আজঃ বৃহস্পতিবার ১৩ মে ২০২১
শিরোনাম

৫৪ হাজার শিক্ষক নিয়োগে ৮৭ লাখ আবেদন

প্রকাশিত:রবিবার ০২ মে 2০২1 | হালনাগাদ:রবিবার ০২ মে 2০২1 | ৮৯জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দেশের বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৫৪ হাজার ৩০৪ জন শিক্ষক নিয়োগে এ পর্যন্ত প্রায় ৮৭ লাখ আবেদন পড়েছে। তৃতীয় ধাপের এই গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর থেকে অনলাইনে চাকরি প্রার্থীরা আবেদন করেন। এই আবেদনের টাকা জমা দেওয়ার শেষ তারিখ হচ্ছে আগামীকাল সোমবার (০৩ মে) পর্যন্ত। এ নিয়োগের জন্য অনলাইন আবেদন গত ৪ এপ্রিল থেকে শুরু হয়ে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত চলেছে। এখনও যারা আবেদন করে টাকা জমা দিতে পারেননি তারা আগামীকাল রাত পর্যন্ত টাকা জমা দিতে পারবেন।

গত ৩০ মার্চ জাতীয় নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ) ওয়েবসাইটে এ সংক্রান্ত একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। দেশের সব বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে (স্কুল, কলেজ, মাদরাসা, কারিগরি ও ব্যবসায় ব্যবস্থাপনা) ৫৪ হাজার ৩০৪টি পদে শিক্ষক নিয়োগের জন্য তৃতীয় ধাপে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়।

প্রত্যেক আবেদনকারী অনলাইনে আবেদন করার সময় একাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান চয়েজ দিতে পেরেছেন। আবেদনকারীকে আবেদন ফি বাবদ ১০০ টাকা পরিশোধ করতে হবে। তবে আবেদন সম্পন্ন হওয়া প্রার্থীরা নির্ধারিত সময়ের পরেও পরবর্তী ৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত ফি পরিশোধের সুযোগ পাবেন। সেজন্য আগামীকাল সোমবার রাত পর্যন্ত ফি পরিশোধের সুযোগ পাচ্ছেন।

নিউজ ট্যাগ: শিক্ষক নিয়োগ

আরও খবর



দেশে করোনায় মৃত্যু আরও কমল

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ মে ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ মে ২০২১ | ৮৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বিশ্বব্যাপী তাণ্ডব চালানো মহামারি করোনাভাইরাসে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন আরও ৪১ জন। এ নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১১ হাজার ৭৯৬ জনে। একই সময়ে নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছেন আরও ১ হাজার ৮২২ জনের দেহে। এ নিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৭ লাখ ৬৯ হাজার ১৬০ জনে।

করোনাভাইরাস নিয়ে বৃহস্পতিবার (৬ মে) বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদফতরের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। সেখানে উল্লেখ করা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন আরও ৩ হাজার ৬৯৮ জন। এখন পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ৭ লাখ ২ হাজার ১৬৩ জন।

এর আগে বুধবার (৫ মে) দেশে করোনায় ৫০ জন মারা যান, আর নতুন করে শনাক্ত হয় ১ হাজার ৭৪২ জন।

এদিকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্যানুযায়ী, বৃহস্পতিবার (৬ মে) সকাল পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে মারা গেছেন আরও ১৪ হাজার ১৭০ জন এবং নতুন করে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে ৮ লাখ ৩৪ হাজার ৬৫৩ জনের শরীরে। এ নিয়ে বিশ্বে মোট করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৩২ লাখ ৫৫ হাজার ১৬২ জনের এবং আক্রান্ত হয়েছেন ১৫ কোটি ৫৮ লাখ ১৭ হাজার ১৬০ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৩ কোটি ৩২ লাখ ১৪ হাজার ৭৭৪ জন।

করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও মৃত্যু হয়েছে বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাষ্ট্রে। তালিকায় শীর্ষে থাকা দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনা সংক্রমিত হয়েছেন ৩ কোটি ৩৩ লাখ ২১ হাজার ২৪৪ জন। মৃত্যু হয়েছে ৫ লাখ ৯৩ হাজার ১৪৮ জনের।

