙ্গলবার অর্থাৎ ১২ ও ১৩ এপ্রিল বাদে এক সপ্তাহের জন্য সর্বাত্মক লকডাউনের পথে হাঁটবে সরকার। এই এক সপ্তাহের মধ্যে জরুরি সেবা ব্যতিত অফিস-আদালত থেকে শুরু করে সব কার্যক্রম বন্ধ রাখবে সরকার।

এখন প্রশ্ন উঠেছে, সর্বাত্মক লকডাউনের আগের দুদিন অর্থাৎ ১২ ও ১৩ এপ্রিল কী হবে? মানুষ ইচ্ছেমতো চলাচল করতে পারবে, নাকি পারবে না? দূরপাল্লার বাস চলবে, নাকি চলবে না? শুধু তাই নয়, যেহেতু ওই দুদিনের জন্য এখন পর্যন্ত কঠোর বিধিনিষেধ বা সর্বাত্মক লকডাউনের কথা ঘোষণা করেনি সরকার; সেহেতু সব মুক্তভাবেই চলবে নাকি নতুন করে বিধিনিষেধ জারি করা হবে- এসব প্রশ্নও রয়েছে সাধারণ মানুষের মধ্যে।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, এখনও পর্যন্ত এই ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে এমন সুযোগ থাকবে না। কারণ, সংক্রমণ যে হারে বাড়ছে; তাতে দূরপাল্লার গাড়ি চলতে দিলে মানুষের যাতায়াত বেড়ে যাবে। কেউ ঢাকা ছাড়বে, কেউবা আবার ঢাকায় ঢুকবে। শুধু ঢাকা নয়, সারা দেশের মানুষ চলাচল শুরু করবে। এই পরিস্থিতিতে সেটা কোনোভাবেই কাম্য নয়। দূরপাল্লার বাস চলার সুযোগ দিলে সংক্রমণ আরও বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা তৈরি হতে পারে। সুতরাং দূরপাল্লার বাস চলবে বলে আমার মনে হয় না।

১২ ও ১৩ এপ্রিলের জন্য বিশেষ কোনো নির্দেশনা থাকবে কি না- এমন প্রশ্নে ফরহাদ হোসেন বলেন, রবিবার আমরা বৈঠকে বসব। সেখানে সব ধরনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে। কোন পরিস্থিতিতে মাঝের দুদিন চলবে, তাও নির্ধারণ করা হবে। এ ছাড়া সর্বাত্মক লকডাউনের সময় কী কী করা যাবে, কী করা যাবে না সেই সিদ্ধান্তও চূড়ান্ত করা হবে। ১২ ও ১৩ এপ্রিল নিয়ে হয়তো আমরা কিছু বিধিনিষেধ জারি করতে পারি। এখন যে অবস্থায় চলছে, মাঝের দুদিনও হয়তো সেই অবস্থাতেই চলবে। তার মানে, সীমিত পরিসরে সবকিছু চললেও কঠোর বিধিনিষেধ বলবৎ থাকতে পারে।


আরও খবর



নতুন তিন বাহিনীর প্রধানের নাম ঘোষণা করল ব্রাজিল

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০১ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০১ এপ্রিল ২০২১ | ৭৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
ব্রাগা নাতো বলেন, নতুন নিয়োগ পাওয়া এ তিনজনই দেশরক্ষা, সাংবিধানিক শক্তি ও গণতান্ত্রিক স্বাধীনতার নিশ্চয়তা প্রদানের ক্ষেত্রে তাঁদের সাংবিধানিক মিশনের প্রতি বিশ্বস্ত থাকবেন

সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর নতুন প্রধানের নাম ঘোষণা করেছে ব্রাজিল। তাঁদের পূর্বসুরিরা হঠাৎ সরে দাঁড়ানোর কথা জানানোর একদিন পর তিনটি গুরুত্বপূর্ণ পদে প্রেসিডেন্ট জাইর বোলসোনারো নতুন নিয়োগ দিলেন।

ব্রাজিলের প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেনারেল ওয়াল্টার ব্রাগা নাতো এক সংক্ষিপ্ত অনুষ্ঠানে সেনাপ্রধান হিসেবে জেনারেল পাওলো সার্জিও নগুইরা ডি অলিভিরা, নৌপ্রধান হিসেবে অ্যাডমিরাল আলমির গার্নির ও বিমান বাহিনীর প্রধান হিসেবে কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার কার্লোস অলমিদা বাপতিস্তা জুনিয়রকে পরিচয় করে দেন। খবর আল জাজিরার।

