আজঃ শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪
শিরোনাম

যেসব কারণে ধীরে ধীরে কার্যক্ষমতা হারায় কিডনি

প্রকাশিত:সোমবার ১৫ মে ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ মে ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
স্বাস্থ্য ডেস্ক

Image

শরীরের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটি অঙ্গ হলো কিডনি। এই অঙ্গটি দেহ থেকে ক্ষতিকর পদার্থকে প্রস্রাবের মাধ্যমে বের করে দেয়। এছাড়া এই অঙ্গের ওপর ব্লাড প্রেশার নিয়ন্ত্রণ, সোডিয়াম-পটাশিয়ামের ভারসাম্য রক্ষা, একাধিক হরমোন তৈরির ভারও থাকে। তাই বৃক্কের স্বাস্থ্যের দিকে নজর দেওয়াটা খুবই জরুরি।

যদিও আমাদের মধ্যে কম সংখ্যক মানুষই এই অঙ্গের প্রতি সুবিচার করেন। এক্ষেত্রে কিছু কিছু বদভ্যাসের কারণে অঙ্গটি ধীরে ধীরে খারাপ হতে থাকে। তখন কিডনি নিজের কাজও ঠিকমতো করতে পারে না। ফলে শরীরে একাধিক উপসর্গ দেখা দেয়।

একবার এই অঙ্গের ক্ষতি হয়ে গেলে তা পূর্বাবস্থায় ফিরিয়ে আনা বেশ কঠিন। তাই প্রথম থেকেই এই অঙ্গটির স্বাস্থ্যের দিকে খেয়াল রাখা খুবই জরুরি। তাহলে ক্রনিক কিডনি ডিজিজের মতো ঘাতক অসুখ থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব। এক্ষেত্রে কিডনিকে সুস্থ রাখতে চাইলে আমাদের কয়েকটি বদভ্যাস ছাড়তে হবে। নাহলে সমস্যা কখন যে আপনার শরীরে বাসা বাঁধবে হবে, তা ধরতেও পারবেন না।

নিয়মিত পেইনকিলার খাওয়া: ব্যথার সমস্যায় অনেকেই ভুগে থাকেন। আর বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এই অসুখে আক্রান্তরা চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়াই পেইনকিলার খেয়ে থাকেন। আর এই পেইনকিলার কিন্তু কিডনির জন্য খুবই খারাপ। নিয়মিত ব্যথানাশক ওষুধ খেলে জটিল থেকে জটিলতর কিডনির সমস্যা ধরা দিতে পারে। এমনকি হতে পারে সিকেডি ও অ্যাকিউট কিডনি ডিজিজ। তাই নিয়মিত পেইনকিলার খাওয়া চলবে না। আর একান্তই খেতে হলে তা বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী খেতে হবে।

লবণ যত নষ্টের গোড়া: লবণ খাওয়ার বদভ্যাস অনেকেরই রয়েছে।। এনারা ভাত থেকে পেয়ারা, শসা- প্রায় সব খাবারেই লবণ মিশিয়ে খান। তবে জানলে অবাক হয়ে যাবেন, এই অভ্যাসের কারণেই কিন্তু কিডনির বড়সড় ক্ষতি হয়ে যায়। আসলে লবণে রয়েছে সোডিয়াম। এই সোডিয়াম কিন্তু ব্লাড প্রেশার বাড়িয়ে দিতে পারে। আর ব্লাড প্রেশার বৃদ্ধি পেলে কিডনির গুরুতর ক্ষতি হয়। এমনকি ক্রনিক কিডনি ডিজিজে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও তৈরি হয়। তাই কাঁচা লবণ খাওয়া চলবে না।

পর্যাপ্ত জলপান না করা: কিডনি শরীর থেকে বিভিন্ন ক্ষতিকর খনিজ ও বিষাক্ত পদার্থ বের করে দেয়। আর এই কাজটা সে করে প্রস্রাব তৈরির মাধ্যমে। এদিকে প্রস্রাব তৈরির জন্য প্রয়োজন হয় জলের। এক্ষেত্রে আপনি যদি পর্যাপ্ত পরিমাণে জলপানই না করেন তবে কিডনি তো নিজের কাজটাই করতে পারবে না। আর এমনটা নিয়মিত চলতে থাকলে কিডনিতে স্ট্রোন হওয়ার আশঙ্কা তৈরি হয়। এমনকি সমস্যা বাড়াবাড়ি পর্যায়ে গেলে সিকেডি পর্যন্ত হতে পারে। তাই দিনে অন্তত ৩ থেকে ৪ লিটার জলপান করা চাই।