আক্রান্তে দ্বিতীয় ও মৃত্যুতে তৃতীয় অবস্থানে থাকা ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বের সর্বোচ্চ ৪ লাখ ১২ হাজার ৬১৮ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এখন পর্যন্ত দেশটিতে মোট সংক্রমণ হয়েছেন ২ কোটি ১০ লাখ ৭০ হাজার ৮৫২ জন। এ ছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে রেকর্ডসংখ্যক ৩ হাজার ৯৮২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে ভারতে এখন পর্যন্ত মোট মৃত্যু হয়েছে ২ লাখ ৩০ হাজার ১৫১ জনের।

আক্রান্তে তৃতীয় এবং মৃত্যুতে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ব্রাজিল এখন পর্যন্ত করোনায় এক কোটি ৪৯ লাখ ৩৬ হাজার ৪৬৪ জন সংক্রমিত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ৪ লাখ ১৪ হাজার ৬৪৫ জনের।

আক্রান্তের দিক থেকে চতুর্থ স্থানে রয়েছে ফ্রান্স। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫৭ লাখ ৬ হাজার ৩৭৮ জন। ভাইরাসটিতে মারা গেছেন এক লাখ ৫ হাজার ৬৩১ জন।

এই তালিকায় পঞ্চম স্থানে রয়েছে তুরস্ক। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ৪৯ লাখ ৫৫ হাজার ৫৯৪ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন ৪১ হাজার ৮৮৩ জন।এদিকে আক্রান্তের তালিকায় রাশিয়া ষষ্ঠ, যুক্তরাজ্য সপ্তম, ইতালি অষ্টম, স্পেন নবম এবং জার্মানি দশম স্থানে রয়েছে। এই তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান ৩৩তম।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরের শেষ দিকে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান থেকে করোনাভাইরাস সংক্রমণ শুরু হয়। এখন পর্যন্ত বাংলাদেশসহ বিশ্বের ২১৮টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে কোভিড-১৯।


আরও খবর



শরীয়তপুরে ৩৫ মন ঝাটকা ইলিশ জব্দ; ২ জনের জেল ও জরিমানা

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৬ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৬ এপ্রিল ২০২১ | ১২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

শরীয়তপুর থেকে সাইফ রুদাদ

শরীয়তপুরে জাজিরা উপজেলার মাঝিরঘাটে অভিযান চালিয়ে ৩৫ মন ঝাটকা ইলিশ জব্দ করেছে উপজেলা প্রশাসন। এছাড়াও ২ জনকে এক মাসের কারাদণ্ড ও ১ জনকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

নৌপুলিশের সহায়তায় জাজিরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আশরাফুজ্জামান ভূঁইয়া ঝাটকা ভর্তি একটি ট্রলার আটকিয়ে ৩৫ মন ঝাটকা ইলিশ জব্দ করেছেন। এসময় মৎস রক্ষা ও সংরক্ষণ আইনে মুন্সীগঞ্জ জেলার বাংলাবাজার গ্রামের সাইদুল হক মল্লিকের পুত্র জুয়েল মল্লিক(২১) ও একই গ্রামের শামসুদ্দিন বেপারীর পুত্র শফিকুল ইসলাম(২৬)কে এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়ে শরীয়তপুর জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। অন্যদিকে শামসুদ্দিন বেপারীর আরেক পুত্র নিয়ামুল(১৯)কে পাঁচ হাজার টাকা অর্থ দণ্ড দেওয়া হয়েছে।

জব্দ করা ঝাটকা ইলিশ মাছগুলো উপজেলার ৪০ টি এতিমখানায় পৌঁছে দেওয়া হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন উপজেলা প্রশাসন।

অভিযানের বিষয়ে জাজিরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আশরাফুজ্জামান ভূঁইয়া বলেন, ইলিশ আমাদের জাতীয় সম্পদ, এ সম্পদ রক্ষায় আমাদের অভিযান অভ্যাহত থাকবে।


আরও খবর



সরকারের পতন ঘটাতে জামায়াত নেতাদের সঙ্গে সখ্য ছিল মামুনুলের

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০21 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০21 | ৮৮৭জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
ইসলামি রাষ্ট্র কায়েম করতে হবে এই সরকারের পতন ঘটাতেই হতো। আর এই সরকার পড়ে গেলে হেফাজতের অনুগ্রহ ছাড়া কেউ রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসতে পারবে না। এই কারণে তিনি রাজধানীর যেকোনো কর্মসূচিতে সহিংসতার

হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক বর্তমান সরকারের পতনের মাধ্যমে ইসলামী রাষ্ট্র কায়েমের জন্য হেফাজত নেতাকর্মীদের উদ্বুদ্ধ করতেন। তিনি বিশ্বাস করেন, বর্তমান সরকারের পতন হলে কাউকে রাষ্ট্র ক্ষমতায় যেতে হলে হেফাজতের সমর্থন লাগবে। এই মিশনে তিনি আফগান ফেরত মুজাহিদ ও জামায়াত নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতেন। গোয়েন্দা পুলিশ কর্মকর্তাদের জিজ্ঞাসাবাদে তিনি এ সব কথা বলেছেন।

এদিকে রাজধানীর মোহাম্মদপুর থানায় করা মোবাইল চুরির মামলায় গ্রেফতার মামুনুল হককে সাতদিন রিমান্ডে নেওয়ার অনুমতি দিয়েছে আদালত। গোয়েন্দা পুলিশের একজন কর্মকর্তা বলেন, হেফাজতের মধ্যে অন্যতম উগ্রপন্থীনেতা মামুনুল হক। তিনি যেকোনো মূল্যে এই সরকারের পতন ঘটাতে চেয়েছেন। পরের দুই স্ত্রীর বিষয়ে জানতে চাইলে গোয়েন্দাদের জিজ্ঞাসাবাদে মামুনুল হক বলেছেন, তিনি পরের দুইজনকে বিয়ে করেননি। তবে দুইজন সাক্ষীর উপস্থিতিতে তাদের সঙ্গে পৃথকভাবে মামুনুলের চুক্তি হয়েছিল। এই চুক্তির কপিও উদ্ধার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। চুক্তিতে বলা হয়েছে, মামুনুল হক তাদের বিয়ে করবেন না। স্ত্রীর মর্যাদাও দেবেন না। তবে তাদের ভরণপোষণ দেবেন। এই শর্তে যে, তিনি স্ত্রীর মতো করে তাদের সঙ্গে মিশবেন। যেখানে যেতে বলবেন, সেখানে যেতে হবে এবং তার সঙ্গে রাত্রিযাপন করতে হবে।

গোয়েন্দা পুলিশের ওই কর্মকর্তা বলেন, মামুনুল হকের কাছে তারা জানতে চেয়েছিলেন, বিয়ে না করে কারো সঙ্গে চুক্তি করে থাকা যায় কি-না? জবাবে মামুনুল হক তাদের বলেছেন, এই শরীয়ত সম্মত। তিনি স্ত্রীর মর্যাদা না দিলেও তাদের ভরণপোষণ দিচ্ছেন। তার বিনিময়ে তারা তাকে সঙ্গ দিচ্ছেন। এটা ইসলামের বিধিবিধানের মধ্যেই তিনি করেছেন বলে দাবি করেছেন। তবে এই পরিস্থিতিতে সোনারগাঁওয়ের রিসোর্টে যাওয়া তার ঠিক হয়নি। আর গেলেও আগে থেকে প্রস্তুতি নিয়ে নেতাকর্মীদের জানিয়ে যাওয়া উচিৎ ছিল।

সরকারের পতনের বিষয়ে তাদের পরিকল্পনার বিষয়ে জানতে চাইলে গোয়েন্দাদের এই হেফাজত নেতা বলেন, ইসলামি রাষ্ট্র কায়েম করতে হবে এই সরকারের পতন ঘটাতেই হতো। আর এই সরকার পড়ে গেলে হেফাজতের অনুগ্রহ ছাড়া কেউ রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসতে পারবে না। এই কারণে তিনি রাজধানীর যেকোনো কর্মসূচিতে সহিংসতার উস্কানি দিতেন। তার মতে, হেফাজতের আমীর জুনায়েদ বাবুনগরীর চেয়েও বেশি উগ্রপন্থীতিনি। অন্য নেতাদের দিয়ে বিপ্লব হবে না। এই কারণে তিনি নিজেই দায়িত্ব নিয়ে নানা আন্দোলন সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়েছেন।

এদিকে সোমবার ঢাকা মহানগর হাকিম দেবদাস চন্দ্র অধিকারীর আদালতে হাজির করা হয় মামুনুল হককে। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদপুর থানার এসআই সাজেদুল হক আসামিকে সাতদিন রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করেন। এ সময় প্রথমে রাষ্ট্রপক্ষে ঢাকা মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল্লাহ আবু আসামিকে সাতদিন রিমান্ড মঞ্জুরের প্রার্থনা করেন। পরে আসামির পক্ষে জয়নুল আবেদীন মেজবা রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন আবেদন করেন। পরে বিচারক মামুনুল হকের কাছে জানতে চান তার কিছু বলার আছে কি না।