ব্রাগা নাতো বলেন, নতুন নিয়োগ পাওয়া এ তিনজনই দেশরক্ষা, সাংবিধানিক শক্তি ও গণতান্ত্রিক স্বাধীনতার নিশ্চয়তা প্রদানের ক্ষেত্রে তাঁদের সাংবিধানিক মিশনের প্রতি বিশ্বস্ত থাকবেন।

কোভিড-১৯ রোগে মৃতের সংখ্যা অনেক বৃদ্ধি পাওয়ায় কঠোর সমালোচনার মুখে বোলসোনারো তাঁর প্রধান স্টাফ, অ্যাটর্নি জেনারেল ও সশস্ত্র বাহিনীর প্রধানসহ পররাষ্ট্র, প্রতিরক্ষা ও আইনমন্ত্রীকে সরিয়ে দিয়ে সরকারে ব্যাপক রদবদল করেন। এ মহামারি ভাইরাস ছড়িয়ে পড়াকে কেন্দ্র করে গত সপ্তাহে তিনি তাঁর চতুর্থ স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে নিয়োগ দেন।

সংবাদমাধ্যম বিবিসি গতকাল বুধবার এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, প্রেসিডেন্ট বোলসোনারো অসঙ্গতভাবে সামরিক বাহিনীকে নিয়ন্ত্রণে নেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছেন, তাদের কাছে এমনটি মনে হওয়ার পর এর প্রতিবাদে হঠাৎই তিন বাহিনীর প্রধান দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়ান।

ব্রাজিলের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় গত মঙ্গলবার সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এডসোন পুঁজোল, নৌবাহিনী প্রধান অ্যাডমিরাল ইলকোয়েস বারবোসা ও বিমান বাহিনী প্রধান লেফটেন্যান্ট ব্রিগেডিয়ার আন্তোনিও কার্লোস বেরমুজিসের পদত্যাগের বিষয়টি নিশ্চিত করে, তবে তিন বাহিনীর প্রধানের পদত্যাগের কারণ জানায়নি মন্ত্রণালয়।

নিউজ ট্যাগ: ব্রাজিল

আরও খবর



প্রধানমন্ত্রীর কাছে ডা. জাফরুল্লাহর ১১ বার্তা সংযুক্ত খোলা চিঠি

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৯ এপ্রিল ২০২১ | ২৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী জনস্বার্থে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে খোলা চিঠি দিয়েছেন। চিঠির সঙ্গে কোভিড-১৯-এ আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার বিষয়ে ১১টি বার্তা সংযুক্ত করে দেন। আজ সোমবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এ চিঠি পাঠানো হয়েছে।

সরকারের জরুরি কর্তব্য উল্লেখ করে ১১টি দাবি উত্থাপন করেন ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

১. অক্সিজেন, ওষুধ, মেডিকেল যন্ত্রপাতি ও সামগ্রী থেকে বিশেষ এসআরওর মাধ্যমে সব ধরনের শুল্ক, অগ্রিম আয়কর, মূসক প্রভৃতি প্রত্যাহার করা।

২. আইসিইউ পরিচালনার জন্য জরুরি ভিত্তিতে চিকিৎসক ও নার্স প্যারামেডিকদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা (২০০ জন চিকিৎসক ও 500 জন নার্স-টেকনিশিয়ানকে), আইসিইউতে দ্রুত অক্সিজেন প্রদান (হাই ফ্লো ন্যাসাল ক্যানোলা), নন-ইনভেসিভ

শ্বাসপ্রশ্বাস প্রক্রিয়া, শ্বাসতন্ত্রে টিউব মারফত অক্সিজেন সরবরাহ, অন্যান্য নিয়ন্ত্রিত শ্বাসপ্রশ্বাস

ব্যবস্থাপনা প্রক্রিয়া এবং শ্বাসনালী ট্যাকিয়া ছিদ্র করে দ্রুত অক্সিজেন সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্য এক মাসের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা।

৩. সব ওষুধের মূল্য এবং রোগ পরীক্ষার পদ্ধতিগুলোর চার্জ সরকার কর্তৃক নির্ধারণ করে দেওয়া।

৪. কারাগারে আবদ্ধ সব ব্যক্তিকে দ্রুত টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা নেওয়া এবং খুনের দায়ে এবং দুর্নীতির কারণে দণ্ডিত অভিযুক্ত ছাড়া অন্য সবাইকে জামিনে মুক্তি দেওয়া।

৫. সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজগুলোতে প্রতি বছর ২০ হাজার শিক্ষার্থী ভর্তি করা এবং এমবিবিএস পাসের পর ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার

কল্যাণকেন্দ্রে এক বছর বাধ্যতামূলক ইন্টার্নশিপ করা। অতীতে এই নিয়ম চালু করে দুই সপ্তাহ পর প্রত্যাহার করে ভুল করেছিলেন।

৬. আগামী বাজেটে সব ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের নিরাপত্তা বেষ্টনী সংস্কার, গভীর নলকূপ ও বিদ্যুতায়ন ব্যবস্থার উন্নয়ন, মেডিকেল, নার্সিং, ফিজিওথেরাপি ও টেকনিশিয়ানদের জন্য ডরমেটরি, ক্লাসরুম, লাইব্রেরি, ডাইনিং রুম এবং পাঁচজন চিকিৎসক ও ১০ জন নার্সিং, ফিজিওথেরাপি ও টেকনিশিয়ান প্রধানদের জন্য ছয়শ-সাতশ বর্গফুটের বাসস্থান, বহির্বিভাগসহ ৩০ শয্যার হাসপাতাল, ল্যাবরেটরি ও অপারেশন থিয়েটার নির্মাণের জন্য ছয় কোটি টাকা এবং অপারেশন থিয়েটার, এক্সরে আলট্রাসনোলজি, চক্ষু ও বিভিন্ন

ল্যাবরেটরির যন্ত্রপাতির জন্য অন্যূন চার কোটি টাকা বরাদ্দের ব্যবস্থা নিন। এরূপ উন্নয়নে ইউনিয়নের প্রায় এক লাখ জনগণের জন্য আধুনিক স্বাস্থ্য ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠিত হবে।

৭. লকডাউন কার্যকর করার জন্য দরিদ্র ও নিম্নবিত্ত পরিবারদের সরাসরি আর্থিক প্রণোদনার পরিবর্তে বিনামূল্যে মাসিক রেশনে চাল, ডাল, আটা, আলু, তেল, চিনি, পেঁয়াজ, রসুন প্রভৃতি দিতে হবে। রেশন বিতরণের জন্য সামরিক বাহিনী, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এবং এনজিও কর্মীদের ব্যবহার সুফল দেবে।

৮. ট্রিপসের বাধ্যতামূলক লাইসেন্সের মাধ্যমে ভ্যাকসিন উৎপাদন সুবিধা সৃষ্টির জন্য নোবেল লরিয়েট ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে আপনার বিশেষ দূত করে ইউরোপে পাঠান।

৯. ভ্যাকসিন উৎপাদনের জন্য শূন্য দশমিক পাঁচ  বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করুন, সুফল পাবেন।

১০. গত বছর দ্রুত সিনোজাকের ট্রায়াল অনুমোদন না দিয়ে যে ভুল করা হয়েছিল, তার পুনরাবৃত্তি কাম্য নয়।

১১. গণস্বাস্থ্য উদ্ভাবিত এন্টিবডি এন্টিজেন অনুমোদন এক বছরে হয়নি। ড. বিজন কুমার শীলের ভিসা না হওয়ায় বাংলাদেশে ফিরতে পারছেন না। ছয় মাস আগে চার বিজ্ঞানীর তত্ত্বাবধানে রিয়েল টাইম পিসিআর ল্যাবরেটরি স্থাপিত হলেও ব্যবহার শুরু করার জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তর অদ্যাপি অনুমতি দেয়নি।

ক্ষতি হচ্ছে দেশের, বিষয়টি আপনাকে পুনরায় অবগত করলাম। দ্রুত সিদ্ধান্ত গ্রহণে জাতির কঠিন সমস্যা থেকে মুক্তির সম্ভাবনা সমধিক। আপনার সুস্বাস্থ্য ও নববর্ষের শুভ কামনায় বলে চিঠি শেষ করেন ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।


আরও খবর



বিয়ে গোপনে করা যায় না, অ্যানাউন্স করতে হয়: আজহারী

প্রকাশিত:রবিবার ০৪ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ এপ্রিল ২০২১ | ২০১জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
আজহারী বলছেন, বিয়ের ঘোষণায় ব্যান্ড পার্টি করতে বলেছেন বিশ্বনবী (সা.)। কারণ বিয়েতে একজন নারী-পুরুষের যে সম্পর্ক হয়, জেনা ও ব্যভিচারে একই সম্পর্ক হয়

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁর একটি রিসোর্টে শনিবার (৩ এপ্রিল) হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হককে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়। ঘটনার সময় তাকে এক নারীসহ আটক করা হয়েছে বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে।

মামুনুল হক ওই নারীকে নিজের বিয়ে করা দ্বিতীয় স্ত্রী হিসেবে পরিচয় দিলেও বিষয়টির পক্ষে-বিপক্ষে বিপুল জনমত তৈরি হয়। বিয়ের ধরন সম্পর্কেও প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে। এরইমধ্যে পাওয়া গেলো মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারীর বয়ান।  