মাংস প্রীতিই সর্বনাশের কারণ: অনেকেই মাংস খেতে খুব ভালোবাসেন। এনারা প্রায় রোজই মাংস খেয়ে থাকেন। জানলে অবাক হয়ে যাবেন, নিয়মিত মাংস খেলে রক্তে অ্যাসিডের পরিমাণ অনেকটাই বেড়ে যায়। এই কারণে কিডনিতে অ্যাসিডোসিস হয়। এই অসুখে দেহে তৈরি হওয়া অতিরিক্ত অ্যাসিডকে কিডনি বের করে দিতে পারে না। এর থেকে কিডনিতে একাধিক সমস্যা হয়ে থাকে। তাই নিয়মিত মাংস খাওয়া ছাড়ুন।

বেশি মিষ্টি খেলেই মুশকিল: মিষ্টি বা চিনি শরীরের জন্য খুবই খারাপ। ব্লাড সুগার লেভেল বাড়িয়ে দেওয়ার ক্ষেত্রে এর কোনও জুড়ি নেই। আর রক্তে শর্করার মাত্রা অনেকটা বেড়ে গিয়ে থাকলে তা কিডনির সরাসরি ক্ষতি করে। তাই কোনও মতেই মিষ্টি বা চিনি মিশ্রিত খাবার বেশি পরিমাণে খাওয়া যাবে না। এইটুকু করতে পারলেই আপনার কিডনি থাকবে একদম ফিট। কোনও সমস্যাই এই অঙ্গকে ধাওয়া করতে পারবে না।


আরও খবর



দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর ৮ কর্মী-সমর্থকের কারাদণ্ড

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ০৩ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
পটুয়াখালী প্রতিনিধি

Image

পটুয়াখালীর দুমকিতে নির্বাচনি প্রচারণায় বাধা, উত্তেজনা ও গোলযোগ সৃষ্টির অভিযোগে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর ৮ সমর্থকের প্রত্যেককে ৭ দিনের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

নির্বাচনে দায়িত্বরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জিয়াউল হাসান রবিবার রাত সাড়ে ১১টায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে তাদের এ কারাদণ্ডাদেশ দেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা হলেন, সাতানী গ্রামের মৃত আনোয়ার হোসেনের ছেলে মো. শহীদুল ইসলাম (২০), বাহেরচর গ্রামের বজলুর রহমান মাঝির ছেলে সোহাগ (২৪), একই গ্রামের ইউসুব সিকদারের ছেলে রাকিব শিকদার (২২), আইয়ুব আলী মোল্লার ছেলে রিয়াজ মোল্লা (২২), দুমকি গ্রামের আবুল কালামের ছেলে সাইদুল হক (২৫), সাতানী গ্রামের হাবিব হাং-এর ছেলে ইমরান হাওলাদার (২৫), দুমকি গ্রামের আ. লতিফ মৃধার ছেলে হাবিবুর রহমান খোকন (৪৩) ও ঝাটরা গ্রামের মান্নান খানের ছেলে সায়েম খান (৩৪)।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রবিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে আঙ্গারিয়া ইউনিয়নের রূপাশিয়া গ্রামের তালুকদার পাড়ায় জনৈক এসএম ফজলুল হকের অসুস্থ শ্বশুরকে দেখতে যান কাপ-পিরিচ মার্কার চেয়াম্যান প্রার্থী কাওসার আমীন হাওলাদার। খবর পেয়ে মোটরসাইকেল মার্কার শতাধিক কর্মী-সমর্থক ওই বাড়ির সামনে অবস্থান নিয়ে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে নানা উসকানিমূলক স্লোগান দেয়। এতে দুই প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকের মধ্যে তীব্র উত্তেজনা দেখা দেয়।

অবস্থা বেগতিক দেখে চেয়ারম্যান প্রার্থী কাওসার আমীন হাওলাদার ওই বাড়ি থেকে বেড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে দুপক্ষের উত্তেজিত কর্মী-সমর্থকদের সাথে হাতাহাতি, ধাক্কাধাক্কি হয়। এসময় নির্বাচনে দায়িত্বরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জিয়াউল হাসান ঘটনাস্থলে পৌঁছে দুপক্ষের অন্তত ১১ জনকে আটক করে। পরে রাত সাড়ে ১১টায় ইউএনও কার্যালয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচার বসিয়ে নির্বাচনি প্রচারণায় বাধা প্রদান, গোলযোগ ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির দায়ে ৮ জনের প্রত্যেককে ৭ দিনের কারাদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়।