তখন মামুনুল হক আদালতে বলেন, স্যার, আমাকে গ্রেফতার করে গতকাল যেখানে রাখা হয়েছিল সেটি থাকার মতো জায়গা না। ওই রকম জায়গায় ইবাদত করা যায় না। অন্যান্য রমজানে আমি নিয়মিত কোরআন খতম করি। রিমান্ডে পাঠালে সুষ্ঠু পরিবেশ থাকবে না এবং আমার ইবাদত করা কঠিন হয়ে যাবে। গ্রেফতারের পর আমাকে অনেক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। আমাকে রিমান্ড দিয়েন না। এ মামলার বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। শুনানি শেষে মামুনুলের ইবাদতে যেন বিঘ্ন না হয় সেদিকে খেয়াল রাখার নির্দেশ দিয়ে আদালত ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

আদালতে দাখিল করা রিমান্ড আবেদনে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, মাওলানা মামুনুল হক এবং তার ভাইয়ের নির্দেশে অন্যান্য আসামিরা এ মামলার বাদির একটি স্যামসাং এ-৫০ মডেলের মোবাইল, নগদ ৭ হাজার টাকা, ২০০ ইউএস ডলার, ব্র্যাক ব্যাংকের একটি ডেবিট কার্ডসহ মানিব্যাগ চুরি করে নিয়ে যায়। গত বছরের ৬ মার্চ রাত সাড়ে ৮টার দিকে মোহাম্মদপুর সাত গম্বুজ মসজিদে আমল করাকালীন মামুনুল হক এবং তার ভাই মোহতামিম মাহফুজুল হকের নির্দেশে জামিয়া রহমানিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসার ছাত্র ওমর ও ওসমান এ মামলার বাদি জি এম আলমগীর শাহিনসহ অন্যদের আমল করতে বাঁধা দেয়।

আবেদনে আরও বলা হয়েছে, তাদের ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করে এবং মসজিদ থেকে বের হয়ে যেতে বলে। রাত ৮টা ৪০ মিনিটের দিকে আসামি ওমর, ওসমান, শাহিন, মাওলানা আনিস, জহির মসজিদে এসে বাদিসহ তার সঙ্গে থাকা অন্যদের কিল-ঘুষি মারে। মামুনুল হক এবং তার ভাইয়ের নির্দেশে মাদ্রাসার আরও প্রায় ৭০/৮০ জন এসে তাদের আবারও মারধর করে। বাদি জি এম আলমগীর শাহিনের একটি স্যামসাং মোবাইল, ৭ হাজার টাকা, ২০০ ইউএস ডলার, ব্র্যাক ব্যাংকের একটি ডেবিট কার্ডসহ বাদির মানিব্যাগ নিয়ে যায় আসামিরা।

তদন্ত কর্মকর্তা আদালতকে জানান, প্রাথমিকভাবে মামুনুল হকের বিরুদ্ধে এ মামলার ঘটনায় জড়িত থাকার সাক্ষ্য-প্রমাণ পাওয়া গেছে। এ আসামি ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করে রাষ্ট্রবিরোধী বিভিন্ন বক্তব্যের মাধ্যমে মুসলমান ও মাদরাসা ছাত্রদের উষ্কে দেয়। আসামির বিরুদ্ধে বাংলাদেশের বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। মামলার সুষ্ঠু তদন্ত, এজাহারনামীয় পলাতক অন্য আসামিদের গ্রেফতার, অজ্ঞাত আসামিদের নাম-ঠিকানা সংগ্রহ ও তাদের শনাক্তপূর্বক চোরাই যাওয়া মালামাল উদ্ধারের লক্ষ্যে তার ৭ দিনের রিমান্ড প্রয়োজন।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, আসামিরা বেআইনি সংঘবদ্ধ হয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে বাদিকে এলোপাথাড়ি মারধর করে গুরুতর আঘাত করে। এ ঘটনায় রাজধানীর মোহম্মদপুরের চাঁন মিয়া হাউজিংয়ের ৪১/৪০ নম্বর বাসার বি/১ ফ্লাটের বাসিন্দা জি এম আলমগীর শাহীন বাদি হয়ে ৬ মার্চ মামলা করেন।

নিউজ ট্যাগ: হেফাজতে ইসলাম

আরও খবর



দেশে গ্যাস অক্সিজেনের অভাব নেই : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৭ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ এপ্রিল ২০২১ | ৮৯জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

অক্সিজেন নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি বলেন, দেশে গ্যাস অক্সিজেনের অভাব নেই। শুধু করোনাকালে আমদানি করার প্রয়োজন হয়েছিল লিকুইড অক্সিজেন।

মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) রাজধানীর বিসিপিএস প্রাঙ্গণে সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা সারাবছর ভারত থেকে অক্সিজেন আমদানি করি না। এই করোনার সময় যখন সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী ছিল তখন প্রতিদিন আমরা আমদানি করেছি। কিন্তু গত চার পাঁচ দিন কোনও অক্সিজেন আসছে না, আমরা তো চলছি। আমাদের তো অক্সিজেনের অভাব নেই। আমরা তো শুধু লিকুইড অক্সিজেন দিয়ে কাজ করি না। সেন্ট্রাল অক্সিজেন লাইন তো নতুন হলো, এর আগেও হাসপাতালে অক্সিজেন ছিল। সেগুলোর কিছু লিকুইড অক্সিজেন, আর বেশিরভাগই ছিল গ্যাস অক্সিজেন।

জাহিদ মালেক বলেন, বাংলাদেশে গ্যাস অক্সিজেনের অভাব নেই। এর প্রোডাকশন ক্যাপাসিটি অনেক। আমাদের লোকাল যারা লিকুইড অক্সিজেন তৈরি করে তাদের সব নিয়ে আমরা হাসপাতালে দেবো, যেখানে প্রয়োজন হবে। আমাদের অনেক শিল্পকারখানাতেও লিকুইড অক্সিজেন নেয়, সেটাও আমরা রিজার্ভ করে ফেলেছি, প্রায় ৪০ টনের মতো। আমরা আমদানি করতাম ৪০-৫০ টন।

তিনি বলেন, আমাদের হাসপাতালগুলোতে যেখানে গ্যাস অক্সিজেন ব্যবহার করার সুযোগ আছে সেখানে আমরা বলেছি, গ্যাসে কনভার্ট করে ফেলতে বলেছি। এখন গ্যাস দিয়ে চলতে বলেছি। তাতে আমাদের লিকুইড গ্যাসের প্রয়োজন পড়বে না। পাশাপাশি আমরা ছোট ছোট প্ল্যান্ট ইমপোর্ট করার ব্যবস্থা নিয়েছি। এটাও পর্যাপ্ত না, কারণ সবদেশেও তো প্রয়োজন। এরপরও আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি, এগুলো নিয়ে এসে হাসপাতালে স্ট্যান্ডবাই রাখবো। কিন্তু বর্তমানে যে পরিমাণ রোগী আছে আমরা হিসাব করে দেখেছি, এই মুহূর্তে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। রোগী যদি ৭ হাজারের জায়গায় ২১ হাজার হয় তাহলে কিন্তু সংকট হবে। শুধু এই দেশ না, যেকোনও দেশেই সংকট হবে।

এ সময় স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



কক্সবাজারে পুলিশের ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স সেবা চালু

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ এপ্রিল ২০২১ | ৯২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
অসচ্ছল করোনা রোগী অথবা করোনা উপসর্গ আছে এমন ব্যক্তিকে হাসপাতালে পৌঁছে দেওয়ার জন্য অক্সিজেন সিলিন্ডারযুক্ত ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স সেবা চালু করা হয়েছে। করোনা আক্রান্ত রোগী বা স্বজনেরা পুলিশ

শ্রমজীবী, শারীরিক প্রতিবন্ধী ও দুঃস্থ নারী-পুরুষের মাঝে উপহার সামগ্রী বিতরণ করেছে কক্সবাজার জেলা পুলিশ। শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে পুলিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান এই উপহার সামগ্রী বিতরণ করেন। এর পাশাপাশি ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স সেবা চালু করেছে তারা।

পুলিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান বলেন, অসচ্ছল করোনা রোগী অথবা করোনা উপসর্গ আছে এমন ব্যক্তিকে হাসপাতালে পৌঁছে দেওয়ার জন্য অক্সিজেন সিলিন্ডারযুক্ত ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স সেবা চালু করা হয়েছে। করোনা আক্রান্ত রোগী বা স্বজনেরা পুলিশ কন্ট্রোল রুমের ০১৩২০১০৯৩৯৪ ও ০৩৪১-৬৪০৪৮ নাম্বারে ফোন দিলে তাৎক্ষণিক পৌঁছে যাবে ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স। এই সেবা কক্সবাজার জেলা পর্যন্ত সীমাবদ্ধ থাকবে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) পঙ্কজ বড়ুয়া, সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ মুনীর-উল-গীয়াস ও জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ মোহাম্মদ আলী।


আরও খবর