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া ওই ভিডিওতে আজহারী বলছেন,  বিয়ের ঘোষণায় ব্যান্ড পার্টি করতে বলেছেন বিশ্বনবী (সা.)। কারণ বিয়েতে একজন নারী-পুরুষের যে সম্পর্ক হয়, জেনা ও ব্যভিচারে একই সম্পর্ক হয়। পার্থক্য হচ্ছে এটার সামাজিক স্বীকৃতি আছে, জেনার স্বীকৃতি নেই। এজন্য বিয়ে গোপন করে করা যায় না। এটা অ্যানাউন্স করে করতে হয়। 

ইসলামের খলিফাদের জীবন প্রসঙ্গ টেনে এই ইসলামী বক্তা বলেন, ওমর ফারুক (র.) যখন মদিনার খলিফা বলতেন লুকিয়ে লুকিয়ে যদি কেউ বিয়ে করে তাদের প্রতিবেশীরা যদি তাদের দাম্পত্য জীবন সম্পর্কে না জানে তাহলে আমি তাদের দুজনকে জেনার শাস্তি দেবো।

পুরনো এক ওয়াজ মাহফিলের বয়ানের ওই ভিডিওতে আজহারী বলেন, লুকিয়ে বিয়ে করা যায় না, সবাইকে জানিয়ে-শুনিয়ে অ্যানাউন্স করে বিয়ে করতে হয়। এজন্য ইসলাম শুধু হারাম বলে জিকির করে নেই। যেখানেই হারাম তার বিপরীতে ইসলামে হালালের বিকল্প দিয়েছে। 

এদিকে রবিবার সকালে মামুনুল ওই নারীকে বিয়ের বিষয়টি অবতারণা করে বলেন, রাগের মাথায় সংসার ভেঙে গভীর সংকটে পড়ে যান তিনি। ওই পরিস্থিতিতে তার জীবিকা নির্বাহ করা কঠিন হয়ে পড়ে। 

স্বাভাবিকভাবেই তিনি আমার শরণাপন্ন হন। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে করণীয় বিষয়ে পরামর্শ নেন। আর সেই দুঃসময়ে সহযোগিতা করার মতো আমি ছাড়া আর কেউ ছিল না তার। ইসলামী দৃষ্টিকোণ এবং অভিভাবকত্বের জায়গা থেকে আমি তার অর্থনৈতিক দায়িত্ব গ্রহণ করি। জীবনের করণীয় বিষয়ে দিকনির্দেশনার জন্য নিয়মিতই আমার সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে হয় তাকে।

শরিয়তের দিক থেকে এই সম্পর্ক ঝুঁকিপূর্ণ বলে মনে করেন মামুনুল। তিনি বলেন, এমতাবস্থায় একজন বেগানা নারীর সঙ্গে এভাবে সম্পর্ক রাখাকে শরিয়তের দৃষ্টিকোণ থেকে আমার কাছে ঝুঁকিপূর্ণ মনে হয়। তখন আমি সিদ্ধান্ত নিই, যত দিন তার অভিভাবকত্বের প্রয়োজন হবে আমার, তাকে বেগানা হিসেবে রেখে অভিভাবকত্ব করবো না, বরং ইসলামী শরিয়তের আলোকে বৈধ একটা সম্পর্ক তৈরি করে নেবো। বিষয়টি নিয়ে ঘনিষ্ঠজনদের সঙ্গে কথা বলি এবং এ বিষয়ে তাদের জানিয়ে শরিয়তের বিধান অনুযায়ী বিয়ের কালেমা পড়ে বিয়ে করে নেই। 

মামুনুল বলেন, দুই বছর যাবত এভাবেই মানবিক ও ইসলামী দৃষ্টিভঙ্গির আলোকে আমি তার অভিভাবকত্ব করছি এবং একজন অসহায় নারীর দায়িত্ব গ্রহণ করে একটি পুণ্যের কাজ করেছি বলে বিশ্বাস করি। আমি যা বললাম, এটা আল্লাহর নামে হাজারবার শপথ করে বলতে পারবো। বিষয়টি বিশ্বাসযোগ্য করার জন্য কুল্লামার শপথও করতে পারি।


আরও খবর
শুরু হলো সিয়াম সাধনার মাস

বুধবার ১৪ এপ্রিল ২০২১

রোজা শুরু কবে জানা যাবে সন্ধ্যায়

মঙ্গলবার ১৩ এপ্রিল ২০২১