এ ছাড়া অপ্রাপ্তবয়স্ক হওয়ায় ৩ কিশোর নয়ন গাজী (১৪), শাহাদত মৃধা (১৫) ও জায়েদ মৃধাকে (১৪) মুচলেকায় ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। দণ্ডাদেশপ্রাপ্তদের তিনজন কাপ-পিরিচ ও পাঁচজন মোটরসাইকেল প্রতীকের কর্মী-সমর্থক বলে জানা গেছে।

দুমকি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সফিউর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।


আরও খবর



বিমানবন্দরে লাগেজের বিষয়ে মিথ্যা তথ্য দিলেই লাখ টাকা জরিমানা

প্রকাশিত:রবিবার ০২ জুন 2০২4 | হালনাগাদ:রবিবার ০২ জুন 2০২4 | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

বিদেশ থেকে আসা কোনো যাত্রী নিজের লাগেজ সম্পর্কে মিথ্যা তথ্য দিলে বা ঘোষণা বহির্ভূত পণ্য আনলে ৫০ হাজার থেকে এক লাখ টাকা পর্যন্ত জরিমানা গুনতে হবে এবং তার লাগেজে থাকা পণ্য রাষ্ট্রের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত হবে। এ ছাড়া নিষিদ্ধ পণ্য বহন করলে প্রচলিত আইন অনুযায়ী শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে।

কাস্টমসের নতুন আইন-২০২৩ অনুসারে এমন বিধান রাখা হয়েছে; যা আগামী ৬ জুন থেকে কার্যকর হচ্ছে।

গত ৩০ মে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিমের সই করা এক প্রজ্ঞাপন সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

কাস্টমস আইনের ১৫৪ ধারায় বলা আছে, বিদেশ থেকে আসা যাত্রীদের কাস্টমসের কাছে তার লাগেজ সম্পর্কে তথ্য দিতে হবে। যাত্রী বা ক্রু লাগেজে রক্ষিত পণ্য সম্পর্কে কাস্টমস কর্মকর্তার কাছে লিখিত বা মৌখিক ঘোষণা দিতে পারবেন ও কাস্টমস কর্মকর্তার প্রশ্নের জবাব দিতে হবে। লাগেজ তল্লাশির আগে যাত্রী যদি রক্ষিত পণ্য সম্পর্কে সঠিক তথ্য দিতে ব্যর্থ হন এবং তল্লাশিকালে ঘোষণা বহির্ভূত পণ্য পাওয়া যায়, তাহলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে কাস্টমস কর্মকর্তা সর্বনিম্ন ৫০ হাজার থেকে সর্বোচ্চ এক লাখ টাকা জরিমানা করতে পারবেন। এ ছাড়া, সংশ্লিষ্ট পণ্য বাজেয়াপ্তযোগ্য হবে।

এর আগে, ২০২৩ সালের ৩১ অক্টোবর জাতীয় সংসদে কাস্টমস আইন-২০২৩ পাস হয়। পুরোনো আইনে ২২৩টি ধারা ছিল। নতুন আইনে ২৬৯টি ধারা রয়েছে। রাজস্ব সংগ্রহ ও বাণিজ্য সহজীকরণের লক্ষ্যে বিশ্ব কাস্টমস সংস্থার (ডব্লিউসিও) অনুমোদিত আন্তর্জাতিক চুক্তি ও কনভেনশন অনুযায়ী এবং আন্তর্জাতিক উত্তম চর্চা, যেমন- অনুমোদিত অর্থনৈতিক অপারেটর (এইও), পারস্পরিক স্বীকৃতি চুক্তি (এমআরএ), ইলেকট্রনিক ঘোষণা, ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা, পোস্ট ক্লিয়ারেন্স অডিট (পিসিএ) ইত্যাদি নতুন আইনে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, কাস্টমস আইন ১৯৬৯ অনুযায়ী, পণ্যের ক্ষেত্রে অসত্য তথ্য দিলে বা কোনো প্রশ্নের জবাব দিতে অস্বীকার অথবা ব্যর্থ হলে, সেক্ষেত্রে যাত্রীকে ওই পণ্য-মূল্যের অনধিক তিনগুণ পরিমাণ অর্থদণ্ডের বিধান ছিল।


আরও খবর
সাত নদীর পানি বিপদসীমার ওপরে

বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24




র‍্যাবের নতুন মহাপরিচালক ব্যারিস্টার হারুন

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব) নতুন মহাপরিচালক (ডিজি) হয়েছেন অতিরিক্ত আইজিপি ব্যারিস্টার মো. হারুন অর রশিদ।

তিনি বর্তমান মহাপরিচালক এম খুরশীদ হোসেনের স্থলাভিষিক্ত হবেন। ৫ জুন দায়িত্ব বুঝে নেবেন তিনি।

বুধবার (২৯ মে) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ থেকে জারি করা এক প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানানো হয়। পৃথক আরেক আদেশে বর্তমান ডিজি খুরশীদ হোসেনকে অবসর দেওয়া হয়েছে।

র‍্যাবের নতুন ডিজি ব্যারিস্টার মো. হারুন অর রশিদের বাড়ি মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার বালুচর ইউনিয়নের মোল্লাকান্দি গ্রামে। বর্তমানে তিনি পুলিশ সদরদপ্তরে অতিরিক্ত আইজিপি (হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট) পদে কর্মরত। তার আগে তিনি পুলিশের ময়মনসিংহ রেঞ্জের ডিআইজি ছিলেন। হারুন অর রশিদ ১৯৯৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পরিসংখ্যান বিভাগ থেকে এমএসসি সম্পন্ন করেন।

২০০৯ সালে যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অব লন্ডন থেকে এলএলবি এবং ২০১৬ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমবিএ ডিগ্রি অর্জন করেন। হারুন অর রশীদের বাবা আহম্মেদ আলী ছিলেন ব্যবসায়ী। সাত ভাই-বোনের মধ্যে তিনি ষষ্ঠ।

হারুন অর রশিদ ১৯৯৫ সালে ১৫তম বিসিএস পুলিশ ক্যাডারে সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। তিনি পুলিশের বিভিন্ন পদে চাকরি করেছেন। পুলিশ সদরদপ্তরে ডিআইজি লজিস্টিক হিসেবে দায়িত্ব পালনকালে ২০১৯ সালের ডিসেম্বর ময়মনসিংহ রেঞ্জের ডিআইজি হন।

কর্মজীবনে পুলিশি সেবা আধুনিকায়ন যেমন- পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট, অনলাইন জিডি, বিডি পুলিশ হেল্প লাইন এবং সিআইএমএসর প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে ছিলেন ব্যারিস্টার হারুন অর রশিদ।

ময়মনসিংহ রেঞ্জের ডিআইজি থাকাকালীন তিনি ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরের শুদ্ধাচার পুরস্কার পান। তিনি বাংলাদেশ পুলিশ পদক-বিপিএম পান।


আরও খবর
সাত নদীর পানি বিপদসীমার ওপরে

বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24




ড. ইউনূসের মন্তব্য দেশের মানুষের জন্য অপমানজনক : আইনমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ১২ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১২ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, কর ফাঁকি দেওয়ার মামলাকে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশসহ পশ্চিমা দেশগুলো গুরুত্বপূর্ণ মামলা হিসেবে বিবেচনা করে। ঠিক সেভাবেই ড. ইউনূসের মামলা পরিচালিত হচ্ছে। দেশের যে কোনো নাগরিক আইন ভঙ্গ করলে তার যেমন বিচার হয় ড. ইউনূসেরও সেভাবেই বিচার হচ্ছে। তবে তিনি যেসব কথা বলে বেড়াচ্ছেন তা অসত্য এবং এসব কথা বাংলাদেশের জনগণের জন্য অপমানজনক।

বুধবার (১২ জুন) সচিবালয়ে আইন মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে ইউরোপিয়ান দুই প্রতিনিধি দলের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে তিনি এসব কথা বলেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশন একটি মামলা করেছে। সে মামলার ব্যাপারে আমি বলেছি- মামলাটি আদালতে চলমান রয়েছে। আদালতে যে মামলা চলমান থাকে সে মামলা সম্পর্কে আইনমন্ত্রী কোনো কথা বলেন না সে ব্যাপারটাও তাদেরকে (ইউরোপিয়ান প্রতিনিধি দল) বলেছি।

আরেকটি বিষয় আমি বলেছি- তার বিরুদ্ধে ট্যাক্স না দেওয়ার মামলা রয়েছে। তার একটি মামলায় তিনি আপিল বিভাগ পর্যন্ত গিয়ে হারার পরে ট্যাক্স দিয়েছেন। অন্যান্য মামলা যেগুলো রয়েছে সেগুলোও ট্যাক্স না দেওয়ার মামলা।

মন্ত্রী বলেন, ইউরোপীয় প্রতিনিধি দলের সঙ্গে শ্রম আইন, আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সি আইন, ডেটা প্রটেকশন ও সাইবার সিকিউরিটি অ্যাক্ট নিয়ে কথা হয়েছে। তাদের নির্বাচন কমিশন থেকে একটি টিম এসেছিল সেই টিমে রিপোর্টের পরিপ্রেক্ষিতে আমরা কি চিন্তা ভাবনা করছি, রোহিঙ্গা ইস্যু এবং সর্বশেষ এন্টি ডিসস্ক্রিমিনেশন বেল সম্পর্কেও তাদের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। তারা ড. ইউনূসের মামলা সম্পর্কে জিজ্ঞেস করেছিল। এসব ব্যাপারেও তাদের সঙ্গে কথা হয়েছে।

তিনি বলেন, আমরা কবে নাগাদ শ্রম আইন পাস করতে যাচ্ছি এসব তারা জানতে চেয়েছিল। আমি তাদের বলেছি- আন্তর্জাতিক শ্রম আদালতে আমাদের বিরুদ্ধে যে নালিশ করা হয়েছিল সেই নালিশটার আমরা শেষ চাই। আমি তাদের বলেছি শ্রম আইন নিয়ে আমরা যথেষ্ট কাজ করেছি। শ্রম আইন সংশোধন নিয়েও কাজ করছি। আমার মনে হয় বিষয়টা শেষ করে দেওয়া উচিত। আগামী নভেম্বরে তাদের যে গভর্নিং বডির মিটিং হবে সেখানে আমাদের সমর্থন করার জন্য তাদের সঙ্গে কথা হয়েছে।

ড. ইউনূসের বিষয়ে কি কথা হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ড. ইউনূসের বিচার প্রক্রিয়া নিয়ে তাদের দেশ থেকে অনেকগুলো প্রশ্ন এসেছে সেসব বিষয়গুলো তারা পরিষ্কার হতে চেয়েছিলেন। ড. ইউনূসের ব্যাপারে যেসব মামলা রয়েছে আমি তাদের সেসব বলেছি। বলেছি- তিনি শ্রমিকদের অধিকার লঙ্ঘন করেছিলেন সেখানে মামলা হয়েছে। তাকে সাজা দেওয়া হয়েছে। ১০৮ জন শ্রমিক ব্যক্তিগতভাবে তার বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।


আরও খবর



বেনজীর কোন দেশে সেই বিষয়ে কোনো তথ্য নেই : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ০৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৫ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ কোন দেশে গেছেন, তা এখনো জানা নেই। এ বিষয়ে সরকারের কাছেও কো‌নো তথ্য নেই বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান।

বুধবার (৫ জুন) দুপু‌রে রাজধানীর রাওয়া কন‌ভেনশন সেন্টা‌রে ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজের ১০ম ব্যাচের নবীন বরণ অনুষ্ঠা‌নে এসব কথা বলেন তিনি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বেনজীর আহমেদ কোথায় গেছেন, আমার জানা নেই। আমি এখনো সুনিশ্চিত নয় যে, তিনি কোথায় গিয়েছেন। তিনি হয়ত ফিরে আসবেন এবং যে সমস্ত অপবাদ তার নামে আসছে বা অভিযোগ আসছে, তিনি সেগুলো মোকাবিলা করবেন।

আসাদুজ্জামান খান বলেন, আসামিদের জবানব‌ন্দি‌ অনুযায়ী মনে হচ্ছে সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনারকে হত্যা করা হয়েছে। তবে মাংস উদ্ধা‌রের বিষ‌য়ে তিনি ব‌লেন, ডিএনএ প‌রীক্ষা ছাড়া শতভাগ নি‌শ্চিত ক‌রে কিছুই বলা যা‌বে না।


আরও খবর
সাত নদীর পানি বিপদসীমার ওপরে

বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24